Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বিনোদন

এক কিংবদন্তীর জন্মদিনে...

মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৫

বাপসনিঊজ:বাংলাদেশের কিংবদন্তী শিল্পী রুনা লায়লা’র জন্মদিন। বরেণ্য এই শিল্পী ১৯৭৪ সালে সত্য সাহার সুর ও সঙ্গীতে ‘জীবন সাথী’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন। ‘আমার মন বলে তুমি আসবে’, ‘বাড়ির মানুষ কয় আমায়’, ‘বন্ধু তিন দিন তোর’, ‘সাধের লাউ বানাইলো মোরে’, ‘শিল্পী আমি তোমাদেরই গান শোনাবো’, ‘যখন থামবে কোলাহল’, ‘যখন আমি থাকবো নাকো’, ‘এই বৃষ্টি ভেজা রাতে’, ‘সুজন মাঝি রে’ ইত্যাদি অগণিত গানে সমৃদ্ধ করেছেন বাংলাদেশের সঙ্গীতাঙ্গনকে। শিল্পীর জন্মদিনে শুভেচ্ছাস্বরূপ বিনোদন প্রতিদিনের পক্ষে লিখেছেন সত্য সাহা’র ছেলে ইমন সাহা।

Picture

রুনা আন্টির জন্মদিনে তাকে শুভেচ্ছা জানানোর এই পত্রে ঠিক কোত্থেকে যে শুরু করবো বোঝা মুশকিল। কারণ আমার জীবনে বাবা তো আছেনই, তবে গানের সাথে প্রেম বা গানটাকে যে এ রকমভাবে ভালোবাসা যায় এই বোধটা কাজ করেছিল যার গানটি দিয়ে, তিনি আমাদের কিংবদন্তী শিল্পী রুনা লায়লা। দিনক্ষণ মনে নেই, গাজী চাচা (গাজী মাজহারুল আনোয়ার)’-এর লেখা আর বাবার সুরে রুনা আন্টি ‘আনারকলি’ ছবিতে গেয়েছিলেন ‘আমার মন বলে তুমি আসবে’। জানি না কেন এ গানের সুরটা আমার ভেতরে এক ঘোর তৈরি করে। অদ্ভুত এক ভালোলাগা তৈরি করে। আমি এই গান শোনার পর বাবার গানের আসরে অবাক হয়ে চেয়ে থাকতাম, বুঝতে শিখলাম বাবা অসাধারণ কিছু সৃষ্টি করেন তার এই ঘরে। যা গাইলেই বা শুনলেই কেমন অদ্ভুত ভালো লাগে! হেড ফোনের এতো প্রচলন ছিল না বা ব্যবহার্য ছিল না তখন। কিন্তু অদ্ভুত এক ঘোর লাগা থেকেই গানটি বারবার শুনতাম। আর বাবার সুরে রুনা আন্টির কোনো রেকর্ডিং-এ অবাক বিষ্ময়ে চেয়ে থাকতাম। কি করে একটা মানুষ এতো অসাধারণ কণ্ঠে গাইতে পারে। সেই আমার গানের ভেতরে প্রবেশ। এরপর একটু একটু করে নেশায় পড়া।

এক কিংবদন্তীর জন্মদিনে... 

সম্ভবত ১৯৯৮ সাল । আমার ফিল্ম রেকর্ডিংয়ের কম্পোজিশন। রুনা লায়লা-এন্ড্রু কিশোরের একটি গান বাঁধবো ‘মনে রেখো আমায়’ চলচ্চিত্রের জন্য।

