Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

নিউয়র্কের খবর

ব্রঙ্কসে মিলেনিয়াম টিভির প্রধান কার্যালয় উদ্বোধন

মঙ্গলবার, ০৫ এপ্রিল ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক প্রতিনিধি : ব্রুকলিন ও জ্যাকসন হাইটস এ শাখা অফিসের পর এবার ব্রঙ্কস এ উদ্বোধন হলো মিলেনিয়াম টিভির প্রধান কার্যালয়। আজ শনিবার ব্রঙ্কসের ছায়াঘেরা টেলর এভিনিউতে অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে ফিতা কেটে এর উদ্বোধন করেন মিলেনিয়াম টিভির প্রেসিডেন্ট নূর মোহাম্মদ এবং চেয়ারম্যান আয়েশা নূর।

Picture

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন এসেম্বলীম্যান লুইস সেপুলভেদা। পবিত্র কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। তেলওয়াত করেন নর্থ ব্রঙ্কস জামে মসজিদের ইমাম মোঃ মাসুদ ইসলাম। এ সময় ব্রঙ্কসসহ নিউইয়র্কের কমুনিটি নেতা ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

alt 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে লুইস সেপুলভেদা বাংলাদেশীদের প্রশংসা করে বলেন, জাতি হিসেবে বাংলাদেশীরা সংগ্রামী ও কর্মনিষ্ঠ। ব্রঙ্কসে এথনিক টিভি হিসেবে মিলেনিয়াম টিভির যাত্রা এক সাহসী পদক্ষেপ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এজন্য নূর মোহাম্মদকে ব্রঙ্কস বাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাই। এখানকার বাংলাদেশী কমুনিটির রাজনীতি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড এগিয়ে নিয়ে যেতে মিলেনিয়াম বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আমি মিশ্বাস রাখি।

alt 

মিলেনিয়াম টিভির প্রেসিডেন্ট নূর মোহাম্মদ বলেন, বিশ্বজুড়ে বাংলা ছড়িয়ে দিতেই মিলেনিয়াম টিভি যাত্রা শুরু করেছে। তিনি বলেন, এই টিভির বিশেষত্ব হচ্ছে এটা বাংলাদেশ সরকার এবং আমেরিকান সরকারের লাইসেন্স প্রাপ্ত টিভি স্টেশন। বিবিসি, সিএনএন, ফক্স, এবিসি যে লাইসেন্স নিয়ে কাজ করছে আমরা সে একই লাইসেন্স নিয়েছি। তাই এটা শুধুমাত্র কমুনিটি টিভি নয়, মূলধারার টিভি হিসেবে খুব শিগগিরই ইংরেজী ভাষায় সম্প্রচার শুরু করবে।

alt 

অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন মিলেনিয়াম টিভির এ্যাডভাইজার ও হোস্ট দিমা নেফারতিনি ও চীফ নিউজ এডিটর সাখাওয়াত সেলিম।অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষাবিদ নাইমা খান, আইনজীবি এন. মজুমদার, নাসরিন আহমেদ, রিয়েলেটর জাকির খান, ডেমোক্রেট নেতা শহীদ খান, আরএলবি গ্রুপের চেয়ারম্যান আকতার হোসেন বাদল, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, কবি ও লেখক নাসরিন চৌধুরী, নরসিংদী জেলা সমিতির সহ সভাপতি আহসান হাবিব, এ্যাডভোকেক আব্দুল কাইয়ুম, এ্যাডভোকেট নাসির, কন্ঠশিল্পী রোজি আক্তার, ব্যবসায়ী এমএ মালেক প্রমুখ।

alt 

এদের মধ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, শিক্ষাবিদ নাইমা খান, নাসির উদ্দীন, শহীদ খান, ডাঃ প্রবাল দাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকীত চৌধুরী, ডাঃ আলী আহমেদ, আশরাফুল মৃধা, আকতার হোসেন বাদল, রফিকুল ইসলাম, নাসরনি আহমেদ, আব্দুর রহিম বাদশা, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, মিলেনিয়াম টিভির প্রেসিডেন্ট নূর মোহাম্মদ, চীফ নিউজ এডিটর শাখাওয়াত সেলিম, টিভির ব্রুকলিন ব্যুরো চীফ মোহাম্মদ মাহাব, মাইনুল আলম বাপ্পী, পরিচালক নিশাত নূর প্রমুখ।

alt 

অনুষ্ঠানে দেশের গান পরিবেশন করেন প্রবাসের পরিচিত শিল্পী জিল্লুর রহমান ও রোজি আক্তার। স্বরচিত কবিতা পড়ে শোনান কবি ও লেখক নাসরিন চৌধুরী।


জাফর চৌধুরীকে জেএসডি’র বিদায়

মঙ্গলবার, ০৫ এপ্রিল ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ :প্রবাসের সুপরিচিত ও প্রগতিশীল সংগঠক জাফর চ্যেধুরী দীর্ঘ ২৫ বছর পর দেশে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার গত ৩১ মার্চ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় নিউইয়র্কের বাঙ্গালী অধ্যাষিত জ্যাকসন হাইটসের মুক্তিযোদ্ধা আবু জাফর মাহমুদ এর অফিস ভবনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার কর্তৃক এক বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন লিটনের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক শামসুউদ্দিন আহমেদ শামীমের পরিচালনায় অনুষ্টিত সংবর্ধনা অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধা কল্যান সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান আবু জাফর মাহমুদ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার উপদেষ্টা হাজী আহসান মাসুদ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল -জাসদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাধারন সম্পাদক নূরে আলম জিকু, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি কেন্দ্রীয় নেতা সারোয়ার হোসেন , জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি -যুক্তরাষ্ট্র শাখার সহ- সভাপতি সুভাষ মজুমদার, নূর আলম সেলিম এবং তারেক মাহমুদ প্রমুখ।খবর বাপসনিঊজ।

alt সংবধৃনা সভায় জাফর চৌধুরী বলেন, ২৫ বছর নিউইয়র্ক প্রবাসীদের সাথে একত্রে ছিলাম। যা আমার জীবনের একটি বিশেষ মুহূর্ত । কোন দিন ভুলবনা। সবাইকে মিস করবো ।এই সভার জন্য উপস্থিত সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। জাফর চৌধুরী সকল প্রবাসীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তাকে বিভিন্নভাবে সহযোগীতা করার জন্য।ছবিতে বাথেকে নূরে আলম জিকু, জাফর চৌধুরী ,মুক্তিযোদ্ধা আবু জাফর মাহমুদ, তারেক মাহমুদ,শামসুউদ্দিন আহমেদ শামীম, নূর আলম সেলিম, হাজী আনোয়ার হোসেন লিটন এবং হাজী আহসান মাসুদকে দেখায়াচেছ।ছবি:বাপসনিঊজ।
 


