Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_small/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

সিঙ্গাপুর হয়ে দেশের উদ্দেশ্যে যাত্রা গণতান্ত্রিক অধিকারের আন্দোলনে বাংলাদেশের মানুষ সফল হবে: মির্জা ফখরুল

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ নিউইয়র্ক থেকে: বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের জন্য বাংলাদেশের মানুষ যে সংগ্রাম করছে তাতে তারা সফল হবে। আর বিএনপিও বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক আন্দোলন চালানোর চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। চিকিৎসা শেষ দেশের উদ্দেশ্যে নিউইর্য়ক ছাড়ার আগে জেএফকে বিমান বন্দরে শুক্রবার  তিনি এসব কথা বলেন। এসময় বিমান বন্দরে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাংবাদিক শফিক রেহমান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মিজানুর রহমান ভুইঁয়া মিলটন, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ, ঢাকার সাবেক কমিশনার মোশারফ হোসেন খোকন, মির্জা ফখরুল ইসলামের বন্ধু রফিকুল ইসলাম ও তার সহধর্মীনি এবং ফখরুলের ভাগ্নে রফিকুল ইসলাম ডলার প্রমুখ। বিমান বন্দরে মির্জা ফখরুলকে বিদায় জানাতে গিয়ে আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।


ফখরুল বলেন, দেশের মানুষ অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সংগ্রাম করছে, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের জন্য স্পেস দরকার। সে স্পেস হলে মানুষ তার অধিকার আদায় করতে পারবে।তিনি বলেন, বিএনপি মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করছে এবং তা অব্যাহত থাকবে। আর বিএনপি রাজনৈতিক দল হিসেবে সে ভুমিকা রাখছে।
ফখরুল বলেন, দেশে যে অচলাবস্থা চলছে তার অবসান হবে। গ্রেফতারকৃত দলীয় নেতাকর্মীদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হাজার অধিক নেতাকর্মী আটক আছেন আশা করি যথাযথ আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তারা মুক্ত হয়ে আসবেন।বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা করতে এসে কঠিন রোগের কিছুটা প্রশমন হয়েছে এবং তাতে ভাল অনুভব করছি, চিকিৎসকরা বলছেন আবারো যুক্তরাষ্ট্রে আসতে হবে, আর তা হতে পারে ৬ মাসের মধ্যে।১১ আগষ্ট মির্জা ফখরুল সিঙ্গাপুর থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আসেন।  সিঙ্গাপুর তিনি দুই /এক দিন থাকার পর ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবেন।


জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে ব্যবসা নয়

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিউজ:নিউইয়র্কের একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতকে পণ্য বানিয়ে ব্যবসা করার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ব্রঙ্কসের আটটি সংগঠন টোটাল ক্যাবল নামে একটি টিভি সংযোগ বিপনন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উত্থাপন করে। এসব প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ব্রঙ্কস বাংলাদেশ কালচারাল সোসাইটির সভাপতি আইনজীবী নাসরিন আহমেদ এ ধরনের অনৈতিক এবং আত্মপ্রবঞ্চনামূলক কর্মকাণ্ড থেকে টোটাল ক্যাবলকে বিরত থাকার আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, 'জাতীয় সঙ্গীত কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। তাই জাতির এই সম্মানজনক সম্পদ বাণিজ্যিককরণ শুধু অপরাধই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে বিশ্বাস ঘাতকতার শামিল।খবর বাপসনিঊজ:

