Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_small/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী প্রাক্তন নেতা অসুস্থ কাশেম আলী সকলের দোয়া চেয়েছেন

রবিবার, ২৬ জুলাই ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন:বাপ্ নিউজ :হবিগন্জ এর সন্তান দীঘর্ দিন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী প্রাক্তন ছাত্রনেতা সকলের পরিচিত অসুস্থ কাশেম আলী বতর্মানে কুইন্স ব্লুবাডর্ে একটা রিহাব সেন্টারে সাজর্ারী পরবতর্ী রিকভারীতে আছেন। তাহাকে রিহাব সেন্টারে দেখতে ও শারিরীক খবরাখবর নেওয়ার জন্য ভিজিট করেন কম্যুনিটি এক্টিভিষ্ট ও মূলধারার রাজনীতিবিদ নিউজাসর্ীর হেলডন এর কমিশনার দেওয়ান বজলু ও হবিগঞ্জ জেলা সমিতির প্রাক্তন সভাপতি সাব্বির কাজী।তিনি তার হাসপাতালে ভতর্িকালীন অবস্থায় যাহারা তাহাকে হাসপাতালে গিয়ে দেখেছেন, দোয়া করেছেন তাহাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

Picture
জনাব কাশেম আলী একটা বিষয় সকলকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করেন, তার অভিজ্ঞতার আলোকে তিনি অসুস্থ হওয়ার পর তাহাকে হাসপাতালে দেখার জন্য প্রচুর আত্মীয় স্বজন বন্ধুবান্ধব গিয়েছেন তজ্জন্য কৃতজ্ঞ,তবে তাহার অনুরোধ বিশেষ করে আমরা বাঙ্গালীরা যে হারে রোগীকে দেখার জন্য হাসপাতালে গমন করি এতে হাসপাতাল কতর্ৃপক্ষ অত্যন্ত বিরক্ত হয়। বিশেষ করে সমাজের বিশেষ পরিচিত মুখ ও নেতা দের বেলায়। তাই হাসপাতালে যাওয়ার পূবর্ে রোগীর আত্মীয় স্বজন, বন্ধুবান্ধব এর সংগে যোগাযোগ করে যাওয়া,হুট করে যখন তখন না যাওয়ার পরামশর্ দিয়েছেন। বিশেষ করে রোগীর যদি অপারেশন হয় তখন ৩/৪ দিন না যাওয়ার জন্য। এ ব্যাপারটা সকলকে খেয়াল রাখার জন্য অনুরোধ করেছেন।


নিউইয়র্কে বেবী নাজনীনের একক সঙ্গীত সন্ধ্যা ২৬ জুলাই

রবিবার, ২৬ জুলাই ২০১৫

1437901207 baby

নিউইয়র্কের ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামিলী’র ব্যানারে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানটি সবার জন্য উন্মুক্ত বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন। অনুষ্ঠানটি সফল করতে একটি কমিিেটি গঠন করা হয়েছে।


নিউইয়র্কে রথযাত্রা উৎসব অনুষ্ঠিত

রবিবার, ২৬ জুলাই ২০১৫

জীবন ও কর্মে অনন্তকাল বেঁচে থাকবেন ম্যান্ডেলা

রবিবার, ২৬ জুলাই ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :দক্ষিণ আফ্রিকার মানবাধিকার আন্দোলনের কিংবদন্তি নেতা প্রয়াত নেলসন ম্যান্ডেলা তার জীবন ও কর্মের মাধ্যমে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম অনন্তকাল বেঁচে থাকবেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে আবদুল মোমেন।

‘আন্তর্জাতিক ম্যান্ডেলা দিবস’ উপলক্ষে শুক্রবার (২৪ জুলাই) জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

ম্যান্ডেলা দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো ‘জাতিসংঘ নেলসন রোলিহ্লাহ্লা ম্যান্ডেলা পুরস্কার’ ঘোষণা করা হয়। এ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন নামিবিয়ার চক্ষুরোগ চিকিত্সক ড. হেলেনা এনডুমে এবং পর্তুগালের গণতন্ত্র পুনর্প্রতিষ্ঠার নেতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ফার্নান্দো ব্রাঙ্কো স্যাম্পায়ো।

ছবি: সংগৃহীত

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের প্রেসিডেন্ট। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উগান্ডার প্রধানমন্ত্রী রুহাকানা ‍রুগুন্ডা ও মানবাধিকার আন্দোলনের নেতা জেসি জ্যাকসন।

