Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_small/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

‘স্মৃতির দিগন্তে’ গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠান ১০ ডিসেম্বর রোববার

সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:প্রবীণ আইনজীবি মরহুম আজিজুল মালীক চৌধুরীর ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রকাশিত স্মারক গ্রন্থ ‘স্মৃতির দিগন্তে’ এর প্রকাশনা অনুষ্ঠান আগামী ১০ ডিসেম্বর রোববার বিকেল চারটায় নিউইয়র্কের এস্টোরিয়ার জালালাবাদ এসোসিয়েশন কার্যালয়ে (৩৮-০৬-৩১ ষ্ট্রীট) অনুষ্ঠিত হবে।

Picture

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের উপস্থিত থাকতে এডভোকেট আজিজুল মালীক স্মৃতি পরিষদের আহ্বায়ক এডভোকেট অরুণ ভূষণ দাস, যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট এমাদ উদ্দিন, এডভোকেট আব্দুল হাই কাইয়ূম, সদস্য সচিব এডভোকেট সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী সবিনয় অনুরোধ জানিয়েছেন।খবর বাপসনিঊজ।

প্রকাশনা অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আছেন মরহুম আজিজুল মালীক চৌধুরীর জামাতা জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ময়নুল হক চৌধুরী হেলাল।


নিউইয়র্ক প্রবাসী কিশোরগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা রিয়াজ উদ্দিন ভূঞা’র মৃত্যুতে শোক প্রকাশ

সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ : নিউইয়র্কের কুইন্সের জ্যামাইকার হলিসে বসবাসরত কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা রিয়াজ উদ্দিন ভূঞা (৬৩)গত ৩০ নভেম্বর বৃহষ্পতিবার অপরাহ্ন দেড়টায় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস সংলগ্ন এলমাষ্ট হাসপাতালে পরলোক গমন করেন ( ইন্না......রাজেউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও দুই পুত্র সন্তানসহ অসংখ্যক আতœীয়-স্বজন ,বন্ধু-বান্ধব শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন। মরহুমের নামাজের জানাযা ১ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্মা হলিসের একটি মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। পরে লংআইল্যান্ডে তাকে সমাধিস্থ করা হয়েছে।


মুক্তিযোদ্ধা রিয়াজ উদ্দিন ভূঞার মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ ও শোক সমতপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক ও সাং¯কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন আমেরিকা- বাংলাদেশ এলাইন্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ যুক্তরাষ্ট্র কমান্ডের কমান্ডার আব্দুল মুকিত চৌধুরী,  যুক্তরাষ্ট্র সোহরাওয়ার্দী স¥ৃতি পরিষদের সভাপতি শিশু সাহিত্যিক হাসানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গণি ও সাধারণ সম্পাদক সুহাস বড়ুয়া, সেন্ট্রাল ফ্লোরিডা আওয়ামী লীগের সভাপতি  মাহবুবুর রহামন ও সাধারণ সম্পাদক আলো আহমেদ,

alt

আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন  সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন ও সাধারণ সম্পাদক হেলাল মাহমুদ, বোস্টনবাংলানিউজ ডটকম সহযোগী সম্পাদক বিশ্বজিৎ সাহা ও নাসিম পারভীন, ইউএসএবাংলানিউজ এর সম্পাদক আবু সাঈদ রতন, মুক্তিযোদ্ধা শরাফ সরকার,  কবি ও সঙ্গীত শিল্পী শামীমআরা আফিয়া, কবি আব্দুল আজিজ, ফিরোজ মাহমুদ, জাহাঙ্গীর কবির,আবুল জাহাঙ্গীর কাশেম ভুইয়া, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন লিটন ও সাধারণ সম্পাদক শামসুউদ্দিন আহমেদ শামীম, কিশোরগঞ্জ জেলা সমিতির যুক্তরাষ্ট্রের সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন ও সাধারন সম্পাদক কবি মেলি ভৌমিক, মুক্তিযোদ্ধা শরাফ সরকার, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি দেওয়ান শাহেদ চৌধুরী ও সাধারন সম্পাদক নূওে আলম জিকু প্রমুখ।


উললাপাড়া সোসাইটি অব ইউএসএ-এর বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত উত্তরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন উল্লপাড়া সোসাইটি অব ইউএসএ-এর এক বিশেষ সভা গত ২৫শে নভেম্বর শনিবার সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় জ্যাকসন হাইটস এর খাবার বাড়ি চাংপাই রেষ্টুরেন্ট এ  অনুর্ষ্টিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি রাকিবুজ্জামান খান তনু এবং সঞ্চালনা করেন যৌথভাবে সাধারণ সম্পাদক  রফিকুল ইসলাম এবং সহ সাধারণ সম্পাদক  শফিউল আলম।
সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ার এইচ এম সহিদ,  মোতাহার হোসেন, আলহাজ্ব ছাইফুল ইসলাম, মাসুদ পারভেজ, ইঞ্জিনিয়ার সামছুল ইসলাম এবং আলহাজ্ব আব্দুল হালিম। বক্তাগণ উল্লাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ নির্মানে অর্থ সংগ্রহের জন্য উপস্থিত সকলকে অর্থ দানে উৎসাহ প্রদান করে বক্তব্য রাখেন। তাৎক্ষনিকভাবে উপস্থিত সকলে মসজিদ নির্মানের জন্য অর্থ প্রদান করেন। উল্লাপাড়া সোসাইটির নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন জনের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থ কোষাধ্যক্ষ এলাহী তালুকদারের নিকট জমা দেন এবং রশিদ সংগ্রহ করেন। সংগৃহিত মোট অর্থের পরিমাণ পাঁচ লক্ষ টাকা (সমপরিমাণ ইউএস ডলার)। পূর্ব নির্ধারিত সভাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্ন এলাকার দায়িত্বে নিয়োজিত হন। তারা হলেন নিউইয়র্ক ষ্টেটের কুইন্স  শফিউল আলম,  জহুরুল ইসলাম,  শরিফুল ইসলাম, এলাহী বক্স তালুকদার। ব্রঙ্কসঃ  রফিকুল ইসলাম,  সিদ্দিকুর রহমান লিটন, আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলাম,  মোকলেছুর রহমান লেবু এবং তানিয়া সুলতানা। ব্রুকলিনঃ  রাকিবুজ্জামান খান তনু, মীর আমজাদ হোসেন। ম্যানহাটন মোঃ আলামিন, আলহাজ্ব আব্দুল হালিম। লং আইল্যা-ঃ  জাকির হোসেন রেজা,  মহিবুর ইসলাম মীর। ম্যারিল্যান্ড মোমিনুর রহমান। নিউজার্সীঃ  আব্দুল লতিফ,  ওমর সানী। কানেকটিকা মনির বিপ্লব লিটন। পেনসেলভেনিয়া মনিরুল হক, নজরুল ইসলাম। ক্যালিফোর্নিয়া খলিলুর রহমান। ওকলাহামা মাহমুদুল ইসলাম (মিলটন), আব্দুল মান্নান।

