Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_small/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

অ্যাসাল জর্জিয়া চ্যাপ্টার নতুন কমিটির বর্ণিল অভিষেক

শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭

Picture

বাপ্ নিউজ : জর্জিয়া থেকে : দ: এশিয়ার ৮ দেশীয় প্রবাসীদের সংগঠন অ্যালায়েন্স অব সাউথ এশিয়ান-আমেরিকান লেবার (অ্যাসাল) জর্জিয়া চ্যাপ্টারের নতুন কমিটির বর্ণিল অভিষেক হয়েছে। দক্ষিণ এশীয় কমিউনিটিকে শক্তিশালী করার লক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে সংগঠনটি।

alt

১২ নভেম্বর রবিবার সন্ধ্যায় ইন্ডিয়ান গ্রিল রেস্টুরেন্টে অ্যাসাল’র প্রতিষ্ঠাতা এবং ন্যাশনাল কমিটির প্রেসিডেন্ট মূলধারার লেবার ইউনিয়ন লীডার মাফ মিসবাহ উদ্দীন উৎসবমুখর পরিবেশে জর্জিয়া চ্যাপ্টারের নতুন কমিটিকে শপথ বাক্য পাঠ করান।

alt

গত ৯ বছর যাবৎ প্রশংসনীয়ভাবে দায়িত্ব পালন করে অ্যাসাল সংগঠনটি বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, নেপাল, ভূটান, শ্রীলঙ্কা এবং মালদ্বীপের প্রবাসীদের অধিকার এবং স্থানীয় কম্যুনিটির অধিকার বিষয়ে মূলধারার নেতৃবৃন্দের কাছে প্রশংসিত হয়েছে।

alt

আমেরিকায় দক্ষিণ এশীয়দের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষমতায়নসহ কমিউনিটি এবং মূলধারার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনার প্রেরণাদায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছে অ্যাসাল।দক্ষিণ এশীয় কমিউনিটি এবং মূলধারার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনার মাধ্যমে সে লক্ষে এগিয়ে যাচ্ছে অ্যাসাল।

alt

নব নির্বাচিত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেন সকলকে অ্যাসাল জর্জিয়া চ্যাপ্টারে যোগদানের আহ্বান জানান।

alt

বর্ণাঢ্য এ অভিষেকে অ্যাসাল’র প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট মাফ মিসবাহ উদ্দীন ছাড়াও অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অ্যাসাল’র ন্যাশনাল কমিটির সেক্রেটারী করিম চৌধুরী, ন্যাশনাল করেসপন্ডিং সেক্রেটারী জেড মাতালন, অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি স্থানীয় এসেম্বলীম্যান দায়ই ম্যাকলিন ও স্যাম পার্ক, জর্জিয়া এএফএল-সিআইও’র প্রেসিডেন্ট চার্লি ফ্ল্যামিং, জর্জিয়া এএফএল-সিআইও’র প্রেসিডেন্ট এমিরাটস রিসার্ড রায়, ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটির মেম্বার শেখ রহমান, এশিয়ান-আমেরিকান অ্যান্ড প্যাসিফিক আইল্যান্ডার্স ককাস চেয়ার টনি পাটেল, কমিউনিটি লীডার জামিল ইমরান, মোহন জব্বার, এশিয়ান-আমেরিকান হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের ট্রেজারার আহমাদুর রহমান, নেপালীজ এসোসিয়েশন ইন সাউথ ইস্ট আমেরিকার প্রেসিডেন্ট রাজা ঘালে, জর্জিয়া ডেমোক্রেটিক গভর্ণর কেন্ডিডেট স্ট্যাসি এবরামস, কংগ্রেসনাল কেন্ডিডেট স্টেভ ন্যালি, ইথান ফাম, নেইল সারডানা এবং ইলসা ডেভিস, স্টেট কোর্ট জজ রোন্ডা ক্যালভিন লেরিসহ স্টেট ও সিটি কাউন্সিলের প্রার্থীগণ।

alt
২০১৭-২০১৮ সালের জন্য গঠিত ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট অ্যাসাল জর্জিয়া চ্যাপ্টারের অভিষিক্ত কর্মকর্তারা হলেন : প্রেসিডেন্ট মোঃ আলী হোসেন, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট কামাল আহমেদ, সেক্রেটারি ইকবাল হোসেন, করেসপন্ডিং সেক্রেটারী সৈয়দ আলম, ট্রেজারার মুস্তাক আহমেদ, এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর তিমিলসিনা মোহন, অর্গানাজিং ডাইরেক্টর শেখ জামাল, উইমেন্স কমিটি চেয়ার জেসমিন এন খান মিলি, ইমিগ্রেশান ডাইরেক্টর উত্তম দেব ও পলিটিকেল একশান ডাইরেক্টর মোর্শারফ হোসেন।ভাইস প্রেসিডেন্ট : নেহাল মাহমুদ, বিশ্ব সুব্বা, গোবিন্দ সেরেস্তা, নৌবৌত মজলিশ, সুরাইয়া লামসাল, শহিদুল ইসলাম ঠান্ডো, মিনহাজুল ইসলাম বাদল, মোহাম্মদ কিউ জামান, সাইফুল হোসেন, সমীর মাস্টার, মাহবুব আলম সাগর, ফজলে চৌধুরী, ইসহাক বেগ, মহা রায়ান, কাউসার চৌধুরী আজাদ, খোরশেদ আলম, আনোয়োর মিয়া, মাজরুল ইসলাম, হৈমন্তী বড়–য়া এবং মো. এ মহিউদ্দিন।

alt

ট্রাস্টি বোর্ড : চেয়ারম্যান ড. রশিদ মালিক; সদস্য জামিল ইমরান, মিন্টো রহমান, মসিউর রহমান, ড. মোজাম্মেল হক, মোহন জব্বার এবং ইকবাল পারভেজ।উইমেন্স কমিটি : জেসমিন এন খান মিলি, সাইফুল নাহার, শাহনাজ পারভিন, সিমা সমরদার, মৌসুমী রহমান ও রাজিয়া সুলতানা।

