Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

২০ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রের সকল হাই স্কুলে ক্লাস বর্জন করার কর্মসূচি ঘোষণা

মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

১৭ ফেব্রুয়ারি শনিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে একটি পার্টি সেন্টারে ‘যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম’র উদ্যোগে এ আয়োজনের মধ্যমণি ছিলেন আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন টিমের প্রধান সমন্বয়কারি মুক্তিযোদ্ধা এম এ হান্নান খান, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক ও স্যাটেলাইট টিভি ‘নিউজ টোয়েন্টিফোর’র সিইও নঈম নিজাম এবং পশ্চিমবঙ্গের লেখক ও মানবাধিকার কর্মী ড. পার্থ ব্যানার্জি।
‘কলকাতার লেখকদের বই এখন বেশী বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশে। কলকাতায় নতুন প্রজন্মে বাংলা ভাষা আর সংস্কৃতির প্রতি দরদ নেই। এখন সে স্থানে অধিষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা। বাংলা ভাষার জন্যে রক্তদানের পথ বেয়েই বাঙালিরা স্বাধীনতা লাভ করে বাংলা সংস্কৃতিকে বিশেষ এক আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন’-এমন অভিমত পোষণ করেন সাংবাদিক নঈম নিজাম। এ সময় ড. পার্থ ব্যানার্জি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের নর্থ কলকাতায় ১৮০ বছরের পুরনো ‘স্কটিশ চার্চ কলেজিয়েট স্কুল’-এ ভর্তির সুযোগ পাওয়াটা একসময় সকলের জন্যেই প্রিস্টিজিয়াস ছিল। আমিও সেই স্কুলে অধ্যয়ন করেছি। এখন সেই স্কুলের সামনে ‘ভর্তি চলিতেছে’ সাইনবোর্ড দেখা যায়।’ পার্থ ব্যানার্জি উল্লেখ করেন, ‘হিন্দি আর ইংরেজীর আগ্রাসনে কলকাতা থেকে বাংলা হারিয়ে যাবার উপক্রম হয়েছে। এর চেয়ে দু:খজনক আর ভয়ংকর কী হতে পারে। তবে পশ্চিমবঙ্গের মফস্বল এলাকায় বাংলা ভাষা টিকিয়ে রাখার মানুষের অভাব নেই’। পার্থ ব্যানার্জি বিশেষভাবে উল্লেখ করেন, ‘হিন্দি না শিখলে চাকরি পাওয়া যায় না। ইন্টারনেটের যুগে উচ্চ বেতনের চাকরির জন্যে ইংরেজীর বিকল্প নেই বলে মনে করছেন সকলে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, সরকারী স্কুলে ভর্তি হওয়াকে এখন প্রায় সকলেই (যাদের অর্থ-বিত্ত রয়েছে) অপমানজনক মনে করছেন। তারা সন্তানকে প্রাইভেট স্কুলে ইংলিশ মিডিয়ায় পড়াতে ব্যস্ত। এমন প্রবণতা রোধ করতে হবে সম্মিলিতভাবে।’
এ সময় একাত্তরের ঘাতকদের বিচার প্রসঙ্গে বিস্তারিত আলোকপাত করেন হান্নান খান। বলেন, ‘এখনো ৭০০ মামলা তদন্তাধীন রয়েছে। এগুলো যদি একটি আদালতের মাধ্যমে বিচার চলতে থাকে, তাহলে ৬০ বছরেও শেষ হবে না। এজন্যে আমি সরকার সমীপে প্রস্তাব পেশ করেছি আদালতের সংখ্যা বাড়িয়ে বিভাগীয় শহরে নিয়ে যাবার জন্যে।’
যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অব্যাহত রাখতেই আওয়ামী লীগের সরকার দরকার বারবার। উন্নয়নের মহাপরিকল্পনা এগিয়ে নিতেও দরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার। তাই সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে বাংলাদেশ এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে-বলেন হান্নান খান।
সন্দ্বীপের সন্তান ও যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ্ব কাদের মিয়া বলেন, ‘সামনের নির্বাচনে আবারো আওয়ামী লীগকে জয়ী করতে দরকার তৃণমূলে ঐক্য। এলাকার এমপির সাথে দলীয় নেতাদের সম্পর্কে উন্নয়ন ঘটাতে হবে। দলীয় নেতা-কর্মীদের সাইজ করার মানসিকতা পরিহার করা জরুরী।’
এ আলোচনায় আরো অংশ নেন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রাশেদ আহমেদ, সেক্রেটারি রেজাউল বারি, যুগ্ম সম্পাদক ও নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ-সভাপতি আলহাজ্ব কাদের মিয়া, আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার, কোষাধ্যক্ষ আবুল কাশেম, নির্বাহী সদস্য কানু দত্ত, সেক্যুলার ফোরামের শুভ রায়, সন্দ্বীপ পৌরসভা উন্নয়ন কমিটির আলহাজ্ব জাফরউল্লাহ প্রমুখ।