Picture

উল্লাপাড়া কেন্দ্রীয় মসজিদের জন্য সর্বোচ্চ  অর্থ দান করেন  শামীম আহমেদ উল্লাপাড়া সোসাইটি উপদেষ্টা এবং বেঙ্গল ফুড এর স্বত্ত্বাধিকারী তিনি বলেন, যে কোন ভাল কাজে ভবিষ্যতেও তিনি সোসাইটির সঙ্গে একযোগে কাজ করে যাবেন। তিনি উল্লাপাড়া সোসাইটির উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করেন। সভা চলাকালে উল্লাপাড়া উপজেলা চেয়াম্যান মারুফ বিন হাবিব সবার সঙ্গে কুশলাদি বিনিময়ের পর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ নির্মানে কাজে অর্থ সংগ্রহের জন্য উল্লাপাড়া সোসাইটি অব ইউএসএ ইনক্ এর সকলকে ধন্যবাদ দেন। সহ সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম এবং জহুরুল ইসলাম সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন এই সংগঠনটি সৃষ্টি হতে বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করে আসিতেছে। প্রবাসে কোন উল্লাপাড়া তথা সিরাজগঞ্জ জেলার নতুন লোক আসিলে তাহাদের বাসস্থান, চাকুরি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করে থাকেন। নতুনেরা বুজতে পারে না যে তারা দেশ হতে ১৪ হাজার মাইল দুরে এসেছেন নতুন জায়গায়। আমাদের সাহায্য সহযোগিতা আমরা দেশ ও বিদেশে চালিয়ে যাব। যেমন প্রতি বছরের মত এবারও আমরা বন্যার্থদের মাঝে ত্রান ও অর্থ বিতরণ করেছি। শীতার্থদের মাঝে অর্থ, কম্বল ও শীত বস্ত্র বিতরণ আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে। এছাড়া স্বাগতম চৌধুরী বলেন যে, আপনারা যতদিন ভাল কাজ করবেন ততদিন তিনি শ্রম ও অর্থ দিয়ে সংগঠনকে সহযোগিতা করিবেন। উপদেষ্টা  মনোয়ারুল ইসলাম ফোনের মাধ্যমে উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ দেন এবং বলেন অসুস্থ থাকার কারণে তিনি আসতে পারেন নাই। তাহার বন্ধু শামীম আহম্মেদ এর মাধ্যমে অর্থ প্রেরণ করেন।  মমিনুর রহমান কার্যকরী সদস্য মেরিল্যান্ড হতে তার শশুর এইচ এম সহিদ এর মাধ্যমে মসজিদ এর জন্য অর্থ পাঠান। তিনি সভাপতির নিকট নগদ অর্থ জমা দেন এবং সবাইকে ধন্যবাদ দেন এই শুভ কাজের জন্য। অন্যতম উপদেষ্টা মোঃ জুলফিকার রহমান লং আইল্যান্ড থেকে ডাকযোগে সংগঠনের সভাপতির নিকট চেক পাঠিয়ে দেন। সভাপতি কোষাধ্যক্ষের নিকট উক্ত চেক বুঝিয়ে দেন। এছাড়া বক্তব্য রাখেন সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সিদ্দিকুর রহমান লিটন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম এবং অন্যান্য সদস্য ও সদস্যা এরা সবাই নর্থ বেঙ্গল এর প্রেসিডেন্ট এর ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন যিনি সব সময় আমাদের সাহায্য করেন এবং দিক নির্দেশনা দেন তিনি হলেন নর্থ বেঙ্গল এর সভাপতি ডাঃ আব্দুল লতিফ। তিনি সভাপতির নিকট  পূর্বেই সাক্ষাৎ করে নগদ অর্থ সভাপতির নিকট দিয়ে যান এবং সবাইকে ধন্যবাদ জানান। সভাপতি তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান। তিনি আশা করেন আমরা ঐক্য বদ্ধভাবে আগামীতে দেশ ও বিদেশে তথা সারা বিশ্বের জন্য কাজ করতে পারবো এবং হৃদয়ে মাতৃভূমি লালন করে যাবো। যাতে করে আমাদের কাছ থেকে নতুন প্রজন্ম শিক্ষা নিতে পারে। তিনি আরও বলেন যাহারা এই শুভ কাজে সাহায্য ও সহযোগিতা করেছে তিনি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি সবার সুস্বাস্থ্য কামনা করে সভা সমাপ্তি ঘোষণা করেন। সভা শেষে তিনি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আদায়কৃত পাঁচ লক্ষ টাকা (সমপরিমান ইউএস ডলার) সরাসরি কেন্দ্রীয় জামে এর একাউন্টে পাঠিয়ে দেন।


মুক্তিযোদ্ধাদের ‘জাতীয় বীর’ ঘোষণার দাবি যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের

সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

Picture

ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রাশেদ আহমেদের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল বারির পরিচালনায় এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কন্ঠযোদ্ধা শহীদ হাসান, মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার, মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার চুন্নু, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সহ-সভাপতি হারুন ভূইয়া, নারী বিষয়ক সম্পাদক সবিতা দাস, যুগ্ম সম্পাদক সোলায়মান আলী, দপ্তর সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা এম এ আওয়াল, গবেষণা ও প্রকাশনা সম্পাদক তানভির হাবিব, নির্বাহী সদস্য নান্টু মিয়া প্রমুখ। বিশিষ্টজনদের মধ্যে আরো ছিলেন আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ আবুল কাশেম, নির্বাহী সদস্য কানু দত্ত, সাপ্তাহিক বন্ধনের সম্পাদক সঞ্জীবন কুমার এবং কম্যুনিটি এ্যাক্টিভিস্ট গোপাল সান্যাল। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার পাশাপাশি রাজনীতিতে তাদের পরিবার ও পরবর্তী প্রজন্মের অধিকার রহিত করতে আইন প্রণয়নেরও দাবি জানান বক্তারা। এ সময় আসছে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের কর্মসূচিকে সর্বাত্মক সাফল্যমন্ডিত করতে সকলে সংকল্প ব্যক্ত করেন।


হাইকমান্ডের চিঠি পেয়ে এগিয়ে চলছে মামলার কাজ = যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ৮ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের পক্ষে কেন্দ্রের চিঠি

সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ৮ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে গত ২৭/৯/২০১৭ইং তারিখে একটি মামলা করেন জ্যাকব মিল্টন নামে এক ব্যক্তি। তিনি নিজেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিএনপি নেতা বলে দাবি করেন এবং তিনি এমনও মনে করেন যে, তিনি ব্যতিত অন্য কেউ যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপির হয়ে কাজ করতে পারবেন না। যুক্তরাষ্ট্রে যে কেউ যে কারো বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে তিনি উক্ত মামলাটি করেন।
এই মামলার পরিপেক্ষিতে ৮ শীর্ষ নেতৃবৃন্দ একটু হতবাগ হয়ে পড়েন এবং তারা উক্ত বিষয়টি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) প্রধান কার্যালয় জানান। কিন্তু এই মামলা আবারো সবর হচ্ছে। কারণ হাই কমান্ড থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে।
এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৭/১১/২০১৭ইং তারিখে বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক ব্যারিস্টার আবদুস সালাম লন্ডন থেকে এবং ২৮/১১/২০১৭ইং তারিখে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঢাকা থেকে ৮ শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কাছে চিঠি পাঠান। ৮ শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা হলেন, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শরাফত হোসেন বাবু, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ভূয়া, সাবেক যুগ-সম্পাদক আকতার হোসেন বাদল, সাবেক যুগা আহবায়ক মিজানুর রহমান ভূইয়া (মিল্টন), সিটি বিএনপির সভাপতি সেলিম রেজা, মোহাম্মদ সবুজ, ওমর ফারুক ও কামাল পাশা বাবুল।
চিঠিতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বিএনপি হল বাংলাদেশের একটি বড় রাজনৈতিক দল, সুতারাং এই বৃহত দলের বিরুদ্ধে কোনো ষড়যন্ত্র মেনে নেওয়া হবে না। বিএনপি কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। জ্যাকব মিল্টন অন্য কাউকে যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপির লগো, পোস্টার, ব্যানার ব্যবহার করতে নিষেধ করতে পারেন না। কারণ তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) মালিক নন। এই সম্পর্কে একমাত্র দলই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। সুতরাং দলের পক্ষ থেকে স্পষ্টভাবে জানানো যাচ্ছে যে, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শরাফত হোসেন বাবু, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ভূইয়া, সাবেক যুগ-সম্পাদক আকতার হোসেন বাদল, সাবেক যুগা আহবায়ক মিজানুর রহমান ভূইয়া (মিল্টন), সিটি বিএনপির সভাপতি সেলিম রেজা, মোহাম্মদ সবুজ, ওমর ফারুক ও কামাল পাশা বাবুল তারা তাদের মত করে বিএনপির হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করবেন। এতে জনাব জ্যাকব মিলটন কোনো বাধা প্রদান করতে পারবেন না এবং যত আইনি জটিলতা তিনি তৈরি করেছেন তা অনতি বিলম্বে তিনি যেন তুলে নেন। ভবিষ্যতে এই আটজন বিএনপির হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সকল সভা, সমাবেশ, মিছিল ও সংগঠনের হয়ে সকল কাজ করবেন।
হাই কমান্ড থেকে এই নির্দেশের পর খুব দ্রুত এগিয়ে চলছে মামলা নিষ্পত্তির কাজ। যুক্তরাষ্ট্রের ৮ জন শীর্ষ নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে মামলার সকল কাগজ পত্র তাদের হাতে রয়েছে, এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। তারা বলেন জ্যাকব মিল্টন বিএনপির সুনাম ক্ষুন্ন করার লক্ষে এই মামলাটি আমাদের বিরুদ্ধে করেছেন।
সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শরাফত হোসেন বাবু ও সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ভূইয়া জানান, মামলা জয়ের জন্য সকল কাগজপত্র আমাদের কাছে রয়েছে। ৮ ডিসেম্বরের মধ্যে যথাযথ জবাব আমরা আদালতের মাধ্যমে জ্যাকব মিল্টনকে দেব ইনশা আল্লাহ। (আইনি সীমাবদ্ধতার জন্য উল্লেখিত চিঠি দুইটি প্রকাশ করা হয়নি )।


মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীর শোক

শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে  যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক ও সাং¯কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন আমেরিকা- বাংলাদেশ এলাইন্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম,কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত চৌধুরী , নির্বাহী পরিচালক,সিডিএলজি ও গবেষক আবু তালেব,প্রাবন্ধিকও লেখক শিকদার গিয়াসউদ্দীন, শিক্ষাবিদ ও লেখক ভূ-তত্ত্ববিদ গিয়াস উদ্দীন আহমেদ,যুক্তরাষ্ট্র সোহরাওয়ার্দী স¥ৃতি পরিষদের সভাপতি শিশু সাহিত্যিক হাসানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গণি ও সাধারণ সম্পাদক সুহাস বড়ুয়া, সেন্ট্রাল ফ্লোরিডা আওয়ামী লীগের সভাপতি  মাহবুবুর রহামন মিলন, আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন  সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন ও সাধারণ সম্পাদক হেলাল মাহমুদ, বোস্টনবাংলানিউজ ডটকম সহযোগী সম্পাদক বিশ্বজিৎ সাহা ও নাসিম পারভীন, ইউএসএ বাংলা নউজ এর সম্পাদক আবু সাঈদ রতন, কবি ও সঙ্গীত শিল্পী শামীমআরা আফিয়া, কবি আব্দুল আজিজ, ফিরোজ মাহমুদ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন লিটন ও সাধারণ সম্পাদক শামসুউদ্দিন আহমেদ শামীম, শিক্ষাবিদমোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী,কবি এডভোকেট সুফিয়ান আহমেদ চৌধুরী,কবি অবিনাশ আচার্য্য,শিক্ষাবিদ,সংগঠক ফিরোজ আহমেদ কল্লোল,সংগঠক,কবি খালেদ শরফুউদ্দিন জসিম এবং আবুল কাশেম ভুইয়া প্রমুখ।


বিটিএসপির প্রীতিমিলন মেলা-২০১৭ অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৭

alt

অনুষ্ঠান অঙ্গনকে উপভোগ্য করার লক্ষ্যে সেখানে কোন মঞ্চ বা বক্তব্য রাখা হয়নি। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এবিএম বাহাউদ্দিন আলতামাস বাবুলের সাবলিল উপস্থাপনা ও পরিচালনায় অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। আলতামাস বাবুলের স্বরচিত কবিতা পাঠের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা ঘোষনা করা হয়। এরপর সংগঠনের প্রেসিডেন্ট শায়েখুল ইসলাম উপস্থিত সুধীবৃন্দকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং অনুষ্ঠানের গুরুত্ব, তাৎপর্যসহ সংগঠনের বর্তমান এবং ভবিষ্যত কার্যক্রম তুলে ধরেন। সভাপতির ধন্যবাদ জ্ঞাপনের পর শুরু হয় মনমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। প্রথমে দেশের গান পরিবেশণ করেন নিউইয়র্ক থেকে আগত বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী চন্দ্রা রায়, এরপর স্থানীয় শিল্পী নাদিরা সুলতানা, জলি দাস, স্বপন দাশ এবং নিউইয়র্ক থেকে আগত স্টার সার্চ চ্যাম্পিয়ান কণ্ঠশিল্পী খাইরুল ইসলাম সবুজ গান পরিবেশন করেন। নৃত্য পরিবেশন করেন বীনা বর্মন, কথা, রাজকুমারী ও মনছুর আলী মিঠু। উপস্থিত দর্শক ¯্রােতা মুগ্ধ মনে গান ও নৃত্য উপভোগ করেন। বিশেষ করে চন্দ্রা রায় এবং খায়রুল ইসলাম সবুজের কণ্ঠের গাণ আপার ডাবরীর সঙ্গীত প্রিয় ¯্রােতাদের উচ্ছাসিত করে তুলেন। সঙ্গীত পর্ব শেষে দর্শক ¯্রােতাকে নৈশভোজে আপ্যায়িত করা হয়।

Picture

প্রীতি মিলন মেলার মূল উদ্যোগ ও পরিকল্পনায় ছিলেন তোজাম্মেল হক এবং সাহিদুল ইসলাম প্রামানিক। মেলার আহ্বায়কের দায়িত্বে ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের মিয়া বীর বিক্রম এবং যুগ্ম আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম ও মোহাম্মদ সেলিম ইউডি।আপার ডাবীর টাউনশীপের কাউন্সিলম্যান বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ শেখ ছিদ্দিক, বেলবন ব্যুরোর কাউন্সিল ম্যান নুরুল হাসান, কাউন্সিল ম্যান মনছুর আলী মিঠু, ডিষ্ট্রিক্ট ৭ এর কাউন্সিল ম্যান সাখিনা খুলস এবং বাংলাদেশ ভাওয়াইয়া উৎসব-২০০৭ এর পদক প্রাপ্ত প্রবাসী সংগঠক নূর ইসলাম বর্ষন মিলন মেলায় উপস্থিত থেকে মেলাকে গৌরম্বিত করেছে। উল্লেখ্য মেলাকে সুন্দর ও সফল করতে যারা পৃষ্টপোষকতা করেছেন তারা হলেন: মোহাম্মদ সেলিম ডিই, জাকিরুল আলম, খলিলুর রহমান, মনোয়ারুল হক, স্বপন কুমার দত্ত, সেকুল মিয়া, আলী আকবর, আবছার আহম্মদ জুয়েল, নূরুল আবছার, হারুন অর রশিদ রাজু, রাজা আল দিদার, আব্দুর সবুর তনু, সাঈদ রহমান, সেলিম সিটি, এম.এ কামাল শরীফ, মোশারফ হোসেন, বিশ্বজিৎ চন্দ্র মজুমদার, বাবুল আকতার দীপ্তি, রেজাউল করিম, এ.এস, খান, মোঃ আব্দুল খালেক, সুরোজ আলম রুবেল, কামরুল হাসান, অজিৎ বিশ্বাঘ্রী, স্বপন দাস, মাহবুবুল আলম, সাইদুজ্জামান ডেনি, মোস্তফা কে বাদল, মোঃ ইসলাম, মুরাদ এ চৌধুরী, বিপ্লব বড়–য়া, ফেরদৌস ইসলাম, সাত্তার দুলাল, মিথুন, আশরাফুল ইসলাম আরিফ, কামরুল হাসান, সাঈদ উল্লাহ, নুর আলম বিপু, সাফর ইকবাল, শেখ কামাল উদ্দিন, খায়ের মোহ্মমদ মিয়া, এ আর খান লাভলু, গোলাম আবিদ মিয়া, রুহুল আমিন ভূঁইয়া, আমানুর রহমান, ইফতেখার হোসেন ফরহাদ, খায়রুল এহসান রতন, সাঈদ হোসেন বাবর ও গোলাম মঈন উদ্দিন।বিটিএসপির প্রীতি মিলন মেলাটি ছিল একটি সফল প্রীতি মিলন মেলা। যা দর্শকদের হৃদয়ে আনন্দের দোলা বয়ে দিয়েছে। অনুষ্ঠানের সার্বিক চিত্র ধারণ করেন সাংবাদিক এমএ কামাল শরীফ।


