Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

লেখকদের কলাম

বইমেলায় পলাশ মাহবুবের ৭ নতুন বই

শনিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

আয়েশ আক্তার রুবি,আমেনা আক্তার নিপা.বাপসনিঊজ:অমর একুশে বইমেলায় লেখক, নাট্যকার পলাশ মাহবুবের বেশ কিছু নতুন বই প্রকাশিত হয়েছে। নতুন বইয়ের মধ্যে আছে মজার কিশোর উপন্যাস ‘লজিক লাবু’। এটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী। এছাড়া পলাশ মাহবুবের জনপ্রিয় কিশোর অ্যাডভেঞ্চার সিরিজ টো টো কোম্পানি’র সপ্তম উপন্যাস ‘টো টো কোম্পানি ও বীরপ্রতীকের মেডেল’ বরাবরের মতো প্রকাশিত হয়েছে অন্বেষা থেকে।

http://www.mujibsenanews.com/uploads/images/1486806908_89.jpg" alt="">
অন্যপ্রকাশ থেকে আসছে ছোটদের গল্পের বই ‘সূর্যমুখিরা দুইবোন’। পাঞ্জেরী থেকে আসবে আরও দুটি বই। কিশোর গল্পের বই ‘তালা’ এবং ছড়াগ্রন্থ ‘থোকায় থোকায় জোনাক জ্বলে’। তাম্রলিপি প্রকাশ করছে বড়দের গল্পের বই ‘রোমিওপ্যাথি’। অনিন্দ্য প্রকাশন থেকে মেলায় এসেছে পলাশ মাহবুবের জনপ্রিয় প্রেমাণুকাব্য সিরিজের দ্বিতীয় বই ‘প্রেমাণুকাব্য-২’। পাশাপাশি ১৫ বছর আগে প্রকাশিত প্রেমাণুকাব্য-১ বইটিও পুনঃমুদ্রণ করেছে অনিন্দ্য প্রকাশন। খবর বাপসনিঊজ:

এছাড়া কিশোর উপন্যাস ‘পিটি রতন সিটি খোকন’ নতুনভাবে আসবে পাঞ্জেরী থেকে এবং কিশোর গল্পগ্রন্থ ‘বই খুললেই ভুত’ পুনঃমুদ্রিত হচ্ছে অনিন্দ্য প্রকাশন থেকে।


বানু রতনের বর্ণমালা = জুলি রহমান

বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

ষোলতে পা রাখলো  বানু যখন
একুশে রতন পড়লো তখন
চাপিল নগরীতে কলমাই নদীর চড়
কৈশোর কাটে তাদের বালুচড়ে বেঁধে খেলাঘর-

তিলেক না দরশনে ব্যাকুল দুইজনে
অন্ধ্য নয়ন যেনো এই ভূবনে
এমন যখন তাদের মনের গতি
ছাড়তে হলো গাও রতনের ছেড়ে প্রীতি

কলমাই নদী ভরা যৌবনা উছলায় দু কূল
দক্ষিনা পাগল করা নাড়ায় কাশের ফুল
নোলক পরা বধূ যেনো উড়ায় শাড়ির আঁচল
গো-ধূলি লগনে আকাশে জড়ায় মায়ার কাজল-

সলিমাবাদ আসে ধেয়ে নিতে রতন কে
কলমাইর বুক ভেঙে ঢেউয়ের তবকে তবকে
জল যেমন করে দুভাগ সলিমাবাদের গাও
বানুর হৃদয় তেমন ভাঙে বিচছেদের বাও-

রতন ছাড়ে ঘর মা বোন বানুকে করে পর।
বানুর চোখেতে রাতের আঁধার করে ভর।
প্রিয় তাঁর ছাড়ে ঘর নিতে উচ্চ শিক্ষা
যাবে সে ঢাকা কলেজে নিতে দীক্ষা-

বানুর হয়নি শেষ স্কুল জীবন
রতন বিহনে তাঁর যে আসে মরন
দেখতে দেখতে রতন বিশ্ব বিদ্যালয়ে রাখে পা
মেধায় মননে রতনের নেই তুলনা-
Picture
বাবা মায়ের স্বপ্ন যেমন রতনকে ঘিরে
বানুর তেমনি সাধ জাগে অন্তরে
রতন বীনা বানু ;বানু বিহীন রতন
অতল অশান্তি যেনো অকাল মরন-

আসে সন ঊনিশ শো বায়ান্ন
উর্দু হবে বাংলা ভাষা মুখে উঠে না তাই অন্ন।
ছাত্র সমাজ হলো যুথবদ্ধ
প্রয়োজনে করবে সকলে যুদ্ধ-

গোল টেবিল বৈঠক বসে বুদ্ধিজীবি মহলে
বাংলার উপর দখল বসায় জিন্নাহর দলে
ছাত্র সমাজ উঠলো তাতে ক্ষেপে
কথা হবে না বাংলায় কোনো সবে উর্দু জপে-

একি আজগুবি কারবার ভাষা নিয়ে চলে দরবার
জিন্নাহ,রত্না দীনা বাঈ উর্দু  হবে রাষ্ট্রভাষা বলে বারবার-

আমার মাকে ডাকবো আমি মা বলে
সেই কথাটা কেড়ে নিবি কোন ছলে?
বাংলা আমার মায়ের ভাষা যার তুলনা নাই রে-
মিছিল নামে রাজপথে জিরু পয়েন্ট ধরে-

রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই উর্দু ঝেঁটে কর বিদাই।
বাঙাল আমরা ভাই ভাই বাংলা করবো ভাষাটাই।
গুলি ছুড়ে পুলিশের রাইফেল বাট
যেনো চৌদিকে বৃষ্টির ঘন ছাঁট-

মিছিলের মধ্যমনি রতন চলে আগে।
প্রথম গুলি রতনের বুকের মাঝে লাগে
ঊড়ে পঙ্খীকূল ছেড়ে দিয়ে ঘর
খেলার মাঠের সাথীরা হয়ে গেলো পর

মায়ের হাতের ভাতের থালা মাটিতে গড়ায়
বানুর বুকের  দহন পীড়া কহন না যায়-
কাঁদে বাংলা কাঁদে মানুষ হয়রে বেহুষ
ইতিহাস জুড়ে সোনার ছেলেরা প্রানহীন ফানুষ-

বাহান্ন থেকে দুই হাজার সতেরো
বানুর প্রেমে পড়ে নাই গাতরো
ফুল দেয় বানুএকুশ এলে প্রতিটি বছর
এই দিনটিতেই পায় সে প্রেমেরই কদর-

শোন শোন বলি ভাই ও বোন
বাংলা ভাষার জন্য ঝরে কতো খুন
বাহান্নর এই ভাষা আন্দোলন করলো যারা
তাদের জন্যই ভাষাটাকে ধরে রাখিস
তোরা--

আমি অধম জুলি রহমান
বাংলার মাঝে থাকি বহমান
ডিজিটালের এই যুগে মিশ্র হলে ভাষা
কান্দে পরাণ হিন্দি গানে ভাঙে বুকের আশা-


ফাগুনে দেখা বৈশাখে প্রেম - জুলি রহমান

শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

ভূগভর্স্থ ফিফটি নাইনের এ্যাস্ক্যালেটর বেয়ে উপরে ওঠেই জয় ভাবে কোথায় দেখেছিলাম
এর আগে তাকে? আজ আবার দেখা।কিন্তু ক্ষনিকের। ট্রেনটি ছেড়ে দিলো ; আশ্চর্য কেনোই বা দেখা হলো তবে?

জয়ের মনটা খারাপ হয়ে গেলো।ই-ট্রেনে বসে সে হরেক শব্দে নিজেকে ডুবিয়ে
রাখলেও অপ্সরীকে ভুলতে পারছেনা।
ট্রেনটি থেমে আছে রেল কর্তৃপক্ষের বিলম্ব হওয়ার কারন বলছে আর বার বার ক্ষমা চেয়ে নিচেছ!জয় ভাবছে ইস সিক্স ট্রেনটি কেনো
এমন লেট করলোনা? আমি ঐ অচেনা অনিন্দ অনন্যাকে আরেকটু দেখে নিতাম।
তাঁর সান্নিধ্যের নিবিড় আনন্দ আরো খানিক্ষণ উপভোগ্য হয়ে ওঠতো।
প্রচন্ড শীতের দাপটে তীক্ষ্নতর চাবুকের মতো শরীরের বহিরাংশ যেনো কেটে নিয়ে
যেতে চায়। তবুও দরজার কাছ থেকে ওঠে অন্যত্র বসার বিন্দুমাত্র ইচছা হলোনা। যেনো বার বার হৃদয়ের গভীর চিত্ততল থেকে একটি আশা প্রবল হয়ে এ কথাই উত্থিত হতে লাগলো হয়তো বা ভুল করে ঐ অপরিচতা মেয়েটি ই - ট্রেনে এসে বসবে আবার
তারই বিপরীথমুখী হয়ে।
জেবা টিকেট কাটতে জ্যাকসনহাইট যাবে ।ম্যানহাটন কসকোতে  শপিং করতে করতে ভাবে জেবা ।বাবার কথা  .!
এবার আর তাঁর
উপেক্ষা করার কোনো উপায় নেই।বন্ধু নোহাকে বলে জেবা।
নোহা আমি বুঝতে পারছিনা তুই কী করে একটা অপরিচিত জনকে নিজের স্বজন করে
নিবি? তা-ও কী-না বাংলাদেশী ছেলে!
জেবা বাবা মায়ের স্বপ্নতো সন্তানের পূরণ করতেই হবে।আমার বাবা মা নিশ্চয়ই অযোগ্য কোনো ছেলের কাছে আমাকে পাত্রস্থ করবেন না।
আমি পারবনা এই আমেরিকায় বাই বর্ন হয়ে
একজন বাঙালীকে জীবনের সাথে জড়াতে।
অ মাই গড! প্লীজ সেভ মি।
জেবা হাসে ।দেখাই যাকনা এই ডিজিটাল যুগে ও আমি বিয়ের পরই প্রেম করতে চাই।
জয়ও টিকেট কাটবে দেশে যাওয়ার জন্য কিন্তু  এই মূর্হূতে সে ডিসিশান চেইন্জ করলো দেশে সে যাবে না।ঐ মেয়েটির সংগে
যদি তার আবার দেখা হয় সেই আশায়।
জয় সেভেনটি  থ্রী স্ট্রীটের সোনালী ট্রাভেলস থেকে
বের হয়ে  সেভেন্টি টুর দিকে মোর নিতেই জেবা সোনালী ট্রাভলসে ঢুকে।
বিপরীথ মুখী বলে কেউ কাউকে দেখতে পেলো না।
জয়ের বাবার ফোন আসে বাংলাদেশ থেকে।
হ্যালো বলতেই  জয়ের বাবা প্রফেসার জামান বলে ওঠেন ;কী বাবা তোমার আসার ডেট কনফার্ম হলো? আমাকে জানাও। আমি
জাকির ভাইকে পাকা কথা দিয়েছি। আমার
কথার  উপর বিশ্বাস স্থাপন করে তাঁরা স্বপরিবারে দেশে আসছেন।

এপাশ থেকে জয় বলে, আব্বু আমার একটু
প্রবলেম হয়ে গ্যাছে তাই আর কয়টা দিন দেরী  হবে।

Picture

ফোন ছেড়ে দিয়ে জয় ভাবতে থাকে কেনো এই অপরুপার সাথে দেখা হলো? হলোই যদি কথা কেনো হলো না?তাঁর দু চোখ বর্ষার ভরা নদী এখন আমাকে কেবলই ভাসিয়ে নিয়ে যাচেছ কোন অজানার  ঠিকানায়।  ? চোখের কোনে যে দৃশ্যটি
জীবন্ত হয়ে আছে তা হলো মেয়েটির ক্ষীন স্ফিত শান্ত সুশীল হাসি। যে হাসির মাধ্যমে
তাঁর হৃদয় দুয়ার খুলে দিয়ে আমার ঘুমন্ত মনটিকে জাগিয়ে দিয়ে গেলো। এখন আমি
নিদ্রাহীন কাল কীভাবে কাটাবো?

আজ জেবার বাবা মা ভাই বোন তৈরী
হচেছ স্বপরিবারে দেশে যাওয়ার জন্য!

জয় ম্যানহাটনের  খোলা চত্তরে একটা পাথরের উপর বসে ।হেরাল্ড পাকের্র রুপ পরিগ্রহ করতেই বিস্তৃত কঠিন ধাতব দীপ্তিতে ফেটে পড়া আকাশে চোখ রাখে সে।
এতো যে রোদের দ্বীপ্তি তাও গায়ে কোনো উত্তাপ তৈরী করেনা।শুধু আগাগোরা এক নীলের মিরাকল্ ।জয়ের এতো ভালো লাগছে কেনো এই পৃথিবী?তবে কী সে ফাগুনের স্সর্শ পেলো?একেই কী বলে প্রেম?মনের কোনে একটা
মেঘ ছেঁড়া কাগজের মতো হঠাৎই উড়ে এসে বসলো। আচছা ঐ মেয়েটি যদি কারো বিবাহিতা বৌ হয়তো লাভ কী হলো?
এই প্রথম জয় নিজেকে ভীষণ বোকা মনে
করলো। এবার সে উঠে দাঁড়ায়।
এয়ারপোর্টে এসে জেবার বাবা আবার প্রাক্তন বন্ধু প্রফেসর জাকির সাহেবকে কল দেন।
আমরা রওয়ানা দিয়ে দিলাম ।দোয়া করবেন।
জয়ের বাবা অস্থির হয়ে ওঠেন। ছেলেকে আবার কল করেন।
শোন বাবা তোমার ভাবি শ্বশুরের কাছে আমাকে ছোট করোনা। তাঁরা আজ রওয়ানা
দিয়েছেন।আর তুমি টিকেট কনফার্মই করলে না?তবে কী তুমি আমার অবাধ্য হবে? বলেই জয়ের বাবা ফোন কেটে দেয়।
জয় ভাবনায় পড়ে যায়।বাবার অবাধ্য কখনো সে হয়নি এখন কোথায় পাবো
তাঁরে?পেয়ে হারানোর বেদনা নিয়েই কী তবে কাল কাটাতে হবে?আর ওদিকে বাবার সময়ই নেই।বিয়ে করতেই হবে।

জেবাদের বাড়িতে এক প্রকার বিয়ের আনন্দ।জাকির সাহেব স্বপরিবারে ঢাকা সিটিটা ঘুরে ঘুরে দেখেছন দীর্ঘ দশ বছর পর।

জয় চলে আসাতে জামান সাহেবের মনের কোনে এক স্বস্থিরতা ফিরেএসেছে।
তিনি ছেলেকে বলেন ড্রাইভারকে বলে দিচিছ তুমি একটু যমুনা ফিচার ঘুরেএসো।
কিছু কেনাকাটাও হলো আবার দেশের পরিস্থতিটাও দেখে নিলে। তবে একা কোথাও যেওনা।

জেবা ঘুরে যমুনা ফিচার শপিং মলটা দেখলো।কিছু কেনাকাটাও করলো।
স্বচছ কাঁচের এলিভটরে ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে জেবা।
দূর থেকে জয়ের দৃষ্টি পড়ে জেবার উপর।জয় ভূত দেখার মতোই চমকে উঠে এটা কীকরে সম্ভব?সেই মেয়েটি এখানে?হ্যা সেই তো!
জয় দৌঁড়ে কাছে যেতেই ওরা গাড়ি ছেড়ে দিলো।
আজ জয় দেখতে যাবে তাঁর হবু স্ত্রীকে কিন্তু তাঁর মন পড়ে রইলো বার বার দেখা সেই ষোড়শীর কাছে।
জয় মনে মনে ভাবে  কেনো আমার এমন লাগছে?মনে হচেছ  ওকে ছাড়া আমার বেঁচে থাকাই বৃথা।কেনো আজ আবার তাঁর সংগে এখানে দেখা? কে এই রহস্যময়ী নারী?  বাবার পছন্দের মেয়েকে বিয়ে না করলে
বাবার মান সম্নান বাঁচবেনা। কিন্তু আমি ঐ মেয়েকে না পেলে আমার এ জীবনের কোনো
দাম নেই। কাল আমি তাঁকে এই কথাটাই বুঝিয়ে বলবো।
জেবার ঘুম আসছেনা কাল তাঁরজীবনের চরম ফায়সালা। বাবার সুখের মূল্য দিতে গিয়ে তাঁর জীবনটা যদি নরকে পরিনত হয়?
ঐ ছেলে আমেরিকায় থাকে অথচ বাবা তাঁকে একটি বার দেখার প্রয়োজন বোধ করলো ন? বাবার বন্ধু প্রীতির প্রশংসা করতে হয়।

জেবাদের বাড়িতে হৈ চৈ পড়ে গেলো।আজ তাঁদের বড় মেয়ের আর্থ বলে কথা।অবশেষে
জয় ও তাঁর পরিবার কণে বাড়িতে এলো।
বেশ গুছানো পরিপাটি ঘরটি জয়ের খুব
পছন্দ হলো কিন্তু মেয়েটিকে কী করে তাঁর
মনের কথা খুলে বলবে?কতো আশায় বুক বেঁধে যে বধূ হবার স্বপ্ন দেখছে তাঁর একটি কথায়
সব তছনছ হয়ে যাবে।কিন্তু আমি -ই-বা ক করতে পারি?মনের গহীনে একজনকে ঠাঁই দিয়ে একই দৃষ্টিতে দুই জনকে দেখা।এতো ঠকানো!চরম দৃষ্টতা।এ আমি পারবোনা।সব তাকে খুলে বলতেই হবে।
জেবার মনের কোনে বৈশাখের কালো ঝড় বইছে।যাকে জীবনে এক নজর দেখিনি।চিনি না।কেমন তাঁর চাওয়া পাওয়া মিলবে কী আমার ভাবনার সাথে? চিন্তার ক্লীস্টতা পায়ে পায়ে জড়িয়েই জেবা তার বাবার কাঙ্খিত পাত্রের দিকে অগ্রসর হলো।

জয়ের সাত পাঁচ ভাবনার ভেতর কণেকে নিয়ে এক সময় হাজির হলেন গৃহ কর্তৃ মিসেস জাকির।
জেবা অতি ঘরোয়া স্বাভাবিক সাজেই জয়ের
মুখোমুখি বসলো।জয় তাঁর ভাঙা হৃদয় নিয়ে আকুতি ভরা চোখে একবার তাকাতেই চার
চোখের দৃষ্টি এক হতেই যা সে দেখলো তাতে সে নির্বিকার নিথর হয়ে অপলক শুধু
চেয়েই থাকলো।আবার যদি সে হারিয়ে যায়;
এই ভয়ে সে দৃষ্টিকে স্থবির করে রাখলো তাঁর সেই হারিয়ে পাওয়া সুপোরী সুন্দর আদলে।যক্ষের ধনকে।চিরতরে দৃস্টিতে বেঁধে নিলো এক জোড়া ভ্রমর কালো রেটিনায়!তাদের চারপাশের কথার গুন্জন দীর্ঘ ক্ষণ উভয়ের কর্নকোহরের প্রবেশ দ্বার পর্যন্ত পৌঁছুলো না।