অনুষ্ঠানে এশিয়া-প্যাসিফিক গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে বক্তৃতা করেন ড. একে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন, খুব কম লোকই তাদের জীবন ও কর্ম দিয়ে ইতিহাস রচনা করতে পারেন। খুব কম লোকই দেশ-মহাদেশ ও সমাজ ছাড়িয়ে সর্বস্তরের মানুষের হৃদয়ে স্থায়ী আসন গেড়ে নিতে পারেন। দক্ষিণ আফ্রিকার জাতির জনক ম্যান্ডেলা- যাকে মাদিবা বলে জানতেন সবাই- তার জীবন ও কর্ম, ত্যাগ ও ভালোবাসা দিয়ে ইতিহাস রচনা করে মানুষের হৃদয়ে আসন গেড়ে নিয়েছেন। তিনি দেশ-জাতি-সমাজ ছাড়িয়ে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম অনন্তকাল ধরে  বেঁচে থাকবেন।

ড. মোমেন ১৯৯০ সালে ম্যান্ডেলার বোস্টন সফরে এবং ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানে তার সাক্ষাৎ পাওয়ার কথা স্মরণ করেন। এসব অনুষ্ঠানে মানবাধিকার, শান্তি, সুন্দর ভবিষ্যৎ, জ্ঞান ও সমৃদ্ধ বিশ্ব গড়তে ম্যান্ডেলার দিক-নির্দেশনা ও স্বপ্নের কথাগুলোও স্মরণ করেন রাষ্ট্রদূত ড. মোমেন।


‘নিউইর্য়ক প্রবাসী বাঙালী’র স্মরণ সভায় বক্তারা “তাজউদ্দিনকে এখন আর কেউ স্মরণ করে না; না আওয়ামী লীগ না অন্য কেউ”

শনিবার, ২৫ জুলাই ২০১৫

শব্দ রিপোর্ট : স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধান মন্ত্রী, আইনজীবী, রাজনীতিবিদ তাজউদ্দিন আহমদের ৮৮তম জন্মদিন পালন করলো ‘নিউইর্য়ক প্রবাসী বাঙালী’ ।গত ২৪ জুলাই সন্ধায় জ্যাকসন হাইটসের মামুন টিউটরিয়ালে ‘জন্মদিনে শ্রদ্ধাঞ্জলি’ শীর্ষক স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রবীন সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ । অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মিথুন আহমেদ । তাজউদ্দিনের রাজনীতি , ব্যক্তিজীবন ও দর্শন নিয়ে আলোচনা করেন লেখক সুব্রত বিশ্বাস, মুজাহিদ আনসারী, সন্জীবন কুমার, এ্যাড. মুজিবুর রহমান, রাজীব আহসান, গোপাল স্যানাল, নুসরাত চৌধুরী প্রমুখ । অনুষ্ঠানের শুরুতেই তাজউদ্দিন স্মরণে কিছুক্ষন নিরবতা পালন করা হয় ।

alt
সভাপতির ভাষনে প্রবীন সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন,তাজউদ্দিন আহমেদ ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের লাইট হাউজ এবং জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর সহচর । তিনি বলেন, তাজউদ্দিনের মত নেতা যুগে যুগে জন্ম গ্রহন করে না । সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, ৬ দফা প্রনয়ণে বলিষ্ট ভূমিকা পালনকারী তাজউদ্দিনকে এখন আর কেউ স্মরণ করে না । না আওয়ামী লীগ না অন্য কেউ ।

Taj-Uddin-HBD-NY
অন্যান্য বক্তারা বলেন, তাজউদ্দিন দেশকে দিয়েছেন অনেক, কিন্তু বিনিময়ে অনেক কিছু নিতে পারেননি। হয়তো বা উনার ভাগ্যে তা ছিল না। তবে আজকে বাংলাদেশের এই দুর্দিনে বাঙালি জাতি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করে দেশের এই ক্রান্তিকালে বঙ্গতাজের মত বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ এর প্রয়োজনীয়তা। বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী তাজউদ্দিনের মত মানুষ একবারই আসে, বার বার নয়। আমরা এই মহান নেতার জন্ম দিনে শ্রদ্ধার সাথে সরণ করছি ।উল্লেখ্য, ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করার পর হত্যাকারীদের নির্দেশে তাজউদ্দীন আহমদকে গৃহবন্দী করা হয়। ২৩ আগস্ট সামরিক আইনের অধীনে তাজউদ্দীন আহমদ-সহ ২০ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাঁকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়। ৩রা নভেম্বরে কারাগারের ভিতরে তাজউদ্দীন আহমদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, মোঃ মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়, যা বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘জেলহত্যা’ নামে কুখ্যাত হয়ে আছে।