২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস ঘোষণার দাবি

মঙ্গলবার, ০৫ এপ্রিল ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিউজ:২৫ সে মার্চ শুক্রবার, দিবাগত রাত ৮ থেকে ১২টা ০১ মিনিট,নিউইয়র্কের বাঙ্গালী অধ্যাষিত জ্যাকসন হাইটসের পালকি সেন্টারে জেনোসাইড’ ৭১ ফাইন্ডেশন ইউএসএ-এর আয়োজনে এবং মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর যুক্তরাষ্ট্র কমান্ড , মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ , বঙ্গবন্ধু প্রচার কেন্দ্র সমাজকল্যান পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র, মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ, ঘাতক দালাল র্নিমুল কমিটি নিউইয়র্ক শেখ হাসিনা মঞ্চ যুক্তরাষ্ট্র, স্বাধীনতা চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ, বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএসএ, স্বদেশ ফোরাম ,আমেরিকা-বাংলাদেশ কমিউনিটি ডেভলাপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এবিসিডি আই), বাংলাদেশ আওয়ামী আইনজীবি পরিষদ, বাংলাদেশ পেশাজীবি সমন্বয় পরিষদ , বঙ্গবন্ধু সমাজকল্যান পরিষদ নিউইয়র্ক, বঙ্গমাতা পরিষদ,বনলতা-শিল্পী -সাহিত্যিক সাংবাদিক গোষ্ঠী, আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন, যুক্তরাষ্ট্রস্থ সোহরাওয়ার্দী স্মৃতি পরিষদ এবং মক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সম্মিলিত জোট প্রমুখের সহযোগিতায় অনুষ্টিত ২৫মার্চ কালরাত্রি স্বরণ এবং ৪৫তম মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে কর্মসূচী ছিল গণহত্যার শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা জানানো , দেশের গান ও কবিতা আবৃতি, গণহত্যা শীর্ষক সেমিনার ও আলোচনা সভা ১২:০১ মিনিটে আলো নিবিয়ে গনহত্যার শহীদের স্বরণ এবং সম্মিলিত কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের উদযাপন।
alt
একাত্তরের পঁচিশে মার্চ কালরাতে বর্বর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর গণহত্যার শিকার বীর বাঙালিদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করলেন নিউইয়র্কের বাংলাদেশিরা। ভয়াল কালরাতের সেই গণহত্যার প্রতিশোধ স্পৃহায় মুক্তির সংগ্রামে শামিল হয়ে বীর বাঙালি ঝাঁপিয়ে পড়েছিল মুক্তি সংগ্রামে। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে হানাদার পাক বাহিনীকে পরাজিত করে বাংলার দামাল মুক্তিযোদ্ধারা ছিনিয়ে এনেছিল স্বাধীনতার লাল সূর্য।একাত্তরের বিভীষিকাময় সেই ভয়াল রাতের স্মরণে এবং মহান বিজয় বিজয় দিবস উপলক্ষে ‘জেনোসাইড ৭১ ফাউন্ডেশন, ইউএসএ জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে স্থানীয় সময় ২৫ মার্চ শুক্রবার দিবাগত রাতে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে রাত ১২টা ১ মিনিটে আধারে নিমজ্জিত কক্ষে মোমবাতি জ্বালিয়ে কালরাতকে স্মরণ করা হয়। নিউইয়র্কে বসবারত একাত্তরের রণাঙ্গণের বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রগতিশীল মুক্তচিন্তার মানুষেরা এতে অংশ নেন। এর আগে সন্ধ্যা থেকে কালরাতের গণহত্যার শিকার বীর বাঙালি এবং মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের স্মরণ করেন অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষেরা। এ অনুষ্ঠানে ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস ঘোষণার দাবি জানানো হয়।
 alt
প্রবাসের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জিএইচ আরজুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে নিহতদের স্মরণে প্রার্থনা সঙ্গীত পরিবেশন করেন জলি কর এবং কাবেরী দাস তার দল । এরপর স্বাগত বক্তব্য দেন জেনোসাইড ৭১’-এর সভাপতি ড. প্রদীপ রঞ্জন কর। অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্যের পাশাপাশি ছিল গান ও কবিতা। অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের গান পরিবেশন করেন সঙ্গীত পরিষদের শিল্পীরা। পরিচালনায় ছিলেন সঙ্গীত পরিষদের সভাপতি বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী কাবেরী দাশ। কবিতা আবৃত্তি করেন আবীর আলমগীর, মুমু আনসারী, সেমন্তী ওয়াহেদ, পারভীন সুলতানা, শুক্লা রায় প্রমুখ। প্রার্থনা সঙ্গীত পরিবেশন করেন সুব্রত দত্ত। অনুষ্ঠানে ‘জেনোসাইড’ শীর্ষক এক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এতে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন জেনোসাইড ৭১’র সভাপতি ড. প্রদীপ রঞ্জন কর। আলোচনায় অংশ নেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল  শামীম আহসান, সাপ্তাহিক ঠিকানার প্রধান সম্পাদক মুহাম্মদ ফজলুর রহমান প্রমুখ।
alt
আলোচনায় অংশ নেন মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ ,কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা খান মেরাজ, , মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ যুক্তরাষ্ট্রের সভাপতি খুরশীদ আনোয়ার বাবলু, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, পেশাজীবী সমšয় পরিষদের নেতা কৃষিবিদ আশরাফুজ্জামান, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি মোর্শদা জামান, প্রকৌশলী আশরাফুল হক, ওয়ার্ল্ড হিউম্যান রাইটসের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন, বঙ্গমাতা পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ সোহাগ, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি নিউইয়র্ক চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক স্বীকৃতি বড়ুয়া প্রমুখ।  
 alt
মূল প্রবন্ধে ড. প্রদীপ রঞ্জন কর একাত্তরের গণহত্যার ইতিহাস তুলে ধরার পাশাপাশি দেশে দেশে গণহত্যা, বাংলাদেশে গণহত্যা, গণহত্যার পাশাপাশি ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন, বাঙালিদের ওপর পাক সেনাদের নির্যাতনের নমূনা, বীরঙ্গণা নারী, গণহত্যা নিয়ে নিরবতা, পাকিস্তানিদের গণহত্যা অস্বীকারসহ নানা বিষয় তুলে ধরেন। পাশাপাশি বেশকিছু প্রস্তাবনা পেশ করে। এসবের মধ্যে রয়েছে- গণহত্যাকারীদের বিচার ও গণহত্যা রোধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে জনমত সংগঠিত করা, একাত্তরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর চিহ্নিত ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর বিচার, বিশ্বশান্তি ও মানবতার বোধের প্রতি বিশ্বের সব জাতি জাতি ও রাষ্ট্রকে দায়বদ্ধ থাকা, মানব ইতিহাসে যত গণহত্যা হয়েছে এর মধ্যে বাংলাদেশের ১৯৭১’র গণহত্যা স্বপ্নতম সময়ে সর্ববৃহৎ। তাই ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসাবে ঘোষণার দাবি জানানো হয়।
জেনোসাইড ৭১ ফাউন্ডেশন ইউএসএ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ড. প্রদীপ রঞ্জন কর শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এবং মুল প্রবন্ধ পাঠ করেন। আলোচনা করেন সাপ্তাহিক ঠিকানার প্রধান সম্পাদক ফজলুর রহমান। বক্তব্য রাখেন, প্রমুখ।

