Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

প্রবাসীদের খবর

জেদ্দায় বর্ষবরণ উৎসব উদযাপন

বুধবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৭

মোহাম্মদ ফিরোজ; বাপ্ নিউজ : সৌদিআরব প্রতিনিধি : পহেলা বৈশাখ আসে নতুন আশার আলো নিয়ে। বাঙালির আবেগ দোল খায় নববর্ষ বৈশাখের আগমনে। কেবল দেশে নয়, জীবন জীবিকার তাগিদে প্রবাসে যেখানে বাঙালির অবস্থান, সেখানেও বেজে ওঠে আবহমান বাংলার সুর- ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’।সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা এবং নিজস্ব সংস্কৃতিচর্চাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে সৌদিআরব জেদ্দায় প্রবাসী বাঙালিরা বর্ষবরণ পালন করেন। 

জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় পহেলা বৈশাখ বা বাংলা নববর্ষ ১৪২৪। এ সময় বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় জেদ্দাস্থ বাঙালিরা অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন। বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করলেও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে আনন্দের কোনো কমতি ছিল না। 

Picture

 
প্রবাসের নববর্ষের এই অনুষ্ঠান ক্ষণিকের জন্য হলেও সবাইকে নিয়ে যায় শৈশব-কৈশোরের অতীত দিনগুলোতে। 
 
শুক্রবার সকাল বেলা মরুর আকাশের মন কিছুটা মলিন থাকলেও দুপুরের পর থেকে প্রকৃতিও সেজেছে নবরূপে। এ ছাড়া নারীদের পরনে সুতির শাড়ি, হাতে কাচের চুড়ি আর কবরীতে তাজা ফুলের মালা। পুরুষদের রঙীন পাঞ্জাবি সাথে গামছা। ধর্ম-বর্ণ, শ্রেণী-পেশা, বয়স নির্বিশেষে সব বাঙলাদেশীরা শামিল হয়েছেন বৈশাখী উৎসবে। ভেদাভেদ ভুলে উৎসবে রঙে ১৪২৪ বঙ্গাব্দকে বরণ করে নিয়েছেন সৌদিআরবে বসবাস করা বাংলাদেশীরা।
 
alt

এদিকে মঙ্গল শোভাযাত্রা, পান্তা- ভর্তা, ঢাক-ঢোল, নাচ-গান, ব্যানার, ফেস্টুন রং আর উল্লাসের সব আয়োজনই ছিল উৎসবে।এ ছাড়াও উৎসবে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল মাঠ প্রাঙ্গনে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দ্বিতীয়ত সচিব শ্রম কাজী সালাউদ্দিন আহাম্মেদ। এতে জেদ্দাস্থ বাংলাদেশী শিল্প গোষ্ঠী মিজান ও তার দল এবং বাংলা ও  ইংলিশ মিডিয়ামের ছাত্রীরা সংগীত পরিবেশন করেন। নৃত্য পরিবেশন করেন নাবিলা ও হাইফা নৃত্যদলের শিল্পীরা। 

 
alt
এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কনস্যুলেট কনসাল জেনারেল এফ এম বোরহান উদ্দিন। তিনি তার বক্তব্যে, প্রবাসীদের নববর্ষের উপলক্ষে সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানান।  এতে আরো উপস্থিত ছিলেন- কনস্যুলেটের কাউন্সিলর শ্রম আমিনুল ইসলাম, কাউন্সিলর হজ্জ মাকসুদুর রহমান, কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন, কাউন্সিলর ডিপ্লোমেটিক আজিজুর রহমান, কনসাল হজ্জ জহিরুল ইসলাম, প্রথম সচিব কামরুজ্জামান সহ জেদ্দাতে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, প্রবাসী সাংবাদিক, বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মী, সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও ছাত্র-ছাত্রীসহ প্রবাসীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ইপিবিএর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বুধবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৭
 

বাপ্ নিউজ : ইতালি:ইতালির রাজধানী রোমে ইউরোপিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশনের (ইপিবিএ) বর্ষপূর্তি উৎসব পালন করেছে ইতালি শাখা। সোমবার রাজধানী রোমের ভিয়া কাপুয়া বাংলা পাঠশালা মিলানায়তনে কেক কেটে বর্ষপূর্তি উদযাপন করা হয়।ইপিবিএ ইতালি শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সানজিদা আহমেদ ববির সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠনে বক্তারা ইপিবিএর সাফল্যের এক বছর তুলে ধরেন এবং ইপিবিএ আগামী দিনে প্রবাসীদের সব স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ভূমিকা রাখার বিষয়ে আশা ব্যক্ত করেন।

