Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

খান আতাউর প্রসঙ্গে ব্যাখ্যা দিলেন নাসির উদ্দিন ইউসুফ

শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে : সম্প্রতি নিউইয়র্কে সংস্কৃতি কর্মীদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আমার বক্তব্য শেষে এক প্রশ্ন উত্তরে কৃতি চলচ্চিত্র নির্মাতা, সংগীত পরিচালক ও অভিনেতা খান আতাউর রহমান সম্পর্কে আমার একটি উক্তিকে কেন্দ্র করে ফেস বুক ও অনলাইনে সংবাদ মাধ্যমে তর্ক-বিতর্ক চলছে। অহেতুক বিতর্ক নিরসনে আমার কথা পুনর্ব্যাক্ত করছি।

* বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা ও সংগীত পরিচালক খান আতাউর রহমান ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহনে অপারগ হয়েছিলেন। যে ৫৫ জন বুদ্ধিজিবী ও শিল্পী ১৯৭১ -এর ১৭মে মুক্তিযুদ্ধকে “আওয়ামী লীগের চরমপন্থীদের কাজ”বলে নিন্দাসূচক বিবৃতি দিয়েছিলেন দু:খ জনক ভাবে খান আতাউর রহমান তার ৯ নম্বর সাক্ষরদাতা ছিলেন।@ ১৭মে ১৯৭১ দৈনিক পাকিস্তান পত্রিকা দ্রষ্টব্য ।

Picture

* ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সরকার ড.নীলিমা ইব্রাহীম কে প্রধান করে ৬ সদস্যের কমিটি গঠন করেছিলেন রেডিও টেলিভিশনে পাকিস্তানীদেপ্রচার কার্যে সহযোগীতা কারীদের সনাক্ত করার জন্য। ১৯৭২ -এর ১৩মে নীলিমা ইব্রাহীম কমিটি যে তালিকা সরকারকে পেশ করেন সে তালিকায় ৩৫ নম্বর নামটি খান আতাউর রহমানের। তালিকাভুক্তদের সম্পর্কে কমিটির সুনির্দিষ্ট বক্তব্য রয়েছে। তালিকাভুক্ত শিল্পীদের ৬মাস পর অনুস্ঠানে অংশ গ্রহণ পুনর্বিবচনার সুপারিশ করা হয়।দ্রষ্টব্য – বাংলাদেশ বেতার তথ্য মন্ত্রনালয়ের নং জি১১।সি-১।৭২।১৬/৬/৭২ ***************

alt

* একথা অনস্বীকার্য যে খান আতাউর রহমান একজন গুণী শিল্পী। তার সৃষ্টিশীলতা নিয়ে কোন প্রশ্ন নাই। মুক্তিযুদ্ধপূর্ব কালে তাঁর চলচ্চিত্র সমূহ আমাদের ঋদ্দ্ব ও উজ্জিবীত করেছে । যেমন “সোয়ে নাদীয়া জাগো পানি” “নবাব সিরাজদৌলা” সহ অনেক চলচ্চিত্র। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ। তিনি পাকিস্তানের সমর্থক ছিলেন এবং তা তাঁর রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে। আবার আলতাফ মাহমুদ, জহির রায়হান , শহীদউল্লাহ কায়সারের মত শিল্পী সাহিত্যিকরা মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল্ন তাঁদের স্বীয় রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে এবং শাহাদাত বরণ করেছেন। অনেকের মনে প্রশ্ন উদ্রেক হয়েছে যে ৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর অব্যহতিতে কেন আমি বা আমরা তাঁকে রক্ষা করেছিলাম। কারণ খান আতাউর রহমান কোন প্রকার মানবতা বিরোধী কর্মে লিপ্ত ছিলেন না যদিও পাকিস্তানীদের সমর্থনে রেডিও টেলিভিশনে অনুষ্ঠান করেছেন।আর খান আতাউর রহমান একজন শিল্পী এবং ৯মাসে তাঁর কর্ম সম্পর্কে আমরা অবহিত ছিলাম না। তাছাড়া আমরা এও ভেবেছি ইচ্ছায় হোক অনিচ্ছায় হোক অনেকে পাকিস্তানীদের পক্ষাবলম্বন করেছে। আমরা তা বিচারের এখতিয়ার রাখিনা।তাছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের এ কথা বাধ্যতামূলক মানতে বলা হয়েছিল যে কোন অবস্থাতেই যুদ্ধোত্তর সময়ে কাউকে ক্ষতি বা আঘাত করা যাবেনা । বিচারিক প্রক্রিয়ায় দোষী সাব্যস্তদের বিচার করাহবে রাষ্ট্রীয়ভাবে। মুক্তিযোদ্ধারা সেই আদেশ পুরোপুরি ভাবে মেনেছিলো বিধায় যুদ্ধোত্তর কালে প্রাণহানির ঘটনা উল্লেখযোগ্য ভাবে কম হয়েছিল। জেনেভা কনভেনশন মুক্তিযোদ্ধারা পুরোপুরি মেনেছিলো কিন্তু পাকিস্তানীরা জেনেভা কনভেনশনের তোয়াক্কা করেনি।

alt

* আমার মূল বক্তব্যে নয় এক প্রশ্নের উত্তরে ইতিহাসের দায় থেকে আমি খান আতাউর রহমান সম্পর্কে উক্তিটি করেছিলাম। সবশেষে আবারো বলছি খান আতাউর রহমান একজন সৃষ্টিশীল মানুষ কিন্তু ১৯৭১ সালে তিনি দেশ ও মানুষের পাশে দাঁড়াতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। ব্যক্তিগত ভাবে আমার তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নাই শিল্পী হিসাবে তাঁর প্রশংসা করি কিন্তু মুক্তিযুদ্ধকালে তার ভূমিকার সমালোচনা তো করতেই পারি।