মধুর বিভ্রম ---রাবেয়া রাহীম

শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

রাতের আকাশের অগুনিত তারকা রাশি সাথে মৃদু মন্দ বাতাস
কখনো আমাকে টেনে নিয়ে যায় নির্জন কোন হাইওয়ে ধরে অনেক দূরে
গাড়ীর গতি আরও বাড়িয়ে প্রায় উড়ে যাওয়ার মত করে;
------কখনো আবার ব্যাক ইয়ার্ডের এককোণে
নিজের হাতে লাগানো বাহারি গোলাপের রূপ সৌন্দর্যে বিভোর হয়ে পড়ি।।
আবার কখনো নিজ গৃহের প্রিয় কোণটিতে বসে
পিয়ানো বাজিয়ে গান গেয়ে যাই,
তখনই দূরে বহুদুরে জানলার গ্রিল ধরে দাঁড়িয়ে থাকা
একটি মানব-ছায়ার মতো দেখতে পাই
অনুভবে বুঝতে পারি সে রাত জেগে-জেগে আমারই গান শুনছে,
আনমনে আমার দিকে চেয়েই থাকে--অন্যকিছুও হতে পারে,
দূর থেকে এমন কতো কিছুই যে মনে হয়...
আমি গেয়ে যাই
কখনো নিজের লেখা আবৃত্তি করি
সম্মোহনী আমি ভেসে যাই ওই বিশাল আকাশের তারার ভেলায়।।
ভোরের সূর্যটা জাগতে থাকে একটু একটু করে
পূর্বাকাশটায় রক্তিম আভা ছড়িয়ে পড়ে
দুরের জানালায় শেষ জ্যোৎস্নাটুকুও ম্লান হয়ে আসে ,
হয়তোবা ছায়াটি আমারই অপেক্ষায় মিলিয়ে যায়,
সেই সাথে আমিও।।
আবারও তেমনি করে আরেকটি রাতের জন্য নিজেকে তৈরি করি
এভাবেই রাতের পর রাত ঘুমহীন কেটে যায় কিছু মধুর বিভ্রমে;
আসলে পুরো জীবনটাই কেটে যাচ্ছে এভাবেই,
বুঝতে পারি কি!!
alt
২)
জীবিত সংসারে জন্মের অস্তিত্ব
ব্যস্ত নগরীর যান্ত্রিক কোলাহল কমে আসতে থাকে
সন্ধ্যে জেগে উঠে গভীর অন্ধকারচ্ছন্ন আকাশ নিয়ে
নির্জন একলা রাজপথ, দাম্ভিক ফ্লাইওভার, মাটিতে পড়ে থাকা জেব্রাক্রসিং,
রাত আরো গাড় হয় বস্তির ঘরের ভেতর মোটা কাঁথা দিয়ে বিভক্ত করা ছোট ছাউনিতে
ষোল বছরের উঠতি বয়স -- খেয়ে পরে গায়ে গতরে বেশ।
মাতাল, লম্পট আর শিকারী টহল পুলিশের তির্যক চাহনি
ছোট দুটি অবুঝ ভাই বোন, অসুস্থ মা ---চারটে পেটের জ্বালা ।।

নীল ব্লাউ্জটাও ঘামে ভিজে হয়েছে কালচে নীল
অস্ফুট কান্নার স্বর ভেসে এল-- "সাহেব টাকাটা দিইয়ে যেও"
রুঢ় বাস্তবতার মুখে কিছু কাগুজে নোট ফর ফর শব্দ তুলে ঘুরপাক খায়
মাঝরাতে শরীরে হাজার হাজার বিছার কামড় টের পায়, শেফালি
হাট করে খুলে রাখা ময়দানের বুকে-- ছুটে বেড়াচ্ছে অজস্র বিষাক্ত বাতাস,
ক্ষুধার্ত অবুঝ পেট গুলো ডাকছে কাতর স্বরে।।

"বেশ্যা শরীর" নাম নিয়ে জীবিত সংসারে জন্মের অস্তিত্ব বাঁচিয়ে রাখে সে
রোজ লোকালয়ে চেনা মুখ অচেনায় পাশ কাটিয়ে যায়।
তাচ্ছিল্যের সাথে ধিক্কার দিয়ে বলতে চায় শেফালি--"দিনের আলোয় আমি খুব অচেনা"
নগ্ন, নোংরা পর্দাহীন শরীর ডুবে থাকে পঙ্কিলতায়
প্রয়োজন শেষ সব শেষ,
অচেনা সাহেবেরা শহরের আনাচে কানাচে নগ্নতার উপহাসে মত্ত,
বাতাসে ভাসেনা কখনো পারিজাত সুবাস, আকাশে জুড়ে ছেয়ে থাকেনা প্রশান্তি।
প্রতিদিন মৃত্যুর সাথে দেখা হয় শেফালিদের ।


বাঙলা ভাষার পুঁথি = জুলি রহমান

বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

ষোলো বছরের বেলাল বেগকে জানাই তিরাশি কোটি সালাম।
তাঁর নামে ভাষা আন্দোলনের বয়ান শুরু করিলাম।
আহা বেশ বেশ। অ আহা বেশ বেশ।
ওরে অ মন্টু ভাই ধরি পায় আর নাড়াসনে বুদ্ধি মাথার গনা-গাঁথা কেশ।
শোনো শোনো আদনান ভাই!
এক খাইল্লা ঠিল্লার গল্প বইল্লা যাই।
আ আ আ হা হা হা হা
কেমনে পেলাম অ আর আ?
ওরে বোন ও মনিজা ;তুই যে আমার কলিজা।
আমি জুলি নগন্যা  ;সেই আজিজা।
ও তোর ডাগর চোখের কাজল ধুয়ে ডাকিসনা-রে  বান।
বাঙ্গাল কথা শোনার জন্য করি আহবান!
কচুর পাতায় জলের ফোটা যেমন টলোমলো।
বঙ্গ ভংগের তালে আইন ছিলো এলোমেলো।
এবার চলো আসল কথায় যাই।
বাঙলা ভাষার ইতি কথা সকলকে জানাই।

আরে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনকবে কারা করলো উত্তোলন?
বাঙলা ভাষা কবে এলো কেমনে এলো সেই কথাটাই বলি।
বাংলা সবার প্রাণের ভাষা মারেন হাতে তালি।

সাতচল্লিশ সালে ভারত ভাগে পাকিস্তান ভাষার।
এখানে অবস্থানটা দেখাই একবার।
চৌধুরী খালেকুজ্জামান নবাব লিয়াকত আলী খান!
ভাষার বুকে রিফিউজি যেনো উর্দুপাকিস্তান।
তখন চুয়ান্ন লক্ষ উর্দুভাষী ছিলো ছিলো মোহাজের।
করাচী আর হায়েদ্রাবাদে পশতু বেলুচের।
জিন্নাহ রত্না দীনা বাঈ মোম্বাই গুজরাট।
আরে রুমির টুপি মাথায় দিয়া ঘটাইলো বিভ্রাট।
alt
উর্দু নয়রে নিজের ভাষা তবু উর্দুর জন্য টান।
বাঙালীর বাঙলা ভাষা ভেঙে করতে চায় খান খান।
ডঃ শহীদ সলিমুল্লাহ ভেবে হয়রান।
পূর্ব বাঙলার ছাত্র সমাজ শক্ত নওজোয়ান।
ঢাকায় প্রগতি লেখক শিল্পী সংঘের বসলো যে বৈঠক।

স্বাস্থমন্ত্রী হাবিবুল্লাহর মনের কথা বোঝা ভার।
আরে গোমড়া মুখের খ্যামড়া তোলে চায় চারিধার।
খাজা নাজিমুদ্দীন ভেবে কয়
উর্দু হবে রাষ্ট্রভাষা এর বিকল্প নয়।
তখন গোল টেবিল বৈঠক বসে
বুদ্ধিজীবি গন অংক কষে।
দিন গলে রাত হয় রাত গলে দিন।
বাঙলা ভাষার আয়ু যেনো হয়ে আসে ক্ষীণ।

বাঙলার বাঘ শেরে বাঙলা তেড়ে ওঠেন তাই!
তাঁরই সংগে কন্ঠ মিলান ভাষানী ভাই।
রাজপথে মিছিল নামে ।
পুলিশ থাকে তারই বামে।
ডাঃ মোঃশামসুদ্দুহা বাঙলার প্রথম বুদ্ধিজীবি।
নিজের প্রাণটা বিলিয়ে দিয়ে ফোটায় বাঙলার ছবি।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র দলে শ্লোগান তোলে।
বাঙলা মোদের প্রাণের ভাষা বাঁচবো মুখের বোলে।
সালাম বরকত রাস্তায় নামে।
রফিক শফিক কেউ রইলো না ধরাধামে।
শত্রুদের বাড়ে মনে দ্বেষ।
সন্তান হারা মায়ে কাঁদে ছড়িয়ে কেশ।

ঝরায় রক্ত বাড়ায় ভক্ত বাঙলার সন্তান।
জিরো পয়েন্ট টা হয়ে গেলো নিঠুর কবরস্থান।
ঘটনাটা ঘটে গেলো বায়ান্ন সালে।
এই রক্তঝরা দিনটিকে একুশে ফেব্রুয়ারী বলে।
নতুন প্রজন্মের কাছে করি নিবেদন।
এই দিনটির রাখিও সন্মান।
মনে রেখো খেলার মাঠে দূর্বাদলে পায়ে পায়ে জড়িয়ে ধরে।
খেলার সাথী নাইরে।
কতো রক্তে গড়াগড়ি ঢাকারই শহর।
কতো মায়ে সন্তান হারা কাঁদে তাদের অন্তর।
সেই বাঙলাকে বাঙলার মানুষ ভালোবাসো ভাই।
এই কামনায় আমি জুলি ইতি টানতে চাই-।

২১শে ফেব্রুয়ারীর জন্য।১লা ফেব্রুয়ারী ২০১৭ইং নিউইর্য়ক-


যুগান্তর কাদের কাগজ?

বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

যুগান্তর আঠারো বছরে পা দিল। আঠারো বছর আগে ভাষা আন্দোলনের মাসের প্রথম দিনটিতেই যুগান্তরের জন্ম। ফলে একটি ঐতিহাসিক আন্দোলনের মাসের গন্ধ জন্ম থেকেই যুগান্তরের শরীরে জড়িত। যুগান্তর তাই যুগের হুজুগে মাতেনি। নিরপেক্ষতায় নামার্জন গায়ে পাঠকদের প্রতারিত করতে চায়নি। পত্রিকাটি দল-নিরপেক্ষ, কিন্তু মত-নিরপেক্ষ নয়। দেশের স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির মতাদর্শে যুগান্তর দীক্ষিত। পত্রিকাটির সাংবাদিকতায় অনেক ভুলত্রুটি থাকতে পারে। কিন্তু এ একটি ক্ষেত্রে তার কোনো দ্বিধা ও আপস নেই।
 
যুগান্তরের জন্মলগ্ন থেকে আমি কলামিস্ট হিসেবে এর সঙ্গে জড়িত। পত্রিকাটির সম্পাদক কয়েকবার বদলেছেন। কিন্তু নীতি বদলায়নি। দেশের আরও কয়েকটি দৈনিকের মতো ‘যুগান্তরে’ লিখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। আমার লেখায় সম্পাদকীয় কোনো হস্তক্ষেপ নেই। অন্য একটি তথাকথিত দৈনিকে যে হস্তক্ষেপটি অহরহ সহ্য করতে হতো এবং শেষ পর্যন্ত সহ্য করতে না পেরে ওই দৈনিকে লেখাই ছেড়ে দিতে হল। ভাবতে বিস্ময় লাগে। যুগান্তরের সতেরো বছর বয়স পার হল। আর আমিও এ কাগজটিতে সতেরো বছর ধরে লিখছি। যতদিন বেঁচে আছি এবং লেখার শক্তি আছে, ততদিন হয়তো লিখব।
 
যুগান্তরের সম্পাদনা পরিষদের সবাই তরুণ এবং আমার পরিচিত। সম্পাদক সাইফুল আলম সম্পাদনায় মুনশিয়ানার পরিচয় দিচ্ছেন। সম্পাদকীয় পরিষদের সিনিয়র সদস্য মাহবুব কামালের ধারালো লেখার সঙ্গে আমার পরিচয় বহুদিনের। যায়যায়দিন এবং চলতিপত্র নামে দুটি অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিকে তার ক্ষুরধার লেখনি আমাকে মুগ্ধ করত। এখন যুগান্তরেও তার লেখা বেরোয়। এককালে ‘পূর্বদেশ’ পত্রিকার শিশু-কিশোরদের পাতা চাঁদের হাটের পরিচালক রফিকুল হক দাদুভাই নামে জনপ্রিয় হয়েছিলেন। তিনিও এখন যুগান্তরে কর্মরত। এক কথায় যুগান্তর পরিবারের সঙ্গে আমার একটা ঘনিষ্ঠ আত্মীয়তা আছে। ‘যুগান্তর’ বাংলাদেশের একটি প্রথম শ্রেণীর জাতীয় সংবাদপত্রের মর্যাদায় উন্নীত হওয়া এবং সতেরো বছর ধরে সেই মার্যাদা ধরে রাখা পত্রিকাটির সকল সাংবাদিকতার প্রমাণ।


 
যুগান্তরের মালিক একজন সফল ব্যবসায়ী এবং শিল্পপতি। কিন্তু ব্যবসায়ী হওয়া সত্ত্বেও তার মধ্যে গণতান্ত্রিক রাজনীতির প্লুরালিজমের প্রতি বিশ্বাস কাজ করে বলে আমার ধারণা। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি যখন এক সময় ক্ষমতায় ছিল এবং অগণতান্ত্রিক কার্যক্রম দ্বারা বাংলাদেশকে বিরোধী দলশূন্য করার চেষ্টা চালিয়েছিল, তখন বিএনপি থেকে বেরিয়ে ড. বদরুদ্দোজা চৌধুরী একটি নতুন বিরোধী দল গঠনের চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। বিএনপির অভিযোগ, যুগান্তরের সত্বাধিকারী নুরুল ইসলাম এ চেষ্টার প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলেন। সম্ভবত এ জন্যই তাকে নানা মামলায় জড়িয়ে কারাগারে ঢুকিয়ে দীর্ঘদিন হয়রানি করা হয়েছিল। যুগান্তরের ওপরও সেই আঘাত এসে পড়েছিল। যুগান্তর সেই অগ্নিপরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হয়।
 
বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় যুগান্তরের নিজস্ব ভূমিকাটি কী? আমার মনে হয়েছে যুগান্তর শিক্ষিত উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পাঠকের যেমন কাগজ, তেমনি স্বল্পশিক্ষিত নিন্মবিত্ত মানুষেরও কাগজ। সুবিধাবাদী উচ্চবিত্ত সুশীল সমাজের মুখপত্র এটি নয়। সেই মুখপত্রের একটি আলাদা হাউস আছে। যুগান্তর সাংবাদিকতায় তার এ বৈশিষ্ট্যটি ধরে রেখেছে। সে কোনো বিশেষ শ্রেণীর মুখপত্র হয়ে ওঠেনি। বাংলাদেশে যে দু-চারটি দৈনিক সাংবাদিকতায় শ্রেণী স্বার্থের মুখপত্র হয়ে ওঠেনি যুগান্তর তার একটি।
 
উন্নত পশ্চিমা বিশ্বেও এখন সাংবাদিকতায় শ্রেণী বিভাজন ঘটেছে। মিডিয়া এখন কর্পোরেটগুলোর হাতের মুঠোয় এবং তাদের স্বার্থে পরিচালিত। বিলাতে টাইমস, টেলিগ্রাফ, এক্সপ্রেস প্রভৃতি দৈনিকগুলো ধনী ও শাসকশ্রেণীর মুখপত্র। এসব কাগজে সাধারণ মানুষের কথা বলা হয়, কিন্তু তাদের স্বার্থ ও অধিকারের প্রতিনিধিত্ব করে না। বরং সূক্ষ্মভাবে তার বিরোধিতা করে। স্বল্পশিক্ষিত এবং কর্মজীবী সাধারণ মানুষের জন্য এক সময় মিরর নামে একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকা বের করা হয়। ‘মিরর’ একটু বামঘেঁষা পত্রিকা। সাধারণ শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে এর প্রভাব রোধ করার জন্য অল্প দামের ট্যাবলয়েড পত্রিকা বের করা হয়েছিল, নাম ‘সান’। সেক্স, সাসপেন্স এবং নানারকম সত্য অসত্য উত্তেজক ছবি ও খবর প্রকাশ করে এ কাগজটি শ্রমজীবী সাধারণ মানুষকে তাদের রুটি-রুজির আন্দোলন থেকে দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা চালাত এবং এখনও চালায়।
 
বিলাতে শিক্ষিত ও উদারপন্থী মধ্যবিত্তের জন্য একটি পত্রিকা আছে, নাম ‘গার্ডিয়ান’। মধ্যবিত্ত ব্রিটিশ পাঠকদের মধ্যে এ কাগজটির প্রচার বেশি। লন্ডনে এখন একটা কথা প্রচলিত। কথাটা হল- যারা দেশ শাসন করে তাদের মুখপত্র হল টাইমস, টেলিগ্রাফ প্রভৃতি পত্রিকা। যারা দেশ শাসন করতে চায়, তাদের মুখপত্র হল গার্ডিয়ান, ইন্ডিপেন্ডেন্ট প্রভৃতি কাগজ। আর যারা কোনোদিন দেশ শাসনের সুযোগ পায় না, বরং শাসিত এবং নিপীড়িত শ্রেণী তাদের কাগজ হল মিরর, মরনিং স্টার ইত্যাদি।
 
বাংলাদেশে- তথা উপমহাদেশের সংবাদপত্র জগতে এ ধরনের বিভাজন তথা শ্রেণী বিভাজন এখনও হয়নি। একটা ব্রড বিভাজন আছে। সরকার-সমর্থক ও সরকারবিরোধী পত্রিকা। বিশেষভাবে পেশাজীবী শ্রেণীর কিছু ছোট ছোট পত্রিকা আছে। তার প্রচার সীমাবদ্ধ। অবিভক্ত বাংলায় কুষ্টিয়ার শামসুদ্দীন আহমদ কৃষক-প্রজার মুখপত্র হিসেবে দৈনিক কৃষক নামে একটি পত্রিকা বের করেছিলেন। সেটি পরবর্তীকালে কৃষক প্রজার পরিবর্তে শিক্ষিত মধ্যবিত্তের কাগজে পরিণত হয়েছিল।
 
অবিভক্ত বাংলায় কমিউনিস্ট পার্টি ‘দৈনিক স্বাধীনতা’ নামে কাগজ বের করেছিল। কৃষক শ্রমিক আন্দোলনের খবর তাতে বেশি থাকত। কিন্তু সর্বহারা শ্রেণীর কাগজের চেয়েও সেটি বেশি পার্টি-কাগজে পরিণত হয়েছিল। বর্তমান পশ্চিমবঙ্গে সিপিএমের দৈনিক গণশক্তিও শ্রমিক কৃষক শ্রেণীর মুখপত্র হওয়ার দাবিদার। আসলে পার্টি-কাগজ সেটিও। বাংলাদেশে ঠিক শ্রেণী চরিত্রের কাগজ নয়, বামপন্থী রাজনীতির মুখপত্র দৈনিক সংবাদ। কিন্তু বর্তমানে মিডিয়ায় নব্য ধনিকদের মালিকানার যুগে সংবাদও তার আগের চরিত্র হারিয়েছে। কেবল তার চরিত্র একটু বাম রাজনীতিঘেঁষা।
 
একালের যুগান্তর এদিক থেকে বামঘেঁষা অথবা ডানঘেঁষা কোনোটিই নয়। বলা চলে প্রগতিশীল উদারনীতির কাগজ। সরকারের সমর্থক নয় আবার সরকারের বিরোধীও নয়। ভালো ও মন্দ কাজের নিরিখে সে সরকারকে সমর্থন দেয় অথবা সমালোচনা করে। শিক্ষিত মধ্যবিত্তের ঘরে যেমন তার সমাদর রয়েছে, তেমনি তার মধ্যে রয়েছে স্বল্পশিক্ষিত নিন্ম মধ্যবিত্ত ও নানা পেশার মানুষের চাহিদা অনুযায়ী খবর, খবর-ভাষ্য এবং নানা ফিচার। উগ্র মৌলবাদী রাজনীতির সে বিরোধী এবং অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাজনীতির ধারায় বিশ্বাসী। এক কথায় যুগান্তর যেমন সমাজের উঁচু তলার কাগজ, তেমনি নিচু তলারও। যুগান্তরের এ বৈশিষ্ট্যটা লক্ষ্য করার মতো।
 
পত্রিকার শ্রেণী-বিভাজন নিয়ে আমার একটি অভিজ্ঞতার কথা বলি। লন্ডনে আসার পর থেকে গার্ডিয়ান পত্রিকাটি পড়ি। অন্য কাগজ যেমন টাইমস, টেলিগ্রাফ যে পড়ি না, তা নয়। কিন্তু ঘরে রাখি গার্ডিয়ান। আমার মেজ মেয়ে চিন্ময়ী তখন স্কুলের হায়ার গ্রেডে ভর্তি হবে। তাকে পাড়ায় স্কুলে ভর্তি করতে নিয়ে গেছি। ইন্টারভিউয়ের সময় এক শিক্ষিকা তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তোমরা বাসায় কোন দৈনিক রাখ? আমার মেয়ে বলল ‘গার্ডিয়ান’। শিক্ষিকা একটু ঢোক গিলে বললেন, ওহ্, তোমরা মিডল ক্লাস!
 