alt
ইয়ুথ কমিটি : চেয়ার সাইফুল হোসেন এবং কো-চেয়ার টোফু আহমেদ।

alt

বক্তারা অ্যাসাল’র কর্মকান্ডের প্রশংসা করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে দক্ষিণ এশীয় কমিউনিটিকে শক্তিশালী করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে মূলধারার সহযোগি এ সংগঠনটি। তারা বলেন, রিপাবলিকান গভর্ণর, রিপাবলিকান স্টেট হাউসসহ কয়েক দশক ধরে রিপাবলিকান শাসিত রেড স্টেট জর্জিয়াকে আগামী ২০১৮’র মধ্যবর্তী নির্বাচন, ২০২০’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এবং পরের নির্বাচনে অ্যাসাল প্রচেষ্টা চালিয়ে একটি ব্লু স্টেটে রূপান্তরিত করতে পারে।অনুষ্ঠানে অ্যাসাল প্রতিষ্ঠাতা মাফ মিসবাহ উদ্দীন তার বক্তব্যে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে দক্ষিণ এশীয়দের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষমতায়নসহ কমিউনিটি এবং মূলধারার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনায় নিয়ামক শক্তি হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে অ্যাসাল। তিনি বলেন, এখন সময় এসেছে কেবল আত্মকেন্দ্রিক না হয়ে অন্যদের জীবনকেও সফল করার প্রচেষ্টা চালানোর। সেজন্য প্রসারিত করতে হবে সাহায্যের দ্বার। এগিয়ে আসতে হবে সকলকে সকলের তরে। আর সে লক্ষেই কাজ করে যাচ্ছে দক্ষিণ এশীয়দের পাওয়ার হাউস হিসাবে স্বীকৃত অ্যাসাল।

alt

অ্যাসাল’র ন্যাশনাল কমিটির সেক্রেটারী করিম চৌধুরী বলেন, অ্যাসাল মূলধারার রাজনীতির মধ্যে সেতু বন্ধনের কাজ করছে। তিনি বলেন, আমরা ডেমোক্রেট নই, আমরা রিপাবলিকান নই, আমরা দক্ষিণ এশিয়। তিনি সকলকে আগামী ৯ ই ডিসেম্বর শনিবার নিউইয়র্কে অনুষ্ঠেয় অ্যাসাল’র ১০ম বার্ষিক কনভেনশনে যোগদানের আমন্ত্রণ জানান।

alt

উক্ত অনুষ্ঠানে যারা উপস্থিত ছিলেন তারা হলেন –জর্জিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হুমায়ূন কবীর কাউসার, মোহাম্মদ কায়দ্দুজামান, ডঃ আওয়াল ডি খান, লিয়াকত হোসেন আবু, নুরুল ইসলাম নাহিদ, আহামুদুর রহমান পারভেজ, সুভাষ চক্রবর্তী, শুভ্র চক্রবর্তী, টনি প্যাটেল সহ আরও অনেকে।

alt

সবাইকে অভিনন্দন জানিয়ে সমাপ্তি ঘোষনা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী হোসেন কমিউনিটির প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন উক্ত অনুষ্ঠানকে সফল করে তোলার জন্যে ও অনুষ্ঠানে আসার জন্য ধন্যবাদ জানান।


৪৭তম বিজয় দিবসে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান করবে জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:১৩ই নভেম্বর হিলসাইডস্থ স্টার পার্টি সেন্টার জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির সভায় আগামী ১৬ ডিসেম্বর শনিবার২০১৭ বিজয় দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা, আলোচনা সভা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিনটি পালন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

alt

দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা সু-সম্পন্ন করতে সাবেক সভাপতি মনির হোসেনকে আহ্বায়ক, উপদেষ্ঠা ছদরুন নুরকে প্রধান সমন্বয়কারী, ফারুক হেসেন তালুকদার সমন্বয়কারী ও রাব্বী সৈয়দকে সদস্য সচিব করে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

Picture

সংগঠনের সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক  রেজাউল আজাদ ভূঁইয়ার পরিচালনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধান উপদেষ্ঠা এবিএম ওসমান গনি, উপদেষ্ঠা ছদরুন নূর, উপদেষ্ঠা অধ্যাপিকা হোসনে আরা, উপদেষ্ঠা ফারুক হোসেন তালুকদার ,প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ফকরুল ইসলাম দেলোয়ার,প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ও সাবেক সভাপতি বিলাল আহমদ চৌধুরী, সাবেক সভাপতি মনির হোসেন, সহ-সভাপতি শেখ হায়দার আলী, সহ-সভাপতি

alt
শেখ আনসার আলী, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ইফজাল চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. কামরুজ্জামান বাবু,কোষাধক্ষ্য সহদেব তালুকদার, শিক্ষা সম্পাদক কাজী এন,ইসলাম, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক কবীর মুন্সী, সাহিত্য সম্পাদক লিটন আহমদ, সিনিয়র সদস্য আলী কে, কনক, সদস্য আনোয়ার হোসেন, সদস্য রাব্বী সৈয়দ।সভায় সংগঠনের অন্যতম উপদেষ্ঠা সালেহ আহমদের মাতা ও উপদেষ্ঠা ড. ওয়াজেদ আলী খানের শাশুড়ীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়, মরহুমাদ্বয়ের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া পড়া হয় এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়।

alt
সভাপতির বক্তব্যে সকলকে জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির অনুষ্ঠানকে সফল করতে ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া কর্মীদের  সহযোগীতা আশা করেন এবং বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে জ্যামাইকাবাসীর সর্বোচ্চ অংশ গ্রহন নিশ্চিত করতে নেতাকর্মীদের একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন। 

 

“তলবী” সভা ডেকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতিকে অব্যাহতি দেওয়া হবে :নিউইয়র্কে সাবেক ছাত্রলীগ নের্তৃবৃন্দ’র সংবাদ সম্মেলনে হুমকি

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে :নেত্রীর নির্দেশ অমান্য ও দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার সুনির্দিষ্ট প্রমাণ থাকায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানকে “তলবী” সভা ডেকে অব্যাহতি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়েছে নিউইয়র্কে সাবেক ছাত্রলীগ নের্তৃবৃন্দ’’র সংবাদ সম্মেলন থেকে। স্থানীয় সময় গত ১২ নভেম্বর রোববার রাতে জ্যাকসন হাইটসের ইত্যাদি রেষ্টুরেন্টে যুক্তরাষ্ট্রস্থ সাবেক ও বর্তমান ছাত্রলীগ নের্তৃবৃন্দ’র ব্যানারে অনুষ্ঠিত এ সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন ড. প্রদীপ রঞ্জণ কর। সাবেক ছাত্র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস এবং প্রচার সম্পাদক হাজি এনাম (দুলাল মিয়া)’র যৌথ পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাবেক ছাত্র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম কার্যকরী সদস্য হিন্দাল কাদির বাপ্পা।alt