বাবা রুনা আন্টিকে ফোন করে বললেন, ‘এক বিশাল মিউজিক ডিরেক্টর তোমার সাথে কথা বলবে। তোমার জন্য গান বেঁধেছে সে।’ টেলিফোনে বাবার এই বিশাল মিউজিক ডিরেক্টর শুনেই আন্টি বুঝে গেলেন কার কথা বলছেন উনি। পরে আমি ফোনে কথা বললাম। অবাক ব্যাপার হলো পারিবারিকভাবে অনেক আড্ডা, গল্প হয়েছে। কিন্তু সেই ফোন কলে আমি এক কিংবদন্তী শিল্পীর সাথে কথা বললাম। তিনিও ঠিক একজন মিউজিক ডিরেক্টরের সাথে কথা বলার ঢঙেই আলাপ করলেন। আবারও অবাক হলাম এই অসাধারণ পেশাদারিত্ব দেখে।  এ কারণেই আন্তর্জাতিকমানের একজন শিল্পী তিনি । এরপর রেকর্ডিং অবধি ঠিক শিল্পী-মিউজিক ডিরেক্টর সম্পর্কের চলাচল। আবার হয়তো কোনো ঘরোয়া আড্ডা, তখন তিনি আমার শ্রদ্ধার ‘রুনা আন্টি’। এই অসাধারণ সম্পর্কের জের ধরেই প্রায় অর্ধশত গান করে ফেললাম। আরেকটি বিষয় আমার জীবনের আরেক ভালোলাগা এবং অর্জন বলে মনে করি। তা হলো, বাবা সত্য সাহার সুরে ১৯৭৪-এ ‘জীবন সাথী’ নামের চলচ্চিত্রে রুনা লায়লা প্লে-ব্যাক শুরু করেছিলেন। একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পেয়েছেন। একইসাথে গত বছরে ‘দেবদাস’ ছবিতে আমার কম্পোজিশনে গান গেয়ে রুনা লায়লা আরও একবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। এটা একজন সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আমার ভেতরে অন্য এক ভালোলাগা কাজ করে। গর্বে মাথা উঁচু হয়ে যায়, যখন আন্তর্জাতিকমানের একাধিক শিল্পী রুনা লায়লাকে গুরু মেনে তার পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নেন। ভালো লাগে যখন বিশ্বখ্যাত মিডিয়াগুলোতে বাংলাদেশের শিল্পী রুনা লায়লাকে নিয়ে গর্বিত অক্ষরে ফিচার ছাপেন। তখন সশ্রদ্ধ ভালোলাগাটা এভাবে অনুভূত হয় যে, তিনি আমার রুনা আন্টি, আমাদের রুনা লায়লা, যার একাধিক গান করার আমি সুযোগ পেয়েছি। আজ আন্টি আপনার জন্মদিনে অনেক অনেক গর্বিত শব্দস্বরে বলি ‘শুভকামনা’। আমাদেরকে বারবার সুরের অহঙ্কার দেওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা। দেশের বাইরে গেলেই যেমন নিজের পরিচয়ে বলি, ‘আমি আমাদের দেশের বিশ্বখ্যাত রুনা লায়লার সঙ্গীত পরিচালক।’ এ সম্মান আপনার জন্য। যেভাবে প্রতিনিয়ত সম্মানিত করে চলেছেন আপনি এই দেশকে।


পাঠকদের জন্য ফেসবুক থেকে হ্যাপীর স্ট্যাটাস

রবিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৫

বাপসনিঊজ:বর্তমান সময়ের আলোচিত মডেল, চিত্রনায়িকা নাজনিন আক্তার হ্যাপী। তাকে আর ক্রিকেটার রুবেলকে নিয়ে নানান তর্ক, বিতর্ক এবং জল গোলা কম হয়নি। এসব কথা আর নতুন কিছু নয়। তবে নতুন কথা হলো দুনিয়াবি সকল কিছু ছেড়ে এবার আল্লাহর একজন খাস বান্দা হিসেবে নিজে তুলে ধরে বৃহস্পতিবার সন্ধায় তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসে লিখেছে ‘আল্লাহর সৃষ্টি চোখ দিয়ে টিভিতে নাচ-গান দেখা উচিৎ নয়’।

Picture

তার ফেসবুক থেকে স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

‘কোথা থেকে শুরু করব বুঝতে পারছি না!টিভিতে,পত্রিকাতে,অনলাইন সাইটে আমরা বিভিন্ন পন্যের মনোমুগ্ধকর বিজ্ঞাপন দেখি,এবং বিজ্ঞাপনের ঝলকে চোখই সরানো যায় না এবং অনেক পন্যের বিজ্ঞাপন দেখে আমরা তো প্রতিজ্ঞা করেই ফেলি যে, এটা কিনবোই!এবং নিজের কাছে টাকা না থাকলেও বাবা/মা/ভাই/স্বামী কাউকে না কাউকে চাপ দিয়ে হলেও জিনিসটা চাই!

কোন তারকার সাথে দেখা করার অফার? দিন রাত এক করে কিভাবে ভাগ্যবান/ভাগ্যবতী উইনার হয়ে কিভাবে তারকার সাথে দেখা করা যায়,তারপর কিভাবে সেলফি তোলা যায় এসব ভেবে পাগল হয়ে যাই।তারপর বন্ধুদের বলতে হবে, আমি কার সাথে দেখা করছি জানিস? এই দেখ সেলফি দেখ! একটু ভেবে বলুন তো এসবের পেছনে ছুটে,এসব নিয়ে চিন্তা ভাবনা করে আসলে কোন ফায়দা আছে?

প্রকৃত অর্থে হচ্ছে ঈমান নষ্ট করার জন্য এসবই যথেষ্ট। দুনিয়ার কান্ড-কারখানা দেখে আর সেসবে গা ভাসিয়ে ফায়দা দুনিয়া পর্যন্তই শুধু হতে পারে। কিন্তু আখিরাতে? আমরা এসবে মনযোগ দিয়ে আল্লাহর কাছ থেকে দূরে সরে যাচ্ছি। একসময় এতটাই দূরে চলে যাব যেখান থেকে আল্লাহর কাছে ফেরা কঠিন হয়ে যাবে। কারণ যতটা আগ্রহ আমাদের দুনিয়া নিয়ে, সেই তুলনায় আখিরাত নিয়ে ভাবাটা আমাদের কাছে সময়ের অপচয় ছাড়া আর কি!