পত্রিকা পাঠের নিরিখে বিলাতে শ্রেণী-চরিত্র বিচার করা হয় এটা জেনে বিস্মিত হয়েছিলাম। পরে দেখেছি, বিচারটা ভুল নয়। টিউবে ট্রেনে বাসে দেখেছি সাধারণ মানুষের হাতে সান, মিরর, স্টার, পিপল ইত্যাদি কাগজ। এ ট্যাবলয়েডগুলো ওয়ার্কিং ক্লাসের মানুষের কাগজ বলে পরিচিত। টাইম, গার্ডিয়ান ট্রেনে বাসে বা সাধারণ মানুষের হাতে খুব একটা দেখা যায় না। সে জন্যই অভিজাত দৈনিক টাইমসের প্রচার যেখানে সাত কি আট লাখ, সানের প্রচার সেখানে চল্লিশ থেকে ষাট লাখ। সান বা মিররে আন্তর্জাতিক খবর বড় করে দেয়া হয় না। থাকে খুন, ধর্ষণ, জালিয়াতি ইত্যাদি সামাজিক অপরাধের ফলাও খবর। সানে পৃষ্ঠাজোড়া নগ্নবক্ষ সুন্দরী তরুণীর ছবি তো ছিল এক সময় প্রধান আকর্ষণ।
 
বাংলাদেশের সাংবাদিকতা শিক্ষিত মধ্যবিত্তের রুচিকে এখনও আঘাত করেনি। রম্য পত্রিকা অনেক আছে। কিন্তু তারা ওয়েস্টার্ন ন্যুডিজমকে অনুসরণ করে না। আমাদের দৈনিক পত্রিকাগুলোও এদিক থেকে শ্রেণী বিভাজিত নয়। কয়েকটি পত্রিকার ক্ষেত্রে কিছু ব্যতিক্রম থাকলেও অধিকাংশ দৈনিককেই সব শ্রেণীর পাঠকের পত্রিকা বলা চলে। এ ক্ষেত্রে যুগান্তরের বৈশিষ্ট্য আগেই বলেছি। যুগান্তর সংবাদ পরিবেশনে অনেকটাই বস্তুনিষ্ঠ। মন্তব্য প্রকাশে দল-নিরপেক্ষ। সব শ্রেণীর এবং মতের চাহিদা মেটাতে সক্ষম বলেই যুগান্তর এখন বাংলাদেশের অগ্রগণ্য জাতীয় দৈনিকের একটি।
 
যুগান্তরের সাংবাদিকতা সম্পর্কে বলতে পারি, বয়স আঠারো হলেও পত্রিকাটি এ তথ্যপ্রযুক্তির যুগে একটি বৈশিষ্ট্য অর্জন করেছে সব শ্রেণীর মানুষের দল-নিরপেক্ষ পত্রিকা হিসেবে। আগেই বলেছি, পত্রিকাটি মত-নিরপেক্ষ নয়। সেই মত বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের ও গণতন্ত্রের আদর্শ রক্ষার।
 
এ ধরনের দৈনিকের দীর্ঘ আয়ু যেমন কামনা করি, তেমনি কামনা করি যুগান্তরের মতো কাগজের সংখ্যা দেশে আরও বাড়ুক।
 
লন্ডন ২৫ জানুয়ারি, বুধবার ২০১৭
লেখক : কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, কবি ও কলামিস্ট


মুক্তির জন্য মুক্তিযুদ্ধ এবং আমার অবস্থান : সাঈদুর রহমান সাঈদ

শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০১৭


১৯৭১ সন। অগ্নিঝরা মার্চ মাস। ২৫ তারিখের বংগবন্ধুর রেসকোর্স ময়দানের ডাক দিয়েছেন, “—এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, তোমাদের যার কাছে যা আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা কর—”। আর সেই ডাকে মুক্তিপাগল আবাল, বৃদ্ধ, বনিতা, প্রতিটা দেশপ্রেমিক বাঙ্গালী মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপ দিয়েছেন। ঐ সময় আমি পাকিস্তান এয়ার ফোর্সে বিমান সেনা হিসেবে চাকুরীর করার কারনে ছিলাম তদানিন্তন পশ্চিম পাকিস্তানে। গভীর রাতে কম্বলের নীচে শুয়ে বিবিসি’র খবর শুনতাম কানের কাছে রেডিও রেখে। কারন আশে পাশে ছিল সব পশ্চিম পাকিস্তানী পাঞ্জাবী ও অন্যান্যরা। আর মনে মনে ভাবতাম কি ভাবে বংগবন্ধুর ঐ ডাকে সাড়া দেয়া যায়। খুজে ফিরছিলাম বাহানা ও সুযোগ যার উপর ভিত্তি করে করে পাকিস্তান ত্যাগ করতে পারি এবং মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিতে পারি। ধারনামতে প্রতিটা বাংগালীই আমার মত ভাবিছিল কিন্তু কারও সাথে কেহ এ বিষয়ে কোনো আলাপ আলোচনা করতাম না একান্ত সংগত কারনেই। হঠাত একটি নির্দেশনা জারী হলো; রাষ্ট্রীয় এমার্জেন্সীর কারনে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ধরনের ছুটি দেয়া বন্ধ। দেশের আত্মীয়স্বজনের সাথে চিঠির মাধ্যমেই হতো যোগাযোগ এবং সে চিঠিপত্রও স্ক্রিনিং হবে বলে ঘোষনায় বলা হলো। ফলে আমরা হয়ে পড়েছিলাম আতঙ্কগ্রস্থ। এভাবেই আতংক ও উদ্বিগ্নে ভরা ভবিষ্যতের কথা মাথায় নিয়েই দিন কেটে যাচ্ছিল। আমাদেরকে কর্মস্থল থেকেও দূরে রাখা হচ্ছিল কারন তাদের মনে ভয় ছিল যদি আমরা কোনো ধ্বংসাত্মক কাজে নিয়োজিত হই!
এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেই আমার ঘাটি থেকে আমারই বন্ধু কর্পোরাল সামসুল হক ও কর্পোরাল মোহসীন নামে দুই মুক্তি পাগল বিমান সেনা সিন্ধু প্রদেশের সীমান্ত দিয়ে ভারতে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়ার উদ্দেশ্যে পালিয়ে যাবার উদ্যোগ নেন কিন্তু দুর্ভাগ্যবসতঃ তারা সীমান্ত রক্ষীদের হাতে ধরা গ্রেফতার হন। ঐ সামসুল হক এবং মোহসীনদের পেশা ছিল সীমান্ত গ্রাউন্ড সিগ্নালিং ফলে সীমান্ত সম্পর্কে তাদের প্রচ্ছন্ন ধারনা ছিল। তারা উভয়েই ছিলেন শহীদ বিমান সেনা, তথাকথিত আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামী, পাকিস্তান বিমান বাহিনীর সার্জেন্ট জহুরুল হক ও তার ভাই কর্পোরাল ইউসুফের একান্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু। ঐ দুই বন্ধু কর্পোরালের পরিকল্পনা ছিল যে কোনো প্রকারে সীমান্ত পাড়ী দিয়ে ভারতে ঢুকতে পারলে তারা ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীদের কাছে আত্মসমর্পন করে রাজনৈতি আশ্রয় চাইবে। কিন্ত ধরা পরে যাওয়ায় তাদেরকে পি এ এফ বাদিন নামক বিমান বাহিনীর বেসে এনে কোর্ট মার্শাল করে এজ বছর করে জেল দেয়া হয়। সেই সাথে আমাদের চলাফেরার উপরও তীক্ষ খবরদারী শুরু হয়ে যায়।
বাংলা মায়ের ঐ সন্তানদের সীমান্ত দিয়ে পালাবার উদ্যোগের খবর সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে একদিন তদানিন্তন বিমান বাহিনী প্রধান আমাদের ঘাটিতে আসেন এবং সব বাংগালী বিমান সেনাদেরকে নিয়ে একটি মিটিং করেন। সেখানে তিনি আমাদেরকে সতর্ক করেন এবং সেই সাথে আশ্বস্ত করেন, “পূর্ব পাকিস্তানে সামরিক বাহিনীর কার্যক্রমের ফলে কারও পারিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে থাকলে স্বাভাবিক কারনেই আপনারা উদ্বিগ্ন হবেন কিন্তু ওভাবে পালিয়ে যাবার প্রচেষ্টা না চালিয়ে ছুটির জন্য দরখাস্ত করুন, আমি মঞ্জুর করব।“ সেই সাথে তিনি ঘাটি অধিনায়ককে নির্দেশ দিলেন যাতে ঐ ছুটির দরখাস্ত অনুমোদনের জন্য বিমান বাহিনী সদর দপ্তরে তাঁর অনুমোদনের জন্য পাঠিয়ে দেয়া হয়।
বিমান বাহিনী প্রধানের ঐ ঘোষনায় ছুটিতে যাবার এবং মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেবার একটা সুযোগ এসে গেল ভেবে খুব খুশী হলাম। ঐ দিনই ঢাকাতে চাকুরীরত আমার মামার কাছে চিঠি লিখলাম যেন মায়ের অসুখের সংবাদ দিয়ে পর পর দুটো চিঠি লিখেন এবং পরবর্তীতে মা’র গুরুতর অসুস্থতার খবর দিয়ে একটা টেলিগ্রাম। মামা তাই করলেন এবং ঐ চিঠি এবং টেলিগ্রাম সংযুক্ত করে ছুটির দরখাস্ত করলাম। যথাসময়ে দরখাস্ত বিমান বাহিনীর সদর দপ্তর পেশোয়ারে পাঠিয়ে দেয়া হলো এবং প্রায় একমাস পরে ছুটির দরখাস্ত অনুমোদিত হয়ে এল। আমার ঘাটি কমান্ডার, গ্রুপ ক্যাপ্টেন আয়াজ আহমেদ খান আমাকে ডেকে সে খবর দিলেন এবং উপদেশ দিলেন করাচী গিয়ে পি আই এর টিকেট বুকিং দিতে। আরও বললেন যে ফ্লাইটের দিন থেকেই ছুটি শুরু হবে। কিন্তু আমার পরিকল্পনা ছিল যে কোনোভাবে পাকিস্তান থেকে চলে আসার। ছুটি শেষ হবার একদিন আগেও যদি করাচী ত্যাগ করতে পারি সেটাই হবে আমার জন্য সব চেয়ে বড় পাওয়া। তাই আমি বিমান ভ্রমনের ওয়ারেন্ট ও ছাড়পত্র নিয়ে করাচী যাওয়ার প্রস্তুতি নিলাম। ঐ সময় আমাদের ঘাটির হিসাবরক্ষন অফিসার, একান্ত সজ্জন ফ্লাইং অফিসার নুরুল ইসল্লাম সাহেবের কাছে আমি সব খোলাখুলি ভাবে বলেছিলাম “আমি পি আই এর টিকেট পেয়ে গেলে আর ফেরত আসতে নাও পারি। কাজেই যদি সম্ভব হয় তবে আমার যাবতীয় বেতন ভাতা দেবার ব্যবস্থা করুন।
ঐ সময় সর্বত্র একটা সতর্ক সংবাদ প্রচলিত ছিল যে কোনো বাংগালী সামরিক সদস্যরা ঢাকাতে অবতরনের পর পাক সেনারা তাদেরকে উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে হত্যা করে ফেলে। এই বিষয়েও নুরুল ইসলাম সাহেবের কাছে উপদেশ চেয়েছিলাম কারন তারই বন্ধু একজন ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট (সময়ের ব্যবধানে নাম ভুলে গেছি) কয়েক দিন আগেই পূর্ব পাকিস্তান থেকে ছুটি কাটিয়ে ফেরত এসেছিলেন কারন তিনি তার পরিবারকে ওখানে রেখেই ছুটিতে ঢাকা গিয়েছিলেন। নুরুল ইসলাম সাহেব একদিন সময় নিয়ে প্ররের দিন তার সাথে দেখা করতে বলেছিলেন। তার কথামত আমি তার কাছে গেলে তিনি বলেছিলেন, “সাঈদ, যা শোনা যায় তা সব সত্য নয়, তবে ভাগ্যে যা আছে তা এখানে থাকলেও হবে আর ঢাকায় গেলেও হবে সুতরাং চলে যান।“ তিনি আমার সব দিয়ে দেবার ব্যবস্থা করেছিলেন।
এক সপ্তাহের ছুটি নিয়ে আমি করাচী গেলাম এবং সাথে সব প্রয়োজনীয় লাগেজ নিয়ে নিলাম যাতে টিকেট পেয়ে গেলেই ঢাকায় চলে যেতে পারি। আমি প্রশাসনে কর্মরত ছিলাম বিধায় সব কাগজপত্র তৈরী করে নিয়ে পি আই এর টিকেট কাটার উদ্দেশ্যে, মনে মনে মুক্তিযুদ্ধে যোগদানের বাসনা, করাচীর পথে রওয়ানা দিলাম। করাচীর কোরাংগী ক্রীক নামক বেইসে আমার চাচাত ভাই বিমান সেনা নুরুল ইসলাম কর্মরত ছিল এবং তার কাছে গিয়েই উঠলাম। তারই এক বাংগালী বন্ধুর পরিচিত পি আই এর এয়ার হোষ্টেজের সহায়তা নিয়ে দুই দিন পরেই একটা টিকেটের ব্যবস্থা হয়ে গেল। নির্দিষ্ট দিনে করাচী থেকে ঢাকা ২ ঘন্টা ৩০ মিনিটের আকাশ পথ শ্রীলংকা হয়ে ছয় ঘন্টায় অতিক্রম করে জুলাইয়ের ৭ তারিখ বিকেল বেলা ঢাকা বিমান বন্দরে এসে পৌছলাম। রওয়ানা করার আগেই বিভিন্ন সূত্রে খবর পাচ্ছিলাম যে ঢাকায় অবতরন করার পর বাঙ্গালী সামরিক সদস্যদেরকে এক অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে গিয়ে সামরিক ইন্টেলিজেন্সের লোকেরা নানাভাবে ইন্টারোগেশন করে এবং কোনো রকম সন্দেহ হলে তাদেরকে দুনিয়া থেকে বিদায় করে দেয়া হয়।
ঢাকায় অবতরনের পর সব যাত্রীরাই তাদের মালামাল নিয়ে চলে গেলেও আমার লাগেজ না পেয়ে পূর্বশ্রুত ভীতিজনক কথা স্মরণে আসছিল এবং ভয়ে হৃদ কম্পন শুরু হয়ে গিয়েছিল। মনে মনে ভাবছিলাম আমার লাগেজ হয়তোবা পাকসেনারা জব্দ করেছে এবং সহসাই আমাকে ইন্টারোগেশনের জন্য নিয়ে যাবে আরও কিছুক্ষন অতিবাহিত হল এবং একে একে সকল যাত্রীরাই চলে গেল। আমি একা যখন লাগেজ চেইনের কাছে বিষন্ন মনে দাড়িয়ে ভখনই ওখানে কর্মরত এক বাঙ্গালী এসে আমার কাছে জানতে চাইলেন দাড়িয়ে থাকার কারন এবং তাকে জানালাম আমার লাগেজ পাইনি। ভদ্রলোক আমা্কে নিয়ে দরজার কাছে নিয়ে একটা লাগেজ দেখিয়ে জিজ্ঞেস করলেন সেটা আমার কিনা। আমি “হ্যাঁ” বলতেই সুটকেসটির ছেড়া হাতল দেখিয়ে বললেন যে হাতল ছিড়ে যাওয়ার কারনে ওখানেই সেটা ফেলে রেখেছে কেহ।
যাহোক, তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে টার্মিনাল থেকে বের হলাম। আমার মামা মহাখালী প্যারামেডিকেলে চাকুরী করতেন তাকে অনুরোধ করেছিলাম আমাকে নেয়ার জন্য বিমান বন্দরে থাকতে। কিন্তু বের হয়ে কাউকেই না দেখে আবার চিন্তিত হয়ে পরলাম। হঠাৎ বিমান বন্দর সড়কের অপর পাশে অবস্থিত ‘হাবিব ফ্রটস’ এর সামনে আমার বড় ভাই এবং মামাকে দাড়িয়ে থাকতে দেখলাম। আনন্দে চোখে পানি এসে গেল। সিড়িতে দাড়িয়ে হাত জাগাতেই মামা আমাকে দেখতে পেলেন এবং ইঙ্গিতে বললেন রাস্তা পাড় হয়ে তাদের কাছে যাবার জন্য এবং আমি তাই করলাম। তারা জানালেন যে সবাই চলে গেলেও আমাকে না দেখে তারা ভেবেছিলেন আমি বোধ হয় আসিনি।
বড় ভাইকে দেখে বেশ খুশী এবং আশ্চর্য্য হলাম কারন আমি জানতাম তিনি মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়ে ভারতে অবস্থান করছিলেন। পরে তিনি জানিয়েছিলেন যে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ট্রেনিং শেষ করে ঢাকার কাছ দিয়ে মাদারীপুর যাওয়ার পথে মামাকে দেশে নিয়ে যাবার জন্য ঢাকায় এসেছিলেন এবং এসেই মামার কাছ থেকে আমার আসার খবর পেয়ে অপেক্ষা করছিলেন আমার ফ্লাইটের জন্য। যাহোক, ঢাকায় চলাফেরা করা খুব নিরাপদ নয় তাই রিক্সা কিংবা বেবি টেক্সিতে না গিয়ে নাখাল পাড়া হয়ে রেল লাইনের উপর দিয়ে পায়ে হেটে মহাখালী যাওয়ার জন্য প্রস্তাব দিলেন কারন ঐ পথই কিছুটা নিরাপদ ছিল। আমরা তাই করলাম এবং ভাগ্য ভাল পথে কোনো সমস্যা হয়নি। যদিও এদিক সেদিক অনেক গোলাগুলীর শব্দ শুনতে পাচ্ছিলাম। আল্লাহ তা’আলার অশেষ রহমতে নিরাপদেই মামার বাসায় গিয়ে পৌছলাম। পরিচিত অনেকের সাথেই দেখা হলো এবং অনেক ভাল লাগল।
পরের দিনই লঞ্চযোগে দেশের বাড়ী যাবার জন্য তৈরী হলাম। আমি পাকিস্তান এয়ার ফোর্স থেকে ছুটিতে আসার প্রমানস্বরূপ সব কাগজপত্র নিয়েই এসেছিলাম যা আমার কাছে ছিল বিধায় আমার মনে কোনো সংকোচ বা ভয় ছিল না। তবুও মামা বললেন ভাল কাপড় চোপড় না পরতে কারন ভাল কাপড় পরিহিত তরুনদেরকে দেখলেই নাকি মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা মুক্তিযোদ্ধা বলে সন্দেহ করতো এবং পাক সেনাদেরকে খবর দিত। তাই লুঙ্গী ও একটা সাধারন জামা গায়ে জড়িয়েই পরের দিন সকালেই সদরঘাট থেকে লঞ্চযোগে মাদারীপুরের পথে রওয়ানা হলাম। লঞ্চে উঠার পর প্যান্ট পরেছিলাম। পথিমধ্যে তালতলা নামক এক স্থানে লঞ্চ থেকে সব যাত্রী নামিয়ে পাকিস্তানী সেনারা তল্লাশী চালাতে থাকলো। আমার কাছে এলে আমি তাদেরকে পাকিস্তান এয়র ফোর্স এর পরিচয় পত্র দেখালাম এবং আর্মির সেপাই আমাকে সেলুট করলো। কারন সে মনে করেছিল আমি বিমান বাহিনীর অফিসার এবং ঐ পরিচয়ে আমার বড় ভাইকেও আর তল্লাসী করেনি। আমাকে সেলুট করা্য লঞ্চের সারেং আমাকে এক রকম জোড় করেই তাদের কেবিনে নিয়ে বসালেন। পাক সেনা সদস্য আমাকে স্যালুট দেয়ায় সারেং ও অন্যান্য ষ্টাফরা আমাকে পাকিস্তান সেনা বাহিনীর অফিসার হিসেবেই সন্মান দেখিয়েছিলেন বলেই মনে হয়। এমন কি লঞ্চের ভাড়া দিতে চাইলেও আমার কাছ থেকে ভাড়া নেননি, উপরন্তু একাধিকবার আমার এবং আমার ভাইয়ের চা-নাস্তার ব্যাবস্থাও তারাই করেছিল। বিকল ৩/৪টার দিকে মাদারীপুর গিয়ে লঞ্চ থামলে আমরা লঞ্চের সারেং ষ্টাফদেরকে তাদের আতিথেয়তার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায় নিলাম এবং বাসে করে ভুরঘাটা হয়ে বাড়ীতে চলে এলাম। গ্রামের সবাই আমাকে এমন ভাবে অভ্যর্থনা জানালেন যেন আমি মৃত্যুকূপ থেকে উঠে এসেছি।
বাড়ীতে গিয়ে সবার সাথে কুশল বিনিময়ের পর যখন সব সমবয়সীদের খবর নিচ্ছিলাম তখন জানতে পারলাম যে প্রায় সবাই হয় মুক্তিযুদ্ধ ক্যাম্পে না হয় ভারতে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রশিক্ষন নিচ্ছেন। তাই আমিও বাড়ীতে থাকাটা নিরাপদ মনে করতে পারছিলাম না। তাই ৬/৭ দিন পরেই আমার এক ক্লাসমেট মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প থেকে বাড়ী এলে ওর সাথে মাদারীপুরের খলিল বাহিনীর ক্যাম্পে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেই।
মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে গিয়ে আমাদের গ্রাম ও থানার অনেক পরিচিত মুখকেই পেলাম যাদের কেহ আমার সহপাঠি আবার কেহবা বন্ধু। সবচেয়ে বড় পাওনা হিসেবে পেয়েছিলাম পাকিস্তান এয়ার ফোর্সেরই অন্য এক পতিরিত বন্ধু কর্পোরাল আলমগীরকে। তিনি ছিলেন খলিল বাহিনী নামের ঐ বাহিনীর সর্বাধিনায়ক। আমি পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত একজন বিমান সেনা বিধায় বাহিনীর সবাই অনেক খুশি হয়েছিলেন। এমনকি মাদারীপুর মহকুমার অনেক অপারেশনেও আমাকে সন্মুখভাগের দায়ীত্ব নিতে হতো। বেশ কিছু অপারেশন কৃতকার্যতার সাথেই সম্পাদন করেছিলাম।
একদিন হঠাত করেই মাদারীপুরের নির্বাচিত প্রাদেশিক সংসদ সদস্য জনাব আচমত আলী খান (বর্তমান মাননীয় নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের পিতা) আমাদের ক্যাম্পে এসে খবর দিলেন যে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্য এবং সেই সাথে যারা অন্যান্য সরকারী চাকুরীজীবি মুক্তিযোদ্ধা তাদেরকে নাম তালিকাভুক্ত করার জন্য সেকটর সদর দপ্তরে যেতে হবে। কারন হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত কারন তাদের কেহ যুদ্ধে প্রান হারালে তাদের তাদের পরিবারের জন্য অবসরভাতা দেয়ার প্রশ্ন জড়িত। তাই আগষ্টের শেষভাগে খান সাহেবের দেয়া একটা চিঠি নিয়ে আমরা ১৪ জন ভারতের মেলাঘরে অবস্থিত ২ নং সেক্টর সদর দপ্তরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেই। নানা ধরনের প্রতিকুলতাকে মোকাবিলা করে ১০/১২ দিন পরে নৌকাযোগে মেলাঘরে গিয়ে পৌছি। সেক্টর হেডকোয়াটারে নাম রেজিষ্ট্রি করে আরও কিছুদিন সেখানে অবস্থান করতে হয়েছিল নানা কারনে যা এখানে উল্লেখ না করে পরবর্তী অন্য প্রবন্ধে উল্লেখ করার বাসনা রইল। যাহোক ১৯৭১ সনের ইদুল ফিতরের দিন ইন্ডাকটেড হয়ে মাদারীপুরে চলে আসি। এখানে একটা বিষয় উল্লেখ করতে চাই ঈদুল আজহার ২ দিন আগে আমাদেরকে নিয়ে সেকটর কমান্ডার খালেদ মোশাররফ একটি ঘরোয়া বৈঠক করে আশ্বস্ত করেছিলেন যে সহাসাই আমরা দেশের ইভ্যন্তরে চলে যাব। এবং ঐদিনই মোশাররফ আখাউড়া (কসবা)র যুদ্ধে শত্রুর গোলায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এবং সে কারনেই আমাদের দেশে ফিরতে একটু দেরী হয়ে গিয়েছিল।
দেশে এসে আবার সেই মাদারীপুরের খলিল বাহিনীর সাথেই যোগ দিয়ে বিভিন্ন অপারেশনে অংশগ্রহন করার সৌভাগ্য হয়েছিল। অবশেষে মাদারীপুরের পাক সেনারা ১৯৭১ সনের ডিসেম্বর মাসের ৫/৬ তারিখ মাদারীপুর থেকে পালিয়ে ঢাকা যাবার প্রস্তুতি নিলে আমরা, খলিল বাহিনী এবং গোপালগঞ্জের হেমায়েত বাহিনী টেকের হাট নামক ফেরিঘাটে এম্বুসের ব্যবস্থা করি এবং পাক সেনারা আমাদের কাছে আত্মসমর্পন করে। তাদেরকে আমরা মাদারীপুর জেল খানায় বন্দী করে মাদারীপুর শহরে ৪টি ক্যাম্প স্থাপন করে ১৬ ডিসেম্বরের পরেও অবস্থান করি। আমি তদানিন্তন মহিউদ্দিন উকিলের বাসা স্থাপিত ক্যাম্পের দায়ীত্বে থাকি।
১৯৭২ এর জানুয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহে ক্যাম্প থেকে বিদায় বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে যোগদানের উদ্দেশ্যে ঢাকায় চলে যাই এবং বিমান বাহিনীতে যোগ দিয়েই জানুয়ারীর ১০ তারিখ বংগবন্ধুর প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে তাকে গার্ড অফ অনার দিয়ে স্বাধীন বাংলার বুকে বরন করার সৌভাগ্য অর্জন করি ।
১৯৭১ এর ১৬ ডিসেম্বর পাক হায়েনারা আত্মসমর্পন করা থেকে শুরু করে ১৯৮৫ অক্টোবরে অবসর নেয়া পর্যন্ত ছিলাম বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর একজন বিমান সেনা। আর যে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছিলাম সেই দেশ ছেড়ে অদৃষ্টের নির্মম পরিহাসে আজ বসবাস করছি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। হয়তোবা এখানেই হবে শেষ শয্যা। তবুও তৃপ্ত আমার দেশের পাস্পোর্ট নিয়েই বাংগালী পরিচয়ে এখানে আছি। আজ গর্ব করে বলছি আমি বাংগালী, আমি বাংলাদেশের নাগরিক। সুতরাং আজ অহঙ্কারের সাথে বলতে পারি; জয় বাংলা, জয় বংগবন্ধু, জয় হোক মেহনতি মানুষের।

