Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

লেখকদের কলাম

দেশী বৌদ্ধদের কি দোষ, ওদেরকে কেন মারছেন?

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

ইমতিয়াজ মাহমুদ : এখন রোহিঙ্গাদের কথা কি বলবো? ওদের প্রতি মানবিক সহমর্মিতা তো আমাদের আছেই। আমাদের সরকারও ওদেরকে সাহায্য করছে। আমাদের সরকার চেষ্টা করছে রোহিঙ্গা ইস্যুটি আন্তর্জাতিক ফোরামে নিয়ে গিয়ে সেখানে মায়ানমারের উপর চাপ সৃষ্টি করা, যাতে করে ওরা রোহিঙ্গাদেরকে ফেরত নেয়, ওদের অধিকার রক্ষা করে, ওদেরকে আইনের সুরক্ষা দেওয়ার ব্যাবস্থা করে। আর মানবিক সাহায্যের ব্যাপারে তো আমাদের দেশের সকলেই একমত- অনেকটা জাতীয় ঐক্য যেন তৈরি হয়েছে।

কিন্তু আমাদের দেশী বৌদ্ধদের কি দোষ। ওদেরকে কেন মারছেন? এটা কি ধরনের অন্যায়? এটা কি ধরনের প্রতারণা? এটা কি ধরনের ভণ্ডামি? এটা তো পুরা ভণ্ডামি রে ভাই। কেন এটাকে ভণ্ডামি বলছি?
মায়ানমারের কাছে আমরা কি দাবী করছি? আমরা দাবী করছি যে রোহিঙ্গারা হিন্দু কি মুসলিম কি বৌদ্ধ সেটা মুখ্য বিষয় নয়, ওরা প্রায় হাজার বছর ধরে বার্মায় বসবাস করছে, ওরা বার্মার নাগরিক, ওদের বিরুদ্ধে ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য করা অন্যায়। বলছি না আমরা এই কথা? বলছি না যে কেবল ধর্মের কারণে মায়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদেরকে ভিন্ন চোখে দেখতে পারে না? বলছি তো। তাঁর মানে আমরা কোন নীতিটা প্রতিষ্ঠা করতে চাইছি? আমরা চাইছি যে একটা জনগোষ্ঠীর সাধারণ ধর্মীয় পরিচয়ের কারণে তাদের উপর অত্যাচার নিপীড়ন করা যাবে না। তাইলে আমরা কেন ধর্মীয় পরিচয়ের কারণে অন্যদেরকে মারবো। এটা ভণ্ডামি না? বার্মাকে বলবো ধর্মের কারণে বৈষম্য করছ- সেটা অন্যায়, আর আমরা নিজেরা ধর্মের কারণে মানুষের উপর অত্যাচার করবো?
একটা ভিডিও পাঠিয়েছেন এক বন্ধু, সেখানে একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু প্রাণভয়ে কাতর হয়ে ওকে যা বলতে বলছে তাই বলছে ক্যামেরার সামনে। আশপাশ থেকে গালাগালি আর হুমকির আওয়াজ ভেসে আসছে। এটা নাকি বেনাপোলের ঘটনা। আমার পিচ্চি দোস্ত অংপ্রু (আমি ওকে ডাকি বাবু বলে), ওর কাছে আরও কয়েকজনের কাছে শুনলাম চট্টগ্রামে অক্সিজেন এলাকায় নাকি হুমকি দেওয়া হয়েছে, ১৬ তারিখের মধ্যে সকল বৌদ্ধদের এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হবে, তাইলে ওদের খবর আছে। অক্সিজেন এলাকায় অনেক পাহাড়ি আদিবাসী বাস করে- অনেকেই ছাত্র, অনেকে শহরে নানারকম চাকরী বাকরি করে।
কিছুদিন আগে মিরপুরে একটি বৌদ্ধ বিহারে হুমকি দিয়েছে। বৌদ্ধদেরকে মেরে ফেলা হবে, কিয়াং ভেঙে ফেলা হবে ইত্যাদি। মিরপুরে নাকি পুলিশ প্রহরা বসানো হয়েছে বিহারের আশেপাশে। কিন্তু দেশের অন্যত্র? পাহাড় থেকে ছেলেমেয়েদের বার্তা পাই। ওরা ভয় পাচ্ছে। অজানা অচেনা লোকজন আনাগোনা করছে। রাতের অন্ধকারে কারা যান ট্রাক নিয়ে একখান থেকে আরেকখানে যাচ্ছে।
আমি ভয় পাচ্ছি। ভয় পাচ্ছি, তবে কি রোহিঙ্গাদের প্রতি আমাদের মানবিক সহানুভূতিকে ব্যাবহার করে উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী এদেশে সাপ্রদায়িক অশান্তি তৈরি করবে? আপনারা যারা লিবারেল গণতন্ত্রমনস্ক মানুষরা আছেন, আপনারা কিছু বলবেন না? আমরাও কি তবে মায়ানমারের মতোই মানুষ মারতে থাকবো? মানুষই তো। মায়ানমারের ওরা রোহিঙ্গা মারছে, ওরাও মানুষ, আর আমাদের বৌদ্ধরাও মানুষ। মানুষই তো। শেষ বিচারে মৃত্যু তো হয় মানুষেরই।
মেহেরবানি করে সকলে একটু বলেন, মুখ খোলেন। সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস আমরা সহ্য করবো না। বৌদ্ধ বলেই কাউকে মারতে ধরবেন না, হেনস্তা করবেন না। ধর্মীয় পরিচয়ের কারণে মানুষকে অত্যাচার করা সেটা সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদীদের কাজ।
হিন্দু উগ্রবাদী, মুসলিম উগ্রবাদী এরা সকলেই এক এই ব্যাপারে। আর আছে ধর্মকে যারা রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধির হাতিয়ার বানাতে চায় ওরা। আমাদের এখানে জিয়াউর রহমান যেরকম আমাদের জাতীয় পরিচয়ে আর রাজনীতিতে ধর্মীয় উপাদান ঢুকিয়েছিলেন, একইভাবে মায়ানমারের মিলিটারি শাসকরাও ধর্মীয় উপাদান ঢুকিয়েছে। জিয়াউর রহমান ঢুকিয়েছেন ইসলাম আর বার্মার ওরা ঢুকিয়েছে থেরোবাদি বৌদ্ধ ধর্ম। আপনি যদি আসলেই উদার গণতন্ত্রী হয়ে থাকেন, আসলেই আমাদের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে থাকেন আর আসলেই যদি আধুনিক হয়ে থাকেন তাইলে আপনাকে এদের বিরুদ্ধে কথা বলতেই হবে।
এমনকি আপনি যদি রোহিঙ্গাদের প্রতি প্রকৃতই সহানুভূতিসম্পন্ন হয়ে থাকেন তাইলেও আপনাকে বৌদ্ধদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমার এই প্রিয়তম স্বদেশে ধর্মীয় সন্ত্রাসীদের হাতে মানুষ হত্যা সহ্য করবো? আপনি বলেন, করবেন?
(ফেসবুক থেকে নেওয়া)


শয়তান এবং ইয়াজিদের নাচ।আবু জাফর মাহমুদ

মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০১৭

আল্লাহ্‌র প্রতি ঈমানের এক চূড়ান্ত পরীক্ষা হয়েছিলো কারবালার যুদ্ধে।নিশ্চিত মৃত্যুর  খবর জেনেই আল্লাহ্‌র প্রতি আনুগত্যের পরীক্ষাকে দৃঢ়চিত্তে কবুল করার উদাহরণ হচ্ছে হুসেইন এবং ৭২জন শহীদ।বদরের যুদ্ধে মুসলমানদের কাছে পরাজিত হয়ে জীবন ভিক্ষা চেয়ে  ইসলাম গ্রহনকারী  যোদ্ধা  মু’আবিয়ার পুত্র ইয়াজিদ।শয়তানের পথে অনুগত হতে অস্বীকার করার ফলে  অনিবার্য্য হয় এই  রক্তপাত।
 ইয়াজিদ মদিনায় নিযুক্ত উমাইয়া শাসক ওয়ালিদ ইবনে উতবাকে নির্দেশ দিয়েছিল-“ হুসাইনকে, আবদুল্লাহ ইবনে ওমরকে, আবদুর রহমান ইবনে আবুবকরকে ও আবদুল্লাহ ইবনে যোবাইরকে শক্তভাবে বায়আত করার জন্য পাকড়াও কর। যে-ই বায়আত তথা আমার আনুগত্য প্রকাশ করতে অস্বীকার করবে তার মাথা কেটে আমার কাছে পাঠিয়ে দাও” (মাকতালই খাওয়ারিজমি, ১ম খণ্ড, ১৭৮-১৮০পৃ.)
 অভিশপ্ত ইয়াজিদ ইমাম হুসাইন (আ.)কে শহীদ করার ঘটনার পর বলেছিল: আমার পূর্বপুরুষরা যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে তারা দেখতেন যে, কিভাবে আমি মুহাম্মাদের পরিবার ও (তাঁদের গোত্র) বনি হাশিমের কাছ থেকে প্রতিশোধ নিয়েছি।  
অভিশপ্ত ইয়াজিদ এক কবিতা আবৃত্তি করে বলেছিল: আমি আহমদের (রাসূল-সা.) কাছ থেকে প্রতিশোধ নিয়েছি বদর যুদ্ধের বদলা হিসেবে যা সে (তিনি) করেছিল ওই যুদ্ধে আমাদের পূর্ব পুরুষদের বিরুদ্ধে।
 
