Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/components/com_jcomments/js/images/images/stories/2015/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

নিউয়র্কের খবর

নিউইয়র্কের ড্রামা সার্কলের বাংলা নববর্ষ উদযাপন

রবিবার, ২২ এপ্রিল ২০১৮

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে :প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও ঐতিহ্য তুলে ধরতে এবং প্রবাস থেকে অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশের সমৃদ্ধিকে এগিয়ে নিয়ে যাবার প্রত্যয়ে নিউইয়র্কে বিভিন্ন সংগঠন উদযাপন করেছে বাংলা নববর্ষ। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল বৈশাখী মেলা, পান্তা-ইলিশ ভোজন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

alt

নিউইয়র্কের অন্যতম প্রধান সাংস্কৃতিক সংগঠন ড্রামা সার্কল প্রতি বছরের মতো বাংলা নতুন বছরকে বরণ করে নিতে স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় উডসাইডের কুইন্স প্যালেসে আয়োজন করে বর্ণাঢ্য বৈশাখ বরণ অনুষ্ঠানের। শত শত প্রবাসী বাংলাদেশি গভীর রাত পর্যন্ত এ অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। ড্রামা সার্কলের সভাপতি আবীর আলমগীর এবং আদিবা চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন নিউইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, নিউইয়র্ক সিটির কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট মেলিন্ডা কাটজ, কুইন্স ডেমোক্রেটিক লিডার অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী প্রমুখ।
 alt
ড্রামা সার্কলের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল পান্তা-ইলিশ অপ্যায়ন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পান্তা ইলিশ পর্ব উদ্বোধন করেন ডা. মাসুদুল হাসান। উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সাল থেকে ড্রামা সার্কল বাংলা নববর্ষ উদযাপন করে আসছে।


পিপল এন্ড টেক আমেরিকায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য প্রযুক্তি শিক্ষায় ১ মিলিয়ন ডলার শিক্ষাবৃত্তির ঘোষণা

রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৮

Picture
পিপল্ এন টেকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আবু বকর হানিপ রোববার নিউ ইয়র্কে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এই ঘোষণা দেন। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট, ফারহানা হানিপ এবং উর্ধতন কর্মকর্তাগণও উপস্থিত ছিলেন।
ঘোষিত এই শিক্ষাবৃত্তির আওতায়, পিপল এন্ড টেক প্রতিষ্ঠান থেকে ২৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে অথবা স্বল্পমুল্যে প্রযুক্তি প্রশিক্ষন প্রদান করা হবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে সফটওয়ার টেস্টিং ( ইউএফটি/মোবাইল অটোমেশন-এ ৫০ জন, সফটওয়ার টেস্টিং-সেলেনিয়াম এ ৫০ জন, Software testing with DevOps ( AWS, AZURE),-৫০ জন। ফ্রন্ট এন্ড ডেভেলপমেন্ট ৫০ জন (Front End Development (HTML, C SS, JavaScript, AngularJS)
৫০ এবং ডেটাবেজ এ্যাডমিনেস্ট্রেশন এ ৫০ জন শিক্ষার্থীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি কর্মবাজারের জন্য উপযুক্ত করে গড়ে তোলা হবে। পিপল এন্ড টেক এর নিয়মিত কোর্স ফি ৪ হাজার ডলার, তবে বৃত্তিপ্রাপ্তদের ক্ষেত্রে এই ফি পুরোপুরি মওকুপ করা হবে বলে জানিয়েছেন আবুবকর হানিপ।

alt
১৪ বছরে প্রতিষ্ঠানটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি শ্রমবাজারে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থীর চাকুরীর ব্যবস্থা করেছে বলে দাবী করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। যার, অন্তত ৪ হাজার জনই বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত। প্রযুক্তি খাতে ভাল বেতনে চাকুরী পাওয়ার নিশ্চয়তা দিয়েই এই বৃক্তি ঘোষনা কালে, জানানো হয়, আগামী এক বছরের মধ্যে উপযুক্ত বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা এই সুবিধার আওতায় বিনা খরচে অথবা স্বল্প খরচে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণপূর্বক যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার মূলধারার প্রযুক্তি কর্ম-বাজারে উচ্চ বেতনে কাজের সুযোগ গ্রহণ করতে পারবেন।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় ৬ টি ক্যাম্পাস ছাড়াও বাংলাদেশের ঢাকায় পিপল এন্ড টেক এর ২০ হাজার স্কয়ারফুটের একটি বিশাল নতুন ক্যাম্পাস খোলা হয়েছে। ঢাকার ক্যাম্পাস থেকেও শিক্ষার্থীরা প্রযুক্তিতে উচ্ছশিক্ষা গ্রহন করতে পারবে। অনলাইনে সেখানেও আমেরিকার কোর্স কারিকুলাম শেখানো হচ্ছে একই পদ্ধিততে। আগ্রহীরা সেখান থেকে প্রশিক্ষন গ্রহন করতে পারবে বলেও জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে। প্রশিক্ষন শেষে যুক্তরাষ্ট্রের প্রবেশ সাপেক্ষে, বছরে ৮০ হাজার থেকে ২ লক্ষ ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা।
আবু বকর হানিপ জানান, বিগত কয়েক বছরে পিপল্ এন টেক প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিয়ে পাঁচ হাজারেরও বেশি তরুন-তরুনীকে যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার প্রযুক্তি খাতে উচ্চ বেতনের কাজ জুটিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে, যাদের বেশির ভাগই বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত। ইতিমধ্যেই প্রতিষ্ঠানটি ঢাকায় একটি ক্যাম্পাস চালু করেছে এবং সেখান থেকেও বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কোম্পানিতে আকর্ষণীয় বেতনে কাজের সুযোগ পেয়েছে। তিনি জানান, পিপল এন টেক নিয়মিতভাবেই মেধাবী শিক্ষার্থীদেরকে স্কলারশিপ বা বৃত্তি দিয়ে থাকে। সেই ধারাবাহিকতায় এবার আরও বেশি সংখ্যক বাংলাদেশী শিক্ষার্থীকে আমেরিকান ও কানাডাীয় প্রযুক্তি খাতের সুবিশাল কর্মবাজারে কাজের সুযোগ করে দেওয়ার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানের এ যাবতকালের সবচেয়ে বড় অংকের বৃত্তি ঘোষণা করল। যথানিয়মে মেধা যাচাই পরীক্ষার ভিত্তিতে বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে এই সুবিধা প্রদান করা হবে। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র কিংবা কানাডায় বসবাসকারী বাংলাদেশীরা তো বটেই, এমনকি বাংলাদেশে অবস্থানরত উপযুক্ত প্রার্থীরাও নির্ধারিত নিয়মে এই সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

alt

সংবাদ সম্মেলনে জাহিদুল ইসলাম নামের একজন শিক্ষার্থী জানান, তিনি বাংলাদেশ থেকেই পিপল এন্ড টেক এর প্রশিক্ষন নেন। পরে আমেরিকা এসে তিনি কর্মবাজারে প্রবেশ করেছেন। বছরে প্রায় ৮০ হাজার ডলার বেতনের চাকুরী করছেন। জাহিদুল ইসলাম জানান, শুধু ভর্তি হলেই কেউ কাউকে চাকুরীর নিশ্চয়তা দেবে না, তবে কঠোর পরিশ্রম করলে, এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা নিয়ে যে জীবন বদলে দেয়া যায় সেটা আমি বিশ্বাস করতে শুরু করেছি।
আগে থেকেই পিপল এন্ড টেক এর বৃত্তি সুবিধা প্রচালিত ছিল কিন্তু এটা একক ভাবে নিদৃষ্ট সময়ের জন্য সবচে বড় স্কলারশিপ এর আয়োজন।
‘আমাদের মুল উদ্দেশ্য-ই হলো বাংলাদেশী তরুন দের প্রযুক্তি শিক্ষা এবং দক্ষতায় উপযুক্ত করে গড়ে তোলা যেন, উত্তর আমেরিকার প্রযুক্তি বাজারে দখল নিতে পারে একদিন তারা’ -সংবাদ সম্মেলনে জানান প্রকৌশলী আবু বকর হানিপ।