জেবিবি-এর এক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : রোজ মঙ্গলবার নভেম্বর ২৮, ২০১৭ তারিখে জেবিবি-এর এক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয় কার্যকরী পরিষদ ও উপদেষ্টা ম-লীর সমন্বয়ে। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধান উপদেষ্টা জনাব মহসীন ননী।সভায় সর্বসম্মতিক্রমে নি¤েœ বর্ণিত সিদ্ধান্তসমূহ গৃহিত হয়।
আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে সদস্য গ্রহনের চুড়ান্ত সময় বর্ধিত করে ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭, রবিবার রাত্রি ৯:০০ ঘটিকা পর্যন্ত (চুড়ান্ত সময়) নির্ধারণ করা হয়। এই সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সদস্য গ্রহনের বিনীত অনুরোধ করা যাচ্ছে।
নির্বাচন কমিশন নিয়ে আহুত সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আসন্ন কার্যকরী কমিটির সভায় চুড়ান্ত নির্বাচন কমিশন গঠন করার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে। আসন্ন কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে ডিসেম্বর ০১, ২০১৭, শুক্রবার। এছাড়াও এই সভায় পূর্বের সাধারণ সভার অনাকাঙ্খিত ভূল বুঝাবুঝি সৃষ্টির জন্য কার্যকরী পরিষদ ও উপদেষ্টা মন্ডলীর উপস্থিতিতে সম্মানিত সকল সদস্য ও ব্যবসায়ীদের প্রতি আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করা হয়।
সভায় উল্লেখযোগ্য কার্যকরী সদস্য ও সম্মানিত উপদেষ্টাবৃন্দের উপস্থিতি ছিল।
পরিশেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মাধ্যমে সভার পরিসমাপ্তি হয়।


জামালপুর জেলা সমিতির সাধারণ সভায় গঠনতন্ত্র সংশোধন ও নতুন কার্যনির্বাহী কমিটি (২০১৭-২০১৯) গঠিত

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:গত ২৬ নভেম্বর নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস্থ মেজবান রেষ্টুরেন্টে জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর সাবেক সভাপতি ফরিদ আলমের সভাপতিত্বে এবং কমিটির সাধারণ সম্পাদক জিন্নাত আলী খোকার পরিচালনায় যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত জামালপুর প্রবাসীদের প্রাণপ্রিয় সংগঠন জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সাধারণ সভায় সমিতি অনুরাগী জামালপুর প্রবাসীরা অন্যান্য ষ্টেটসহ সর্বস্তরের বিপুল সংখ্যক সাধারণ সদস্য ও নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর এই সাধারণ সভায় সমিতির মুল গঠণতন্ত্রের আর্টিকেল ৬ (সংশোধন) অনুচ্ছেদ-১ ধারায় বর্তমান কমিটির অধিক সংখ্যক কার্যনির্বাহী সদস্যদের অনুমোদনে গঠনতন্ত্রের আর্টিকেল ৪ অনুচ্ছেদ-২ কার্যনির্বাহী কমিটির আকার দ্বিতীয় দফায় পরিবর্তন করে ২০ সদস্য বিশিষ্টের পরিবর্তে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন এবং আর্টিকেল ৫, অনুচ্ছেদ ১ ধারায় উপদেষ্টা মন্ডলী পরিষদে ৩০ জন উপদেষ্টা মন্ডলীর পরিবর্তে ২০জন সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা ম-লী গঠন প্রক্রিয়া ও কার্যপ্রণালী পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এবং উক্ত পরিবর্তন, সংশোধন ও সংযোজন মুল গঠনতন্ত্রের আর্টিকেল ৮ এর অনুচ্ছেদ ১ অনুযায়ী সাধারণ সভায় উপস্থিত সাধারণ সদস্যদের কণ্ঠ ভোটের মাধ্যমে সকলের সর্বসম্মতিক্রমে পাশ হয়। উল্লেখ্য যে অতিতের অন্যান্য এমেন্ডমেন্ট বলবৎ থাকবে।

Picture

গঠনতন্ত্র সংশোধন হওয়ার পর জামালপুর জেলা সমিতির সাধারণ সভায় উপস্থিত সকলের ঐক্যমতের ভিত্তিতে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় কণ্ঠ ভোটের মাধ্যমে আক্তারুজ্জামান জগলুকে সভাপতি এবং আব্দুল ওয়াদুদকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি গঠিত হয় তারা হলেন- সভাপতি-আক্তারুজ্জামান জগলু, সহ সভাপতি-মশিউর রহমান জাষ্টিস, সহ সভাপতি-খন্দকার মারুফ, সহ সভাপতি-শংকর বিশ্বাস, সহ সভাপতি-তাজুল ইসলাম, সহ সভাপতি-আক্তার জামান, সাধারণ সম্পাদক-মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ, সহ সাধারণ সম্পাদক-শফিকুল ইসলাম, সহ সাধারণ সম্পাদক-সাইফুল ইসলাম, সহ সাধারণ সম্পাদক-জাহের আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক-খোরশেদ আলম, কোষাধ্যক্ষ-শরিফুল ইসলাম মিন্টু, ক্রীড়া সম্পাদক-খাইরুল বাশার আরিফ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক-শাকিলা রুনা, সহ সাংস্কৃতিক সম্পাদক-জহুরুল হক সবুজ, সাহিত্য সম্পাদক-মোঃ আব্দুল লতিফ, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক-মীর শফিউল আলম সোহেল, আপ্যায়ন সম্পাদক-রফিকুল ইসলাম বাবলু, মহিলা সম্পাদিকা-সেলিনা রহমান মুন্নী, দপ্তর সম্পাদক-সেলিম রেজা, প্রচার সম্পাদক-মোঃ মাহবুবুল হাসান তাহেরী সুমন, উপ প্রচার সম্পাদক-মিজানুর রহমান, সদস্য-জিন্নাত আলী খোকা, সদস্য-শাহ মোঃ এমরান খান, সদস্য-দৌলত আলম মিলন, সদস্য-সালাহ উদ্দিন আহমেদ কাব্য, সদস্য-রবিউল ইসলাম, সদস্য-অজিত কুমার ভৌমিক, সদস্য-আব্দুল আল আমিন চান, সদস্য-জিয়াউল হক, সদস্য-মাসুদুর রহমান, সদস্য-সৈয়দ ইকবাল আহমেদ বাবলা, সদস্য-সৌজাদ্দৌলা শামীম, সদস্য-শানিউল আলম মৃধা ও সদস্য-মোঃ ডিউক খান।

