Slideshows

http://bostonbanglanews.com/index.php/images/stories/2015/April/05/02/images/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বাংলাদেশের খবর

জামালপুরে বন্যার্তদের মাঝে জেএসডি’র ত্রাণ বিতরন বন্যার্ত মানুষের তুলনায় সরকারের ত্রাণ সাহয্য খুবই অপ্রতুল ....আ স ম আবদুর রব

সোমবার, ২৮ আগস্ট ২০১৭

বাপ্ নিউজ : জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব বলেছেন, বন্যার্ত মানুষের তুলনায় সরকারের ত্রাণ সাহায্য খুবই অপ্রতুল। বহু এলাকার বন্যার্ত মানুষ এখনো কোন ত্রাণ সাহায্য পায়নি। তারা ক্ষুধার্ত ও পিপাশার্ত জীবন যাপন করছে। নানাবিধ অসুখ বিসুকে ভুগছে। সরকারের মন্ত্রীরা ত্রাণ সাহায্যের নামে হেলিকপ্টারে ঘুরে যে টাকা ব্যয় করছে তা বন্যার্তদের মাঝে দিলে তাদের অবস্থার আরেকটু উন্নতি হতে পারতো। আমরা গরীব মানুষের দল। আমাদের নেতা কর্মীরা একবেলা না খেয়ে সেই টাকা দিয়ে সামান্য ত্রাণ নিয়ে বন্যার্তদের প্রতি সহানুভুতি জানাতে এসেছি। আপনাদের জানাতে এসেছি, দেশে জনগণের নির্বাচিত সরকার থাকলেও আপনাদের এ দুরাবস্থায় পড়তে হতোনা। আজকের বন্যার পানি শুধু বৃষ্টির পানি নয়, ভারত শুস্ক মওসুমে পানি বন্ধ করে দিয়ে আমাদের ফসলাদি পুড়িয়ে মারে, আর বর্ষাকালে বাঁধের সকল গেট খুলে দিয়ে আমাদেরকে ডুবিয়ে মারে। একটি গণভিত্তি সম্পন্ন সরকারই পারে এ বিষয়টি ভারতের সাথে ফয়সালা করতে। এ বিষয়ে আপনাদের সচেতন থাকতে হবে। জনাব রব বন্যার্ত এলাকার বকেয়া সকল কৃষিঋণ মওকুফ, নতুন আবাদের জন্য বিনাসুদে ঋণ প্রদান ও পরবর্তী ফসল না ওঠা পর্যন্ত রেশনিং ব্যবস্থা চালু করার দাবী জানান।

জেএসডি সাধারন সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশের নদ-নদী, বাড়ী-ঘর ও জমিতে বন্যা, আর ষষ্টদশ সংশোধনী বাতিল নিয়ে রাজনীতিতে খরা চলছে। এ অবস্থায় গদি রক্ষা ছাড়া বানভাসি মানুষের পক্ষে দাড়ানোর মানসিকতা সরকারের নেই।

আজ দুপুর ১২ টা থেকে জামালপুরে সদর উপজেলার তিপপালা ইউনিয়নের কামাল খান হাট ফাজিল মাদ্রাসা মাঠ, মেস্টা ইউনিয়নের হাজীপুর আলহাজ¦ জয়নুল আবেদীন দাখিল মাদ্রাসা মাঠ ও মেলান্দহ উপজেলার মুক্তি সংগ্রাম যাদুঘর প্রাঙ্গনে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন শেষে সাংবাদিক ও সুধীজনের সাথে আলাপকালে নেতৃবৃন্দ এ সকল কথা বলেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন জেএসডি’র কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির আহবায়ক ও দলের সহ সভাপতি মিসেস তানিয়া রব, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জনাব শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, এ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, জামালপুর জেলা জেএসডি’র সভাপতি জনাব আমির উদ্দিন, সাধারন সম্পাদক এ্যাড. তাজ উদ্দিন সবুজসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দ।


সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনেই শ্রমিক শ্রেনী গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেছে .........আ স ম আবদুর রব

শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোট এর উদ্যোগে ‘বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে শ্রমিক শ্রেনীর করনীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
বাপ্ নিউজ : জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব আজ বিকেল ৪ টায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোট আয়োজিত  ‘বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে শ্রমিক শ্রেনীর করনীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যদানকালে বলেছেন, সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনেই শ্রমিক শ্রেনী গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধেও শ্রমিকদের ভূমিকা অবিস্মরনীয়। আজকে দেশে গণতন্ত্রের নামে যে স্বৈর শাসন চলছে, চলছে নির্বাচনের নামে প্রহসন। এ অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্যও শ্রমিক শ্রেনীকে এগিয়ে আসতে হবে। জনাব রব সকল শিল্প-কল-কারখানায় অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার এবং এ সকল প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজমেন্টে শ্রমিক-কর্মচারীদের অংশীদারিত্বের দাবী জানান। তিনি বলেন, সরকার বলছে দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে অথচ আমাদের রপ্তানী দিন দিন কমছে, কমছে কর্ম সংস্থানের হার। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরনের জন্যও রাজনৈতিক আন্দোলনের সাথে শ্রমিক শ্রেনীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেএসডি সাধারন সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশে যে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হয় তা শ্রমিক-কৃষক ও মধ্যবিত্ত শ্রেনীই প্রদান করে। ধনিক শ্রেনী ট্যাক্স এর নামে যা দেয় তা শ্রমিক-কৃষক, মধ্যবিত্ত শ্রেনীর কাছ থেকে দ্বিগুন হারে আদায় করে নেয়। অথচ শ্রমিকদের কল্যানে সে টাকা দেয়া হয়না। এ অবস্থা পরিবর্তনের জন্য দেশের সকল পর্যায়ের স্থানীয় সরকার ও পার্লামেন্টে শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ( বীর উত্তম), জনাব মাহমুদুর রহমান মান্না, জনাব আবদুল মালেক রতন, এস এম আকরাম, এ্যাড. সুব্রত চৌধুরী, জনাব মাহি বি চৌধুরী, জনাব মোস্তফা আমিনী।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোটের   ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জনাব এয়ার আহম্মেদ এর সভাপতিত্বে  ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোটের সাধারন সম্পাদক জনাব মোশারফ হোসেনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জেএসডি নেতা  জনাব এম এ গোফরান, জনাব আতাউল করিম ফারুক, জনাব মো: সিরাজ মিয়া, মিসেস তানিয়া রব, জনাব শহীদ উদ্দীন মাহমুদ স্বপন, জনাব কামাল উদ্দীন পাটোয়ারী, জনাব আবদুর রাজ্জাক রাজা, জনাব আবদুর রাজ্জাক রাজা, এস এম সামসুল আলম নিক্সন। শ্রমিক নেতা জনাব নোমানুজ্জামান, জনাব আবুল হোসেন মিয়া, জনাব আবদুল আউয়াল, জনাব এবিএম জামাল উদ্দীন, এ্যাড. নাজিম উদ্দীন, জনাব গাজী আলম, জনাব বেলাল হোসেন, জনাব বদরুদ্দোজা, জনাব আবদুস সাত্তার প্রমুখ।


মাষ্টার আনোয়ারুল হক এর মৃত্যুতে আ স ম আবদুর রব এর শোক

রবিবার, ২৩ জুলাই ২০১৭

বাপ্ নিউজ : বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ লক্ষীপুর জেলা কমান্ডার, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল - জে এস ডি লক্ষীপুর জেলা শাখা'র সাবেক সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার আনোয়ারুল হক সাহেব ২০ শে জুলাই রাত ১০.৫০ মি: ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহে....রাজেউন।

মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলক, জে এস ডি'র সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, লক্ষীপুর জেলা জে এস ডি'র সভাপতি অধ্যক্ষ মনছুরুল হক, কার্যকরী সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মোতালেব ও সাধারন সম্পাদক এড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।


সমুদ্রজলে পা ভিজিয়ে উচ্ছ্বসিত প্রধানমন্ত্রী

শনিবার, ০৬ মে ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন:আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:সমুদ্রতীরে যাবেন আর জলে পা ভেজাবেন না, তাতো হয় না। আর যে কেউ পারলেও বাংলার প্রাণের সাথে মিশে থাকা চেতনার ধারক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পারবেন না। তারই প্রমাণ তিনি রাখলেন আজ।