http://www.mujibsenanews.com/uploads/images/1459848564_2.jpg" style="width: 900px; height: 431px;" alt="">


উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাম শামসুউদ্দিন আজাদ , ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ সহ-সভাপতি সৈয়দ বশরত আলী,আবুল কাসেম, উপদেষ্টা হাকিকুল ইসলাম খোকন, দপ্তর সম্পাদক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাধারন সম্পাদক নূরে আলম জিকু ,  মুক্তিযোদ্ধা সংসদ যুক্তরাষ্ট্র কমান্ড কাউন্সিলের আহবায়ক আব্দুল মুকিত চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা কামরুল হাসান চৌধুরী, , মুক্তিযোদ্ধা ডা:টমাস দুলু রায়, মুক্তিযোদ্ধা রাশেদ আহমেদ,, মুক্তিযোদ্ধা অবিনাশ আচার্য , আশরাফ জামান, জালাল উদ্দিন জলিল, কায়কোবাদ খান, , মুক্তিযোদ্ধা গোলাম কুদ্দুস, হারুন অর রশীদ, নূরই আজম বাবু, শওকত আকবর , হেলাল মাহমুদ, মুনির মোস্তফী,আলী হাসান কিবরিয়া অনু, জাকির হোসেন ,হিরু ভূইয়া ,মোর্শেদা জামান, সাইদুর রহমান রেনু,আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নূরুজামান সরদার , সাধারন সম্পাদক সুবল দেবনাথ, শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের সভাপতি শাখাওয়াত বিশ্বাস , প্রবাসী কল্যান বিষয়ক সম্পাদক সোলাইমান আলী, মুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান সাইড, ওয়ার্ল্ড হিউম্যান রাইটস ডেভোলাপমেন্ট সাধারন সম্পাদক আক্তার হোসেন, খায়রুল আলম , মোজাহিদ আনসারী  সহ যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বিপুল সংখ্যক নেতৃবৃন্দ অনুষ্টানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন জলি কর , কাবেরী দাস এবং তার সঙ্গীত একাডেমী, আবৃতি করেন আবীর আলমগীর, মিঠুন আহমেদ মুমু আনসপরী ও সেমনতি ওয়াহেদ ,কবিতা আবৃতি পারভিন সুলতানা।এবং তবলায় ছিলেন পিনাক পানী গোসসামী।


বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএসএ-এর মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত

বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০১৬

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ: বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএস’র উদ্যোগে ৪৫তম স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্টান গত ২৮ মার্চ সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় অনুষ্টিত হয় নিউইয়র্কের এষ্টোরিয়ার বৈকালী রেষ্টুরেন্টে।

alt
বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএসএ সভাপতি মুনীর আহম্মেদ মুস্তাফীর সভাপতিতে ও সাধারণ সম্পাদক হারুণ অর রশীদ এর সার্বিক পরিচালনা ও উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত স্বাধীনতা দিবসের সভায়  অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্ট্রা ও এবিসিডিআই সভাপতি এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিয় ছাত্র সংসদ সাবেক জিএম ড. প্রদীপ রঞ্জন কর, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামছুদ্দীন আজাদ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ,সহ সভাপতি আবুল কাশেম, উপদেষ্ট্রা সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, দপ্তর সম্পাদক প্রকৌ: মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, সা:বনমালা সম্পাদক মাহফুজুর রহমান,বাংলাদেশ  লীগ অব আমেরিকার সাবেক সভাপতি প্রবীণ প্রবাসী এমাদ চৌধুরী, আমেরিকান প্রেসকøাব অব বাংলাদেশ অরিজিন সাধারণ সম্পাদক হেলাল মাহমুদ,উদয়ন শিল্পী গোষ্ঠী নিউইয়র্কের সভাপতি ড.টমাস দুলু রায়, জাপা যুক্তরাষ্ট্র শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান এবং   সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দুগোপালগঞ্জ জেলা এসোসিয়েশন যুক্তরাষ্ট্র -এর সাবেক সভাপতি বিএম জাকির হোসেন হিরু ভূইয়া, মুিক্তযুদ্ধা শওকত আকবর রিচি, শেখ হাসিনা মঞ্চ যুক্তরাষ্ট্রের সভাপতি জালাল উদ্দিন জলিলের ,চলচিত্রকার কাজল আরেফিন, নিউইর্য়ক ষ্ট্রেট আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম , বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএসএ উপদেষ্টা আক্তার হোসেন,আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল হামিদ, এমএন জিননাত, জাকির হোসেন বাচচু।

alt

সভায় মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী ফোরাম ইউএসএ সহ-সভাপতি মইন উদ্দিন মঈন , আজহারুল ইসহাক খোকা,  আব্দুল বাশার মিলন,আমিনুল ইসলাম আমিন,নজরুল ইসলাম, সবিতা দাস, সহিদুল ইসলাম শহিদ,কাজী শফিকুল ইসলাম, ফারহানা রোজী, এহসানুল বাবুল, নিলুফার রশীদ, আবদুল মুহিত মুক্তা, আবদুল হক,আবুল হাবিব,মাহমুদুল হাসান,ফারুক হোসেন,সায়মাজামান পারভিন,শরিদতঊললাহ,গাজী সালাম,বাবু শানতিরনজন শীল, , কানিজ আয়শা, চিএা সরকার,আবু তাহের শাহজাহান ও সরোয়ার হোসেন।
খবর বাাসনিঊজ ।