Picture
আলোচনার সময় বাইরে ঝরছিল তুষারপাত। তুষারে ঢাকা প্রকৃতির নয়নাভিরাম পরিবেশ আরো প্রস্ফুটিত হয় বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির সাথে যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতির তুলনামূলক আলোচনাকালে। স্কুলে বন্দুক হামলা চালিয়ে ১৭ ছাত্র-ছাত্রী হত্যার পরও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ‘বন্দুক নিয়ন্ত্রণ আইন’ প্রণয়নে কোন পদক্ষেপই নিচ্ছেন না। এ অবস্থায় ক্ষুব্ধ ছাত্র-ছাত্রীরা শুক্রবার ফ্লোরিডার বিভিন্ন স্কুলে ক্লাস বর্জন করেছেন। শনিবার তারা র‌্যালি করেছেন ফোর্ট লডারডেলে।
১৪ মার্চ তারা ১৭ মিনিট ক্লাস বর্জন করে নিহত ১৭ জনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন। এরপর ২০ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রের সকল হাই স্কুলে ক্লাস বর্জন করার কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। ফেসবুক, টুইটারে চলছে প্রচারণা। ‘অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে অবিলম্বে বিল পাশের দাবিতে আরো কর্মসূচি আসছে’-উল্লেখ করেছেন আয়োজকরা।
এদিকে গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার হাই স্কুলে গুলি চালিয়ে ১৭ জনকে হত্যার ঘটনায় আটক সন্দেহভাজনের স্বীকারোক্তি পাওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ।
১৯ বছর বয়সী নিকোলাস ক্রুজ বুধবার স্কুল ছুটির কিছু সময় আগে মার্জরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ১৪ শিক্ষার্থী ও আরও তিনজনকে হত্যা করে। আহত হয়েছে ১৪ জন।
ঘটনার কিছু সময় পরই ক্রুজ আটক হন; বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করা হলে সেখানেই পুলিশ তার স্বীকারোক্তির কথা জানায়। নিশ্চিত মৃত্যুদপ্ত এড়াতেই ক্রুজ দোষ স্বীকারের কথা ভাবছে বলে শনিবার প্রাপ্ত সর্বশেষ সংবাদে জানা গেছে। কারণ, ক্রুজের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।
পার্কল্যান্ডের মার্জরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলে সংঘটিত এ হত্যাকান্ডকে ২০১২-র পর যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলগুলোতে হওয়া সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী বলা হচ্ছে।
“নিজেকেই বন্দুকধারী হিসেবে পরিচয় দিয়েছে ক্রুজ, যে একটি এ আর ফিফটিন বন্দুক নিয়ে স্কুল ক্যাম্পাসে ঢুকে হলওয়েতে এবং মাঠে যাকে পেয়েছে তার দিকেই গুলি ছুড়েছে,” আদালতের নথিতে এমনটাই লেখা ।
বন্দুক ছাড়াও ক্রুজ ব্যাকপ্যাক ও কালো ডাফেল ব্যাগে অতিরিক্ত গুলি নিয়ে গিয়েছিল। গুলির পর পালিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ছুটে বেরোনো শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্রুজ স্কুল ভবন ছাড়ে বলেও ওই নথিতে বলা হয়েছে। কাছাকাছি ওয়ালমার্ট ও ম্যাকডোনাল্ডসের দোকানে ঢুকলেও কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।
এফবিআই জানায়, গত বছর একটি ইউটিউব মন্তব্যের সূত্র ধরে বেন বেনিংটন নামে এক ব্যবহারকারী এফবিআইকে ১৯ বছর বয়সী ক্রুজ সম্পর্কে সতর্ক করেছিল।
স্কুলের বহিষ্কৃত ছাত্র ক্রুজের ব্যাপারে শিক্ষকদেরও ইমেইল পাঠিয়ে সতর্ক করেছিল স্কুল কর্তৃপক্ষ।
এদিকে, স্কুলে গুলির ঘটনায় নিহতদের পরিচয়ও প্রকাশ করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে স্কুলের সহকারী ফুটবল কোচ অ্যারন ফিস, অ্যাথলেটিক পরিচালক ক্রিস হিক্সন ও শিক্ষক স্কট বিগেলও আছেন। নিহত ১৪ শিক্ষার্থীর বয়স ১৪ থেকে ১৮-র মধ্যে।
বৃহস্পতিবার মোমবাতি জ্বালিয়ে নিহতদের স্মরণ করেছে হাজারো ফ্লোরিডাবাসী। যুক্তরাষ্ট্রের ভেতর অস্ত্র আইন আরও কঠোর করারও দাবি জানিয়েছে তারা।
ঘটনার পর থেকে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান সিনেটর-কংগ্রেসম্যানদের মধ্যে এ নিয়ে তীব্র বাদানুবাদ চলছে।
অস্ত্র বিক্রি ও পরিবহনে এখনই কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ না করা হলে গুলি ও হত্যার ঘটনা বাড়তেই থাকবে বলে ভাষ্য ডেমক্র্যাটদের। রিপাবলিকানদের পাল্টা অভিযোগ, ফ্লোরিডার হত্যাকান্ডকে রাজনৈতিকভাবে কাজে লাগাতে চাইছে ডেমোক্রেট শিবির।