আমেরিকায় সফল বাংলাদেশি স্টার্ট-আপ

শনিবার, ২৫ জুলাই ২০১৫

বাপসনিঊজ:সাফকাত ইসলাম, ইরাজ ইসলাম এবং আসিফ রহমান—এই তিন বাংলাদেশির হাত ধরে যাত্রা শুরু করে নিউজক্রিড। বাংলাদেশি এই স্টার্ট-আপ এখন সফলভাবে কনটেন্ট সার্ভিস ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে আমেরিকার মাটিতে।ঢাকায় বনানীর এক গ্যারেজে কাজ শুরু করে নিউজক্রিড। এখন তাদের ব্যবসায়িক প্রধান কার্যালয় বাংলাদেশ ছাড়িয়ে আমেরিকায় স্থানান্তরিত হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা এবং লন্ডনেও তাদের শাখা রয়েছে। মাত্র তিন জন থেকে শুরু করে বর্তমানে তাদের ১৫০ জন কর্মী রয়েছে।

দারুণ সব কনটেন্ট তৈরি করে বিজনেস ব্র্যান্ডগুলোকে সাহায্য করে আসছে নিউজক্রিড। সেরা মিডিয়া পার্টনার, সাংবাদিকদের সাথে কাজ করে কনটেন্ট মার্কেটিংয়ে নতুন দিগন্ত নিয়ে এসেছে নিউজক্রিড।
আমেরিকায় সফল বাংলাদেশি স্টার্ট-আপ
 
বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে তাদের নিজেদের কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারের মাধ্যমে ক্লায়েন্টদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে এই বাংলাদেশি স্টার্ট-আপ। প্রোক্টর অ্যান্ড গ্যাম্বল, ব্লু ক্রস ব্লু শিল্ড, স্প্রিন্ট, জেরক্স, ভিসা, ব্যাংক অব আমেরিকা, এআইজি, দ্য হার্টস্ট কর্পোরেশন এবং টাইম ইংকের মতো নামি-দামি ব্র্যান্ড এখন নিউজক্রিডের ক্লায়েন্ট।
 
তাছাড়া কনটেন্ট লাইসেন্সিং এবং কনটেন্ট মিডিয়া পাবলিশারদের সাথেও কাজ করে যাচ্ছে তারা। ‘দ্য নিউজ রুম’ নামে নতুন একটি সার্ভিসও চালু করতে যাচ্ছে তারা যেখানে ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রয়োজন অনুযায়ী নিজেরাই কনটেন্ট তৈরি করতে পারবে।
নিম্নমানের অনেক বেশি কনটেন্ট প্রকাশের চেয়ে স্বল্প পরিমাণে মানসম্মত কনটেন্ট প্রকাশের দিকেই বেশি নজর দেয় নিউজক্রিড। প্রতিটি ব্লগপোস্টের জন্য নিউজক্রিড ৫০০ ডলার করে সম্মানি দেয়। এমনকি যদি আর্টিকেল অনেক বেশি রিসার্চ করে লেখা হয়, তাহলে সম্মানি বাড়িয়ে ১০০০ ডলার দেওয়া হয়। কনটেন্ট প্ল্যানিং থেকে অ্যাপ্রুভাল পর্যন্ত সব কাজ করে দেয় এই স্টার্ট-আপটি। কনটেন্টের মাধ্যমে একটি ব্র্যান্ডকে কীভাবে বিশ্বব্যাপী পরিচিত করে তোলা যায় সেটাই সফলভাবে প্রমাণ করে আসছে নিউজক্রিড।

তাদের কঠোর পরিশ্রমের বদলে বেশকিছু অর্জনও রয়েছে। আমেরিকার বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ফান্ডও সংগ্রহ করতে পেরেছে সম্ভবনাময় স্টার্ট-আপটি। তাদের ফান্ড সংগ্রহ করে দিয়েছিল ইন্টার ওয়েস্ট পার্টনার্স, মেফিল্ড ফান্ড, ফার্স্ট মার্ক ক্যাপিটাল এবং আইএ ভেঞ্চারের মতো বড় বড় প্রতিষ্ঠান। মানসম্মত কাজের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্টার্ট-আপ হয়েও কীভাবে সারা পৃথিবীতে পরিচিতি পাওয়া যায় তারই এক নজির সৃষ্টি করেছে নিউজক্রিড।


নিউইয়র্কে আরিফ খান জয় : আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ফেরিওয়ালা