Picture
সাংবাদ সম্মেলনে আইনজীবী নাসরিন আহমেদ বলেন, 'টোটাল ক্যাবল তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিলের জন্য বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতকে পণ্য হিসেবে ব্যবহার করছে। জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে এ ধরনের আয়োজন প্রশংসার দাবি রাখে। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো দ্বিমত নেই। আমরা শুধু আয়োজনের যে প্রক্রিয়া তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছি। আয়োজনটা ভালো কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য খারাপ। কারণ টোটাল ক্যাবল বলছে তারা সব শ্রেণি- পেশা এবং সব বয়সের মানুষকে নিয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। কিন্তু এটা মিথ্যা কথা। একটি বাদে ব্রঙ্কস- এর কোনো সংগঠন এই আয়োজনের সঙ্গে নেই। কাউকে সেখানে রাখা হয়নি। এমনকি ডাকাও হয়নি।
 এ্যাসাল কর্মী  মাজেদা উদ্দিন বলেন, 'জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে যদি কিছু করতে হয় একটা ছাতার নিচে হতে পারে।' তিনি বলেন, 'বাংলাদেশ সোসাইটি এটা করতে পারে। কিন্তু বাণিজ্যক উদ্দেশ্যে যদি এটা করা হয় তবে তা হবে অনৈতিক এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের অবমাননা।'
 সঙ্গীত শিল্পী জিল্লুরর রহমান বলেন, 'হাজারো কন্ঠে সোনার বাংলা গাওয়া হবে। আমরা এটা প্রত্যাখান করছি না। তবে এটা সবাইকে নিয়ে করতে হবে। সবাইকে নিয়ে করা হচ্ছে বলা হলেও এটা সম্মিলিত নয়, এটা একটা সংগঠনের প্রোগ্রাম। টোটাল ক্যাবল অনুষ্ঠান করে করুক। আমরা শুধু একটা অনুরোধ করবো তারা যেন না বলে এর সঙ্গে সবাই আছে।'

জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে ব্যবসা নয়
 সাংবাদ সম্মেলনে আইনজীবী নাসরীন আহমেদ ছাড়াও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হারুনা আক্তার রোজী, নর্থ ব্রঙ্কস বাংলাদেশী-আমেরিকান এসোসিয়েশন -এর সভাপতি মিজান খান, সিসিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল আউয়াল, সাধারণ সম্পাদক কাওছার আহমেদ, বাংলাদেশি আমেরিকান ডেমোক্রেটিক সোসাইটি ইউএসএ (ব্যাডস্)-এর অন্যতম উপদেষ্টা  গিয়াস উদ্দিন, সঙ্গীত শিল্পী ও টেলিভিশন সংবাদ পাঠক সোনিয়া সুইটি, সঙ্গীত শিল্পী জিল্লুর রহমান, নারী নেত্রী মাজেদা উদ্দিন প্রমুখ।


প্রবাসী কবি ও গীতিকার সিরাজুল ইসলাম সরকারে‘ হে বঙ্গজননী’ এ্যালবামের মোড়ক উম্মোচন ২০ সেপ্টম্বর

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপস্নিউজ : যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক প্রবাসী কবি ও গীতিকার সিরাজুল ইসলাম সরকারের ‘ হে বঙ্গজননী ’ ১তম এ্যালবামের মোড়ক উম্মোচন ও প্রকাশনা অনুষ্ঠান ২০ সেপ্টম্বর রবিবার ২০১৫, ৩৭-০৭, ৭৩ ষ্ট্রীট জ্যাকসন হাইটস, নিউইয়র্ক, এনওয়াই- ১১৩৭ ইং এর ইত্যাদি গার্ডেনের দুতলায় অনুিষ্ঠত হবে।খবর বাপসনিঊজ:

rher
উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান , বিশেষ অতিথি যুক্তরাষ্ট্রে আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও এনআরবি গ্যোবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিজাম চেীধুরী, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস ও মুক্তিযোদ্ধা ড. প্রদীপ রঞ্জন কর, লেখক বেলাল বেগ,আমেরিকান প্রেসকøাব অব বাংলাদেশ অরিজিন- এর সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন ও সাধারন সম্পাদক হেলাল মাহমুদ  উপস্থিত থাকবেন। প্রবাসী কবি ও গীতিকার সিরাজুল ইসলাম সরকারের ‘ এ্যালবাম-এর গান গুলি হচেছ ১। হে বঙ্গজননী- নিরব কেন তুমি,২। এক জনমে মিটল আমার তিন জনমের স্বাদ,৩। এই বঙ্গভূমি , এই জন্মভূমি জননী তোমার আমার,৪।এই রক্ত ঝড়া ইতিহাসে যারা লিখে গেল নাম,৫। পদ্মা মেঘনার বুকে আছে স্বাধীনতার নাম,৬। কে দিয়েছে স্বাধীনতা--কে এনেছে কেড়ে,৭। মাগো হাজার বছর ধরে রক্ত নিলে কেড়ে আজো কেন বাংলার বুকে রক্ত মাগো ঝরে,৮।  মজিব তোমার প্রেমে আমরা আছি বেঁচে,৯। এসো এসো মজিবের স্বপ্নে গড়ে তুমি মোরা স্বপ্নের বাংলাদেশ এবং ১০। বঙ্গবন্ধু হে মজিবর তোমাকে সালাম্।উক্ত অনুষ্ঠানে সকল প্রবাসীদের স্বাদর আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজক বৃন্দ।