আগামি ৩০ এপ্রিলের মধ্যে আগ্রহীদের আবেদন করতে হবে।
এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আগ্রহীদেরকে
Address: 1604 Spring Hill Rd, Suite # 302 , Vienna, VA 22182
Tel:1-855-JOB-PIIT(1-855-562-7 448),
এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।
www.peoplentech.com,

-এই ঠিকানায় যোগাযোগের পরামর্শ দেয়া হয়।

PeopleNTech Institute of Technology
1604 Spring Hill Road, Suite# 302, Vienna, VA 22182
Cell: 703-401-6292
Email: এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।
Website: www.piit.us
Social Networks:YouTube | Facebook | No more Odd Jobs-

alt

One of the most reputed and well-known IT training and job providers of the United States, PeopleNTech has announced 1 million dollar scholarships. Under this scholarship program, students will have full or partial eligibility of the funds to acquire a degree in IT-related programs. After successful completion of the courses, students can get higher paid salary and job in the USA and Canada IT job market.

The founder and CEO of PeopleNTech, Engineer Abubakar Hanip announced this scholarship program at a press conference in New York on Sunday, April 1st, 2018. The president of the institution Mrs. Farhana Hanip and other senior officials were also present at the press conference.

The scholarship fund will be disbursed in the form of 250+ individual tuition scholarships for PIIT courses.  The award of these scholarships will be distributed among 5 different fields of specializations; 50 in Software testing with UFT/ Mobile Automation, 50 in Software testing with Selenium, 50 in Software testing with DevOps (AWS, AZURE), 50 in Front End Development (HTML, CSS, JavaScript, AngularJS) and 50 in Database Administration. The regular charge for the courses is $4000. However, the entire course fee will be waived for those who will receive the full scholarships.

Mr. Hanip told the press that, ‘So far we have been able to provide over 5000 jobs for the PeopleNTech students in the past few years, many of them are Bangladeshis too. Our new mission is to provide job to the new immigrants as soon as he/she enters the USA. We have already successfully provided job to students, who have completed courses from our Dhaka branch.’

The press was informed that, besides 6 campuses in the United States, India, and Canada, the PeopleNTech has an IT training office in Dhaka too. In those branches, students can peruse their degree on IT related courses, through physical or online classes. They also informed that students do not need to have a higher educational background for IT courses. A simple degree in any major field is enough for this IT education; in return, he/she can get a job which can pay $80,000-$200,000 yearly.

In this press gathering, there was a student, Mr. Zahidul Islam informed the press that he at first he also didn't believe that the People N Tech training can ensure his job here at the United States.

'I started my classes at Dhaka branch. Because or hard work and deep concentration, I got a job which pays me 80,000 yearly. This happens only within three months I arrived in the United States.'-  Mr. Zahidul told the press.

PeopleNTech had their regular scholarship program in the past, where financially struggling and potentially smart students used to receive them. But this time they have announced their biggest ever, scholarship program.

“Our main goal is to educate Bangladeshi students in the IT field, so that one day Bangladesh can lead the ever and vast growing IT industry in the United States’-Added Engr. Abubakar Hanip.

The applicant can send resume, degree certificate, picture & cover letter to এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে। by April 30, 2018. For more info: Tel:1-855-JOB-PIIT(1-855-562-7 448), www.peoplentech.com,
Address: 1604 Spring Hill Rd, Suite # 302 , Vienna, VA 22182
Tel:1-855-JOB-PIIT(1-855-562-7 448),
এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।
www.peoplentech.com,

ইভেন্ট ভিডিও:
https://www.youtube.com/watch? v=3E6qgE9JsOA


নিউইয়র্কে কবি কাজী রোজী এমপি -এর হাতে প্রবাস-মেলা পত্রিকা

রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৮

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি , বাপসনিউজ : জাতিসংঘের দু’টি ইভেন্টে যোগদান উপলক্ষে নিউইয়র্ক সফররত বাংলাদেশের দু’টি পৃথক ডেলিগেটর কবি কাজী রোজী এমপি -এর হাতে পাক্ষিক প্রবাস-মেলা কপি তুলে দেন পত্রিকাটির যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি ও আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন গত ২২ মার্চ নিউইয়র্কে জাতীয় উদযাপনের সাথে মিল রেখে এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য আনন্দমূখর পরিবেশে উদযাপন করা হল। বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী, আমন্ত্রিত বিদেশী অতিথি এবং স্থায়ী মিশন ও কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ও বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিউইয়র্কের যৌথ আয়োজনে এই আনন্দঘন মূহুর্ত উদযাপন শেষে কনস্যুলেট জেনারেল মিলনায়তনে তার হাতে পত্রিকার সৌজন্য কপি তুলে দেন । খবর বাপসনিউজ।

Picture

এ সময় অন্যান্যদের মাঝে কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, সহ বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ছবিতে কবি কাজী রোজী এমপি এমপি -এর হাতে পাক্ষিক প্রবাস-মেলা কপি তুলে দিচেছন প্রবাস-মেলা যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি সিনিয়র সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন এবং পাশে কনসাল জেনারেল শামীম আহসানের সহধমিনী পেনডোরা চেীধুরী ।ছবি বাপসনিউজ। পত্রিকাটি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দেশের প্রথম এবং একমাত্র পাক্ষিক ম্যাগাজিন। প্রবাসীদের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়মিতভাবে পত্রিকাটিতে তুলে ধরা হচ্ছে। প্রবাসীরা প্রবাস জীবনের অনুভ’তি অভিজ্ঞতা নিয়ে যে কোন লেখা পাঠাতে পারেন( এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে। )।


নিউইয়র্কে সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজ এলামনাই নাইট : প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের আন্তর্জাতিক মিলনমেলা

রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৮

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : অক্সফোর্ড অব দ্য ইস্ট খ্যাত সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের মিলনমেলা ও জমকালো সাংস্কৃতিক পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হয়েছে নিউইয়র্কে। সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজ এলামনাই এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইনক গত রোববার সন্ধ্যায় সিটির উডসাইডের গুলশান ট্যারেসে এ আয়োজন করে।

