Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

প্রবাসীদের খবর

সিডনিতে অমর একুশে উদ্‌যাপনের প্রস্তুতি

শনিবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

Picture

এ উপলক্ষে দেশটিতে বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে পরিবার-পরিজনসহ সকাল ৯টায় উপস্থিত হয়ে আয়োজনে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া।এ ছাড়া দিনটিতে অ্যাশফিল্ডের শহীদ মিনার চত্বরে একুশে বইমেলার আয়োজন করেছে একুশে একাডেমি অস্ট্রেলিয়া।


মন্ট্রিয়ল একুশে বইমেলা ২৪ ফেব্রুয়ারি : প্রধান অতিথি কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন

বৃহস্পতিবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

Picture

সংগঠনের কর্ণধার শামসাদ রানা জানিয়েছেন, প্রবাসী এবং নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত করানোর লক্ষ্যে এই সংগঠনটি গত পাঁচ বছর ধরে একুশে বইমেলায় আয়োজন করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও থাকছে ছবি আঁকা ও মুখে-মুখে গল্প বলা প্রতিযোগিতা। এছাড়াও থাকছে আলোচনা অনুষ্ঠান, প্রকাশনা উৎসব, সাংস্কৃতিক পর্ব। মন্ট্রিয়ালস্থ ৪১৯ সেন্ট রকে অনুষ্ঠিত দিনভর এই মেলায় মন্ট্রিয়ল, টরন্টো, অটোয়া এবং আমেরিকার নিউইয়র্ক ও ভার্জিনিয়া থেকে লেখক, প্রকাশকরা অংশ নিবেন বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে।


দুবাইয়ে বাংলাদেশ ওমেন এ্যাসোসিয়েশনের বার্ষিক বনভোজন

সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০১৮

Picture

লুৎফুর রহমান : বাপ্ নিউজ : দুবাই থেকে : বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপনা ও প্রাণচাঞ্চল্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ওমেন এ্যাসোসিয়েশন দুবাই ও উত্তর আমিরাতের বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে।শুক্রবার আরব আমিরাতের নান্দনিক শহর দুবাইয়ের ক্রিক পার্কে এ উপলক্ষে বসে মিলনমেলা। অনুষ্ঠানে সংগঠনের সদস্য ছাড়াও তাদের পরিবোরের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিলো লক্ষণীয়।

alt

বার্ষিক এ বনভোজনে দেশীয় খাবারের পাশাপাশি ছিলো নানা রকম দেশীয় খেলাধুলা। মহিলাদের বালিশ বদল, বাচ্চাদের দীর্ঘ দৌড় ছিলো উল্লেখয়োগ্য।পরে নানা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বাংলাদেশ কনসুলেট দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনসাল জেনারেল এস বদিরুজ্জামান। এ সময় কনসুলেটের কর্মকর্তা ও কমিউনিটির সুধীজনেরা উপস্থিত ছিলেন।

alt

বর্ণাঢ্য এ মিলনমেলায় নেতৃত্ব দেন সংগঠনের সভাপতি ও কনসাল জেনারেলের সহধর্মিনী আন্না জামান।সংগঠনের নেত্রীবৃন্দ যথাক্রমে জাহান আরা জাফর, ফাহমিদা চৌধুরী, নাদিয়া সুলতানা, আসমা শাহীন, হেলেনা পারভীন, মলিনা বেগম, মনোয়ারা হোসাইন উপস্থিত থেকে সার্বিক সহযোগিতা করেন। অনুষ্ঠানে নানা অঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত মহিলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


৩৫ বছর পর বাংলাদেশি বাবাকে খুঁজে পেলেন ব্রিটিশ পুত্র, এক আবেগঘন মুহূর্ত!

সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০১৮

মুনজের আহমদ চৌধুরী,বাপ্ নিউজ :যুক্তরাজ্য থেকে : ৩৬ বছর আগে এক ব্রিটিশ তরুণীকে বিয়ে করেছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ছওয়াব আলী। বছর দুয়েক পর তাদের বিচ্ছেদ হয়ে গেলেও এরই মধ্যে এই দম্পতির কোল আলো করে জন্ম নেয় সন্তান জেইমি। কিন্তু ভাগ্যের বিড়ম্বনার শিকার ছওয়াব আলীকে জেল খাটতে হয় ছয় বছর।

হারিয়ে ফেলেন স্ত্রী-সন্তানের খোঁজ। এরপর আর ছেলের দেখা পাননি ছওয়াব আলী। বাবার সন্ধান করতে করতে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশে এসে জেইমি খোঁজ পান বাবার স্বজনদের। আর তারই সূত্র ধরে ৩৫ বছর পর বাবা-ছেলের মিলনের সাক্ষী হলো যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার বিমানবন্দর।

গল্পের মতো এই ঘটনা ঘটেছে গত মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি)। এদিন মা অ্যানকে নিয়ে ম্যানচেস্টার বিমানবন্দরে হাজির হন জেইমি। আগে থেকেই খবর পাওয়া ছওয়াব আলীও হাজির হয়েছিলেন ছেলেকে স্বাগত জানাতে। সেখানেই ৩৫ বছর পর মিলন ঘটলো বাবা-ছেলের।

ছওয়াব আলীর চাচাত ভাই মো. আবদুর রউফ জানান, লন্ডনে ব্রিটিশ শ্বেতাঙ্গ তরুণী অ্যান জোলিকে ৩৬ বছর আগে বিয়ে করেন ছওয়াব আলী। এক বছর পর জোলির কোলজুড়ে আসে জেইমি।

বছরখানেক পর অবশ্য অ্যানের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটে ছওয়াব আলীর। পরে কারাবরণ করতে হয় তাকে। স্ত্রী-সন্তানের সঙ্গে তার আর কোনও যোগাযোগ ছিল না।এদিকে, বিচ্ছেদের পর ছেলেকে নিয়ে যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে স্থায়ী হন অ্যান।

Picture

জেইমিও বেড়ে উঠতে থাকে বাবার সহচর্য ছাড়াই। মায়ের কাছে বাবার সন্ধানও পায়নি কিশোর জেইমি। পরে উচ্চ শিক্ষা নিতে অস্ট্রেলিয়ায় ঠাঁই হয় জেইমির। পড়ালেখা শেষ করে সেখানেই কর্মরত তিনি।

ছোটবেলা থেকেই বাবাকে কাছে না পেলেও বাবার সন্ধান চালিয়ে যেতে থাকেন জেইমি। যখন জানতে পারেন, তার বাবা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত, শেষ পর্যন্ত তিনি বছরখানেক আগে বাংলাদেশেই চলে আসেন।

আবদুর রউফ জানান, সুনামগঞ্জের ছাতকে গিয়ে বাবা ছওয়াব আলীর আত্মীয়-স্বজনদের খুঁজে পান জেইমি। তার মধ্যে আশার সঞ্চার হয়, হয়তো বাবাকে খুঁজে পাবেন। স্বজনদের কাছ থেকে সংগ্রহ করেন বাবার বিভিন্ন তথ্য। জানতে পারেন, তার বাবা এখন বসবাস করছেন যুক্তরাজ্যের রচডেলে।

ছওয়াব আলীর ভাতিজা কাপ্তান মিয়া জানান, অবশেষে বাবা-ছেলের মধ্যে যোগাযোগ হয় গত সপ্তাহে। তারই সূত্র ধরে মা অ্যান জোলি আর ভাই জ্যাসনকে নিয়ে জেইমি ম্যানচেস্টারে যাবেন বলে জানান।

গত মঙ্গলবার তারা পৌঁছান ম্যানচেস্টার বিমানবন্দরে। এসময় ছওয়াব আলী ও রচডেলে থাকা তার আত্মীয়-স্বজনরা জেইমি-অ্যানকে স্বাগত জানাতে হাজির হন বিমানবন্দরে।

কাপ্তান মিয়া বলেন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর বাবা-ছেলের মিলনের মুহূর্তটি ছিল অত্যন্ত আবেগঘন। বাবাকে দেখার সঙ্গে সঙ্গে জেইমি তাকে জড়িয়ে ধরে। অনেকক্ষণ ধরে তারা কেউ কথাই বলতে পারছিলেন না। দু’জনের চোখের জলেই যেন সব কথা হয়ে যাচ্ছিল। পাশে দাঁড়ানো জেইমির মা ও ভাইয়ের চোখেও তখন ছিল অশ্রু।

আবেগ সম্বরণ করে জেইমি বলেন, ‘বাবা আর পরিবারের আপনজনদের কাছে পেয়ে আমি আপ্লুত। আর কখনও আমি আমার বাবাকে হারাতে চাই না।’