আমরা বারবার ভুলে যাই যে, আমরা শুধু আল্লাহর ইবাদাতের জন্য দুনিয়াতে এসেছি। ইবাদাত ছাড়া আর কোন কিছুতে পাগল হওয়ার মানেই আগুন। আমরা যে চোখ দিয়ে টিভিতে নাচ-গান দেখে আল্লাহর আদেশ অমান্য করি, সেই চোখ তো তারই দেওয়া! তিনি দেখতে দিয়েছেন, অবশ্যই এই চোখ দিয়ে এমন কিছু দেখা উচিৎ নয়, যেটাতে আল্লাহ অখুশি হবেন। তারকার সাথে দেখা করার যতটা আগ্রহ থাকে আমাদের মাঝে, এই আগ্রহটা যদি আল্লাহর সাথে দেখা করার জন্য হত তাহলে হয়তো আমরা আল্লাহর রহমতকে ছায়ার মত পাশে পেতাম,না জানি এর কত দামী উপহার আল্লাহ দিতেন! আল্লাহর চিন্তা ছাড়া অন্য কিছুতে অস্থির হওয়ার মানে নিঃসন্দেহে আগুনের দিকেই যাচ্ছি।নিশ্চয় সেই আগুন খুবই যন্ত্রণাদায়ক!আসুন, আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই আর শুধু তারই ইবাদাত করি,মিথ্যা দুনিয়ায় ব্যস্ত না হয়ে শুধু পরকাল নিয়েই ভাবার প্রতিজ্ঞা করি’।



‘অযৌক্তিক আচরণে’র দায়ে ভাঙল মি. বিনের সংসার !

শনিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৫

Picture

বাপসনিঊজ:কৌতুক অভিনেতা রোয়ান এটকিনসন। ডাকনাম রো। দর্শকদের কাছে যিনি মি. বিন নামেই পরিচিত। সম্প্রতি তাদের দীর্ঘ ২৪ বছরের সংসার জীবনে ছেদ পড়েছে।মি. বিন ১৯৯০ সালে সুনেত্রা শাস্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। সম্প্রতি তাদের বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। তাদের ২৪ বছরের সংসার বিচ্ছেদ হয় মাত্র ৬৫ সেকেন্ডের শুনানিতে। বেনজামিন এবং লিলি নামে রোয়ান-সুনেত্রা’র ঘরে দুইটি সন্তান রয়েছে।

altগত বছর থেকেই তারা দু-জন আলাদা বসবাস করছিলেন বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে শোনা যাচ্ছিল। মি. বিন গত ১৮ মাস ধরে ৩২ বছর বয়সী তারকা লুইস ফোর্ডের সঙ্গে চুটিয়ে প্রেম করছেন। এ বিষয়টিকে তাঁর সাবেক স্ত্রী  বিবিসির প্রাক্তন মেকআপ শিল্পী স্ত্রী সুনেত্রা শাস্ত্রী ‘অযৌক্তিক আচরণ’ বলেছেন। আর এই অযৌক্তিক আচরণকে যৌক্তিক মনে করে আদালত বিচ্ছেদের রায় দিয়েছেন। তবে বিবাহ বিচ্ছেদের রায় পড়ার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন না রোয়ান-সুনেত্রা। 

altইংলিশ অভিনেতা, কমেডিয়ান এবং নাট্যকার রোয়ান এটকিনসন ১৯৯০ সালে ইংল্যান্ডের একটা টিভি সিরিজে মি. বিন চরিত্রে হাজির হন। এই সিরিজ এবং এর সঙ্গে রোয়ান এতটাই জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন যে তার আসল নাম ছাপিয়ে তিনি মি. বিন নামেই সবার কাছে অধিক পরিচিত হয়ে ওঠেন। মি. বিন ছাড়াও এ সময় তিনি দ্য ব্ল্যাক অ্যাডার এবং ফানি বিজনেসসহ বেশ কয়েকটি তুমুল জনপ্রিয় টিভি সিরিজে নিয়মিত অভিনয় করেন। ২০০৫ সালের রম্যদর্শকদের ভোটে ব্রিটিশ কমেডি ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ৫০ কমেডিয়ানের তালিকায় স্থান পেয়েছিলেন মি. বিন।