সুইজারল্যান্ড:

কোটি প্রবাসীর অধিকার আদায়ে আরও সক্রিয় ভূমিকা পালনের অঙ্গীকার জানিয়ে ইউরোপের প্রবাসী বাংলাদেশিদের বৃহৎ সংগঠন ইপিবিএর প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বিপুলসংখ্যক প্রবাসীদের উপস্থিতিতে আলোচনা সভা ও কেক কেটে দিনটি উদযাপন করেছে ইপিবিএ সুইজারল্যান্ড শাখা।

Picture

এ উপলক্ষে রবিবার সুইজ্যারল্যান্ডের জুরিখের একটি অভিজাত হলে অনাড়ম্বরপূর্ণ এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইপিবিএ সুইজারল্যান্ড শাখার সভাপতি রফিকুল ইসলাম এবং অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের আইন ও দফতর সম্পাদক ইসরাক আহমদ নিপন।

বক্তারা বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশিদের মরদেহ সরকারি খরচে দেশে প্রেরণ, দৈত্ব নাগরিকত্ব আইন সংশোধন, প্রবাস বন্ধু কল সেন্টারসহ  প্রবাসীদের অধিকার নিয়ে গত এক বছর সংগঠনের ভূমিকা ছিল প্রশংসার। পৃথিবীর যেকোন প্রান্তের প্রবাসীদের সমস্যায় এই সংগঠন পাশে থাকবে বলেও বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।

alt

যুক্তরাজ্য: যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনে ইউরোপের সর্ববৃহৎ সংগঠন ইউরোপিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েসন (ইপিবিএ-এর প্রথম বর্ষপূর্তি পালন করল যুক্তরাজ্য শাখা। বর্ণঢ্য এই আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শাহানুর খান, সহ-সভাপতি তেরাউল ইসলাম, আব্দুল হাফিজ, শহীদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

প্রবাসীদের অধিকার নিয়ে সরকারের ইতিবাচক সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে সংগঠনের নেতারা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

ফ্রান্স: আলোচনা সভা ও কেক কেটে ইপিবিএর প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে ফ্রান্স শাখা।সোমবার প্লেস দ্যা ফেত-এর অভিজাত রেস্টুরেন্টে ইপিবিএ ফ্রান্সের সভাপতি ফারুক খাঁনের সভাপতিত্বে ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সমাজসেবা সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখনজির পরিচালনায় এ অনুষ্ঠান হয়।

এসময় তারা ইপিবিএর বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরা হয়।

পর্তুগাল: পর্তুগালে ইউরোপের সর্ববৃহৎ সংগঠন ইউরোপিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েসন ইপিবিএর প্রথম বর্ষপূর্তি পালন করল পর্তুগাল শাখা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইপিবিএ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান, সাংগঠনিক সম্পাদক  ইউসুফ তালুকদার, সমাজকল্যাণ সম্পাদক সেলিম উদ্দিন, পর্তুগাল আ:লীগের সভাপতি জহিরুল আলম জসিম প্রমুখ।


এথেন্সে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস পালিত

বুধবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৭

বাপ্ নিউজ : এথেন্স থেকে : গ্রীসে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে যথাযথ মর্যাদায় ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে দূতাবাস প্রাঙ্গণে সোমবার বিশেষ কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়। আয়োজনে বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন গ্রীস, গ্রীসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়ী এবং আঞ্চলিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ প্রবাসী বাংলাদেশিগণ উপস্থিত ছিলেন।দিবসটির তাৎপর্যের উপর বিশেষ প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। এরপর দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিতবাণী সমূহ পাঠ করেন দূতাবাসের কর্মকর্তারা। বাণী পাঠের পরে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবসের উপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