Picture

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় ইনানী বিচে সমুদ্রজলে পা ভেজালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। খালি পায়ে হেঁটে বেড়ালেন বালুকাবেলায়। সেখানে সমুদ্রের মৃদু মৃদু ঢেউ এসে ভিজিয়ে দিল তার পা।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

কিছুক্ষণ পরেই ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর খালি পায়ে হাঁটার বেশ কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়ে। বে ওয়াচ রিসোর্টের সামনে সৈকতের বেলাভূমিতে মঞ্চ করে হয় এই অনুষ্ঠানটি। দুপুর সাড়ে ১২টায় অনুষ্ঠান শেষ হলে শেখ হাসিনা সোজা সৈকতে নেমে যান। সেখানে কিছুক্ষণ খালি পায়ে হাঁটেন তিনি, নামেন পানিতেও।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

বে ওয়াচ রিসোর্টেই মধ্যাহ্ন ভোজ সারবেন তিনি। এই অনুষ্ঠানে বক্তব্যে শেখ হাসিনা বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে প্রথম সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতার কথা জানান।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

ইনানীর সঙ্গে জড়িয়ে আছে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিও।  অনুষ্ঠানের বক্তব্যে শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে শৈশবে সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতার কথা জানান। ১৯৫৮ সালে সামরিক শাসনামলে অরণ্যঘেরা ইনানীর চেনছড়ি গ্রামে বেশ কিছু দিন ছিলেন জাতির জনক।

alt

বাংলাদেশের প্রধান পর্যটন শহর কক্সবাজারকে আরও আকর্ষণীয়ভাবে গড়ে তোলার কথাও বলেন শেখ হাসিনা। সকালে বিমানের বোয়িং উড়োজাহাজ মেঘদূত এ কক্সবাজার নামার পর ইনানী সৈকতে যান প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্য দিয়ে সেখানে সুপরিসর বিমান চলাচল শুরু হলো।


ভারতে বঙ্গবন্ধু সড়কে হাসি মুখে প্রধানমন্ত্রী

শনিবার, ০৬ মে ২০১৭

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে একটি সড়কের নামকরণ করা হয়েছে। বাবার নামের সেই সড়কে গিয়ে ছবি তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনই একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেছেন প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়।

Picture

৫ মে শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ছবিটি পোস্ট করেন। তবে ছবিটি কবে তোলা সে ব্যাপারে কোনো কিছু জানাননি তিনি। ছবিতে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রী সেই সড়কের নামফলকের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন।

alt

উল্লেখ্য,  গত ৮ এপ্রিল দিল্লির প্রাণকেন্দ্রে শঙ্কর রোড-মন্দির মার্গ ট্রাফিক চত্বর থেকে রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালের সামনে মাদার তেরেসা ক্রিসেন্ট পর্যন্ত সড়কটির নামকরণ করা হয় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব লেন’। এর আগে এ সড়কটির নাম ছিল পার্ক স্ট্রিট।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের প্রাক্কালে দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে এই উদ্যোগ নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। নতুন এই নামফলকটি অগণিত ভারতীয় ও বাংলাদেশির আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়।


বাংলাদেশের অন্যতম লেখক ও বন্যপ্রাণী বিশারদ আলম শাইন

শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০১৭

বোস্টন বাংলা নিউজ ডেস্ক: মাদী কুকুরটা মারা যাওয়ার পর নিজের কনিষ্ঠ আঙ্গুলটাকে কুকুর ছানার মুখে চুষিয়ে বড় করেছেন। টিয়ার কামড়ে ডান হাতের তর্জনীর মাথাটাও হারিয়েছিলেন। খেলার মাঠে না গিয়ে শৈশবে ঘুরে বেড়াতেন গ্রামীণ বন-বাদাড়ে। কৈশোর না পেরুতেই সুন্দরবন দর্শনের উদ্দেশ্যে পালিয়ে যান ঘর থেকে। পাঠ্যপুস্তক রেখে গল্প, উপন্যাসের বই নিয়ে মেতে থাকতেন। জিম করবেট পড়ে হয়ে ওঠেন তুখোড় পাখি শিকারী। শিকাররত অবস্থায় গুলিভ্রষ্ট হয়ে প্রিয় কুকুরটার চোখে গুলি লাগলে অনুশোচনায় কাতর হয়ে পড়েন। প্রতিজ্ঞা করেন আর শিকার নয়। এবার বন্যপ্রাণী নিয়ে কাজ করবেন, লিখে করবেন মানুষকে সচেতন। এভাবে তিনি হয়ে ওঠেন বন্যপ্রাণী সংরক্ষক।