নিউইর্য়ক প্রবাসী স্বামীকে রেখে প্রযোজকের সঙ্গে হোটেলে রাত কাটালেন রুমানা

সোমবার, ০২ নভেম্বর ২০১৫

Picture

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :মাত্র কয়েকদিন আগেই আবার বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন মডেল ও অভিনয়শিল্পী রুমানা খান। পাত্র এলিন রহমান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক ও ব্যবসায়ী।

rumana alin biye
খুব ধুমদাম করে বিয়ে হলেও মাত্র ৩ মাসের মধ্যেই অন্য পুরুষের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন ৩ বিয়ে করা এই অভিনেত্রী।

rumana bd

বাংলাদেশি সিনেমার এক প্রযোজক সঙ্গে ম্যানহাটনের একটি হোটেলে রাত কাটানোর পর স্বামী এলিনের সঙ্গে এ নিয়ে তুমুল ঝগড়া হয়েছে। এমন খবরই প্রকাশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত একটি বাংলা অনলাইন পত্রিকা।

Rumanaউল্লেখ্য, রুমানার এটা তৃতীয় বিয়ে। এর আগে তিনি প্রথমে উপস্থাপক ও নির্মাতা আনজাম মাসুদকে বিয়ে করেন। পরে সে বিয়ে ভেঙ্গে গেলে সাজ্জাদ নামে ঢাকার আরেক ব্যবসায়ীর সঙ্গে ঘর বাঁধেন রুমানা। বছর খানেক আগে তিনি আমেরিকায় চলে যান। সেখানে ব্যবসায়ী এলিন রহমানের সঙ্গে পরিচয় হয় এরপর তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত। আর এই বিয়েও এলিনের দ্বিতীয় বিয়ে।


অন্যরকম এক জন্মদিন, সন্ধানীর সঙ্গে, উদযাপন করলেন কন্ঠশিল্পী মেহরিন!

শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৫

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:মানুষের জন্য ভালোবাসায় আপ্লুত হয়ে থাকেন একজন শিল্পী মেহরিন। সেই ভালোবাসা থেকে এবার নিজের মরণোত্তর চোখ আর রক্তদান করে একেবারেই অন্যরকম জন্মদিন পালন করলেন দেশের জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী মেহরিন। ‘ছোটোবেলা বাবা-মাকে দেখেছি গ্রামের স্কুলে, বুড়ো মানুষদের চোখে চশমা পরিয়ে দিচ্ছেন। গত বছর আমিও আমার গ্রামে প্রায় শ’ খানেক মানুষের চোখের ছানি অপারেশন করাতে সমর্থ হয়েছি কেবল আমার এই ‘সন্ধানী’ বন্ধুজনের অবদানে।’

10302015_10_SINGER_MEHRIN

‘৩০ অক্টোবর আমার জন্মদিন ইচ্ছা ছিল হৈ-হুল্লোড় করে পালনের। কিন্তু কেন জানি মন টানলো অন্যদিকে। কী যেন ভেবে হুট করেই সন্ধানীকে বললাম, আমাকে ভালো কিছু করতে দিবেন ? কারো জন্য সত্যিকার কোনো ভালো কিছু ? রাজি হলেন ওনারা।’‘এর আগেও তাদের সাথে রক্তদান আর আই-ব্যাংকের জন্য কাজ করেছি। অনেক বছর আগে সন্ধানীর সাইফুল ভাই-ই আমাকে দেখিয়েছিলেন উনাদের আই-ব্যাংক যা মূলত খালিই থাকে। এবার আমি নীলখেত সন্ধানীর কার্যালয়ে গিয়ে, মরণোত্তর চোখ দানের মাধ্যমে, রক্ত দানের মাধ্যমে আমার জন্মদিনটি সত্যিকার অর্থেই উদযাপন করতে পারলাম। নিজেকে অনেক বেশি তৃপ্ত মনে হলো।’

‘হৃদয়ের কাছাকাছি অল্প কিছু বন্ধুরাই এসেছিলেন আমার আয়োজনে। তাছাড়া, মরণের পর আর কীই বা থাকে আমাদের। কিন্তু আমার চোখ বেঁচে থাকবে অন্যের মাঝে, এই সুন্দর পৃথিবীতে। এই অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবে দৃষ্টিহীন আরও একজন মানুষ। এর চেয়ে বেশি আর কী চাওয়া, কিংবা পাওয়া থাকতে পারে আমাদের!’ নিজের অনুভূতি মুচকি হেসে জানালেন কন্ঠশিল্পী মেহরিন।

10302015_11_SINGER_MEHRIN

শিল্পীর এ উদ্যোগকে সাধুবাদ ও সংহতি জানিয়ে ‘তুমি আছো বলে’ আর ‘রাজকুমার’ খ্যাত সুন্দর মনের মেহরিনের অসাধারণ এ আয়োজনে আরও ছিলেন সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. আফসারুল কাদের, রোকেয়া হলের প্রভোস্ট রওশন আরা, মুক্তিযোদ্ধা ও সংগঠক রুহেল আহমেদ বাবু, রঙ-এর ডিজাইনার বিলব সাহা, কন্ঠশিল্পী সায়ান ও মিনার, ছড়াকার অনিক খান, বারডেম এর ফুসফুস বিশেষঞ, ডা. দেলোয়ার হোসেন, সন্ধানী ন্যাশনাল আই ডোনেশন সোসাইটির সেন্ট্রাল কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মজুমদার, প্রফেসর ডা. আলি আসগর, সভাপতি ডা. জয়নাল আবেদিন, সহ-সভাপতি ডা. জয়নুল ইসলাম।