অ্যানের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর আর সংসারমুখী হননি ছওয়াব আলী। ছেলেকে কাছে পেয়ে একাকী-নিঃসঙ্গ জীবন কাটানো ছওয়াব আলীর মুখেও ভাষা নেই।

তিনি বললেন, ‘অ্যানের সঙ্গে আমার যখন বিচ্ছেদ হয়, জেইমির বয়স তখন মাত্র তিন মাস। এরপর ছয় বছর জেল আমার জীবনকে এলোমেলো করে দেয়। আজ ৩৫ বছর পর সন্তানকে কাছে পেয়ে আমি বাকরুদ্ধ, হতবিহ্বল।’


সিডনিতে বাংলাদেশ মেলা

মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮

Picture

মেলায় বাংলাদেশি প্রবাসীদের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার মূলধারার সংসদ সদস্য, মেয়র থেকে শুরু করে স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। মেলা উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়ার বিরোধীদলীয় লেবার পার্টির প্রধান বিল শর্টেন এক বিশেষ বাণী দিয়েছিলেন। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন অস্ট্রেলিয়ার বাঙালি পাড়া খ্যাত লাকেম্বার রাজ্য সংসদ সদস্য জিহাদ দীবসহ অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

সাংস্কৃতিক পরিবেশনা
দিনব্যাপী এ আয়োজনে স্থানীয় এবং বাংলাদেশ থেকে আগত শিল্পী ঝিলিক ও আরিফের পরিবেশনা মেলায় উপস্থিত সকলকে মুগ্ধ করে। মেলার সমন্বয়ক নোমান শামীম বলেন, রঙে রাঙিয়ে দিতেই এ আয়োজন। বাংলাদেশের রঙের যে সমৃদ্ধি, যে বৈচিত্র্য আছে তা আমরা অস্ট্রেলিয়ায় তুলে ধরতেই এ আয়োজন করেছি। এবারের আয়োজন সফল হয়েছে। আগামী বছর এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে ১৯ জানুয়ারি।


ভিয়েনায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্‌যাপন

শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৮

আনিসুল হক, বাপ্ নিউজ : ভিয়েনা, অস্ট্রিয়া থেকে : অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদ্‌যাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে ভিয়েনার সুটিরোলার প্লাসে গতকাল ১০ জানুয়ারি স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আওয়ামী লীগের অস্ট্রিয়া শাখার উদ্যোগে আয়োজিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম। সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির।

Picture

সভায় বক্তব্য দেন সংগঠনের সর্ব ইউরোপিয়ান শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও অস্ট্রিয়াপ্রবাসী লেখক এম নজরুল ইসলাম, অস্ট্রিয়া শাখার সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সিরাজ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন হোসেন, এ বি এম মাইনুদ্দিন, গাজি মোহাম্মদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ অস্ট্রিয়া ইউনিট কমান্ডের কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা বায়েজিদ মীর ও মুক্তিযোদ্ধা সামসুল হুদা চৌধুরী প্রমুখ।

alt
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতাসহ সকল শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে সভা শুরু হয়।সভায় এম নজরুল ইসলাম বলেন, ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও তা পরিপূর্ণতা পায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে। যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশের মানুষ ফিরে পায় সামনে অগ্রসর হওয়ার প্রেরণা। তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু আজ আমাদের মধ্যে নেই। কিন্তু তাঁর নীতি ও আদর্শ রয়ে গেছে। সেই আদর্শ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে আমরা তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে পারি। গড়ে তুলতে পারি তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলা। প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা সেই লক্ষ্যে সামনে রেখেই এগিয়ে যাচ্ছেন।


টরন্টোয় গ্রেটার বরিশাল ক্লাবের জমজমাট পিঠা পার্টি

শুক্রবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৮

কামাল মোস্তফা হিমু। বাপ্ নিউজ : টরন্টো থেকে ।।ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশের পিঠা নানান স্বাদের হয়। নোনতা পিঠা আবার ঝাল পিঠাও হয়। নতুন জামাইকে ঠকানোর জন্য জামাই ঝাল পিঠার অস্তিত্বও বরিশালে পাওয়া যায়। তবে প্রবাদ বলে “পিঠা মানেই মিঠা”, আর এমন মিঠা পিঠার আয়োজনে, মিষ্টি মধুর সুললিত গান ও মিষ্টি ছন্দের নাচের তালে মুখরিত ছিল টরন্টোতে বৃহত্তর বরিশাল ক্লাবের পিঠা পার্টি। রবিবার মনে রাখার মতো একটি সুন্দর পরিচ্ছন্ন পিঠা পার্টি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সফল আয়োজন ও সমাপন করলেন এবারের বৃহত্তর বরিশালের পিঠা পার্টির কনভেনার জাকির হোসেন।

