Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

নিউইয়র্কে ঢালিউড ফ্লিম এন্ড মিউজিক এওয়ার্ড অনুষ্ঠিত

রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৭

Picture

শো টাইম মিউজিকের প্রেসিডেন্ট আলমগীর খান আলম বলতে গেলে একই প্রতি বছর এই মহাযজ্ঞের আয়োজন করেন থাকেন। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র অভিনেতা, অভিনেত্রী, নাটকের অভিনেতা, অভিনেত্রী, মোডেল এবং সঙ্গীত শিল্পীদের অংশগ্রহণে এটাই সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান।

alt

প্রবাসে মাঝে মধ্যে দেখা যায় অনেক খুচরা অনুষ্ঠান করতে কিন্তু আলমগীর খান আলম এ সব খুচরা অনুষ্ঠানের মধ্যে নেই। যে অনুষ্ঠানই করেন প্রফেসনালী করার চেষ্টা করেন। যে কারণে টানা ১৬ বছর ঢালিউড ফ্লিম এন্ড মিউজিক এওয়ার্ডের আয়োজন করছেন। অনেক অসাধ্যকে সাধন করেছেন। যেখানে বাংলাদেশে কোন প্রতিষ্ঠান বা আয়োজক পারেনি বাংলাদেশের সঙ্গীত অঙ্গণের দুই দিকপাল সাবিনা ইয়াসমীন ও রুনা লায়লাকে একমঞ্চে তুলতে। সেই অসাধ্য কাজটি আলমগীর খান আলম এই প্রবাসে বসে করেছেন। তার পক্ষেই এটা সম্ভব। সম্ভব টানা ঢালিউড করাও। কারণ এই নিয়েই তিনি সারা বছর ব্যস্ত। সিজনাল কোন কিছুতে তিনি নেই।

alt
 অন্যান্য বছরের মত এবারো ঢালিউড ফ্লিম এন্ড মিউজিক এওয়ার্ডের আয়োজন করেছিলেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারের আয়োজনটি ছিলো তার জন্য চ্যালেঞ্জের। কারণ আমেরিকায় নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা গ্রহণের পর ইমিগ্রেশন পলিসিতে অনেক পরিবর্তন ঘটেছে। যার প্রভাব পড়েছে এবারের ঢালিউড এওয়ার্ড অনুষ্ঠানে। কঠোর ইমিগ্রেশন পলিসির কারণে এবার নায়ক সাকিব খানসহ বেশ কয়েকজন শিল্পী আসতে পারেননি। এর জন্য অবশ্য আলমগীর খান আলম দু:খ প্রকাশ করে বলেছেন, এবার যারা আসতে পারেননি, তাদের মধ্যে কেউ কেউ বিলম্বে ভিসা পেয়েছেন। তবে আমি কথা দিচ্ছি আগামীতে তাদের এনে আমি আরেকটি অনুষ্ঠান করবো। এ ছাড়া তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন দর্শকদের এবং যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের।

alt

এবারের ঢালিউডের অনুষ্ঠানে একটু সমন্বয়হীনতা লক্ষ্য করা যায়। অনুষ্ঠান শুরু করতেই দেরি হয়ে যায়, যে কারণে তাড়াহুড়া করে শেষ করতে হয়েছে। যে কারণে বর্তমান সময়ে ক্রেজ শিল্পী তাহসীন মাত্র দুটো সঙ্গীত পরিবেশন করতে পেরেছেন। তবে তাহসীন দর্শকদের তৃষা মিটিয়েছেন তাদের মধ্যে গিয়ে গান করে। অনেকেই শিল্পীর সাথে সেলফি তুলেছেন আবার কেউবা শিল্পীকে ছুঁয়ে মনের বাসনা পূর্ণ করেছেন। তবে শুরুতে হিন্দি গান বিতর্কের সুযোগ করে দিয়েছে।