প্রসঙ্গত, আয়োজনে সহযোগী ছিলেন ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড এবং রাণী স্টিল। সমগ্র তত্বাবধানে গো-গার্ল এবং কুল এক্সপোজার। পাশাপাশি, আগামী ৬ নভেম্বর, শুক্রবার, বেলা ১১ টায় সন্ধানীর নীলক্ষেত কার্যালয়ে হতে যচ্ছে প্রতীকী চক্ষুদান ও প্রীতি সম্মিলনী।


একই মঞ্চে গাইবে চিরকুট ও লেডি গাগা!

শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৫

বাপসনিঊজ:প্রতিবছর আমেরিকার শহর অস্টিনে বসে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ মিউজিক ফেস্টিভাল ‘সাউথ বাই সাউথ’। এতে  বিভিন্ন দেশের সহস্রাধিক অভিনয়শিল্পী, নির্মাতা, গানের দল ও সংগীতশিল্পীরা অংশ নেয়। আগামী আসর বসবে ২০১৬ সালে মার্চে। এবার বাংলাদেশ থেকে উৎসবে অংশ নেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ পেয়েছে বাংলাদেশের ব্যান্ড দল ‘চিরকুট’।অনুষ্ঠানে লেডি গাগাসহ কোল্ডপ্লে, মেটালিকা, মেগাডেথ, ফু ফাইটার্স, স্নুপ ডগের মতো বিশ্বের বাঘা বাঘা সব শিল্পীদের সঙ্গে একই স্ট্রেজে পারফর্ম করবে চিরকুট। 

alt

চিরকুটের ফেসবুক পেজে জানানো হয়েছে, ‘খুশির খবরটা ভাগাভাগি করে নিতে দেশ-বিদেশ থেকে শুভাকাঙ্খীদের অসংখ্য ফোন, এসএমএসে শুভেচ্ছার বিপরীতে কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা সত্যিই আমাদের নেই। তবে আপনাদের এই নিঃশর্ত ভালোবাসার প্রতিদান দেবার আপ্রাণ চেষ্টা করবো অস্টিনের মঞ্চে। সময় এখন বড় কিছু করার। গ্লোবাল মিউজিক এগিয়েছে অনেক দূর। আমরা কেন থেমে থাকবো। থামার কোন মানে নেই, শুরু হোক এখানেই।’উল্লেখ্য, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র থেকে ৪০ দিনের সফর শেষে দেশে ফিরেছেন চিরকুটের সদস্যরা।


লোকচক্ষুর আড়ালে কেমন ছিল তিন্নির সংসার?

শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৫

Picture

বাপসনিঊজ:বর্তমান সময়ের গরম খবর- বিয়ে করেছেন মডেল অভিনেত্রী তিন্নি। বরের নাম আদনান হুদা সাদ। পারিবারিক ভাবেই তাদের এই বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু মজার বিষয় হলো, বিয়ে কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে হয়নি। প্রায় দেড় বছর আগেই মালা বদল করেছেন তারা। কিন্তু হঠাৎ করে মিডিয়ায় বিয়ের খবর প্রচার হয়ে যাওয়ার সামনে এসেছে লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা তাদের সংসার।

জীবনের নানা চড়াই উৎরাই পেরিয়ে বিবাহিত জীবনে সুখে আছেন তিন্নি- খবরটি শুধু তার ভক্তদের জন্য নয়, মিডিয়া সংশ্লিষ্ট প্রায় সকলের কাছেই সুসংবাদ। মডেলিং ও অভিনয় নিয়ে ক্যারিয়ারের শীর্ষ সময়ে হঠাৎ করেই হারিয়ে যান তিনি। বিয়ে, সন্তান, ডিভোর্স এবং পরবর্তীতে যোগাযোগবিচ্ছিন্ন হয়ে একাকী জীবন যাপন করছিনেল তিন্নি। তবে ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ীরা বরাবরই চাইতেন, তিনি আবারও ফিরে আসুন মূল স্রোতে।

মেধাবী অভিনেত্রী তিন্নি আবারও ফিরছেন অভিনয়ে, এমন খবরও পাওয়া গেছে কয়েকবার। তিনি নিজেই ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তবে ফিরতে পারছিলেন না নানা কারণে। বিবাহিত জীবনে তিনি স্বামী, ননদ, মেয়ে ওয়ারিশা, ভাস্তি, ভাগ্নি এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে তোলা ছবি পোস্ট করেছেন ফেসবুকে। ছবিতেই বোঝা যায়, সংসার জীবনে সুখেই আছেন তিন্নি। লোকচক্ষুর আড়ালে রাখা সংসার সম্পন্ন হোক স্বাচ্ছন্দ্যে- এটাই সকলের চাওয়া। 