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা ড. মহসীন আলী, ডা. মাসুদুল হাসান, জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সমন্বয়কারী ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, সাবেক ছাত্র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস, দপ্তর সম্পাদক প্রকৌঃ মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, প্রচার সম্পাদক হাজি এনাম (দুলাল মিয়া), আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. শাহ মোঃ বখতিয়ার আলী, কার্যকরী সদস্য হিন্দাল কাদির বাপ্পা, শরীফ কামরুল আলম হীরা, আশরাফ মাসুক, প্রমুখ।এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নিউজার্সী আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি সুজন আহমদ সাজু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু সুলতান, নিউজার্সী আওয়ামীলীগ নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব, শামিম আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রুমানা আক্তার, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি দুরুদ মিয়া রনেল, সাধারণ সম্পাদক সুবল দেবনাথ, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি জেড এ জয়, হেলাল মাহমুদ, আবদুস সহীদ দুদু, সিরাজ সরকার, জিয়াউর রহমান মোরশেদ, নাফিসুর রহমান তুরান, ইলিয়ার রহমান, জালাল আহমেদ, টুটুল আহমেদ, আমিনুল হক পান্না, জিল্লু আহমেদ প্রমুখ।alt

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, নিউইয়র্কে ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান, সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের শতবর্ষ পূর্তি উপলক্ষে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দকে অশালীন ভাষা ব্যবহার করে দেশ এবং জাতির সামনে হেয় প্রতিপন্ন করার অপপ্রয়াস চালিয়েছেন।সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ৭১’র স্বাধীনতা, ৬৬’র ছয় দফা, ১১ দফা, ৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে অদ্যাবধি সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যাদের গাত্রদাহের কারণ তাদের বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ করার আর কোন অধিকার নেই।alt

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ড. সিদ্দিকের ১/১১ ভূমিকাও রহস্যাবৃত। সম্প্রতি তথাকথিত ফারাক্কা প্রতিরোধ কমিটি অর্থাৎ বিএনপি নেতা আজাহারুল হক মিলন কর্তৃক আয়োজিত সভায় ড. সিদ্দিক বলেন, ”এখনই সময় ভারত প্রতিরোধের”।সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, নেত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ড. গোলাপ সকলের সামনে ঘোষনা দিয়েছিলেন ৯০ দিনের মধ্য একটি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ও সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করতে হবে। ড. সিদ্দিক কৌশলে কার্যকরী কমিটির মিটিং বাতিল করে, নির্বাচনের পূর্বে কোন সম্মেলন হবে না বলে ঘোষনা দেন। কেন্দ্রের নির্দেশ অমান্য করে নিজেকে ক্ষমতাধর প্রমান করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন তিনি।সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, বর্তমান জাসদের মূল নেতা হাসানুল হক ইনু জাসদের ভুল স্বীকার করে জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। ড. সিদ্দিকুর রহমান সেই ভুলকে সত্য প্রমাণিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। এটা একটি ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুই নয়। বর্তমানে জাসদ আমাদের বন্ধুপ্রতিম সংগঠন। বঙ্গবন্ধু কন্যা মহত্বের মহিমা দেখিয়ে সকল বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে জাসদকে শরীক জোটের অন্তর্ভূক্ত করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, নির্বাচনের পূর্বে ড. সিদ্দিকুর রহমানের উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে তিনি কার পার্সপাস সার্ভ করতে ব্যস্ত হয়ে ওঠেছেন?

alt

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ড. সিদ্দিকুর রহমানের ন্যুন্যতম আত্মসম্মান জ্ঞান থেকে থাকলে Public Retraction ক্ষমার মাধ্যমে পদত্যাগ করবেন। অন্যথায় ৯০ দিন অতিক্রান্ত হলে গঠনতন্ত্র মোতাবেক একজন সিনিয়র সদস্যের সভাপতিত্বে নেত্রীর নির্দেশ অমান্য ও দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার সুনির্দিষ্ট প্রমাণ থাকায় ড. সিদ্দিকুর রহমানকে “তলবী” সভা ডেকে অব্যাহতি দেওয়া হবে।সংবাদ সম্মেলনে উপদেষ্টা ড. প্রদীপ রঞ্জণ কর দলীয় গঠনতন্ত্রের ১১ ধারার কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন ডাকা না হলে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তলবী সভা আহ্বান করা হবে।উপদেষ্টা ডা. মাসুদুল হাসান সংবাদ সম্মেলনে ড. সিদ্দিকুর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।উপদেষ্টা ড. মহসীন আলী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, তিনি মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না।সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাজী কয়েস ড. সিদ্দিকুর রহমানের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি তার নের্তৃত্বে দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

alt

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা ড. সিদ্দিকুর রহমানের ছাত্রলীগ সম্পর্কিত বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সম্মেলন না হলে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে সাধারণ নেতা-কর্মীরা।দপ্তর সম্পাদক প্রকৌঃ মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী বলেন, ড. সিদ্দিকুর রহমান কখনো ছাত্রলীগ কিংবা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন না। তিনি একজন হাইব্রিড আওয়ামীলীগার।সংবাদ সম্মেলনে প্রচার সম্পাদক হাজি এনাম (দুলাল মিয়া) ড. সিদ্দিকুর রহমানের পদত্যাগ দাবি করেন।

Picture

উল্লেখ্য, নিউইয়র্কে জ্যাকসন হাইটসে মামুন’স টিউটোরিয়ালে গত ৫ নভেম্বর জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, কতিপয় গর্দভ ছাত্রলীগ নেতার কারণে জাসদের সৃষ্টি হয়। জাসদ সৃষ্টি না হলে বঙ্গবন্ধুর এভাবে মৃত্যু হতো না। বঙ্গবন্ধু হত্যার ক্ষেত্র তৈরী করেছিল জাসদ। বঙ্গবন্ধু জীবিত থাকলে বাংলাদেশ আজ সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হতো।