লম্পট ও মদ্যপ ইয়াজিদ আরো বলেছিল: মদ যদি দ্বীনে মুহাম্মাদিতে হারাম হয়ে থাকে তবে ঈসা ইবনে মারিয়মের ধর্ম তথা খ্রিস্টান ধর্মের আলোকে হালাল হিসেবে খাও!!! (তাফসিরে ইবনে মাজহারি, খ-৫, পৃ-২১১-১২)  
 ইয়াজিদ  মুহাম্মদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিয়েছে বদরের যুদ্ধে তার বাবাদের শোচনীয় পরাজয় এবং আত্নসমর্পনের।ইতিপূর্বে ইয়াজিদকে প্রিন্স  ঘোষণা দিয়েও মু’আবিয়া সফল হয়নি।পরবর্তীতে নিজেকে বাদশাহ ঘোষণা করে কিছুদিন নির্মমতা চালিয়ে প্রতিটি ঘাতক মানবজাতির কাছে চরম অপমানিত ও দুর্ভোগ হজম করে মৃত্যুর কাছে পরাজিত হয়।পরবর্তীতে বিদ্রোহের উত্থান হয়। খুঁজে খুঁজে জালেমদেরকে গন্তব্যে পাঠিয়ে দেয়া হয় এবং অবশিষ্ট বাকিরা অন্ধ অথবা ভয়ানক রোগে আক্রান্ত হয়ে নিজেদের দুর্দশায় নিজেরাই পাপ স্বীকার করে করে এখানে ওখানে মরেছে।  
 আবদুল্লাহ বিন খাজালাতুল ঘুসাইল (সাহাবী) থেকে জানিয়েছেন, ওই সাহাবি ইমাম ওয়াকিদি বলেছেন, ‘আমরা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিলাম যে ইয়াজিদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ না করলে আল্লাহর আজাব হিসেবে আকাশ থেকে আমাদের ওপর পাথর বর্ষিত হবে, খোদার কসম, (এই বিশ্বাসে) নিশ্চিত হওয়ার পরই আমরা বিদ্রোহ শুরু করি ইয়াজিদের বিরুদ্ধে।’ ইয়াজিদপন্থীরা তথা ইয়াজিদের অনুসারী ও সাঙ্গপাঙ্গরা নিজ মা, বোন ও কন্যাদের বিয়ে করা শুরু করেছিল (জাহেলি যুগের মত), তারা প্রকাশ্যে মদ পান করত এবং নামাজকে উপেক্ষা করত।(সুয়ুতির তারিখুল খোলাফা পৃ-১৬৭)।   
ঐতিহাসিক মহ্‌রম মাসে মিয়ানমার-ভারত-বাংলাদেশে নিজেদের জীবন এবং জীবন- স্রষ্টার সম্পর্কের সাথে আঞ্চলিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপট নিয়ে ভাবতেই ভেসে আসে বাংলাদেশকে ঘির ফেলা শক্তিগুলোর চেহারা।ইয়াজিদের ন্যায় ওরা বিশাল সেনাশক্তি ও সামর্থ্যের অধিকারী,ওরা প্রবল আগ্রাসী।মু’আবিয়া-ইয়াজিদের পছন্দের তৎকালীন অপরাধগুলোর ধারা চালু করার চেষ্টা চলছে উক্ত অঞ্চলের মানুষের জীবনে।শয়তানের নির্দ্দেশিত রাজনীতির আলোকেই মানুষদেরকে অশ্লীলতার প্রতি  অনুগত হবার চাপ প্রয়োগে সচেষ্ট রাষ্ট্রগুলো।মিয়ানমার ও ভারতের দিকে তাকালে অনেক বর্বরতার মিল খুঁজে পাওয়া যায়।তবে এয়াওব বর্বরতা সবাই মানছে তা নয়, মানুষদের প্রার্থনা এবং নিরন্তর সংগ্রামও চলছে নিরাপদ জীবনের আশায়।          
 পশ্চিম বঙ্গের ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি’র বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ করেছে এবং বাঙালি-বিদ্বেষী   প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা পুড়িয়েছে।৭ই অক্টোবর শনিবার তৃণমূল নেতা-কর্মীরা পশ্চিম বঙ্গের রাজধানী কোলকাতার পাশাপাশি জেলার বিভিন্নস্থানে বিজেপিবিরোধী বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন ও প্রধানমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা পোড়ান। ঘটনার শুরু বিজেপির বাড়াবাড়ি দিয়ে।   
দার্জিলিংয়ের পাহাড়ে বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের  চড়-থাপ্পর-কিল-ঘুষি মারার নেপথ্যে তৃণমূলের হাত থাকার কথা দাবি করে আগের দিন শুক্রবার কোলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্নস্থানে তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপি নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ দেখান। কোলকাতায় পোড়ানো হয় মুখ্যমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা। ওই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর অবমাননা হয়েছে অভিযোগ করে রাজ্য তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় গতকাল বিজেপির বিরুদ্ধে পথে নামাসহ প্রধানমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা পোড়ানোর নির্দেশ দেন।  
বৃহস্পতিবার ৫ই অক্টোবর দার্জিলিং সফরে গেলে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষকে নিগ্রহ করে সেখানকার ক্ষুব্ধ মানুষজন। দিলীপ বাবুদের সঙ্গী সাথীদের মারধর করাসহ 'দিলীপ ঘোষ গো ব্যাক' ধ্বনি দেন বিক্ষোভকারীরা।মারমুখো জনতার হাত থেকে কোনোক্রমে পালিয়ে দার্জিলিং সদর থানায় আশ্রয় নেন দিলীপ বাবুরা। বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের দাবি, তাদের নিগ্রহের পিছনে তৃণমূলের হাত আছে। তৃণমূল অবশ্য ওই দাবি নাকচ করে দিলীপ ঘোষ অশান্তি সৃষ্টির উদ্দেশ্যে পাহাড়ে গেছেন বলে মন্তব্য করছে।  
এইসব বাদানুবাদের যুক্তি যাই থাকুক, জঙ্গি হিন্দুত্ববাদীদের রাষ্টময় ক্ষমতার বেহাল দশার চিত্র দেখা গেলো বাঙালির রাজ্যে।এভাবে হিন্দু গণশত্রুদের ধোলাই দেয়ার বিপ্লবী চেতনায় বাঙালি হিন্দুদের মধ্যে যে দৃঢ়তা দেখা দিয়েছে,তা অবশ্যই লক্ষ্যণীয়।এই মহান চেতনার অংশীদার মুসলমান,খৃষ্টান,বৌদ্ধ ও অন্যান্যেরা। বাঙালি এবং অপরাপর জাতির শান্তিকামী মানুষরা ঐক্যবদ্ধ হচ্ছেন ভবিষ্যতের নিরাপত্তার বিবেচনায়।
সীমান্তের ওপারে এই জঙ্গি ষড়যন্ত্রকারীদেরকে গণধোলাই দেবার বাতাস বয়ে যেতে তো পারেই।ঝড় তুফান জলোচ্ছ্বাসের সীমান্ত অতিক্রম দেখে দেখে বড় হয়েছি।এই দুর্যোগের ব্যপকতা নিয়ে চিন্তা কিছুটা তো হতেই পারে। এপারের মানুষের মধ্যে শ্লোগান উচ্চারিত হতেই পারে “জয় বাঙালি”,“জয় মমতাদি”  “জয় মানবতা” “জয় বাঙালির একতা”।   
নরেন্দ্র মোদীদের জঙ্গিহিন্দুপন্থি রাজনৈতিক স্বৈরাচারিতা  দেখেও চোখ বন্ধ করে রাখতে হচ্ছে বাংলাদেশে।কানে কিছু না শোনার ভান করে থাকতে হচ্ছে।এতে নিজেদের লাভ-অলাভের বিষয় জড়িত।বাংলাদেশ সরকারের রাজনীতিকরা জাতে মাতাল তালে ঠুং ঠাং।


হা-হা-কার = এস ই ইসলাম

সোমবার, ০৯ অক্টোবর ২০১৭

এ জগতের সৃষ্টির শ্রেষ্ট যারা,
স্বার্থেও উর্ধ্বে যায় নাকো তারা।
সোনার হরিণের মিছে আশা,
বিলিন করে মনুষত্বতা।
নিরাপদ নাই এ বাস,
আছে শুধুই হা-হা-কার।
প্রতিযোগীতায় চলে সদা,
দিনে দিনে বাড়ছে বাঁধা।
শৃঙ্খলিত হতে আসে,
আগমনী সতর্ক বার্তা
উৎসাহিত হয় সকল কর্তা
বেড়িয়ে আসুক খোলস খুলে,
সকল দ্বিধা দ্বন্দ্ব ভুলে।
প্রতিবাদেও ঝড় তুলে,
সকল দায়িত্ব নিলে।
ঐক্যের বাক্যের আহ্বান,
গ্রহণ করলো জনগণ।
তবুও রয়ে গেল আজও
অপ্রাপ্তির হা-হা-কার
সর্বাগ্রে নৈতিকতার উন্নয়ন দরকার।
জ্ঞানী গুনিজন মিলে
সমাধানের পথ দেখালে
তবেই হবে এর উত্তরণ।


অনিশ্চিত গন্তব্যে বাংলাদেশ ---সামছুল ইসলাম মজনু

বৃহস্পতিবার, ০৫ অক্টোবর ২০১৭

দীর্ঘদিন যাবৎ দেশে ছেড়ে প্রবাসে আছি কিন্তু কেন জানি বাংলাদেশের ভাল খবরে পুলকিত হই একই সাথে মন্দ খবর শুনলে শিহরিত হই। সব সময় বাংলাদেশের ভাল শুনতে চাই এটাই আমাকে আশান্বিত করে। একটা মানুষ হিসাবে জন্মভূমিকে কখনও ভুলতে পারে না। দীর্ঘ আটাশ বছরের পদযাত্রায় অনেক কিছুর সাক্ষী, যদিও অনেকে আসেন ক্ষনিকের বিনোদনের জন্য। সততার সাথে উন্নত জীবনের তাগিদে এই প্রবাস জীবন বেঁচে নিয়েছি। এখানে কেহ বা সফল হয়েছে কেউ বা নয়, এটা আমার কাছে এই মুহুর্তে মুখ্য নহে, তবে দেশ প্রেমিকের পরীক্ষায় যে উত্তীর্ণ হয়েছি এটা বলতে দ্বিধা নাই, আর তারই ধারাবাহিকতায় আজকের এ লেখা।

বাংলাদেশ এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মধ্যে দিয়ে ১৯৭১ সালে স্বাধীন হয়, বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের স্থান হয়, এই স্বাধীনতা নিয়ে বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি তর্ক রয়েছে আমি সেখানে যাব না, তবে এটা বলতে দ্বিধা নেই, সবার মধ্যেই দেশ প্রেম আছে হয়ত দৃষ্টিকোণ ভিন্ন, দেশ প্রেম থাকাটাই স্বাভাবিক এটাই কাম্য। আমরা যারা দীর্ঘ সময় প্রবাসে আছি এবং যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব নিয়া নিয়াছি এবং প্রশ্ন করা হয় কোনটা আগে আমি বাংলাদেশকেই বেঁচে নিব, যদিও বিষয়টা খুব কঠিন তবুও বলবো জন্মভূমির প্রতি রয়েছে দূর্বলতা, আর তারাই সূত্র ধরে আজকের এই লেখা।

বাংলাদেশের ভৌগলিক রাজনীতিতে একটা অশান্তি বিরাজ করছে যা নাকি এতদিন আমরা মধ্যপ্রাচ্যের ফিলিস্তিনকে নিয়া দেখেছি। অত্র অঞ্চলে একেক রাষ্ট্র একেক ভূমিকা রাখছে, কেউ বা নিজের প্রভার বিস্তার করার চেষ্টায় মত্ত্ব আবার অন্যরা নিজেদের অস্তিত্ব ঠিকিয়ে রাখার চেষ্টা, তার উপর রয়েছে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্বার্থ।

ভাষার ভিত্তিতে রাষ্ট্র হচ্ছে বাংলাদেশ, বাংলাদেশের শুরুটাই ছিল বিতর্কিত কারণ বাংলাদেশের প্রধান ভাষা বাংলা হলেও বাংলা ভাষাভাষী বিশাল পরিমাণ লোক এখনো বাংলাদেশের বাহিরে রয়ে গেছে, যদি একটু পিছনের দিকে তাকাই তাহলে সহজেই দেখতে পাই বৃহত্তর সিলেটের কাছাড় হতে শুরু করে পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা তদানিন্তন বার্মা তথা আজকের মিয়ানমারের আরকান রাজ্য যা নাকি রাখাইন হিসেবে বর্তমানে পরিচিত, তার সবটাই বাংলা ভাষা ভাষী লোকের সংখ্যাই বেশী অথাৎ বাংলাবাসী যদিও ধর্মীও দৃষ্টিকোণে আমরা সবাই বিভক্ত এক্ষেত্রে এই সব বাঙালীরা যদি ঐক্যবদ্ধ হতো তা হলে কি হতো? উত্তরটা এ মুহুর্তে আমার জানা নাই, ভাল মন্দ হিসাব করে চুলচেরা বিশ্লেষণের যোগ্যতা আমার নেই, তবে আজকের লেখনিতে আমি ছাপান্ন হাজার বর্গমাইলের স্বাধীন বাংলাদেশ নিয়ে আমার এই লেখা সীমাবদ্ধ রাখতে চাই।