‘বর্ণমালা-মিতালী মিউজ্যিকাল নাইটস’: যেটুকু সময় গাইলেন মিতালী, বিমোহিত ছিল দর্শক

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

মনিজা রহমান:‘জীবন নামের রেলগাড়িটা, পায় না খুঁজে ইস্টিশন’। চলছি চলছি তো চলছিই। নেই কোন গন্তব্য। উর্ধ্বশ্বাসে ছুটতে থাকা মানুষকে এক মুহূর্তের জন্য থমকে  দিল এই গান। ভাবতে বাধ্য করল। সত্যিই তো ! গন্তব্য ছাড়াই কেন এই ছুটে চলা !এস্টোরিয়ায় ক্লাব সনোমের অডিটরিয়াম। মধ্যরাতের দিকে এগুচ্ছে ঘড়ির কাঁটা। চেয়ার ছেড়ে উঠতে গিয়েও বসে পড়ছেন অনেকেই। গানের এমন যাদু যে যেতে পারছে না তার মায়াজাল থেকে। গত শুক্রবার রাতে সাপ্তাহিক বর্ণমালায় আয়োজনে মিতালী মুখার্জির গানের অনুষ্ঠানে এভাবেই মন্ত্রমুগ্ধ ছিল দর্শক।যেটুকু সময় তুমি থাকো পাশে/মনে হয় এই দেহে   প্রাণ আছে...মিতালী মুখার্জির অসম্ভব জনপ্রিয় একটি গান। এই গানটির জন্য তিনি বাংলাদেশে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। গানটা এখন বাংলাদেশে অনেক শিল্পীই গেয়ে থাকেন। কিন্তু আদতে যে এটা মিতালীর গান, সেটা অনেকেই জানেন না। আসলে এত বেশী হিট গান উপহার দেয়া শিল্পী বাংলা গানের জগতে খুব কমই আছেন।

Picture
হারানো দিনের মতো হারিয়ে গেছ তুমি/ ফেরারী সুখের মতো পালিয়ে গেছ তুমি...শুরুটা করলেন এভাবে। তারপর আল্লাহু আল্লা কিয়া কর.. দিয়ে শেষ করলেন। প্রত্যেকটি গান অসম্ভব জনপ্রিয়। অসম্ভব শ্রুতিমধুর। এলমহার্স্ট থেকে ওই রাতে গান শুনতে এসেছিলেন নাসরিন রহমান। উনি তো খুব বিস্মিত ! ‘এই সমস্ত গানেরই কি মূল শিল্পী মিতালী ! আমার সব প্রিয় গানই দেখি উনি গেয়েছেন !’রাত যত বাড়তে লাগলো বিস্ময়ের পালা বাড়লো। নয়ত শুরুটা হয়েছিল কিছুটা ধীরগতিতে। দিনটাও ছিল স্মরণীয় ১১ সেপ্টেম্বর। অনুষ্ঠানের আয়োজক সাপ্তাহিক  বর্ণমালা‘র প্রধান সম্পাদক মাহফুজুর রহমান শিল্পীকে মঞ্চে ডাকার আগে কাকতালীয় একটি ঘটনার বর্ণনা দেন । ১৪ বছর আগে এই দিনে নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারে হামলা হয়েছিল। ওই ঘটনার দিন রাতে  নিউইয়কে এই একই মর্ঞ্চে গান গাওয়ার কথা ছিল মিতালীর। কিন্তু ভয়ংকর সেই ঘটনার পরে গানের প্রোগাম বাতিল হয়ে যায়। ১৪ বছর পরে অবশেষে সেইমঞ্চে গাইলেন শিল্পী আর শ্রোতারা হলেন মুগ্ধ।
জীবনানন্দ দাশের কবিতার ছন্দে অন্যরকম আরম্ভ হল। তারপর মিতালীর সঙ্গে হলভর্তি দর্শক গেয়ে উঠলো  ‘পুরনো সেই দিনের কথা ভুলবি কিরে হায়’। গায়িকা নিজে হয়ে গেলেন স্মৃতিভারাক্রান্ত। ফিরে গেলেন বেলী আর শেফালী ফুল কুড়ানো শৈশবে। বলে উঠলেন, ‘অনেকেই হয়ত জানেন না আমার জন্ম ময়মনসিংহে। আমি আপনাদের বাংলাদেশের মেয়ে। পড়াশুনা করতে ভারতের বরোদায় যাই। তারপর বৈবাহিক সূত্রে আমি এখন ভারতের নাগরিক।’