alt
এবারের ঢালিউডের পুরো অনুষ্ঠানটি ছিলো চমৎকার। আলোকশ্মির আলো- আধাঁরীতে অনুষ্ঠানটি গত ৯ এপ্রিল জ্যামাইকার ইয়র্ক কলেজ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ থেকে আগত মডেল ফারিয়া এবং মিরাক্যালখ্যাত আবু হেনা রনির কৌতুকী ও বাহারি উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং বাংলাদেশসোসাইটি র সাবেক সভাপতি এম আজিজ, বিশিষ্ট এটর্নী প্যারি ডি সিলভার, তার স্ত্রী এবং সিটি কাউন্সম্যান প্রার্থী মেরি সিলভার, বেলাজিনোর ম্যানেজার রায়হান মাহমুদ ও মাহি।

alt
এম আজিজ আলমগীর খান আলমকে প্রবাসী বাংলাদেশীদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান গত ১৬ বছর ধরে এই ধরনেরএকটি অনুষ্ঠান করার জন্য। তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে এতগুলো শিল্পী এনে এই ধরনের অনুষ্ঠান করা সত্যিই কষ্টের এবং ব্যয় বহুল। এই জন্য তিনি আলমকে সহযোগিতা করার জন্য সবার প্রতি আহবান জানান। তিনি সকল প্রবাসীকে বাংলা নব বর্ষের আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে ঢাকার শিল্পীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ভিন দেশে বাংলা সংস্কৃতির জয়গান তুলে ধরার জন্য।

alt
এটর্নী প্যারি ডি সিলভা আমি বহু দিন ধরে বাংলাদেশী কম্যুনিটির সাথে কাজ করছি, এখনো কাজ করছি। তিনি বলেন, আমার স্ত্রী আগামী সিটি কাউন্সিল পদে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন, তিনি আপনাদের সহযোগিতা চাচ্ছেন।ম্যারি ডি সিলভার বলেন, বাংলাদেশী কম্যুনিটি আমার পাশে রয়েছে। ম্যাহটানের সিক্স স্ট্রিটে ইন্ডিয়ার নামে যে সব রেস্টুরেন্ট রয়েছে সেগুলোর মালিক আসলে বাংলাদেশীরা। আমি বাংলাদেশীদের সাফল্যে গর্বিত। আজকে আমার জন্মদিন। এই জন্মদিনে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি। কারণ আমি জানি আপনাদের কারণেই আমি জয়লাভ কবো। তিনি সবাইকে ১২ সেপ্টেম্বর ভোট দেয়ার আহবান জানান।

alt
রায়হান মাহমুদ বলেন, আমরা ঢালিউডসহ সব ধরনের ভাল অনুষ্ঠানের সাথে আছি এবং থাকবো।হিন্দ গান দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেছিলেন বীনা বর্মণ। দুটো গান করেছেন হিন্দতে। পরের শিল্পীই ছিলেন গুরু প্রয়াত আজম খানের শিষ্য জাকারিয়া মহিউদ্দিন। তিনি আজম খানের চমৎকার কয়েকটি গান পরিবেশন করে দর্শকদের মনে করিয়ে দেন আমলে এটি ঢালিউড এওয়ার্ড শো, বাংলা সংস্কৃতি বিকাশ ও লালনের অনুষ্ঠান। স্থানীয় দুই শিল্পীর পর পরই মঞ্চে আসেন শিল্পী সেলিম চৌধুরী, কনক চাপা, বলিউডের শিল্পী রায়ান। শিল্পী কনক চাপা এবং সেলিম চৌধুরী তাদের জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেন। অনুরোধ থাকা স্বত্ত্বেও সময়ের কাছে ছিলেন তারা বন্দী।