স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব যেকোন রাষ্ট্রের মৌলিক ভিত্তি, যখন এটার উপর আঘাত আসে তখন রাষ্ট্রের অস্তিত্ব নিয়া প্রশ্ন উঠে আসে এখানেও রয়েছে রাজনৈতিক বির্তক। যেভাবেই লিখা লিখতে চাই না কেন, দেখা যাচ্ছে কেন জানি বির্তকের মাঝে জড়ায়ে পড়তেছি এসকল বির্তককে পাশ কাটিয়ে ‘অনিশ্চিত গন্তব্যের বাংলাদেশ’ সেটার অনুকূলে কিছু লিখাই আমার উদ্দেশ্য।

বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যা সতের কোটি, ছোট্ট একটা দেশ, মাত্র ছাপান্ন হাজার বর্গমাইল যার আয়তন, পরম করুনাময় আল্লাহ আমাদের প্রতি সহায় হউন এই কামনা দিবা নিষি। এই ঘনবসতির দেশে সর্বস্থরে দুর্নীতিবাজ বা দুর্নীতি পরায়ন, সুষম বন্টনের অভাব, শেষ ভরসাস্থল বিচার ব্যবস্থায় রয়েছে বিশৃঙ্খলা, যদিও এগুলো ঠিক ঠাক থাকত, তবে হয়ত সুষম বন্টনের মধ্যে হলেও কিছুটা উত্তরণের পথ বাহির করা যেত। এখানে দিনে দিনে কোটিপতির সংখ্যা বাড়ছে অন্যদিকে বৃহত্তর জনগোষ্ঠী দারিদ্র সীমার নিচ থেকে আরো অবনতি হচ্ছে। অপুষ্টি অনাহারে বেড়ে উঠছে বেশীর ভাগ, রয়েছে অসংখ্য সমস্যা।

ভাটির দেশ বাংলাদেশ, শুষ্ক মৌসুমে পানির প্রয়োজন অথচ কোন পানির প্রবাহ নাই, খাল বিল প্রায় পানি শুন্য থাকে শুষ্ক মৌসুমে। অথচ বর্ষাকালে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি প্রবাহ, পানির উৎস স্থলের সাথে আলোচনা করে একটা সমাধানের উপায় বাহির করার চেষ্টা করা হলেও প্রতিবেশী দেশের অসহযোগিতার কারণে এটার সমাধান হচ্ছে না। আবার বর্ষাকালে পানির এত চাপ যার ফলশ্রুতিতে সমগ্র উত্তর বঙ্গে বন্যায় ভেসে যায় এর প্রভাবে কৃষি পণ্যের উৎপাদনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। আবার এদিকে দক্ষিণ পূর্বাচলে বষায় নদীতে সাগরের পানি উঠে আসে তাতে করে পানি তার গতি হারিয়ে এখানেও বন্যার মাঝে থাকতে হয়। সামগ্রিক ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাষন প্রক্রিয়ায় ত্রুটি এবং অবহেলা। এক্ষেত্রে যদি নদী, বিল খালের সংস্কার করা গেলে হয়ত এ অবস্থা থেকে রেহায় পাওয়া যেত, বর্ষাকালে দেখা যায় মেট্রোপলিটন শহরে বসবাস করেও নৌকাই হয়ে উঠে একমাত্র বাহন।
এদিকে আবার ইতিমধ্যে দশ লাখের ও অধিক রোহিঙ্গা শরণার্থীর অনুপ্রবেশ ঘটছে বাংলাদেশে। মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে চলছে বাঙালী মুসলমান নিধণ, বাড়ী ঘর জ্বালিয়ে নিরহ মানুষদের হত্যা করছে মিয়ানমারের আধা সামরিক সরকার। যুবক/যুবতীদের পৈাসাচিক আচরণ করে ক্ষান্ত নয় তারা তাদের অঙ্গ প্রতঙ্গ ছিন্ন করে আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরালে প্রচার করছে। অমানুষিক নির্যাতনে বাঁচার জন্য হাজার হাজার নয় লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করছে। রোহিঙ্গাদের যারা আসছে তাদের বেশীর ভাগই বৃদ্ধ, মহিলা ও শিশু, প্রাপ্ত বয়স্ক যুবকের অনুপস্থিত। পর্যালোচনা করে এবং পরিবারের লোকের সাথে আলোচনা করে জানা গেছে, এই সকল যুবকরাই সেনাবাহিনীর প্রথম টার্গেট। একটা জাতিকে ধ্বংস করে দিতে চাইলে যুব সমাজকে ধ্বংশ করলেই যথেষ্ট, যুব সমাজই মূল চালিকা শক্তি। এতে করে সহজেই অনুন্নেয় এই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নির্মূল করার জন্য দীর্ঘ প্রয়াস চলছে। আজ সারা বিশ্বে হোলিকাষ্টের ঘটনার জন্য সমালোচিত হিটলার ও তার বাহিনী, যে পরিমাণ ইহুদিকে সেদিন হত্যা করা হয় তার চেয়ে অনেক বেশী পরিমাণ মিয়ানমারের মুসলিম বাঙালীকে হত্যা করা হচ্ছে, যারা প্রভাব পড়ছে বাংলাদেশে অথচ দু একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সারা বিশ্ব নিশ্চুপ। বাংলাদেশ একা কিভাবে সামাল দিবে এই বিপুলসংখ্যক শরনার্থীদের খাদ্য, স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা গুলোর জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। এমনিতেই রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে বাংলাদেশকে জঙ্গি তকমা দেয়া হয় তার উপর এই রোহিঙ্গাদের মধ্যে থেকে যদি জিগাংসার সৃষ্টি হয় এবং সত্যই এরা যদি জঙ্গি কার্যকলাপের সাথে জড়িয়ে যায় তখন কিভাবে সামাল দেয়া হবে আর বাংলাদেশকে ধ্বংস করার জন্য হায়েনাদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয়া হয় তখন কোথায় যাব আমরা?

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজেদের অবস্থান শক্ত করার জন্য চাই মেধা সম্পন্ন কূটনৈতিক তৎপরতা, চরম দূভাগ্যের বিষয় হচ্ছে বাংলাদেশের সরকারী দল বা বেসরকারী দল কেহই আমার কাছে মনে হয় কূটনৈতিক তৎপরতায় পারদর্শী নহে, সঠিক পররাষ্ট্রনীতি থাকলেও দেখা যায় এই কূটনৈতিক তৎপরতা যেন শুধুমাত্র চাটুকারিতায় ভরা, আসলে সুষ্ঠ নীতিমালা রয়েছে কিনা তা প্রশ্নাতিত আমাদের ফেলানীকে গুলি করে মারা হয়, আমাদের ন্যায্য পানির হিস্যা পাই না, আমাদের সংস্কৃতির আকাশ শিকল বন্দী তার উপর ইদানিং আমাদের আকাশ সীমায় কয়েকবার মিয়ানমারের হেলিকপ্টার টইল দেয় কোথাও কি আমরা শক্ত ভূমিকা রাখতে পেরেছি। উল্লেখ্য আজকের বিশ্বে ছোট্ট রাষ্ট্র ইসরাইল তার কূট চাল/কূটনৈতিক তৎপরতা দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের সব দেশকে একে একে তার তল্পিবাহক বানাচ্ছে, যার সর্বশেষ চেষ্টা চলছে স্বাধীন কুর্দিস্থান তৈরী করা, এতে করে তৈল গ্যাস সমৃদ্ধ অঞ্চলকে নিজের করায়ত্ব করা।
রাজনীতিতে রয়েছে চরম বিশৃঙ্খলা অবস্থা, গণতন্ত্রের লেবাসে চলছে স্বৈরতন্ত্র, কিভাবে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করা যায় সে চেষ্টায় মত্ত্ব, বিরোধী পক্ষের কথা বলা বা প্রতিবাদ করার কোন জো নাই, একটা নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবীতে সারা দেশের মানুষ সোচ্চার হলেও দেশের শাসন ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত দল, তার কোন কর্ণপাত করতেছে না, জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য সম্মিলিত প্রয়াসকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়াছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

আমার রাজনৈতিক পরিচয়ে আমি হয়ত একটা দলের পক্ষে বলব, কিন্তু নিজেকে নিরপেক্ষ রেখে যদি পর্যালোচনা করি তবুও নিন্দুকেরা হয়ত আমার সমালোচনা করবেন। পাঠকের কাছে এই প্রশ্নগুলো রেখে আজকের লিখার ইতি টানতে চাই, যেভাবেই বলুন না কেন, ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ কোথায় যাচ্ছে বা যাবে আপনি আমার সাথে একমত না হয়ে পারবেনা না, লিখার সাথে সহ মত পোষণ করে আপনিও কিছু লিখেন। ধন্যবাদ।

সামছুল ইসলাম মজনু
ব্রায়ারউড, নিউইয়র্ক।


শুভ হোক তোমার জন্ম দিন --- এস ই ইসলাম

সোমবার, ০২ অক্টোবর ২০১৭

সদ্য ফোঁটা পুষ্প রাজি,
ঘিরে আছে তোমার মুখচ্ছবি।
জন্ম হলে তুমি এক ঐশ্বর্য্য মানবী,
তুমি সেই বঙ্গ নেত্রী।
উদিত হলে বীর দর্পে,
এই সবুজের লীলা ভূমিতে।
লাঞ্চনা, যন্ত্রণা, লড়াই করে বাংলার বুকে,
অধিষ্টিত হলে বিশ্বের দরবারে!
জয় জয় জয় হলো,
জয় বাংলা বলে আজ আওয়াজ তোল।
নিখুঁত কারিগর তুমি, বঙ্গনেত্রী,
বিশ্বের বুকে আলোকিত নক্ষত্র রূপী।
যোগ্য পিতার যোগ্য কন্যা,
তুমিই হলে অনন


আশ্রিত রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরতে চায়---এস ই ইসলাম