কোরিয়ায় বাংলাদেশি নির্মাতার সাফল্য

বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০১৫

বাপসনিঊজ:বাংলাদেশি নির্মাতা শেখ আল মামুন পেলেন ‘ওয়ার্ল্ড মাইগ্রেন্ট টেলিভিশন এ্যাওয়ার্ড’। কোরিয়া প্রবাসী এই নির্মাতা ‘পিনান’ নামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের গল্পের জন্য এই পুরস্কারটি পেয়েছেন। কোরিয়ান শব্দ ‘পিনান’- এর বাংলা হল আশ্রয়প্রার্থী। কিছু আশ্রয়প্রার্থীর গল্প নিয়ে এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেবেন মামুন।

Picture

মামুন বলেন, ‘প্রতি বছর প্রবাসী নির্মাতাদের জন্য ‘ওয়ার্ল্ড মাইগ্রেন্ট টেলিভিশন’ এই এ্যাওয়ার্ড-এর আয়োজন করে। সেখানে ‘পিনান’-এর গল্প জমা দিয়েছিলাম। এতে এ বছরের সেরা গল্প হিসেবে এটি পুরস্কার পেয়েছে এটা তো অবশ্যই আনন্দের এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য এটা গর্বেরও।’শেখ আল মামুন দীর্ঘ দিন ধরেই দক্ষিণ কোরিয়ায় বসবাস করছেন। তিনি মূলত তথ্যচিত্র, প্রামাণচিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন।


ছোটপর্দায় কোন তারকার কত পারিশ্রমিক?

মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০১৫

বিনোদন ডেস্ক : দিন যত যাচ্ছে, অভিনয়শিল্পীদের সম্মানী ততই বাড়ছে। ব্যক্তিজীবনের ব্যয় এবং ব্যবহার্য দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধির কারণে তারকারাও সম্মানী বাড়াতে বাধ্য হচ্ছেন।গত দুই বছরের তুলনায় বর্তমানে জনপ্রিয় তারকারা দিনপ্রতি প্রায় ৫ হাজার টাকা করে বেশি নিচ্ছেন। এর ফলে মাহফুজ আহমেদ, তৌকীর আহমেদ, আনিসুর রহমান মিলন, মোশাররফ করিম এবং চঞ্চল চৌধুরীর পারিশ্রমিক ১৫-২০ হাজার থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০-২৫ হাজার টাকায়।

অন্যদিকে, বিদ্যা সিনহা মিম, মম, শখ ও মেহজাবীন পারিশ্রমিক ১২-১৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে ১৫-২০ হাজার টাকা করে নিচ্ছেন। তারকাদের পারিশ্রমিক কত, এ নিয়ে ভক্তদের মনে কৌতূহলের অন্ত নেই। অন্যদিকে অধিকাংশ তারকাই তাদের পারিশ্রমিকের ব্যাপারে খোলামেলা আলোচনা করতে রাজি নন।

তবে বেশ কয়েকজন পরিচালকের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে তারকাদের পারিশ্রমিকের একটি তালিকা পাওয়া গেছে। তারকারা সাধারণত দুইভাবে পারিশ্রমিক নিচ্ছেন।

Picture

প্রথমত, প্রতিটি খণ্ড নাটক নির্মাণের হিসাব অনুসারে। দ্বিতীয়ত, দীর্ঘদিন শুটিংয়ের ক্ষেত্রে (ধারাবাহিক নাটক) দিন হিসেবে। কিছু কিছু সিনিয়র শিল্পী গত কয়েক বছর ধরেই পারিশ্রমিক নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখেছেন। তবে সদ্য জনপ্রিয়তা পাওয়া কিংবা উঠতি শিল্পীরা প্রতি বছরই পারিশ্রমিক বাড়িয়ে চলেছেন। পরিচালকদের ধারণা, আগামী বছর থেকে উঠতি শিল্পীরা তাদের পারিশ্রমিক দেড়গুণ বাড়াতে পারেন।

তবে এ ব্যাপারে কয়েকজন অভিনয়শিল্পীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি এবং আনুষঙ্গিক খরচ বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা হলেও তাদের পারিশ্রমিক বাড়াতে হয়েছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, জনপ্রিয়তা এবং অভিজ্ঞতা বাড়ার পাশাপাশি পারিশ্রমিক বাড়ানোটা যুক্তিসঙ্গতই বটে। তারকাদের পারিশ্রমিকের তালিকায় দিনপ্রতি সবচেয়ে বেশি টাকা নিচ্ছেন এটিএম শামসুজ্জামান ও জাহিদ হাসান। তারা বর্তমানে ২৫-৩০ হাজার টাকা করে সম্মানী নিচ্ছেন।

