Editors

Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

“বাংগালীর সন্তানরা বাংলায় কথা না বলাটা বড়ই লজ্জার বিষয়” -নিউ ইংল্যান্ড আওয়ামী লীগ

মঙ্গলবার, ০৭ মার্চ ২০১৭

সুহাস বড়ুয়া (বাপস নিউজ) বোষ্টনঃ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে নিউ ইংল্যান্ড আওয়ামী লীগ ২৬শে ফেব্রুয়ারী, কেমব্রিজের ৩৬৪ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে ।

Picture

নিউইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গনির সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুহাস বড়ুয়া উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বাঙালীর রক্ত স্নাত ভাষা আন্দোলন আজ বিশ্বের সকল দেশের সকল জাতীর মাতৃভাষাকে মর্যাদাসহ রক্ষা করার অধিকার নিশ্চিত করেছে।

alt
তবে বাংলাদেশের মানুষ যখন বাংলা ভাষার সাথে বিদেশী ভাষা বা শব্দ ব্যবহার করে কিংবা বাংগালীরা নিজেরা যখন বাংলা না বলে বিদেশী ভাষায় কথা বলে তখন বিষয়টি বড়ই বেমানান বা এক ধরনের অজ্ঞাতই মনে হয়। বাংগালীর সন্তানরা বাংলায় কথা না বলাটা বড়ই লজ্জার বিষয়। প্রবাস প্রজন্মকে বিদেশী ভাষার সাথে বাংলা ভাষা শেখানোটা গৌরবের।

alt
সভায় বিশেষ বক্তা হিসাবে আলোচনায় অংশ নেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ডঃ বামন দাশ বসু, ডঃ বিনয় পাল, মুক্তিযোদ্ধা মোশতাক তালুকদার, ডঃ আশিষ দেব। তাঁরা বলেন, আগের দিনের শিক্ষকদের মত আজকাল শিক্ষকদের মুখ থেকে সাহিত্যের ভাষা বের হয় না, বোধ হয় বাংলা বা সাহিত্যের শিক্ষকরা সাহিত্যের ভাষা আয়ত্ব করতে চায় না, তাই ছাত্রদের শিখাতে ও পারছে না।

alt
বাংলাদেশের বেতার যন্ত্র এবং টেলিভিশনে বক্তাদের কথা বলা দেখে দুঃখ হয়, কেননা অধিকাংশ বক্তাই গুছিয়ে বাংলা বলতে পারেনা। তাঁরা বলেন, বাংগালীদের উচিত অন্তত ফাল্গুন বা ফেব্রুয়ারী মাসটাতে হলেও ভাষার উন্নতির জন্য, নিজের কথা বার্তা বা লেখা লেখিতে ভাষা সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কোন ধরনের কর্মসূচি গ্রহণ করা।

alt

আমাদের সন্তানরা বিদেশী ভাষা শিখুক কিন্তু নিজেদের মাতৃ ভাষাকে বাদ দিয়ে নয়।বাংগালীর সন্তান বাংলা ভাষা না জানাটা বাংগালীর জন্যই লজ্জ্বা। তাই এ বিষয়ে প্রবাসী মাতা-পিতা সকলকে সচেতন হওয়ার জন্য বক্তারা আহবান জানান।

alt
অনুষ্ঠানের শুরুতেই ভাষা শহীদসহ বাংলাদেশের দেশ প্রেমিক এবং প্রয়াত বরণ্য নেতৃবৃন্দের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান জানিয়ে নীরবতা পালন করা হয়। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, সহ -সভাপতি মিজানুর রহমান সাবু, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আনোয়ারুল কবীর রুমি, পশ্চিম বঙ্গের অতিথি বক্তা ভানু দে, বাংলাদেশ এসোশিয়েশন অফ নিউ ইংল্যান্ড এর সভানেত্রী তামান্না করিম, সাধারণ সম্পাদক নোমান চৌধুরী, সংগীত শিল্পী আয়শা আক্তার রুমি, যুব লীগের সভাপতি সিরাজুম মুনির ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাত হোসেন।

alt
বক্তারা বলেন ভাষা আন্দোলন ছিল একটি অসাম্প্রদায়িক আন্দোলন। পাকিস্তানের হানাদার গোষ্ঠী শোষণ বঞ্চনা আর ধর্মের নামে ধর্মান্ধ রাজনীতির মাধ্যমে বাঙালীর বাক স্বাধীনতা থেকে শুরু করে জাতীয় পরিচয় বিলুপ্ত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল । স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গন্ধু শেখ মুজিবর রহমান আমাদেরকে সেই পরাধীনতার শিকল ভাঙার জন্য ৭১ এ মুক্তিযুদ্ধের ডাক দিয়েছিলেন।

alt

বাংগালী জাতী রক্তের বিনিময়ে অর্জন করেছে বাংলা ভাষার অধিকার এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। অপর দিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক সহযোগিতা এবং সময় উচিত পদক্ষেপের কারনে ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কো ২১শে ফেব্রুয়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে । যা বাংগালীর শোক দিবসকে গর্বের দিনে রূপান্তর করছে।


Add comment


Security code
Refresh