alt
সাঈদুর রহমান (সাঈদ)
মুক্তিযোদ্ধা, বিমানসেনা (অবঃ)
নিউ ইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র
Email: এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।


মাটির টানে - জুলি রহমান

বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭

অন্তরঙ্গ করে যতোই টানো আমাকে
আমি পারিনা ছুটে যেতে
দিনগত পাপক্ষয় হৃদয়ের ফাঁস লেগেই থাকে ।
শেকড় কখন পুঁতেছি কঠিন মাটিতে!

Picture


ভয়াবহ দুর্বিপাকের নিপাত সময়
বহুবিধ বন্ধনে বেঁধে রাখে
চুলের মতোই কালো কাল
চোখের রেটিনা ছায়ায় ক্রমাগত ঘোরপাক খায়-

অথচ মাটির ঘ্রাণ আমার স্বপ্ন শেমিজ
যা কখনোই আর খোলা যায়না।
পায়ের তলায় যে পাথর ভর করে আছি ;তা অতি ক্ষণিক কালের জেনেও
মাটি আর জল বৃক্ষের স্বপনই বুনি-


নিরুদ্দেশ - জুলি রহমান

বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৭

আমি জানতাম
তুমি আমাকে একদিন খুঁজে বার করবেই
কিন্তু আমি এখন কোনো কথা বলবো না।
কারন আমি এখন সিনেমা দেখবো।
প্রতিপক্ষ !ও তো খোলা আকাশ।
পাগল একটা!

চিমনীর আলোতে রাতের গতর মাজা,
কিছুটা কয়লা খনির ধোয়ার মতো ;
নিচের দ্বগ্ধ মাটি ঋদ্ধ ঋজু।
জীবন এখানে পাথর সমান।

রঙ যতো ওখানে ছড়ানো!
হলুদ বেগুনী নীলে গেরুয়া বিহার।
ভাবনার বিস্তারে ধ্রুপদ গীতে মুখর।
বেনিয়াসহকলা !যদি বুঝে নাও তাঁর ভাষা!
alt
তন্ময় চেতনা গিলে খায় সময়।
শরীর উত্তাপে বিধ্বংসী মাটির বুক
কোহক বিছানো জমিন আরো কতো কী!
আসলে জানো তো রাজনৈতিক কোনো কিছুই ভালো নয় আর!

মাটি ,মা ,দেশ এ নিয়ে কেউ তেমন
মাথাও গরম করে না।কেবল আখের গুছানো ছাড়া।যেমন  ধরো ,গনতন্ত্র ;আজকাল গরীবের বেহাগ।তাই ভাবনা আমার স্থির করলাম ওখানে জটিলতা বিহীন
কী শান্তি!!


আগে স্থানীয় সরকারের প্রকার, স্তরসংখ্যা ও গন্তব্য ঠিক করুন; ‘উপজেলা’ ও ‘গ্রাম সরকার’ সম্পর্কিত মিথগুলো জানুন, বুঝুন ----হাকিকুল ইসলাম খোকন

মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৭

আগে স্থানীয় সরকারের প্রকার, স্তরসংখ্যা ও শেষ গন্তব্য কেন ঠিক করতে হবে তা জানতে হলে, বুঝতে হলে বিদ্যমান স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা ও এর অতীত সম্পর্কে ভাল ধারণা থাকতে হবে; পাশাপাশি অতীতে স্থানীয় সরকার কেন্দ্রীক অবৈধ শাসকদের অসৎ উদ্দেশ্যমূলক কর্মকান্ড, তার ধারাবাহিকতা, কুফলগুলো ও মিথগুলো কিভাবে জনগণ, সরকার, রাজনৈতিক দল, সুশীলসমাজ ও এনজিওগুলিকে প্রভাবিত করে চলেছে তাও ভালভাবে জানতে হবে, বুঝতে হবে। এই লেখাটি অবয়বে ছোট্ট রাখতে কেবল বাংলাদেশ আমলের দুইজন অবৈধ শাসক এর অপকর্মের স্মারক হিসেবে “উপজেলা” ও “গ্রাম সরকার” সংক্রান্ত মিথগুলো ও এগুলোর কুপ্রভাব কীভাবে গোটা স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রক্রিয়াকে সাংঘাতিকভাবে বাধাগ্রস্ত করেছে, করছে তা জানার, বুঝার প্রয়াস নেয়া যেতে পারে। এই প্রয়াসের মধ্য দিয়ে আগে স্থানীয় সরকারের প্রকার, স্তরসংখ্যা ও গন্তব্য কেন ঠিক করতে হবে তা অনেকটা স্পষ্ট হয়ে যাবে বলে আশা করা যায়। সেসঙ্গে এই নিবন্ধে সামগ্রিকভাবে স্থানীয় সরকার বিষয়ক অনেক অনেক দুর্বলতা ও সীমাবদ্ধতা প্রসঙ্গক্রমে উপস্থাপিত ও আলোচিত হয়েছে বিধায় ২০২০ সাল ও ২০৫০ সাল নাগাদ পরিবর্তনশীল বিষয়গুলি (জাতীয় ও বৈশ্বিক প্রেক্ষিত) বিবেচনায় নিয়ে প্রণীত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১, স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২, এমপো, ১১ দফা ও সমাধানমূলক অন্যান্য উপায়গুলো জানতে, বুঝতে সহজতর হবে (স্তরবিন্যাসকরণদ্বয়, এমপো ও ১১ দফা এই নিবন্ধের শেষে সংযুক্ত রয়েছে)। এবং ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারিতে ঢাকায় উপস্থাপিত ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’টি পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়নের প্রয়োজনীয়তা, এর সুদূরপ্রসারী উপকারীতা ও তাৎপর্য অনুধাবন করতে সহায়ক হবে। স্থানীয় সরকারের প্রকার ও শেষ গন্তব্য সঠিকভাবে বুঝা ও ঠিক হওয়া কেন জরুরি তাও স্পষ্টভাবে জানা, বুঝা যাবে;  তা বুঝা ও ঠিক হওয়ার সঙ্গে কেন সঠিকভাবে স্থানীয় সরকারের স্তরগত কাঠামো নির্ধারিত হবার বিষয়টি যুক্ত রয়েছে তাও স্পষ্ট হবে; ১৯৯৭ সালে শুরুতেই উপস্থাপিত এই রূপরেখায় নির্দিষ্ট সময় বিবেচনায় ২০২০ সাল ও ২০৫০ সাল নাগাদ স্থানীয় সরকারের গন্তব্য কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, স্থানীয় সরকারের প্রকারভেদকরণ ও স্তরবিন্যাসকরণ কি অবস্থায় গিয়ে পৌঁছাবে, বাংলাদেশ কোথায় গিয়ে পৌঁছাবে, বাংলাদেশের গণতন্ত্র, অর্থনীতি, রাজনীতি, সংস্কৃতি ও সমাজ কোন স্তরীয় হবে, ১৯৯৭ সালে কারও কারও কাছে এসব কেবল কাল্পনিক অবাস্তব বলে মনে হলেও এখনকার বাস্তবতায় সেসবের দৃশ্যমান অবস্থা কতটুকু বোধগম্য হচ্ছে তা সুনির্দিষ্টভাবে, সুস্পষ্টভাবে জানা যাবে, বোঝা যাবে। এই নিবন্ধে একসময়ের কৃষিজ সমাজ, কৃষিপ্রধান দেশ তথা গ্রামীণ দেশ থেকে বর্তমানকার গ্রামীণ-নগরীয় সমাজ তথা গ্রামীণ-নগরীয় দেশ এবং গ্রামীণ-নগরীয় সমাজ থেকে পরিপূর্ণ নগরীয় সমাজ তথা পরিপূর্ণ নগরীয় দেশ তথা পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশমুখী পরিবর্তনসমূহ ও সময়ের সাথে সাথে রূপান্তর প্রক্রিয়াটির চলমান অবস্থা বোঝা যাবে, জানা যাবে; তা জানা, বোঝা ও নির্দিষ্ট সময় ভিত্তিক ভবিষ্যৎ অনুমানে ঘোষিত ফোরকাস্টের সঙ্গে স্থানীয় সরকারের জন্য প্রস্তাবিত প্রকারভেদকরণ ও স্তরবিন্যাসকরণ বিষয়দ্বয় ভালভাবে বোঝা ও জানার সম্পর্ক অঙ্গাঙ্গিভাবে কেন জড়িত রয়েছে তা পরিষ্কার হবে। স্থানীয় সরকারের একটি সমন্বিত স্তরবিন্যাসকরণ গ্রহণ ও তা একইসঙ্গে বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় জোর না দিয়ে অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে একেক সময় একেকটি ইউনিট (যেমন কখনও গ্রাম সরকার, কখনও উপজেলা) নিয়ে প্রবল টানাটানি ও হইচই করা হয়েছে, হচ্ছে; দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, এই বিষয়টি বৈধ-অবৈধ সব শাসকদের ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায়; তারই ধারাবাহিকতায় সাম্প্রতিক কালে অসফল অর্থমন্ত্রি মুহিত সাহেবও অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে জাতীয় বাজেট বক্তৃতায় কেবল জেলা ও জেলা বাজেট নিয়ে অনুরূপ হইচই, টানাটানি করার অপচেষ্টা চালিয়ে আসছেন, যেটি মন্ত্রিসভা ও জাতীয় সংসদ বাকহীন থেকে অনুমোদন দিয়ে চলেছে; এখানে সেই বিষয়টি এবং বিশেষভাবে দুইজন অবৈধ শাসকের অপকর্মমূলক, অপরাধমূলক বিষয় (এরশাদের উপজেলা ও জিয়ার গ্রাম সরকার) আলোচনায় সমালোচনায় এনে তা গভীরভাবে জানার, বোঝার প্রয়াস নেয়া হল।
অবৈধ শাসক এরশাদ প্রবর্তিত উপজেলা হচ্ছে মূলত একটা মিথ, একটা মিথ্যা নোশান এবং এটি বেশ দায়দায়িত্বহীন, স্বশাসনহীন একটি মধ্যবর্তী প্রশাসনিক ইউনিট। উপজেলা নামকরণটিও সার্থক ও যথার্থ নয়; দেশের আইনকানুন ও বইপুস্তকে বর্ণিত এর সংজ্ঞাটিও বাস্তবতার নিরিখে সঠিক নয়। অথচ গোটা জাতি এই মিথ, এই দায়দায়িত্বহীন ইউনিট, এই স্বশাসনহীন মধ্যবর্তী ইউনিট, এই অসার্থক নামকরণ আর ভুল সংজ্ঞার বেড়াজালেই ঘুরপাক খেয়ে চলেছে। এই বিষয়গুলো বিশেষভাবে তলিয়ে দেখলে তা বুঝতে কারও অসুবিধা হবার কথা নয়; কিন্তু তা বুঝতে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ, মন্ত্রীপরিষদ, নিকার, একনেক, পরিকল্পনা কমিশন ও জাতীয় সংসদ’র বেশ অসুবিধা হচ্ছে বলে প্রতীয়মান হয়। অনুরূপভাবে আরেক অবৈধ শাসক জিয়া প্রবর্তিত ‘স্বনির্ভর গ্রাম সরকার’ এবং পরবর্তীতে একে ঘিরেই ‘পল্লী পরিষদ,’ ‘গ্রাম সভা,’ ‘গ্রাম পরিষদ,’ ‘গ্রাম সরকার’ ও ‘ওয়ার্ড সভা’ নিয়ে গোটাদেশ মিথ্যা নোশানের বেড়াজালে ঘুরপাক খেয়েছে, খাচ্ছে; ইউনিয়নের মধ্যে অবস্থিত প্রতিটি গ্রাম কেন্দ্রীক কিংবা প্রতিটি ওয়ার্ড কেন্দ্রীক এসব অপ্রয়োজনীয় ইউনিট নিয়ে এক সময় প্রচুর মাতামাতি, লাফালাফি হয়েছে, হচ্ছে; সবাই ভালভাবে জানে যে, তাতে কাজের কাজ কিছু-ই হয়নি, হচ্ছেনা। দেশের এই দু’জন অবৈধ শাসক (প্রেসিডেন্ট জিয়া ও প্রেসিডেন্ট এরশাদ) এর সাংঘাতিক অপকর্ম আর হিমালয়সম দুর্নীতির স্মারক হিসেবে এই গ্রাম সরকার ও উপজেলাকে নিয়ে গোটা জাতির প্রচুর মাতামাতি ও লাফালাফিটা ইতিহাসের পাতায় জাতিগতভাবে ও সমষ্টিগতভাবে ভুল করার, ভুলের মধ্যে ডুবে থাকার এক মহা জ্বলন্ত উদাহরণ হয়ে থাকবে। এবং এর মাধ্যমে জনগণও যে সমষ্টিগতভাবে ভুল করতে পারে, ভুলের মধ্যে ডুবে থাকতে পারে তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল; তাতে, জনগণ ভুল করেনা, জনগণ ভুল করতে পারেনা-এই ধরনের আপ্ত বাক্য যাঁরা কথায় কথায় বলে থাকেন, তাঁদেরও বোধদয় হবে বলে আশা করা যায়।
কেবল ‘উপজেলা’ কেন একটা মিথ, কেন একটা মিথ্যা নোশান, কেন মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে এটি বেশ দায়দায়িত্বহীন তার কারণগুলি ভালভাবে জানা ও বোঝাই জরুরি নয়, পাশাপাশি, এই মিথ্যা নোশানের বেড়াজাল থেকে গোটাদেশ যেন বের হয়ে আসতে পারে তার জন্য সঠিক করণীয় ঠিক ও তা বাস্তবায়ন করাও খুবই জরুরি কর্তব্য। মাঠ পর্যায়ে প্রশাসনিক ইউনিটগুলির মধ্যে উপজেলা হচ্ছে অন্যতম মধ্যবর্তী ইউনিট। এর উপরে রয়েছে স্থানীয় প্রশাসনিক ইউনিট যেমন জেলা ও বিভাগ, এর মধ্যে রয়েছে স্থানীয় প্রশাসনিক ইউনিট যেমন ইউনিয়ন, পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড, এবং কোনো কোনো জেলায় এর পাশে রয়েছে স্থানীয় প্রশাসনিক ইউনিট যেমন “সিটি কর্পোরেশন”; এই অবস্থাটা হচ্ছে একটি চরম হ-য-ব-র-ল অবস্থা;  এসব স্থানীয় ইউনিটের মধ্যে উপজেলায় অর্পিত ক্ষমতা ও দায়িত্ব প্রয়োজনীয়তা বিবেচনায় নিলে অনুপোযুক্ত বলে প্রতীয়মান হয়; স্থানীয় ইউনিটগুলির, স্থানীয় সরকারগুলোর এমনতরো এলোমেলো, গোজামিল অবস্থা কারও কাছেই কোনোভাবেই কাম্য নয়; তাই আমরা সবসময় বলি যে, এই এলোমেলো গোজামিল অবস্থার নিরসনকল্পে স্থানীয় সরকারের একটি সঠিক ও সমন্বিত স্তরবিন্যাস তথা স্থানীয় প্রশাসনিক কাঠামো আগে গ্রহণ করতে হবে; সেই গৃহীত প্রশাসনিক কাঠামোয় সর্বাদিক গুরুত্ব দিয়ে স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট (জেলা সরকার কিংবা বিভাগীয় সরকার) ও সর্বনিম্ন ইউনিটদ্বয়কে (একদিকে গ্রামীণ এলাকায় ‘ইউনিয়ন সরকার’ ও  অপরদিকে নগরীয় এলাকায় ‘নগর সরকার’) কার্যকর ও প্রাতিষ্ঠানিক করতে হবে; তা না করে স্থানীয় ইউনিটগুলি ও স্তরগুলির এলোমেলো অবস্থা বজায় রেখে, স্থানীয় ইউনিটগুলির অসঠিক প্রকারভেদকরণ বজায় রেখে, স্থানীয় ইউনিটগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ ইউনিট ও সর্বনি¤œ ইউনিটদ্বয় ঠিক না করে এবং তাতে বিশেষ গুরুত্ব না দিয়ে কেবল একটি মধ্যবর্তী ইউনিট তথা ছাগলের তৃতীয় বাচ্চা তুল্য উপজেলাকে নিয়ে গোটাদেশ অতি উৎসাহ, অতি মনোযোগ, অতি তৎপরতা দেখিয়ে আসছে; ফলে এই উপজেলার জন্মলগ্ন থেকে প্রতিটি নির্বাচনে প্রতিটি উপজেলায় সংশ্লি¬ষ্ট পদপ্রার্থীদের সহিংস কর্মকান্ড অতি মাত্রায় চলে আসছে। পাশাপাশি, হীন রাজনৈতিক স্বাথর্, ব্যক্তি বিশেষের প্রভাব, প্রশাসনিক দুর্নীতি, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, মন্ত্রিপরিষদ, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, নিকার ও একনেক’র অদূরদর্শি সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গির কারণে উপজেলার সংখ্যা কমে আসার পরিবর্তে এর সংখ্যা বেড়েই চলেছে, এবং আরও নতুন নতুন উপজেলা গঠনের প্রক্রিয়া, প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে; তাতে প্রশাসনিক সিস্টেম কস্ট বাড়ছে; উন্নয়ন ও সেবামূলক ব্যয়ে ঘাটতি থাকছে। অথচ বাংলাদেশে উপজেলার সংখ্যা বাড়ানোর অপ্রয়োজনীয়তা নিয়ে সিডিএলজি, বাপসনিউজ ও এমপো বাস্তবায়ন ফোরাম ছাড়া অন্য কারও বক্তব্য শোনা যায় না; এ এক আশ্চর্য ব্যাপার নয় কি?
বাস্তব ঘটনাগুলো হল, উপজেলায় তেমন কোনো কাজকর্ম নেই, দায়দায়িত্ব নেই, এতে পরিপূর্ণ স্থানীয় সরকার কাঠামো নেই, স্বশাসন নেই, এর নিজস্ব আয়ের তেমন কোনও উৎস নেই, নিজস্ব রাজস্ব আয়ের উৎস সৃষ্টির সুযোগও তেমন একটা নেই বললে চলে, এটির নিজস্ব রাজস্ব আয় সৃষ্টির কিছু সুযোগ তৈরী করতে গেলে তৃণমূলের ইউনিয়ন, পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের রাজস্ব আয়ের বেশ কিছু উৎস কর্তন করতে হবে, আর তা করতে গেলে ইউনিয়ন, পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের সঙ্গে বিরোধ অনিবার্য হয়ে পড়বে; উপজেলায় জনগণকে সেবামূলক সার্ভিস দেয়ার মত তেমন কোনো সুযোগ নেই বললে চলে, কিংবা এর মাধ্যমে যেসব সেবামূলক সার্ভিস দেয়ার কথা বলা হয় তা দেয়ার কোনও প্রয়োজনই নেই, কারণ সেসব সার্ভিস অনায়াসে ইউনিয়ন, পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের মাধ্যমে দেয়া সম্ভব; অন্যসব স্থানীয় ইউনিটগুলি যেমন ইউনিয়ন, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন, জেলা, বিভাগ এবং কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে এর সম্পর্ক কেমন হবে, কিভাবে কতটুকু থাকবে তা সুনির্দিষ্ট, সুস্পষ্ট করা নেই; বিশেষত ইউনিয়ন ও পৌরসভার সঙ্গে উপজেলার এক ধরনের সাপে নেউলে সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে, এই সাপে নেউলে সম্পর্ক যে কোনো সময় সংঘাতরূপে প্রকাশ্যে রূপ নিতে  পারে, যা কোনো অবস্থাতেই কারোরই কাম্য নয়।
এই ধরনের একটা নাজুক দৃশ্যমান চলমান অবস্থার মধ্যে অন্য ধরনের আরেকটা দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায় তা হল, উপজেলার প্রতিনিধিগণের জন্য গাড়ী, ড্রাইবার, বাসা, বিশাল দাপ্তরিক ভবন, পিয়ন, সামাজিক ও রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে লোভনীয় পদবী, বেতন-ভাতা, সামাজিক মর্যাদা, রাষ্ট্রীয় মর্যাদা, বিদেশ ভ্রমণ, অপক্ষমতা ও নানাবিধ প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ সুযোগসুবিধার দৃশ্য; এসব লোভনীয় বিলাসবহুল সুযোগসুবিধা থাকায় পদপ্রার্থী হবার জন্য, পদাধিকারী হবার জন্য এক ধরনের প্রচন্ড মোহ, লোভ তৈরী হয়; পাশাপাশি, উপজেলা নির্বাচনে যারা চেয়ারপারসন ও ভাইস-চেয়ারপারসন পদপ্রার্থী হয়, হতে চায়, তাদের লক্ষ্য কিন্তু উপজেলায় দায়িত্ব পালন করা নয়, উপজেলা কেন্দ্রীক উন্নয়নমূলক, সেবামূলক কর্মকা- নিয়ে চিন্তাভাবনা করাও নয়, তাদের আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে সরকারী সুযোগসুবিধা ও পদবী কাজে লাগিয়ে জাতীয় সংসদ এর সদস্য হবার পথে উপজেলাকে মই হিসেবে ব্যবহার করা, এবং অন্যসব উপায় অবলম্বনে কেবল নিজস্ব ভাগ্য উন্নয়নে প্রচেষ্টা চালানো; আর কাজকর্ম, দায়দায়িত্ব ছাড়া কেবলই ‘বাবুগিরি,’ ‘নেতাগিরি’ করার, কেবল ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলে সদায় তৎপর থাকার, নিজেকে একজন বিকল্প ‘এমপি’ ভাবার যে সুযোগসুবিধা রয়েছে তা কার না ভাল লাগে; ফলে এই উপজেলা নির্বাচনে দলীয় ও নির্দলীয় প্রার্থীগণের বেশী বেশী আগ্রহ ও বেশী বেশী সহিংস আচরণ দেখা যায়।
এতে একটি বিষয় পরিষ্কার যে, এই উপজেলার জন্মগত অসৎ উদ্দেশ্য ও জঘন্য কলংক এখনো বহাল রয়েছে; জেনারেল এরশাদ অবৈধ উপায়ে ক্ষমতায় এসে অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত ও পাকাপোক্ত করতে এবং স্থানীয় মধ্যবর্তী পর্যায়ে নিজস্ব অনুগত দলীয় মোড়ল তৈরী করতে উপজেলা সৃষ্টি করেন, এবং তিনি বিশেষ ব্যবস্থায় সমস্ত আইনকানুন লংঘন করে রাষ্ট্রীয় অর্থ ও ক্ষমতা বিলিয়ে দিয়ে উপজেলার প্রতি প্রবল মোহ ও একটি অনুগত মোড়লগোষ্ঠী তৈরী করতে সক্ষম হন। আর এই অনুগত মোড়লগোষ্ঠীই পরবর্তীতে জাতীয় পার্টির স্থানীয় পর্যায়ে শক্তিশালী মধ্যবর্তী খুঁটি হিসেবে দাঁড়িয়ে যায়; একটু খোঁজ নিলে দেখা যাবে এঁরাই এখনকার জাতীয় পার্টির স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে মূল খুঁটি হিসেবে কাজ করছে। রাষ্ট্রীয় অর্থে ও সরকারী ক্ষমতাবলে নিজস্ব দলীয় খুঁটি, মোড়ল তৈরী করাটা হচ্ছে মহা অপরাধ, মহা দুর্নীতি; এই মহা অপরাধ, এই মহা দুর্নীতির কথা মনে রাখা, আমলে নেয়া উচিত নয় কি? অবস্থা দৃষ্টে মনে হয় এসব অপরাধ, এসব দুর্নীতি যেন কিছু-ই না। এসব বিষয়ে দেশের অন্য সব রাজনৈতিক দলও নীরব; তাই তো দেখা যায়, অবৈধ শাসক এরশাদ, তাঁর দল জাতীয় পার্টি, তাঁর শাসনিক মিত্র জেএসডি, কিছুসংখ্যক অবুঝ ব্যক্তি ও চরম চাটুকারকে এখনও ‘উপজেলা’ তথা ‘উপজ্বালা’ নিয়ে গর্ব করতে, উদাহরণ দিতে শোনা যায়! এবং কথায় কথায় বলতে শোনা যায়, জেনারেল এরশাদ ও তাঁর দল না কি এই ‘উপজেলা’র জন্যই চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে! প্রশ্ন হল, যেখানে কোনও একদিন জনাব আবু তালেব প্রস্তাবিত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ অথবা স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ অনুযায়ী “উপজেলা” নামটি থাকবেনা, যখন উপজেলা সম্পর্কীয় মিথগুলি জনমনে খোলাসা হতে থাকবে, এবং যখন মানুষ চাটুকারীয় গর্বমূলক তাৎপর্যহীন কথামালায় একদম কর্ণপাত করবে না; তখন সেখানে অবৈধ শাসক এরশাদ ও তাঁর দল চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে কীভাবে? অনুরূপভাবে, জনাব আবু তালেব প্রস্তাবিত স্তরবিন্যাসকরণদ্বয় অনুযায়ী নগরায়িত প্রবাহে উপনিবেশিক শাসক বৃটিশ প্রবর্তিত ও আয়ুবীয় গন্ধযুক্ত “ইউনিয়ন” নামটিও থাকবেনা, এবং তাতে এই নামটিকে ঘিরে আবর্তিত বৃটিশ উত্তরাধিকার ও আয়ুবীয় গন্ধও মুছে যাবে। আরও বলা প্রয়োজন যে, এই রূপরেখা অনুযায়ী “বিভাগ” স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট হলে মধ্যবর্তী ইউনিট হিসাবে “জেলা” নামটিও এক পর্যায়ে মুছে যাবে, আর জেলাকে স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট করা হলে বিভাগকে একইসঙ্গে মুছে দিতে হবে। তা হলে স্বাধীন দেশে স্বাধীন ভাবনায় নিজস্ব প্রয়োজন অনুযায়ী সাজানো সর্বস্তরীয় অর্থাৎ তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত অথবা কেন্দ্রীয় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত একটি গণতান্ত্রিক প্রশাসনিক কাঠামো পাওয়া যাবে। এটি ভালভাবে অনুধাবন করতে এই নিবন্ধের শেষে সংযুক্ত প্রস্তাবিত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ ও স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ মনোযোগ দিয়ে ভালভাবে লক্ষ্য করার জন্য, বুঝার জন্য পাঠক-পাঠিকাকে বিনীত অনুরোধ করছি।
সে যাই হোক, এই ধরনের একটি শাসনিক অবস্থার মধ্যেই আরও অনেকে ক্ষমতা, সুবিধা ও অর্থ লোভের পাশাপাশি বুঝে, না বুঝে উপজেলার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যান। বেশ কিছু এনজিও দাতা সংস্থার টাকায় দেশীয় শাসকের চাহিদায় আয়োজিত সভা-সমাবেশে এই উপজেলাকে নিয়ে বেশ মাতামাতি, লাফালাফি করে; আবার কিছু কিছু এনজিও কর্মকর্তার মধ্যে নিজস্ব ব্যক্তিগত স্বার্থে এনজিও কমসূচী, অর্থ, জনবল ইত্যাদি কাজে লাগিয়ে নিজস্ব উপজেলায় চেয়ারপার্সন, ভাইস-চেয়ারপার্সন হবার খায়েশ ও লোভ প্রচন্ডভাবে ক্রিয়াশীল থাকায় উপজেলা কেন্দ্রিক অতি তৎপরতাও লক্ষ্য করা যায়। এদের সঙ্গে যুক্ত হয় জাতীয়ভাবে পরিচিত কিছু সুবিধাভোগী ব্যক্তি, যাঁরা প্রকৃত অর্থে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার বোঝে না, মওকা বুঝে কথায় কথায় গণতন্ত্র গণতন্ত্র বলে অথচ গণতন্ত্রায়ন বোঝে না, গণতন্ত্রায়ন শব্দটি উচ্চারণ করতে চায়না, গণতন্ত্রায়ন কর্মসূচী সম্পর্কে ধারণা নেই; বিশেষত এঁরা সুবিধাবাদী অবস্থান থেকে সুবিধাজনক শব্দ “সং¯কার” শব্দটি নিয়ে সব ধরনের শাসনিক আমলে পাগলপ্রায় থাকে, থেকে কেবল সুযোগসুবিধা হাতিয়ে নেয়; এঁরা মূলত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ, প্রকারভেদকরণ, সার্থক নামকরণ, সঠিক সংজ্ঞায়িতকরণ, অর্থায়ন, দায়িত্ব বণ্টন, পারস্পরিক সম্পর্ককরণ, ক্ষমতার পৃথকীকরণ, নির্বাহিক ও বিধানিক পরিষদের পার্থক্য সম্পর্কে জানেনা বুঝেনা, বুঝতে চায়ওনা; এঁরাই স্থানীয় সরকার আর কেন্দ্রীয় সরকারের কাঠামোতে নারীর শতভাগ (১০০%) প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিগতভাবে (যা অবশ্যই চমক, দয়া, করুণা বা বাহাবা কেন্দ্রিক নয়) নিশ্চিত করতে এমপো ও ১১ দফার প্রয়োগ চায়না, ইত্যাদি ইত্যাদি; অথচ তাঁরা নিজেদেরকে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ হিসেবে সবসময় পরিচয় দিয়ে থাকে এবং এনজিও আয়োজিত সভা, সেমিনার, মানববন্ধন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার টকশোতে কখনও অতিথি বক্তা, কখনও অযাচিত বক্তা হয়ে বিশেষত উপজেলা কেন্দ্রিক অসার কথামালা জোর গলায় ব্যক্ত করেন। এঁদের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে মিডিয়ার বেশকিছু সাংবাদিক, সম্পাদক, উপস্থাপক কর্মকর্তা, যাঁরা আর্থিক সুযোগসুবিধার বিনিময়ে উপজেলা বিষয়ক সংবাদ প্রকাশে প্রচারে সহযোগিতা দিয়ে থাকেন; এই সম্পর্কিত বিভিন্ন সভায় সঞ্চালক  হয়ে সভা সঞ্চালনায় বিশেষ কৃতিত্ব নিয়ে থাকেন; এবং এঁদেরই কেউ কেউ মাঝেমধ্যে স্থানীয় সরকার সম্পর্কিত অসার প্রতিবেদন প্রচার প্রকাশের মাধ্যমে ‘স্থানীয় সরকার বিষয়ক সাংবাদিক/প্রতিবেদক’ এর পরিচয় দাঁড় করিয়ে বিশেষ সুবিধা-সুনাম আদায়ে সচেষ্ট থাকেন। এ কি হল স্থানীয় সরকার বিষয়ক সাবাদিকতা?