09122015_04_MITALI_MUKHARJI


মফস্বলের ছোট্ট শহর থেকে যে কিশোরী মেয়েটির যাত্রা শুরু হয়েছিল কালের পরিক্রমায় তিনি হলেন দুই বাংলার জনপ্রিয়তম শিল্পী। মানুষের জীবনের বাকেঁ কত যে রহস্য লুকিয়ে থাকে, মিতালীই তার প্রমাণ। এত যে বিত্ত বৈভব, মুম্বাইয়ে বসবাস, এত জনপ্রিয়ততা ..তবু প্রিয় বাংলাদেশের মানুষকে ভুলতে পারলেন কই ! গানের সুরে বলে উঠলেন, ‘আমি সারা দুনিয়ায় ঘুরলাম। কিন্তু আমার বাংলার মতো শ্রোতা পেলাম না। ‘
‘দু:খ ছাড়া হয় না মানুষ, এমনো তো মানুষ হয় !’ নারীর অন্তরের নিগুঢ় কষ্টের যে ব্যাঞ্জনা মিতারীর মতো খুব কম শিল্পীই পেরেছেন কণ্ঠে ধারণ করতে। একে একে গেয়েছেন- ‘কেন আশা বেধে রাখি/ তোমার চন্দনা মরে গেছে/ ওরে সাগর, ছোট্ট এই ডিঙ্গি নিয়ে ভেসে যা/ এই দুনিয়া এখন তো আর সেই দুনিয়া নাই/ আমি কি তোমার মতো এত ভালোবাসতে পারি’। সাপ্তাহিক রানার পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক দিমা নেফারদিতি অনুষ্ঠান শেষে খুব আবেগময় কণ্ঠে বললেন, ‘ নারীর জীবনের অতৃপ্তি-বঞ্চনা তার মতো কেউ গাইতে পারেন না। দেখুন হলের বেশীরভাগ দর্শকই কিন্তু নারী। তারা নিজেদের জীবনের গল্পই মিতালীর কণ্ঠে ছুটতে ছুটে এসেছেন।’
এক সময় আসর ভাঙ্গল। এবার ঘরে ফেরার পালা। গানের রেশ তখনও সবার মনে। আরো মনে হল, মানুষের জীবনের সবচেয়ে বড় ট্রাজেডি হল, জীবনের সবচেয়ে কাছের মানুষটির সঙ্গেই সবচেয়ে দেরীতে দেখা হয়। আর সেই দেখাই জীবন দেয় পাল্টে।
বড় দেরী করে দেখা হল
হল চেনাজানা
আরো দিন চলে গেল
পেতে মনের ঠিকানা
ভালোবাসা যত বড়
জীবন তত বড় নয়
তোমার নিয়ে হাজার বছর
বাঁচতে বড় ইচ্ছে হয়
 
সত্যিই তো জীবন কি পারে ভালোবাসার সমান বড় হতে !


জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭০তম অধিবেশন ওবামার অভ্যর্থনাসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে থাকছেন প্রধানমন্ত্রী

শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭০তম অধিবেশনে যোগ দিতে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ৬০ সদস্যের প্রতিনিধি দল থাকছেন। এছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ এই দলে আরো থাকছেন প্রধানমন্ত্রীর ৫৫ জনের সার্ভিস স্টাফ। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন প্রধানমন্ত্রীর এই ছয় দিনের সরকারি সফরের কর্মসূচি চূড়ান্ত করেছে।

শুক্রবার বিকেলে জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করেন স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচির মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সম্মানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার দেয়া অভ্যর্থনা সভায় যোগদান, চীনের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক, জাতিসংঘের পরিবেশবিষয়ক সর্বোচ্চ সম্মান চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ পুরস্কার গ্রহণ। এ ছাড়া প্রায় ৩০টির মত সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়ামে তিনি অংশ নেবেন। এছাড়া ২৭ সেপ্টেম্বর দুপুর ১টায় নিউইয়র্কের হোটেল হিলটনে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনা সভায় যোগ দেবেন তিনি।