alt
উক্ত সাধারণ সভায় সমিতির সাবেক সভাপতি ফরিদ আলম জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি বলেন জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৯৫/৯৬ সালে। তৎকালীন জামালপুর প্রবাসীদের উপস্থিতিতে কামরুজ্জামান নান্নুকে সভাপতি ও খন্দকার খুররমকে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনীত করে ব্রুকলীনে একটি কমিটি গঠিত হয়েছিল কিন্তু সমিতির কোন গঠনতন্ত্র ছিল না বিধায় সেই কমিটির কর্মকা- চললেও অনেকের সম্মতি না থাকার কারণে কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। মাঝপথে অনেকেই জানা-অজানা বিভিন্ন নামে সমিতির কমিটি গঠিত হয়েছিল কিন্তু সেটা ফলপ্রসু হয়নি। দীর্ঘদিন পরে ২০০৩ সালে বাংলায় একটি খসড়া গঠনতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ২০০৩-২০০৫ সালে প্রথম প্রথম নির্বাচন কমিশন গঠনের মাধ্যমে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড.রুহুল আমিনের অধিনে জামালপুর প্রবাসীর প্রত্যক্ষ ভোটে আসাদুজ্জামান বাবু সভাপতি ও আবু হায়াত মো¯ুÍফা হেলাল সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন এবং পরবর্তীতে ২০০৫-২০০৭ সালে একই নির্বাচন কমিশনারের অধীনে  ফরিদ আলম সভাপতি ও আবু হায়াত মোস্তুফা হেলাল সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন। সমিতির সাবেক সভাপতি ফরিদ আলম বলেন- ২০০৭ সালে জামামলপুর প্রবাসীদের ঐক্যবদ্ধ করে সর্বপ্রথম ভোটার রেজিষ্ট্রেশনের মাধ্যমে ভোটার তালিকা প্রকাশ করে জামালপুর জেলা সমিতিকে একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া হয় এবং সে সময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার আশরাফুজ্জামানের অধীনে অত্যন্ত সুষ্ঠ একটি নির্বাচনের মাধ্যমে ড. কামাল সভাপতি ও  ডিউক খান সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়।

alt

সমিতির কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে পরিচালিত হচ্ছিল কিন্তু তৎকালীন সভাপতি ড.কামাল ব্যক্তিগত কারণে পদত্যাগ করায় কিছু স্থবিরতা দেখা দিলেও ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক ডিউক খানের নেতৃত্বে সমিতির সকল কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে পরিচালিত হয়। এই সমিতির মেয়াদ উর্ত্তীন্ন হওয়ার পর নির্বাচনের উদ্যোগ নিলেও বিভিন্ন জটিলতার কারণে যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। পরবর্তিতে একটি সাধারণ সভায় সকল নেতৃবৃন্দের মতামতের ভিত্তিতে ২০১৩ সালে সালেহ শফিক গেন্দা সভাপতি এবং জিনাত আলী খোকা সাধারণ সম্পাদক ও  আব্দুল ওয়াদুদকে সহ সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনীত করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এই বর্তমান কমিটি আবারও নির্বাচনের উদ্যোগ নিলেও জামালপুরের কিছু ব্যক্তি বিশেষ এবং নির্বাচন কমিশনারদের ব্যর্থতা ও প্রাসঙ্গিক জটিলতার কারণে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। অবশেষে বর্তমানে কমিটি সাধারণ সভার মাধ্যমেই সকল সিদ্ধান্ত গ্রহনের পরিকল্পনার প্রেক্ষিতেই এই সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। তিনি আরও বলেন-মুল সমিতির ¯্রােতধারার বাহিরে যেয়ে অগঠনতান্ত্রিকভাবে বিভিন্ন সময়ে পার্কে বসে কিংবা ঘরে বসে অনেকেই জামালপুর জেলা সমিতির নাম ব্যবহার করে কমিটি করেছেন কিন্তু জামালপুর জেলা সমিতির ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় তাদের নাম কোন দিনই লেখা থাকবে না। বক্তারা বলেন-গঠনতন্ত্র ছাড়া কোন সংগঠন চলতে পারে না। সমিতি করতে হলে গঠনতন্ত্র মেনেই সকল কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর নিজস্ব স্বার্থে কিংবা নিজেদের নাম প্রচারের জন্য সমিতির নামে কমিটি করে জামালপুর জেলা তথা জামালপুর প্রবাসীদের ভাবমূর্তি খুন্ন করার কারো অধিকার নেই। বক্তারা জামালপুর বাসীদের সোচ্চার ও সচেতন হওয়ার আহবান জানান। জামালপুরের কৃতি সন্তান জনাব আব্দুস সামাদ আজাদ তার বক্তব্যে বলেন-ঐক্যের কোন বিকল্প নেই। ময়মনসিংহ বিভাগের মধ্যে জামালপুর জেলা  অত্যন্ত একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা এবং এই ঐতিহ্যবাহী জেলার ভাবমূর্তি রক্ষা করা আমাদের প্রত্যেকেরই দায়িত্ব। জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএ-এর মূল সমিতির সাথে জামালপুর প্রবাসীদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান। অন্যান্য বক্তরা বলেন-নবগঠিত কমিটি (২০১৭-২০১৯) জামালপুর জেলা সমিতি ইউএসএকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং প্রবাসের মাটিতে জামালপুর জেলার ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখবে বলে সবাই আশা পোষন করেন। সাধারণ সভায় উপস্থিত অন্যান্য বক্তারা হলেন- জামালপুরের কৃতি সন্তান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, সমিতির সাবেক সহ সভাপতি সঙ্কর বিশ্বাস, সহ সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ, আক্তারুজ্জামান জগলু,  আব্দুল মান্নান, শাহ মোঃ এমরান খান, জাকির হোসেন সানু, রবিউল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, সেলিনা রহমান মুন্নি প্রমুখ। এছাড়াও সাধারণ সভায় উপস্থিত সকল সাধারণ সদস্য ও নবগঠিত কমিটির সম্মতিক্রমে উপদেষ্টা মন্ডলী গঠন করা হয়। উপদেষ্টা মন্ডলীর সম্মানিত সদস্যরা হলেন-আব্দুস সামাদ আজাদ, ডাঃ রেজাউল করিম, সালেহ শফিক গেন্দা, জিল্লুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার তৈসন আলী, আব্দুল মান্নান, ফয়েজুল ইসলাম লাঞ্জু, জাকির হোসেন সানু, আবদুল হামিদ ও  ফরিদ আলম।