alt

আলোচনা সভায় ২য় পর্বে মনোজ্ঞ সঙ্গীতানুষ্টানে  সঙ্গীত পরিবেশন করেন তাহমিনা শহীদ,সবিতা দাসসহ আরো অনেকে।

alt
 কবিতা পাঠ করেন জুই ইসলাম  ও নেত করেন স্মেহা তাসনিম রশীদ ।

alt
উক্ত অনুষ্টানে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং প্রবাসের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পীগন অংশ নেন।

alt
সবার প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ঢাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে  এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত

মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০১৬

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ: বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত হয়।২৭ শে মাচ রববিার যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস্থ হাটবাজার পাটি সেন্টারে  ৪৫তম  মহান স্বাধীনতা দবিস উদযাপনে  এক আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সঙ্গীতানুষ্টানের   আয়োজন করা হয়।

alt

দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামছুদ্দীন আজাদের সভাপতিত্বে ও  ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ এর সঞ্চারনায় সার্বিক উপস্থাপনা ও সঞ্চারনায় অনুষ্টিত হয়।খবর বাপসনিঊজ।

alt
  আলোচনা সভায় অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য যথাক্রমে ড. প্রদীপ রঞ্জন কর, ডাঃ মাসুদুর হাসান ও সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন।।

alt

মঞ্চে অন্যান্যের মধ্যে আসন অলংকৃত করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ সভাপতি যথাক্রমে আকতার হোসেন, সৈয়দ বসারত আলী, আবুল কাশেম, সাংগঠনিক সম্পাদক রহিম বাদশা,  চন্দন দত্ত ও ফারুক আহমেদ, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড শাহ মোঃ বখতিয়ার, দপ্তর সম্পাদক প্রকৌ: মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, অথ সম্পাদক আবুল মনসুর খান,

alt

প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক সোলেমান আলী , কৃষি সম্পাদক আশরাফুজামান.গোলাম মাওলা খোর্শেদ খন্দকার ,শরীফ কামরুল ইসলাম হিরা,আশাফ মাসুক,হিনদাল কাধির বাপপা,আব্দুল হামিদ, বিপ্লব গোয়াজ নবীমহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহানাজ মমতাজ .ফরিদা ইয়াসমিন ফরিদা আলভি গিনি ,যুবলীগের সভাপতি মিসবাহ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক  ফরিদ আলম, স্টেট যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেবুল মিয়া, শ্রমিক লীগ সভাপতি কাজী আজিজুল হক খোকন, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাওখায়াত  বিশ্বাস সভাপতি নুরুজ্জামান সরদার, সহ সভাপতি দুরুদ মিয়া রণেল, কবির আলী অতুল রায় সাধারণ সম্পাদক সুবল দেব নাথ, সবুজ  গোলাম কিবরিয়া, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জেড, এ জয়, বর্তমান সভাপতি জাহিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আল আমিন আখন্দ।

alt
সভায় উপস্থিত নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগ, সিটি আওযামী লীগ, যুবলীগ, শ্রমীক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংহতী পরিষদ, শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদ, শেখ হাসিনা মঞ্চ, সহ সকল সংগঠনের নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছা জানান।

alt

উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ, ছাত্রলীগ এবং বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।সাংকেতিক অনুঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ।সংগীত পরিবেশন করেন সবিতা দাস ও তার দল।

alt
বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধুর কারন এ আজ আমরা বাংলাদেশী , না হলে পাকিস্তানির গোলামী করে জেতে হতো । শুরুতে প্রবিত্র কুরআন তেলয়াত ওগীতা পাঠ এবং জাতীয় সংগীত এর পরে মূল আলোচনা সভার আরম্ভ হয় ।

alt
সবার প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে

alt

নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে  এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


প্রোগ্রেসিভ ফোরামের আলোচনা সভায় ডাঃ ফওজিয়া মোসলেম = নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করতে সম্পদ ও সম্পত্তিতে নারীর অধিকার নিশ্চিত করতে হবে

বুধবার, ২৩ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:নারীর প্রতি সহিংসতার মূল কারণ হচ্ছে সম্পদ ও সম্পত্তিতে নারীর অধিকার না থাকা। নারীর নিজের আয়ের অর্থও নিজের মনে করতে পারে না। পিতৃতান্ত্রিকতার মনোভাবের উৎস সেখানে। কাজেই সম্পদ ও সম্পত্তিতে নারীর অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। বাংলাদেশে নারী আন্দোলন এর অনেক অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু আমাদের সমাজ কাঠামো এমন এক ছাঁচের মধ্যে আটকে রয়েছে সেখান থেকে বের করে আনা যাচ্ছে না। সেজন্য আমাদের আরো জোরালো নারী আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।খবর বাপসনিঊজ।

alt
গত ২০ মার্চ রবিবার,বিকাল সাড়ে ৫টায় নিউইর্য়কস্থ জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশ প্লাজা মিলনায়তনে প্রোগ্রেসিভ ফোরাম ইউএসএ আয়োজিত আন্তর্জাতিক নারী দিবস  উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি উপরোক্ত বক্তব্য ডাঃ ফওজিয়া মোসলেম এ কথা বলেন।

alt
প্রোগ্রেসিভ ফোরাম ইঊএসএ সভাপতি খোরশেদুল ইসলাম-এর সভাপতিত্ত্বে ও নারীনেত্রী নাজনীন মামুন এর সঞ্চালনায়  অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সহ সভাপতি ডাঃ ফওজিয়া মোসলেম ।বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের যুগ্ম সাধারন সম্পাদিক রাখীদাস পুরকায়স্থ, জাতিসংঘে কর্মরত পলিসি অফিসার তাফতুন নাসরীন,ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটের নারী বিষয়ক সম্পাদিক সাংবাদিক সুমী খান। অনুষ্ঠানের শুরুতে ধন্যবাদ বক্তব্য রাখেন প্রোগ্রেসিভ ফোরাম ইঊএসএ সাধারন সম্পাদক আলীম উদ্দিন।