Picture


 আলোচনাকালে গ্রীসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোঃ জসীম উদ্দিন বাংলাদেশের অভ্যূদয়ে ১৭ এপ্রিল ১৯৭১,মুজিব নগর দিবসের তাৎপর্যের কথা তুলে ধরেন। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক নেতৃত্বের কথা স্মরণকরেন। রাষ্টদূত মুজিব নগর সরকারের তাৎপর্যের কথা উল্লেখ করে বলেন, মুজিব নগর সরকার মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব প্রদান এবং বিভিন্ন দেশের সরকারের সাথে প্রয়োজনীয় যোগাযোগ রক্ষা করে সময়োপযোগী, সাহসী এবং প্রজ্ঞাবান নেতৃত্ব প্রদান করেছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উত্তরোত্তর অগ্রগতির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভক্তি ভুলে ঐক্য বজায় রেখে দেশের জন্য কাজ করার কথা স্মরণ করিয়ে দেন রাষ্ট্রদূত।


মালয়েশিয়ায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৭

আহমাদুল কবির, বাপ্ নিউজ : মালয়েশিয়া থেকে : মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে সোমবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮ টায় দূতাবাসের হল রুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।শ্রম কাউন্সিলর সায়েদুল ইসলামের সঞ্চালনায় ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলামের পবিত্র কুরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা সভা শুরু হয়। সভার শুরুতে অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন, ডিফেন্স উইং প্রধান এয়ার কমোডর হুমায়ন কবির ও দূতালয় প্রধান বেগম ওহিদা আহমেদ।

Picture

সভাপতির বক্তব্যে হাই কমিশনার মহ. শহিদুল ইসলাম বলেন, মুজিবনগর দিবস বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে তৎকালীন মেহেরপুর মহাকুমার বৈদ্যনাথ তলার আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার শপথ গ্রহণ করেন।এর আগে, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর বর্বরোচিত হামলা চালানোর পর একই বছরের ১০ এপ্রিল আনুষ্ঠানিকভাবে সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্র রূপে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা ঘোষণা করা হয়।

১১ এপ্রিল অস্থায়ী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ দেশবাসীর উদ্দেশে বেতার ভাষণ দেন, যা আকাশবাণী থেকে একাধিকবার প্রচারিত হয়। তাজউদ্দীনের ভাষণের মধ্যদিয়েই দেশ-বিদেশের মানুষ জানতে পারে বাংলাদেশে মুক্তি সংগ্রাম পরিচালনার লক্ষ্যে একটি আইনানুগ সরকার গঠিত হয়েছে।সভায় অন্যান্যের মধ্যে মিনিষ্টার পলিটিকাল মো. রইছ হাসান সারোয়ার, ফার্স্ট সেক্রেটারি (বাণিজ্য)ধনঞ্জয় কুমার দাস, ফার্স্ট সেক্রেটারি এম এসকে শাহীন, ফার্স্ট সেক্রেটারি (শ্রম) মো. হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল, ফার্স্ট সেক্রেটারি (পাসপোর্ট অ্যান্ড ভিসা) মো. মশিউর রহমান তালুকদার, ২য় সচিব (পলিটিকাল) তাহমিনা ইয়াছমিন ও ফরিদ আহমেদসহ হাইকমিশনের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


মিলানে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৭

জমির হোসেন, বাপ্ নিউজ : ইতালি থেকে : ইতালির মিলানে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে। সোমবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ১০টায় মিলানের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল কার্যালয় মিলনায়তনে যথাযোগ্য মর্যাদায় এ দিবস পালন করা হয়।কনসাল জেনারেল রেজিনা আহমেদের সভাপতিত্বে এবং কনসাল রফিকুল করিমের পরিচালনায় শুরুতেই কোরআন তেলাওয়াত করেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা কাজী নসিবুল ইসলাম। এরপর রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন কনসাল রফিকুল করিম এবং ভাইস কনসাল নাফিসা মনসুর।

Picture

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মিলান লোম্বারদিয়া আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল মান্নান মালিথা, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল কবির জামান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তুহিন মাহামুদ, লুৎফর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আরফান সিকদার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক সরোয়ার হোসেন, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক জালাল হাওলাদার, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম কাওছার, আকরাম হোসেন, খান রিপন প্রমুখ।কনসাল জেনারেল রেজিনা আহমেদের সমাপনী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। পরে দোয়া ও উপস্থিত সবার জন্য আপ্যায়নের মাধ্যমে কর্মসূচি শেষ করা হয়।