* আশা করি আমার উপরোল্লিখিত বক্তব্য অনুধাবনে সকল তর্ক- বিতর্কের অবসান ঘটবে।

https://www.youtube.com/watch?v=nIMvTn284Ak


বাংলাদেশের শিশুদের কল্যাণে ইউরোপ-আমেরিকা একযোগে কাজ করবে

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ভাগ্য বদলে দিতে ইউরোপ ও আমেরিকা দুই মহাদেশের প্রবাসী বাংলাদেশীরা একযোগে কাজ করবে, এই অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে ১৪ অক্টোবর শনিবার কানেকটিকাটের নিউ হ্যাভেনে শেষ হয়েছে “শিশু অধিকার ও তাদের দৃষ্ঠিশক্তি” শীর্ষক ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক সম্মেলন। বিখ্যাত ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যানলিয়ান সেন্টার মিলনায়তনে ডিসট্রেস্ড চিলড্রেন এন্ড ইনফ্যান্টস ইন্টারন্যাশনাল (ডিসিআই) আয়োজিত দিনব্যাপী এই সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকায় দায়িত্ব পালনকারী সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মজিনা।


 
প্যারিস ভিত্তিক ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউবিও)’র প্রেসিডেন্ট এবং অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)’র সেক্রেটারি জেনারেল কাজী এনায়েত উল্লাহর নেতৃত্বে চার সদস্যের প্রতিনিধিদল কানেকটিকাট সম্মেলনে যোগ দেয়। প্রতিনিধিদলে ছিলেন আয়েবার দুই ভাইস প্রেসিডেন্ট পর্তুগাল-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও লিসবন সিটি কাউন্সিলর রানা তাসলিম উদ্দিন, দক্ষিণ ফ্রান্সের তুলুজ সিটির বাংলাদেশ কমিউনিটি এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ফকরুল আকম সেলিম এবং স্পেনের বার্সেলোনা বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহারুল ইসলাম মিন্টু। বাংলাদেশের শিশুদের কল্যাণে ডিসিআই-এর বিভিন্ন চ্যারিটি কর্মসূচী অচিরেই ইউরোপে ঢেলে সাজাবার ঘোষণা দেন কমিউনিটি নেতারা।

alt
 
মর্যাদাপূর্ণ এই সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কানেকটিকাটের সিনেটর ক্রিস মারফি, ইয়েল স্কুল অব পাবলিক হেল্থের ডীন ড. স্টেন এইচ ভেরমুন্ড, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. রিচার্ড ক্যাশ, জাতিসংঘে শ্রীলংকার স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ড. রোহান পেরেরা, বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়িক গ্রুপ ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমান, বাংলাদেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ও ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের চিফ কোঅর্ডিনেটর ড. মুহাম্মদ আবদুল মজিদ, ডালাস ভিত্তিক বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স ইউএসএ’র প্রেসিডেন্ট মাসুদ চৌধুরী, বগুড়ার ক্ষুদ্রঋণ ভিত্তিক এনজিও ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘের প্রতিষ্ঠাতা ড. হোসনে আরা বেগম এবং সম্মেলনের আয়োজক ডিসিআই’র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ড. এহসান হক।


যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও হিউম্যান সাপোর্টের উদ্যোগে বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচী

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

Picture

ফ্লু-শর্টের প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব অনুধাবন করে কমিউনিটিতে এর ব্যাপক সাড়া বা সচেতনতার লক্ষ্যে প্রবাসের সর্ববৃহৎ শক্তিশালী রাজনৈতিক সংগঠন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগও এই সেবামূলক কর্মকা-ে এগিয়ে আসেন। হিউম্যান সার্পোর্টের সাথে একাত্বতা প্রকাশ করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ডঃ সিদ্দিকুর রহমান। তাই যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের বৃহত্তম ব্যানারে হিউম্যান সার্পোটের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের প্রান কেন্দ্র ৩৭-২২ ৭৩ স্ট্রীট স্কলাসটিকা টিউটোরিয়ালে ১৫ই অক্টোবর রবিবার সন্ধ্যা ৬টা হতে ৯:০০ টা পর্যন্ত ১ম পর্বের টিকাদান সম্পন্ন হয়। নারী-পুরুষ ও দলমত নির্বিশেষে অনেকেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে টিকা গ্রহণ করেন।

alt

ডুয়েনরিড ফার্মাসী ম্যানেজার মিসেস কার্তিজা সাহা ও টেকনিশিয়ান হাসিনা আক্তার ওয়ালগ্রীন তথা ডুয়েনরিড এর পক্ষে টিকাদান কার্য্য সম্পাদন করেন। বিশিষ্ট ফার্মাসিষ্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে ও হিউম্যান সাপোর্ট কর্পোরেশনের সভাপতি এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক মোঃ সোলায়মান আলীর পরিচালনায় টিকাদান কর্মসূচীর উদ্বোধন হলেও কমিউনিটির অনেক খ্যাতনামা নেতৃবৃন্দ, ইলেকট্রোনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ এই মহতী কর্মে স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণ এবং ভূয়সী প্রশংসা করেন। আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা সকলেরই এই টিকা তথা ফ্লু-শর্ট নেওয়া উচিত বলে চিকিৎসকদের অভিমত। দ্বিতীয় পর্বের ফ্লু-শর্ট ব্রংসের বাংলাবাজার নামক স্ট্যারলিং এভিনিউস্থ মামুন টিউটোরিয়ালে একই সময়ে ২১ শে অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। গতবারের ন্যায় এবারও ওয়ালগ্রীন তথা ডুয়েনরিড ফার্মাসীর প্রশিক্ষিত ও দক্ষ টেকনিশিয়ান দ্বারা টিকাদান সম্পন্ন হয়।