সোমবার, ০২ অক্টোবর ২০১৭

লেখক আশ্রিত রোহিঙ্গাদের পরিদর্শনকালে দেখতে পান দুর্বল হয়ে আসছে রোহিঙ্গা নারী-শিশুরা। নবজাতক থেকে ১০ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে এ প্রবণতা বেশি। এমনিতেই স্মরণার্থীদের মধ্যে পুষ্টিহীন শিশুর সংখ্যা বেশি। নবজাতকদের মধ্যে বেশির ভাগ শিশুই মাতৃদুগ্ধ পাচ্ছে না। আবার অপুষ্টির শিকার হয়ে অনেক মা এখন মৃত্যু শয্যায়। এর সাথে যোগ হয়েছে সময় মতো খাবার না পাওয়া। ত্রাণের অপ্রতুল্যতা। স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্যের অভাব। পরিবেশগত বিষয় তো আছেই। স্বজন হারানোর যন্ত্রণা, নির্যাতন আর বীভৎসতা রাতদিন কুরে-কুরে খাচ্ছে অনেক নারীকে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা কেহই ভালো নাই। দুঃখ, কষ্ট, আর যন্ত্রণায় তাদের প্রতিদিনের সূর্যাস্ত হয়। যদিও বাংলাদেশে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপ ও সেনা তৎপরতার সুফল পাচ্ছে রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তায় সেনাবাহিনী মোতায়েন পর শৃঙ্খলা আনায়ন ত্রাণ তৎপরতা ও আশ্রয়ের ক্ষেত্রে দ্রুত সুফল আসছে। উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ বিতরণে সেনাবাহিনীর তৎপরতা শুরু না হলে পরিস্থিতি কি অবনতি হতো তা চিন্তা করা যায় না।
সেনাবাহিনীর পাশাপাশি স্থানীয় জন প্রতিনিধি সরকারী কর্মকর্তা, এনজিও, দেশি-বিদেশী দাতা সংস্থা ও বিভিন্ন সংগঠনেরÑসেচ্ছা সেবকরা দিবা রাত রোহিঙ্গাদের জন্য সার্বিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে, ঢাকায় সফররত জাপানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়াং হরি বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা শরণার্থী নিয়ে সৃষ্ট কঠিন সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের প্রতি টোকিও’র  পূর্ণ সমর্থন রয়েছে’। বুধবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে বৈঠকের পর জাপানের মন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বিষয়টি (রোহিঙ্গা) জাপানের জন্যও উৎকন্ঠার। আমরা বাংলাদেশের জন্য সহায়তাও দিচ্ছি। জাপান শুরু থেকেই বাংলাদেশের পাশে আছে, থাকবে। সর্বশেষ ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বিশ্ব মানবতার বাতিঘর’ হিসাবে স্বীকৃতি পাচ্ছেন বিশ্ব নেতাদের কাছ থেকে। ৩৬ বছরের দীর্ঘ রাজনৈতিক পথ পরিক্রমায় শেখ হাসিনা কেবল সেই মহান নেতার কন্যা তাঁর রাজনৈতিক উত্তর সূরি হিসাবে গণ মানুষের প্রধান নেতার আসনে স্থান পাননি। তিনি জেল, জুলুম, মামলা-হামলা, হত্যা প্রচেষ্টাসহ স্বজন হারানো ও হুমকির মুখে অটল থেকে নেতৃত্বের অগ্নিপরীক্ষায় উর্ত্তীণ হয়েছেন।
গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাহসী নেতৃত্ব জনগণের কাছে আদর্শের ও অনুপ্রেরণার প্রতীক হয়ে আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনিই আজ মহান কাজে বিভিন্ন সম্মাননায় ভূষিত হচ্ছেন। তাঁর মত একজন সাহসী নারীর পক্ষেই সম্ভব হয়েছে রোহিঙ্গা আশ্রয় দেওয়ার সিদ্ধান্তটি। তিনি বলেছেন, আমার যতটুকু আছে তা দিয়েই আমি এই নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। যদিও অনেক দেশ রোহিঙ্গাদের নিয়ে ভাবছে এবং সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।
পরিশেষে, তাদের (রহিঙ্গাদের) সাথে আলাপ কালে জানতে পারলাম যে, তারা নিজ দেশে ফিরতে চায়। নিরাপদ আশ্রয় হোক তাদের। বাসযোগ্য পৃথিবী তাদের একান্তকাম্য।


চলছে অবিরাম যদিও বিদেশে রাজনৈতিক দলের শাখা আইনগতভাবে বেআইনী ! -শাহ আলম ফারুক

বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭

আইন করে নিষিদ্ধ করা হয়েছে । তবু কোন দল তা মানছে না । গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ৯০(গ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের বিদেশে শাখা থাকা বেআইনী। এ বিধান না মানলে সংশ্লিষ্ট দলের নিবন্ধনও বাতিল হতে পারে।
২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচনী আইনে ব্যাপক সংস্কার সাধনের উদ্যোগ নিয়েছিল ড. এ টি এম শামসুল হুদার নেতৃত্বাধীন ইসি। এ সময় ইসি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে এ সংস্কারের বিষয়ে সংলাপ করেছিল । বিদেশে দলের শাখা নিষিদ্ধের প্রস্তাব সম্পর্কে বর্তমানে ক্ষমতাসীন  আওয়ামী লীগ বলেছিল, ‘প্রবাসীদের ভোটাধিকার স্বীকার করা হবে অথচ তাদের সংগঠন করার অধিকার থাকবে না—এমন বিধান হবে অযৌক্তিক।  কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, জাসদ (ইনু) ও ইসিকে একই মত জানিয়েছিল। জাতীয় পার্টি মত দিয়েছিল অঙ্গ বা সহযোগী সংগঠন এবং বিদেশে দলের শাখা বন্ধ করার পক্ষে। এ বিষয়ে সব দলের অভিমত নিয়ে ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছিল সিপিবি। বিভাজনের কারণে বিএনপির মূল অংশ ওই সময় সংলাপে অংশ নেওয়ার সুযোগ পায়নি।

alt
ওই বিধান করার পক্ষে ইসির বক্তব্য ছিল, দেশের ভৌগোলিক সীমানার বাইরে রাজনৈতিক দলের দপ্তর, শাখা কিংবা কমিটিও দেশের রাজনৈতিক বিভাজনকে বিদেশের মাটিতে সম্প্রসারিত করছে। বিদেশের মাটিতে যখন সব বাংলাদেশির একাত্ম হয়ে দেশের সুনাম অর্জনের চেষ্টা চালানোর কথা, তখন সেখানে হিংসাত্মক রাজনৈতিক বিভাজন শুধু প্রবাসীদের মধ্যে সম্প্রীতি বিনষ্ট করছে তা-ই নয়, বাংলাদেশের ভাবমূর্তিও যথেষ্ট ক্ষুন্ন করছে।

সরকারী দল কখনো বিদেশে বিক্ষোভ পছন্দ করে না । বিরোধীরা শুধু পছন্দই করে না বরং সক্রিয় অংশগ্রহণ করে। গত সাত বছর ইউরোপ থাকার অভিজ্ঞতায় দেখেছি, পৃথিবীর অন্য কোন দেশের অভিবাসী বা অনাবাসীরা অহরহ বিদেশের মাটিতে আমাদের মত করে রাজনীতি করে না ! কিন্তু দরকার মত মাঝে মাঝে প্রতিক্রিয়া যে ব্যক্ত করে না তা কিন্তু নয় । হাইড পার্ক কর্ণারে সিরিয়া ইরাক লিবিয়া শ্রীলংকাসহ কত কত দেশের মানুষের হাতে প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ড দেখেছি, বিক্ষুব্ধ সমাবেশ দেখেছি । কিন্তু আমাদের মত কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি  দেখিনি ।  
রাজনৈতিক দল গুলোর এমন বিদেশ কমিটি গৌরবের কিছু নয় । ইউরোপ আমেরিকা মধ্যপ্রাচ্যে বসে কেউ দেশকে নিয়ে ভাববে না তা হয় না । কিন্তু তা বলে দেশের মত সাজ সাজ রব করে রাজনীতি করে কেমন যেন লজ্জায় ফেলে দেয় স্বদেশকে ।  কয়েকজন প্রবীণ প্রবাসীর সাথে কথা হলে তাঁরা বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র, মানুষের অধিকার,  নির্বাচন সংখ্যালঘু সহ দুর্বল জনগোষ্ঠীর উপর হামলা, মানবাধিকার বা যে কোন  দৈব দুর্রিপাকের কোন ঘটনায় সংহতি জানাতে সমস্যা নেই । স্বাধীনতার সময় বিলাত ছিল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের তৃতীয় কেন্দ্র। সে দিন দল মত নির্বিশেষে অর্থ কড়ি দিয়ে, বিভিন্ন সভা সমাবেশ, নাগরিক উদ্যোগে বিশ্বব্যাপী জনমত গঠনে ব্রিটেনের প্রবাসীরা ব্যাপক ভূমিকা রেখেছিল ।   কিন্তু আজ কি হচ্ছে? রাজনীতির নামে বিদেশে বসে দেশীয় কায়দায় কমিটি করে অগ্নিভাষী বক্তৃতার রাজনীত, দেশের বা ঐ দেশে বসবাসকারী নাগরিকদের উপকারে কোন ভাবেই লাগছে না, বরং নানা কাঁদা ছোড়াছোডি্র কারণে  তা অনাবাসী-প্রবাসীদের ছোট করে দেয়। সংগঠিত মতামত থাকতে পারে । তথ্য প্রযুক্তির এ যুগে প্রতিবাদ নানাভাবে হতে পারে। তা বলে রাস্তায় নেমে পঁচা ডিম ও জুতা ছোড়াছোড়ি, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া অশোভন ও নিন্দনীয় । দেশের রাজনীতি নিয়ে অতি মাতামতির চেয়ে বরং রওশন আরাদের মত মূলধারার রাজনীতিতে স্থান করে নিতে পারলে দেশেরও ও প্রবাসীদেরও সমূহ উপকার হোত !

শাহ আলম ফারুক : লন্ডন প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী
আইনজীবী, সাবেক সিনিয়র তদন্ত কর্মকর্তা,
আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক )
এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।


সুখের দেশের অসুখের মহাউ্যসব : ভারত ই রোগীদের শেষ ভরসা = গোলাম সাদত জুয়েল

বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭

আমাদের দেশের স্বা্স্থ সেবা নিয়ে গবেষনার সময় এসেছে । প্রায়ই আমরা যারা প্রবাসী দেশের মা বাবা ভাই বোন ও আত্বীয় স্বজনদের অসুখের খবর আসে । তখন আমরা শুনতে পাই ডাক্তারের কাছে অনেক কষ্টে যাবার পর ডাক্তার সাহেব এক থেকে পাচ মিনিটে রোগীকে বসিয়ে রোগ সম্পর্কে শুনার আগেই এক গাদা টেষ্ট লিখে দেন , তারপর ৫০০ টাকা ভিজিট নিয়ে একাট ডায়গনস্টিক সেন্টারের কার্ড দিয়ে সেখানে পাঠিয়ে দেন । সরল বিশ্বাসে রোগীর আত্বীয় স্বজন সেখানে যান অপ্রয়োজনীয় সব টেষ্ট করে সেখানে ১৫০০ থেকে ২৫০০ টাকা খরচ করে ৩/৪ দিন পর ডাক্তারের চেম্বারে আসেন । সেদিন রোগী আর ডাক্তারের চেম্বারে ঢুকতে পারেন না কারন তিনি ততদিনে পুরনো রোগী হয়ে গেছেন । ডাক্তারের সহকারী তার রিপোর্ট গুলো ডাক্তারের চেম্বারে নিয়ে যান । মহামান্য ডাক্তার সাহেব তখন তিন জন রোগী নিয়ে বসেছেন । রিপোট দেখার পর তিনি বেশ বড় আকারের প্রেসক্রিপশন লিখে দেন ,রোগীর সাথে কোন কথা না বলে । বলতে গেলে ডাক্তার রোগীর সাথে তেমন কোন কথাও দুদিনে বলেন না । তার সহকারী চেম্বারের পাশে একটা ফার্মেসী দেখিয়ে দেন , সেখানে আরও ৫০০টাকার মেডিসিন কিনে রোগী বাড়ী আসেন । ডাক্তার সাহেব ভিজিট নিলেন ৫০০ টাকা , ডায়গনষ্টিক সেন্টার থেকে ৩০ /৪০ শতাংশ কমিশন নিলেন সেখানে পেলেন ৭০০ টাকা তারপর প্রেসক্রিসশনের মেডিসিন থেকে পেলেন আরও ১০০ টাকা সবকিছু মিলিয়ে একজন রোগীর নিকট থেকে তিনি আয় করলেন ১৩০০ টাকা । অথচ কোন রোগ ধরতে পারলেন না । ১৫ দিন পর দেখা গেল রোগীর কোন পরিবর্তন নেই । এ চিত্র বাংলাদেশের শহর থেকে গ্রামের সব জায়গার । ডাক্তার রা ডায়গনষ্টিক সেন্টার খুলেন , কোন প্যাথলজিষ্ট ছাড়া , কোন একজন প্যাথলজিষ্টকে নিয়োগ দেন তার সিগনেচার ব্যাবহার করার জন্য । তিনি সিগনেচার দিয়ে টাকা পান । আনাড়ি প্যাথলজিষ্ট সহকারীরা ডায়গনষ্টিক সেন্টার চালান । কোন অনুমোদন ছাড়া এগুলো চলে আসছে দেখার কেউ নাই ।