শুক্রবার, ২৪ জুলাই ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় বলেছেন, ১৭ কোটি মানুষের আশা আকাঙ্খার মূর্ত প্রতীক জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই বাংলার স্বাধীনতার অমর কবি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্ষুধা মুক্ত, দারিদ্রমুক্ত, স্বাধীন সার্বভৌম সুখী সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সেই বাংলাদেশ গড়তে আমরা স্বপ্নের ফেরিওয়ালা।বুধবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস এর পালকি সেন্টারে যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত । প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপ কমিটির সহ সম্পাদক রাশেক রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্ক সিটি আওয়ামীলীগের সভাপতি কমান্ডার নুর নবী, সাবেক সংসদ সদস্য মুনিরুল ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মামুন, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের সদস্য এ্যাডভোকেট জামাল হোসেন, সাইকুল ইসলাম দপ্তর সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ ও যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক টিটু রহমান।  অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের আহবায়ক এ একে এম তারিকুল হায়দার চৌধুরী। সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম আহ্বায়ক বাহার খন্দকার সবুজ। এতে বক্তব্য রাখেন সাইফুলল্লাহ ভূইয়া, একরামুল হক সাবু, শফি আনসারি, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ সদস্য, আতিকুর রহমান সুজন, স্বপন কর্মকার,শ্যামল শাহ, সিরাজুল ইসলাম, নিউইয়র্ক সিটি যুবলীগের আহ্বায়ক মীর

বক্তব্য রাখছেন যুব ও ক্রীড়া     উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়  ছবি : আনোয়ার হোসেন বাবর

সিকদার মিরু, যুগ্ম আহ্বায়ক মনুজুরুল ইসলাম, ব্রুকলিন বরো যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ আলাউদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক এটিএম রানা, আরিফ খান, খন্দকার জাহিদুল ইসলাম, মোঃ সুমন, কামাল হোসেন ও ফজলুর রহমান।
গনজাগরন মঞ্চের চেতনা বিফলে যায়নি উল্লেখ করে যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরো বলেন, ১০  জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচন না হলে দেশ আবার স্বৈর শাসকদের রাজত্বে পরিনত হতো। জনগণের অধিকার ভলুন্ঠিত হতো এবং স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বাংলাদেশকে আইয়ামে জাহিলিয়াতের যুগে নিয়ে যেতো। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা ১৭ কোটি মানুষকে নিয়ে ভাবেন। তিনি এদেশের দেশকে অন্ধকার থেকে টেনে বের করে আলোর পেথে নিয়ে যাচ্ছেন। সকল বিভেদ ভুলে দলমত নির্বিশেষে সেই আলোর পেথে শেখ হাসিনার সহযাত্রী হতে সবাইকে আহ্বান জানান মন্ত্রী।

যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছেন  ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত। ছবি : আনোয়ার হোসেন বাবর 

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত বলেন, ১৯৭২ সালে সরকার রেশনে শার্ট সেলাই করার জন্য আমাদের কাপড় দিতো। আর আজ বাংলাদেশ বিশ্বের এক নম্বর শার্ট রপ্তানিকারক দেশ। আমেরিকার ব্রান্ডেড সব সুপারশপে এখন মেড ইন বাংলাদেশের শার্ট পাওয়া যায়। তিনি বলেন,বাংলাদেশে এখন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৫ বিলিয়ন ডলার, রেমিটেন্স যাচ্ছে ১৫ বিলিয়ন আর আমদানি-রপ্তানি প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার । শুধু অর্থনীতি নয়, ক্রিকেটে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। বাংলাদেশ এখন পাকিস্তানকে পেটাচ্ছে, ভারতকে পেটাচ্ছে, সাউথ আফ্রিকাকে পেটাচ্ছে। দলের খেলা দেখলে বিশ্বাসই হয়না একি বাংলাদেশ  খেলছে না কোন ক্রিকেট পরাশক্তি খেলছে।

তবে বাংলাদেশে সুশাসনের অভাব রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সরকার এখন উন্নয়নে ব্যস্ত। আশাকরছি তার অচিরেই এতে হাত দেবেন। তিনি বলেন, যেখানে পুরো এশিয়া মহাদেশ তাদের সীমানা নিয়ে যুগ যুগ ধরে লড়াই সংগ্রাম করে যাচ্ছে সেখানে আজ বাংলাদেশের সমুদ্র সীমানা চিহ্নিত, স্থল সীমানা চিহ্নিত। এবং এদেশের আর্তসামাজিক অবস্থা এতোটাই ভালো যে ছিট মহলের কয়ক লাখ মানুষের মধ্যে মাত্র আড়াই হাজার মানুষ ভারতে যেতে চায়। বাকিরা সব বাংলাদেশে থাকতে চান। তিনি বলেন, এদেশে কেউ এখন না খেয়ে মরেনা


জলবায়ু পরিবর্তণের প্রভাব মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে থাকবে