alt
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা সেক্টরস্ কমান্ডারর্স ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১-এর সাধারণ সম্পাদক রেজাউল বারী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুজ্জামান, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুবু রহমান টুকু, যুক্তরাষ্ট্র মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপিকা মমতাজ শাহানাজ, স্কলাসটিকা টিউটোরিয়ালের প্রিন্সিপ্যাল রেজা রশিদ, গোপালগঞ্জ জেলা সমিতির সভাপতি ও জ্যাকসন হাইটস্ বিজনেজ এসোসিয়েমনের সহ-সভাপতি মোল্লা এম এ মাসুদ, ফরিদপুর জেলা কল্যাণ সমিতির সহ-সভাপতি বুলবুল ইসলাম, হিউম্যান সাপোর্ট কর্পোরেশনের কার্য্যকরী কমিটির সদস্য রিন্টু মোল্লা, জুনান নাসিদ সানি, বিলকিস আক্তার ও এনামুল এহসান তোহা প্রমুখ। বক্তারা মানুষ মানুষের জন্য কথাটির মর্ম উপলব্ধি করে দলমত নির্বিশেষে দেশ ও দশের উন্নয়নে মানবসেবার গুরুত্ব আরোপ করে সকলকে এই ধরনের সেবামূলক কাজে অংশগ্রহণের সনির্বন্ধ অনুরোধ জানান।
হিউম্যান সাপোর্ট করপোরেশনের সভাপতি মোঃ সোলায়মান আলীকে টিকাদানের মাধ্যমে কর্মসূচীর শুভ উদ্ভোধন করা হয়।


নিরাপদ সড়ক চাই-এর যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি ষ্টেইট শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন।।

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

বাপ্‌স নিউজ : নিউজার্সি প্রতিনিধি ।। পথ যেন হয় শান্তির, মৃত্যুর নয়’ এই শ্লোগানকে ধারণ করে "নিরাপদ সড়ক চাই" যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি ষ্টেইট শাখা গঠন কা হয়েছে।।নিউজার্সির তরুন সংগঠক আবুল কালামকে আহ্বায়ক, সাংবাদিক বিশ্বজিৎ দে বাবলু ও তরুণ ব্যবসায়ী আলমগীর খাঁনকে যুগ্ন আহবায়ক এবং জালালাবাদ ট্রাভেলসের স্বত্বাধিকারী মাশুক আহমদকে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট নিরাপদ সড়ক চাই এর যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি ষ্টেইট শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।


এ উপলক্ষে গত গত রবিবার রাতে প্যাটারসনের নিউজার্সি হেলফ সেন্টারে কমিউনিটি এক্টিবিষ্ট সৈয়দ জুবায়ের আলীর সভাপতিত্বে ও সফল সংগঠক নুরুজ্জামান সোহেল এর সার্বিক তত্বাবধানে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’র চেয়ারম্যান জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মোবাইল ফোনে কথা বলে এ কমিটি ঘোষণা করেন। এ সময় সেখানে নিরাপদ সড়ক চাই যুক্তরাষ্ট্র শাখার আহ্বায়ক ইসমাইল হোসেন স্বপন ও সদস্য সচীব স্বীকৃতি বড়ুয়াসহ অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী উপস্থিত ছিলেন।


ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রধান উপদেষ্টা এ,বি,এম ওসমান গনি, বিশেষ অতিথি ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই যুক্তরাষ্ট্র শাখার উপদেষ্টা মো: মনির হোসেন ও বিশেষ বক্তা ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই যুক্তরাষ্ট্র শাখার সদস্য মো: আনোয়ার হোসেন.এসময় অন্যানদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন শামীম আহমদ, আনহার মিয়া, মোশাররফ আলম, মিনহাজ আহমদ, বিশ্বজিৎ দে বাবলু, আবুল কালাম, তরুন বক্তা ফরিদ উদ্দিন, প্যাটারসন বোর্ড অব এডুকেশনের কমিশনার প্রার্থী জয়েদ রহিম ও জোয়েল ডি রমিরেজসহ আরও অনেক।।


জমজমাট এনএবিসি কনভেনশন-২০১৭

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : বিখ্যাত চিত্রভিনেতা মরহুম রাজ্জাক, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের জনপ্রিয় শিল্পী কন্ঠযোদ্ধা আবদুল জব্বার ও মায়ানমারের নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের উৎসর্গ করার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সূর্যোদ্বয়ের রাজ্য হিসেবে পরিচিত ফ্লোরিডার নর্থ মায়ামিতে অনুষ্ঠিত হলো নর্থ আমেরিকা-বাংলাদেশ কনভেনশন (এনএবিসি)। তিন দিনব্যাপী আয়োজিত এবারের কনভেনশনের অনুষ্ঠানস্থল ছিল নর্থ মায়ামী বিচ কালচারাল থিয়েটার সেন্টার। এবারের এনএবিসি সম্মেলনের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডা

Picture

।৬-৭-৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কনভেনশনে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের বিশিষ্ট শিল্পী, সাহিত্যিক, নাট্যকারসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের স্বতষ্ফূর্ত অংশগ্রহণে মুখরিত ছিল কনভেনশন সেন্টার। কনভেনশনের অনুষ্ঠানমালায় ছিল সেমিনার, কবিতা আবৃতি, বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত, নৃত্য ও গানসমৃদ্ধ সাংস্কৃুিতক অনুষ্ঠান। এছাড়া দুই দেশের ক্ষুদে শিল্পীদের অংশগ্রহণে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়েছে কনভেনশনে।

alt
কনভেনশনে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের কন্ঠশিল্পীদের গানের আসর ছিল দর্শকশ্রোতাদের কাছে অত্যন্ত উপভোগ্য। কনভেনশনের শেষ দিনে ঘোষণা করা হয় এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যানের ও সাধারণ সম্পাদকের নাম। সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডা’র প্রেসিডেন্ট, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ দিনাজ খান ও বিশিষ্ট সংগঠক মোহন জাব্বার (আটলান্টা)। ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সেক্রেটারী নির্বাচিত হন  মোহন জাব্বার। বিদায়ী চেয়ারম্যান আবু লিয়াকত হুসেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দিনাজ খানকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন।  

alt

৬ অক্টোবর শুক্রবার সন্ধ্যায় নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশ কনভেনশন-এর উদ্বোধন করেন এনএবিসি’র বিদায়ী চেয়ারম্যান আবু লিয়াকত হোসেন। এই পর্বে সভাপতিত্ব করেন কনভেশন-২০১৭ এর প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ দিনাজ খান। সেক্রেটারি নাঈম খান দাদনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন এনএবিসি কনভেনশনের আহবায়ক কুদরত ই খুদা, নির্বাহী কমিটির ইতরাদ জুবায়ের, মোহন জাব্বার, মনজুরুল হোসেন, মনির চৌধুরী, মিল্টন মজুমদার, ফারুক আলম, মোহাম্মদ দিদারুল আলম, লিটন মজুমদার, উত্তম দে, আবুল হাসিব ডিউক, নাহিদ নজরুল, শহিদ ফিরোজ, আবু বাসার জাহাঙ্গীর, আবু ইদ্রিস লাবু, মোহাম্মদ মহসিন হাসান, শাহিন চৌধুরী, মোহাম্মদ ডি হায়দার, মোহাম্মদ আবু নাঈম, প্রধান পৃষ্ঠপোষক রানা খান, মোহাম্মদ জামান, নাফিস আহমেদ, সালাম চাকলাদার, আনোয়ারুল খান দিপু, রাশেদ খান হারুন, জুনায়েত আক্তার, সাইফুল¬াচৌধুরী লেবু, মোহাম্মদ রুবেল, মোহাম্মদ টিটু, সজিব চৌধুরী, ক্ষুুদিরাম, মাফিয়া রহমান, জব্বার মাতব্বরসহ বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডার নেতৃবৃন্দ।

alt

প্রবাসে বিনোদন বিষয়ে বক্তব্য রাখেন নাট্য ব্যক্তিত্ব পিযুষ বন্দোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন তার সহধর্মীনি জয়া কর। তিন দিনের অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শারমিন সিরাজী সোনিয়া ও মাসুদ ডি হায়দার। বাংলাদেশী ও আমেরিকান নতুন প্রজম্মের শতাধিক স্কুল শিক্ষার্থীদের নিয়ে ৩ দিনের অনুষ্ঠানে আবহমান বাংলার প্রতিচ্ছবির ক্যালিওগ্র্যাফি করেন ফ্লোরিডার অনিবা জামান। এতে বাংলাদেশী ছাড়াও অন্যান্য কমিউনিটির তরুণ-তরুণীরা বাংলা ভাষায় অভিনীত এসব ক্যালিওগ্র্যাফীতে অংশ নেন। গান পরিবেশন করেন কলকাতার জনপ্রিয় গায়ক জিত গাংগুলী, শুভশ্রী, বাংলাদেশের সামিরা আব্বাসী, কালামিয়া, পিন্টু, কৃষনা তিথী, চন্দ্রা রায়, স্থানীয় শিল্পী পাপ্পু রহিম, মিজানুর রহমান, ইরুজা বেগম, নৃত্য পরিবেশন করেন প্রিয়া ও মিম খান। কবিতা আবৃত্তি করেন মিনা রহমানের দল। বাদ্যযন্ত্রে ছিলেন সারগাম ব্যান্ড।কনভেনশনের দ্বিতীয় দিনে হোটেল হলিডে এক্সপ্রেস মিলনায়তনে এনএবিসি’র সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূল আলোচক ছিলেন নাট্য ব্যক্তিত্ব পিযুষ বন্দোপাধ্যায়।

alt
সমাপনীতে এনএবিসি’র নতুন কমিটি নির্বাচন করা হয়। সর্বসম্মতিক্রমে চেয়ারম্যান ও সাধারন সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ দিনাজ খান ও সেক্রেটারী করা হয়েছে মোহন জাব্বরকে ।আগামী বছর এনএবিসি’র সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বোস্টনে। এর আহবায়ক হয়েছেন মনির চৌধুরী মিলন। এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিয়ে মোহাম্মদ দিনাজখান বলেন, হাটি হাটি পা পা করে এনএবিসি অনেক দূও এগিয়ে এসেছে। নিয়মিত সম্মেলনের পাশাপাশি। মাসিক সভাসহ বছরের বিভিন্ন দিবসেও প্রোগ্রাম আয়োজন করা হবে। সকল দল ও ব্যাক্তিস্বার্থের উর্ধে উঠে এনএবিসিকে দেশ ও প্রবাসের সেতু বন্ধন হিসেবে গড়ে তুলবো। তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন।


