Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

জাতিসংঘে প্রস্তাব পাস, দুই বছরের মধ্যে ফিরতে হবে উত্তর কোরিয়ার প্রবাসীদের

রবিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : একের পর এক দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করতে থাকা উত্তর কোরিয়ার ওপর দশমবারের মতো অবরোধ আরোপ করেছে জাতিসংঘ। নিরাপত্তা পরিষদে আনা এ সংক্রান্ত মার্কিন প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে ১৫-০ ভোটে পাশ হয়েছে। জাতিসংঘ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের অবরোধের মধ্যে আছে উত্তর কোরিয়া।

নতুন অবরোধের ফলে উত্তর কোরিয়ার পেট্রোল আমদানি ৯০ শতাংশ পর্যন্ত কমে যাবে। প্রবাসে কর্মরত সব প্রবাসীকে আগামী ২৪ মাসের মধ্যে দেশে ফিরতে হওয়ায় দেশটির অন্যতম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী এই খাতে বিপর্যয় নামবে। যন্ত্রাংশ আর ইলেকট্রনিক সামগ্রীর মতো পণ্য রফতানিও বন্ধ হয়ে যাবে।

কূটনৈতিকেরা আশা করছেন, ব্যাপক এই অবরোধের ফলে উত্তর কোরিয়াকে তাদের পরমাণু আর অস্ত্র কর্মসূচীর নীতি পরিবর্তনে বাধ্য হবে। এমনকি নতুন করে এসব কর্মসূচী চালিয়ে যাওয়ার ক্ষমতাও কমে যাবে।

২০০৮ সাল থেকে ওয়াশিংটনের নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে পিয়ংইয়ং। দেশটির পরমাণু কর্মসূচীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও কোম্পানির সম্পত্তি জব্দ আর পণ্য ও সেবা রফতানি বন্ধ রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র।

জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন দূত নিক্কি হ্যালি নতুন অবরোধ আরোপের পর বলেছেন, ‘এটা পিয়ংইয়ংয়ের জন্য দ্ব্যর্থহীনবার্তা যে আরও বেপরোয়া আচরণ আরও শাস্তি আর বিচ্ছিন্নতা ডেকে আনবে।’ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব পাশ হওয়ার পর এক টুইটে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও। বলেছেন, ‘পৃথিবী শান্তি চায়, মৃত্যু নয়।’

Picture

উত্তর কোরিয়ার অন্যতম ব্যবসায়িক অংশীদার চীন আর রাশিয়াও জাতিসংঘে এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের হিসাবে উত্তর কোরিয়া ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর চীন থেকে সাড়ে চার মিলিয়ন ব্যারেল প্রেটোল আমদানি করে থাকে। নতুন অবরোধের ফলে উত্তর কোরিয়ার পেট্রোল সরবরাহের সিদ্ধান্ত হয়েছে বছরে মাত্র পাঁচ লাখ ব্যারেল। ফলে পিয়ংইয়ং প্রায় ৯০ শতাংশ পর্যন্ত তেল কম পাবে।

জাতিসংঘে চীনা প্রতিনিধি উই হাইতাও বলেছেন, ‘এই ভোটাভুটি উত্তর কোরিয়ার অস্ত্র কর্মসূচীর বিষয়ে আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায়ের দ্ব্যর্থহীন অবস্থান প্রতিফলিত করেছে।’ দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোরিয়া উপদ্বীপের পরিস্থিতিকে ‘জটিল আর সংবেদনশীল’ বলে বর্ননা করে সব পক্ষকে ধৈর্য্য ধারণ করে উত্তেজনা নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

চলতি বছরজুড়ে বিশ্বশক্তিদের আহ্বান উপেক্ষা করে উত্তর কোরিয়া তাদের দূর পাল্লার অস্ত্র আর পরমাণূ কর্মসূচী চালিয়ে গেছে। ট্রাম্প প্রশাসন বলেছে এই ইস্যুতে একটি শান্তিপূর্ণ সমাধান খুঁজতে গিয়ে অবরোধের খসড়া করেছেন তারা।

মাত্র গত মাসেই উত্তর কোরিয়ার ওপর অবরোধ আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বলা হয়েছিলো উত্তর কোরিয়ার পরমাণু আর ব্যালেস্টিক মিসাইল কর্মসূচীতে অর্থায়ন সীমিত করতেই এই খসড়া তৈরি হয়েছে। দেশটির সমুদ্র পরিবহণ ব্যবস্থা আর পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে ব্যবসা করা চীনা কোম্পানিগুলোকে লক্ষ্য করেই তৈরি হয় সেই খসড়া।

গত ৩ সেপ্টেম্বর নতুন করে পরমাণু অস্ত্রের পরীক্ষা চালানোর পর জাতিসংঘও এই অবরোধ অনুমোদন করলো।

এসব পদক্ষেপের ফলে তেল আমদানি আর কাপড় রফতানি বন্ধ হয়ে যাবে উত্তর কোরিয়ার। একদিকে তেলের অভাব আর অন্যদিকে অস্ত্র কর্মসূচীতে বিনিয়োগের জন্য দেশটির আয় কমে যাবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
আগের নিষেধাজ্ঞাগুলোয় যা ঘটেছিলো

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে উত্তর কোরিয়ার ওপর অবরোধ আরোপ করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তাতে সফলতা এসেছে খুব কমই। এমনকি দেশটি বলছে, ‘নতুন করে আরোপ করা অবরোধ পরমাণু পরীক্ষার গতি বাড়িয়ে দেবে।’

৩০ নভেম্বর ২০১৬ জাতিসংঘ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে চীনের মুল্যবান কয়লা ব্যবসাকে লক্ষ্য অবরোধ আরোপ করে। সেসময় দেশটি থেকে চীনের কয়লা আমদানি ৬০ শতাংশ পর্যন্ত কমে গিয়েছিল। কপার, নিকেল, রুপা, জিঙ্ক রফতানির পরিমাণও নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়। এর পাঁচ মাসের মাথায় ২০১৭ সালের ১৪ মে উত্তর কোরিয়া তাদের ভাষায় ‘আধুনিকায়ত ব্যালেস্টিক রকেট’র পরীক্ষা চালায়। যা পরমাণু অস্ত্র বহনেও সক্ষম।   

২ জুন ২০১৭ জাতিসংঘ দেশটির চার কোম্পানি ও দেশটির গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানসহ ১৪ কর্মকর্তার ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ও সম্পত্তি জব্দের অবরোধ আরোপ করে। পরের মাসের চার তারিখেই উত্তর কোরিয়া দাবি করে প্রথমবারের মতো আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালেস্টিক মিসাইলের(আইসিবিএম) সফল পরীক্ষা চালিয়েছে তারা।

৬আগস্ট ২০১৭ উত্তর কোরিয়ার কয়লা, আকরিকসহ অন্যান্য কাঁচা পণ্য রফতানি নিষিদ্ধ করে দেয়। ধারণা করা হয় তাতে উত্তর কোরিয়ার রফতারি আয়ের এক তৃতীয়াংশ বা এক বিলিয়ন ডলার আয় কমে গেছে। আর পরের মাসের তিন তারিখে দেশটি দাবি করে দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রে বহনযোগ্য ছোট করে বানানো হাইড্রোজেন বোমার সফল পরীক্ষা চালিয়েছে তারা।