Picture

পিঠার কথা আলোচনা হলে আমাদের সেই টোনাটুনির গল্পের কথা মনে পরে যায় । তবে বরিশালের পিঠা পার্টির আয়োজকরা অতিথি উপস্থিত হলে টোনাটুনির মতো টুন্ টুন্ করে মগডালে উঠে বসে থাকেনি। বরিশালের হাজার বছরের পুরনো ঐতিহ্য ধরে রেখে, অতিথি আপ্যায়নের কোনো ত্রুটি তারা করেনি। অনুষ্ঠান পরিকল্পনা, পরিচালনা ও দর্শক নন্দন সব দিকেই ছিল আয়োজকদের নজর, তাদেরকে অবশ্যই ধন্যবাদ দেয়া যায়।

25791227_158155661578348_6237001144701358661_o

বাংলাদেশের চিরায়ত কুয়াশায় ঢাকা সকালে, কিংবা সন্ধ্যায়, মাঘের হিম হিম ঠাণ্ডায় পিঠা খাওয়ার মতো না হলেও, শুভ্র সাদা তুষার আচ্ছাদিত টরন্টোতে, পেজা পেজা তুষারপাতের মধ্যে, হিমাঙ্কের নিচের তাপমাত্রায়, এই পিঠা পার্টির আমেজ মোটেও কম ছিলনা। একটি অনুষ্ঠানের দর্শক পরিতুষ্টির ব্যারোমিটার উঠানামা করে অনুষ্ঠান পরিচালনাকারীর উপস্থাপনার ওপর। সেক্ষেত্রে আমাদের এবারের সফল কনভেনার জাকির হোসেনের জীবন সাথী, পাপিয়া জাকির খুবই সফল হয়েছেন। আর পিঠার সেই মৌ মৌ গন্ধে, ৫০ ড্যানফোর্থ রোডস্থ শালিমার বাঙ্কোয়েট হলে আয়োজিত পিঠা পার্টিতে, স্বপরিবারে অংশগ্রহণ করেছিল টরন্টোয় বসবাসরত বৃহত্তর বরিশালবাসী। উপস্থিত সকলে জিভে জল আনা ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন পিঠার মিঠা স্বাদের পাশাপাশি, মন রাঙানো মিষ্টি সুরের সুললিত গান ও নাচের সাংস্কৃতিক অংশটিও দর্শকদের অনুভূতিতে সুখকর স্মৃতি হিসেবে থাকবে বহুদিন।

এটা ছিল একটি অনন্য আনন্দ আয়োজন। অভিনন্দন ও অভিবাদন সেই সব সুচিন্তক বৃহত্তর বরিশাল ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা উদ্যোক্তাদের। তাদের প্রত্যয়ী পদক্ষেপে এমন দর্শক নন্দন ও নাচ গানের সাথে পিঠা ও রাতের খাবারের সংমিশ্রণে, মন ভোলানো কিছুটা সময় যেন পেয়েছিল নিজ দেশে, সহজ সরল জীবনের আনন্দ আয়োজনের ছোঁয়া। এ কৃতিত্ব সকলের তবুও বিশেষ করে এবারের কনভেনার জাকির হোসেন বিশেষভাবে প্রশংসা পাওয়ার দাবিদার।