ওবামার অভ্যর্থনাসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে থাকছেন প্রধানমন্ত্রী 

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, কৌশলগত দিক থেকে এবারে সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি হচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার অভ্যর্থনা সভায় যোগদান এবং চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিংপিং-এর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক।

ড. মোমেন বলেন, সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ফলপ্রসু ভূমিকা নেয়ায় ওবামা সরকার বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। প্রেসিডেন্ট ওবামা তার এবারের অভ্যর্থনা সভায় যোগদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দূত পাঠিয়ে বিশেষ আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এছাড়া চীনের সঙ্গে উন্নয়নসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে আমাদের সরকারের ৬’শ চুক্তি হয়েছে। সেসব চুক্তির বিভিন্ন দিক নিয়ে দুই দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান একান্ত আলোচনায় মিলিত হবেন। জাতিসংঘের পরিবেশবিষয়ক সর্বোচ্চ সম্মানজনক পুরস্কার ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’ আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহে এবং ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ভারত, মায়ানমারসহ প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশ এযাবতকালে সবচেয়ে বেশি সুসম্পর্ক তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।

সংবাদ সংম্মেলনে ড. এ কে আব্দুল মোমেন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইকোনিমিক মিনিস্টার বিডি মিত্র, স্থায়ী মিশনের সামরিক উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম আক্তারুজ্জামান, কাউন্সিলর মুজিবুল হক, প্রথম সচিব (প্রেস) বিজন লাল দেব, প্রেস সহকারি এরশাদুল আলম প্রমুখ।


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাষ্ট্র আগমনে জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখা স্বাগতম জানাবে

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:গত ১৭ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় জ্যাকসন হাইটস্থ গরমেট রেষ্টুরেন্টের মিলনায়তনে জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখার এক কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাপা’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দুর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট হারিস উদ্দিন আহমেদ,  সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান অনিক,সহ-সভাপতি খন্দকার আলী নাসিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসিফ বারী টুটুল, সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক শফিউল আলম, জাতীয় যুব সংহতি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ওয়াহিদ ফেরদৌস, নিউইয়র্ক সিটি জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি আলতাফ হোসেন, নিউইয়র্ক সিটি কমিটির সভাপতি শুভংকর গাঙ্গুলী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, মহিলা সম্পাদিকা শাহনাজ বেগম, নিউইয়র্ক স্টেট কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ হাসান মিলন প্রমুখ।খবর বাপসনিঊজ:

Jatio Party USA Baps
সভায় আসন্ন জাতিসংঘের ৭০তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদানের জন্য  প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনাকে স্বাগতম জানানোর সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সভায়  সমাজকল্যান মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মহসীন আলী.এমপির আকস্মিক মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও মরহুমর আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয় এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করা হয়।ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে ঘুরে এসে সেখানকার অভিজ্ঞতা বিনিময় কালে বলেন, তিনি বাংলাদেশে অবস্থানকালে পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ ও পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন বাবলুর সাথে সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ করেন। বর্তমানে সমগ্র বাংলাদেশে জাতীয় পার্টির পুনর্গঠনের লক্ষ্যে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন চলছে। তাই যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টিও কেন্দ্রীয় নির্দেশ মোতাবেক পরিচালিত হবে। তিনি আরো বলেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির বর্তমান কর্মকান্ডে পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিব সন্টুিষ্ট প্রকাশ করেন। যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টি সত্যিকারের বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করছে বলে জানান।


যুক্তরাষ্ট্রে শফিক রেহমানকে প্রতিরোধের ঘোষণা

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

নিউইয়র্ক আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী বলেন, “আজ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের কোথাও তাকে মিটিং করতে দেওয়া হবে না। যেখানে শফিক রেহমান, সেখানেই প্রতিরোধ।”তিনি আরো বলেন, "একাত্তরের ঘাতকদের অর্থে শফিক রেহমান ও অন্যরা বিদেশে বসে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। চিহ্নিত দালাল শফিক রেহমান শেখ হাসিনা সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন তা ক্ষমার অযোগ্য।”

Picture

কুইন্স বরো আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম, কুইন্স বরো আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একেএম শফিকুল ইসলাম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন।

উল্লেখ্য, গত ৬ সেপ্টেম্বর ম্যানহাটনের নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলনে ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্রায়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা: চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে শফিক রেহমান এক পর্যয়ে একটি রুশ কৌতুক বলেন।