প্রবাসে বর্ষবরণ ১৪২৪

রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৭

Picture

কানাডা থেকে : সুদুর কানাডায়ও রব উঠেছে এসো হে বৈশাখ এসো এসো..। বাঁধভাঙা প্রাণের উচ্ছ্বাসে বাংলা নতুন বছর ১৪২৪ বরণ করে নিলেন কানাডার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও ঐতিহ্য তুলে ধরতে এবং বাংলাদেশের সমৃদ্ধিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে নিজ বাসভবনে উদযাপন করে বাংলা নববর্ষ, পয়লা বৈশাখ।

alt

বিপুলসংখ্যক কানাডার প্রবাসী বাংলাদেশি সপরিবারে অংশ গ্রহণ করেন বাংলা নববর্ষের এই জমকালো অনুষ্ঠানে। জনাব আনসার উদ্দীন (বাবু) ভাই, শ্রদ্ধেয় এনায়েত ভাই,শ্রদ্ধেয় মোসলেম ভাই,অভাজন জাকির ও অনুজ রাজীব সহ আর অনেকে বাংলা নববর্ষের এই জমকালো অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন।

alt

এতে চিরায়ত বাংলার সংস্কৃতিকে তুলে ধরা হয়েছে । জনাব মোঃ মফু বলেন, দেশ ,দেশবাসী,মা- মাটি মানুষ ,নববর্ষ,বৌচি,গোল্লাছুট,হা ডু ডু সবকিছুই আমাদেরকে সমান টানে,চেতনায় হুহু ঝড় তোলে,ভালবাসার পরম্পরায় স্মৃতিতে দোলা দিয়ে যায়, পরবাসে কোথায় পাবো আমরা বটমূল, বৈশাখী মেলা!

alt

তাইতো নিজ বাসায়ই আমরা ক'জন এক হয়েছিলাম অলিক সুখ আস্বাদনে ।

alt
অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী সবার জন্য দেশি-বিদেশি নানা খাবারেরও আয়োজন ছিল।


মরুর দেশে বর্ণিল বর্ষবরণ

রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৭

মোহাম্মদ আল-আমীন, বাপ্ নিউজ : সৌদি আরব : নতুন বছরকে বরণ করে নিতে বাংলাদেশের মতো প্রবাসেও ছিল নানা আয়োজন। সকলের প্রাণের উত্তাপে কাটে শুভ দিনের প্রতিটি প্রহর। আর পূর্ণতার এমন দিনে মিলনের মোহনায় এসে মিশে। বঙ্গাব্দ ১৪২৪-কে বরণ করতে সৌদি প্রবাসীরাও মিলিত হয় শ্যাডো আয়োজিত পহেলা বৈশাখী আনন্দ মেলায়।শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হতেই মেলা প্রাঙ্গণে সহস্র বাঙালির মিলনমেলায় ফুটে ওঠে প্রবাসের ছোট্ট বাংলাদেশ। মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রিয়াদ বাংলাদেশ দুতাবাসের মিশন উপ প্রধান মোঃ নজরুল ইসলাম। দুতাবাসের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শ্যাডোর নেতৃবৃন্দসহ নানা শ্রেণী পেশার প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন।

Picture

সাত সমুদ্র তেরো নদী পেরিয়েও বাঙালিরা নিজেদের সংস্কৃতি আর বাংলাদেশকে ভুলতে পারে না। তাই সুযোগ পেলেই বুকের ভেতর থেকে বের করে আনে এক টুকরো বাংলাদেশ। সৌদি প্রবাসী বাঙালিরাও এর ব্যতিক্রম নয়। তাইতো রিয়াদ বাংলাদেশ দুতাবাসের সহযোগিতায় বৈশাখী মেলার আয়োজন করে রিয়াদের স্বনামধ্য ইভেন্ট অর্গানাইজার প্রতিষ্ঠান “শ্যাডো”।

alt

রিয়াদের বৈশাখী মেলা শুধুমাত্র একটি সাধারণ মেলাই নয়,প্রতি বছর এ বৈশাখী  মেলা পরিণত হয় প্রবাসীদের এক বিশাল মিলন মেলায়। রাজধানী ও তার আশেপাশে বসবাসরত হাজার হাজার প্রবাসী ছুটে আসেন একেবারে নির্ভেজাল বাঙালীদের এই আয়োজনে। ফলে দেখা হয় অনেক পুরোনো বন্ধু-বান্ধবদের সাথেও।

