logo

মালয়েশিয়ায় প্রবাসীদের বিজয় দিবস উদযাপন

বৃহস্পতিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭

alt

আমার তখন মনে পড়ে যায় আমাদের শৈশবে আমরা বিজয় দিবসের প্রাককালে ছোটো ছোটো পতাকা দিয়ে পুরো বাড়ি সাজাতাম, বাড়ির ছাদ সাজাতাম। ছাদে সবচেয়ে উঁচু স্থানে একটা বাঁশে বড়ো একটা পতাকা টানাতাম তার চারপাশে দড়ির সাথে ছোটো ছোটো পতাকা লাগিয়ে নিচ পর্যন্ত চারদিকে ছড়িয়ে দিতাম। দেখে মনে হতো ঠিক যেন স্মৃতিসৌধ। এক একটি বাড়ির ছাদ যেন এক একটি স্মৃতিসৌধ হয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়াত, বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্রের জন্মের ইতিহাসের কথা বলত। ভাল লাগায় মন ভরে যায় যে, দেশ থেকে হাজার হাজার মাইল দূরে থেকেও আমাদের বাচ্চাদের মাঝে দেশের প্রতি আমাদের অনুভূতিগুলো ছড়িয়ে দিতে পারছি।

alt

দ্বিতীয় দিনের বিজয় র্যােলির পর প্রীতি ফুটবল ম্যাচের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের এই বিজয় দিবস উদযাপনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দেশের প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শনের পাশাপাশি আমাদের সন্তানদের মাঝে দেশেপ্রেমের বীজ বুনে দেয়া এবং দেশের ইতিহাস সম্পর্কে জানানো। সেই লক্ষ্যে তৃতীয় দিন অর্থাৎ ১৬ ডিসেম্বর আয়োজন করা হয় ছোটোদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। এতে অংশ নেয়া একবছর থেকে তেরো বছরের বাচ্চারা বাংলাদেশের প্রকৃতি, মুক্তিযুদ্ধ, স্মৃতিসৌধ এবং পতাকার ছবি আঁকে এবং এরপর মনোজ্ঞ সাংস্কতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

Picture

পুরো অনুষ্ঠানটি সাজানো হয় ছোটোদের জন্য মুক্তিযুদ্ধের আলোচনা, দেশের গান, নাচ আর কবিতা দিয়ে। অনুষ্ঠানে বড়োদের পাশাপাশি আমাদের ছোট্ট সোনামণিরা নাচে গানে পুরো সময়টি রাঙ্গিয়ে তোলে। সবশেষে প্রীতি ফুটবল ম্যাচের বিজয়ীদল ও ছোটদের চিত্র অঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। প্রবাস জীবনের শত ব্যস্ততার মাঝেও সকলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে তিনদিন ব্যাপী বিজয় দিবস উদযাপন করে যেন দেশের প্রতি তাদের শ্রদ্ধাকেই প্রদর্শন করলেন আরও একবার। যত দূরে, যেকোনো পরিবেশে থাকি না কেন আমাদের অস্তিত্বে, অন্তরে বাংলাদেশ। এ যেন দেশ থেকে দূরে যেয়ে দেশকে আরও বেশি করে বুকে ধারণ করা, লালন করা।


Copyright © 2010 Boston Bangla Newspaper.