তাছাড়া মাহফুজ আহমেদ, মোশাররফ করিম, চঞ্চল চৌধুরী, আনিসুর রহমান মিলন, তৌকীর আহমেদ, সুবর্ণা মুস্তাফা, অপি করিম, সাদিয়া ইসলাম মৌ এবং তারিনের মতো তারকারা ২০-২৫ হাজার টাকা করে নিয়ে থাকেন।

ফজলুর রহমান বাবু, সজল, মীর সাবি্বর, হাসান মাসুদ, হিল্লোল, নাদিয়া, কুসুম শিকদার, ফারহানা মিলি, শহীদুজ্জামান সেলিম, আজিজুল হাকিম, শাহেদ শরীফ খান, অপূর্ব, মৌসুমী নাগ, রিচি সোলায়মান, বিদ্যা সিনহা মিম, জাকিয়া বারী মম, শখ, নওশীন এবং মেহজাবীনের মতো অভিনেত্রীরা ১৫-২০ হাজার টাকা করে নিচ্ছেন।

আর গোলাম ফরিদা ছন্দা, বন্যা মির্জা, নাজনীন চুমকি, হোমায়রা হিমু, জেনি, জ্যোতিকা জ্যোতি, প্রাণ রায়, মাজনুন মিজান, নিলয়, নাঈম, কল্যাণ, নিশো, অপর্ণা, স্বাগতা, শশী, ঈশানা, অহনা, মৌসুমী হামিদ, মৌটুসী বিশ্বাস-এদের প্রত্যেকেই ১২-১৫ হাজার টাকা করে নিচ্ছেন। এর পাশাপাশি অর্ষা, মিমো, রুনা খান, তানিয়া হুসাইন, আশা, প্রিয়া আমান, ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর এবং বীথি রানী সরকারের মতো অভিনয়শিল্পীরা ১০-১২ হাজার টাকা করে সম্মানী নিয়ে থাকেন।

বর্তমানে যারা ১০ হাজার কিংবা তারও কম টাকা নিচ্ছেন, তাদের মধ্যে অনেকেই আগামী বছর থেকে ১২-১৫ হাজার টাকা নেবেন বলে জানা গেছে।


প্রিয়তি জানতেন না তিনিই প্রথম রানারআপ!

সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০১৫

বাপসনিঊজ:দ্বীপরাষ্ট্র জ্যামাইকায় মিস আর্থ ২০১৫ প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফিনালে হয়ে গেছে গত ১৯ অক্টোবর। এতোদিন পর কেনো মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি প্রথম রানারআপ হওয়ার খবর পেলেন? ভাববেন না আয়োজকদের ভুল। ভুলটা প্রিয়তির নিজেরই! রোববার (২৫ অক্টোবর) ফেসবুকে বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত মিস আয়ারল্যান্ড প্রিয়তি বলেন, ‘একটি জরুরি ঘোষণা! গর্বের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমিই মিস আর্থ ২০১৫ প্রতিযোগিতার প্রথম রানারআপ। জানি এ খবর হতবাক করার মতো। আসলে এটা আমারই ভুল।’

Picture


ভুলটা কীভাবে হলো? কারণ গ্র্যান্ড ফিনালের গোটা আয়োজন শেষ হওয়ার আগেই অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন প্রিয়তি। কার মাথায় মুকুট উঠবে তা আগেই জানতে পেরে তিনি হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। ফ্লাইটে চড়ার জন্য পরের দুই ঘণ্টার মধ্যে হোটেলও ছাড়তে হয়েছে তাকে। তাই কারও সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ হয়নি।

alt

গতকাল শনিবার (২৪ অক্টোবর) রাতে মিস ও মিসেস আর্থ প্রতিযোগিতার পরিচালক ফোন করে প্রথম রানারআপ হওয়ার খবর দেন প্রিয়তিকে। তিনি সেখানে না থাকায় উত্তরীয় আর সনদপত্র তুলে দিতে পারেননি আয়োজকরা। তবে কুরিয়ারে এগুলো তারা পাঠিয়ে দিচ্ছেন আয়ারল্যান্ডে, প্রিয়তির কাছে।

ঈদের দিন আকাশে উড়বেন প্রিয়তি

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিবাহিত ও অবিবাহিত সুন্দরীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত মিস আর্থ প্রতিযোগিতার সেরা পাঁচে জায়গা করে আরও তিনটি বিভাগে পুরস্কার জিতেছেন প্রিয়তা। এগুলো হলো ‘মিস কমপ্যাশনেট’, ‘মিস বেস্ট গাউন’ ও ‘মিস ফিটনেস’। এবার প্রথম রানারআপ হওয়ার খবরও পেলেন। তিনি ভেবেছিলেন প্রথম রানারআপ হয়েছেন মিজ নেদারল্যান্ডস। সে তথ্য যে ভুল, ফেসবুকে সেটাও জানিয়ে দিলেন তিনি।