Picture

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কসহ বিভিন্ন স্টেটে বসবাসরত কলেজটির বিপুল সংখ্যক প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা যোগ দেন ”সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজ এলামনাই নাইট ২০১৮” – শিরোণামে এ বর্ণাঢ্য উৎসবে।

 alt  alt
প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের এ মিলনমেলায় কলেজ জীবনের সুখ-দু:খের স্মৃতি, খোশ গল্পের সরেশ আড্ডায় মেতে ওঠেন একে অপরের সাথে। পুরানো বন্ধুদের একসাথে পেয়ে ফটো সেশনে নিজেদের স্মৃতি ধারণ করেন অনেকেই।

altalt
সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজ এলামনাই এসোসিয়েশন অব ইউএসএ ইনক’র সভাপতি বেলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক জামাল সুয়েজ আহমেদের পরিচালনায় এ পূনর্মিলনীতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান ও এলামনাই নাইট উদযাপন কমিটি ২০১৮’র আহবায়ক সুফিয়ান এ খান।

altalt
কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান তার বক্তব্যে সিলেট এমসি এন্ড গভ: কলেজের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ঐতিহ্যবাহী এ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিরাট ভূমিকা রেখে চলেছেন।

altalt
অনুষ্ঠানে সম্প্রীতি ও সৌহার্দপুর্ণ পরিবেশে সভাপতি বেলাল উদ্দিন ট্রাস্টি বোর্ড ও কার্যকরী সদস্যদের এবং আহবায়ক সুফিয়ান এ খান আহবায়ক কমিটির সদস্যদের মঞ্চে এনে পরিচয় করিয়ে দেন। সংগঠনের পক্ষ থেকে প্ল্যাক প্রদান করা হয় শফিক উদ্দিন চৌধুরীকে।

altalt
অনুষ্ঠান উপলক্ষে ’স্মৃতিতে শ্রুতিতে’ নামে তথ্যসমৃদ্ধ একটি স্মরণিকা প্রকাশ করা হয়। স্মরণিকাটিতে কলেজের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরা হয়েছে। সম্পাদনা পরিষদ সদস্য মো. আমিনুল হক চুন্নু অন্যদের সাথে নিয়ে স্মরণিকাটির মোড়ক উন্মোচন করেন।

alt alt

অনুষ্ঠানেএলামনাই নাইট উদযাপন কমিটি ২০১৮’র সদস্য সচিব সাখাওয়াত আলীর পরিচালনায় এলামনাই নাইট ভিডিও প্রদর্শণ করা হয়।সাধারণ সম্পাদক এবং সদস্য সচিব উপস্থিত কলেজের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের পরিচয় করিয়ে দেন।অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডা. সাদুজ্জামান চৌধুরী, ডা. শফিকুন্নেছা খানম চৌধুরী, ডা. জিয়াউদ্দিন আহমেদ, হুসাম এম চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশনের সভাপতি স্বপন বড়–য়া, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশননের সভাপতি সৈয়দ মিজানুর রহমান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদসহ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

altalt
বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এর পর কলেজের প্রয়াত ছাত্র-ছাত্রীসহ সকল শহীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন এলামনাই নাইট উদযাপন কমিটি ২০১৮’র যুগ্ম আহবায়ক দেওয়ান শাহেদ চৌধুরী।

altalt
এর আগে কলেজের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের রেজিট্রেশন এবং অতিথিদের এপিটাইজার পরিবেশন করা হয়।
অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে প্রবাসের সেরা সঙ্গীত শিল্পী শাহ মাহবুব ও বিউটি দাশের গানে মাতোয়ারা ছিলেন সবাই। বেশ ক’টি একক ও দ্বৈত সঙ্গীতে স্টেজ মাতিয়ে রাখেন তারা। গভীর রাত পর্যন্ত চলে বর্ণিল পরিবেশনা। সঙ্গীত চলাকালে নৈশভোজে আপ্যায়িত করা হয় উপস্থিত সকলকে।

altalt
অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীরা যার যার অবস্থান থেকে দেশ ও প্রবাসের কল্যাণে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তারা আয়োজকদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞা প্রকাশ করেন এমন সুন্দর আয়োজনের জন্য।

altalt
সভাপতি বেলাল উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক জামাল সুয়েজ আহমেদ সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতায় সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশের এমন আয়োজন সম্ভব হয়েছে।


নিউইয়র্কে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি -এর হাতে প্রবাস-মেলা পত্রিকা

রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৮

Picture

এ সময় অন্যান্যদের মাঝে কনসাল জেনারেল শামীম আহসানসহ বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ছবিতে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমএমপি -এর হাতে পাক্ষিক প্রবাস-মেলা কপি তুলে দিচেছন প্রবাস-মেলা যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি সিনিয়র সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন।ছবি বাপসনিউজ। পত্রিকাটি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দেশের প্রথম এবং একমাত্র পাক্ষিক ম্যাগাজিন। প্রবাসীদের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়মিতভাবে পত্রিকাটিতে তুলে ধরা হচ্ছে। প্রবাসীরা প্রবাস জীবনের অনুভ’তি অভিজ্ঞতা নিয়ে যে কোন লেখা পাঠাতে পারেন( এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে। )


নিউইয়র্কে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি -এর হাতে প্রবাস-মেলা পত্রিকা

রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৮

Picture

বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী, আমন্ত্রিত বিদেশী অতিথি এবং স্থায়ী মিশন ও কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ও বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিউইয়র্কের যৌথ আয়োজনে এই আনন্দঘন মূহুর্ত উদযাপন শেষে কনস্যুলেট জেনারেল মিলনায়তনে তার হাতে পত্রিকার সৌজন্য কপি তুলে দেন । খবর বাপসনিউজ। এ সময় অন্যান্যদের মাঝে কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, সহ বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

alt

ছবিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি -এর হাতে পাক্ষিক প্রবাস-মেলা কপি তুলে দিচেছন সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন।ছবি বাপসনিউজ। পত্রিকাটি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দেশের প্রথম এবং একমাত্র পাক্ষিক ম্যাগাজিন। প্রবাসীদের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়মিতভাবে পত্রিকাটিতে তুলে ধরা হচ্ছে। প্রবাসীরা প্রবাস জীবনের অনুভ’তি অভিজ্ঞতা নিয়ে যে কোন লেখা পাঠাতে পারেন ( এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে। )।


নিউইয়র্ক স্টেট সিনেট ও অ্যাসেম্বলি হাউসে ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন

শুক্রবার, ৩০ মার্চ ২০১৮

Picture

নিউইয়র্ক অ্যাসেম্বলি ও স্টেট সিনেটে বাংলাদেশের ৪৭ তম স্বাধীনতা দিবসের ওপর পৃথকভাবে রেজুলেশন গ্রহণ করা হয়। স্টেট অ্যাসেম্বলিম্যান লুইস সেপুলভেদা ও স্টেট সিনেটর জামাল টি. বেইলী স্টেট অ্যাসেম্বলি ও সিনেট হাউজে এসংক্রান্ত প্রস্তাবনা উত্থাপন করেন। স্টেট সিনেট ও এসেম্বলী অধিবেশনের রেজুলেশন দু’টিতে তুলে ধরা হয় বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস। সিনেট এবং এসেম্বলি গ্যালারি এদিন পুরোটাই সংরক্ষিত ছিল শুধু বাংলাদেশীদের জন্য। উভয় হাউজে শোভা পেল বাংলাদেশের পতাকা। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে অংশগ্রহণ করেন ১২০ জন বাংলাদেশী।
alt
এ্যাসেম্বলী হাউজের অধিবেশন চলাকালে ‘বাংলাদেশ ডে’র প্রস্তাবনাটি প্রথমে গৃহীত হয়। এদিন স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় পবিত্র বাইবেল থেকে পাঠের পর পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে এ্যাসেম্বলী অধিবেশন শুরু হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা মাসহুদ ইকবাল। এর পর এ্যাসেম্বলী হাউজে প্রবাসী বাংলাদেশীদের কাছে ‘লুইস ভাই’ হিসেবে খ্যাত এ্যাসেম্বলীম্যান লুইস সিপুলভেদা উত্থাপিত বাংলাদেশ ডে প্রস্তাবনাটি পাঠ করে শুনানো হয়। এতে বলা হয়, তৎকালীন পাকিস্তান সামরিক সরকার বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে গণহত্যা চালিয়েছিল। ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয় ৩০ লাখ মানুষ। সম্ভ্রমহানি হয় ২ লাখ মা-বোনের।