alt
প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যের শুরুতে বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের পক্ষ থেকে প্রোগ্রেসিভ ফোরাম ইউএসএ কে ধন্যবাদ জানান নারী দিবস উপলক্ষে এধরনের নিয়মিত কর্মসূচী পালন করার জন্য। তিনি বলেন, নারী আন্দোলনের ইতিহাস দুইশত বছরের একটি ইতিহাস। ১৮১০ সালে শ্রমিকের মজুরীর আন্দোলন দিয়ে শুরু হওয়া নারী আন্দোলন  শত বছর শেষে ১৯১০ সালে নারীর ভোটাধিকার আন্দোলন। আর ২০১৬ সালে এসে আরো শত বছর পর আমরা পেয়েছি নারীর অধিকার মানবাধিকার।

alt

এই টুকু পেতে আমাদের দুশো বছর সময় লেগেছে কাজেই সমান অধিকার পেতে আমাদের আরো কত সময় লাগবে সেটা আমরা এখনো জানি না। তিনি বলেন জাতিসংঘ ২০৩০ সালে এমন একটি সমাজ দেখতে চায় যেখানে নারী পুরুষ এর সমান অংশীদারিত্ত্ব থাকবে।তার মানে হচ্ছে পুরো মানবজাতিকে স্বপ্ন দেখতে হবে ২০৩০ সালে আমরা এমন একটি সমাজ চাই যেখানে নারী পুরুষে সমতা থাকবে। আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সেই স্বপ্ন পুরনের দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানাচ্ছি। 

alt

দুনিয়াব্যাপি যে সংঘাত আর যুদ্ধ চলছে। আর সেখানে নারীদের অবস্থা খুবই করুন। তাদের যৌনদাসী বানানো হচ্ছে । তাহলে এই সংঘাত যুদ্ধ যদি বন্ধ না হয় তাহলে নারীর অগ্রগতি কিভাবে হবে। তাই নারী আন্দোলনের অংশ হিসেবে আজ দুনিয়া ব্যাপি ধর্মের নামে,গণতন্ত্রের নামে যে সংঘাত চলছে তা বন্ধ করার আন্দোলন করতে হবে। মানব সভ্যতা যেখানে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ধর্মের নামে একটি গোষ্ঠী সমাজটাকে দুনিয়াটাকে পেছনের দিকে নিয়ে যেতে চাচ্ছে। দুনিয়াব্যাপি ধর্মীয় এই লেভাজদারী বাংলাদেশে হেফাজতে ইসলাম,আফ্রিকায় বোকা হারাম, সিরিয়ায় আইএসআই এরা সবাই এক ও অভিন্ন। এদের রুখে দাঁড়াতে হবে।

alt
সভায় বিশেষ অতিথি রেখা পুরকায়স্থ বলেন, নারী আন্দোলন একটি আন্তর্জাতিক আন্দোলনের অংশ। নারী পুরুষ উভয়ের মিলিত সংগ্রাম। বাংলাদেশে নারী আন্দোলনের অনেক অর্জন যেমন রয়েছে তেমনি আবার নতুন নতুন চ্যালেজœও সামনে আসছে। মানুষ হিসেবে নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে হবে।  

alt
জাতিসংঘের পলিসি অফিসার তাফতুন নাসরীন বলেন,প্রতিটি কর্মক্ষেত্রে নারীদের দমিয়ে রাখার যে সি-িকেট তাদের প্রতিরোধে সি-িকেট করতে হবে। তিনি বলেন, নারীরা এক একজন দশভূজ দূর্গা। নিজেদের অধিকার,মর্যাদা প্রতিষ্টার জন্য নারীর নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে হবে-আমরাই পারি। তিনি বলেন, বাংলাদেশের নারী সুরক্ষা আইন পৃথিবী শ্রেষ্ট। কিন্তু এই আইনের যথাযথ প্রয়োগ ঘটাতে হবে। অপব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। তিনি ইভ টিজিং প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেন, ইভ টিজিং একটি মেয়ের মবিলিটি নষ্ট করে।

alt
গণমাধ্যমকর্মী সুমী খান বলেন, বাংলাদেশের গণ মাধ্যমে এখনো নারী পুরুষ বৈষম্য আছে। পেশাগত যোগ্যতা প্রমান করতে গিয়ে নারী সাংবাদিকদের নিউজ রুমের এজেন্টরা প্রতিহত করে। নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা পুরুষ ছাড়া সম্ভব নয়। বিশ্বাস করি আগামী দিনে নারী পুরুষ সমভাবে সমঅধিকারে এগিয়ে যাবে।অনুষ্ঠানের অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ যথাক্রমে ওবায়দুল্লাহ মামুন, মোঃ হারুন, গোলাম মর্তুজা,জাকির হোসেন বাচ্চু। অনুষ্ঠানে সংগঠনের প্রচার সম্পাদক মোঃ হারুন নারী দিবস উপলক্ষ্যে একটি লিখিত প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন।

alt
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে আবৃত্তি শিল্পী গোপন সাহার উপস্থাপনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করে উদীচী যুক্তরাষ্ট্র শাখা। আরো সংগীত পরিবেশন করে সংগীত শিল্পী দিপু সাকলান চৌধুরী,তাহমিনা শহীদ, শহীদ উদ্দিন। নারী অধিকার ভিত্তিক কবিতা পাঠ করেন আবৃত্তি শিল্পী মুমু আনসারী, সুবক্তগীন সাকী, শুক্লা রায়, মিজানুর রহমান বিপ্লব,পারভিন সুলতানা, মিহির আশরাফ,তৈইমুর ও আবীর আলমগীর।


বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ নতুন প্রজন্মদের জানাতে হবে নিউইয়র্কে সার্বজনীন জন্মবার্ষিকীর অনুষ্টানে বক্তাগণ