শিল্পী নীলু আহসানের নতুন গান

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

Picture

ভিন্নধর্মী এই গানটির কথা ও সুর শিল্পীর নিজের। গানটির কম্পোজিশন রেকর্ডিং ও অডিও মাস্টারিং করেছেন আহমেদ ফরিদ। মিউজিক ভিডিও কনসেপ্ট ও ডিরেকশনে ছিলেন জিনিয়া জামান।

alt

ইতোমধ্যে জনপ্রিয় এ শিল্পীর অসংখ্য গান বিটিভিসহ ইউটিউব, ফেসবুকের মাধ্যমে দর্শক-শ্রোতাদের মোহিত করেছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে নন্দিত হয়েছেন এ শিল্পী। একাধারে যেমন একজন গুণী সঙ্গীত শিল্পীর সঙ্গে একজন সফল উদ্যোক্তাও বটে। শিল্পীর অনেক গান ইতোমধ্যে জনপ্রিয় হয়েছে। শিল্পী তার এই জন্মদিন উপলক্ষে প্রকাশিত গানটি দেখার ও শোনার জন্য তার ভক্ত শ্রোতাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন। পাশাপাশি তার সার্বিক সাফল্যের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন। সঙ্গীতশিল্পী নিলু আহসান একাধারে লোকসঙ্গীত ও আধুনিক গানের শিল্পী। তিনি এক গীতিকবিও। বিটিভি এবং বাংলাদেশ বেতারের বিশেষ শ্রেণীর শিল্পী তিনি। বেসরকারী বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলেও সঙ্গীত পরিবেশন করে থাকেন। এ পর্যন্ত তার গাওয়া গানের ৯টি এ্যালবাম বাজারে এসেছে। অসংখ্য মিউজিক ভিডিও ইউটিউবে মুক্তি পেয়েছে।

alt

নিজের সঙ্গীত ক্যারিয়ার প্রসঙ্গে নীলু আহসান বলেন মিডিয়ায় আমার যাত্রা শুরু মায়ের হাত ধরে। তবে সেই সময়ে গান চচা বা সংস্কৃতি চর্চা খুব কঠিন বিষয় ছিল। আনুষ্ঠানিভাবে আমার সঙ্গীত শিক্ষা শুরু ওস্তাদ বাবলু খন্দকারের কাছে। নীলু আহসান ১৯৯১ সালে প্রথম রংপুর বেতারে লোক সঙ্গীত ও আধুনিক গানের শিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত হোন। ১৯৯২ সালের মাঝামাঝিতে গীতিকার ও সুরকার রফিকুল ইসলামের সহযোগিতায় তার প্রথম এ্যালবাম ‘প্রেম ভরা চোখে’ সঙ্গীতার ব্যানারে রিলিজ হয়। ওই বছরেই বিটিভির তালিকাভুক্ত হোন তিনি। বর্তমানে তিনি বিটিভির বিশেষ গ্রেডের শিল্পী। পাশাপাশি তিনি বিটিভির ‘ক’ গ্রেডের একজন গীতিকারও বটে।

alt

শিল্পী নীলু আহসানের এ্যালবামগুলোর মধ্যে ‘প্রেম ভরা চোখে’, ‘রসিয়া কালা’, ‘স্বপ্ন প্রহর’, ‘কেড়ে নিতে চাই মনটা তোমার’, ‘বাংলা আমার প্রথম সকাল’ অন্যতম। নিয়মিতভাবেই গান করছেন নিলু আহসান। তার লেখা ৩০টি গান রেকর্ড হয়েছে। শিল্পী হিসেবে এ পর্যন্ত বেশ কিছু পুরস্কারও পেয়েছেন। শ্রোতা ভক্তদের ভালবাসা নিয়ে আজীবন এই সাধনা করে যেতে চান। নীলু আহসান তার মেধা, সাধনা ও একনিষ্ঠতার মাধ্যমে এগিয়ে যাবেন তার কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে। জন্মদিনে তার জন্য শুভ কামনা।


ব্রঙ্কসে হরিভক্তি প্রচারণী সভা

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ : গত ১১ই নভেম্বর শনিবার সন্ধ্যা ৭:০০ টায়  ১৯১৯ মেগ্রো এভিনিউ, এপার্টমেন্ট # ১ এ, ব্রঙ্কস, নিউইয়র্ক-১০৪৬২ শুভংকর গাঙ্গুলীর বাসায় জাতি ধর্ম বর্ণ দল মত নির্বিশেষে দেশে ও বিদেশে প্রতিটি জীব এবং দিশেহারা মানুষের পথ প্রদর্শনের  জন্য এবং শান্তি কামনায় আজ থেকে ৫৪৪ বৎসর পূর্বে নবদ্বীপে পূর্ণ ভূমিতে হারাই পন্ডিত+পদ্মাবতির কোলে যার আবির্ভাব সেই মহা পুরুষ শ্রী শ্রী নিত্যানন্দ প্রভূর এবং তার ১৪তম বংশধর শ্রী নিত্য গোপাল গোস্বামীর জীবন বৃত্তান্ত নিয়ে শ্রীমদ্ভাগবতীয় আলোচনা করেন পন্ডিত শ্রী শুভংকর গাঙ্গুলী।


এতে উপস্থিত ছিলেন  পরিতোষ শর্মা, সুধন চক্রবর্তী, সুদেব ভট্টাচার্য, প্রফুল্ল কুমার দেব, দেবাশীষ দেব, পরেশ চন্দ্র নাথ, স্বপন পাল, আনন্দ দাশ, শিব প্রসাদ ভৌমিক, রাম প্রসাদ হালদার, বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস গীটার পাল, অজিৎ চন্দ, রজনিত সরকার, সুনীল বণিক, পল্পি চন্দ্র, খোকন চন্দ, লিলি চক্রবর্তী, ¯েœহা গাঙ্গুলী, দুর্গা রাণী শর্মা, শিউলী চক্রবর্তী, মাণসি চক্রবর্তী, রতœা বিশ্বাস, জয়শ্রী বিশ্বাস, গীতা অধিকারী, অন্তরা অধিকারী, শিল্পী পাল, চিনু রাণী দেবী, রিতা বণিকসহ আরো অনেকে।
মন মাতানো ধর্মীয় সংগীত পরিবেশন করেন প্রফুল্ল কুমার দেব ও দেবাশীষ দেব। মৃদঙ্গ পরিবেশন করেন পরেশ চন্দ্র নাথ ও সত্তম দেব।
আগামী ৩০  ডিসেম্বর  শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় ১২২৭ হোয়াইট প্রেইন্স রোড, বাসা # ২৩২, ব্রঙ্কস, নিউইয়র্ক ১০৪৭২ তে পূনরায় হরিভক্তি প্রচারণী সভা অনুষ্ঠিত হবে।
সর্বশেষে দেশ ও বিদেশের প্রতিটি মানুষের শান্তি কামনা করে হরিভক্তি প্রচারণী সভা সমাপ্ত হয়।


নিউইয়র্কে বাঙালী অধ্যুষিত ব্রঙ্কসের প্রাচীনতম পার্কচেষ্টার জামে মসজিদের নজিরবিহীন নির্বাচন : মোস্তাক-খলিল পরিষদ পূর্ণ প্যানেলে বিজয়ী