26063450_158155131578401_2464036382344868486_o

এমনই অনেক অনুঠান সফলকারী নান্না মিয়া ওরফে আমাদের নান্না ভাই বহু বছর ধরে অনেক টার্মের দক্ষ সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন শেষে, এই অনুষ্ঠানে দায়িত্ব অর্পণ করলেন নতুন অপেক্ষাকৃত নবীন অথচ জনপ্রিয় দক্ষ কর্মী বিপ্লব কর্মকারকে। আর পুরাতন প্রশংসনীয় কর্মসহায়ক প্রেসিডেন্ট মাইনুল আলম খান, বহাল থাকলেন তার স্বপদে আরো দুই বছরের জন্য।
গভীর রাতে সমাপ্তি ঘটে সমস্ত আয়োজনের। কিছুক্ষণ আগেও যে বাঙ্কোয়েট হলটি ছিল সকলের পদচারণায় ও কলরবে মুখরিত, তা ধীরে ধীরে শূন্য হতে থাকে। আয়োজকরাও গুটিয়ে নেন তাদের সমস্ত আয়োজন। ধীরে ধীরে এক সময়ে খালি হয়ে যায় বাঙ্কোয়েট হল। অভ্যার্থনাস্থলে দাঁড়িয়ে তখনো কেউ কেউ আলাপচারিতায় মগ্ন। অনেকে ইতোমধ্যে নেমে পড়েছেন তুষারে আবৃত গাড়ি পরিষ্কার করার উদ্দেশে। চারিদিকে শুভ্র সাদা তুষার আবৃত রাস্তাঘাট, গাড়ী, সবকিছু। আর সেই তুষার কণায় প্রতিবিম্বিত আলোয়, তাদের মনে রয়ে গেল অভিবাসী প্রেক্ষাপটে সুন্দর বরিশালীয় আমেজের পিঠা পার্টির একটি আনন্দ অভিজ্ঞতা।


শাবাব ও মাহি খুনের ঘটনায় টরন্টোয় প্রতিবাদ সভা ও দোয়া মাহফিল

মঙ্গলবার, ০৯ জানুয়ারী ২০১৮

বাপ্ নিউজ : টরন্টো থেকে : বাংলাদেশের মৌলভীবাজারে গত ৭ ডিসেম্বর সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত হয় ছাত্রলীগের দুই কর্মী মোহাম্মদ আলী শাবাব ও নাহিদ আহমেদ মাহি। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সকল খুনিদের গ্রেফতার এবং ফাঁসির দাবিতে গত ৭ জানুয়ারি রোববার টরন্টোর ড্যানফোর্থের মিজান কমপ্লেক্স অডিটোরিয়ামে এক প্রতিবাদ সভা এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে কানাডায় বসবাসরত নিহতদের পরিবারের সদস্যরা।

Picture
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন টরন্টো থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা ভোরের আলোর সম্পাদক আহাদ খন্দকার, সাপ্তাহিক বাংলামেইল পত্রিকার সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিন্টু, আজকাল সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী রনী, নবদ্বীপ সম্পাদক এম এইচ মামুন, বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের সভাপতি রেজাউর রহমান, লায়েক চৌধুরী, জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি সাদ চৌধুরী, বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের সহ সভাপতি আখলাক হোসেন, হবিগঞ্জ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এবাদ চৌধুরি সহ আরও অনেকে। বক্তারা শাবাব ও মাহি হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। এছাড়া জনমত গড়ে তুলতে এবং বিচারকে যেন কেউ বাধাগ্রস্ত করতে না পারে সে জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ বিষয়ে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান বক্তারা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ‘দেশে বিদেশে’ এর প্রধান সম্পাদক নজরুল মিন্টো।
সঞ্চালনায় ছিলেন তানভীর কোহিনুর।


টরন্টোয় ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

মঙ্গলবার, ০৯ জানুয়ারী ২০১৮

বাপ্ নিউজ : টরন্টো থেকে : গত ৪ জানুয়ারি ছিল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এ উপলক্ষে কানাডা শাখা ছাত্রলীগ ৭ জানুয়ারি রোববার সন্ধ্যায় টরন্টোর ড্যানফোর্থের রেড হট তান্দুরি রেস্টুরেন্টে কেক কেটে দিবসটি উদযাপন করে।

Picture

আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কানাডা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান প্রিন্স, কানাডা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা আক্তার জানু, সাবেক ছাত্র নেতা আশীষ নন্দী, সোহেল শাহরিয়ার রানা, মরশেদ আহাম্মদ মুক্তা, শেইখ জসিম উদ্দিন, রাধিকা রঞ্জন চৌধুরী, কামরুল ইসলাম, সাজ্জাদ হোসেন, মান্নান, ফারহানা খান, অ্যাডভোকেট আফিয়া বেগম।আরও উপস্থিত ছিলেন কানাডা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ওবায়দুর রহমান, সিনিয়র সহ সভাপতি খালিদ সাইফুল্লাহ পলাশ, তানভীর আহমেদ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা, কানাডা ছাত্রলীগ নেতা মেহেদি হাসান দোহা, রনি আহমেদ, সালমান ডেবিট, মাহিন, শাকিল, রুবেল প্রমুখ।