এ ছাড়াও একাধারে তিনি কথাসাহিত্যিক, রম্য লেখক, প্রবন্ধকার, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবাদী লেখক। ‘হাজাম’ সম্প্রদায় নিয়ে উপন্যাস লিখে রিতীমত হৈ-চৈ ফেলে দেন। উপন্যাসটি দৈনিক জনকন্ঠ ও কলকাতার উদ্দালক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। উপন্যাসটি ‘ড.মঞ্জুশ্রী সাহিত্য-২০০৮’ পুরস্কারেও ভূষিত হয়। এ যাবৎ তার ১২টি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। ১৩তম উপন্যাস ‘ঘুণে খাওয়া বাঁশি’ প্রকাশিতব্য। সম্প্রতি উপন্যাসটি দৈনিক মানবকন্ঠ পত্রিকা, বোস্টন বাংলা নিউজ ও এনটিভি অনলাইন-এ ধারাবাহিক প্রকাশিত হয়েছে। লেখকের ১৩০টি রম্যরচনা এবং সাতশতাধিক প্রবন্ধ-নিবন্ধ-ফিচার বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। তন্মধ্যে পাখি নিয়ে প্রকাশিত ফিচারের সংখ্যা সাড়ে চারশো। এ বহুমুখী প্রতিভাবান মানুষটির নাম ‘আলম শাইন’। জন্মগ্রহন করেছেন বাংলাদেশের লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলায়। গল্প, উপন্যাস লেখার পাশাপাশি তিনি দু’হাতে লিখছেন পাখ-পাখালিদের নিয়েও। দেশের প্রথম শ্রেনীর দৈনিক পত্রিকাগুলোতে বন্যপ্রাণী এবং পরিবেশ সংরক্ষণ নিয়ে তার লেখা ছাপা হচ্ছে নিয়মিত। লিখছেন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বোস্টন বাংলা নিউজ-এ।
আলম শাইন বন্যপ্রাণীদের আপদ-বিপদে এগিয়ে আসেন। খবর পেলে ছুটে যান দুস্কৃতিকারীদের হাত থেকে পাখ-পাখালিদের উদ্ধার করতে। অসুস্থ পাখিদের খাঁচায় রেখে সুস্থ করে প্রকৃতিতে ডানা মেলার সুযোগ করে দেন। পাখ-পাখালির ছবি ক্যামেরাবন্দী করে পাঠকদের চিনিয়ে দেয়ারও চেষ্টা করেন। যার কারনে তিনি পেয়েছেন পাঠকদের প্রচুর ভালোবাসাও। উল্লেখ্য শেরপুরের একজন প্রকৃতিপ্রেমী আলম শাইনের নামানুসারে প্রকৃতি ও পরিবেশবাদী সংগঠনের নামকরন করেন ‘শাইন’। বগুড়া জেলার আরেক প্রকৃতিপ্রেমী Shine’s birds club (SBC) নামে একটি সংগঠনও গড়েছেন।


সিরাজুল আলম খানের ১৪ দফা ই নতুন রাজনৈতিক শক্তি হিসাবে আত্ম প্রকাশ করতে যাচেছ

বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৭

বাপ্‌স নিউজ : শনিবার,বিকাল ৩টায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গোল টেবিল বৈঠক অনুষিঠত হয়।এতে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন স্বরূপ হাসান শাহীন।আলোচনায় অংশ নেন পেশাজীবী পরিষদের ডাঃ ম,রশীদ আহমেদ,রাজনৈতিক চিন্তাবিদ শরীফ মোহাম্মদ খান।


বাংলাদেশ প্রদেশ বাস্তবায়ন পরিষদ এর মোশারফ হোসেন,এডভোকেট তাসমিন রানা,বাংলাদেশ আইনজীবী আন্দোলন এর এড,করীর কোরাইশী,শ্রমজীবী সামাজিক আন্দোলন এর মোঃ ইউসুফ তালুকদার,স্বাধীনতা পার্টি র আবদুল গফুর, সাংবাদিক মাহবুব রহীম,মুক্ত সাহিত্য আন্দোলন সুলতান মাহমুদ,ছাত্র পরিষদ এর গোলাম ফারুক সুমন,মুক্ত রাজনৈতিক আন্দোলন এর বিদেশনীতি বিষয়ক সম্পাদক এস এম মনিরুজ্জান, প্রচার সম্পাদক ফখরুদ্দীন আহমেদ ও সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মিল্টন হোসেন।