জাতিসংঘ উইমেন গীল্ড’ ক্যালেন্ডারের প্রচ্ছদ আঁকলেন বাংলাদেশী-আমেরিকান রানু ফেরদৌস

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

Picture


এর আগেও ওই সংস্থার ২০০৫ ও ২০০৯ সালের ক্যাালন্ডারে রানুর আঁকা ছবি স্থান পেয়েছিল।২০১৮ সাল হবে সংস্থাটির ৭০ বছর পূর্তি। সে উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ এই ক্যালেন্ডারের মূল্য ধার্য করা হয়েছে ১২ ডলার। তা বিক্রি হচ্ছে জাতিসংঘ সদর দফতরের ভিজিটর্স এলাকায় উইমেন গীল্ডের নিজস্ব দোকানে। সেখানে আরো অনেক কিছুই বিক্রি হয় এবং আয়ের সমূদয় অর্থ প্রদান করা হয় দরিদ্র শিশুদের।alt
এই ক্যালেন্ডারের প্রকাশনা উৎসব হয়েছে গত মাসের শেষের দিকে। সেসময় সেখানে উইমেন গীল্ডের শীর্ষ কর্মকর্তা ছাড়াও ছিলেন মানব কল্যাণে নিয়োজিতরা। তারা রানু ফেরদৌসের চিন্তা-ধারার প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানে আগতরা নগদ অর্থ দিয়ে ক্যালেন্ডার ক্রয়ের সময় রানু ফেরদৌসের অটোগ্রাফও সংগ্রহ করেন রানু ফেরদৌস এ প্রসঙ্গে এ বলেন, ‘উইমেন গীল্ডে’র অনুদান পেয়েছে বাংলাদেশের ফারিয়া লারা ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন, উৎস বাংলাদেশ-সহ কয়েকটি সংস্থা। গত ১৭ বছর যাবত এই সংস্থার সাথে কর্মরত রানু ফেরদৌস যখনই বাংলাদেশ সফর করেন, তখনই এসব সংস্থার কার্যক্রম পরিদর্শন করেন এবং উইমেন গীল্ডের চেক হস্তান্তর করেন।রানু ফেরদৌস জানান, উইমেন গীল্ডের তহবিলে সহায়তা করতে আগ্রহীরা ওয়েবসাইটেও এই ক্যালেন্ডারের অর্ডার দিতে পারেন।


নূরুল ইসলাম অনুর আরোগ্য কামনা করেনিউজার্সি আওয়ামী লীগের বিশেষ দোয়া মাহফিল

মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭

বিশ্বজিৎ দে বাবলু বাপসনিঊজ:নিউজার্সী থেকে ।। নিউজার্সীর প্যাটারসনে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাতির জনক’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাবেক একান্ত সচিব, এশিয়া ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এ এম নূরুল ইসলাম অনুর আরোগ্য কামনা করে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

নিউজার্সি আওয়ামী লীগের উদ্যোগে গত শুক্রবার বাদ জুম্মা প্যাটারসনের একটি মসজিদে  ওই দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।প্রবীণ রাজনীতিক নূরুল ইসলাম অনুর রোগ মুক্তি কামনার পাশাপাশি দোয়া মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নিউজার্সি আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মালিক চুন্নু, সহ-সভাপতি  মোশারফ আলম ,ফয়সল আহমেদ, রেজাউর করিম চৌধুরী, মতিউর রহমান খন্দকার, যাবেদ খান , মোনোহর আলী, লোকমান তরফদার,সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক   শাহীন আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক রকিবুল হাসান রিপন, দপ্তর সম্পাদক আব্দুর রকিব লুলু, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সাইদুর রহমান সাইদ, শিল্প ও বানিজ্য সম্পাদক অলিউড় রহমান বুলু, ত্রাণ ও সমাজ কল্যান সম্পাদক আব্দুল হান্নাণ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক  সাঈদ আহমেদ, প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলম, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক হেলাল আহমেদ, যুব ও ক্রিড়া সম্পাদক  তোফায়েল হাছান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক আঃ নুর মেম্বার, কোষাদক্ষ্য সামছুল কবির চৌধুরী, নিউজার্সী আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান বজলু, নিউজার্সি আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মোক্তাদির তোফায়েল, নিউজার্সী আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা সেলিম আহমেদ চৌধুরী,আবুল কে মজুমদার,আব্দুল অদুদ,সৈয়দ আলী, শাহাব উদ্দীন, শওকত আহমেদ, লিটন খানসহ আরও অনেক।।