alt
পাশাপাশি, খুবই দুঃখজনক হলেও শতভাগ সত্যি যে, বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠায় ও তার ক্রমাগত উন্নয়নে আকাংখা, পরিকল্পনা, কর্মসূচী ও প্রস্তুতি রয়েছে এমনতরো একটি রাজনৈতিক দলও খুঁজে পাওয়া যায় না, যায়নি; অথচ রাজনৈতিক দলগুলি গণতন্ত্র ও স্থানীয় সরকারের উন্নয়ন প্রসঙ্গে সবসময় লিপ সার্ভিস দিয়ে থাকে; এই লিপ সার্ভিস আর অন্তর্গত বিশ্বাস কখনো এক ছিলনা, এখনো নেই বলে প্রতীয়মান হয়; অপ্রিয় হলেও সত্য কথা হল, বাংলাদেশে কোনো বুদ্ধিবৃত্তিক গণতান্ত্রিক আন্দোলনই হয়নি, হচ্ছেনা; বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পরিস্থিতিতে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নামে মিশ্রিত লক্ষ্য প্রসূত রাস্তার, মাঠের আন্দোলন হয়েছে, হয়; আপাত দৃষ্টিতে ওইসব আন্দোলনে সফলতা দেখা গেলেও সেই সফলতা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও তার উন্নয়নে কাজে লাগেনি; কারণ সমাজ, দল ও দেশের সার্বিক অর্থে গণতন্ত্রায়ন সম্পন্ন করার শিক্ষাগত ও মানসিক প্রস্তুতি গ্রহণ প্রক্রিয়া এসব আন্দোলনে, সংগ্রামে একেবারেই ছিলোনা বললে অত্যুক্তি হবেনা। সে যাই হোক, বড় দলগুলোর কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে সময়ে সময়ে বিশেষ বিশেষ প্রয়োজনে বিশেষ বিশেষ উদ্দেশ্য সাধন করতে স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিগণকে, স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি হতে আগ্রহী দলীয় ব্যক্তিবর্গকে ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে ব্যবহার করতে দেখা যায়; এবং জাতীয় নির্বাচনে দলীয় ইশতেহারে গণতন্ত্র ও স্থানীয় সরকার উন্নয়ন প্রসঙ্গ বেশ জোরালোভাবে উপস্থাপিত করা হয়। তা করতে গিয়ে এসব দলের কিছু সুচতুর নকলবাজ ব্যক্তি প্রতিটি জাতীয় সংসদীয় নির্বাচনের পূর্বলগ্নে দলীয় ইশতেহার প্রণয়ন কালে স্থানীয় সরকার ও গণতন্ত্র বিষয়ে নকল করার মহড়ায় নেমে থাকে। এসব নকলবাজ ব্যক্তিরা অন্য কারো আইডিয়া, স্লোগান, গবেষণা কর্ম, প্রণীত বিষয়, প্রস্তাবিত বিষয় ও কর্মসূচী জাতীয় স্বার্থে অনুসরণের জন্য, গ্রহণের জন্য নিয়মনীতি মেনে দলীয় ইশতেহারে কিংবা দলীয় কর্মসূচীতে অন্তর্ভুক্ত করেন না, করতে চান না; তাঁরা দেশের ব্যক্তি বিশেষের নিজস্ব স্ট্যাডি, গবেষণা, কর্মসূচী, শ্লোগান, ক্যাম্পেইন, অবদানকে অস্বীকার করার, চুরি করার বাতিকগ্রস্ততা থেকে কেবল নগ্নভাবে চুরিতে, নকলেই সিদ্ধহস্ত; এঁরা মূলত বুদ্ধিবৃত্তিক চোর এবং জনগণের অর্থ ও সম্পদ চোর তো বটেই। অথচ এঁরা স্ব স্ব দলের কাছে সম্মানীয় বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী, নির্বাচনী ইশতেহার প্রণেতা, দলীয় কর্মসূচী প্রণেতা, ইত্যাদি ইত্যাদি! এ এক মহা আজব কারবার নয় কি! তাই তো দেখা যায়, এসব দলের উপজেলা সম্পর্কীয় ইশতেহারগত অংগীকার শুধু কথার ফুলঝুরি আর অন্তঃসার শূন্য কথামালায় ভরপুর; কারণ স্থানীয় প্রশাসনিক ব্যবস্থায় মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে উপজেলার অবস্থান, গুরুত্ব, প্রয়োজনীয়তা, ক্ষমতা, দায়দায়িত্ব, স্বশাসন, অর্থায়ন, কাঠামো ইত্যাদি সম্পর্কে এসব দলের জেনে বুঝে কোনও সুস্পষ্ট, সুনির্দিষ্ট অবস্থান, কর্মসূচী নেই; এ হচ্ছে একজন অবৈধ শাসকের চরম অপকর্মের কুফলে প্রভাবিত হয়ে উত্তরাধিকার বহনে রাজনৈতিক দলগুলোর অশুভ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত থাকা ছাড়া অন্য কিছু নয়; এ যেন এক চরম হ-য-ব-র-ল অবস্থার মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর দিকহারা হয়ে ছোটাছুটিতে লিপ্ত থাকা। পাশাপাশি দেখা যায় যে, জনগণেরও একটা বিরাট অংশ উপজেলা নির্বাচন কালীন সময়ে নগদে পাওয়া আদর আপ্যায়ন আর কদরেই তুষ্ট থাকে। নির্বাচনে ও তার পরে কি হল তা তাঁদের নজরদারি ও তদারকির বিষয় হিসেবে থাকে না। ভোটারগণ মূলত জানেওনা উপজেলায় কি কি দায়িত্ব সম্পন্ন করানোর জন্য উপজেলা চেয়ারপারসন-ভাইস চেয়ারপারসনদ্বয় নির্বাচিত করেছে, করছে; ঠিক যেমন পদপ্রার্থীগণ ভালভাবে জানেনা কি কি দায়িত্ব পালন করার জন্য নির্বাচিত হতে চায়, হয়েছে। অতএব, সার্বিক অর্থেই বলা যায়, উপজেলা হচ্ছে একটা মিথ, একটা অলীক স্বপ্ন, একটা মিথ্যা নোশান, একটা দায়দায়িত্বহীন, স্বশাসনহীন মধ্যবর্তী ইউনিট। গোটাদেশ এই মিথ্যার বেড়াজালে ঘুরপাক খাওয়াটা, সরব থাকাটা হচ্ছে এক মহা আশ্চর্যজনক ব্যাপার!
 অনুরূপভাবে, গোটা জাতি আরেকটা মিথ, আরেকটা মিথ্যা নোশানের বেড়াজালে ঘুরপাক খেয়ে আসছে; সেই মিথ আর মিথ্যা নোশানটা হল, অবৈধ শাসক প্রেসিডেন্ট জিয়া প্রবর্তিত তথাকথিত ‘স্বনির্ভর গ্রাম সরকার’। এই মিথ তথা অপকর্মের কুফলে প্রভাবিত হয়ে এবং একে ঘিরেই পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন শাসক দ্বারা সৃষ্ট পল্ল¬¬ী পরিষদ, গ্রাম সভা, গ্রাম পরিষদ, গ্রাম সরকার ও ওয়ার্ড সভা নামের অপ্রয়োজনীয় ইউনিটগুলি নিয়ে গোটা জাতি মিথ্যার বেড়াজালে জড়িয়ে থাকে; ইউনিয়নের মধ্যে প্রতিটি গ্রাম কিংবা প্রতিটি ওয়ার্ডে বিভিন্ন নামে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অবৈধ ও বৈধ শাসকগণ দ্বারা এসব অপ্রয়োজনীয় ইউনিট গঠিত হয় কিংবা গঠন করার অপচেষ্টা চলে; এসব ইউনিট কেন অপ্রয়োজনীয়, কেন মিথ, কেন মিথ্যা নোশান, কেন অপচয়মূলক আর অসৎ উদ্দেশ্যমূলক তার স্বরূপ বুঝাটাও খুবই জরুরী। এর স্বরূপ বুঝার মাধ্যমে এও বুঝা যাবে যে, কেন স্থানীয় সরকারের স্তরসংখ্যা, প্রকার ও শেষ গন্তব্য আগে ঠিক করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
মূলত, ইউনিয়ন-ই হওয়া উচিত গ্রামীণ স্থানীয় সরকারের মৌলিক গ্রামীণ প্রশাসনিক ইউনিট; সাধারণত ১০ থেকে ১৫টি গ্রাম নিয়ে একেকটি ইউনিয়ন গঠিত হয়ে থাকে; এই ইউনিয়নের মধ্যে অবস্থিত হাট-বাজার-ঘাট-গঞ্জগুলিও কোনো না কোনও গ্রামের মধ্যেই অবস্থিত। সেজন্য দেশের মানুষের কাছে ইউনিয়ন মানে গ্রাম আর গ্রাম মানেই ইউনিয়ন; গাণিতিক হিসাব অনুযায়ী নগরীয় স্থানীয় সরকারের নগরীয় প্রশাসনিক ইউনিট (পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড) এর সংখ্যা ও আয়তন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রামীণ ইউনিট হিসেবে ইউনিয়নের মোট সংখ্যা ও আয়তন কমে আসার কথা; কিন্তু প্রশাসনিক দুর্নীতি আর অশুভ রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে ইউনিয়নের সংখ্যাও বেড়েই চলেছে, এবং আরও কিছু নতুন নতুন ইউনিয়ন গঠনের প্রচেষ্টা চালু রয়েছে; তাতে ইতোমধ্যে প্রশাসনিক সিস্টেম কস্ট অনেক অনেক গুণ বেড়ে গেছে, এবং তা আরও বাড়তে থাকবে; অথচ ইউনিয়নের সংখ্যা যথাসম্ভব কমিয়ে এনে প্রশাসনিক সিস্টেম কস্ট যথাসম্ভব সীমিত রেখে তাতে উন্নয়নমূলক ও সেবামূলক ব্যয় বাড়ানো খুবই জরুরি প্রয়োজন বলে প্রতীয়মান হয়।
গ্রামীণ এলাকায় প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে ইউনিয়ন কেন্দ্রীক সার্বিক উন্নয়ন মানেই ১০-১৫টি গ্রামের উন্নয়ন, গ্রামীণ মানুষের উন্নয়ন; অথচ, প্রকৃত ঘটনা হল, এই ইউনিয়ন ভিত্তিক গণতন্ত্রায়ন ও তার  সার্বিক উন্নয়ন সাধনে আজ অবধি কোনো বিশেষ উদ্যোগ, বিশেষ আয়োজন গৃহীত ও দৃশ্যমান হয়নি, হচ্ছেনা। বরং এই ইউনিয়নকে পাশ কাটিয়ে এর নীচে যেমন গ্রাম সরকার ও এর ওপরে যেমন উপজেলা নামক অপ্রয়োজনীয় ইউনিটগুলো গঠনের নামে নানান সময়ে নানান রকমের অপতৎপরতা চালানো হয়েছে, হচ্ছে; ওই সব অপতৎপরতার সঙ্গে দেশের অনেক নামকরা, নামী দামী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান জড়িত। প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান অবৈধ উপায়ে ক্ষমতায় এসে ও থেকে, রাষ্ট্রীয় অর্থে ও সরকারী ক্ষমতায় নিজস্ব রাজনৈতিক দল গঠন ও গ্রামীণ তৃণমূলে অনুগত, চাটুকার দলীয় কর্মী-সমর্থক তৈরীর লক্ষ্যে ইউনিয়নের মধ্যে ‘স্বনির্ভর গ্রাম সরকার’ গঠন করার উদ্যোগ নেন; এবং এই ইউনিট কেন্দ্রীক বেশী বেশী দলীয় কর্মী-সমর্থক তৈরী করার লক্ষ্যে নতুন নতুন গ্রাম সৃষ্টিতে প্রবল উৎসাহ যোগায়; তাতে গ্রামের সংখ্যা হু হু করে বেড়ে ৬৮ হাজার থেকে ৮৭ হাজারের বেশী সংখ্যক গ্রামে উন্নীত হয়ে যায়; কারণ যত বেশী বেশী গ্রাম, তত বেশী বেশী গ্রাম সরকার, আর তত বেশী বেশী অনুগত, চাটুকার, টাউট, সুবিধাবাদী, নীতিহীন, আদর্শহীন দলীয় সদস্য; এতে দীর্ঘকালের প্রতিটি গ্রামভিত্তিক দৃঢ় সামাজিক বন্ধন ও একতা ভেঙ্গে তছনছ, চুরমার হয়ে যায়; জাতীয় অর্থ, শ্রম ও সময়ের বিপুল অপচয় ঘটে; ইউনিয়ন পরিষদ হয়ে পড়ে চরম উপেক্ষিত, এবং গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক গ্রামীণ ইউনিটের পরিবর্তে ইউনিয়ন হয়ে পড়ে গুরুত্বহীন এক মধ্যবর্তী ইউনিট। বহুল পরিচিত প্রচারিত শ্লোগান “৬৮ হাজার গ্রাম বাঁচলে, বাংলাদেশ বাঁচবে” শ্লোগানটি হয়ে পড়ে প্রকৃত তথ্যভিত্তিক ঘটনায় অসঙ্গতিপূর্ণ; বিদ্যমান বাস্তবতায় এই শ্লোগানে গ্রামের সংখ্যাগত ভুল তো রয়েছেই; পাশাপাশি প্রশ্ন এসে যায় এই শ্লোগানে নগর, নগরীয় এলাকা আর নগরীয় মানুষ কোথায়? তা তো এই কবিতে কবিতায় অনুপস্থিত রয়েছে; কবিকে কবিতা লেখায়ও যে তথ্যগতভাবে আপডেট থাকতে হবে তা ভুললে চলবে কী? প্রকৃত ঘটনা হল, বাংলাদেশ এখন গ্রামীণ-নগরীয় দেশ; তাই গ্রাম আর নগরকে নিয়েই বাংলাদেশকে বাঁচতে হবে, এগিয়ে যেতে হবে; তাই কবিতায়, গানে, শ্লোগানে, ভাবনায়, পরিকল্পনায়, কর্মপ্রচেষ্টায় গ্রাম আর নগর একসঙ্গে থাকতে হবে; এটি একসঙ্গে ততদিন পর্যন্ত বজায় রাখতে হবে, যতদিন পর্যন্ত গ্রাম বজায় থাকবে। সে যাই হোক, অবৈধ শাসক জিয়া কর্তৃক রাষ্ট্রীয় অর্থে, দাপটে কেবল-ই ব্যক্তিগত ও নতুন রাজনৈতিক দলীয় কর্মী-সমর্থক তৈরীর স্বার্থে পরিচালিত এই সরকারী উদ্যোগ ছিলো এক মহা দুর্নীতি, এক মহা অপরাধ; এ হল অবৈধ শাসকের অবৈধ ক্ষমতায় সৃষ্ট এক মারাত্বক বিষফোঁড়া, যার যন্ত্রণায় গোটা জাতি এখনো খেসারত দিয়ে চলেছে। অবৈধ শাসক জিয়ার এই মহা অপরাধ, এই মহা দুর্নীতি আর এই সাংঘাতিক বিষফোঁড়ার বিষয় হালকাভাবে নেয়া একদম উচিত নয়। এই মহা অপরাধ, এই মহা দুর্নীতির কথা অবৈধ ক্ষমতাবলে সৃষ্ট সংশ্লিষ্ট দলটি (বিএনপি) স্বার্থগত কারণেই হালকাভাবে নিয়ে থাকে এবং তা চাপিয়ে রাখতে চায়, লুকিয়ে রাখতে চায়; কারণ একটু অতীতে গেলে, একটু অতীত স্মরণ করতে চেষ্টা করলেই মনে পড়ে যাবে যে, জিয়াউর রহমান তখনকার গ্রাম সরকারের মাধ্যমেই তৃণমূলে সুবিধাবাদী, নীতিহীন, আদর্শহীন, টাউট ও বাটপার জাতীয় লোকদের নিয়ে বিএনপি’র সমর্থক ও কর্মী গোষ্ঠী তৈরী করে ছিলেন; পরবর্তী কালে এঁরাই গ্রামে বিএনপি’র শক্ত খুঁটি হয়ে দাঁড়িয়ে যায়; তৃণমূলের মত জাতীয় পর্যায়েও অনুরূপ চরিত্রের লোকজন নিয়েই জিয়াউর রহমান বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তৈরী করেছিলেন; তখন একটি কথা বেশ চালু ছিল তা হল, ‘দিনে বায়তুল মোকাররম, রাতে বঙ্গভবন’; ওই সময়ে পল্টন ময়দানে সভা সমাবেশ করা বন্ধ রেখে বায়তুল মোকাররমে পার্শ্ব রাস্তায় সভা সমাবেশ করতে বাধ্য করা হয়। মূলত, ওই সময় থেকেই বাংলাদেশে অবৈধ ক্ষমতাবলে রাজনৈতিক নেতা-কর্মী বেচাকেনা শুরু হয়, সেজন্য ওই কথা মনুষ্য মুখে মুখে এমনিতেই দেশময় চালু হয়ে যায়। সেজন্য অবৈধ শাসক জিয়ার এসব অপকর্ম স্বার্থগত, জন্মগত কারণেই বিএনপিকে ভুলে থাকতে হয়, চাপিয়ে যেতে হয়। কিন্তু অন্যসব রাজনৈতিক দল ও  গোটা জাতি কেন তা ভুলতে বসেছে? তা কি ভুলে যাওয়া উচিত? এই প্রশ্ন থাকল সকল মানুষের প্রতি। একই ধারায় পরবর্তীতে বিএনপি ক্ষমতায় এসে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার নেতৃত্বাধীন স্থানীয় সরকার বিষয়ক কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রি ব্যারিস্টার আবদুস সালাম তালুকদারের নেতৃত্বে একবার ‘গ্রাম সভা’ গঠন করার অপচেষ্টা চালায় এবং আরেকবার স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আবদুল মান্নান ভূঁঞার নেতৃত্বে প্যাডসর্বস্ব ‘গ্রাম সরকার’ গঠন করতে গিয়ে দেশের প্রচুর অর্থ, শ্রম ও সময় নষ্ট করা হয়, এবং এই প্যাডসর্বস্ব গ্রাম সরকারের জন্য রাষ্ট্রীয় শত শত কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে করাপশনকে গ্রামীণ তৃণমূলে বিস্তৃত করা হয়। উভয় বার ক্ষমতায় থাকা কালে বিএনপির যেসব নেতা স্থানীয় সরকার বিষয়ক দায়িত্বে পরামর্শে ছিলেন, তাদের দ্বারা স্থানীয় সরকারের কেবল ক্ষতিই সাধিত হয়েছে; তারাসহ এই দলের গোটা কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার স্থাপন ও তার উন্নয়নমুখী কোনো চিন্তাভাবনা করেছে কিংবা করতে চেয়েছে এমনতরো নজির একদম খুঁজে পাওয়া যায়না, যদিও ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’ বিএনপির নীতিনির্ধারকগণের কাছেও বার বার তুলে ধরা হয়েছিল; তা তারা সবাই এক কান দিয়ে শুনেছে, আরেক কান দিয়ে তা বের করে দিয়েছে; তারা দেশ, দল ও সমাজের সার্বিক গণতন্ত্রায়ণ ও গণতন্ত্রের অন্যতম ভিত হিসেবে স্বশাসিত স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠার বিষয়টি আমলে নেয়ার প্রয়োজনীয়তা কখনও উপলব্ধি করেনি, করতে চায়নি, আর এখনও এই দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এসব বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করছে বলে, করতে চায় বলে একদম প্রতীয়মান হয়না; আর এই দলের জন্মগত কলংকিত চরিত্র একটুও পরিবর্তনমুখী হয়েছে বা হতে চেয়েছে বলে কোনও নজির কি দলে কিংবা রাষ্ট্রে রয়েছে? তারপরও