Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_small/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

নিউইয়র্কে আজীবন বিপ্লবী কমরেড জসিম উদ্দিন মন্ডলের শোকসভা অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

alt
নাগরিক শোক সভা কমিটির আহ্বায়ক সাপ্তাহিক ঠিকানা’র প্রধান সম্পাদক  ফজলুর রহমান এর সভাপতিত্ত্বে ও সাবেক ছাত্র ইউনিয়ন নেতা নন্দলাল দে’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোক সভায় বক্তারা বলেন, মধ্যবিত্ত থেকে আসা কমিউনিস্টদের সাথে কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডলের যে পার্থক্য ছিল সেটা ছিল তাঁর অহংকার। সূদীর্ঘ রাজনৈতিক  জীবনে তিনি যা অর্জন করেছেন বাংলাদেশের অনেক বামপন্থী নেতা তা পারেননি। তিনি অল্প বয়স থেকেই আমৃত্যু মানবতার মুক্তির জন্য লড়াই করে গেছেন। তাঁর মতো দেশপ্রেমিক রাজনীতিকের মৃত্যু বাংলাদেশসহ বিশ্বের গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি। পৃথিবীর দেশে দেশে জসিম উদ্দীন মন্ডলের মতো রাজনীতিকদের কারণে মানুষের দাবী আদায় হয়েছে।

alt
বক্তারা আরো বলেন, কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডল আজীবন সামপ্রদায়িকতার বিরূদ্ধে, সা¤্রাজ্যবাদের বিরূদ্ধে এবং সমাজতন্ত্রের লক্ষ্যে নিজের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। মানুষের প্রতি মানুষের শোষন এর অবসান ঘটিয়ে একটি শোষনহীন সমাজতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডলে স্বপ্ন পূরণের লড়াইকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে তার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন।  

alt
উক্ত শোক সভায় বক্তব্য রাখেন, কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডলের রাজনৈতিক জীবনের দীর্ঘদিনের সহযোদ্ধা প্রোগ্রেসিভ ফোরাম ইউএসএ’র সভাপতি খোরশেদুল ইসলাম, বিশিষ্ট লেখক ও কলামিস্ট বেলাল বেগ, উদীচী যুক্তরাষ্ট্র শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি  সুব্রত বিশ্বাস,বীর মুক্তিযোদ্ধা কাসেম আলী,নারীনেত্রী নিনি ওয়াহেদ,সামসাদ হুসাম,অধ্যাপিকা হুসনে আরা বেগম,সাবেক ছাত্রনেতা হাফিজুল হক,জুলফিকার হোসেন বকুল,সুব্রত সাহা লিপন,রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী ও উদীচী’র সাংস্কৃতিক সম্পাদক সফি চৌধুরী হারুন, সাবেক ছাত্রনেতা আলীম উদ্দিন,ওবায়দুল্লাহ মামুন,জাকির হোসেন বাচ্চু,সুবক্তগীন সাকী,এবাদুল হক চৌধুরী,মোঃ হারুন,কবি সুরীত বড়–য়া,আবৃত্তি শিল্পী মুমু আনসারী প্রমূখ।বক্তারা কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডলের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের ওপর স্মৃতিচারণ করেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রয়াতের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন ও এক মিনিট নীরবতা পালন করে তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।
কমরেড জসিম উদ্দীন মন্ডলের সংক্ষিপ্ত জীবনীঃ
১৯২০ সালে কুষ্টিয়া জেলা কালীদাশপুর গ্রামে কমরেড জসিম উদ্দিন মন্ডল জন্মগ্রহন করেন। তাঁর বাবার নাম হাউসউদ্দীন ম-ল রেলওয়েতে চাকরি করতেন। মায়ের নাম জহুরা খাতুন। বাবার চাকুরীর সুবাদে সিরাজগঞ্জে, রানাঘাটে, পার্বতীপুর, ঈশ্বরদী, কোলকাতায় বসবাস করেন। বাবার সাথে কোলকাতায় নারকেলডাঙা রেল কলোনিতে বসবাসকালে মাত্র ১৩-১৪ বছর বয়সে মিছিলে যোগ দিয়ে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৪০ সালের মাঝামাঝিতে শিয়ালদহে মাসিক ১৫ টাকা মাইনেতে রেলের চাকরিতে যোগ দেন। চাকরির পাশাপাশি ক্রমে লাল ঝা-ার একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে পরিচিতি পান। ১৯৪০ সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিআই)’র সদস্য পদ লাভ করেন।

Picture

১৯৪১-৪২ সালে জসিম ম-লের প্রমোশন পেয়ে সেকেন্ড ফায়ারম্যান হন। রেল শ্রমিক আন্দোলনে তিনি জ্যোতি বসুর সহকর্মি ছিলেন। ১৯৪৬ এর নির্বাচনে রেল আসনে জ্যোতিবসু’র নির্বাচী প্রচারনায় সক্রিয় অংশ নেন। ১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর জসিম মন্ডল পার্বতীপুর এবং তাঁর বাবা ঈশ্বরদীতে বদলি হয়ে আসেন।
১৯৪৯ সালে রেলের রেশনে চাউলের পরিবর্তে খুদ সরবরাহ করলে রেল শ্রমিক ইউনিয়নের ‘খুদ স্টাইকের’ অপরাধে জসিমউদ্দিন ম-লসহ ছয় নেতার বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি হয়। একপর্যায়ে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে এবং রেল কর্তৃপক্ষ তাঁকে চাকুরীচ্যুত করে। ১৯৫৪ সালে তিনি মুক্তি পান। মুক্তি পাওয়ার কিছুদিন পর আবার তাঁকে নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হলো। এসময় রাজশাহী জেলে কিছুদিন থাকার পর তাঁকে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে বদলি করা হল। ১৯৫৬ সালে তিনি মুক্তি লাভ করেন। ১৯৬২ সালের দিকে আবার গ্রেফতার হন এবং ১৯৬৪ সালে মুক্তি পান। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি কলকাতা চলে যান। সেখানে বাংলাদেশের মুক্তি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। কৃষক-শ্রমিক-মেহনতি মানুষের সার্বিক মুক্তির লড়াই-সংগ্রামের জন্য স্বাধীন বাংলাদেশেও তাঁকে জেল বরণ করতে হেেছ। মোট ১৭ বছর কারারুদ্ধ ছিলেন।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ৫১ বছর বয়সে জসিম মন্ডল সংগঠক এবং উদ্দীপক হিসেবে ব্যাপক ভুমিকা রাখেন।
১৯৭৩ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভ্রমণ করেন। ১৯৯৩ সালে সিপিবি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১২ সালে সিপিবি’র উপদেষ্টা মনোনীত হন। আমৃত্যু এ দায়িত্ব তিনি পালন করেন। কমরেড জসিম মন্ডল বাংলাদেশ রেল শ্রমিক ইউনিয়ন ও বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সহসভাপতি ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের উপদেষ্টা ছিলেন। কমরেড জসিম উদ্দিন মন্ডল ১৯৪২ সালে জাহানারা খাতুন মরিয়মের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কমরেড মরিয়ম তাঁর রাজনৈতিক কর্মকা-ে উৎসাহ জুগিয়েছেন সারাজীবন। জসিম-জাহানারা দম্পতি পাঁচ কন্যা ও এক পুত্রের জনক-জননী ছিলেন।
অনলবর্ষী বক্তা কমরেড জসিম উদ্দিন মন্ডল গত ২ অক্টোবর, ২০১৭ ঢাকার হেলথ এন্ড হোপ হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।


Add comment


Security code
Refresh