আহলে বাইত মিশন ইউএসএ-এর উদ্যোগে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন উপলক্ষে ১২ দিনব্যাপী বিশেষ আয়োজন

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:নিউইয়র্কঃবিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হযরত মুহাম্মদ সাঃ এর আগমন উপলক্ষে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত নিউ ইয়র্কের আহলে বাইত মিশন ১২ দিন ব্যাপী এই আয়োজনে প্রতিদিনই রাসুল সাঃ এর জীবনের বিভিন্ন দিক, জন্মের পূর্বপর অবস্থা বিভিন্ন অলৌকিক দিক নিয়ে অত্যন্ত উৎসব মুখর ও ধর্মীয় আমেজে পালিত হচ্ছে।

alt 

১৯ শে নভেম্বর শুরু হলেও ৩০ শে নভেম্বর শেষ পর্বের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে। ১৯ শে নভেম্বর প্রথম দিনের মুল বক্তা মওলানা হাফেজ আইনুল হুদা ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের প্রয়োজনীয়তা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে এর গুরুত্ব সম্পর্কে কোরআন ও হাদিসের আলোকে আলোচনা করেন। তিনি প্রতিটি ঘরে ঘরে রাসুল (সাঃ) এর মহব্বত ও শ্রদ্ধার আলো জ্বালাতে পারিবারিক, সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের প্রয়োজনের কথা তুলে ধরেন।আনোয়ার সাহেবের উদ্বোধনী বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হলেও অন্যান্যদের মাধ্য বক্তব্য রাখেন ফকরুদ্দিন সাবের ঠাকুর, নুরুল ইসলাম, হাফিজ মেজবাহ উদ্দিন প্রমুখ। দ্বিতীয়, তৃতীয় এবং চতুর্থ দিনেও ঈদে মিলাদুন্নবী সম্পর্কে বিভিন্ন দিক নিয়ে বিভিন্ন বক্তাগণ আলোচনা, নাতে রসুল ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন হয়। বিভিন্ন সময় বক্তব্য রাখেন ট্রাষ্টি বোর্ডের সদস্য গিয়াস আহমেদ, মোতাহার হোসেন, কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ আশ্রাব, নুরুল ইসলাম, হাফিজ মেজবাহউদ্দিন, আতাউর রহমান প্রমুখ।

alt

বিভিন্ন বক্তাগন বলেন, সারা বিশ্ব যখন ঘোড় অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল, নিজ হাতে জীবন্ত কন্যা সন্তানদের হত্যা করা হতো, যখন নারীদের কোন অধিকারই ছিলনা ঠিক তখন নির্দিষ্ট সময়ে মহান আল্লাহ তায়ালা নুর নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ কে বিশ্ব মানবতার দূত এবং রাহমাতাল্লিল আলামিন হিসেবে এই বিশ্বে প্রেরণ করেন। পূর্ববর্তী কিতাব গুলোতে আল্লাহ তায়ালা এই সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবীর আগমন সম্পর্কে ভবিষ্যৎ বানী করে গেছেন। তাই কোটি কোটি মানুষ এই ইমামুল মুরসালিন, রাহমাতাল্লিল আলামিন এবং নুর নবীর আগমন অর্থাৎ জন্মের জন্যে প্রতিক্ষার প্রহর গুনেছেন। কিন্তু আমরা অতি সৌভাগ্যবান উম্মত যে, আমরা এই দয়াল নবীর উম্মত হয়ে শ্রেষ্ঠ উম্মত হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছি। যদিও পূর্ববর্তী সকল নবী রাসুলগণ এই সর্বশ্রেষ্ঠ নবীর উম্মত হওয়ার জন্য আল্লাহ তায়ালার নিকট প্রার্থনা করেছেন। শুধুমাত্র ঈসা আঃ এর প্রার্থনা কবুল হয়েছে। তিনি পুনরায় এই পৃথিবীতে ফিরে আসবেন মুহাম্মদ সাঃ এর একজন উম্মত হিসেবে, নবী হিসেবে নয়। শুধু তাই নয় ঈসা আঃ এসে নবী সাঃ এর বংশধর ইমাম মাহদী আঃ এর অনুসারী হবেন। খলিফা হবেন ইমাম মাহদী। ঈসা আঃ নয়। অতএব হযরত মুহাম্মদ সাঃ এর একজন উম্মত হতে পেরে আমরা অতি সৌভাগ্যবান। মুহাম্মদ সাঃ এর জন্মের কারনেই আমরা তাঁর উম্মত হতে পেরেছি। altসাহাবাগন ও নবী করিম সাঃ এর জন্মের কারণে সৌভাগ্যবান হয়েছেন এবং তারাও ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করেছেন। যুগে যুগে ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত হয়েছে এবং কিয়ামত পর্যন্ত তা চলবে। নবীর জন্মের সময় শয়তান শুধুই কেদেছে। আজও কাদছে। শয়তানের অনুসারীগণ কখনোই ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করবে না বরং তারা বিরোধীতা করবে। নবী করিম সাঃ নিজে তাঁর জন্ম দিন পালন করেছেন প্রতি সোমবার রোজা পালন করার মাধ্যমে। কিন্তু বর্তমান সৌদি ওহাবী-সালাফী এবং বিভিন্ন সন্ত্রাসী ও চরমপন্থী ইসলামী গ্রুপ ঈদে মিলাদুন্নবী, সিরাতুন্নবী, শবে মেরাজ, শবে বরাত, শবে কদর, আশুরা সহ বিভিন্ন ইসলামিক এবাদতকে বিদাত আখ্যায়িত করে বিভিন্ন মসজিদে, মাজারে, জনবহুল রাস্তাঘাটে মার্কেটে আত্মঘাতি বোমা মেরে ইসলামী বিশ্বকে দ্বিধাবিভক্ত করে হাসির পাত্র হিসেবে ইসলামকে দ্বার করিয়েছে। বক্তাগণ বলেন, এই চরমপন্থী গ্রুপ গত সপ্তাহে মিশরে সুফি আকিদায় বিশ্বাসী মসজিদে ২৩৮ জন নির্দোষ মুসল্লীদের হত্যা করেছে। সারা বিশ্বে ওহাবী মতাদর্শের এই চরমপন্থীগণ সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে ইসলাম দ্বিধা বিভক্ত করে ফেৎনার সৃষ্টি করছে যা কোরআন ও হাদিসের আলোকে গ্রহণযোগ্য নয়। altবক্তাগণ এই চরমপন্থী সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে বিচারের কাঠ গড়ায় দার করার আহব্বান জানান। আজ মুসলিম বিশ্ব দ্বিধা বিভক্ত। শুধু ফেৎনা আর ফেৎনা। তাই ঈদে মিলাদুন্নবী হোক আমাদের ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম। সমস্ত দ্বিধা বিভক্ত সামনে রেখে মুসলিম ভাই বোন হিসেবে ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের শত্রু মোকাবেলা করতে হবে। ঈদে মিলাদুন্নবী হোক আমাদের সমস্ত প্রেরণার উৎস। প্