১৪ বছর আগে আয়ারল্যান্ডে পাড়ি জমান প্রিয়তি। পড়াশোনা শেষ করে স্থায়ী হয়েছেন আয়ারল্যান্ডেই। বৈমানিক হওয়ার প্রশিক্ষণ নিয়ে বেসরকারি বৈমানিক হিসেবে কর্মরত আছেন ওই দেশের একটি প্রতিষ্ঠানে। গত বছর ‘মিজ আয়ারল্যান্ড-২০১৪’ খেতাব পান তিনি।


যেন ঢালিউডের সালমান

বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০১৫

বাপসনিঊজ:নিরব চলচ্চিত্রে নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা করছেন। অভিনয়ের খুঁটিনাটি বিষয়গুলোর ওপর জোর দেওয়ার জন্য ক্রমশ শিখছেন। আর দশজন অভিনেতার বাইরে নিরবের লড়াইটা ভিন্ন প্যাটার্নের। চলচ্চিত্রে শক্ত অবস্থান তৈরির কাজটা চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছেন। চেষ্টা করছেন। এসবের বাইরে নিরব যে কাজটা করছেন তা শুধু বলিউডের সালমান খান করেন।

Picture


গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠের প্রিন্ট এডিশনে 'ফেসবুকে পাওয়া নায়িকা' শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়। যেটা ফেসবুকের মন্তব্য বাক্সে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া আসে। এগুলোর মধ্যে অবেশ কিছু মন্তব্য একই ধরনের, যেমন বাংলাদেশের সালমান খান নিরব, নিরব সালমানের মতোই উদার। এইসব।
যেন ঢালিউডের সালমান

কেন সালমানের প্রসঙ্গ আসছে? বলিউডের স্নেহা উলাল থেকে শুরু করে বর্তমানের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ ক্যাটরিনা কাইফ সালমানের হাত ধরেই বলিউডে পা রাখেন। শুধু তাই নয় সালমান খানের উদারতার পরিচয় বলিউডে সবাই জানে। ভক্তদের মতে তাহলে নিরব কি সে পথেই হাঁটছেন?


ঢাকাই চলচ্চিত্রে অমৃতা খান, তমা মির্জা, তানহা তাসনিয়াকে চলচ্চিত্রে নিয়ে আসেন নিরব। ইতোমধ্যে তানহার কোনো ছবি মুক্তি না পেলেও বেশকিছু আলোচিত ছবিতে সাইন করে ফেলেছেন। তমা মির্জাও নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে না পারলেও ট্র্যাক থেকে ছিটকে পড়েন নি। তানহার ঝুলিতে রয়েছে শাকিব খানের সাথে একটি ছবি। অমৃতা 'গেইম' ছবির মধ্য দিয়ে আলোচনাতে থাকলেও পরবর্তীতে দীর্ঘদিন বিদেশে অবস্থান করায় এখন ব্যস্তহীন সময় কাটাচ্ছেন। তবে মিডিয়ায় তাঁর কাজ থেমে নেই। এবং গ্রহণযোগ্যতাও রয়েছে অমৃতার।
যেন ঢালিউডের সালমান

এরই মধ্যে হেলেন নামের এক মেয়েকে চলচ্চিত্রে নিয়ে এসে আলোচনা এলেন নিরব। আর তাই নিরব ভক্তদের এই 'নিরব বন্দনা।'এ বিষয়ে নিরবের সাথে কথা বললে তিনি বললেন আসলে ব্যাপারটা সেরকম নয়। ভক্তরা যেহেতু আমাকে ভালোবাসে তাই সবসময় বাড়িয়ে বলবে এটাই স্বাভাবিক। আমি কখনো সেই ক্রেডিট নিতে চাই না। একজন সহ-শিল্পীকে যতটুকু সহায়তা আমার পক্ষে করা সম্ভব আমি ততটুকুই করি। নবাগতা হেলেন 'দেশ আমাদের' ছবিতে নিরবের বিপরীতে অভিনয় করবেন।

যেন ঢালিউডের সালমান

কিভাবে এলেন হেলেন? নিরবের সাথে ফেসবুকে যুক্ত ছিলেন হেলেন। হেলেন অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ দেখালেন। যেমনটা বড় পর্দায় কাজ করার আগ্রহ থাকে সবার তেমনি ঘটেছে হেলেনের ক্ষেত্রে। এর আগে কিছু বিজ্ঞাপনের কাজ করেছেন তিনি। নিরব হেলেনের কথা পরিচালক আলী আজাদকে জানান। আজাদ হেলেনকে চূড়ান্ত করলেন। আগামী ১ নভেম্বর 'দেশ আমাদের' ছবির শুটিং শুরু হবে।