Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

নিউ ইয়র্কে 'আজ আমিও মুসলিম' শীর্ষক বিক্ষোভ সমাবেশ

বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ সাত দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে নিউ ইয়র্কে 'টুডে আই অ্যাম মুসলিম টু' বা 'আজ আমিও মুসলিম' শীর্ষক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্থানীয় সময় রবিবার দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টাইম স্কয়ারে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশ বিভিন্ন ধর্ম ও বর্ণের ১০ সহস্রাধিক লোকের সমাগম ঘটে।

মুসলিমদের সমর্থনে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন নিউ ইয়র্ক সিটি মেয়র বিল ডি ব্লাসিও। তিনি তার বক্তৃতার শুরুতে বলেন, "টুডে আই অ্যাম মুসলিম টু। " মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ সাত দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতাও করেন তিনি। দুই বছর বয়সী মেয়ে শার্লটকে নিয়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে যোগ দেন বিল ও হিলারি ক্লিনটনের মেয়ে চেলসি ক্লিনটন। বিক্ষোভে যোগ দিয়ে টুইটারে হিজাব পরে মার্কিন নারীর ছবি পোস্ট করে চেলসিও বলেন, "টুডে আই অ্যাম মুসলিম টু। " এটা ছিল শার্লটের প্রথম র‌্যালি। বিক্ষোভ আয়োজনকারীদের মধ্যে ছিলেন হিপহপ তারকা রাসেল সিমন্স। এ ছাড়া সুসান সারান্দনের মতো তারকারাও তার সঙ্গে যোগ দেন।

Picture

সমাবেশে প্রচুর সংখ্যক বাংলাদেশিও অংশ নেন। বিক্ষোভে অংশ নিয়ে তারা বলেন, "আমরা সর্বদাই মুসলমান। তাই মুসলমানদের ওপর কোনও অন্যায় আত্যাচার  কখনও মেনে নেব না। মার্কিন মুসলিম নাগরিকদের ওপর সকল প্রকার হয়রানি ও নির্যাতন অচিরেই বন্ধ করতে হবে। "

বাংলাদেশি আমেরিকান ডেমোক্রেটিক লীগের সভাপতি ও ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটির সদস্য খোরশেদ খন্দকার বলেন, "ইসলাম শান্তি, ন্যায় ও সহনশীলতার ধর্ম। ইসলাম জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদকে কখনও সমর্থন করে না। কোনো ধর্মই সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস চরমপন্থাকে সমর্থন করে না। এ বিষয়টি জোরালোভাবে আন্তর্জাতিক অঙ্গণে তুলে ধরতে হবে। " প্রতিবাদ আর সংহতির মধ্য দিয়েই যুক্তরাষ্ট্রের চলমান অভিবাসন বিরোধিতা মোকাবিলা করতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সভাপতি নার্গিস আহমেদসহ প্রচুর সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি বিক্ষোভ সমাবেশ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে অবৈধ অভিবাসীদের ব্যাপক ধরপাকড় চলছে। সব অভিবাসী গ্রুপগুলোর মধ্যেই সন্দেহ ও ভয় কাজ করছে। ট্রাম্প বলছেন, আগামী সপ্তাহে অভিবাসন নিয়ে নতুন নির্বাহী আদেশ জারি করবেন তিনি।