কয়েক দিন পর রোগীর আত্বীয় স্বজন যখন দেখলেন রোগীর কোন উন্নতি হছেছ না , তখন তারা ছুটলেন ঢাকায় আরও বড় ডাক্তারের কাছে । সেখানে সব কিছু আগের মত কিন্তু একটু গোছালো ও শিক্ষিত মান সম্পন্ন । তাই রেট একটু বেশী । ডাক্তারের ভিজিট ১০০০ টাকা, টেষ্ট ৩০০০ টাকা কিন্তু মেডিসিন কেনার জন্য কোন উপদেশ কেউ দেন না । তিনি যে কোন জায়গা থেকে মেডিসিন কিনতে পারেন না । ডাক্তার আগের রিপোর্ট গুলোকে ডাষ্টবিনে ফেলে নতুন টেষ্ট করালেন , একটু অনুমানে তিনি রোগী কথা শুনলেন মিনিট দুয়েক তারপর রোগীকে ছেড়ে দিলেন । ভাগ্য ভাল হলে হয়ত রোগী ভাল হয়ে যান নতুবা আত্বীয় স্বজন রা ছুটেন ভারতের উদ্দেশ্যে । এ ঘটনা কোন একজনেন নয় , এ চিত্র প্রতিদিনের সাড়া বাংলাদেশের । আর কেউ যদি আত্বীয় স্বজনকে ইউনাউটেড , এ্যাপলো , স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করান তাহলে তাকে প্রতিদিন গুনতে হবে ৩০/৪০ হাজার টাকা , সিষ্টেম একই নানা টেষ্ট ও নানা ষ্পেশালিষ্ট দেখিয়ে তাকে ২/৩ লাখের বিল দিয়ে আসতে হবে । নানান হিডেন বিল দিবে , শুধু ভেতরে বাইরে চাকচিক্য দিয়ে মুখি মাষ্ক পরিয়ে দেখাবে আধুনিক চিক্যিসা হছেছ । কিন্তু সব অপ্রয়োজনীয় খরচ দিতে হবে রোগীর আত্বীয় স্বজনকে । কেবিনে এক প্যাকেট টিসু বস্ক দিবে আপনাকে দিতে হবে ২০০ টাকা অথচ এটা বাজারে ৭৫ টাকা হবে । এরকম উদাহরন সারা বাংলাদেশের ঘরে ঘরে । বাংলাদেশে কেউ অসুস্থ হলেও তার ভোগান্তির শেষ নেই । আর সরকারী হাসপাতাল হল শুধু থাকার জায়গা , একটা বেড পেতে পারেন সোভাগ্যবান হলে তানাহলে মেঝেতে পড়ে থাকতে হবে । ইন্টার্নি ডাক্তাররা দেখবে মেডিসিন কিনতে হবে বাইরে থেকে । স্যালাইন সহ সব গর‌ীব রোগীকে এনে দিতে হবে । সব চলবে গরীব রোগীর টাকায় , অথচ সব মেডিসিন দিতে না পারলে শুধু থাকা ছাড়া কোন কাজ নেই সরকারী হাসপাতালে । অনেক অনিয়ম ও দুর্নিতীর কেন্দ্র সরকারী হাসপাতাল । সব মেডিসিন বাইরের ফামের্সীতে চলে যায় অসাধূ হাসপাতালের কর্মচারীদের যোগসাজসে ।

গত তিন বছরে ৭১টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনুমোদন দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আর গত পাঁচ বছরে অনুমোদন নিয়ে নগরে ক্লিনিক-হাসপাতাল গড়ে উঠেছে ২৯টি। চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত অনুমোদিত ক্লিনিক-হাসপাতালের সংখ্যা ৮৭টি আর ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা ১৮০টি। এই তথ্য চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক কার্যালয়ের। আমরা যারা এই নগরে বাস করি আমরা জানি এর বাইরেও বিপুল সংখ্যক ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক রয়েছে। শহরের অলি-গলিতে গজিয়ে ওঠা এইসব প্রতিষ্ঠানের কোনো অনুমোদন নেই। আর এমন অননুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কত তা-ও জানে না সিভিল সার্জন ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়।
বাংলাদেশে চিকিৎসাসেবার মান নিয়ে সন্তুষ্ট নয় দেশের মানুষ। ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর রিপোর্টের ওপরও আস্থা রোগীদের। এর ফলে প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক রোগী বিদেশে চিকিৎসার জন্য যান এবং তাতে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রাও চলে যায় দেশের বাইরে। শুধু চিকিৎসার সংকট বা চিকিৎসকদের ওপর আস্থার অভাবেই নয়, দেশের সিংহভাগ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রিপোর্ট বাইরের দেশের চিকিৎসকরা গ্রহণ করেন না। ভুল রিপোর্ট, ভুল চিকিৎসা, রোগীদের প্রতি চিকিৎসকদের অবহেলা নতুন নয়। প্রায় প্রতিদিন দেশের কোথাও না কোথাও এই সমস্ত সমস্যা নিয়ে চিকিৎসক বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে রোগী ও রোগীর স্বজনদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছেই। এই ধরনের ঘটনা শুধু যে সরকারি হাসপাতালে ঘটে তা নয়। বেসরকারি ক্লিনিক বা হাসপাতাল, যেখানে রোগী বা রোগীর স্বজনরা অন্তত অর্থের বিনিময়ে সেবা পাবেন এমন আশায় যান সেখানের অবস্থাও হতাশাজনক।
বছরখানেক আগে র‌্যাবের পক্ষ থেকে নগরের হাসপাতাল-ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। তাতে নগরের অনেক খ্যাতিমান ও ব্যয়বহুল হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিভিন্ন অনিয়ম ধরা পড়ে। তাদের জরিমানাও করা হয়।
অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সেবার মান দেখা এবং সে সাথে অননুমোদিত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে সিভিল সার্জন কার্যালয় ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক কোনোরূপ ভূমিকাই পালন করেন না। যদিও এইসব অনিয়ম দেখা ও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার এখতিয়ার রয়েছে এই দুটি কার্যালয়ের। সিভিল সার্জন ‘তাদের ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার নেই’ বলে দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এ বিষয়ে র‌্যাবকে সহযোগিতা করতে পারতো ওই দুটি কার্যালয়। নগরের স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নে এই দুটি কার্যালয় কার্যত ব্যর্থ। এ বিষয়ে তা দের আগ্রহের মাত্রাও খুব বেশি নয়। যদি তাই হয়ে থাকে জনগণ প্রশ্ন তুলতে পারে এই দুটি কার্যালয়ের প্রকৃত কাজ কী তবে?
ওষুধের দাম নিয়ন্ত্রণে কোনো ভূমিকা নেই। নকল ও ভেজাল ওষুধ বিক্রয়কারীদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেই। এমনকি অনুমোদনহীন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে দুটি কার্যালয়ের কাজ এবং তাদের করণীয় নিয়ে আমরা অসন্তোষ প্রকাশ না করে পারি না।

প্রতিদিন বাংলাদেশের রোগীরা ভারতে যাছেছন , বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে আস্থার অভাবে । বাংলাদেশের মার্কেট টা বড় তাই কোথাও কোন এফেক্ট পড়ছেনা । এত বিশাল মেডিকেল ফিল্ড , পপুলেশন বেশী তাই চাহিদাও বেশী , সেকারনে ভারতে চলে যাচেছ আমাদের এ সেক্টরের বিশাল একটি আয় । তদারকি করার ও কেউ নেই , সবাই দায়িত্ব এড়িয়ে চলেন , আবার অনেকে দুনির্তী করে পাড় পাচেছন । এই সেক্টরের দুনির্তী সবচেয়ে বেশী । ভুয়া ডায়গনষ্টিক সেন্টার , ভুয়া মেডিসিন কারখানা , ভুয়া ডাক্তার ,ভুয়া প্যাথলজিষ্ট , ভুয়া রিপোর্ট সব কিছু চলছে । মাঝে মাঝে কোন কোন টিভি রিপোর্টার নিউজ করেন অনেক সত্য বেরিয়ে আসে । চলছে হযবরন অবস্থা । শুধূ চট্রগ্রামের একটি চিত্র উপস্থাপন করা হল , অথচ সারা বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলা ও ৪৩৫ টি উপজেলায় চলছে এ্ই স্বাস্থ্য সেবার দুনির্তীর মহাউ্যসব । মানুষে মৌলিক চাহিদার একটি অন্যতম চিক্যিসা সেবা , সেটা নাগরিকরা দাবী করলেও তা কখন্ও পায়নি । আবার টাকা দিয়েও তারা সঠিক মাপের সেবাটাও পাচেছ না । তাই সবাই ভারতমুখি । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজে বলেছেন , আমি আমার চিক্যিসা বাংলাদেশেই করাতে চাই । অথচ দেশের মন্ত্রী , এমপি সহ সব বিত্তশালী ও প্র্ভাবশালীরা কোন কিছু হলে বিদেশ ছুটেন । ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ১০ কোটি মধ্যবিত্ত বা গরীব মানুষের একমাত্র ভরসাই বাংলাদেশের চিক্যিসা ব্যবস্থা । সবারই কামনা এ সবের সুষ্ট নিয়ন্ত্রন ও সেবার মান নিশ্চিত হোক । সকলেই সুস্থ ভাবে বাচতে চায় । চায় সুচিক্যিসা , নাগরিকদের এ দাবী সময়ের দাবী ।

গোলাম সাদত জুয়েল: সাংবাদিক -কলামিষ্ট ( ফ্লোরিডা )