alt

রেজুলেশনে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রহমানের নাম উল্লেখ করে তাঁকে বিশেষভাবে স্মরণ করা হয়। এর সমর্থনে বেশ ক’জন এ্যাসেম্বলীম্যান সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশ ডে রেজুলেশন গ্রহণকালে এ্যাসেম্বলী ফ্লোরে উপস্থিত থাকেন ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন কমিটির চেয়ারম্যান আবদুর রহিম বাদশা, লেখক-বিজ্ঞানী ও সিটি কাউন্সিল মেম্বার মুক্তিযোদ্ধা ড. নূরান নবী, কমিউনিটি লীডার এডভোকেট নাসির উদ্দিন, নজরুল হক, আবদুল মুসাব্বির,  শামীম মিয়া, এ ইসলাম মামুন, আহবাব হোসেন চৌধুরী, জামাল হোসেন ও কামাল উদ্দিন। এসময় অন্যান্য প্রবাসী বাংলাদেশীরা হাউজ কক্ষের গ্যালারীতে উপবিষ্ট ছিলে।

alt
এদিন দুপুর ৪টায় স্টেট সিনেটের অধিবেশনে ‘বাংলাদেশ ডে’র রেজুলেশন গ্রহণ অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা মাসহুদ ইকবাল। এরপর সিনেটর জামাল টি বেইলি উত্থাপিত বাংলাদেশ ডে প্রস্তাবনাটি পাঠ করে শুনানোর পর ৫ জন সিনেটর এর সমর্থনে জোরালে বক্তব্য রাখেন। এখানেও বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস স্থান পায়। পরে সিনেট হাইজে রেজুলেশনটি সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়। বাংলাদেশ ডে রেজুলেশন উপস্থাপনকালে সিনেট ফ্লোরে উপস্থিত ছিলেন ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন কমিটির মুখপাত্র আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদার, লেখক-বিজ্ঞানী ও সিটি কাউন্সিল মেম্বার মুক্তিযোদ্ধা ড. নূরান নবী, কমিউনিটি লীডার সোলেমান আলী ও মাহবুব আলম। হাউজ কক্ষের গ্যালারীতে উপবিষ্ট ছিলেন অন্যান্য প্রবাসী বাংলাদেশীর।স্টেট এ্যাসেম্বলী হাউজ ও সিনেট হাউজের আনুষ্ঠানিকতা শেষে স্টেট সিনেটর জামাল টি বেইলি ও এ্যাসেম্বলীম্যান লুইস সিপুলভেদা আলবেনী হলে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সম্মানে এক অভ্যর্থনা পার্টির আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ডে কমিটির কাছে এ্যাসেম্বলীম্যান লুইস সিপুলভেদা ও সিনেটর জামাল টি বেইলি হাউজ দু’টিতে পাসকৃত রেজুলেশনের কপি হস্তান্তর করেন। এছাড়া এসময় বিশিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এবং বাংলাদেশ ডে কমিটিকে প্রক্লেমেশন প্রদান করা হয়।
 alt
‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন কমিউনিটি চেয়ারম্যান আবদুর রহিম বাদশার সভাপতিত্বে এবং কমিটির মুখপাত্র আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদারের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্টেট সিনেটর জামাল টি বেইলি ও এসেম্বেলীম্যান লুইস সিপুলভেদা ছাড়াও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন অন্যান্য স্টেট সিনেটর ও এসেম্বেলীম্যানগণ। তারা ক্রমবর্ধমান বাংলাদেশী কমিউনিটির ভূয়শী প্রশংসা করেন। তুলে ধরেন নানা ক্ষেত্রে তাদের অবদানের কথাও।এসময় এ ঐতিহাসিক আয়োজনের জন্য বাংলাদেশীদের পক্ষ থেকে অ্যাসেম্বলিমেন লুইস সেপুলভেদা ও স্টেট সিনেটর জামাল টি বেইলিকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানানো হয়।এদিকে, আলবেনী হলে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সম্মানে এ অভ্যর্থনা পার্টির ব্যানারে ‘বাংলাদেশ ডে’র স্থলে ‘বেঙ্গলী ডে’ হওয়ায় এসেম্বেলীম্যান লুইস সিপুলভেদা দু:খ প্রকাশ করেন।
 alt
প্রক্লেমেশন প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন : ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন কমিউনিটি চেয়ারম্যান আবদুর রহিম বাদশা, বাফা প্রেসিডেন্ট ফরিদা ইয়াসমিন, কমিউনিটি লীডার আবদুস সহীদ, ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন কমিউনিটি মেম্বার সেক্রেটারী শাহেদ আহমদ, মামুন’স টিউটরিয়ালের প্রিন্সিপাল শেখ আল মামুন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন, কমিউনিটি লীডার মোহাম্মদ দলা মিয়া, আল আকসা গ্রুপের কর্ণধার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হক শাহীন (আল আকসা গ্রুপের পক্ষে প্রক্লেমেশন গ্রহণ করেন ম্যানেজার মো. আলী, খলিল বিরিয়ানী হাউজের স্বত্ত্বাধিকারী রন্ধন শিল্পী,খলিলুর রহমান এবং কমিউনিটি লীডার রেক্সোনা মজুমদার।
 alt
এছাড়া আয়োজক সংগঠন গুলোকেও প্রক্লেমেশন প্রদান করা হয়। সংগঠন গুলোকে হচ্ছে : বাংলাদেশ-আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিল, বাংলাদেশ সোসাইটি অব বঙ্কস, বঙ্কস বাংলাদেশ সোসাইটি, বাংলাদেশী আমেরিকান কালচারাল এসোসিয়েশন, বাংলাদেশী-আমেরিকান ডেমোক্রেটিক সোসাইটি, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন, বঙ্কস বাংলাদেশ এসোসিয়েশন, নর্থ বঙ্কস বাংলাদেশএসোসিয়েশন, বাঙালী চেতনা মঞ্চ, বঙ্কস বাংলাদেশ উইম্যান’স এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ আমেরিকান উইম্যান’স এসোসিয়েশন, ফেঞ্চুগঞ্জ অর্গেনাইজেশন অব আমেরিকা , গ্রেটার লাকসাম ফাউন্ডেশন অব ইউএসএ , বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব নর্থ আমেরিকা, কংগ্রেস অব বাংলাদেশ আমেরিকান , বাংলাদেশ স্পোর্টস ফাউন্ডেশন অব নর্থ আমেরিকা, নজাবত আলী ফাউন্ডেশন এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব নিউজার্সী।
 alt
এর আগে ২৭ মার্চ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টায় ব্রঙ্কস থেকে দু’টি বাসযোগে প্রায় ১২০ জন বাংলাদেশী বাংলাদেশ ডে অনুষ্ঠানমালায় যোগ দিতে আলবেনিতে সমবেত হন। বিকেল সাড়ে ৫টায় বর্ণাঢ্য এ অনুষ্ঠান শেষ হয়। । অংশগ্রহণকারীদের জন্য দুপুরের খাবার পরিবেশন করে ব্রঙ্কসের স্বনামখ্যাত খলিল বিরিয়ানী হাউজ।এদিকে, ‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগদানকারী প্রবাসী বাঙালীরা তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করে বাপসনিউজকে বলেন, নিউইয়র্ক অ্যাসেম্বলি ও স্টেট সেনেট হাউজে বাংলাদেশকে যেভাবে তুলে ধরা হয়েছে, তা অসাধারণ। অনন্য।  ভাষায় ব্যক্ত করার মত নয়। যা অংশগ্রহনকারী সকলে গর্বের সাথে উপভোগ করেন। তারা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট সিনেট ও এ্যাসেম্বলীতে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস উদযানের এ আনন্দ, এ গর্ব শুধু প্রবাসীদের নয়, এ আনন্দ গোটা বাংলাদেশে। এর আগে দিবসটি যথাযথভাবে উদযাপনের জন্য গত ১২ মার্চ গঠন করা হয় ১৫ সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি। কমিটির সদস্যরা হলেন : চেয়ারম্যান আবদুর রহিম বাদশা, মেম্বার সেক্রেটারী শাহেদ আহমদ, কোষাধ্যক্ষ মনজুর চৌধুরী জগলুল, সহ কোষাধ্যক্ষ শামীম আহমেদ, সদস্য মোহাম্মদ এন মজুমদার, আবদুস শহীদ, মাহবুবুল আলম, শামীম মিয়া, আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী, আহবাব চৌধুরী, তৌফিকুর রহমান ফারুক, এ ইসলাম মামুন, ফরিদা ইয়াসমিন, রেক্সোনা মজুমদার এবং বুরহান উদ্দিন। অন্যতম সদস্য আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদার এ কমিটির মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
 alt
উল্লেখ্য, ঐতিহাসিক বাংলাদেশ ডে বিলটি পাশ হয় ২০১২ সালের ২৪ মার্চ। এই ঐতিহাসিক উদ্যোগটির প্রধান রূপকার ছিলেন ব্রঙ্কস থেকে নির্বাচিত সাবেক সিনেটর বর্তমান কাউন্সিলম্যান রুবিন ডিয়াজ। তাকে রেজুলেশন তৈরিতে সহযোগীতা করেন প্রবাসী বাংলাদেশীদের কাছে ‘লুইস ভাই’ হিসেবে পরিচিত এটর্নী লুইস সিপুলভেদা (বর্তমান এসেম্বলিম্যান)। তাদের সহযোগীতা করেন ব্রঙ্কস প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউন িটির নের্তৃবৃন্।ওই সময় বিলটি সিনেটে উত্থাপিত হলে সিনেটর রুবিন ডিয়াজ সিনেটে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিবরণ তুলে ধরেন। তিনি ১৯৭১ সালের মার্চে অপারেশন সার্চ লাইটের নামে গণহত্যা, মুক্তিযুদ্ধের নয় মাসে বাংলাদেশীদের আত্মত্যাগ এবং পাকিস্তানী বাহিনীর হাতে বাংলাদেশী মা-বোনদের সম্ভ্রমহানির কথা সবিস্তারে তুলে ধরেন। সেদিন মাত্র ২০ মিনিটের মধ্যে এই ঐতিহাসিক বিলটি সর্বসম্মতভাবে সিনেটে পাশ হয়।
 alt
‘বাংলাদেশ ডে’ উদযাপনের প্রথম আহ্বায়ক কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন মোহাম্মদ এন মজুমদার এবং মেম্বার সেক্রেটারী ছিলেন মরহুম জাকির খান। নিউইয়র্ক সিটিসহ বিভিন্ন স্থান থেকে জড়ো হওয়া প্রবাসী বাঙালিদের বিশেষভাবে অভ্যর্থনা জানানো হয় সিনেট ও এ্যাসেম্বলী হলে। মার্কিন মুল্লুকে বাংলাদেশ ও বাঙালিদের বিশেষ সম্মান জানানোর এ অনুষ্ঠান ২৭ মার্চ মঙ্গলবার নিউইয়র্কের রাজধানী আলবেনীতে অনুষ্ঠিত হয়। নিউইয়র্ক সিটি থেকে দেড়শত মাইল দূর আলবেনীর এ অনুষ্ঠানে শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশী অংশ নেন।।খবর বাপসনিঊজ


এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য আনন্দমূখর পরিবেশে উদযাপিত হল নিউইয়র্কে

শনিবার, ২৪ মার্চ ২০১৮

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:নিউইয়র্ক : গত ২২ মার্চ নিউইয়র্কে জাতীয় উদযাপনের সাথে মিল রেখে এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্য আনন্দমূখর পরিবেশে উদযাপন করা হল। বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী, আমন্ত্রিত বিদেশী অতিথি এবং স্থায়ী মিশন ও কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারিগণের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ও বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিউইয়র্কের যৌথ আয়োজনে এই আনন্দঘন মূহুর্ত উদযাপন করা হয়।খবর বাপসনিঊজ।

Picture

কনস্যুলেট জেনারেল মিলনায়তনে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের দু’টি ইভেন্টে যোগদান উপলক্ষে নিউইয়র্ক সফররত বাংলাদেশের দু’টি পৃথক ডেলিগেশনের প্রধান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ এমপি। আমন্ত্রিত বিদেশী অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ‘কমিটি ফর ডেভোলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি)’ এর সিনিয়র ইকোনমিক অ্যাফেয়ার্স অফিসার ম্যাথিয়াস ব্রুকনার; জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি), ভূ-বেষ্টিত স্বল্পোন্নত দেশ (এলএলডিসি) ও উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রসমূহ (সিডস্) সংক্রান্ত কার্যালয়ের পরিচালক মিজ্ হেইডি ফক্স, জাতিসংঘের মূলধন উন্নয়ন তহবিলের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি জেভিয়ার মিসিয়ন।

alt

উদযাপন অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান এনডিসি। আনন্দঘন এই মূহুর্ত উদযাপনে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, “বাংলাদেশের  উন্নয়ন পরিক্রমায় এটি একটি মাইলফলক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার সমাজের সকলকে সাথে নিয়ে অগ্রমূখী যে উন্নয়ন কৌশল বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে, এই অর্জন তারই প্রতিফলন”।একে এক মঞ্চে আসেন আমন্ত্রিত বিদেশী অতিথি ম্যাথিয়াস ব্রুকনার, হেইডি ফক্স ও জেভিয়ার মিসিয়ন। বিদেশী অতিথিগণ তাদের বক্তব্যে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার কথা তুলে ধরেন।

alt
জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি), ভূ-বেষ্টিত স্বল্পোন্নত দেশ (এলএলডিসি) ও উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রসমূহ (সিডস্) সংক্রান্ত কার্যালয়ের পরিচালক মিজ্ হেইডি ফক্স বলেন, “এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দ বোধ করছি। এলডিসি থেকে উত্তরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ তিনটি ক্যাটাগরিতেই বিপুল মার্জিন নিয়ে উর্ত্তীর্ণ হয়েছে। এতে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পরিবেশগত খাতসহ বিভিন্ন খাতে অসামান্য অগ্রগতি সাধন করেছে। বিভিন্ন অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত প্রতিঘাত ও প্রতিকুলতা মোকাবিলা করে এ যেন ঘুরে দাঁড়ানোর এক সাফল্যগাঁথা”।
জাতিসংঘের মূলধন উন্নয়ন তহবিলের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি জেভিয়ার মিসিয়ন বলেন, “বাংলাদেশ ১৯৭৫ সালে এলডিসিতে যোগ দিয়েছিল। সেই দিন আর আজকের মধ্যে ব্যাপক ব্যবধান। এই দেশটি সত্যিকারভাবে বিস্ময়কর অগ্রগতি সাধন করেছে। যা বাংলাদেশের বর্তমান জাতীয় আয়, মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক সংবেদনশীলতার মধ্যে দৃশ্যমান”।