আলোচনা সভায় এ কথা স্পষ্ট হয় যে-" সিরাজুল আলম খানের ১৪ দফা বাস্তবায়ন ছাড়া প্রচলিত রাজনৈতিক ব্যবস্থার অপসারন সম্ভব নয়। এই নতুন শক্তি১৪ দফা ভিত্তিক গড়ে উঠতে হবে।

এর জন্য দরকার অদলীয় ভাবে শ্রমজীবী,কর্মজীবী ও পেশাজীবী,নারী,ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠী ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের রাষ্ট্র ক্ষমতা রাজনৈতিক দলের সাথে অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করতে হবে, আর এর জন্য আন্দোলন সংগ্রাম ছাড়া উপায় নেই।"


৩য় রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তোলার লক্ষে জেএসডির সমাবেশ ৮ শনিবার এপ্রিল

শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিউজ ঃ চল চল ঢাকা চল জেএসডি’র উদ্যোগে ৩য় রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তোলার লক্ষে ৮ এপ্রিল শনিবার বিকাল ৩টায় ঐতিহাসিক  সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ঢাকা বিশাল জন সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে । খবর বাপসনিউজ।

alt
উক্ত সমাবেশে সভাপতিত্ব করবেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি, স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সাবেক বিরোধীদলের নেতা ও সাবেক মন্ত্রী আ স ম আব্দুর রব। উক্ত জন সমাবেশে যোগদানের জন্য দেশ ও প্রবাসী বাঙ্গালীদের স¦াদর আহবান জানিয়েছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল কেন্দ্রিয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন ও যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি আনোয়ার হোসেন লিটন।


বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শুভেচ্ছা

শনিবার, ২৫ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং সর্বস্তরের জনগণকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। ২৪ মার্চ শুক্রবার ঢাকার মার্কিন দূতাবাস এ তথ্য জানিয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পৃথক পৃথক ভাবে এ শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।

Picture

রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো শুভেচ্ছা বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে আমি আপনাকে এবং বাংলাদেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানাই।  যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের পক্ষ থেকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাতে পেরে আমি সম্মানিতবোধ করছি। বিগত চার দশকে বাংলাদেশের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও শক্তিশালী এবং গভীর হয়েছে।  গণতন্ত্র, উন্নয়ন, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমসহ বৈশ্বিক এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তায় আমাদের দু’দেশ গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার।তিনি আরো বলেন, আমি দু’দেশের শান্তি এবং সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে আমাদের সম্পর্ককে সামনে এগিয়ে নেয়ার আশা প্রকাশ করছি।  এই বিশেষ দিবসে আমি আবারও আপনাকে এবং বাংলাদেশের সকলকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা।
 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পাঠানো অপর এক শুভেচ্ছা বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, আমেরিকার জনগণের পক্ষ থেকে আমি আপনাকে এবং বাংলাদেশের জনগণকে ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানাই।  আমি আপনার দেশের এই মহান ঐতিহ্য উদযাপনে আপনাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছি।
 ডেনাল্ড ট্রাম্প আরো বলেন, বিগত চার দশক ধরে বাংলাদেশের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক শক্তিশালী এবং গভীর হয়েছে।  গণতন্ত্র, উন্নয়ন, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমসহ বৈশ্বিক এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তায় আমাদের দু’দেশ গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার।  যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশের রয়েছে একই মূল্যবোধ, এবং রয়েছে নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ পৃথিবী নিশ্চিত করার অঙ্গীকার।  আমি আমাদের দু’দেশের শান্তি এবং সমৃদ্ধি অব্যাহত থাকার আশা প্রকাশ করি।  এই গুরুত্বপূর্ণ দিবসে আপনাদের সকলকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা।