শুক্রবার, ২৪ জুলাই ২০১৫

জলবায়ু পরিবর্তণের প্রভাব মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে থাকবেবাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন আজ বৃহস্পতিবার (২৩২০১৫) জুলকংগ্রেসম্যান এ্যালান লোয়েনথাল-এর সাথে তাঁর ক্যাপিটল হিলস্থ কার্যালয়ে সাক্ষাত করেন।সাক্ষাৎকালে তারা জলবায়ুর বিরুপ প্রতিক্রিয়াসহ অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা করেন।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন বাংলাদেশেজলবায়ু পরিবর্তণের বিরুপপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে কংগ্রেস ম্যানকে অবহিত করেন। কংগ্রেসম্যান এ্যালান লোয়েনথাল বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ে একজন প্রভাবশালী প্রবক্তা। বর্তমানে তিনি ‘সেফ ক্লাইমেন্ট’ কংগ্রেশনাল ককাসের চেয়ারম্যান।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন বলেন জলবায়ু পরিবর্তণ বাংলাদেশের মানুষের-যাত্রারজীবনসংগে ওৎপ্রোতভাবে জড়িত। যদিও বাংলাদেশে খুব স্বল্প মাত্রার কার্বণ নিসরণ করে তথাপি বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থশ।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন বলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান সরকার জলবায়ু পরিবর্তনেরপ্রভাব মোকাবেলার জন্য একটি ট্রাস্টফান্ড গঠন করেছেন এবংএই ফান্ডের অধীনে প্রায় ২৫০ টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে।রাষ্ট্রদূত আরো উল্লেখ করেন যে, সমূদ্রপৃষ্ঠে ১ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের-পঞ্চামাংশএক এলাকা প্লাবিতহওয়ার আশংকা রায়েছে এবং এতে দেশের প্রায় ২৫/৩০ লক্ষমানুষ গৃহহীন হয়ে পরবে। তিনি বলেন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবশুধু বাংলাদেশের জন্যই হুমকি নয়, ইহা প্রতিবেশীদেশসমূহসহ সাড়া বিশে^রজন্য হুমকিস্বরুপ।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন বলেন বাংলাদেশে ইউএসএইড-এর অধীন ৩টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীরয়েছে যার প্রাক্কালিত ব্যয় ৮৬.০৬ মিলিয়ন ডলার। এ প্রকল্পগুলোবাংলাদেশে জলবায়ুর বিরুপ প্রতিক্রিয়াহ্রাস করতে সহয়তা করবে।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন যুক্তরাষ্ট্রসহ উন্নত বিশ্বকে কার্বণডাই অক্সাইড নি:সরণ বন্ধের প্রয়োজনীয় চুক্তিরআহবানপ্রণয়ণেজানান। কংগ্রেসম্যান এ্যালান লোয়েনথান বলেন বাংলাদেশের উপর জলবায়ু পরিবর্তনের মারাত্মক প্রতিক্রিয়া সম্পর্কেঅবহিত আছেন এবং এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সার্বিক সহযোগিতা করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন কংগ্রেসম্যানকে বাংলাদেশের ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলের এবংউত্থান বিএনপি ও জামায়াত জোটের সংহিস কর্মকান্ড সম্পর্কেঅবহিত করেন।

কংগ্রেসম্যান এ্যালান লোয়েনথালরাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিনকে ধন্যবাদ জানান এবং সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দেন। দূতাবাসের কাউন্সেলর(রাজনৈতিক) জনাব নাঈম আহমেদ উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।


২০১৫ সালের ফোবানা পদক ঘোষণা

শুক্রবার, ২৪ জুলাই ২০১৫

২০১৫ সালের ফোবানা পদক ঘোষণা

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :প্রতি বৎসর ফোবানা একটি সংগঠনকে পুরস্কৃত করে ফোবানা পদক প্রদান করে তাদের কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ। এবছরও তাঁর ব্যতিক্রম নয়। ফোবানার এ্যাওয়ার্ড কমিটির এবছরের চেয়ারম্যান ফ্লোরিডার জনাব আতিকুর রহমান তাঁর কমিটি থেকে ২০১৫ সালের ফোবানা পদকের জন্য বাংলাদেশের মহিলা ও শিশু অধিদপ্তরে নিবন্ধনকৃত সংগঠন তৃণমূল নারী উদ্দ্যোক্তা সোসাইটি (গ্রাসরুটস) কে মনোনীত করে ফোবানা এক্সিকিউটিভ কমিটিতে পাঠান তাদের মনোনয়ন গ্রহন করার জন্য। এই সংগঠন নারীর অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশের ৩ কোটিরও বেশী তৃণমূল নারীদেরকে নিয়ে। তারা গৃহকেন্দ্রিক কর্মী গড়ে তুলছে বিভিন্ন ধরনের ট্রেনিং দিয়ে এবং নারীদের শেখাচ্ছে কিভাবে তৈরী করতে হবে আন্তর্জাতিক বাজারযোগ্য পন্য। তারা ইতোমধ্যে বরিশালের নারকেলের ছোবরা, গাইবান্ধার তুলসী পাতা সিলেটের থাই ক্লে আর রূপগঞ্জের জামদানী ভিত্তিক পণ্য বাজারজাত এবং রফতানী শুরু করেছে। এছাড়া তারা এই নারীদেরকে দেশে এবং বিদেশের বিভিন্ন মেলায় অংশগ্রহন করতে সাহায্য করে থাকে। এবছর তারা বাংলাদেশ, চায়না ও ইন্ডিয়া ছাড়াও তাদের সদস্যদের ভেতর থেকে ১০ জনকে বেছে পাঠাবেন নিউ ইয়র্কে অনুষ্ঠিতব্য ফোবানা সম্মেলনে স্টল নিয়ে তাদের পন্যকে তুলে ধরতে।