নিউইয়র্কে আদালত প্রাঙ্গণ থেকে অভিবাসী গ্রেপ্তার বেড়েছে ৯০০%

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,হেলাল মাহমুদ, বাপসনিঊজ:নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন আদালত প্রাঙ্গণ থেকে অভিবাসীদের গ্রেপ্তার করার ঘটনা ব্যাপকভাবে বেড়েছে। গত বছর আদালত প্রাঙ্গণ থেকে মাত্র ১১ জনকে গ্রেপ্তার কিংবা গ্রেপ্তারের চেষ্টা করেছিল ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট (আইসিই) এজেন্টরা। এ বছর এরই মধ্যে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ১১০ টি। এ হিসাবে গত বছরের তুলনায় আদালত প্রাঙ্গণ থেকে অভিবাসীদের গ্রেপ্তারের পরিমাণ বেড়েছে ৯০০ শতাংশ।
২০ নভেম্বর ব্রুকলিনের আদালত প্রাঙ্গণ থেকে এক অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ নিয়ে এ বছর নিউইয়র্কে এভাবে এখন পর্যন্ত মোট ১১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছেন আইসিই এজেন্টরা। অথচ গত বছর এমন গ্রেপ্তারের সংখ্যা ছিল মাত্র ১১। এর মাধ্যমে অভিবাসীদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
এ বিষয়ে ইমিগ্রান্ট ডিফেন্স প্রোজেক্টের (আইডিপি) আইনজীবী লি ওয়াং নিউইয়র্ক ডেইলিকে বলেন, ‘আইসিইর কোর্টহাউস গ্রেপ্তার আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। আর এটি অভিবাসন অধিকার খর্বের এক নতুন যুগের বার্তা দিচ্ছে সবাইকে, যা নিঃসন্দেহে ভয়াবহ। কারণ পারিবারিক, ফৌজদারি কিংবা যেকোনো ধরনের আদালতে বিচার চাইতে গিয়ে কোনো অভিবাসীরই গ্রেপ্তারের ভীতি থাকা উচিত নয়। অথচ আইসিইর বর্তমান কর্মকাণ্ড অভিবাসীদের মনে এই ভয়টিই ঢুকিয়ে দিচ্ছে।’
আইডিপির বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এ বছর আদালত প্রাঙ্গণ থেকে গ্রেপ্তার হওয়া অভিবাসীদের ২০ শতাংশের বিরুদ্ধেই কোনো অপরাধ সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নেই। কেউ কেউ ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের দায়ে আদালতে এসেছিলেন। এমনকি পারিবারিক আদালতের প্রাঙ্গণ থেকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
বর্তমান প্রেসিডেন্ট ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই আইসিইর অভিবাসী বিরোধী কার্যক্রম জোরদার হয়েছে। অনিবন্ধিত অভিবাসীদের ধরতে নজিরবিহীন অভিযান চালানো হচ্ছে। এ ক্ষেত্র আদালত প্রাঙ্গণ থেকে অনিবন্ধিত অভিবাসীদের গ্রেপ্তারে অভিযান ব্যাপক মাত্রা পেয়েছে। এ বিষয়ে অভিবাসন আইনজীবীরা ক্রমাগত উদ্বেগ প্রকাশ করলেও আইসিইর পক্ষ থেকে এটিকে নিজেদের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড হিসেবেই দাবি করা হয়েছে।
আইসিইর মুখপাত্র নিউইয়র্ক ডেইলিকে বলেন, অঙ্গরাজ্যের সব বিধি মেনেই এ ধরনের অভিযান চালানো হচ্ছে।
কিন্তু সংস্থাটির এ দাবি বিপরীতে লিগ্যাল এইড সোসাইটির ক্রিমিনাল ডিফেন্স প্র্যাকটিসের অ্যাটর্নি ইন চার্জ টিনা লুওঙ্গো বলেন, ‘এটি নিঃসন্দেহে অভিবাসীদের অধিকারকে খর্ব করে। এ ধরনের অভিযানের আইনি ভিত্তি কতটা সে বিষয়ে একটি সুস্পষ্ট সিদ্ধান্ত আলবেনি থেকে আসা উচিত। কারণ এ ধরনের গ্রেপ্তার অভিবাসীদের ভীষণভাবে আতঙ্কিত করছে।’