alt
আমন্ত্রিত সকল বিদেশী বক্তাই উত্তরণ পরবর্তী চ্যালেঞ্জ সফলতার সাথে মোকাবিলা করে বাংলাদেশ উন্নয়নকে টেকসই ও স্থিতিশীল রাখতে সক্ষম হবে মর্মে আশা প্রকাশ করেন। এক্ষত্রে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলেও তাঁরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি এ অর্জনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে আরও ২০ বছর আগেই বাংলাদেশ উন্নত দেশ হতো। আজ এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের কারণে।

alt
বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি তাঁদের বক্তৃতার শুরুতেই বাংলাদেশের এই অসমান্য অর্জনের মাহেন্দ্রক্ষণে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করেন।

alt
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, “যুদ্ধ বিধ্বস্ত সেই বাংলাদেশ হতে আজকের এই এলডিসি ক্যাটাগরি উত্তরণ -যার জন্য বাংলাদেশকে পাড়ি দিতে হয়েছে বহু চড়াই উৎরাই। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নদর্শী নেতৃত্বে, সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার সাহসী পদক্ষেপ বাস্তবায়নের মাধ্যমে। আর অর্জনের এই উপাখ্যানে মিশে আছে উন্নত ভবিষ্যত ও সমৃদ্ধি অর্জনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের অদম্য স্পৃহা যার পরতে পরতে রয়েছে জাতির পিতার প্রদর্শিত পথ এবং তাঁরই স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে আমাদের দৃঢ় প্রত্যয়”।
প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমডিজি অর্জন ও এসডিজি বাস্তবায়নসহ উন্নয়নের প্রতিটি সেক্টরে প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নেতৃত্বের কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের এই অবস্থানে আসার পিছনে প্রবাসী বাংলাদেশী নাগরিকদের অবদানের কথাও তিনি উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের এই উত্তরণকে টেকসই করতে প্রবাসীগণ স্ব স্ব অবস্থানে থেকে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখবেন মর্মে তিনি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।
নিষ্ঠুরভাবে সপরিবারে জাতির পিতাকে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ব্যহত ও পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল মর্মে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ এমপি তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন। জাতির পিতাকে হত্যার পর নেতৃত্ব শূণ্য বাংলাদেশের হাল ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বাংলাদেশকে উন্নয়নের বিস্ময়ে পরিণত করেছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ।

alt
এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে বাংলাদেশের এই উত্তরণে দেশের নারীদের অসামাণ্য ভূমিকার কথা তুলে ধরে বলেন, “এই অর্জনের অভ্যন্তরের কাহিনীতে রয়েছে বাংলাদেশের নারীরা, এবং অবশ্যই তারা আগামীদিনের অর্জনেও মূল দৃশ্যপটে সামনে থাকবে”।
বাংলাদেশের জনগণ আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে সরকারের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখবে মর্মে উভয় প্রতিমন্ত্রী তাঁদের প্রত্যাশার কথা জানান।
প্রতিমন্ত্রীদ্বয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ দেশের মেগা প্রকল্পসমূহের কথা তুলে ধরেন। উঠে আসে কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, গ্রামীণ উন্নয়ন, অবকাঠামো, তথ্য-প্রযুক্তি, যুব উন্নয়ন, নারী উন্নয়ন ও বৈদেশিক সম্পর্কসহ উন্নয়নের বিভিন্ন খাতের সাফল্যের কথা।
প্রতিমন্ত্রীদ্বয় বলেন, সকলকে সাথে নিয়ে বাংলাদেশ সরকার উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্স- এ জানুয়ারি ২০১৮ এর তালিকায় বাংলাদেশ ৩৪তম অবস্থানে উন্নীত হয়েছে যা দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষস্থান। বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে মর্মে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন প্রতিমন্ত্রীদ্বয়।
অনুষ্ঠানটিতে কাজী রোজী এমপি, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাসিমা বেগম এনডিসি, পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব কাজী মাফরূহা সুলতানাসহ চলতি সিএসডব্লিউ’র ৬২তম অধিবেশনে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশ ডেলিগেশনের অন্যান্য সদসগণ উপস্থিত ছিলেন।


জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন পালন করেছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ

বৃহস্পতিবার, ২২ মার্চ ২০১৮

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:গত ১৮ই মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস এবং জাতিসংঘ কর্তৃক বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসাবে ঘোষনা দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা জ্ঞপন করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, অংগ সংগঠন ও প্রবাসের স্বনামধন্য ব্যক্তিবর্গ। উক্ত অনুষ্ঠানে যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্র স্টেট আওয়ামী লীগ, মহানগর আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, শ্রমিক লীগ, ছাত্রলীগ ও অন্যান্য সংগঠনের মধ্যে জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে শিশু কিশোরদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর পতিকৃতির উপর চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন এবং বিজয়ী শিশুদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করেন।উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ।
প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপিঅনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কাজী রোজী এমপি, আমেরিকা-বাংলাদেশ এলাইন্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম, জাতীয় পাটির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চান্দু, উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা আবদুল জলিল ।

77
অনুষ্ঠানের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন আজ বঙ্গবন্ধুর অসম্পন্ন কাজ তার সুযোগ্য কন্যা  শেখ হাসিনা সম্পন্ন করিতেছেন সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন আজ বঙ্গবন্ধুর অসম্পন্ন কাজ তার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা সম্পন্ন করিতেছেন তাই জাতিসংঘ বাংলাদেশকে উন্নয়নীল রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষনা দেওয়ায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধু কন্যা, দেশ নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান।খবর বাপসনিঊজ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আখতার হোসেন, সৈয়দ বসারত আলী, মাহবুবুর রহমান, সামছুদ্দিন আজাদ, লুৎফুল করিম, যুগ্ম সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ, মহিউদ্দিন দেওয়ান, আবদুল হাসিব মামুন, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম, মানবাধিকার সম্পাদক মেসবাহ আহমেদ, শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ফরিদ আলম, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আশ্রাফুজ্জামান, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মোজাহিদুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ আবুল মনসুর খান, প্রবাসী কল্যান সম্পাদক সোলায়মান আলী, ত্রান ও পূর্নভাসন বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন , ইমিগ্রেশন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রহমান মামুন, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান টুকু, উপ দপ্তর সম্পাদক আব্দুল মালেক, উপ প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনি সদস্য শাহানারা রহমান।

alt

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডেনী চৌধুরী, সামসুল আবেদীন, আমিনুল ইসলাম কলিন্স, আলী হোসেন গজনবী, আসাদ, আবদুল হামিদ, মুক্তিযোদ্ধা মুজিব মাওলা, নুরুল আবসার সেন্টু, খোরশেদ খন্দকার,সাপ্তাহিক ঠিকানার প্রধান সম্পাদক ফজলুর রহমান, অধ্যাপিকা হোসনে আরা বেগম। স্টেট আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শেখ আতিক, রফিকুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু আইনজীবি  পরিষদেরসভাপতি মোরশেদা জামান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শিবলী সাদিক, প্রধান উপদেষ্টা নুরুল আমিন, মাহফুজ, সুমন, আলমগীর, কফিল চৌধুরী, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহনাজ মমতাজ, সহ সভাপতি সেলিনা আজাদ, রওশন আরা বেগম, কানিজ ফাতেমা, যুবলীগের জামাল হোসেন, সেবুল মিয়া, হুমায়ুন চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাখাওয়াত বিশ্বস, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কবির আলী, সহ সভাপতি আশরাফ উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক কিবরিয়া জামান, রাকিবুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম দিপু, আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ আনিসুর রহমান, নুরে আজম বাবু, হিরু ভূইয়া, নান্টু মিয়া ও আরো অনেকে।প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন প্রধামন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য আজ দেশের সর্বস্তরে নারীর প্রত্যক্ষ অংশগ্রহন ভেরেছে।

