Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/stories/2015/April/00/modules/mod_gk_news_highlighter/images/media/system/js/modules/mod_gk_image_show/js/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

কানাডার টরন্টোয় ‘বাঙালি লেখক সম্মেলন’ অনুষ্ঠিত

শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : টরন্টো থেকে : ১৪ অক্টোবর শনিবার টরন্টোতে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাঙালি লেখক সম্মেলন ২০১৭। গতবারের মতো এবারও সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন বিপুল সংখ্যক কবি- সাহিত্যিক। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কানাডীয় কবি-সাহিত্যিকও বেঙ্গলি লিটারারি রিসোর্স সেন্টার (বিএলআরসি) আয়োজিত এবছরের সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। বিকেল ৪টায় শুরু হয়ে সম্মেলন চলেছে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত।লেখক সম্মেলন নিয়ে বিএলআরসি’র নির্বাহী পরিচালক সুব্রত কুমার দাস সিবিএন’কে বলেন,  গতবারের লেখক সম্মেলনের চেয়ে এবারের লেখক সম্মেলনে লেখকদের সংখ্যা অনেক বেশি, উপস্থিত দর্শক এবং গুণগ্রাহীর সংখ্যাও অনেক বেশি। 

Picture

সাহিত্য সম্মেলনের মত এমন আয়োজনকে কানাডার বাংলাদেশি কমিউনিটির পাশাপাশি অন্য কমিউনিটির মানুষরা উৎসাহিত করছেন, তাঁরা এটাকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন, এটা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, বিএলআরসি’র পরবর্তী কর্মকাণ্ডেও সাহিত্যপ্রেমীরা এগিয়ে আসবেন। সকলে মিলে এই প্রবাসে বাংলা ভাষা এবং সাহিত্যকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করে যাবেন বলেও মনোভাব ব্যক্ত করেন সুব্রত। কানাডীয় সাহিত্যের পাশাপাশি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দ্বিতীয় প্রজন্মের সাথেও সংযোগ স্থাপনের এই প্রচেষ্টা তাঁদের সংগঠন চালিয়ে যাবে বলে জানান তিনি।

IMG_7500

‘আমি খুবই আশাবাদী, আমার খুবই ভালো লাগছে, যে স্বপ্ন নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছিল স্বল্প পরিসরে, আজ এই স্বপ্ন কানাডাতে বসবাসরত বাংলা ভাষাভাষী যারা আছে তাঁদের কাছে সুন্দর রূপ পাচ্ছে। এবং আমি খুবই আশাবাদী আমাদের এই উদ্যোগ সম্পূর্ণরূপে সফল হবে’ – বলছিলেন বিএলআরসি’র বর্তমান সভাপতি ড. রাখাল সরকার।দেশে বিদেশে টেলিভিশন-এর প্রধান সম্পাদক এবং লেখক নজরুল মিন্টু সিবিএন’কে বলেন,  এত বড় একটি সাহিত্য সম্মেলনের আয়োজন দেখে অনেক ভালো লাগছে। দুই বাংলার লেখক-লেখিকা এবং কানাডার মূলধারার লেখকরাও যে আমাদের সাথে মত বিনিময় করেছেন, একে অন্যকে জানতে পেরেছি এতাইতো সবচেয়ে বড় পাওয়া। তাঁর ভাষ্য, ‘শুধু লেখকদের নিয়ে এমন আয়োজন খুব কম জায়গাতেই হয়। কানাডার মত জায়গায় এমন আয়োজন করতে পেরে আমি নিজেই গর্বিত’।
টরন্টো শহরের ৯ ডজ রোডের কানাডিয়ান লিজিয়ন হলে অনুষ্ঠিত এই লেখক সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে উপস্থিত ছিলেন কানাডীয় সাহিত্যের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব টরন্টো পোয়েট লরিয়েট অ্যান মাইকেলস, বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক আসাদ চৌধুরী, কবি ইকবাল হাসান, লেখক ড. দিলীপ চক্রবর্তী, রাইটার্স ইউনিয়ন অব কানাডার নির্বাহী পরিচালক ঔপন্যাসিক, কবি ও কলামিস্ট জন ডেগেন এবং কানাডার সাহিত্যের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান রাইটারস ট্রাস্ট অব কানাডার নির্বাহী পরিচালক মেরি অসবর্ন। উদ্বোধনী পর্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বিচেস-ইস্টইয়র্ক এলাকার এমপিপি আর্থার পটস।
সম্মেলনে কানাডার কবিতার বাংলা অনুবাদ নিয়ে ছিল একটি আড্ডা-পর্ব। এ পর্বে যে দুজন কানাডীয় কবি অংশ নেন তাঁরা হলেন রোনা ব্লুম এবং আনা ইয়িন। বাঙালি যে দুজন কবি ও অনুবাদক এ পর্বে অংশ নেন তাঁরা হলেন ঢাকা থেকে পারভেজ চৌধুরী এবং ভ্যাঙ্কুভার থেকে শাহানা আকতার মহুয়া।