রোহিঙ্গাদের অপরাধ, তারা বাঙ্গালি = সিরাজী এম আর মোস্তাক

বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বাংলা ভাষায় কথা বলা কি অপরাধ? বাঙ্গালি জাতি কি মানবজাতির অংশ নয়? মায়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায় বাংলা ভাষায় কথা বলে। এজন্য মায়ানমারের সামরিক জান্তার অভিযোগ, রোহিঙ্গারা বাঙ্গালি। তারা বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে আসা অবৈধ অভিবাসী, অনুপ্রবেশকারী ও ঘৃণিত বাঙ্গালি জাতি। বাংলাদেশই তাদের আবাসভূমি, মায়ানমার বা আরাকান নয়। রোহিঙ্গারা সুস্পষ্ট বাঙ্গালি, এ অপরাধে তাদের প্রতি সর্বকালের সর্বনিকৃষ্ট বর্বরতা চলছে। অথচ প্রাচীনকাল থেকেই তারা আরাকানে স্বাধীনভাবে বাস করে আসছে। মায়ানমারের মগদের তুলনায় রোহিঙ্গাদের আবাসন মোটেও কম সময়ের নয়। প্রাসঙ্গিক লিংক--(https://www.hrw.org/reports/2000/burma/burm005-01.htm)। প্রাচীন আমল থেকেই তারা বাংলায় কথা বলছে। বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন চর্যাপদ ১৯০৭ সালে আরাকান থেকেই উদ্ধার হয়েছে। সৈয়দ আলাওলসহ বাংলা সাহিত্যের বহু লেখকের আবাসভূমি আরাকান। তাই রোহিঙ্গাদের ভাষাগত রূপ ভিন্ন হলেও তারা বাংলাতেই কথা বলে। যেমন, বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ভাষা হুবহু এক নয়। রোহিঙ্গারা শুধু মুসলিম নয়, তাদের মধ্যে হিন্দু, খ্রীষ্টান ও বৌদ্ধসহ সব ধর্মের মানুষই রয়েছে। ধর্ম যাই হোক, তাদের ভাষা বাংলা। তেমনি বাংলাদেশে নব্বই ভাগ মুসলিম হলেও সব ধর্মের মানুষই রয়েছে। অর্থাৎ ধর্ম যার যার, বাংলা ভাষা সবার। এ ভাষার জন্যই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস চালু হয়েছে। বাঙ্গালি জাতি বিশ্বব্যাপী পরিচিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ বাঙ্গালি জাতির জনক। রোহিঙ্গারা বাংলাকে তাদের মাতৃভাষা করেছে। আর এ অভিযোগে মায়ানমারের সামরিক জান্তা রোহিঙ্গাদের ওপর নিকৃষ্ট গণহত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। তারা নিছক রোহিঙ্গা নিধন করছেনা, তারা বাঙ্গালি হত্যা করছে। তারা বাঙ্গালি জাতিসত্ত্বা নির্মূল করছে। ফলে এখন প্রায় এক মিলিয়ন বাঙ্গালি উদ্বাস্তু হিসেবে বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে এবং অবর্ণনীয় মানবেতর জীবন যাপন করছে। তাদের একটাই অপরাধ, তারা বাঙ্গালি।
রোহিঙ্গারা বাঙ্গালি, তাই বলে কি তাদেরকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিতে হবে এবং জঘন্য গণহত্যা চালাতে হবে? আরাকান তো রোহিঙ্গাদেরই আবাসভূমি। প্রাচীন আমল থেকেই তারা সেখানে বসবাস করে আসছে। একসময় তারা মগদের সাথে শাসন ক্ষমতাও পরিচালনা করেছে। প্রাসঙ্গিক লিংক- (http://www.newmandala.org/the-rohingya-and-national-identities-in-burma/)। দীর্ঘদিন যাবৎ সেনা বা স্বৈরশাসনের ফলে রোহিঙ্গারা এখন কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। তাই মগের জান্তা সরকার নিছক বাঙ্গালি নিধনের ধুয়া তুলে রোহিঙ্গাদেরকে তাদের মুল্লুক থেকে তাড়িয়ে বাংলাদেশে পুশব্যাক করছে। অথচ পৃথিবীর বহু দেশে বাংলা ভাষাভাষী রয়েছে। ভারতের কলিকাতা ও সেনেগালে বাঙ্গালিদের একাধিপত্য রয়েছে। তাই বলে তারাও কি বাংলাদেশে পুশব্যাক হবে? তারাও কি বাংলাদেশ থেকে পলাতক বা অবৈধ অভিবাসী হিসেবে মুলোৎপাটিত হবে?

alt
আজ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকলে, মায়ানমারের ঘাতকেরা রোহিঙ্গাদের প্রতি এমন নিষ্ঠুরতা চালাতে পারতো না। বাঙ্গালি জাতির জনক তাদের এ নিষ্ঠুর ও অমানবিক আচরণের চুড়ান্ত প্রতিশোধ নিতেন এবং বিশ্বসম্প্রদায়কে সাথে নিয়ে আরাকান দখল করতেন। ভারতের অনাকাঙ্খিত অসহযোগিতার জন্য বাংলাভাষা প্রভাবিত কলিকাতাও দখল করতেন। ভারতের বর্তমান আচরণ কলিকাতার বাঙ্গালিদের জন্য সতর্কবার্তা। মায়ানমারের পর ভারতও সেদেশের বাঙ্গালিদেরকে বাংলাদেশে পুশব্যাক করতে পারে। বাঙ্গালি জাতির জনক বেঁচে থাকলে তা অসম্ভব ছিল। তিনি তাঁর জাতিকে নিরাপদ রাষ্ট্র উপহার দিতেন। যেমন, তাঁর সবচেয়ে যোগ্যতম উত্তরসূরী শহীদ জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ সালে রোহিঙ্গাদের সকল অধিকার ফিরে দিতে মায়ানমার সরকারকে বাধ্য করেছিলেন। তিনি শহীদ হবার পর অর্থাৎ ১৯৮২ সাল থেকেই মায়ানমারের সামরিক জান্তা রোহিঙ্গাদের ওপর আবার অত্যাচার শুরু করেছে। বাংলাদেশ হারিয়েছে বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তরসূরী। ফলে মায়ানমার জান্তা জঘন্য অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে।
আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মহোদয় এতোদিনও নিরব ছিলেন। হাজার হাজার রোহিঙ্গার প্রাণহানির পর কেবলমাত্র বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ, বিশাল ত্রাণবহরের নিয়ন্ত্রণ ও বিশেষ পুরষ্কারের আশায় একেবারে অনিচ্ছা সত্তেও ১২ সেপ্টেম্বর রোহিঙ্গা পরিদর্শনে যান। তিনি রোহিঙ্গাদেরকে বাঙ্গালি নয়, সংখ্যালঘু মুসলিম বলেন। জঘন্য গণহত্যা প্রত্যক্ষ করেও তিনি মায়ানমার সরকারকে হুমকি না দিয়ে বরং রোহিঙ্গাদের ফিরে নেবার সবিনয় অনুরোধ জানান। এতে মায়ানমার সামরিক জান্তা আরেকদফা বেপরোয়া হয়ে ওঠে। রোহিঙ্গাদেরকে প্রকাশ্যে বাঙ্গালি ঘোষণা দিয়ে চিরতরে মুলোৎপাটন করছে।
যেহেতু রোহিঙ্গারা বাঙ্গালি, তাই তাদের প্রতি বাংলাদেশের দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। আমাদের উচিত, বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা অক্ষুন্ন রেখে তাদের নৈতিক সমর্থন করা। প্রয়োজনে আরাকান ও কলিকাতা দখল করে হলেও পৃথিবীতে বাংলা ভাষার স্থায়ীত্ব নিশ্চিত করা। মানবতাবিরোধী মায়ানমার জান্তাকে বাঙ্গালি নিপীড়ন বন্ধে বাধ্য করা। বাঙ্গালি হবার অপরাধে রোহিঙ্গাদের প্রতি অমানবিক আচরনের জন্য অং সান সুচি ও তাঁর সামরিক জান্তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা। তারা শুধু রোহিঙ্গাদের প্রতি অমানবিক আচরন করেনি; বাংলা ভাষার অবমাননা করেছে এবং বাঙ্গালি জাতিসত্ত্বা নির্মূলের ষঢ়যন্ত্র করেছে। এজন্য আমাদেরকে প্রমাণ করতে হবে যে, রোহিঙ্গারা নিছক মুসলিম নয়; তারা বাঙ্গালি ও আরাকানের স্থায়ী বাসিন্দা। তারা বাংলা ভাষা ব্যবহার করতেই পারে। বাংলা একটি আন্তর্জাতিক ভাষা। এটি জাতিসংঘের অফিসিয়াল ভাষাভুক্ত হবে। পৃথিবীর সকল প্রান্তের মানুষ এ ভাষা কমবেশি চর্চা করবে। এটা কোনো অপরাধ নয়। এজন্য তারা বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে যাওয়া অবৈধ অভিবাসী বিবেচিত হবেনা।
শিক্ষানবিশ আইনজীবি, ঢাকা।


দুঃশাসনের কুরুক্ষেত্র --শাহ আলম ফারুক

বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭

প্রবাসের প্রতিটি দিন কাটে উদ্বিগ্নতার মধ্য দিয়ে।আর সেই উদ্বিগ্নতা কিন্তু প্রবাস জীবন নিয়ে নয়, ফেলে আসা মাতৃভূমিকে নিয়ে।  যেখানে আমাদের নাড়ীর টান। প্রশ্ন আসে কেন উদ্বিগ্নতা? এক কথায় উত্তর, যুদ্ধ করে পাওয়া স্বদেশ এখন আর মানুষের জন্য নিরাপদ কোন আবাস নয়। স্বদেশে’র শাসন ব্যবস্থা, বিচার ব্যবস্থা, আইন ও সমাজ ব্যবস্থা নিয়ে গর্ব করার মত কিছুই আর অবশিষ্ট নেই।

নতুন প্রজন্মকে সত্য মিথ্যা শেখানোর নামে কতগুলো হাইব্রিড প্রজন্ম হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। আজকের এই হাইব্রিড নেশন তৈরিতে ৭২ এর পর থেকে কম বেশী সকল সরকারের বিশাল অবদান, তবে বর্তমানের শেখ হাসিনার সরকারের অবদান সকলকে ছাড়িয়ে গেছে।

বাংলাদেশ এখন মাফিয়াদের করতলগত একটি দেশ। আমরা নেতা নেত্রীদের নিয়ে যতই গর্ব করিনা কেন, তাদের বিরুদ্ধে যতই উচ্ছ্বসিত হইনা কেন, আদতে এদের কাছে মানুষের চেয়ে বিশেষ কিছু গোষ্ঠীর মুল্য এতো বেশি যে আমজনতা সেটি অনুধাবন করতে পারলে কখনই এমন হওয়ার সুযোগই থাকতো না। কিন্তু জনতার মূর্খতার কারনে আদর্শ চর্চাহীন রাজনৈতিক দল ও নেতাদের মাথায় তুলে প্রকারান্তরে মাফিয়াদের শাসনের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। আজকে পুলিশ র‍্যাব বিজিবি সবার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ততার ওপেন সিক্রেট অভিযোগ, আদালতের বিরুদ্ধেও মাফিয়াদের সহযোগিতার অভিযোগ আর সরকারের বিরুদ্ধেতো কমিশন বাটোয়ারা অভিযোগ থাকছেই। নইলে পায়ে স্যান্ডেল ছিল না এমন রাজনৈতিক নেতারা ক্ষমতায় গিয়েই কোটিপতি হয় কি করে।
আমরা মানি আর না মানি, ১/১১ এর সরকারের বিরুদ্ধে এমনকি আমারও অভিযোগ রয়েছে; কিন্তু তারা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে গেছে নেতারাতো আছেই এমনকি তাদের ফুটফরমাশ খাটা পিয়নগুলোও কোটি কোটি টাকার মালিক।  তবে তারা এও দেখিয়ে গেছে যে এদেশে অবৈধ আয় আর অবৈধ কাজে জড়িতরাই সম্মান পায়।
শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে সবাইকে ব্ল্যাক মেইল করে এই সকল মাফিয়া গোষ্ঠীগুলোকেই প্রতিষ্ঠিত করেছেন দিনের পর দিন।  আজকে দুই দশক তাই কয়েকগুন বেশী ফাইভস্টার হোটেল হলেও সকল ফাইভ স্টারেরই জমজমাট ব্যবসা।
বাংলাদেশে ফোন করে কুশলাদি জিজ্ঞেস করলেও কোন আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব সরাসরি কথা বলতে ভয় পায়।  কেন ভয় পায়? আপনি আমি সবাই জানি; কিন্তু মুখ খুলতে পারি না। কারন আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে জনগণের মুক্তির কোন ব্যবস্থা করি নাই; আওয়াজ তুলি নাই; নিজেদের আখের গোছাতে গিয়ে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মাফিয়াদের গোলামী করে করে আমরা দেশকে আজকের অবস্থায় নিয়ে এসেছি।  আমাদের চারপাশের অনেক লোক গুম হয়ে গেছে, ক্রসফায়ারের নাটকে মরেছে; হতে পারে এরা আমাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ, কিন্তু এই দেশে কি প্রতিপক্ষরা পরিবার নিয়ে জীবিত থাকতে পারবে না? এই কি তবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা?