alt

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর পতিকৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান নেতৃত্বে উপস্থিত সকলে পুষ্পার্ঘ অর্পন করে শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞপন করেন এবং কেক কেটে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করেন। প্রথমে পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়ায়াত করেন কারী রহমত আলী ও গীতা পাঠ করেন সবিতা দাস। কারী রহমাত উল্লাহ প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারে উন্নয়ন ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন এবং ইউএস বাংলা বিমান বিধ্বস্থে নিহতদের রূহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং আহতদের সুস্থ্যতা কামনা করে মুনাজাত করেন।প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাঢা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহত সবার দের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


প্রোগ্রেসিভ ফোরামের আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

বুধবার, ১৪ মার্চ ২০১৮

Picture

সংগঠনের সাধারন সম্পাদক আলীম উদ্দিনের সঞ্চালনায় সভায় প্রথমেইবাংলাদেশের সাহসী নারী ওয়াসফিয়া নাজরীনের সাতটি মহাদেশের ৭ টি সর্বোচ্চশৃঙ্গ জয়ের উপর একটি ডকুমেন্টারি দেখান সৈয়দ ফজলুর রহমান।২০১৮ সালের আন্তর্জাতিক নারী দিবসের প্রতিপাদ্য 'প্রেস ফর প্রোগ্রেস'বা'প্রগতিকে দাও গতি’ ।

alt

নারী দিবসের মূল আলোচনায় অংশ নেনপ্রধান অতিথি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও পাবনা জেলার সাধারনসম্পাদকনেন মিস কামরুন্নাহার জলি,বিশেষ অতিথি সাইকিয়াট্রিষ্ট, শিশু ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞ,ডাক্তার তানভিরা ইসলাম,সাপ্তাহিক বাঙ্গালী সম্পাদক কৌশিক আহমদ,সিটি ইউনিভার্সিটি অব নিউইয়র্ক কিউনিI প্রখ্যাত সংগীতজ্ঞ সৈয়দ আবদুল হাদীর সুযোগ্য কন্যাপ্রফেসর ডক্টর সৈয়দা তানিমা হাদী ,জাতিসংঘের সিনিয়র অর্থনীতিবিদ নজরুল ইসলাম।

alt

ইঞ্জিনিয়ার জীবন বিশ্বাসের নেতৃত্বে নিউইয়র্ক উদীচী জাতীয় সংগীত,উদ্বোধনী সংগীত ওকয়েকটি উদ্দীপনামূলক সঙ্গীত পরিবেশন করেন। তারপর  সাংবাদিকশামসাদ হুসামের পরিচালনায় নতুন প্রজন্মের ভাবনায় ‘গান ভায়োলেন্স’ এর উপরআলোচনায় অংশনেন নতুন প্রজন্মের মাশাবা রহমান,ইরতিজা চৌধুরী,ফাইজা দিল আফরোজ এবং রিয়া আখতার।

alt

নারী দিবসের আলোচনায় অংশ নেন নারী ম্যাগাজিনের সম্পাদক পপি চৌধুরী।আবৃত্তি করেন গোপন সাহা।শোক প্রস্তাব পাঠ করেন ফোরাম সহ সভাপতিওবায়দুল্লাহ মামুন।মূল প্রস্তাব পাঠ করেন প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ হারুন।ফোরামের কোষাধ্যক্ষ জাকির হোসেন বাচ্চুর মাতা সেতারা বেগম, ভাস্করফেরদৌসি প্রিয়ভাষিনী ও ফ্লোরিডায় নিহত স্কুল ছাত্রদের স্মরণে ১ মিনিটনীরবতা পালন করা হয়।

alt
আলোচনায় বক্তারা বলেন গত একবছরে সারাবিশ্বে নারীদের উপর নির্যাতন,নিপীড়নও যৌন হয়রানীর বিরুদ্ধে সেলিব্রেটি নারীরা সর্বপ্রথম মুখ খোলেন,হেশটেড‘মি টু’ ও ‘টাইমস আপ ‘এর মাধ্যমে। পরবর্তিতে হাজার হাজার নারী সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমে মুখ খুলতে শুরু করেন। এখন চরিত্রহীন এবং মুখুশধারীহর্তাকর্তা বড় ও শক্তিশালী পুরুষদের মুখোশ খুলে পড়ছে। নারী জাতির শত শত বছরের নীরবতার সংস্কৃতি যেন এবার সরব হয়ে সব তোলপাড় করে দিচ্ছে।বৈষম্য্ ওবঞ্চনার সংস্কৃতি যেন পরিবর্তন হতে শুরু করেছে।বাংলাদেশেও নারীরা শত সহস্র সামাজিক,ধর্মীয়,রাজনৈতিক বাধা বিপত্তি কাটিয়ে,এমন কোন পেশা নেইযেখানে তাদের পদধবনি পড়ছেনা।বিমান বাহিনী,নৌবাহিনীর আকাশে সাগরে,শান্তিরক্ষায় সব খানেই নারীদের সফল পদচারণা।বক্তারা আরো বলেন,ইতিহাসে পুরুষরাজা বাদশাহদের মাঝে নারীদের অনুপস্থিতি এযুগের নারীদের চিন্তা চেতনায়বিকাশে ক্ষতিগ্রস্থ করে। বিশ্বে এখনো তিনভাগের একভাগ নারী নির্যাতনেরশিকার।বাংলাদেশে বাল্যবিয়ের হার বিশ্বে এখনো প্রায় সর্বোচ্চ।

alt

কিন্তুপ্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেয়েরা ছেলেদের সমান হারে যাচ্ছে। কিন্তু বাল্য বিয়েরকারনে উচ্চ শিক্ষায় নারীরা হারিয়ে যাচ্ছে।তাই ভবিষ্যতে নারীদের এগিয়েনেয়ার জন্য আরো অনেক কিছুই করার রয়েছে। এসবের মধ্যে নারীদের উচ্চ শিক্ষায়সব বাধা দূর করা এবং তাদেরকে স্বাবলম্বী নারী হিসেবে এগুতে সাহায্য করা।পৈত্রিক ও মাতার সম্পত্তিতে মেয়েরা যেন ছেলেদের সমান সম্পত্তি পায় তারজন্য আইন প্রনয়ন সহ সামাজিক ও ধর্মীয় আন্দোলন গড়ে তোলা।সভায় সংসদের তিনভাগের এক ভাগ আসনে নারীদের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত করার বিধান চালুকরার দাবী জানানো হয়।

alt
প্রোগ্রেসিভ ফোরাম আয়োজিত আন্তর্জাতিক নারী দিবস২০১৮ এর সভার প্রস্তাবাবলী
১।সম্পত্তিতে সমঅধিকারঃ এই সভা হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খৃষ্টান যেকোন ধর্ম ও
জাতি উপজাতি নির্বিশেষে পৈত্রিক ও মাতৃসম্পত্তিতে কন্যা সন্তানদের সমান
অধিকার প্রতিষ্ঠার দাবী জানাচ্ছে।