কি বিএনপি’র স্থানীয় সরকার, গণতন্ত্র ও গণতন্ত্রায়ন বিষয়ক অবস্থান, আকাংখা বুঝতে আর কিছু বাকি থাকে? সেসঙ্গে অবৈধ শাসক জিয়ার ওই অপকর্মের প্রভাব কিভাবে অন্যসব রাজনৈতিক দলগুলোকে প্রভাবিত করেছে তাও গভীরভাবে জানার, বুঝার প্রয়োজন রয়েছে। এই প্রসঙ্গে ধরা যাক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর কথা; এই দল ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে গ্রামীণ তৃণমূলে দলীয় ভিত্তি আরও মজবুত করার এক অলীক স্বপ্নে তাড়িত হয়ে এ্যাডভোকেট রহমত আলীর নেতৃত্বাধীন স্থানীয় সরকার কমিশনের সুপারিশের ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী এ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান (পরে তিনি মাননীয় রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন) এর নেতৃত্বে জাতীয় সংসদে তেমন কোনো আলাপ আলোচনা ছাড়াই অত্যন্ত তাড়াহুড়ার সহিত স্বল্প সময়ে ইউনিয়নের মধ্যে প্রতি ওয়ার্ড কেন্দ্রিক ‘গ্রাম পরিষদ’ গঠন করার বিল পাস করা হয় ও তা রাষ্ট্রপতি কর্তৃক স্বাক্ষরিত হয়ে আইনে পরিণত হয়, এবং তাঁরই নেতৃত্বে তা বাস্তবায়নের জন্য অপচেষ্টা চলে; বিন্তু সেই অপচেষ্টা কেবল জনাব আবু তালেব এর বুদ্ধিবৃত্তিক প্রবল বাধার মুখে বন্ধ হয়ে যায়; প্রসঙ্গক্রমেই বলা প্রয়োজন যে, এ্যাডভোকেট রহমত আলী কমিশনের ওয়ার্ড ভিত্তিক তথাকথিত ‘গ্রাম পরিষদ’ গঠনের সুপারিশটি ও অন্যসব সুপারিশগুলো একদম অপরিপক্ক, ভঙ্গুর, খন্ডিত আর গোজামিলে ভরপুর; এক কথায় বলা যায় যে, রহমত আলী কমিশনের গোটা প্রতিবেদনটি সার্বিক বিবেচনায় বাস্তবায়নের অযোগ্য একটি প্রতিবেদন। তা সত্ত্বেও, বাস্তব অবস্থা দেখে মনে হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারকগণ এ্যাডভোকেট রহমত আলী কমিশনের ওই গারবেজ তুল্য প্রতিবেদনটি নিয়ে এখনও সন্তুষ্ট কিংবা দ্বিধাগ্রস্ত রয়েছেন; পাশাপাশি আওয়ামী লীগের প্রায় সকল কেন্দ্রীয় নেতাগণ ও রহমত আলী কমিশনের সকল সদস্যগণ ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’ সম্পর্কে বার বার অবগত হয়েছেন, এবং এর সবিস্তার ব্যাখ্যা শুনেছেন, জেনেছেন; তার পরও এর গুরুত্ব ও তাৎপর্য বুঝতে, উপলব্ধিতে নিতে, বাস্তবায়নে যেতে এতবেশী সময় লাগার কারণ একদমই বোধগম্য নয়। সে যাই হোক, এখন তো বিএনপিকে ‘স্বনির্ভর গ্রাম সরকার,’ ‘গ্রামসভা’ ও ‘গ্রাম সরকার’ নিয়ে কথা বলতে দেখা যায় না, শোনা যায় না। জাতীয় পার্টিকে ‘পল্ল¬ী পরিষদ’ নিয়ে কথা বলতে শোনা যায় না, দেখা যায় না; অবস্থা দৃষ্টে মনে হয়, অবৈধ শাসক এরশাদকে “পল্লী” শব্দ কেন্দ্রীক, “পল্লী পরিষদ” কেন্দ্রীক ও “পল্লীনিবাস” কেন্দ্রীক ‘পল্লীবন্ধু’ বানানোর খায়েশও এই দলের ফুরিয়ে গেছে বলে মনে হয়! আর আওয়ামী লীগকে ইউনিয়নে ওয়ার্ড ভিত্তিক তথাকথিত ‘গ্রাম পরিষদ’ নিয়ে কোনও বক্তব্য দিতে, টুঁ শব্দ করতে দেখা যায় না, শোনা যায় না। তবে প্রতি গ্রামে কিংবা ইউনিয়নের প্রতি ওয়ার্ডে ওইসব তথাকথিত ইউনিট গঠনের সঙ্গে যুক্ত থেকে যেসব ব্যক্তি নানাবিধ ফায়দা লুঠেছে, অপ্রয়োজনীয় বই-টই লিখে প্রচুর টাকাপয়সা কামিয়েছে, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ পরিচিতি মিডিয়ার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত করেছে, দাতা গোষ্ঠীর টাকায় সভা-সেমিনার করেছে, নতুন নতুন এনজিও যেমন ‘স্থানীয় সরকার সহায়ক কমিটি’ গঠন করেছে, তারা এখনো মাঝেমধ্যে ওইসব অপ্রয়োজনীয় ইউনিট গঠনের পক্ষে আড়ালে-আবড়ালে, চুপিসারে সাফাই গাইতে দেখা যায়। এসব অপকর্মকান্ডের বিরুদ্ধে, ইউনিয়নের মধ্যে ওইসব অপ্রয়োজনীয় ইউনিট গঠনের বিরুদ্ধে সিডিএলজি’র লাগাতার ক্যাম্পেইন ও তীব্র প্রতিবাদ এর কারণে এক দিকে ওইসব ব্যক্তির জোরগলা বেশ ক্ষীণ ও দুর্বল হয়েছে; অপর দিকে ওইসব রাজনৈতিক দল বুঝতে পেরেছে যে, ইউনিয়নের মধ্যে ওইসব অপ্রয়োজনীয় ইউনিট গঠন করার নামে আবার লাফালাফি, মাতামাতি করলে হালে আর পানি পাওয়া যাবে না; তাই তারাও চুপসে গেছে বা চুপসে যেতে বাধ্য হয়েছে বলে বোঝা যায়। শেষ তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে গঠিত একটি স্থানীয় সরকার বিষয়ক কমিটিও ইউনিয়নের মধ্যে প্রতি ওয়ার্ডে ‘ওয়ার্ড সভা’ ও নগরীয় ওয়ার্ডে ‘ওয়ার্ড কমিটি’ গঠনের সুপারিশ করে; এই কমিটির জন্য অন্যসব খরচ ছাড়া শুধু ওই তথাকথিত সুপারিশ প্রকাশের জন্য ঢাকায় প্যারেড গ্রাউন্ডে আয়োজিত এক সভার জন্য ব্যয় করা হয়েছে প্রায় সোয়াশ কোটি টাকা, এর মাধ্যমে জাতীয় অর্থের অপচয় কারে কয়, তা ওই কমিটি ও স্থানীয় সরকার বিভাগ ভালভাবে দেখিয়েছে! ওই কমিটির প্রধান ড. শওকত আলী পুরস্কার স্বরূপ শেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টাও হয়েছেন; তথাকথিত ওয়ার্ড সভা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠনের সুপারিশসহ ওই কমিটির অন্য সুপারিশগুলিও বড্ড সেকেলে, খন্ডিত ও বাস্তবায়নের একদম অযোগ্য; প্রথম দিকে মিডিয়াসহ অনেকেই না জেনে, না বুঝে ওই কমিটির প্রতিবেদনটির প্রতি সমর্থন জানায়, আবার জেনেবুঝেই কেবল স্বার্থগত কারণে তার পক্ষে শেষ তত্বাবধায়ক সরকারের গর্ভে সৃষ্ট ‘গভার্নেন্স কোয়ালিশন’ নামের একটি এনজিও গ্রুপ দাতা সংস্থার টাকায়, শেষ তত্বাবধায়ক সরকারের সেবাদাস হিসেবে সভা-সেমিনার আয়োজনের মাধ্যমে বেশ হইচই করে থাকে, ‘হাঙ্গার প্রজেক্ট’ নামের আরেকটি এনজিও’র বাংলাদেশস্থ কর্ণদার (ড. বদিউল আলম মজুমদার) এর বিশেষ ব্যক্তিগত স্বার্থে ওই এনজিওটিও অনুরূপ কাজে লিপ্ত থাকে, আর এই হাঙ্গার প্রজেক্ট এরই পকেট সংগঠন ‘সুজন’ও ওই প্রতিবেদন নিয়ে মাঠ গরম করার অপচেষ্টা চালায়, ‘ডেমক্রেসিওয়ার্চ’ নামের আরেকটি সুবিধাভোগী এনজিও ওই প্রতিবেদনের পক্ষে প্রচার প্রচারণায় সচেষ্ট থাকে, এবং এই এনজিও ইউনিয়ন পরিষদের তথাকথিত ‘স্থায়ী কমিটি শক্তিশালীকরণ’র নামে দাতা সংস্থার লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতে লোক দেখানো সভা সেমিনারও আয়োজন করত; অথচ ওই এনজিও বিধানিক পরিষদীয় বা সংসদীয় স্থায়ী কমিটি কি, তা-ই বুঝত না, বুঝে না; মিসেস তালেয়া রেহমান কর্তৃক পরিচালত এই এনজিওটি গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার চায়, বুঝে তার কোনও লক্ষণ এর কর্মকা-ে কখনও প্রতিফলিত হয়নি, হয়না। ওই অসার প্রতিবেদনটির পক্ষে বেশ কয়েকটি সংবাদপত্রও নিজস্ব স্বার্থগত কারণে প্রবল প্রচার প্রচারণায় যুক্ত হয়ে পড়ে; ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’ নামক একটি এনজিও অনুরূপ কর্মকা-ে লিপ্ত থাকে, যদিও এই এনজিওতেও স্থানীয় সরকার বুঝে, জানে এমন কোনো কর্মকর্তা দেখা যায়নি; তখন এই এজিও’র এক বিশেষ সুবিধাভোগী কর্মকর্তা স্থানীয় সরকার বিষয়ক গার্বেজ তুল্য একাধিক নিবন্ধ ডেইলি স্টার নামক একটি ইংরেজী পত্রিকায় প্রকাশ করায় এবং ইউরোপের একটি দেশ থেকে একটি স্কলারশিপ বাগিয়ে নেয়। অর্থনীতি বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিত ‘সিপিডি’ও ওই অসার প্রতিবেদনের পক্ষে জোর অবস্থান নেয়, যদিও এই প্রতিষ্ঠানে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার, গণতন্ত্রায়ন বুঝে, জানে এমন কোনও গবেষক, কর্মকর্তা আছে বলে আমাদের অন্তত জানা নেই; কিন্তু সিডিএলজির বুদ্ধিবৃত্তিক তীব্র আন্দোলনের ফলে ওই প্রতিবেদনের সুপারিশগুলির অসারতা, দুর্বলতা খোলাসা হতে থাকায় তার প্রতি অনেকের সমর্থন ক্ষীণ থেকে ক্ষীণতর হয়েছে, এবং ওই কমিটির সদস্যদের উচ্চকণ্ঠ আস্তে আস্তে ক্ষীণ থেকে ক্ষীণতম হয়েছে বলে প্রতীয়মান হয়; ওই কমিটির সুপারিশগুলি (মূলত একেও নকলবাজদের নকল বলাই শ্রেয়) এবং ওইগুলির ভিত্তিতে প্রণীত আইনকানুন বিধিবিধান যত দ্রুত সম্ভব বাতিল হয়ে যাওয়া উচিত। এই শেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উদ্যোগেই তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি স্থানীয় সরকার কমিশনও গঠিত হয়; এ কমিটির সদস্যরা কেবল বেতন, ভাতা, অফিস, গাড়ী, বাড়ি, পদমর্যাদা ও নানা রকমের সুযোগসুবিধা নিয়েই ভীষণ ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে; এঁদের একজনেরও গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার, বাংলাদেশের প্রশাসনিক কাঠামো ও এর অভ্যন্তরীণ স্ট্যাটাসগত ও গুণগত পরিবর্তন সম্পর্কে তত্ত্বগত ও বাস্তব ধারণা ছিলোনা; এঁদেরই একজন (ড. তোফায়েল আহমেদ) এখনও বিলুপ্ত কমিশনের পদবী ব্যবহার করে মিডিয়াসহ অন্যসব জায়গায় নানা রকমের সুযোগসুবিধা নিয়ে থাকেন, এবং তিনি তার অসার গার্বেজ তুল্য বক্তব্য কথায় লেখায় সবসময় তুলে ধরেন। তাজ্জব ব্যাপার হল, এই তিনি, যিনি আর্থ-সামাজিক স্তরীয় অবস্থা বুঝে স্থানীয় সরকারের প্রকার ঠিকভাবে করতে পারেন না, সর্বনি¤œ ইউনিট কতটি তা বুঝতে পারেন না, সর্বোচ্চ ইউনিট বিভাগ না জেলা তা ঠিক করার ও ক্ষমতার পৃথকীকরণ করার প্রয়োজনীয়তা বুঝেন না, নির্বাহিক ও বিধানিক পরিষদের পার্থক্য বুঝেন না, সমন্বিত স্তরবিন্যাসকরণ ও তার গুরুত্ব বুঝেন না, সার্থক নামকরণ ও যথার্থ সংজ্ঞায়িতকরণের গুরুত্ব অনুধাবন করেন না, ন্যায়পাল প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করেন না, নারীর গণতান্ত্রিক ক্ষমতায়নে ১০০-১০০ প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতি তথা এমপোতে বিশ্বাস করেন না, গ্রামীণ তথা কৃষিপ্রধান থেকে গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশের রূপান্তরিত উপস্থিতি এখনও টের-ই পাননা, বিদ্যমান গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ থেকে একটি পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ এ উন্নীত হবার চলমান প্রক্রিয়া উপলব্ধিতে নিতে চাননা, স্থানীয় সরকারের শেষ গন্তব্য কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা জানেন না, বোঝেন না, বোঝতে চাননা, ইত্যাদি ইত্যাদি। অথচ মিডিয়া কর্মিরা তাঁকে (এবং ড. বদিউল আলম মজুমদার, ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, ড. আকবর আলি খান, ড. শওকত আলী সহ আরও কয়েক জনকে) স্থানীয় সরকার “বিশেষজ্ঞ” হিসেবে প্রচার প্রকাশ করেই চলেছে; এতে তাঁরা খুবই পুলকিত বোধ করেন! প্রশ্ন হল, এসব ব্যক্তিসহ আরও কিছু ব্যক্তি (কারা তা বুঝে নিলে খুশী হব) ও কিছু এনজিও সম্পর্কে মিডিয়া কর্মিরা কবে সচেতন হবে? কবে শেষ হবে স্থানীয় সরকার নিয়ে সব ধরনের অপতৎপরতা, অপপ্রচার? আর কবে শেষ হবে অসার, বিভ্রান্তিকর বক্তব্য প্রচার প্রকাশের লাগাতার মহড়া?
প্রকৃতপক্ষে, স্থানীয় সরকার বিষয়ক যত রকমের মিথ আর অপতৎপরতা রয়েছে, তার বিরুদ্ধে সর্বাত্বক বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন আনুষ্ঠানিকভাবে সূচিত হয় ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারী থেকে। ওই দিন ঢাকায় জাতীয় জাদুঘরে এক জাতীয় সেমিনারে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’ উপস্থাপিত করেন স্থানীয় সরকার ও গণতন্ত্রায়ন বিষয়ক গবেষক আবু তালেব, এবং সেই ১৩ জানুয়ারী ১৯৯৭ সাল থেকেই তাঁর উদ্যোগে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার ও ২০২০ সালের মধ্যে একটি উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ তথা “গণস্বপ্ন ২০২০” প্রতিষ্ঠার বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন সূচিত হয়, প্রকৃত অর্থে স্বপ্ন (ভিশন) ভিত্তিক আন্দোলন সংগ্রাম সূচিত হয়; আর এই আন্দোলনই স্থানীয় সরকার সম্পর্কিত যত রকমের মিথ, মিথ্যা নোশান, আনফাউন্ডেড নোশান, অপচেষ্টা, অপতৎপরতা রয়েছে তা আস্তে আস্তে দূরীভূত করে আসছে; শুরুতে অনেকেই এই আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা ও তাৎপর্য বুঝতে পারেননি; ইউনিয়নের মধ্যে প্রতিটি গ্রাম কিংবা ওয়ার্ড ভিত্তিক স্থানীয় সরকারের ইউনিট স্থাপনের কোনো প্রয়োজন নেই, জনাব আবু তালেবের এই দৃঢ় বক্তব্যের, অবস্থানের সারবত্তাও অনেকে একেবারেই বুঝতে পারেননি, এবং অনেকেই তাঁর এই দৃঢ় বক্তব্যকে, অবস্থানকে সহজভাবে গ্রহণ করতে পারেননি বলে তাঁকে অনেকেই ভুল বুঝেছেন, ক্ষুরধার সমালোচনা করেছেন। অনুরূপ কঠোর সমালোচনায় পড়তে হয়েছিল “গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা” নামকরণে “গণতান্ত্রিক” শব্দটি লাগানোর জন্যও। তাতে কিন্তু তিনি একটুও দমে যাননি; তিনি তাঁর সুদৃঢ় বক্তব্য নিরলসভাবে গোটা জাতিকে সাধ্যমত লাগাতার জানিয়ে বুঝিয়ে চলেছেন। এটা তো ঠিক যে, সমষ্টিগত কিংবা জাতিগত ভুল ভাঙ্গানো সহজ কাজ নয় এবং এও ঠিক যে, যে কোনো সত্য বিষয় সহজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়না, যায়নি। এসব বিষয় মাথায় রেখেই সিডিএলজি লাগাতার বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন চালিয়ে আসছে। বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার স্থাপন, কার্যকর ও প্রাতিষ্ঠানিক না হওয়া পর্যšত সিডিএলজি’র এই বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন, সংগ্রাম অবশ্যই চলতে থাকবে। ফলে, আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস, স্বনির্ভর গ্রাম সরকার, পল্ল¬ী পরিষদ, গ্রাম সভা, গ্রাম পরিষদ, গ্রাম সরকার ও ওয়ার্ড সভার মত উপজেলাও একটা মিথ ও অপ্রয়োজনীয় ইউনিট হিসেবে একদিন না একদিন অবশ্যই প্রমাণিত হবে; এবং তথাকথিত ‘গ্রাম সরকার’র মত উপজেলার প্রতিও দেশবাসী ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের প্রবল মোহ ভঙ্গ হবে; আর সেজন্য, ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারী থেকে পরিচালিত দেশের সার্বিক গণতন্ত্রায়নের ও গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠার বিরতিহীন বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন ও তার অপরিসীম গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে, এই ১৩ জানুয়ারীকেই “স্থানীয় সরকার দিবস” হিসেবে ঘোষণা ও পালন করার জন্য সিডিএলজি, এমপো বাস্তবায়ন ফোরাম ও বাপসনিউজ জোর দাবী জানিয়ে আসছে। আমরা আশা করি সরকার তা বিশেষ বিবেচনায় নিয়ে তার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।