দুঃশাসনের কুরুক্ষেত্র -২

-শাহ আলম ফারুক

গত পর্বে সাধারন মানুষ এবং প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে কথা বলছিলাম। এদিকে হঠাৎ করেই ভারতীয় একটি গোষ্ঠী প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা প্রচেষ্টার গল্প ফেদে বসেছে; যেটি সরকারের ভেতর থেকেই আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ হয়েছে । আবার কিছু পক্ষেও বলা হচ্ছে। অনেক কিছুর গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। তবে শেখ হাসিনা নোবেল পেয়ে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে বেশি সম্মানিত হয়ে যাবেন সেটি মনে হয় বিশেষ একটি মহল কখনো মানতে চাইবে না ।

সে যাক, আজকে সহজ সরলভাবে আরও কিছু সত্যের অবতারণা করতে চাই। বাংলাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে আমিও প্রথমত সমর্থন দিয়েছিলাম । প্রত্যাশা ছিল মানুষের জন্য তারা ভাল কিছু করবে, জনগণের জান ও মালের নিশ্চয়তা হবে, প্রশাসনসহ সর্বস্তরে জনগণের অধিকার পূণ:প্রতিষ্ঠিত হবে, বিচার বহির্ভূত হত্যা বন্ধ হবে, শোষনমুক্ত সমাজ তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়নের জন্য তারা কাজ করবে । কিন্তু দিনে দিনে সরকারের নানা কর্মকান্ডে আমার মোহভঙ্গ হয়েছে।

ব্যাংক থেকে ঋণের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট হলো, অর্থমন্ত্রী বললেন এ নাকি সামান্য পিনাটের টাকা । দ্রুত বিদ্যুৎ এর ব্যবস্থার কথা বলে কুইক রেন্টালের নামে কোটি কোটি টাকা অনৈতিক লাভের সুযোগ করে দেয়া হলো অনুগত ব্যবসায়ীদের । বছর বছর প্রশ্ন ফাঁসের নিয়মিত ঘটনার মাধ্যমে ইতোমধ্যে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার ত্রাহি মধূসুদন অবস্থা । দেশের বিচার বিভাগের উপর অযাচিত হস্তক্ষেপের আকাংখা চরিতার্থ করার জন্য এক ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায় এবং রায়ের সাথে কিছু পর্যবেক্ষণ নিয়ে প্রধান বিচারপতির উপর চাপ সৃস্টি করতে এমনকী ক্ষমতার শীর্ষ পর্যায় থেকে যা বলা হচ্ছে তাতে সাধারণ মানুষ শংকিত । ব্রাজিল থেকে পঁচা ও খাবার অনুপযুক্ত গম আনার জন্য যে মন্ত্রী দায়ী, সে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় নি । এমনকী সাংবিধানিক সুস্পস্ট বিধিবিধান থাকার পরও সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক শাস্তিপ্রাপ্ত মন্ত্রীদের অপসারণ বা পদত্যাগ না করিয়ে স্ব স্ব পদে বহাল রেখে সংবিধান লংঘন করা হয়েছে । ৫৭ ধারা, তথ্য সম্প্রচার আইনের খড়্গ দিয়ে মিডিয়াসহ ভিন্ন মতের মানুষের কন্ঠ রোধ ও নিয়ন্ত্রণ করার অপচেস্টা চালানো হয়েছে, এখনো হচ্ছে । কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধ মন্দির ও বসতিতে হামলা,  ব্রাক্ষণবাড়িয়ার  নাসিরনগরে হিন্দু সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলা নির্যাতনের ঘটনায় দলীয় লোকজন জড়িত থাকার প্রমাণ পাবার পরও তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেয়া হয় নি বলে অভিযোগ পাওয়া যায় । ফরিদপুরে এক ধনাঢ্য হিন্দু পরিবারের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করতে বাধ্য করে তাদের দেশছাড়া করার অভিযোগ উঠে  প্রধানমন্ত্রীর নিকটাত্নীয়, এক ক্ষমতাধর মন্ত্রীর বিরুদ্ধে । আরেক জন মন্ত্রী গাজিপুরে হিন্দুদের রোহিঙ্গাদের মত দেশ ছাড়া করার হুমকি দিয়েছেন বলে সোশ্যাল মিডিয়াতে সম্প্রতি বেশ তোলপাড় চলছে ।

সে যাক, ক্রস ফায়ার তথা বিচার বহির্ভূত হত্যার বিষয়ে সর্বোচ্চ পর্যায়ের যে সব রাজনীতিবিদ সোচ্চার ছিলেন, তাদের মধ্যে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছিলেন সবচেয়ে অগ্রগণ্য রাজনীতিক । মহাজোটের নির্বাচনী ইশতেহারেও এ নিয়ে সুস্পস্ট প্রতিশ্রুতি ছিল । কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর কি হলো ! শুধু ক্রস ফায়ার, বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডই অব্যাহত থাকলো না উপরন্তু যোগ হলো গুম নামের মহা আতংক ।
সবচেয়ে ভয়ংকর যে তথ্যটি আমি পেয়েছি তা হলো বিরোধী রাজনৈতিক নেতা কর্মী হত্যার প্রকল্পটি নতুন আঙ্গিকে গোপন পদ্ধতিতে বিন্যাস করা হয়েছে। গোয়েন্দা বিভাগ, র‍্যাব ও পুলিশের মধ্যে যারা একটু হলেও ভবিষ্যৎ চিন্তা করেন,  তারা আর এ ধরণের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে জড়াতে চাইছেন না; কারণ তাদের আশংকা -এর প্রতিক্রিয়ায় ভবিষ্যতে যে কেউ তাদের পরিবার বা সন্তানদের হত্যার পাল্টা পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারে । কিন্তু সরকার প্রধানের গোপন ইশারায় বর্তমানে সেনাবাহিনীতে কর্মরত সাবেক একজন গোয়েন্দা প্রধান, র‍্যাবের সাবেক উপ-প্রধানের সাথে আর কিছু অবসরপ্রাপ্ত অফিসারদের দিয়ে একটি কিলিং স্কোয়াড বানানো হয়েছে।

বৈধ অবৈধ সব কিছু মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে জায়েজ করার চেস্টা হয়েছে, যা আজো অব্যাহত হচ্ছে । বিবেচনার বিষয় হচ্ছে, এসব কিছুর সাথে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সামঞ্জস্য কতখানি সেটি নির্ণয়ের এখন সময় এসেছে।


শাহ আলম ফারুক : লন্ডন প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী
আইনজীবী, সাবেক সিনিয়র তদন্ত কর্মকর্তা,
আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক )
এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।


সূচির মিথ্যা ভাষণ এবং মিয়ানমারের লজ্জা।আবু জাফর মাহমুদ

সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭

রাখাইন সংকট নিয়ে বিশ্ববিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের চলতি সংখ্যার প্রচ্ছদ প্রতিবেদন করেছে।এতে রোহিঙ্গা সংকটকে “মিয়ানমারের লজ্জা” আখ্যা দিয়ে পত্রিকাটি বলছে,রোহিঙ্গাদের দুর্দশা মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচিকে কলংকিত করেছে।মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যের গ্রামগুলোর ঘর-বাড়ি এখনো আগুণে পুড়িয়ে দেয়া চলছে।আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা এমনেষ্টি ইন্টারন্যাশানাল স্যাটেলাইটের ছবি ও ভিডিওর প্রমাণ দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে ২২ সেপ্টেম্বর।  

জাতিসংঘ এবং বিশ্বনেতারা মিয়ানমার সরকারের নেত্রী সুচির বিরুদ্ধে জাতিগত হত্যা অভিযানে সমর্থন দেয়ার অভিযোগ তুলেছেন।সমালোচকরা বলছেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযান বন্ধে সুচি ইচ্ছুক নন।এসব সমালোচনা প্রসঙ্গে সুচি বলেন, কোনো কিছুই অবাক করার মতো নয়।কারণ, অন্য সব মতামতের মতো বিশ্ব মতামতও বদলায়।তিনি বলেন, কিছু কিছু শরনার্থীদের ফিরিয়ে আনার জন্যে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া শুরু করতে তিনি প্রস্তুত আছেন।যে কোন সময় এই প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে।

জাপানের নিকি এশিয়ান রিভিউ পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সুচি বলেন, শরনার্থীদের প্রতিবেশী বাংলাদেশে পালিয়ে যাবার কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতির উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেয়ার একদিন পরেই জাপানের পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সুচি রোহিঙ্গা ইস্যুতে তার ভূমিকায় আন্তর্জাতিক সমালোচনা প্রসঙ্গে প্রসঙ্গেও কথা বলেন।    

জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে সুচি দাবি করেছিলেন,৫ সেপ্টেম্বরের পর থেকে রাখাইনে আর কোনো অভিযান হয়নি। রোহিঙ্গা ইস্যুতে দীর্ঘ সময় নীরব থাকার পর টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে তিনি মিথ্যাচার করেন বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে অভিযোগ  উঠেছে।

এদিকে ইরানের এটর্নি জেনারেল হুজ্জাতুল জাফর মোন্তাজেরি মিয়ানমারের মুসলমানদের ওপর অপরাধযজ্ঞ বন্ধ করতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সব সক্ষমতা কাজে লাগানোর আহবান জানিয়েছেন। কয়েকটি দেশের কাছে পাঠানো চিঠিতে তিনি এই আহবান জানিয়েছেন।কাতার,তুরস্ক,মালয়েশিয়া ইন্দোনেশিয়া ওমান পাকিস্তান ও রাশিয়ার এটর্নি জেনারেলের কাছে তিনি চিঠি দিয়েছেন।

কথা হচ্ছে, রোহিঙ্গাদেরকে চাপ দিয়ে আরাকান বা রাখাইন রাজ্যখালি করার প্রক্রিয়া ঠিকই অব্যাহত রয়েছে।
Picture
 ভিটে বাস্তুচ্যুত ও ভয়ের ভয়াল বর্বরতার চরম ভয়াবহ অভিজ্ঞতা নিয়ে বাংলাদেশে আসা এই লক্ষ লক্ষ মানুষকে আশপাশে আশ্রয় দিচ্ছেনা কোন দেশ।আশ্রয়ের সমস্ত চাপ পড়ছে বাংলাশের উপর। দরিদ্র বাংলাদেশীদের সমাজে নির্মম নিষ্ঠুরতার অভিজ্ঞতা নিয়ে যারা আজ আশ্রয় নিতে চলেছে।তাদের বেঁচে থাকার জন্যে যেই সামাজিক জীবন প্রয়োজন।তার ব্যবস্থার দায়িত্ব নিতে হচ্ছে সরল জীবনে অভ্যস্থ বাংলাদেশী সমাজ।এক্ষেত্রে সমাজবিজ্ঞান ও নৃবিজ্ঞানে সামান্য জ্ঞান থাকা মানুষও বোঝেন যে রোহিঙ্গাদের সামাজিক মানসিকতা বাংলাদেশীদের সামাজিক মানসিকতার উপর জোর খাটাতে দ্রুতই উঠে পড়ে লাগবে।বা ইতিমধ্যেই তা ভেতরে ভেতরে সংঘাতে লেগে গেছে।