alt
২। এই সভা অফিস আদালতে সরকারি বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানে,শিল্প
কারখানা,ক্ষেত খামারে সমান কাজে নারীদের পুরুষের সমান মজুরী প্রদানের
দাবী জানাচ্ছে।এই সভা সকল ধরনের মজুরি বৈষম্যের অবসানের দাবী জানাচ্ছে।

alt
৩।বাল্যবিয়েঃ এই সভা বাল্যবিয়ে এবং ছাত্রীদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক
বিয়ের বিরুদ্ধে নিজ নিজ স্কুল কলেজে ও মাদ্রাসায় দলবদ্ধভাবে ছাত্র ও
ছাত্রীদের সচেতন ও সংগঠিত হওয়ার আহবান জানাচ্ছে।এতে সচেতন
শিক্ষক,অভিভাবক,প্রশাসন, এবং এলাকাবাসীদের রাখা প্রয়োজন। বাল্যবিয়ে পড়ানো
কাজী ও মৌলবীদের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানাচ্ছে।

alt
৪।নারীর আর্থিক স্বাবলম্বীতাঃ এই সভা মনে করে যে মেয়েদের শিক্ষার সাথে
সাথে উপার্জনের সাথে যুক্ত না হলে কোনভাবেই পরিবারের সিদ্ধান্ত গ্রহনে
নিজের সম্মানজনক ভূমিকা প্রতিষ্ঠা করা কঠিন।আর পারিবারিক সিদ্ধান্ত
গ্রহনে যতক্ষন নারী পিছিয়ে থাকবেন ততক্ষন সন্তানদের বিশেষত
কন্যাসন্তানদের উচ্চশিক্ষা,পেশা বাছাই,বিবাহ,ইত্যাদি ক্ষেত্রে মায়ের ও
কন্যার সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে তারা বিশেষ কোন ভূমিকা পালন করতে
পারেননা। এমনকি গৃহবধূরা যত উচ্চশিক্ষিত হননা কেন নিজের বিষয়েও
স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারেননা।তাই এইসভা সন্তানের লালন পালনে যত
সমস্যা থাকুকনা কেন নিজেদের পেশা বা উপার্জন থেকে স্থায়ীভাবে সরে যাওয়া
খুবই ক্ষতিকর এবং তা তাদের ভবিষ্যতকে অনিরাপদ করে তোলে।এক্ষেত্রে এলাকায়
নিজেরা ডে কেয়ার সেন্টার চালু করা,এজন্য সামাজিক উদ্যোগ নেয়া,সরকারের উপর
ও জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগী হতে চাপ দেয়া প্রয়োজন।

alt
 ৫। পারিবারিক সহিংসতাঃ এই সভা গৃহ বিবাদ, পারিবারিক সহিংসতা, যৌতুক,যৌন
হয়রাণী ইত্যাদিতে নিরব না থেকে এলাকায় অন্যান্য নারীদেরদের নিয়ে সোচ্চার
ও সংগঠিত হওয়ার এবং স্বামীদের প্রবাসে কাউন্সেলিং এবং দেশে সালিশএর
মাধ্যমে ক্রমশ এই কুপ্রথা থেকে বের হয়ে আসার জন্য উদ্যোগী হওয়ার আহবান
জানাচ্ছে। সাথে সাথে এই সভা নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে যেকোন মামলায় তদন্ত
কর্মকর্তা হিসেবে মহিলা পুলিসদের দিয়ে তদন্ত ও মামলা পরিচালনার জন্য
প্রত্যেক থানা ও উপজেলায় কমপক্ষে ৩ জন নারী কর্মকর্তা নিয়োগের উদ্যোগ
নেয়ার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছে। দেশে নারীর প্রতি সহিংসতা
কমানোর লক্ষ্যে নারীদেরও উচ্চ শিক্ষা নেয়ার পর পুলিশ সার্ভিসে ব্যাপকভাবে
যোগদানের আহবান জানাচ্ছে।

alt
৬। মা ও শিশুর অপুষ্টিঃ  এই সভা গর্ভবতী,প্রসূতি ও নবজাতক থেকে ৫ বছর
পর্যন্ত শিশুদের অধিকাংশের অপুষ্টির বিরুদ্ধে এলাকায় নারীদের সোচ্চার ও
সংগঠিত হওয়ার এবং স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে সকল গর্ভবতী ও
প্রসূতিদের সন্তানের ৩ বছর বয়স পর্যন্ত চিকিৎসা সেবা,মা ও শিশুর পুষ্টিকর
খাদ্য গ্রহনের জন্য  মাসিকভাতা প্রদানের জোর দাবী জানাচ্ছে। শুধুমাত্র
দুটি সন্তানের জন্য এই মাসিক ভাতা দিতে হবে। এসব দম্পতিকে পরবর্তীতে
স্থায়ী জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহনে আগ্রহী করে তুলতে হবে। এই সভা শিশু
অপুষ্টি দূর করার লক্ষ্যে দেশের প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল
প্রদান বাধ্যতামূলক করার দাবি করছে।

alt
৭। নারীর রাজনীতিতে অংশগ্রহনঃ  বাংলাদেশের রাজনীতিতে
সন্ত্রাস,পেশিশক্তি,অস্ত্রের ও কালো টাকার ব্যবহার যেভাবে বাড়ছে তা
কোনভাবেই নারীদের রাজনীতিতে অংশগ্রহনের অনুকূল নয়।  নারীদিবসের এই সভা
নারীদের জন্য অনুকূল সামাজিক রাজনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টির জোর দাবী জানাচ্ছে।
সাথে সাথে এই সভা রাজনৈতিক দল গুলোর দলীয় কাজে ১/৩ অংশ নারীদের দ্বারা
পূরণের যে অঙ্গীকার সব দল করেছিল তা পূরণের আহবান জানাচ্ছে এবং ইউ পি
থেকে সংসদ পর্যন্ত সকল পর্যায়ে ১/৩ বা এক তৃতীয়াংশ আসনে নারীদের, সরাসরি
ভোটের মাধ্যমে নির্বাচনের জন্য জোর দাবী জানাচ্ছে।


নিউইয়র্কে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদের হাতে প্রবাস-মেলা পত্রিকা

বুধবার, ০৭ মার্চ ২০১৮

alt

গত ৩ মার্চ শনিবার নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনসুলেট কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর উৎক্ষেপন বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষে তার হাতে পত্রিকার সৌজন্য কপি তুলে দেন।এ সময় অন্যান্যদের মাঝে কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক আবু তাহের, কমিউনিষ্ঠ নেতা  হাসানুজ্জামান হাসান  ও বাংলাদেশ টেলিকমিউকেসন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) সচিব সারওয়ার আলমসহ  বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

Picture

ছবিতে ড. শাহজাহান মাহমুদের হাতে পাক্ষিক প্রবাস-মেলা কপি তুলে দিচেছন ডান থেকে ২য় সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন। বা খেকে হাসানুজ্জামান হাসান,আবু তাহের, কনসাল জেনারেল শামীম আহসান ও সর্বডানে সারোয়ার আলমকে দেখা যাচ্ছে। ছবি বাপসনিউজ। পত্রিকাটি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দেশের প্রথম এবং একমাত্র পাক্ষিক ম্যাগাজিন। প্রবাসীদের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়মিতভাবে পত্রিকাটিতে তুলে ধরা হচ্ছে। প্রবাসীরা প্রবাস জীবনের অনুভ’তি অভিজ্ঞতা নিয়ে যে কোন লেখা পাঠাতে পারেন ( এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে। )|