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ ॥নিউইয়র্কে বাঙালী অধ্যুষিত ব্রঙ্কসের প্রাচীনতম মসজিদ পার্কচেষ্টার জামে মসজিদ ইনক্ অ্যান্ড ইসলামিক সেন্টারের নির্বাচনে মোস্তাক-খলিল পরিষদ (‘এ’ প্যানেল) পূর্ণ প্যানেলে বিজয়ী হয়েছে। বহুল আলোচিত পার্কচেষ্টার জামে মসজিদের এ নির্বাচন গত ১২ নভেম্বর রোববার সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে। 

Picture

নজিরবিহীন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ এ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শেষে নির্বাচন কমিশনের সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগের পরিচালনায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার সাইয়্যিদ মুজিবুর রহমান শাসরুদ্ধকর পরিবেশে ফলাফল ঘোষণা করেন। এসময় নির্বাচন কমিশনার ইফতেখার সিরাজ, শামিম মিয়া ও মোহাম্মদ আজিজুল করিম, প্রিসাইডিং অফিসার, পুলিং অফিসার, এজেন্ট, প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী, মিডিয়াকর্মী, কমিউনিটি নের্তৃবৃন্দসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী নির্বাচনে বিজয়ীরা হলেন (মোস্তাক-খলিল প্যানেল) : সভাপতি মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি (১) আঃ শহীদ, সহ সভাপতি (২) জয়নাল আহমেদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমান, সহ সাধারণ সম্পাদক আম্বিয়া মিয়া, কালচারাল সেক্রেটারী হিফজুর রহমান চৌধুরী, ফিউনারেল সেক্রেটারী মোঃ নুরুল আহিয়া, মেইনটেনেন্স সেক্রেটারী মোঃ ফটিক মিয়া, এডুকেশন সেক্রেটারী ইসলাম উদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ মাজলুল আহমেদ, সহ কোষাধ্যক্ষ মোঃ রফিকুল ইসলাম, সদস্য : আবদুল বাছির খান, আবদুল মতিন, লুকমান হোসেন লুকু ও মো. মজনু মিয়া।বিজিতরা হলেন (নাজিম-নজরুল প্যানেল) : সভাপতি সৈয়দ আল ওয়াহিদ নাজিম, সহ সভাপতি (১) সৈয়দ শামসুজ্জামান আহমেদ, সহ সভাপতি (২) ফয়জুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল হক, সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ আকসাদ আলী, কালচারাল সেক্রেটারী মোঃ আব্দুল হাই, ফিউনারেল সেক্রেটারী মোঃ আরিফ চৌধুরী, মেইনটেনেন্স সেক্রেটারী মোঃ রেজাউল ইসলাম, এডুকেশন সেক্রেটারী সাব্বির কাজী আহমদ, কোষাধ্যক্ষ নুরুল হুদা চৌধুরী, সহ কোষাধ্যক্ষ জুলু আহমেদ, সদস্য: আলমাছ আলী, ফারুক চৌধুরী, কামাল উদ্দিন ও শালিক সিকদার।

এবারই প্রথম পার্কচেষ্টার মসজিদে সরাসরি পদভিত্তিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে ১৫টি পদে ‘এ’ ও ‘বি’ দু’প্যানেলে ৩০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ‘এ’ প্যানেল থেকে নির্বাচিত সভাপতি মোশতাক চৌধুরী গত দু’বছর দায়িত্ব পালন করে আসছেন সাধারণ সম্পাদকের। ‘বি’ প্যানেলের বিজিত সভাপতি প্রার্থী সৈয়দ আল ওয়াহিদ নাজিম সভাপতি হিসেবে গত দু’বছরে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। নির্বাচন চলাকালে দু’প্রতিদ্বন্দ্বি সভাপতি প্রার্থীই ইউএসএনিউজঅনলাইন.কমকে জানান নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হচ্ছে। ভোটাররাও একই অভিমত ব্যক্ত করেন ইউএসএনিউজঅনলাইন.কম’র কাছে।

নির্বাচন কমিশনের সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ ইউএসএনিউজঅনলাইন.কমকে জানান, এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ৮৭২ জনের মধ্যে ৭৩১ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। মসজিদ ভবনে সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। ভোট চলাকালে জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজের জন্য ১৫ মিনিট করে বিরতি ছিল।নির্বাচন কমিশনের সদস্যরা ছাড়াও এক জন প্রিসাইডিং অফিসার ও ৬ জন পুলিং অফিসার নির্বাচন পরিচালনায় নিয়োজিত ছিলেন। পুলিং অফিসারদের মধ্যে দু’জন মহিলাও রয়েছেন। নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসার ছিলেন অধ্যাপক ম আমিনুল ইসলাম, পুলিং অফিসার ছিলেন আবদুর রহমান কিবরিয়া, নুরুল মাসুম, সৈয়দ সায়েম, লাইজু বেগম ও সেনা ইমরান।

সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ আরো জানান, নির্বাচন কমিশনার, প্রিসাইডিং অফিসার ও পুলিং অফিসারগণ বিনা সম্মানীতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করেন। তিনটি ‘টাচস্ক্রীন’ বুথে ভোট গ্রহণ করা হয়। স্টার্ক সাবস ইনক্’র একজন ইঞ্জিনিয়ারসহ ৬ জন অপারেটর নির্বাচনী ‘টাচস্ক্রীন’ মেশিন পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন। তারা হলেন, স্টার্ক সাবস ইনক্’র কর্ণধার ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ রাকিবুল ইসলাম, এনালিস্ট শওকত আলী, অপারেটর মো. সাইফুল ইসলাম, শেখ শাহরিয়ার তাসাব্বির, নায়ন খলিফা ও ইভান আরাফাত। নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন ৫ জন সিকিউরিটি অফিসার। নির্বাচন কমিশনের সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ ইউএসএনিউজঅনলাইন.কমকে আরো জানান, ভোট চলাকালে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। নির্বাচন সংক্রান্ত কোন অভিযোগও কেউ করেনি। নির্বাচনে ভোট দিতে মসজিদের আজীবন সদস্য, ভোটাররা অন্য স্টেট থেকেও এসেছেন বলে জানা গেছে। নির্বাচন কমিশন একটি সুন্দর, সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য মিডিয়াসহ কমিউনিটির সকলের সহযোগিতার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

অনেকের মতে, বহুল আলোচিত পার্কচেষ্টার জামে মসজিদের এবারের নির্বাচন কোন কোন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নির্বাচনকেও হার মানিয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, শাসরুদ্ধকর এই নির্বাচনে একদিকে ছিলো জেতার প্রতিশ্রুতির ছড়াছড়ি অন্যদিকে ছিলো প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার চরম কাদা ছোড়া-ছুড়ি। ব্যক্তিগত চরিত্র হননেও এবার অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে প্রতিপক্ষরা। পাল্টাপাল্টি সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগও ছিল। এক পক্ষ আরেক পক্ষকে চোর বলতেও দ্বিধা করেননি। সাধারণ মুসল্লীদের অভিযোগ, নির্বাচনকে ঘিরে এবার মসজিদের পবিত্রতা হুমকির মুখে পড়েছে।