শনিবার কানেকটিকাটে শিশু অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন

শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৭

1507971096 62

বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ঢাকায় দায়িত্ব পালনকারী সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মজিনা। দিনব্যাপী এবারের সম্মেলনের আয়োজক যথারীতি যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা ডিসট্রেস্ড চিলড্রেন এন্ড ইনফ্যান্টস ইন্টারন্যাশনাল (ডিসিআই)।

alt
ডিসিআই নির্বাহী পরিচালক ড. এহসান হক জানিয়েছেন, সম্মেলনে যোগ দিতে আমন্ত্রিত অতিথিরা ইতিমধ্যে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে কানেকটিকাট পৌঁছতে শুরু করেছেন। সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন কানেকটিকাটের সিনেটর ক্রিস মারফি, ইয়েল স্কুল অব পাবলিক হেল্থের ডীন ড. স্টেন এইচ ভেরমুন্ড, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. রিচার্ড ক্যাশ, জাতিসংঘে শ্রীলংকার স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ড. রোহান পেরেরা, বাংলাদেশের জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ও ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের চিফ কোঅর্ডিনেটর ড. মুহাম্মদ আবদুল মজিদ এবং বগুড়ার ক্ষুদ্রঋণ ভিত্তিক এনজিও ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক ড. হোসনে আরা বেগম, ঢাকা থেকে প্রকাশিত পাক্ষিক প্রবাস মেলা পত্রিকার সম্পাদক ও Solutions 1 Automation Limited এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ মুহম্মদ রাশেদ,।প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্য থেকে আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন-এর সভাপতি হাকিকুল ইসলাম খোকন ।
 alt
ড. এহসান হক আরো জানান, ডিসিআই-এর আমন্ত্রণে এবারই প্রথমবারের মতো ইউরোপে বসবাসরত বাংলাদেশীদের শীর্ষ কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ কানেকটিকাট সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন।

alt

প্যারিস ভিত্তিক ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউবিও)’র প্রেসিডেন্ট এবং অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)’র সেক্রেটারি জেনারেল কাজী এনায়েত উল্লাহ’র নেতৃত্বে ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলে রয়েছেন আয়েবার দুই ভাইস প্রেসিডেন্ট পর্তুগাল-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও লিসবন সিটি কাউন্সিলর রানা তাসলিম উদ্দিন, সাউথ ফ্রান্সের তুলুজ সিটির বাংলাদেশ কমিউনিটি এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ফকরুল আকম সেলিম এবং স্পেনের বার্সেলোনা বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহারুল ইসলাম মিন্টু।
 alt
বাংলাদেশে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ভাগ্য বদলে দিতে আমেরিকা-ইউরোপ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে এবারের কানেকটিকাট সম্মেলন মাইলফলক হয়ে থাকবে, এমন আশাবাদ আয়োজকদের।


জাতিসংঘের সামনে যুক্তরাষ্ট্র যুব সংহতির বিক্ষোভ সমাবেশ = ‘স্টপ কিলিং রোহিঙ্গা মুসলিম ইন মায়ানমার’

শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : ‘স্টপ কিলিং রোহিঙ্গা মুসলিম ইন মায়ানমার’ শ্লোগানের মধ্য দিয়ে জাতিসংঘের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় যুব সংহতি। সমাবেশ থেকে রোহিঙ্গাদের উপর নিপীড়ন-নির্যাতন, অত্যাচার আর হত্যা বন্ধের দাবী জানানোর পাশাপাশি অবিলম্বে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার জোর দাবী জানানো হয়।

Picture

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের পক্ষেই রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান সম্ভব। তাই আগামী দিন তারা জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চান এবং এজন্য দেশের জনগণের সহযোগিতা কামনা করেন।

alt
রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় জাতীয় যুব সংহতির পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র যুব সংহতি শুক্রবার অপরাহ্নে এই বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে। বেলা আড়াইটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত এই বিক্ষোভ সমাবেশ চলে। এসময় সমাবেশকারী দলীয় ব্যনার ও জাতীয় পতাকা হাতে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়।alt
সংগঠনের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোহাম্মদ আব্দুল কাদের লিপু এবং সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এবিএম খায়রুল আলমের নেতৃত্বে সভায় সাবেক এমপি শহীদুর রহমান, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু, উপদেষ্টা আব্দুর নূর বড় ভূইয়া, জাতীয় পার্টি নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল খান আনসারী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সহ সভাপতি জসিম উদ্দিন চৌধুরী ও খন্দকার আলী নাসিম, কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির সদস্য আলতাফ হোসেন নিউইয়র্ক সিটি জাতীয় পার্টির সভাপতি শুভঙ্কর গাঙ্গুলী, জাপা নেতা জাফর মিতা, , যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির যুগ্ম তথ্য ও যোগাযোগ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান সোহাগ, সহকারী মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফারহিন আহমেদ স্বর্ণা সহ জাতীয় পার্টি ও যুব সংহতির নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

alt
এদিকে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের জন্য জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ কামনা করে জাতিসংঘের মহাসচিব বরাবর কেন্দ্রীয় জাতীয় যুব সংহতির পক্ষে একটি স্মারকলিপি দেয়া হয় বলে সংগঠনের নেতারা দাবী করেন।


ডিসিআই এর ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আমন্ত্রিত যারা

শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি: চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দুস্থ ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ে ডিসিআই এর ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক সম্মেলন। ১৪ অক্টোবর ২০১৭ অনুষ্ঠিতব্য এ সম্মেলনের মূল উদ্যোক্তা Distressed Children & Infants International (DCI)।

এবারের সম্মেলনে শিশুশ্রম নিরোধ করে বিশ্বব্যাপী সকল শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং অন্যান্য মৌলিক মানবাধিকার অমান্য করার প্রবণতার রোধকল্পে করণীয় নির্ধারণে বিশেষ জোর দেয়া হবে। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ৩০ জনেরও অধিক বক্তা উক্ত বিষয়ে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করবেন।