alt
বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের একাল আর সেকাল নিয়ে নৃত্য পরিবেশন করেন টিভি অভিনেতা সজল ও অভিনেত্রী মোনালিসা। সজল বলেন, বাংলা সিনেটা আমাদের গর্ব। সেই গর্ব আমরা লালন ও ধারণ করতে চাই। মাজেদ ডিজায়ারের সাথে ফ্যাশন শোতে অংশ নেন বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় নায়ক ইমন এবং তার সাথে নৃত্যে ছিলেন মোডেল সুজানা জাফর। অনন্য সুন্দর নৃত্য পরিবেশন করেছেন তারা। হুমায়ারা হিমুর নৃত্য দর্শকদের আপ্লুত করেছে। আবু হেনা রনি আসলে সময়ই পাননি কৌতুক করার। তবে বলিউড শিল্পী রায়ান নেচে গেচে মাতিয়ে দিলেন কিছুক্ষণ। অনেকেই তার সাথে নেচেছেন। শেষ পর্বে তাহসিন দর্শকদের সুযোগ করে দিয়েছেন সেফলি তুলতে।

alt
এবারের ঢালিউডে সেরা চলচ্চিত্র অভি নেতার পুরস্কার পেয়েছেন ইমন, সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন মাহি। সেরা গায়কের পুরস্কার পেয়েছেন তাহসিন, সেরা গায়িকার পুরস্কার পেয়েছেন ন্যান্সি। সেরা টিভি অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছেন সজল, সেরা টিভি অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন শখ।

alt

সেরা প্লেব্যাক শিল্পীর পুরস্কার পেয়েছেন কনক চাপা, সেরা ফোক সঙ্গীত শিল্পীর পুরস্কার পেয়েছেন সেলিম চৌধুরী, ধারাবাহিক নাটকের জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেয়েছেন হূমায়ারা হিমু, সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার জিতে নিয়েছে আয়নাবাজি, সেরা গীতিবার রবিউল ইসলাম, সেরা পরিচালকের পুরস্কার জিতে নেন হিমু আকরাম এবং সেরা সাংবাদিকের পুরস্কার জিতে নেন বিনোদন বিচিত্রার সম্পাদক দেওয়ান হাবিবুর রহমান, কৌতুক অভিনেতার পুরস্কার জিতে নেন আবু হেনা রনি, সেরা মডেল হয়েছেন সুজানা, ফারিয়া ও মোনালিসা, প্রবাসের সেরা শিল্পীর এওয়ার্ড জিতে নেন (পুরুষ) জাকারিয়া মহিউদ্দিন, (মহিলা) কৃষ্ণাতিথি ও রোকসানা মির্জা, রাইজিং স্টারের এওয়ার্ড পান রানু নেওয়াজ।

alt
কৃষ্ণাতিথি ও রোখসানা মির্জার হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. এনামুল হক, জাকারিয়া মহিউদ্দিনের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন বাংলা ভিশনের প্রোগ্রাম ডিরেক্টর শামীম সাহেদ, হিমু আকরামের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন মিল্টন ভুইয়া, ইমনের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন সালাম ভুইয়া, রানু নেওয়াজের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন রায়হান মাহমুদ, কনক চাপার হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন এম আজিজ, দেওয়ান হাবিবুর রহমানের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন জাকারিয়া চৌধুরী, ফারিয়ার হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন মিয়া মোহাম্মদ দুলাল, রনি ও মোনালিসার হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন দেওয়ান হাবিবুর রহমান, সজল ও তাহসিনের হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন আলমগীর খান আলম, সেলিম চৌধুরীকে এওয়ার্ড দেন আসাদুল ইসলাম আসাদ, হিমুর হাতে এওয়ার্ড তুলে দেন ফরিদ আলম।

alt
এবারের ঢালিউড এওয়ার্ডের টাইটেল স্পন্সর ছিলো বেলাজিনো, পাওয়াড বাই সায়মন ইন্ডিয়ান প্যালেস এবং গ্রান্ড স্পন্সর ছিলো পিপল এন টেক। ঢালিউড এওয়ার্ড উপলক্ষে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করা হয়। দেরি করে শুরু করার কারণে তাড়াহুড়া করেই অনুষ্ঠানের সমাপ্তি টানা হয়। সেই সাথে সবাইকে জানিয়ে দেয়া হয় আগামীর বর্ণিল আয়োজন ও শোটাইমের চমকের।


Add comment


Security code
Refresh