মাদ্রিদে পিঠা উৎসব

মঙ্গলবার, ০৯ জানুয়ারী ২০১৮

কবির আল মাহমুদ, বাপ্ নিউজ :মাদ্রিদ, স্পেন থেকে : স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলার ঐতিহ্যবাহী পিঠা উৎসব। গত বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারি) স্থানীয় সন্ধ্যায় সিটি করপোরেশনের হলে এই পিঠা উৎসব আয়োজন করা হয়।

Picture

সিটি করপোরেশনের সহযোগিতায় বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলা এই পিঠা উৎসব আয়োজন করে। আয়োজনটি উপস্থিত সকলকে কিছুটা সময়ের জন্য হলেও আপ্লুত করে। উৎসবে সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাসহ প্রবাসী বাংলাদেশিরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন। 

ছবি : উৎসবে পিঠাছবি : উৎসবে পিঠামেলায় ছিল নানা ধরনের পিঠা। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ভাপা পিঠা, ভেজিটেবল ঝাল পিঠা, ছাঁচ পিঠা, ছিটকা পিঠা, চিতই পিঠা, চুটকি পিঠা, চাপড়ি পিঠা, চাঁদ পাকন পিঠা, ছিট পিঠা, সুন্দরী পাকন, সরভাজা, পুলি পিঠা, পাতা পিঠা, পাটিসাপটা, পাকান পিঠা, দুধ চিতই, চই পিঠা, পানতোয়া ও পুডিং, নকশা পিঠা, বিবিখানা, ঝাল পিঠা, হাত সেমাই ও পায়েস প্রভৃতি।
ছবি : উৎসবে পিঠাছবি : উৎসবে পিঠাউৎসবের উদ্বোধন করেন কমিউনিটি নেতা ও বাংলাদেশ মসজিদের সভাপতি খোরশেদ আলম মজুমদার। পরিচালনা করেন অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সেন্ট্রো কমিউনিটারিও কাসিনো দে রেইনার পরিচালক বেগনিয়া, রেড ইন্টার লাভাপিয়েসের প্রেসিডেন্ট পেপা টরেস, কর্মকর্তা মাইতে, সিটি করপোরেশনের সেবা কর্মকর্তা ইসাবেল ও ভালিয়েন্তে বাংলার আফরোজা রহমান প্রমুখ।


সিডনিতে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশির মৃত্যু

মঙ্গলবার, ০৯ জানুয়ারী ২০১৮

Picture

কাউসার খান, বাপ্ নিউজ : সিডনি (অস্ট্রেলিয়া) থেকে : অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে গত বৃহস্পতিবার এক সড়ক দুর্ঘটনায় একজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। সিডনির মালগুয়া এলাকার ফেয়ারলাইট রোডে স্থানীয় সময় বিকেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম সাইফ শেখ। তিনি বাংলাদেশের মুন্সিগঞ্জ জেলার বাসিন্দা। সিডনির লাকেম্বাতে পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন তিনি।

নিহত সাইফ শেখ। সংগৃহীতনিহত সাইফ শেখ। সংগৃহীতদুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উলটে যায়। ঘটনাস্থল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে যাত্রীদের গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সিডনির ওয়েস্টমিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গাড়িটির সামনের যাত্রী আসনে থাকা সাইফ হাসপাতালে মারা যান। সাইফের বয়স ২০ বছর হবে বলে ধারণা করেছেন উদ্ধারকর্মীরা। অতিরিক্ত গতির কারণেই গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারায় বলে প্রাথমিকভাবে জানিয়েছে প্রত্যক্ষদর্শীরা। তবে দুর্ঘটনার আসল কারণ জানতে নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের ক্র্যাশ ইনভেস্টিগেশন ইউনিট এখনো তদন্ত করছে বলে জানা গেছে। চালক ও পেছনের আসনে বসা যাত্রীরা সামান্য আহত হয়েছেন তবে চালককে বাধ্যতামূলক রক্ত পরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়।