গণতন্ত্র ও সুশাসনের অভাবে দেশে মৌলবাদের উত্থান ঘটছে : আ স ম রব

সোমবার, ১৩ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : সিলেট : দেশে আজ গণতন্ত্র নেই, গণতন্ত্র ও সু-শাসনের অভাবে সর্বত্র মৌলবাদের উত্থান ঘটছে। গণতন্ত্র না থাকায় সভা সমাবেশ করতে পুলিশের অনুমতির প্রয়োজন হয়, গণতন্ত্র থাকলে তা প্রয়োজন হতো না। ৩০ লক্ষ শহীদের রক্ত ও মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা কি এ স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র ছেয়েছিলাম। শনিবার (১১মার্চ) দুপুরে জে এস ডি সিলেট বিভাগীয় প্রতিনিধিদের যৌথ সভায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জে এস ডি)’র সভাপতি ও স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক আ স ম আবদুর রব এসব কথা বলেন।

--- 

তিনি আরও বলেন দেশে গণতন্ত্র ও সু-শাসন কোনটাই নেই। বিচার বিভাগকে স্বাধীন বলা হলেও পক্ষান্তরে স্বাধীন নয়। সরকার কোন না কোন কৌশলে বিচার বিভাগকে অন্যায় ভাবে নিয়ন্ত্রনে রাখার চেষ্টা করছে, প্রধান বিচারপতি নিজেই বলেছেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হলে সরকারকেই সবার আগে আইন মানতে হবে। দেশ স্বাধীন করেছি অথচ এখনো ১২শ’র অধিক বিৃটিশ আইন দিয়ে দেশ চলছে। যা পরিবর্তন করে সময় উপযোগী করা দরকার।
জনাব রব বলেন দেশের মানুষ ৫ জানুয়রীর মত নির্বাচন আর দেখতে চায় না। আমরা নির্বাচনকালীন সরকারের কথা প্রথম থেকে বলে আসছি। দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট ব্যবস্থা চালু করার মধ্যে দিয়েই নির্বাচনকালীন শক্তিশালী নিরপেক্ষ স্থায়ী সরকার গঠন করা সম্ভব। অন্যথায় এদেশে কোন নির্বাচনই নিরপেক্ষ ও গ্রহনযোগ্য হবে না।
সিলেট দরগাহ গেইটে শহীদ সুলেমান মিলনায়তনে বৃহত্তর সিলেট জেলা জে এস ডি’র আহবায়ক মনির উদ্দিন মাষ্টারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিনিধি সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জে এস ডি’র সহ সভাপতি মিসেস তানিয়া রব, দেওয়ান ইস্কান্দার রাজা চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান উদ্দিন চৌধুরী (সুইট)। বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় গণসংযোগ সম্পাদক সাহিদ সিরাজী, জেএসডি’র কেন্দ্রীয় নেতা সিলেট মহানগর আহবায়ক সেলিমুজ্জামান চৌধুরী, যুগ্ম আহবায়ক কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তাক আহমদ বাবু, চা শ্রমিক নেতা শ্যাম নারায়ন গৌড়, মৌলভীবাজার জেলা যুগ্ম আহবায়ক আইয়ুব আলী, মুফাজ্জল করিম চৌধুরী রাসেল, সিলেট শ্রমিকজোট আহবায়ক কাওছার আহমদ প্রমুখ।


প্রধানমন্ত্রীর এই ছবিটিও ইতিহাস হয়ে গেল

শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : প্রধানমন্ত্রীর এই ছবিটিও ইতিহাস হয়ে গেল। ভ্যানে করে যাত্রা করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৈতৃক বাড়িতেও গিয়েছেন তিনি। সেখানে গিয়ে নিজ গ্রামে  রিকশাভ‌্যানে চড়েন বঙ্গবন্ধু কন্যা। গ্রামের মেঠোপথের এ যাত্রায় তিনি যেনো ফিরে গেলেন সেই শৈশবে। শুক্রবার সকালে ঢাকায় ফেরার আগে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ভ্যানে করে বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর এ ছবি ইতিমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে।

alt

ছবিতে রয়েছে শেখ হাসিনার কোলে তার এক নাতনি। পেছনে আরেকজন। ভাগ্নে ও ভাগ্নের বউকে নিয়ে হাস্যোজ্জ্বল মুখে ঘুরছেন নিজ এলাকা। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর ভাগনে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ও তার স্ত্রী-কন্যারা।