সোমবার, ২১ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বঙ্গবন্ধু’র অনুসারীদের নিয়ে সার্বজনীন কমিটির উদ্যোগে গত ১৯ মার্চ শনিবার, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় নিউইয়র্কের বাঙ্গালী অধ্যষিত জ্যাকসন হাইটসের বাংলাদেশ প্লাজা মিলনায়তনে ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়।

alt

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’র অন্যতম ঘনিষ্ট সহচর সাবেক এমএনএ প্রয়াত এডভোকেট দেওয়ান আবুল আববাসের তনয় আয়োজকদের অন্যতম নিউইয়র্ক প্রবাসী সংগঠক দেওয়ান আশরাফুল আলম ও রিনা আবেদীন –এর সুন্দর উপস্থাপনায় অনুষ্টিত বঙ্গবন্ধু’র ৯৬তম জন্মদিনের আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিক প্রবাসীর সম্পাদক প্রবীন সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদউল্লাহ।

alt

অতিথিদের মাঝে বক্তব্য রাখেন আমেরিকা-বাংলাদেশ এ্যালায়েনসের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্টাতা সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, জেনোমাইড’৭১ ফাউন্ডেশন ইউএসএ সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা প্রদীপ রঞ্জন কর,আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাংলাদেশ আমেরিকান আর্টিস ফোরাম ইঊএসএ সভাপতি স্থপতি ইকবাল হোসেন, সার্বজনীন উদযাপন পরিষদের অন্যতম জাকির হোসেন হিরু ভূইয়া, সার্বজনীন উদযাপন পরিষদের অন্যতম জাকির হোসেন বাচ্চু, সার্বজনীন উদযাপন পরিষদের অন্যতম এম লিয়াকত আলী,সাংস্কৃতিক সংগঠক লুৎফুন্নাহার লতা, একুশের চেতনা পরিষদের ওবাইদুল্লাহ মাসুম, বাংলাদেশ ল সোসাইটি যুক্তরাষ্ট্রের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বাবুল,সাংবাদিক মোজাহিদ আনসারী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল যুক্তরাষ্ট্র -জাসদ সাধারন সম্পাদক নূরে আলম জিকু , ফোরাম ইউএস’র সাধারন সম্পাদক হারুন অর রশীদ , প্রপ্রেসিব ফোরাম ইউএসএ’র সাধারন সম্পাদক আলীম উদ্দিন, বহ্নি শিখা সংগীত নিকেতনের সভাপতি সংগীত শিল্পী সবিতা দাস, চারু কলা শিশু কিশোর পরিষদের ফারদিনা, রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী জাল কর, ঢাকা ড্রামর সারোয়ার হারুন, সীনটাচ এর নির্বাহী পরিচালক এম লিয়াকত আলী, নারী,নেত্রী রিনা আবেদীন, শেখ হাসিনা মঞ্চের সভাপতি জালাল উদ্দিন জলিল ও সাধারন সম্পাদক কায়কোবাদ খান, প্রধান পৃষ্টপোষক মুক্তিযোদ্ধা গোলাম কুদ্দুস, নিউইয়র্ক বোর্ড অব এডুকেশনের দুই শিক্ষক এডভোকেট জাকির হোসেন মিয়া ও আসলাম খান, কবিতা আবৃতি করেন গোপন সাহা , শিবলী সাদেক, আসলাম খান, মোঃ আলী বাবুল। নৃত্য ছোট মনি ফারিয়া।
alt
যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করে। কর্মসূচীর অংশ হিসেবে শিশুদের চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে আলোচনাসভায় বক্তাগণ শিশুদের প্রতি জাতির পিতার প্রগাঢ় ভালোবাসার কথা উল্লেখ করে নতুন প্রজন্মের কল্যাণে বঙ্গবন্ধু এবং বর্তমান সরকার কর্তৃক গৃহীত পদক্ষেপ সমূহের উপর আলোকপাত করেন। বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য ও কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে অবহিত করার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন।খবর বাপসনিঊজ।

alt
অনুষ্টানের সূচনায় সকল বক্তা অতিথিবৃন্দ ও সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করেন। বহ্নিশিখা সংগীত নিকেতনের অধ্যক্ষ্য সবিতা দাসের পরিচালনায় শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধাজানিত দুটি সংগীত পরিবেশন করেন।ছোট শিশুদের চিত্রাংকন গুলো উপস্থিত অতিথিদের সামনে প্রদর্শন করা হয়।আয়োজকদের পক্ষ খেকে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ কারীদের বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতি উপহার দেয়া হয়। যা উপস্থিত সকলের কাছে প্রশংশিত হয়েছে। আয়োজকদের অন্যতম ইসমাইল হোসেন হাওলাদার ২১-১০-১৯৭১-এর নাতনী-ও উপস্থাপক রিনা আবেদীন তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু’র ডাকে তার ৪ ভাই মুক্তিযোদ্ধে অংশ নেওয়ার কারনে তার বাবাকে ধরে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে পাক বাহিনী ।
alt
আয়োজকদের মাঝে দেওয়ান আশরাফুল আলম, জাকির হোসেন হীরু ভূইয়া, স্থপতি ইকবাল হোসেন, জাকির হোসেন বাচ্চু, এম লিয়াকত আলী, রিনা আবেদীন উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। আলোচনা সভায় কম্যুনিটির নেতৃবৃন্দ আলোচনা করেন এবং আবৃত্তিকাররা বঙ্গবন্ধুর উপরে কবিতা পাঠ করেন। স্থানীয় কমিউনিটির বিপুল সংখ্যক সদস্য এবং তাদের শিশু সন্তান, এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বিজয়ী প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিন উপলক্ষে কেক কাটা পর্বে শিশুসহ অন্যান্যরা অংশগ্রহণ করেন।

alt
অনুষ্টানের প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


আইসিসি’র বিতর্কিত সিদ্ধান্তে নিউইয়র্কে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

সোমবার, ২১ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:বিশ্বের অন্যতম ফার্ষ্ট বোলার তাসকিন আহমেদ ও ঘূর্ণি জাদুকর আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রে অবৈধ ঘোষনা করে নিষিদ্ধ করায় আইসিসি’র প্রতি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষুদ্ধ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ ছাএলীগ যুক্তরাষ্ট্র শাখা।রবিবার (২০ মার্চ) রাত ৯টার সময় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের খাবার বাড়ীর সামনে ‘তিন মোড়লের ক্রিকেট নোংরা রাজনীতি প্রতিহত ও আইসিসি’র ষড়যন্ত্র রখে দাঁড়াতে ক্রিকেট ভক্তদের এগিয়ে আসার আহবান’ জানিয়ে আইসিসি’র বিতর্কিত সিদ্ধাšেতর সমালোচনা করেন যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দসহ ক্রিকেট ভক্ত-সমর্থক।