IMG_7474
উল্লেখ করা যেতে পারে, এবার সম্মেলনে বিএলআরসি সাহিত্য পত্রিকার দ্বিতীয় সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়। নতুন এই সংখ্যাটিতে কানাডার বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত ৭২জন বাঙালি লেখকের রচনা প্রকাশিত হয়েছে। উল্লেখ্য যে, সংখ্যাটিতে কানাডার কেন্দ্রীয় হেরিটেজ মন্ত্রী মেলানি জলির শুভেচ্ছাবার্তা প্রকাশিত হয়েছে। সাহিত্য পত্রিকাটির নির্বাহী সম্পাদক গবেষক সুজিত কুসুম পাল সম্পাদকমণ্ডলীর অন্য সদস্যদের নিয়ে সংখ্যাটির পাঠ উন্মোচন করেন।বিভিন্ন পর্বে কবিতা, কথাসাহিত্য, প্রবন্ধসাহিত্য নিয়ে আলোচনা ও পাঠে অংশ নেন বাঙালি-অবাঙালি তরুণ ও প্রবীন কবি ও লেখক।কথাসাহিত্য পর্বে আলোচনায় অংশ নেন সৈয়দ ইকবাল, ফরিদা রহমান, সালমা বাণী, মামুনুর রশীদ, অটোয়া থেকে শাহিনুর ইসলাম এবং কুইবেকের লংগেইল শহর থেকে আব্দুল হাসিব।

IMG_7455

প্রবন্ধসাহিত্য পর্বে যে লেখকেরা মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন তাঁরা হলেন হাসান মাহমুদ, রিসমন্ড হিল থেকে সুধীর, সৈকত রুশদী এবং নজরুল মিন্টো।কবিতা পর্বে পাঠ এবং আলোচনায় ছিলেন অশোক চক্রবর্তী, রূমানা চৌধুরী, শওকত সাদী, অটোয়া থেকে সুলতানা শিরিন সাজি, মৌ মধুবন্তী, শিউলী জাহান এবং মানজু মান আরা।লেখক সম্মেলনে টরন্টোর কয়েকজন বাঙালি সাহিত্যিক কথা বলেছেন যারা প্রধানত ইংরেজিতে লিখে থাকেন। ইংরেজিভাষী বাঙালি লেখকেরা হলেন: আয়েশা চ্যাটার্জী, শুক্লা দত্ত, শচী নাগ, দয়ালী ইসলাম, সঞ্চারী সূর এবং রেজা সাত্তার।

সম্মেলনে উপস্থিত লেখক ও দর্শকদের একাংশ; ছবিঃ নাদিম ইকবাল।

এছাড়ারও যে বাঙালি তরুণরা লেখক সম্মেলনে একটি পর্বে লেখালেখির অভিজ্ঞতার নিয়ে কথা বলেন তাঁরা হলেন অর্ক ভট্টাচার্য, সূচনা দাস বাঁধন, ব্রতী দাসদত্ত এবং মেরিলিন সামান্থা পাণ্ডে।অনুষ্ঠানের শুরুতে সকল অতিথি দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালনের মধ্য দিয়ে কানাডার বাঙালি কমিউনিটির প্রয়াত লেখক ড. মীজান রহমান, মোল্লা বাহাউদ্দিন, ড. জহিরুল ইসলাম, মাহফুজুল বারী এবং প্রশান্ত সরকারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।কবি ও লেখকদের পরস্পরের বই সম্পর্কে ধারণা লাভ এবং তাঁদের গ্রন্থ সম্পর্কে পাঠকদের ধারণা বৃদ্ধির জন্যে গতবারের মতো এবারও সম্মেলনে বিনা খরচে লেখকদের বই প্রদর্শন ও বিক্রির ব্যবস্থা ছিল।সম্মেলনে বিভিন্ন পর্ব পরিচালনায় ছিলেন আকবর হোসেন, চয়ন দাস, দেলওয়ার এলাহী, তাসমিনা খান, সারিয়া তানজিম সুমনা, অর্ক ভট্টাচার্য এবং অদিতি কাজী। সংগঠনের সচিব ফায়েজুল করিম সবাইকে ধন্যবাদ দেন।


Add comment


Security code
Refresh