মেলায় বসে হরেক  রকমের দেশী খাবারের স্টল সচরাচর ব্যস্ত প্রবাস জীবনে দেশী যে সব সুস্বাদু  খাবার চেহারা পর্যন্ত দেখা যায় না পান্তা-ইলিশ থেকে শুরু করে সে সব খাবার  মিলে যায় এই বৈশাখী মেলায়। আশেপাশে গোটা এলাকাতে হাঁটলে মনে হবে বাংলাদেশেই আছি।

মেলা আসা প্রবাসীরা জানান,'এটা সত্যিই অসাধারণ আয়োজন। আমি ভীষণ খুশি এখানে আসতে পেরে। বাংলাদেশিদের কর্মদক্ষতা আর মেধা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। ' এসব মেলার আয়োজন বৈশাখের অসাম্প্রদায়িক চেতনায় ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালিত্বে একাকার হয়ে যায় প্রবাসীরা।


গানে গানে মালয়েশিয়ায় প্রবাসীদের বর্ষবরণ

রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৭

আহমাদুল কবির, বাপ্ নিউজ : মালয়েশিয়া থেকে : গানে গানে বাংলা নতুন বছর ১৪২৪ বঙ্গাব্দকে বরণ করে নিয়েছেন মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা। শুক্রবার কুয়ালালামপুরের বুকিত বিনতাং এলাকায় রসনা বিলাস রেস্তোরাঁয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে নববর্ষ উদযাপন করা হয়। ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’ গানের সঙ্গে সুর মিলিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানান প্রবাসীরা। এ সময় রসনা বিলাসের ওই বৈশাখী আয়োজন পরিণত হয় প্রবাসী বাঙালিদের মিলন মেলায়।দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে আগত শিল্পী ছাড়া প্রবাসী শিল্পীরাও বাউল সম্রাট শাহ আবদুল করিমসহ লালন সাঁইয়ের গান পরিবেশন করেন।এর আগে রাগ ভৈরবী দিয়ে শুরু হয় বৈশাখের পরিবেশনা। রাগের অনিন্দ্য মূর্ছনায় ভরে ওঠে বুকিত বিনতাং জালান তংসিং এর চারদিক।

Picture

রসনা বিলাসের স্বত্ত্বাধিকারী এস এম রহমান পারভেজ বলেন, প্রবাসীদের নিয়ে বাঙালির ঐতিহ্য বর্ষবরণ উৎসব উদযাপন করতে প্রতিবছর পহেলা বৈশাখে এ ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উৎসবে পান্তা-ইলিশসহ থাকে বাহারি রকমের খাবারের আয়োজনও। রসনা বিলাসের বৈশাখী আয়োজনে কুয়ালালামপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশনেরন মিনিস্টার (পলিটিক্যাল) রইছ হাসান সারোয়ার, ফার্স্ট সেক্রেটারি (শ্রম) মো. হেদায়েতুল ইসলাম, প্রবাসী কমিউনিটি নেতা কামরুজ্জামান কামাল, মনিরুজ্জামান মনির, ইমদাদুল হক সবুজ, শাহ আলম হাওলাদার, প্রবাসী সিলেটিদের সংগঠন জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ সভাপতি সোনাহর খান রশিদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


ফোর্বস’এর তালিকায় বাংলাদেশি তরুণ তরুণী

শনিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১৭

বাপ্ নিউজ :২ বাংলাদেশি তরুণ তরুণী সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে ফোর্বস’এর তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন। এরা হলেন মিজানুর রহমান কিরণ ও শওগাত নাজবিন খান। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করে থাকে ফোর্বস। এবার এশিয়ার দেশগুলোতে ৩০ বছরের কম বয়স্ক ও বছরের সেরা সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে যে তালিকা প্রকাশ করেছে ম্যাগাজিনটি তাতে এ দুই বাংলাদেশি তরুণ তরুণী রয়েছেন। এশিয়া থেকে ৩০ জন উদ্যোক্তাকে নির্বাচিত করেছে ফোর্বস ম্যাগাজিন যারা ব্যবসাকে সামাজিক দায়িত্ব হিসেবে নিয়ে বিশ্বের সমস্যাগুলোর সমাধানের পথ বাৎলে দিচ্ছেন। ২৯ বছরের মিজানুর রহমান কিরণ বাংলাদেশে শারীরিক প্রতিবন্ধী তরুণদের উন্নয়নে ফিজিক্যালি-চ্যালেঞ্জস ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (পিডিএফ) প্রতিষ্ঠা করেছেন। ২০১৫ সালে ডেইলি স্টার তাকে তার কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ‘ইয়াং এ্যাসিভার’ উপাধি দেয়।