সম্মেলনে এবছর মানবধিকার ও শিশু অধিকার বিষয়ে নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার প্রয়াসে বহুসংখ্যক যুবনেতৃবৃন্দ, ভলান্টিয়ার, সম্মানিত ব্যক্তিবর্গসহ বিপুল সংখ্যক উৎসাহী ব্যক্তি অংশ নেবেন। বাংলাদেশ থেকে কন্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির প্রেসিডেন্ট প্রফেসর এ.কে. আজাদ খান, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির চীফ কোর্ডিনেটর ও বাংলাদেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ আব্দুল মজিদ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত পাক্ষিক প্রবাস মেলা পত্রিকার সম্পাদক ও Solutions 1 Automation Limited এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ মুহম্মদ রাশেদ,  প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্য থেকে ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউবিও)’র প্রেসিডেন্ট ও অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন (আয়েবা)’র সেক্রেটারি জেনারেলের কাজী এনায়েত উল্লাহ, পর্তুগাল-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট Captureএবং লিসবনের সদ্য পুনঃনির্বাচিত সিটি কাউন্সিলর রানা তাসলিম উদ্দিন, ফ্রান্সের ‘এয়ারবাস সিটি’খ্যাত তুলুজের বাংলাদেশ কমিউনিটি অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও আয়েবার ভাইস প্রেসিডেন্টে ফকরুল আকম সেলিম এবং স্পেনের বার্সেলোনা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহারুল ইসলাম মিন্টু এ সম্মেলনে অংশ নেবেন বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, এ সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য হলো বিশ্বব্যাপী শিশুশ্রম, দরিদ্রতা ও শিশুদের অন্ধত্ব নিবারণে একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা, যার মাধ্যমে শিশুদের গুরুত্বপূর্ণ এ সমস্যাগুলো সকলের সচেতন যৌথ অংশগ্রহণের মাধ্যমে স্থায়ীভাবে সমাধান করা যায়।


ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির বলি = স্বামী-স্ত্রীসহ ১১ বাংলাদেশিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :যুক্তরাষ্ট্রকে ‘মেক গ্রেট অ্যাগেইন’ বলে স্বপ্ন দেখানো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির বলি হলেন ১১ বাংলাদেশি। তাঁদের জোর করে বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।গতকাল বুধবার ভোরে ১১ জনকে আটক করে অ্যারিজোনার দুর্গম ডিপোর্টেশন কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশগামী বিশেষ ফ্লাইটে জোর করে তুলে দেওয়া হয়। ১১ জনের মধ্যে ১০ জনই নিউইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি।

বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো ব্যক্তিরা হলেন সেলিম আহমেদ, মোজাম্মেল হক, করিম চৌধুরী, মুজিবুর রহমান, বাবলু শরিফ, মোহাম্মদ বাদল রনি, মোহাম্মদ ফরিদুল মওলা, মনিরুল ইসলাম, নাসরিন চৌধুরী, মোহাম্মদ আম্বিয়া ও খায়রুল আম্বিয়া।

সম্প্রতি ব্যাপক ধরপাকড়ে অ্যারিজোনার ফ্লোরেন্স কারেকশন সেন্টারে দুই নারীসহ ২৭ বাংলাদেশি ডিপোর্টেশনের পথে রয়েছেন বলে জানা গেছে। যেকোনো সময় তাঁদের বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিতাড়িত ব্যক্তিদের স্বজনেরা অভিযোগ করেছেন, বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ দ্রুত পাসপোর্ট দিয়ে মার্কিন অভিবাসন বিভাগকে সহযোগিতা করেছে। এতে ভুক্তভোগী অভিবাসী ও তাঁদের পরিবার আইনের সাহায্য নেওয়ার আগেই বিতাড়ন প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাচ্ছে।

কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের আটক করার পর মার্কিন অভিবাসন বিভাগ থেকে সংশ্লিষ্টদের পাসপোর্ট বা ট্রাভেল ডকুমেন্ট সংগ্রহ করা হয়। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দূতাবাস বা কনস্যুলেট তাদের দেশের নাগরিক কি না, তা তদন্ত করে সময় নিলে ওই ব্যক্তির পক্ষে আইনি পদক্ষেপ নিতে পারেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বলেন, আনডকুমেন্টেড অভিবাসীদের তথ্যাদি চাওয়া মাত্র দ্রুত আইএস-কে (ইমিগ্রেশন সার্ভিস) দিতে বাংলাদেশ দূতাবাসকে সতর্ক করা হয়েছে।

ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, ট্রাম্প প্রশাসন সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর অভিবাসীদের তথ্য জানাতে গড়িমসি করায় বাংলাদেশের নাগরিকদের বি-১ ভিসা বন্ধ করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। চলতি বছরের মার্চে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন বিভাগ এ–সংক্রান্ত হুঁশিয়ারি পত্র দূতাবাসে পাঠায়। এরপর থেকেই ভিসাপ্রক্রিয়া সচল রাখার স্বার্থে দূতাবাস দ্রুতগতিতে ট্রাভেলস ডকুমেন্ট ইমিগ্রেশন সার্ভিসের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করে।

Picture

দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের শুরু থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত আনডকুমেন্টেড বাংলাদেশিদের তথ্য দিতে দেরি হওয়ায় ঢাকা থেকে বাংলাদেশের অনেক নাগরিকের ভিসা আবেদন বাতিল হয়। ওই প্রক্রিয়া বন্ধ করতেই দূতাবাসকে দ্রুত তথ্য দিতে হয়।