 যেহেতু বাংলাদেশ সরকারের মূল টার্গেট তার ক্ষমতার মেয়াদ পুনরায় হাতে পাওয়া, রাখাইন রাজ্য খালি করার পক্ষের শক্তিগুলোর কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা পাওয়া এবং তাদের আনুকল্য নিজেদের পক্ষে পাবার নিশ্চয়তা নেয়া, তাই তারা রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প করে তাতে শৃংখলার জীবন বা অস্থায়ীভাবে তাদের প্রতি সেবা যত্ন দেয়ার ব্যাপারে মনোযোগ থাকছে খুবই কম।স্থানীয় অপরাধী, স্থানীয় প্রশাসন ও সরকার দলীয় স্থানীয় এমপি উপজেলা চেয়ারম্যান সহ প্রভাবশালী ছাত্রলীগ যুবলীগ সহ সরকারী দলের অঙ্গসংগঠনগুলোর অপরাধের সাথে আন্তর্জাতিক অপরাধের ধ্রুত তৎপরতা বেড়ে গেছে।

 

এই প্রেক্ষাপটে বিদেশীদের দেয়া ঔষধপত্র,আর্থিক ও দ্রব্য সামগ্রীর চোরাকারবার জমজমাট হয়ে  ওঠবার খবর আসছে নিয়মিত।সরকার এসব অপরাধীদের অপরাধ শিকার করছেনা নিজ দলীয় ও নিজ গায়ে দায় এসে যায় সততা দেখাতে গেলে।অধিকন্তু বর্তমানে নির্বাচন ছাড়া সরকার থাকায় এবং আগামীতেও একই সরকার ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনার আভাস থাকায় সরকারের অপরাধ মহলগুলো বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চল সহ রাজধানীকে অপরাধ সাম্রাজ্যে রূপান্তর করে বিনা বাধায় মতলব হাসল করে চলছে।

বাংলাদেশে আসা ত্রান সামগ্রী সীমান্ত পার হয়ে ভারতে পাচারের খবর আসছে। প্রতিষ্ঠিত চোরাকারবারের নেটওয়ার্কে চোরাকারবারীরা সরকারী দলের আশ্রয়ে থাকায় ঠিক মতো ঘুষ এবং লাভের ভাগ দিয়ে তারা ম্যানেজ করে নিয়েছে আগে ভাগে।এতে একদিকে ত্রানগুলো রোহিঙ্গাদের মধ্যে না পৌঁছানো এবং রোহিঙ্গাদের জীবনকে অনিশ্চিত করে রাখার সুযোগে চেহারা দেখে দেখে মেয়েদেরকে কাজ দেবার লোভ দেখিয়ে অপরাধ জগতে বিক্রয় করা হচ্ছে।শিশুদের কলিজা চোখ হার্টগুলো বিক্রয়ের জন্যে এখান থেকে বিক্রয় করে দেয়া হচ্ছে।মনে রাখা দরকার।পুলিশের অতিরিক্ত আইজির বাসায় অনেক শিশুকে নিজেদের সন্তান বলে রেখে শিশু পাচার করার করার ঘটনা প্রকাশ হয়ে গেছিলো বহু বছর আগে।বর্তমান সময়ে সমাজ ও সরকারে থাকা বড় অপরাধীদের নেটওয়ার্কের উপর নির্ভর করে থাকা আওয়ামীলীগ-জাতীয় পার্টি ও জাসদের ঐক্যের বর্তমান সরকারের পক্ষে সততার সাথে রোহিঙ্গাদেরকে ক্যাম্পে থাকার ব্যবস্থা করে এবং তাদেরকে আবার মিয়ানমারে ফেরত দেয়ার সামান্যঅ সম্ভাবনা আপাততঃ দেখা যাচ্ছেনা।এদিকে সরকারের রাজনৈতিক অংশের নেতৃত্ব থেকে আশা করা হচ্ছে সেনাবাহিনী,নৌবাহিনী,বিমান বাহিনী কোষ্টাল গার্ড সহ সমগ্র প্রতিরক্ষাবাহিনীকে দূর্নীতিগ্রস্থ করতে পারার নিজেদের রাজনৈতিক সফলতার আরেক কৃতিত্ব আছে।

 যাতে বলা যায়, রাজনীতিকরা একা চোর নয়,প্রতিরক্ষাবাহিনীওতো একই জিনিষ।তারাও চোর এবং রাজনীতিবিদের মতোই ফটকাবাজ।তাই,প্রতিরক্ষাবাহিনী রাষ্ট্রের নিরাপত্তাজ্ঞানে প্রশিক্ষিত থাকায় অপরাপর শক্তিগুলোর চেয়ে এগিয়ে এবং তারা  জীবনের বিনিময়ে হলেও তা কার্যকর করার জন্যে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকলেও তাদেরকে গুরুত্বে আনা হচ্ছেনা,গুরুত্বে আনবার সম্ভাবনাও নেই।এমতাবস্থায় বাংলাদেশে একটা স্থায়ী অপরাধ জগতের বিশাল আয়োজন বাস্তবায়িত করা হচ্ছে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায়।

এমতাবস্থায় আমরা কি দেখতে পাই,বর্তমান চাপের মধ্যে সারা বাংলাদেশ কেঁপে কেঁপে উঠছে দেখেও সেদিকে নজর নেই সরকারের উপরের মহলের এবং বিরোধীদল বিএনপির।তারা উভয় পক্ষ ব্যস্ত তাদের রাজনীতির মার প্যঁচে জনগনের কাছে নিজেদের মুখোস ঠিক রাখতে।তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে জাতীয় সমস্যা নিয়ে একটা নীতি রাজনীতি নির্ধারণ করছেনা। সরকারপ্রধানকে দেখা যাচ্ছে খোশমেজাজে আনন্দ উৎসবে ফটকা কৃতিত্ব নিয়ে আমেরিকায় নিউইয়র্কে তামাশা করতে এবং বিএনপিকে দেখা যাচ্ছে লজ্জা শরম বাদ দিয়ে এখনো রাজনৈতিক বিবৃতি দিয়ে ক্যাঁ ক্যাঁ করতে।দুর্ভাগা জাতির লোভী নেতৃত্ব!নেতৃত্বহীন বাংলাদেশীরা ছুটে চলেছে ভয়াবহ অরাজকতা ও রক্তপাতের ভয়াল খাদের তলায়।নরপশুরা করছে ভয়াবহ অপরাধগুলো এবং মুখোশে ঢাকা হায়েনার বিষাক্ত দাঁতের কামড়ে কামড়ে দেশের প্রান শক্তি যাচ্ছে দূর্বলের চেয়ে দুর্বল হতে।   

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও সরকারের সাথে সুসম্পর্ক আছে দেশী বিদেশী হায়েনাদের। তারা নিজেদের লোভ লালসা চরিতার্থ করতে যেভাবে মানুষ মারছে,তাদের সাথে যোগসাজশ রেখে যারা উপরে এক ভেত্রএ আরেক কূটনীতি ও রাজনীতি করছে,তাদের কাছে কোন মানুষ নিরাপদ হতে পারেনা।তা হউক বাংলাদেশ,ভারত অথবা অন্য কোনদেশে।    

এখন সবার দায়িত্ব হচ্ছে রোহিঙ্গাদের প্রতি সমর্থন ঘোষণা করে  ঐক্যবদ্ধভাবে অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো।রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের উপায় হচ্ছে মুসলিম দেশগুলো সহ ধর্মবিশ্বাসী সকল মানুষের পক্ষ থেকে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া এবং মিয়ানমারের নির্দয় সরকারের ওপর আর্থ-রাজনৈতিক চাপ দেওয়া। বাংলাদেশের জন্যে বেশী জরুরী হচ্ছে যে কোন কিছুর বিনিময়ে বাংলাদেশীদের জেবন যাপনে নিরাপত্তা দেয়া।প্রতিবেশী মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদেরকে খাবার চিকিৎসা ঔষধ দেয়া,শিশু ও তরুণদের শিক্ষার ব্যবস্থা করা এবং রোহিঙ্গাদের প্রতি সহানুভুতিশীল দেশ ও সরকার গুলোকে নিয়ে ঢাকায় আন্তর্জাতিক সভা আহবান করে তাদের জন্যে প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা এবং জাতিসংঘের দেয়া সুযোগের প্রকৃত বাস্তবায়নে সামরিক তেজে তা কার্যকর করা।

আমরা বাংলাদেশ সরকারকে দুনিয়ার কারো কাছে ছোট হতে দিতে চাইনা।এমন কিছু আমাদের কাম্যও নয়।তবে বর্তমানে মিয়ানমারের ঘাতকগোষ্ঠী ও তাদের পৃষ্ঠপোষকদের সাথে বাংলাদেশ সরকারের নিবিড় সম্পর্ক বাংলাদেশী দেশপ্রেমিকদের আহত করে।সন্দেহ বাড়াচ্ছে।রোহিঙ্গাদেরকে পূর্ণনাগরিকত্ব দিয়ে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ফেরত নিতে জনগণকে সাথে নিয়ে দেশব্যাপী ঐক্যমত গড়ার জন্যে পদক্ষেপ না নিয়ে রহস্যজনক গোপনীয়তা রক্ষার অর্থ কি?

দুনিয়াকে বাংলাদেশের নাগরিক ও সরকারের ঐক্যমত দেখানোতে জাতীয় সংহতি যেমন হয়,দেশের আন্তর্জাতিক সম্মানও বাড়ে অনেক গুণ।এই পদক্ষেপে ভয় পাবার রহস্য কি?এই সুযোগ থাকার পরও একা একা গোপনে গোপনে ফিস ফিস করার অর্থ কি?এই অর্থ বুঝতে কারো বাকি নেই।সোজা অর্থ হচ্ছে,তাদের রাখাইন রাজ্যে ফেরত দেয়ার বা তাদের বাংলাদেশ ত্যাগ করার অনিশ্চয়তা থেকে যাওয়া।কথা হচ্ছে রাজনীতির হাওয়া কোন দিন একই অবস্থায় থাকেনা।আমরা কোন কারণে প্রতিবেশীদের লজ্জার ভাগিদার হতে চাইনা।

কক্সবাজাররে উখিয়া টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গাদেরকে দ্রুত মানবিক সাহায্য বিতরণে সেনাবাহিনী নিয়োগ করায় ভাও হয়েছে,এই সিদ্ধান্ত দিতে দেরীর কোন যুক্তি নেই।প্রাকৃতিক দূর্যোগ চলার সময়েই আমরা দেখেছি সেনাবাহিনী নেমে গেছে দুর্যোগ মোকাবেলায়।সব সময়েই তা হয়ে এসেছে।কিন্তু এবারে রোহিঙ্গা দুর্যোগকে নিয়ে সরকারের উপরের মহলে গোপন রাজনীতির কারণে তা দেরী হবার বিষয়টি সবাই আমরা দেখছি।

ইতিমধ্যে দেশের সমাজের যতটুকু ক্ষতি হয়েছে,মানুষের যে কষ্ট হয়েছে এই দায় কার?পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সামরিক বাহিনীর সহযোগীতা নয়।কক্সবাজারে স্থানীয় প্রশাসনকে দিতে হবে সেনাবাহিনীর অধীনে। প্রথম দিকে যেনো সামরিক বাহিনীকে মানবিক সহায়তা এবং আইন সৃংখলার উপর কর্তৃত্ব দেয়া হয়।   

(লেখক আন্তর্জাতিক রাজনীতি বিশ্লেষক ও বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের  চেয়ারম্যান)।