ফোবানা এক্সিকিঊটিভ কমিটি তাদের এ্যাওয়ার্ড কমিটির এই মনোনয়নের ওপর ভিত্তি করে অত্যন্ত আনন্দের সাথে ঘোষণা করছে যে এবছর তৃণমূল নারী উদ্দ্যোক্তা সোসাইটি (গ্রাসরুটস)ই পাবে ২০১৫ সালের ফোবানা পদক। এই  পদকের পুরো নাম হলো - "FOBANA Outstanding Community Service Award of 2015"

ইতোমধ্যে তৃণমূল নারী উদ্দ্যোক্তা সোসাইটি (গ্রাসরুটস) কে জানিয়ে দেয়া হয়েছে এই সুখবর এবং একই সাথে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকীকেও জানানো হয়েছে এই খবর। তাঁকে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে তিনি যেন উপস্থিত থাকেন সেপ্টেম্বরের ৬ তারিখে নিউ ইউর্কে যে দিন তৃণমূল নারী উদ্দ্যোক্তা সোসাইটি (গ্রাসরুটস) এর কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেয়া হবে এই পদক। তিনি আমন্ত্রন গ্রহন করেছেন এবং মৌখিকভাবে সম্মতি জানিয়েছেন। তৃণমূল নারী উদ্দ্যোক্তা সোসাইটি (গ্রাসরুটস)-এর পক্ষ থেকে এই পদক গ্রহণ করতে বাংলাদেশ থেকে আসবেন সিইও হিমাংশু মিত্র। তাঁর সাথে সফরসংগী হবেন সেন্ট্রাল কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট শাহীন আখতার সাথী, সেন্ট্রাল কমিটির ট্রেজারার তৌহিদা হায়দার, ঢাকা ডিস্ট্রিক্ট প্রেসিডেন্ট সেলিনা হাসান,  সিলেট ডিস্ট্রিক্ট মেম্বার সৈয়দা রাবেয়া আক্তার রিয়া ও সেন্ট্রাল কমিটি মেম্বার সৈয়দা সালমা আখতার। পররাস্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে তাদের পরিচিতি পত্র ইতোমধ্যে পাঠানো হয়েছে আমেরিকান দূতাবাসে ভিসা প্রক্রিয়ার জন্য।

ডিউক খান

চেয়্যারম্যান,ফোবানা, E-mail: এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।

আজাদুল হক

এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারী, ফোবানা, E-mail: এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।   