উল্লেখ্য, পার্কচেস্টার জামে মসজিদের ইতিহাসে এবারই প্রথম বারের মত পদ ভিত্তিক সরাসরি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগের নির্বাচনে প্রথমে নির্বাচিত হতেন ১৫ জন। এরপর তারা নিজেদের মধ্যে গোপন ব্যালটে নির্বাচিত করতেন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যদের। পদ ভিত্তিক সরাসরি নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে সংবিধান সংশোধন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এবারই প্রথম সরাসরি পদভিত্তিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হল।

এদিকে, নির্বাচনে বিজয়ী মোস্তাক-খলিল প্যানেল’র সভাপতি মোস্তাক আহমদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমানসহ কমিটির অন্যান্য কর্মকর্তারা একটি সুন্দর, সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশন, ভোটার, মিডিয়াসহ কমিউনিটির সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। তাদের প্যানেলের বিশাল বিজয়ে ভোটারদের অবদানের কথা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরন করেন। নির্বাচনে পরিষদের দেয়া সকল প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে তারা বলেন, নির্বাচনে বিজিতসহ সকলকে সাথে নিয়ে মসজিদের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করবেন। তারা মসজিদকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

অন্যদিকে, পার্কচেষ্টার জামে মসজিদের ভোটাররা নজিরবিহীন সুষ্ঠু নির্বাচনে মোস্তাক-খলিল প্যানেল’র বিশাল বিজয়ে অভিনন্দন জানিয়ে তাদের দেয়া সকল প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের আহবান জানান।


ফিলিস্তিনি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার সংক্রান্ত কমিটিতে বক্তব্য রাখলেন রাজী মোহাম্মদ ফখরুল এমপি

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ:গত ১৫ নভেম্বর জাতিসংঘ সদরদপ্তরে ফিলিস্তিনি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার রক্ষা বিষয়ক কমিটির এক সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুল এমপি।তিনি তার বক্তৃতায় বলেন, “১৯৬৭ সালে শুরু হওয়া ইসরাইলী আগ্রাসন বন্ধে আশু পদক্ষেপ গ্রহণের উপর আমরা বিশেষভাবে জোর দিচ্ছি। প্যালেস্টাইন ও ইসরাইলের মধ্যে ব্যাপকভিত্তিক, ন্যায়সঙ্গত ও স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে জাতিসংঘের সাধারণ ও নিরাপত্তা পরিষদ গৃহীত রেজুলেশন, মাদ্রিদ টার্মস্ অব রেফারেন্স, আরব পিস প্রসেস এবং দ্বৈত-রাষ্ট্র সমাধানসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক নীতির পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন ঘটাতে হবে”।


ফিলিস্তিনি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার রক্ষা বিষয়ক কমিটি গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রশংসা করে তিনি বলেন, “আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যাতে দখলদার অপশক্তিকে আরও চাপ প্রয়োগ করে সে বিষয়ে এই কমিটিকে আরও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে”।তিনি চলতি মাসের ২৯ নভেম্বর ‘ফিলিস্তিনি জনগণের সাথে একাত্ত্বতা ঘোষণার আন্তর্জাতিক দিবস’ এবং আগামী বছর ‘ফিলিস্তিনি উদ্বাস্তুদের স্বদেশ থেকে উৎখাতের ৭০ বছর পূর্তি’ উপলক্ষে এই কমিটি গৃহীত কর্মসূচিকে স্বাগত জানান।


জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দিবস পালন

সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:গত ১০ই নভেম্বও শুক্রবার সন্ধ্যা ৭ টায় এষ্টোরিয়াস্থ বৈশাখী রেষ্টুরেন্ট মিলনায়তনে জাতীয় ১০ নভেম্বর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দিবসের উপলক্ষে জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট শাখা এক যৌথভাবে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাপার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি  হাজী আব্দুর রহমান ও সভা পরিচালনা করেন  সাধারণ সম্পাদক  আবু তালেব চৌধুরী চান্দু। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সাংসদ  মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত আলী, জাপার উপদেষ্টা সৈয়দ শওকত আলী, জাপার উপদেষ্টা গিয়াস মজুমদার, জাপার উপদেষ্টা ডাঃ লতিফ রহমান।  বক্তব্য রাখেন জাপার সহ সভাপতি  এডভোকেট হারিস উদ্দিন আহমেদ, সহ সভাপতি খন্দকার আলী নাসিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান, যুগ্ম সাংগঠনিক মোহাম্মদ ওয়াসিম, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা জেসমিন আকতার চৌধুরী, তথ্য ও যোগাযোগ মাহবুব হাসান সোহাগ, দপ্তর শফিউল আলম, যুগ্ম যুব সম্পাদক শফি আলম, যুগ্ম দপ্তর সম্পাদক আকতার কবির, মহিলা সভানেত্রী ফাহিমা রোজী, ফারজিন আহমেদ স্বর্ণা, শেখ নেছারা রাজীব, নিউইয়র্ক স্টেট সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ হানিফ, নিউইয়র্ক সিটি সভাপতি শুভংকর গাঙ্গুলী, জাতীয় শ্রমিক পার্টি সহ সভাপতি আবিদুর রহমান, জাতীয় যুব সংহতির  সহ সভাপতি আমির হামজা, সদস্য শাহজাহান মিঞা ও হাবিবু রহমান প্রমুখ।

Picture
১৯৮৬ সালের এই দিনে জাতীয় সংসদে দেশের রাষ্ট্রপতি হিসেবে অনুষ্ঠানিক ভাষণ দিয়ে দেশের সামরিক শাসন চির অবসানের ঘোষণা দেন পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। সে সময় পল্লীবন্ধু বলেছিলেন জণগনের প্রত্যাশিত গণতন্ত্রে ভিত্তি আজ রচিত হলো। যা কেউ কোনদিন নস্যাৎ করতে পারবে না। সেই গণতন্ত্র আজও অব্যাহত রয়েছে বলে গণতন্ত্রকামী জণগণের কাছে ১০ নভেম্বর দিনটি গণতন্ত্র দিবসা হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। যে গণতন্ত্রের জন্য ক্ষমতা ছেড়েছি সেই গণতন্ত্র আজও অধরা। আসুন সবাই মিলে গণতন্ত্র পূণ: প্রতিষ্ঠা করি।