মানবাধিকার সংগঠক, সাউথ এশিয়ান এডুকেশন স্কলারশিপ অ্যান্ড ট্রেনিং অর্গানাইজেশনের নির্বাহী মাজেদা উদ্দিন বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের অভিবাসন নীতির শিকার হয়ে দুই নারীসহ ২৭ বাংলাদেশি ডিপোর্টেশনের পথে আছেন। তাঁরা এখন অ্যারিজোনার ফ্লোরেন্স কারেকশন সেন্টারে আছেন। নিউইয়র্ক, কানেকটিকাট, নিউজার্সি ও অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্য থেকে তাঁদের আনডকুমেন্টেড হিসেবে আটক করে ইমিগ্রেশন সার্ভিস। আটক ব্যক্তিদের পরিবার যুক্তরাষ্ট্রেই এখন মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

আটক হওয়া ব্যক্তির পরিবারের বরাত দিয়ে মাজেদা উদ্দিন বলেন, আটক ব্যক্তিদের হাতে ইংরেজিতে ‘লো আর হাই’ লেখা বিভিন্ন রঙের ব্যান্ড লাগানো আছে। গত চার মাসে বাংলাদেশ দূতাবাস ১৪ জনকে ট্রাভেল ডকুমেন্ট দিয়েছে। কোনো তদন্ত ছাড়াই দূতাবাস ট্রাভেল ডকুমেন্ট দিচ্ছে এবং দূতাবাস আটক ব্যক্তির পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। অথচ বাংলাদেশ দূতাবাস তদন্ত করে যারা অপরাধের সঙ্গে জড়িত নন, তাঁদের মুক্ত করার ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। বিশেষ করে মার্কিন অভিবাসন বিভাগকে ট্রাভেল ডকুমেন্ট না দিলে তাঁরা আপাতত রক্ষা পেয়ে আইনের আশ্রয় নিয়ে বৈধ হওয়ার সুযোগ নিতে পারতেন। পাকিস্তান দূতাবাস দেশটির আটক ব্যক্তিদের ট্রাভেলস ডকুমেন্ট না দেওয়ায় তাঁরা বন্ড দিয়ে ফিরে এসে যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে থাকতে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

মাজেদা উদ্দিন বলেন, গত দেড় মাস আগে চারজন ও গত তিন-চার মাসে মোট ১৪ বাংলাদেশিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে ডিপোর্ট করা হয়েছে।

বিতাড়নের শিকার হওয়া বাংলাদেশিরা অনেকেই দুই-তিন দশক থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বাস করছেন। এখানে বিয়ে করেছেন, সন্তান হয়েছে। বিতাড়নের শিকার বাবলু শরিফের পরিবার গত মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করেছে। তাঁরা ট্রাম্পের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, এভাবে যেন বিতাড়ন না করা হয়।

এদিকে অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে নতুন ৭০ দফা কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর ভাষ্য, অবৈধ অভিবাসন সমস্যা চূড়ান্তভাবে সমাধান করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হোয়াইট হাউস গত ৯ সেপ্টেম্বর ৭০-দফা পরিকল্পনা কংগ্রেসে উপস্থাপন করে। এ পরিকল্পনায় সীমান্তদেয়াল নির্মাণের কথাও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে বিদ্যমান আইনে তিনটি পরিবর্তন রয়েছে। সীমান্ত নিরাপত্তা, অভ্যন্তরীণ আইনের শক্ত প্রয়োগ এবং বৈধ অভিবাসন ব্যবস্থার সংস্কার।

অবৈধ অভিবাসন বন্ধে বিচার বিভাগ,পররাষ্ট্র, লেবার ডিপার্টমেন্ট এবং হোমল্যান্ড সিকিউরিটিসহ প্রধান তিন অভিবাসন সংস্থার সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এ উদ্দেশ্যে অবৈধ অভিবাসী–অধ্যুষিত নগরে দেওয়া আর্থিক অনুদান ও সহযোগিতা বন্ধ করার বিধান রাখা হয়েছে। রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার শিথিল নীতি কঠোর করার কথা বলা হয়েছে। মা-বাবাহীন বহিরাগত শিশুদের প্রমাণ করতে হবে, তারা মা-বাবাহীন এবং দুঃসহ পরিস্থিতি থেকে রক্ষার উদ্দেশ্যে মানবিক সুরক্ষা চাইছে। ভ্রমণকারী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে মেয়াদ শেষে অতিরিক্ত সময় অবস্থান করলে তাদের কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হবে। ২০০১ সালে সুপ্রিম কোর্ট দেওয়া হত্যার আসামিসহ হাজারো অবৈধ অভিবাসীকে মুক্ত করার যে সিদ্ধান্ত, তা সংকুচিত করা হবে। ফেডারেল, অঙ্গরাজ্য এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে অবৈধ অভিবাসীদের আটক করার ক্ষমতা থাকবে।

‘আমেরিকান ভয়েস’-এর নির্বাহী পরিচালক ফ্র্যাঙ্ক সারী বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও কংগ্রেসকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, তাঁরা এ সংকটের সমাধান করবেন নাকি মিলারের ফাঁদে পা দেবেন।

অনেকের ধারণা, ট্রাম্পের নতুন কর্মসূচি বৈষম্য ও পক্ষপাতদুষ্ট। এতে আরও বেড়া তৈরি হবে, সীমান্ত পাহারাদারদের সংখ্যা বাড়বে, বহুমাত্রিক লটারি ভিসা বন্ধ হবে, ইলেকট্রনিক যাচাই বাধ্যতামূলক হবে। অন্য সব বিষয়ের মতো অভিবাসন নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কঠোর যাত্রা অব্যাহত থাকবে।