প্রাণবন্ত পরিবেশে হয়ে গেল বেদান্ত এসোসিয়েশন নিউইর্য়কের বনভোজন ২০১৫

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই ২০১৫

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে : রবিবার,২০১৫ সাল জনারণ্যের-সব কাজের অবসর নিয়ে সবাই মিলে লং আইল্যান্ডের সমুদ্র তটের প্রাকৃতিক পরিবেশে মনোমুগ্ধকর সবুজ প্রাঙ্গন হেক শেয়ার স্টেট পার্কে নির্মল আনন্দে মেতে উঠেছিল ।
বেদান্ত এসোসিয়েশন নিউইর্য়ক আয়োজিত পঞ্চম বনভোজনে সদস্য পরিবার ও অতিথিবৃন্দের ্অংশ গ্রহনে সারাদিনের আয়োজনটি ছিল প্রাণবন্ত। শান্ত ¯িœগ্ধ প্রকৃতির এই মনোরম পরিবেশে অতিথিবৃন্দ প্রাতঃরাশ সম্পন্ন করেন। তারপর বনভোজন কমিটির আহ্বায়ক অশোক সাহা ও যুগ্ম আহ্বায়ক মধুসূদন ধর ও প্রদীপ দাশ,যুগ্ম সদস্য সচিব শুভাষ তালুকদার ও মনোজিত চৌধুরী বনভোজনের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। সেই সাথে সংগঠনের সভাপতি শ্যামল রায় ও সাধারণ সম্পাদক বিধান বিশ্বাস সম্মানিত অতিথিদের স্বাগত জানান।
ক্রীড়া অনুষ্ঠানের দায়িত্ব ছিলেন পীযূষ বর্দ্ধন, বিধান বিশ্বাস, বিশ্বজিৎ দাশ শান্ত, মৃনাল ঘোষ ও রুপনা সাহা। খেলাধুলায় অংশ গ্রহন করেন সব বয়সের প্রতিযোগীরা। অত্যন্ত উপভোগ্য ও আনন্দঘন পরিবেশে খেলার বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে ছিল ছোটদের দৌড় প্রতিযোগীতা, মহিলাদের নির্দিষ্ট স্থানে বল নিক্ষেপ করা ,বালিশ ছোড়া,ব্যাডমিন্টন ও অন্যান্য খেলা। ক্রীড়া অনুষ্ঠানের সামান্য বিরতির পর পরিবেশন করা হয় মধ্যাহ্ন ভোজ। সর্বজন রুচি সম্মত খাবার পর্বের মূল সমন্বয়ক ছিলেন শ্যামল রায়, অশোক সাহা ও মধুসুদন ধর। খাদ্য পরিবেশনায় ছিলেন অতসী চৌধুরী, রিংকি দে, তাপসী বোস, ছন্দা সরকার, সুস্মিতা দাশ, ইলা বর্দ্ধন, রুপনা সাহা, ছন্দা রায়, শিল্পী দাশ, রুপালী ঘোষ ও সুরঞ্জনা সাহা।

প্রাণবন্ত পরিবেশে হয়ে গেল বেদান্ত এসোসিয়েশন নিউইর্য়কের বনভোজন ২০১৫  

অনুদান সংগ্রহে ছিলেন অনল সাহা ও চন্দ্রা বিশ্বাস। র‌্যাফেল ড্র টিকেট বিক্রয়ের বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন তড়িৎ বোস ও তাপসি বোস। টিকেট বিক্রয়ের বিজয়ীনিরা ছিলেন অপর্না সরকার, চন্দ্রা রায় ও উমা চৌধুরী। অনেকগুলো আকর্ষনীয় পুরস্কারের মধ্যে প্রথম পুরস্কার ছিল আইফোন ৬+ স্পন্সর করেছেন বিপুল সরকার, বিধান বিশ্বাস, ধীরেন কুমার ও প্রদীপ দাশ। অন্যান্য আকর্ষনীয় পুরস্কার স্পন্সর করেছেন বিশ্বজিৎ চৌধুরী, শ্যামল রায়, বিধান বিশ্বাস ,অর্পন চৌধুরী , অশোক সাহা, মধুসূদন ধর, রিংকি দে,অনল সাহা, বিশ্বজিৎ দাশ শান্ত, শুভাশীষ নন্দী , ঝন্টু সরকার, যিশু বল ও রতœা চৌধুরী।
বনভোজন কার্যক্রমের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন তড়িৎ বোস , তরুন চৌধুরী, তরুণ চন্দ, চিত্তরঞ্জন রায়. বাসন্তী রায়, রতœা চৌধুরী, সীমা চৌধুরী, লিটন সাহা, সঞ্চয় রক্ষিত, স্বপন রায় ও নন্দিতা ঘোষ।
সারাদিনের এই আনন্দঘন পরিবেশটি গানে গানে মাতিয়ে রেখেছিল যিশু বলের সাউন্ড সিস্টেম। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে অনেকগুলি শ্রুতি মধুর সঙ্গীত পরিবেশন করেন প্রবাসের প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী ওয়াহিদ আজাদ অংশ গ্রহনকারী সম্মানিত অতিথিবৃন্দের মধ্য ছিলেন অন্যতম দীজেন ভট্টাচার্য, পূজা সমিতির সভাপতি অমিত ঘোষ, চম্পা রায়, দীলিপ বিশ্বাস, মিনতী রায়, বাবুল সাহা, অর্জুন সাহা, যিশু বল প্রমূখ। পরিশেষে সব বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করে সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সমবেত সবাইকে শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করার মাধ্যমে এই স্মরণীয় দিনটির অনুষ্ঠানাদির সমাপ্তি ঘোষনা করেন ।


জাতীয় পার্টি’র প্রেসিডিয়াম মেম্বার সুনীল শুভরায়কে নিউইয়র্ক স্টেট কমিটির সংবর্ধনা প্রদান