মানবতার ডাকে রোহিঙ্গাদের পাশে প্রবাসীরা

শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ , নিউইয়র্ক: মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সাহায্যার্থে ‘আমরা কতিপয় বাঙালি’ নামে একটি সংগঠন নিউইয়র্কে অর্থ সংগ্রহ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।

alt

বিশেষ করে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতার শিকার রোহিঙ্গা শিশুদের কল্যাণে কিছু করার প্রয়াসে রোববার জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ স্ট্রিটে খাবারবাড়ি রেস্টুরেন্টের সামন ‘আমরা কতিপয় বাঙ্গালী’র ব্যানারে পথচারীদের কাছ থেকে অর্থ সাহায্য সংগ্রহ করা হয়। অর্থ সংগ্রহের এই মহতি কাজে সাধারণ জনগণের পাশাপাশি বাংলাদেশী কম্যুনিটির বিভিন্ন বিশিষ্টজনরাও অর্থ দান করেন।

alt
উল্লেখ্য, আমরা কতিপয় বাঙ্গালী সংগঠনটি একটি অরাজনৈতিক অলাভজনক সংগঠন যা মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছে বলে সংগঠনের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে। সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট আজকাল পত্রিকার বাণিজ্যিক প্রধান আবু বকর সিদ্দিক বলেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে আঠার হাজার রোহিঙ্গা শিশু-কিশোর তাদের বাবা মাকে হারিয়ে অসহায় অবস্থায় দিনাতিপাত করছে। তারা না পাচ্ছে একটু মাথা গোঁজার ঠাই, না এক মুঠো ভাত, না এক টুকরা কাপড়।

alt

তিনি বলেন,আমাদের সাহায্যের হাতটা যদি তাদের দিকে একটু বাড়িয়ে দিই হয়ত তাদের তাদের দুঃখ কষ্ট কিছুটা হলেও লাঘব হতে পারে।

alt

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান সান্টু সহ এই অর্থ সংগ্রহ অভিযানে সহযোগিতা করেন সাপ্তাহিক দেশবাংলা'র নির্বাহী সম্পাদক মোঃ আলমগীর সরকারের কন্যা রুবাইয়াত তাবাসসুম আলম।

alt

এছাড়াও অর্থ সংগ্রহে ছিলেন নাসিমা আক্তার, সিয়াম আলম সরকার, মফিজুর রহমান মুনা, রুবেল হোসেন প্রমুখ।


৭ই নভেম্বর নায়ক কর্ণেল আবু তাহের আর খল নায়ক বিশ্বাসঘাতক জিয়া- যুক্তরাষ্ট্র জেএসডি

শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:৭ই নভেম্বর সিপাহী জনতার অভ্যূত্থান দিবস উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র জেএসডি জ্যাকসন হাইটসে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ই নভেম্বর বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক ও সেনাবাহনীর মধ্যে যে অস্থিরতা, বিশৃঙ্খলা, গণহত্যা চলছিল তা থেকে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে গড়ে উঠা সেনাবাহিনী ও দেশকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেন যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্ণেল আবু তাহের। তার নেতৃত্বে বিপ্লবী সৈনিক সংস্থা ৭ই নভেম্বর বিপ্লবের মাধ্যমে সেনাবাহিনী ও জনগণের মধ্যে আস্থা তৈরী করে হানাহানি, হত্যা বন্ধ করে সেনাবাহিনীর মধ্যে চেইন অব কমান্ড ফিরিয়ে এনে দেশে শান্তি শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিলেন। তাহের যখন বিপ্লবের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তখন বন্দি জিয়া খালেদা জিয়ার মাধ্যমে তাহেরের কাছে চিরকুট পাঠিয়ে প্রাণভিক্ষা চেয়েছিলেন,খবর বাপসনিঊজ।দেশপ্রেমিক তাহের মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে জিয়াকে মুক্ত করে তাকে সেনাবাহিনীতে পূর্ণবহাল করেন। ক্ষমতা পেয়েই বিশ্বাস ঘাতক, পাকিস্তানীদের এজেন্ট জিয়া প্রথমেই মুক্তিদাতা তাহেরকে গ্রেফতার করেন। ক্ষমতালোভী বিবেকহীন স্বদেশ বিরোধী কুকুর বহুরুপী জিয়া তার ক্ষমতা চিরস্থায়ী ও রাজাকারদের পুর্নবাসনের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যার নীল নক্সা হাতে নেন। ৭ই নভেম্বরের চেতনার সাথে বেঈমানী করে জিয়া শুধু তাহের কে হত্যা করেই থেমে থাকেন নি। পাকিস্তানের দালাল খুনি জিয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ধ্বংস করার জন্য মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে গড়ে উঠা সেনাবাহিনীর মুক্তিযোদ্ধা হাজার হাজার সেনা অফিসার ও সদস্যকে বিনা বিচারে হত্যা করেন। হিটলারের অনুসারী জেনারেল জিয়া সেনা অফিসার ও সদস্যদের হত্যা করে তাদের লাশও পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে নি। এমনকি হত্যার নথি পর্যন্ত নষ্ট করে ফেলে যাতে ভবিষ্যতে তার এই কুকর্মের কোন স্বাক্ষী না থাকে। এ সমস্ত নৃসংশ ঘটনার কিছু তথ্য পাওয়া যায় তৎকালীন এ্যমনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিবেদনে। যদিও এ সব প্রতিবেদন ঐ সমস্ত ঘটনার আংশিক চিত্র মাত্র। ১৯৭৭ সালের ডিসেম্বরে এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মহাসচিব মার্টিন ইনালম বিশেষ সফরে ঢাকা আসেন এবং১৯৭৮ সালের ১৯ জানুয়ারী এক তারবার্তায় অ্যামনেস্টির মহাসচিব গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে অভিযোগ করেন যে, ২ অক্টোবরের পর থেকে শত শত সেনা সদস্যদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। এবং এখনো মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা অব্যাহত আছে। ১৯৭৮ সালের ৫ মার্চ লন্ডনের দ্য সানডে টাইমস এর প্রতিবেদনে বলাহয় গত অক্টোবরের ৬০০ সেনা সদস্যের মৃত্যুদুন্ড কার্যকর করা হয়েছে। বিমান বাহিনীর সাবেক এক জৈষ্ঠ কর্মকর্তা দ্যা সানডে টাইমসকে বলেছেন ৩০ সেপ্টেম্বর বগুড়ার সামরিক ট্রাইবুনালে অসংখ্য সেনা সদস্যকে মৃত্যুদন্ড দেয়া ও কার্যকর করা হয়। সেনা সদস্যদের হত্যার পদ্ধতিও ছিল অত্যন্ত নিষ্ঠুর। সেনা সদস্যদের বলা হতো তাদের মুক্তির নির্দেশ এসেছে। জেলগুলিতে তখন আনন্দের পরিবেশ তৈরী হয়। জোয়ানরা তাদের মালামাল জড়ো করে, তাদের নিয়ে যাওয়া হয় জেলের সামনের গেটে। জানা যায় সেখানে একজন সেনা কর্মকর্তা বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা তাদের বাধাদেন এবং হঠাৎ সেখানে তাদের মৃত্যুদন্ডের রায় পড়ে শুনানো হয়। রায় শুনে জোয়ানেরা পাগলের মতো কান্নায় ভেঁঙ্গে পড়ে কান্নার রোলের মধ্যে জোয়ানদের নিয়ে যাওয়া হয়ে থাকে আর একেক দফায় ১৭/১৮ জনকে ফাঁসিতে ঝুঁলিয়ে দেওয়া হয়ে থাকে। সংখ্যায় বেশী হলে ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে গুলি করে হত্যা করা হয়। ফায়ারিং স্কোয়াডে গুলি করার নির্দেশ দেওয়ার পর গুলি না করায় কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছিলো। এসবের কোন কিছুই এমন কোন সংবাদপত্র ছাপার সাহস করেনি। এই ছিলো দেশপ্রেমিক বহুদলীয় গণতন্ত্রও সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী ঠান্ডামাথার খুনি জিয়ার দেশ শাসনের নমুনা। কিন্তু ইতিহাসের নির্মম পরিহাস এ ঘটনায় ৩৫ বছর পর বাংলাদেশের সুপ্রিমকোর্টে ঘোষণা করেছে তাহের ও তার সহযোগিদের বিচার ছিল একটি ধাপপাবাজি, অবৈধ, স্বেচ্ছারি, জোচ্চুরি ও প্রহসন। এমন প্রহসনমূলক বিচার এ দেশে কখনোই ঘটেনি। আদালত তাহেরকে শহীদ ও দেশপ্রেমিক হিসেবে বণর্না করেছেন। আরও বলেছেন আজ যদি জেনারেল জিয়াউর রহমান বেঁচে থাকতেন, তাহলে তাহেরের মৃত্যুর জন্য তাকে হত্যাকান্ডের বিচারের সম্মুখীন হতে। আদালত আরও ঘোষণা করেছেন কর্ণেল আবু তাহের তথাকথিত বিচারও মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার ঘটনাটি ঠান্ডা মাথায় হত্যা এবং এর পরিকল্পনাকারী জেনারেল জিয়াউর রহমান।
তাহেরের সহযোদ্ধা মেজর জলিল, আ স ম আব্দুর রব, হাসানুল হক ইনু, সিরাজুল আলম খান, মার্শাল মনি সহ জাসদ নেতাদেরও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয় তৎকালীন স্বৈরাচারী জিয়া সরকার। উচ্চ আদালত এসব মামলা বাতিলের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্থ ঐসব মামলার সকল ব্যাক্তি ও পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দেয়। কিন্তু বর্তমান সরকার আজ পর্যন্ত কোন ক্ষতিপূরণ দিয়েছে বলে জানা যায়নি। জাসদ নেতৃবৃন্দ এই সভা থেকে আদালতের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ঐ মামলার সকলকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের জন্য সরকারকে আহ্বান জানাচ্ছে। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি হাজী আনোয়ার  হোসেন লিটন এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শামসুদ্দীন আহমেদ শামীম এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন সাবেক সাংসদ আনিসুজজামান খোকন, যুক্তরাষ্ট্রস্থ সোহ্রাওয়ার্দী স্মৃতি পরিষদের সভাপতি প্রবীণ শিশু সাহিত্যিক হাসানুর রহমান, বাপসনিঊজ এডিটর হাকিকুল ইসলাম খোকন,বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জেএসডি  নেতা তসলিম উদ্দিন খান।


আশাশুনি উপজেলা চেয়ারম্যান মুসতাকিম নিউইয়র্কে সংবর্ধিত

শুক্রবার, ১০ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ ঃ নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের ৭৪ স্ট্রিটের ৩৭ এভিনিউ (সিটি ব্যাংকের বিপরীতে) তাকালেই চোখে পড়বে প্রিন্স কাবাব এন্ড চাইনিজ। এর সত্বাধিকারী শাহাজাদা ইলিয়াস গত ১৮ অক্টোবর বুধবার ঘরোয়া পরিবেশে ফুল দিয়ে বরণ করে নিলেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলা চেয়ারম্যান মুসতাকিম আহমেদ ও আনুলিয়া ইউনিয়নের কয়েকবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আলমগীর আলম লিটনকে। ব্যক্তিগত সফরে এসে ভালোবাসার টানে সাতক্ষীরাবাসীর সাথে মত বিনিময় করেন উপজেলা চেয়ারম্যান। খবর বাপসনিঊজ।


উপজেলা চেয়ারম্যান মুসতাকিম আহমেদ তার বক্তব্যে এলাকার উন্নয়নের আশ্বাস দেন এবং অবহেলিত আশাশুনি উপজেলার বিভিন্ন এলাকা নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি আশাশুনি  উপজেলাকে ভবিষ্যতে একটি মডেল হিসেবে দাড় করাতে চান, আর এজন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। আপনারা প্রবাস থেকে সাতক্ষীরার পাশে দাঁড়াবেন, কোন পরামর্শ থাকলে দিবেন। তিনি মসজিদ, লাইব্রেরীতে আরো অনুদান দেয়ার অঙ্গীকার করেন।


সভাপতির বক্তব্যে শাহজাদা ইলিয়াস বলেন, আইলা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার নিবেদিত প্রাণ মুসতাকিম আহমেদ যেভাবে আশাশুনিকে এগিয়ে নিচ্ছেন, ভবিষ্যতে সাতক্ষীরা-৩ আসনের এম.পি নির্বাচন এখন সময়ের দাবী। মুসতাকিম আহমেদ ২৯ অক্টোবর বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে নিউইয়র্ক ত্যাগ করার কথা। এসময় উপস্থিত ছিলেন শফিক আহমেদ, আব্দুল হাকিম, দেবব্রত ঘোষ, রফিকুল ইসলাম, বায়োজিদ, জয়দেবগন, পল্টু, জিয়াউল হক, শিরিনা সুলতানা, রিয়া, নাহিদ ও সুমন।