ঐ কৌতুকে পরোক্ষভাবে প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যু কামনা করা হয়েছে বলে অভিযোগ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের।কৌতুকে বলা হয়- “একজন পাঠক প্রতিদিন একটি দৈনিক পত্রিকা কিনে তার প্রথম পাতা দেখেই পত্রিকাটি ফেলে দেয়। একদিন হকার সেই ব্যক্তির কাছে এর কারণ জানতে চাইলে লোকটি বলে, ‘আমি একটি মৃত্যুসংবাদের অপেক্ষায় আছি।’ হকার বলে, ‘মৃত্যু সংবাদ তো সচরাচর ভেতরের পাতায় থাকে। জবাবে লোকটি বলে, ‘আমি যে মৃত্যু সংবাদটির অপেক্ষায় আছি তা পত্রিকার প্রথম পাতায় থাকবে।’ ”

এ সময় সেমিনারের অন্য আলোচক এবং দর্শকরা শফিক রেহমানের এই বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করেন বলে জানিয়েছেন, সেমিনারের প্যানেল আলোচক সাপ্তাহিক বর্ণমালার সম্পাদক মাহফুজুর রহমান।


বাংলাদেশ ট্রেড ফেয়ার স্থগিত

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

Tread Fear
হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপস্নিউজ : অনিবার্য কারণবশত আগামী ১৮,১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বও ২০১৫, এস্টোরিয়া সাউন্ড ভিউসেন্টার অনুষ্ঠিতব্য ‘ বাংলাদেশ ট্রেড ফেয়ার স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। মেলার পরিবর্তিত তারিখ অচিরেই ঘোষনা করা হবে বলে বাপসনিঊজকে আয়োজকরা জানিয়েছেন। আর্টিস্ট রানের এই উদ্যোগে বাংলাদেশের প্রথম সারির উদ্যেক্তা ও রপ্তানীকারদের অংশগ্রহনেন মাধ্যমে নিউইয়র্ক তথা যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশী পণ্যের ক্রমবর্ধমান চাহিদার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে এই মেলার আয়োজন করা হবে। আর্টিস্ট রান বরাবরই তাদের প্রতিটি আয়োজনে আধুনিক ও নতুনত্বের ছাপ নিয়ে আসে। সেই সাফল্যের পথ ধরে একটি ব্যতিক্রমী সফল এবং বর্ধিত কলেবরের ইভেন্টের প্রত্যাশায় মেলার তারিখ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।


বাংলাদেশি গবেষককে মার্কিন দূতাবাসের অভিনন্দন

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

বাপসনিঊজ:এমআইটি’র ফেলোশিপ লাভ করায় বাংলাদেশি গবেষককে অভিনন্দন জানিয়েছে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস। ইন্টিগ্রেটিভ ক্যান্সার রিসার্চের জন্য ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির ‘কোচ ইনস্টিটিউট’ এর কাছ থেকে লুডউইক সেন্টার ফর মোলিকিউলার অনকোলজি গ্র্যাজুয়েট ফেলোশিপ পেয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক সুমাইয়া নাজনীন। আর একারনে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস। বুধবার দূতাবাসের ফেসবুক পেজে সুমাইয়ার ছবি পোস্ট করে তাকে অভিনন্দন জানানো হয়।

বাংলাদেশি গবেষককে মার্কিন দূতাবাসের অভিনন্দন 

সেখানে বলা হয়, ‘চলুন সুমাইয়া নাজনিনকে অভিনন্দন জানাই। বুয়েটের কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগের এই প্রভাষক সম্প্রতি ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের জন্য লুডউইক সেন্টার ফর মোলিকিউলার অনকোলজি গ্র্যাজুয়েট ফেলোশিপ অর্জন করেছেন। ইন্টিগ্রেটিভ ক্যান্সার গবেষণার জন্য এমআইটি’র কোচ ইনস্টিটিউট তাকে এ সম্মাননা দেয়। এর আগে ২০১২ সালে ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (এমআইটি) তে পিএইচডি করার জন্য ফুলব্রাইট সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি অনুমোদন পান তিনি। অভিনন্দন সুমাইয়া।’


জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে ব্যবসা নয়

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :নিউইয়র্কের একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতকে পণ্য বানিয়ে ব্যবসা করার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ব্রঙ্কসের আটটি সংগঠন টোটাল ক্যাবল নামে একটি টিভি সংযোগ বিপনন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উত্থাপন করে। 

এসব প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ব্রঙ্কস বাংলাদেশ কালচারাল সোসাইটির সভাপতি আইনজীবী নাসরিন আহমেদ এ ধরনের অনৈতিক এবং আত্মপ্রবঞ্চনামূলক কর্মকাণ্ড থেকে টোটাল ক্যাবলকে বিরত থাকার আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, 'জাতীয় সঙ্গীত কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। তাই জাতির এই সম্মানজনক সম্পদ বাণিজ্যিককরণ শুধু অপরাধই নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে বিশ্বাস ঘাতকতার শামিল।

জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে ব্যবসা নয় 

সাংবাদ সম্মেলনে আইনজীবী নাসরিন আহমেদ বলেন, 'টোটাল ক্যাবল তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিলের জন্য বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতকে পণ্য হিসেবে ব্যবহার করছে। জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে এ ধরনের আয়োজন প্রশংসার দাবি রাখে। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো দ্বিমত নেই। আমরা শুধু আয়োজনের যে প্রক্রিয়া তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছি। আয়োজনটা ভালো কিন্তু তাদের উদ্দেশ্য খারাপ। কারণ টোটাল ক্যাবল বলছে তারা সব শ্রেণি- পেশা এবং সব বয়সের মানুষকে নিয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। কিন্তু এটা মিথ্যা কথা। একটি বাদে ব্রঙ্কস- এর কোনো সংগঠন এই আয়োজনের সঙ্গে নেই। কাউকে সেখানে রাখা হয়নি। এমনকি ডাকাও হয়নি।

মানবাধিকার কর্মী ড. মাজেদা উদ্দিন বলেন, 'জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে যদি কিছু করতে হয় একটা ছাতার নিচে হতে পারে।' তিনি বলেন, 'বাংলাদেশ সোসাইটি এটা করতে পারে। কিন্তু বাণিজ্যক উদ্দেশ্যে যদি এটা করা হয় তবে তা হবে অনৈতিক এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের অবমাননা।'

সঙ্গীত শিল্পী জিল্লুরর রহমান বলেন, 'হাজারো কন্ঠে সোনার বাংলা গাওয়া হবে। আমরা এটা প্রত্যাখান করছি না। তবে এটা সবাইকে নিয়ে করতে হবে। সবাইকে নিয়ে করা হচ্ছে বলা হলেও এটা সম্মিলিত নয়, এটা একটা সংগঠনের প্রোগ্রাম। টোটাল ক্যাবল অনুষ্ঠান করে করুক। আমরা শুধু একটা অনুরোধ করবো তারা যেন না বলে এর সঙ্গে সবাই আছে।'

সাংবাদ সম্মেলনে আইনজীবী নাসরীন আহমেদ ছাড়াও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হারুনা আক্তার রোজী, নর্থ ব্রঙ্কস বাংলাদেশী-আমেরিকান এসোসিয়েশন ইন্ক-এর সভাপতি মিজান খান, সিসিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল আউয়াল, সাধারণ সম্পাদক কাওছার আহমেদ, বাংলাদেশি আমেরিকান ডেমোক্রেটিক সোসাইটি ইউএসএ ইন্ক (ব্যাডস্)-এর অন্যতম উপদেষ্টা হাজী মো. গিয়াস উদ্দিন, সঙ্গীত শিল্পী ও টেলিভিশন সংবাদ পাঠক সোনিয়া সুইটি, সঙ্গীত শিল্পী জিল্লুর রহমান, নারী নেত্রী মাজেদা উদ্দিন প্রমুখ।


সালাউদ্দিন চৌধুরীর পিতার মৃত্যুতে নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের শোক

শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের প্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সালাউদ্দিন চৌধুরীর পিতা হাজী আসমত আলী, কুমিল্লা দাউদকান্দি নিবাসী বাংলাদেশে ইন্তেকাল ফরমাইয়াছেন ( ইন্না----রাজিউন ) ।নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক শাহীন আজমল শাহিন এক বিবৃতিতে মরহুম হাজী আসমত আলী সাহেবের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত সহযোদ্ধা সালাউদ্দিন চৌধুরী সহ পরিবারের সকলের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।