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই ২০১৫

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিডজ:জাতীয় পার্টি নিউইয়র্ক স্টেট কমিটির উদ্যোগে জাতীয় পার্টির  প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ-এর প্রেস সচিব সুনীল শুুভরায়কে সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠিত হয়। গত ১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস্থ ফুডকোর্ট রেস্টুরেন্টে এক জাকজমকপূর্ন পরিবেশে পবিত্র রমজানের শেষ ইফতার ও দোয়া মাহফিল এবং  উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জাপা নিউইয়ক স্টেট কমিটির সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ হানিফের ও সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ হাসান মিলনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পার্টির চেয়ারম্যানের প্রবাসী বিষয়ক উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মেরাজ, জাপার প্রধান সমন্বয়কারী আব্দুন নুর বড় ভূইয়া, জাপার উপদেষ্টা গিয়াস মজুমদার, জাপার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান, জাপার সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু, কেন্দ্রীয় সদস্য ও জাপার সিনিয়র সহ-সভাপতি জসীম উদ্দিন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সদস্য ও জাপার উপদেষ্টা মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, জাপার উপদেষ্টা সাবেক কমিশনার মোঃ আলী, জাপার সহ-সভাপতি এডভোকেট হারিস, জাপার সহ-সভাপতি খন্দকার আলী নাসিম ও বসু দাস প্রমুখ। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন নিউইয়র্ক সিটি কমিটির সভাপতি শুভংকর গাঙ্গুলী, সাধারণ সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান, জাতীয় যুব সংহতির সিনিয়র সহ-সভাপতি ফেরদৌস ওয়াহিদ, মহিলা সম্পাদিকা জেসমিন আক্তার চৌধুরী, মহিলা সহ-সম্পাদিকা শাহনাজ বেগম, মুক্তিযোদ্ধা আলমগীর কবীর কাজল, মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস আহমেদ, মোঃ মান্নান, হোসনে আরা রুবি ও সেবু রহমান,খবর বাপসনিঊজ।
সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং ইফতারের পূর্বে দোয়া ও মিলাদ পরিচালনা করেন এডভোকেট মোঃ হানিফ।  

jp ny
সংবর্ধনা সভায়  সুনীল শুভরায় বলেন, বাংলাদেশের মানুষ এখন শান্তিতে বসবাস করছে। পবিত্র রমজান উপলক্ষে সকল পণ্যের দ্রব্য মূল্য সাধারণ জনগনের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আছে। আমাদের চেয়ারম্যান এরশাদ সাহেবের শাসন আমলে বাংলাদেশের যে উন্নয়ন হয়েছিল, তারই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছে। এজন্য আমরা বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি আরো বলেন বর্তমান সরকারের অনেক ক্ষেত্রেই উন্নয়নের সফলতা এসেছে কিšু‘ বাস্তবে সরকার জনগনের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। গুম, খুন, ধর্ষন দূর্নীতিতে সরকরের সকল পর্যায়ে একটি সিন্ডিকেট তৈরী হয়েছে। এমন কোন সরকারী প্রতিষ্ঠান নেই যেখানে ঘুষ না দিয়ে কোন কাজ করা যায় না। তিনি বলেন বর্তমান সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসাবে জাতীয় পার্টি জনগণের স্বার্থ বিরোধী কোন বিল পাস করতে দেয়নি ভবিষ্যতেও দিবে না। এ ব্যাপারে জাতীয় পার্টি অঙ্গিকারাবদ্ধ। তিনি বলেন বাংলাদেশ বিমানের নিউইয়র্ক-ঢাকা সার্ভিস পুনরায় চালুর ব্যাপারে সরকারের সাথে পার্টি চেয়ারম্যান আলোচনা অব্যাহত রেখেছেন। এরই পরিপেক্ষিতে বর্তমান বিমানমন্ত্রী ঘোষনা দিয়েছেন বিমানের নিউইয়র্ক-ঢাকা সার্ভিস পুনরায় চালুর ব্যাপারে। পরিশেষে যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির কর্মকান্ডে তিনি খুশী ও সন্তোষ্ট। বর্তমান জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখা কেন্দ্রীয় কমিটির সাথে কাজ চালিয়ে যাবে। তিনি প্রবাসী সকল বাংলাদেশী ভাই বোনদেরকে চেয়ারম্যান এরশাদ সাহেবের পক্ষ থেকে ঈদ মোবারক ও সালাম জানান। উল্লেখ্য, সুনীল শুভরায় ১৭ জুলাই সকাল ১০ টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে জেএফকে এয়ারপোর্ট ত্যাগ করেন। বিদায়কালে পার্টির নেতৃবৃন্দসহ পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু তাকে বিদায় জানান।