Picture

কিরণ পত্রিকাটিকে বলেন, আগামী ১০ বছরের মধ্যে তিনি তার প্রতিষ্ঠানটিকে এশিয়ার তরুণদের মধ্যে সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখতে চান। তার প্রতিষ্ঠান শারীরিক প্রতিবন্ধী তরুণদের আইনী সহায়তা ও অধিকার সচেতনতায় সাহায্য করে থাকে।

শওগাত নাজবিন খান এইচ এ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে গ্রামের গরিব ছেলে মেয়েদের শিক্ষা দিয়ে থাকেন। সামান্য খরচের মাধ্যমে ছেলে মেয়েরা তার প্রতিষ্ঠানে বিনামূল্যে বই, পোশাক ও যাতায়াত সুবিধা পেয়ে থাকে। অন্তত ৬’শ ছেলে মেয়েকে পড়াশুনার সুযোগ করে দেয়ার পর শওগাত নাজবিন খান গত বছর কমনওয়েলথ ইয়থ এ্যাওয়ার্ড পান। তিনি কম খরচে সৌর সেচ ব্যবস্থা চালুর জন্যে একই বছর গ্রিন ট্যালেন্ট এ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হন।


বিসিসিবি’র মন্ট্রিয়েল চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৭

বাপ্ নিউজ : কানাডা থেকে।। বাংলাদেশি কানাডিয়ানদের সংগঠন বিসিসিবি’র মন্ট্রিয়েল চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ এক সভা অনুষ্টিত হয় গত রোববার সন্ধ্যায় মন্ট্রিয়লের কনকার্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইভি বিল্ডিংয়ে। এতে উপস্থিত ছিলেন চ্যাপ্টারের সাথে সংশ্লিষ্ট ভলান্টিয়ার এবং নতুনভাবে উদ্দীপ্ত বেশ কয়েকজন প্রতিশ্রুতিবান বিসিসিবি-ইয়ান।

সভায় বিসিসিবির কার্যক্রম তথা ২০১৭ সালের রোড ম্যাপ যেমন বিসিবির নিজস্ব ইভেন্ট কিডস ডে, গ্যাপ ডে আয়োজন, নিয়মিত গেট টুগেদার, স্পোর্টস ইভেন্ট আয়োজন, জব সাপোর্ট পোর্টফোলিও কার্যক্রম ও মেন্টরশীপ চালু সহ আরো অনেক বিষয়ে আলোচনা অনুষ্টিত হয়।

রোডম্যাপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন চ্যাপ্টারের অন্যতম টিম লীড এম..জে.এফ রূপম। সার্বিক সহায়তায় ছিলেন ওপর টিম লীড শিহাব উদ্দিন, মশিয়র রহমান সোহেল, রাফি মোহাম্মদ আজাদ, রিয়াজ ফারিদ।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আশিক রহমান, হিশাম করিম চৌধুরী, শাহাব কাজী, নাজমুল হাসান, খালেদ আহমেদ প্রমুখ|

কিডস ডে আয়োজনের জন্য পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি সাব কমিটি গঠিত হয়। কমিটিতে আছেন নাফিসা রহমান, রাকিব সিদ্দিকী, শাহাবুল আলম, এজাজ হান্নাহ ও মোহাম্মদ সুমন। সাব কমিটি অচিরেই কিডস ডে’র তারিখ ঘোষণা করবে।

Picture

সভার এক পর্যায়ে টেলিফোন কল আসে বিসিসিবি সভাপতি রিমন মাহমুদের কাছ থেকে। লাউড স্পিকারে রিমন মাহমুদ মন্ট্রিয়েল চ্যাপ্টারের অগ্রযাত্রা দেখে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রথম প্রজন্ম  কানাডায় সংগ্রাম করবো এটাই স্বাভাবিক। আমাদের এই সংগ্রামকে যথা সম্ভব সহজতর করা এবং এ সংগ্রামের আউটপুট যাতে আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম কাজে লাগাতে পারে, তার জন্যই আমাদের এই বিসিসিবি করা। আর এজন্যই সকলকে  বাংলাদেশ এবং কানাডাকে বুকে ধারণ করে এক সাথে কাজ করে এগিয়ে যেতে হবে| কানাডার  বুকে  সর্বশ্রষ্ঠ  কমিউনিটি  হবে  আমাদের  বিসিসিবি কমিউনিটি- এটাই আমাদের মোটিভেশন। একটি সুন্দর কানাডা গড়ে  তোলার জন্য এটাই হবে আমাদের কনন্ট্রিবিউশন।’