alt
সমাবেশের সভাপতি জাহিদ হোসেন বলেন, ২০১৫ অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে মেলবোর্নে আম্পায়ারদের বিতর্কিত সিদ্ধাšেতর মাধ্যমে বাংলাদেশ ক্রিকেটকে নিয়ে যে ষড়যন্ত্র শুরু করেছিল, তা তাসকিন-সানির বোলিং অ্যাকশনকে পরিকল্পিত ভাবে অবৈধ ঘোষনা করে নিষিদ্ধের মধ্য দিয়ে সে ষড়যন্ত্র ও ক্রিকেট নোংরা রাজনীতি অব্যাহত রেখেছে আইসিসি; যা বিশ্বের কোটি কোটি ক্রিকেট ভক্তদের সাথে বাংলাদেশের ১৬ কোটি ক্রিকেটপ্রেমীও মর্মাহত, লজ্জিত।খবর বাপসনিঊজ।

alt
আইসিসি’র তীব্র সমালোচনা করে তিঁনি আরো বলেন, শুধু আম্পায়ার রড টাকার ও ম্যাচ রেফারি অ্যান্ডি পিক্রফটের ক্রিকেট অভিজ্ঞতা, গ্রহণযোগ্যতা ও নিরপেক্ষতা প্রশ্নবিদ্ধ নয়, স্বয়ং আইসিসি আজ বিশ্বের কোটি কোটি ক্রিকেট ভক্ত-অনুরাগীদের কাছে বিতর্কিত, পক্ষপাততুষ্ট ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগে জর্জরিত; যা বোলিং অ্যাকশন সম্পর্কিত আইসিসির আইনের ২.২.৬ ধারাকে অবজ্ঞা করে তাসকিনকে নিষিদ্ধ করায় প্রতীয়মান। আইসিসি তার বিতর্কিত সিদ্ধাšত প্রত্যাহার ও অগ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের বহিঃষ্কারের পাশাপাশি, বিশ্ব ক্রিকেটকে সময় উপযোগী, নিরপক্ষ ও সকল দলের সমান অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষে সকল বিতর্কের উর্ধে উঠে কোটি কোটি ক্রিকেট ভক্ত-সমর্থকদের নান্দনিক ও শৈল্পীক ক্রিকেট খেলা উপহার দেওয়ার দাবি জানান সমাবেশ থেকে।
alt
উক্ত বিক্ষুদ্ধ সামাবেশে অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামি লীগের উপদেষ্টা সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন , জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ যক্তরাষ্ট্র শাখার সাধারান সম্পাদক নূরে আলম জিকু, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জেডএ জয়, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাংগীর এইচ মিয়াএবং পরিচালনায় যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন আখন্দ। উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।সমাবেশ-এরপ্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


ড. নূরন্নবীর আমেরিকায় জাহানারা ইমামের শেষ দিনগুলি’ গ্রন্থের আলোচনা

সোমবার, ২১ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন বিশেষ সংবাদদাতা,বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :‘একাত্তরের বাংলাদেশের পুনর্জন্ম দানের জন্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত জাহানারা ইমাম কীভাবে কাজ করেছেন, সে সময় তার মনোবল কেমন ছিল, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সহযোদ্ধাদের ভzমিকা এবং চিকিৎসার জন্যে ১৯৯০ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত ঘনঘন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালিন দিনগুলো বাংলাদেশের ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে থাকবে। সেই অজানা অধ্যায় নতুন প্রজন্মের জানার বিশেষ প্রয়োজন উপলব্ধি করেই এ গ্রন্থ রচনায় মনোনিবেশ করি’-এসব কথা বলেন লেখক ড. নূরন্নবী ‘আমেরিকায় জাহানারা ইমামের শেষ দিনগুলি’ তার গ্রন্থে।

alt
গ্রন্থটির ওপর আলোচনা উপলক্ষে ১৯ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে জুইস সেন্টার এক সভার আয়োজন করে ‘একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’র নিউইয়র্ক চ্যাপ্টার। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ৯৬তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটার মধ্য দিয়ে এ অনুষ্ঠান শুরু হয়। সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ফাহিম রেজা নূর। সমগ্র অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন সেক্রেটারি স্বীকৃতি বড়zয়া। গ্রন্থটির ওপর আলোচনা করেন লেখক-কলামিস্ট বেলাল বেগ এবং হাসান ফেরদৌস ও সাপ্তাহিক বাঙালির সম্পাদক কৌশিক আহমেদ।বেলাল বেগ বলেন, ‘বাংলাদেশকে এখনও একাত্তরের বাংলাদেশ বলা যাবে না। কারণ, এখনও জামাতের তৈরী বিএনপি বিদ্যমান রয়েছে। সত্যিকার অর্থে সেটি হচ্ছে ‘ভেজাল বাংলাদেশ।’ জাহানারা ইমাম সেই ভেজাল দূর করার পথ দেখিয়ে গেছেন। সে পথে আমাদের আরো জোরদারভাবে এগুতে হবে।’ ‘বাঙালিকে আবরো জেগে উঠার ক্ষেত্রে জাহানারা ইমামের সাহসী ভ’মিকা অত্যন্ত বলিষ্ঠভাবে এই গ্রন্থে উপস্থাপন করে ড. নবী একটি মৌলিক দায়িত্ব পালন করেছেন’-বলেন বেলাল বেগ।

alt
অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিক প্রবাসীর সম্পাদক সৈয়দ মুহম্মদ উল্লাহ শহীদ জননী জাহানারা ইমামকে বাঙালি জাতির জন্যে ‘ইতিহাসের এক বিশেষ ব্যক্তি’ হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ‘তার দৃঢ় মনোবলের কারণে দীর্ঘদিন পর হলেও একাত্তরের ঘাতকদের বিচারে বাঙালিরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন।’হাসান ফেরদৌস বলেন, ‘জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে বাংলাদেশে শুরু হওয়া ঘাতক বিরোধী আন্দোলনে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের সম্পৃক্ততার ধারাবিবরণী হিসেবে এই গ্রন্থের ভ’মিকা অপরিসীম।’জাহানারা ইমামের ছিল না কোন রাজনৈতিক দল বা পুলিশ-প্রশাসন। তবে তার পক্ষে ছিলেন আপামর জনগোষ্ঠি। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত ভূখন্ডে রাজাকার-কুলঙ্গারদের ঠাঁই হবে না-এটি ছিল তার মন্ত্র এবং এ মন্ত্রে আমরা প্রবাসীরাও জেগে উঠি। আর এভাবেই শহীদ জননী জাহানারা ইমাম হয়ে উঠেন মুকুটহীন সরাজ্ঞী।’