রিমন মাহমুদ তার বক্তব্যে বিসিসিবির একাধিক সাফল্যের উদাহরণ দেন। তিনি আরো বলেন, তিনি  বিশ্বাস  করেন  যে ভবিষ্যতে মন্ট্রিয়েল চ্যাপ্টার বিসিসিবি’র নিজস্ব প্যারামিটারের মধ্যে থেকে একটি স্বায়িত্বশাসিত (ইনিপেন্ডেন্ট চ্যাপ্টার ) চ্যাপ্টার হবে। তার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে।

সভায় প্রাথমিকভাবে বিভিন্ন পোর্টফলি ও বন্ঠন করা হয়। রিয়াজ ফারিদ “বিসিসি জব সাপোর্ট পোর্টফোলিও গড়ে তোলার দায়িত্ব নেন। এছাড়া রাফি আল আজাদ স্পোর্টস পোর্টফোলিও,  মশিয়র রহমান সোহেল ‘মেন্টরশীপ’, এম.জে.এফ রূপম "Funding  & community outreach" এবং শিহাব উদ্দিন দায়িত্ব নেন "Accommodation and Connection to the new comers" বিষয়গুলি দেখার।


জঙ্গীমুক্ত বাংলাদেশ শেখ হাসিনার অঙ্গীকার - এম এ সাত্তার

মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল ২০১৭

বাপ্ নিউজ : কোপেনহেগেন , ডেনমার্ক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর কেন্দ্রীয় কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক সাবেক এম পি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আবদুস সাত্তার এর সাথে গত ৫ এপ্রিল , বুধবার ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর মতবিনিময় সভায় জঙ্গীমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে অঙ্গীকার জননেত্রী শেখ হাসিনা এর অঙ্গীকার এর কথা বলেন।ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর সভাপতি ইকবাল হোসেন মিঠু এর সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক  ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া  এর সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন

Picture

ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর যুগ্ম -সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম , মোতালেব ভূঁইয়া ,মোহাম্মদ ইউসুফ , হিল্লোল বড়ুয়া , আব্দুল আল জাহিদ, ফাহমিদ আল মাহিদ ,আমির জীবন, কোহিনুর আখতার মুকুল , ইফতেখার সম্রাট ,আসাদুসজ্জামান , রেজাউল করিম , শোয়েব আহমেদ , রিয়াদ হোসেন , ফয়সাল হোসেন , জামশেদ রহমান , ইমরান হোসেন ,সুবীর , শাওন , কোহিনূর মুকুল , সাগর ,  তানভীর শুভ , সুকান্ত দে , আসিফ মুস্তারিন  সহ আরো অনেকে।

alt

জনাব আবদুস সাত্তার বলেন ,বাংলাদেশের জঙ্গিবাদের উদ্যোক্তা হচ্ছে বিএনপি।  ২০০১ সাল থেকে  বিএনপি বাংলাদেশে ধর্মীয় উন্মাদনায় জঙ্গিবাদ কে প্রশ্রয় দিয়ে পাকিস্তান এর নীলনকশা বাস্তবায়ন করে।  আমাদের নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ  বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে অনেক শীর্ষ  জঙ্গি ও তাদের মাস্টার মাইন্ডদের বিচার এর আওতায় এনে জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছেন।  তার সাহসী ও  দৃঢ়চেতা পদক্ষেপ বাংলাদেশ কে অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধশালী করবে।  দেশকে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভাবে  সমৃদ্ধশালী করতে আওয়ামী লীগ সরকারের কোন বিকল্প নেই। 

alt

তাই আমাদেরকে  আগাছা পরগাছা হাইব্রিডমুক্ত আওয়ামী লীগ গঠনে সত্যিকার এর আওয়ামী লীগ এর সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। আমাদের পরিচয় একটাই আমরা জয়বাংলার লোক ও জাতির জনকের আদর্শের ও শেখ হাসিনা এর বিশ্বস্ত কর্মী। পরে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর পক্ষ থেকে জনাব এম এ সাত্তার ডেনমার্ক এর স্মারক লিটল মারমেইড উপহার দেয়া হয়।