alt
কৌশিক আহমেদ বলেন, ‘মহীয়সী রমনী জাহানারা ইমাম একদিকে ক্যান্সারের যন্ত্রণায় ছটফট করেন, আবার একইসাথে বাংলাদেশে চলমান আন্দোলনে সম্পৃক্তদেরকেও দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন। এসব অজানা তথ্য প্রকাশ না করলে গৌরবের অনেকখানিই হয়তো অজানা থেকে যেত।’একাত্তরের কাদেরিয়া বাহিনীর থার্ড ইন কমান্ড, পঁচাত্তর থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বিজ্ঞানী এবং বর্তমানে নিউজার্সীর প্লেইন্সবরো সিটির কাউন্সিলম্যান ও এই গ্রন্থের লেখক ড. নূরন্নবী তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমি সাহিত্যিক নই। লেখকও হতে চাই না। এটি লিখেছি দায়বদ্ধতা থেকে। শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ভূমিকা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নতুন করে জাগ্রত করার ক্ষেত্রে কতটা জরুরী ছিল-তা প্রজন্মকে অবহিত করার তাগিদ থেকেই লিখেছি গ্রন্থটি।’বইটির দাম ধার্য করা হয়েছে ১০ ডলার। অনুষ্ঠানে আগত অনেকেই বইটি ক্রয় করেন এবং ড. নবীর অটোগ্রাফ নেন। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণের বইমেলায় ২০১৫ সালে এটি প্রথম প্রকাশ পেলেও এবারের বইমেলায় সংশোধিত কপি প্রকাশ করে সময় প্রকাশন।


নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালন

রবিবার, ২০ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :বিশ্বের নির্যাতিত নিপীড়িত বঞ্চিত মানুষের নেতা ও স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্ব কালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগ গত ১৭ই মার্চ রোজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় এস্টোরিয়ার সুন্দরবন রেষ্টুরেন্টে এক আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে ।

alt

উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি মুজিবুর রহমান ও পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শাহীন আজমল শাহিন । দোয়া পরিচালনা করেন স্টেট আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শেখ আতিকুল ইসলাম ।বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত এই নেতা ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।বঙ্গবন্ধুর ৯৬তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপিত হয় । এতে শিশু কিশোর সহ অনেক অভিবাবক উপস্থিত ছিলেন ।

alt

এতে অন্যান্যদের মধে্য উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মহি উদ্দিন, এম আর সেলিম, উপদেষ্টা আব্দুল মতিন, প্রচার সম্পাদক ভিপি পলাশ, প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক সালাউদ্দিন চৌধুরী, সহ প্রচার সম্পাদক ফিরোজ আহমদ, যুক্তরাষ্ট সেচ্ছসেবক লীগের সহ-সভাপতি ও নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য দুরুদ মিয়া রনেল,স্টেট আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য এম এন জিনাত, আবুল বাশার মিলন, মইন উদ্দিন মাইন ও অভিবাবক বৃন্দ ।খবর বাপসনিঊজ।
alt
সভার প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে  এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।


নিউইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেট এ বঙ্গবন্ধুর ৯৬তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপদযাপন

রবিবার, ২০ মার্চ ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খাকন,খোকন,বাপসনিঊজ: বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ১৭ মার্চ ২০১৬ তারিখে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করে। কর্মসূচীর অংশ হিসেবে শিশুদের চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে আলোচনা এবং তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

alt
কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, এনডিসি, তার স্বাগত বক্তৃতায় শিশুদের প্রতি জাতির পিতার প্রগাঢ় ভালোবাসার কথা উল্লেখ করে নতুন প্রজন্মের কল্যাণে বঙ্গবন্ধু এবং বর্তমান সরকার কর্তৃক গৃহীত পদক্ষেপ সমূহের উপর আলোকপাত করেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য ও কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে অবহিত করার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন।খবর বাপসনিঊজ।

alt
আলোচনা সভায় ব্রাজিলে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিজারুল কায়েস ও কম্যুনিটির নেতৃবৃন্দ আলোচনা করেন এবং আবৃত্তিকাররা বঙ্গবন্ধুর উপরে কবিতা পাঠ করেন। স্থানীয় কমিউনিটির বিপুল সংখ্যক সদস্য এবং তাদের শিশু সন্তান, কনস্যুলেট জেনারেল এর কর্মকর্তা/কর্মচারী এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বিজয়ী প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিন উপলক্ষে কেক কাটা পর্বে শিশুসহ অন্যান্যরা অংশগ্রহণ করেন।

alt
অনুষ্ঠান শেষে অতিথিদের ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশী খাবার পরিবেশন করা হয়।প্রারম্ভে ১৯৭৫-এর ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, ডাকা কেন্দ্রিয় কারাগারে চার জাতীয় নেতা, একাত্তর-এর মুক্তিযুদ্ধ ও  ১৯৫২- এর মহান ভাষা আন্দোলনসহ আজ পর্যন্ত সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহতদের স্মরনে সভায় দাঁড়িয়ে এক মিনটি কাল নিরাবতা পালন করা হয়।

Bangladesh Consulate in New York Celebrates 96th Birth Anniversary of Bangabandhu and National Children’s Day

Hakikul Islam Khokan,Bapsnews:The Consulate General of Bangladesh in New York celebrated 96th Birth Anniversary of the Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman and National Children’s Day on 17 March 2015 in a befitting manner. The program included, among others, painting and essay competition for the children, discussion-meeting, screening of a documentary on the life and works of Bangabandhu and special prayer and cutting of cake. Messages of the Honorable President, Honorable Prime Minister, Honorable Foreign Minister and Honorable State Minister for Foreign Affairs were read out.
 alt
In his welcome remarks, Mr. Md. Shameem Ahsan, ndc, Consul General of Bangladesh in New York mentioned about the heartfelt attachment of the Father of the Nation for the children. He also shed lights on various initiatives Bangabandhu and of the present government for the welfare of the younger generation. He also highlighted on the need for educating the children about the life and works of Bangabandhu.  
alt
H.E. Mr. Mohamed Mijarul Quayes, Bangladesh Ambassador to Brazil and members of the community also shared their thoughts on Bangabandhu’s role in the emergence of Bangladesh. A large number of children and representatives of various social, cultural and political organizations of the community were present along with the officials and their families of the Consulate General. Prizes were distributed among the winners. The guests were served with traditional Bangladeshi food.