প্রাসঙ্গিকভাবে দুইটি বিষয় পাঠক-পাঠিকা সমাজের অবগতির জন্য স্পষ্ট করা দরকার বলে মনে হয়; তার একটি হল, “সিটি কর্পোরেশন” শব্দবন্ধটি নিয়ে; অনেকে ভুলবশত “সিটি” শব্দটির বাংলা “মহানগর” বলে থাকেন, লিখে থাকেন যেমন ঢাকা মহানগর, চট্রগ্রাম মহানগর, রাজশাহী মহানগর ইত্যাদি; গণমাধ্যম, রাজনৈতিক দলগুলো, স্থানীয় প্রতিনিধিগণ, আইনপ্রণেতাগণ ও নীতিপ্রণেতাগণও তাই বলে-কয়ে চলেছেন। মূলত “নগর” শব্দটির ইংরেজী অনুবাদ হবে “সিটি” কিংবা “সিটি” শব্দটির  বাংলা অনুবাদ হবে “নগর”; “মহানগর” হল কীভাবে? তা তো মাথায় আসেনা। এবং সবাই জানে যে, “কর্পোরেশন” শব্দটি সাধারণত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামের সঙ্গে ব্যবহার হয়ে থাকে, এবং এই “কর্পোরেশন” শব্দটি বললে বা শুনলে মানুষের মানসপটে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কথাই ভেসে ওঠে, এবং মুনাফা, লাভালাভ কেন্দ্রিক কর্মকান্ডের কথা চলে আসে; প্রশ্ন হল, স্থানীয় সরকার কি মুনাফামুখী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান? তা তো নয়; তাইলে “কর্পোরেশন” শব্দটি স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের নাম হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে কেন? এ কি “ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি” তুল্য নাম? এই দুইটি বিষয় বিবেচনায় এনে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখায় জনাব আবু তালেব কেবল “নগর” আর “নগর সরকার” শব্দবন্ধদ্বয় ব্যবহার করেছেন। তাই তো আমরা সবসময় বলে আসছি যে, গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা অনুযায়ী কল্যাণমূলক, সেবামূলক ও উন্নয়নমূলক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে ভুল নামকরণ “মহানগর” নামটি থেকে আর মুনাফার গন্ধ যুক্ত নামকরণ “কর্পোরেশন” নামটি থেকে অবিলম্বে মুক্ত করতে হবে; আমরা আশা করি এই ধরনের বড় ভুল আর গোজামিল থেকে সরকারসহ সবাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দায় স্বীকার করেই বের হয়ে আসবেন। অপরটি হল, সরকারসহ অনেকেই ভুল ধারণা বশত শুধু সিটি কর্পোরেশনগুলোকে আরবান ইউনিট মনে করে থাকে; এই ভুল ধারণাটি ভাঙ্গতে ও প্রকৃত বিষয় তুলে ধরতে এই প্রতিবেদনে ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’ অনুযায়ী নগর, নগরীয় ইউনিট ও নগরীয় এলাকা বলতে সিটি কর্পোরেশনগুলোর পাশাপাশি দেশের সকল পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডগুলোকেও বুঝানো হয়েছে। প্র্রকৃত অর্থে, নগর ও নগরায়ন বোঝেনা, গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার বোঝেনা এমন সব ব্যক্তি ও সরকারী কর্মকর্তাগণ (বিশেষত স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, নগর উন্নয়ন অধিদপ্তর, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, একনেক, নিকার, মন্ত্রিপরিষদ, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, কৃষি মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়, সংসদ, বিচার ও রাষ্ট্রপতির সচিবালয় ও নির্বাচন কমিশনের সচিবালয়ের কর্মকর্তাগণ) এর কারণে নগরীয় এলাকায় অবস্থিত স্থানীয় প্রশাসনিক ইউনিটগুলোকে বিভিন্ন নীতি, আইন ও বিধিতে বিভিন্ন নাম দিয়ে একটা বিভ্রান্তিকর অবস্থায় রাখা হয়েছে; একই আইনে গ্রামীণ এলাকার স্থানীয় প্রশাসনিক ইউনিট “ইউনিয়ন” নামকরণের মত একই আইনে নগরীয় এলাকার স্থানীয় ইউনিটগুলিও শুধু “নগর” নামে পরিচিত হতে পারতো, হতে পারে, এবং ইউনিয়ন ও নগরে যথাক্রমে ইউনিয়ন সরকার ও নগর সরকার গঠিত হতে পারত, হতে পারে। ইউনিয়নগুলির মধ্যে আয়তন, জন সংখ্যা, রাজস্ব আয়-ব্যয় ও গুরুত্বে যেমন পার্থক্য রয়েছে, ঠিক তেমনি নগরগুলোর মধ্যেও আয়তন, জনসংখ্যা, রাজস্ব আয়-ব্যয় ও গুরুত্বে পার্থক্য রয়েছে; যদি গ্রামীণ এলাকায় “ইউনিয়ন” নামকরণে অসুবিধা না থাকে, নগরীয় এলাকায় এক ধরনের নাম “নগর” হতে অসুবিধা কোথায়? সেই বিষয়টি একেবারেই বোধগম্য নয়। আবার, ইউনিয়নের জন্য ‘ইউনিয়ন সরকার’ গঠন করার বিষয়টি গুরুত্ব না দিয়ে ইউনিয়নের মধ্যে অপ্রয়োজনীয় ‘ওয়ার্ড সভা’ গঠনের আইন রয়েছে, এবং নগরগুলির জন্য ‘নগর সরকার’ গঠন করার বিষয়টি গুরুত্ব না দিয়ে প্রতিটি নগরীয় ওয়ার্ডে অপ্রয়োজনীয় ‘ওয়ার্ড কমিটি’ গঠন করার আইনও রয়েছে; এও এক ধরনের পাগলামি ছাড়া অন্য কিছু নয়। সে যাই হোক, বাংলাদেশ এখন আর শুধু গ্রামীণ দেশ নয়, কেবল কৃষিজ সমাজ নয়; বিদ্যমান বাস্তবতায় এখনকার বাংলাদেশ হচ্ছে গ্রামীণ-নগরীয় দেশ, গ্রামীণ-নগরীয় সমাজ, অর্থাৎ একটি মিশ্র সমাজ; গ্রামীণ বাংলাদেশ আর গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ এক বিষয় নয়; এই দু’টোর সম্ভাবনা, সমস্যা, উন্নয়ন পরিকল্পনা, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এক ধরনের নয়; কৃষিজ সমাজ আর গ্রামীণ-নগরীয় সমাজের ধ্যান-ধারণা ও জীবনাচরণ এক নয়; তাই এই দু’টোর প্রশাসনিক কাঠামো ও তার কার্যাবলীও এক ধরনের হওয়া উচিত নয়; দুঃখজনক বিষয় হল, অন্যান্য পঞ্চ বার্ষিক পরিকল্পনার মত ৭ম পঞ্চ বার্ষিক (২০১৬-২০২০) পরিকল্পনার চূড়ান্ত খসড়ায়ও তার ইঙ্গিত, স্বীকৃতি ও প্রস্তুতিমূলক বিষয় একদম নেই বললে চলে। রাজনৈতিক দলসহ মিডিয়াও এই বিষয়টি বুঝতে পারছেনা বলে প্রতীয়মান হয়। জনাব আবু তালেব বাংলাদেশের স্ট্যাটাসগত ও গুণগত এই বিরাট পরিবর্তনের কথা সর্বপ্রথম ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারী ঢাকায় আয়োজিত এক জাতীয় সেমিনারে তুলে ধরেন; সেই থেকে অনেক সময় পার হয়েছে; নতুন কোনও কিছু বুঝে ওঠতে সময় লাগতেই পারে; কিন্তু এত বেশী সময় লাগাটা একদম মেনে নেয়া যায়না। এই বিষয়টি যত দ্রুত সম্ভব মিডিয়া, নীতিপ্রণেতাগণ, আইনপ্রণেতাগণ ও গোটা সমাজকে বুঝতে হবে, এবং সরকার কর্তৃক বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রামীণ-নগরীয় দেশ হিসেবে ঘোষণা করতে হবে; গ্রামীণ সমাজ তথা কৃষিজ সমাজ থেকে গ্রামীণ-নগরীয় সমাজের ধ্যান-ধারণায় ও জীবনাচরণে অভিযোজন প্রক্রিয়া সচেতনভাবে সম্পন্ন করতে হবে, তার ভিত্তিতে উন্নয়ন পরিকল্পনা, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য প্রণীত, গৃহীত ও বাস্তবায়িত হতে হবে, এবং তারই ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় সরকার ও স্থানীয় সরকারের প্রশাসনিক কাঠামো, ক্ষমতা ও কার্যাবলী ঠিকঠাক করতে হবে। এই তো গেল একটা দিক; অন্য দিক হল দ্রুত নগরায়নের ফলে বিদ্যমান গ্রামীণ-নগরীয় দেশ থেকে বাংলাদেশ একটি পরিপূর্ণ নগরীয় দেশ হবার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে; একটি গ্রামীণ দেশ, কৃষজ সমাজ থেকে একটি পরিপূর্ণ নগরীয় দেশ, নগরীয় সমাজ হবার পথে গ্রামীণ-নগরীয় দেশ, গ্রামীণ-নগরীয় সমাজ হচ্ছে একটা মধ্যবর্তী পর্যায়; তবে এর স্থায়িত্ব কালও কম সময় নয়; তা মাথায় রেখেই পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ এর সমস্যা ও তার সম্ভাব্য সমাধানসূত্র বাস্তবায়নের জন্য সামগ্রিকভাবে মানসিক ও শিক্ষাগত প্রস্তুতিও এখন থেকে নিতে হবে। এক হিসাব অনুযায়ী দ্রুত নগরায়নের ফলে ২০২০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের ৫০% এলাকা হয়ে যাবে নগরীয় এলাকা এবং ২০৫০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের ১০০% এলাকা হয়ে যাবে নগরীয় এলাকা; অন্যভাবে বলা যায়, গ্রামীণ ইউনিটগুলি যেমন ইউনিয়নগুলি বিলুপ্ত হয়ে যাবে; তাতে কি হবে? তাতে গোটাদেশ নগরীয় ইউনিটে বিভক্ত হয়ে পড়বে। ফলে আজকের যে গ্রাম কিংবা আগের যে সনাতন গ্রাম তা মূলত জাদুঘরে ও বই-পুস্তকে ঠাঁই পাবে; বাস্তবে সেই গ্রামের চিহ্ন কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবেনা। এই বিষয়টি আরেকভাবে অনুধাবন করা যেতে পারে, বর্তমানে প্রায় ৩৫% জনগোষ্ঠী নগরীয় এলাকায় বসবাস করে, ২০২০ সালের মধ্যে প্রায় ৫০% জনগোষ্ঠী নগরীয় এলাকায় বসবাস করবে এবং ২০৫০ সালের মধ্যে ১০০% জনগোষ্ঠী নগরবাসী হয়ে যাবে। চলমান এই নগরায়ন প্রক্রিয়ায় একদিকে গ্রামীণ কৃষি পেশাতে কর্মসংস্থান বিপুলভাবে কমছে, কমতে থাকবে, এবং অন্যদিকে অন্যসব নতুন নতুন অকৃষি পেশাতে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে, হতে থাকবে। তার আলামত প্রতিনিয়ত দেখা যাচ্ছে, বুঝা যাচ্ছে। সুতরাং, দৃঢ়তার সঙ্গে বলা যায় যে, ভবিষ্যতের বাংলাদেশ মানে পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ; তাই গ্রামীণ বাংলাদেশ থেকে বিদ্যমান গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশও চিরকাল গ্রামীণ-নগরীয় দেশ থাকবেনা; এটি একটি মধ্যবর্তী পর্যায়; এই মধ্যবর্তী পর্যায় থেকে দ্রুত নগরায়নের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত পর্যায় হচ্ছে পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ, নগরীয় সমাজ, নগরীয় সভ্যতা; বাংলাদেশ খুব দ্রুত তালে সেদিকেই এগিয়ে চলেছে। এই বিষয়টি বিশ্বাসে রেখে, তারই ভিত্তিতে একটি পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত নগরীয় বাংলাদেশ, নগরীয় প্রশাসনিক ইউনিট ও তার জন্য গতিশীল ‘নগর সরকারের রূপরেখা’ ও তা স্থাপন সম্পর্কিত সুনির্দিষ্ট সুস্পষ্ট প্রস্তাব সর্বপ্রথম ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারীতে ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’য় উপস্থাপিত করা হয়েছে; এটি একটি সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা বিধায় তখন অনেকেই তা বুঝে উঠতে পারেনি, দীর্ঘ সময় পার হওয়ার পরও এখনও অনেকে তা বুঝে উঠতে পারছেনা বলে প্রতীয়মান হয়; বিশেষত দুঃখজনক বিষয় হল, ১৯৯৭ সাল থেকে সিডিএলজি’র এই বুদ্ধিবৃত্তিক ক্যাম্পেইন চলমান ও দৃশ্যমান থাকা সত্ত্বেও স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, নগর উন্নয়ন অধিদপ্তর, পল্লী উন্নয়ন বোর্ড, পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, কৃষি মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা কমিশন, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ, একনেক, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ, মন্ত্রীপরিষদ ও জাতীয় সংসদ তা পুরোপুরি বুঝতে অপারগ কিংবা বুঝতে চায়না বলে প্রতীয়মান হয়; এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণের সেকেলে চিন্তাভাবনা ও কর্মকা- জাতিকে অনেক অনেক পেছনে ফেলে রেখেছে; বাংলদেশকে পিছনে ফেলে রাখার সেই অদূরদর্শি ধারা পরিকল্পনা কমিশন কর্তৃক প্রণীত ৭ম পঞ্চ বার্ষিক (২০১৬-২০২০) পরিকল্পনার চূড়ান্ত খসড়ায়ও রয়েছে; আর যারা নগরীয় ইউনিটে মেয়র ও কাউন্সিলর হয়েছে কিংবা হতে চায় তারাও “পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত” নগর, নগরায়ন, নগরবাদ, নগরীয় কৃষি, নগরীয় সভ্যতা, নগরীয় কালচার, নগরীয় জীবনধারা ও নগর সরকারের রূপরেখা নিয়ে তেমন একটা চিন্তাভাবনা করে বলে প্রতীয়মান হয়না; সেই ১৯৯৭ সালে জনাব আবু তালেব “পরিকল্পিত” শব্দটির আগে “পরিবেশবান্ধব” শব্দটি জুড়িয়ে দিয়ে আগে “পরিবেশ” বিষয়টি সকলের সামনে নিয়ে আসেন-যার গুরুত্ব ও তাৎপর্য এখনও অনেকে বুঝেন না বলে বুঝা যায়; তবে “পরিবেশবান্ধব” শব্দটি আস্তে আস্তে হলেও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে; বুঝে হোক আর না বুঝে হোক লেখালেখিতে শব্দটি প্রায়োগিক গুরুত্ব পাচ্ছে। শুরুতে অনেকেই এই শব্দটির ব্যবহার বাঁকা চোখে দেখতেন, এ নিয়ে জনাব আবু তালেব কর্তৃক বাড়াবাড়ি বলে আলোচনা-সমালোচনা করতেন এবং এই শব্দ আর স্থানীয় সরকারের রূপরেখা-এ দু’য়ে সম্পর্ক কোথায় তা নিয়েও প্রশ্ন করতেন। এতো সত্য যে, ২০২০ ও ২০৫০ সালদ্বয়কে সামনে রেখে প্রতিটি নগর ভিত্তিক পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত উন্নয়ন ও সেবামূলক সার্ভিস পরিচালিত করার লক্ষ্যে নগরীয় প্রশাসনিক ইউনিটগুলো সাজানো ও তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির পরিকল্পনা ও কর্মসূচী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর নেই, তা স্পষ্টভাবে বুঝা যায়; এ এক মহা হতাশাজনক চিত্র; এর অবসান হওয়া খুবই জরুরি বৈকি। সেক্ষেত্রে আশার আলো হল, এটি নিয়ে সিডিএলজি, বাপসনিউজ, এমপো বাস্তবায়ন ফোরামসহ আরও অনেকে লাগাতার ক্যাম্পেইন চালিয়ে আসছে; ফলে একদিন না একদিন এই হতাশাজনক চিত্র একটি আলোকিত চিত্রে পরিণত হবে, হতে বাধ্য।
 সে যাই হোক, সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশের প্রয়োজন হচ্ছে একটি দুই স্তরবিশিষ্ট স্থানীয় সরকার পদ্ধতি; আর কেন্দ্রীয় সরকারসহ বাংলাদেশের প্রয়োজন হচ্ছে একটি তিন স্তরবিশিষ্ট সরকার পদ্ধতি। একটি কার্যকর গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হলে একটি দুই স্তরবিশিষ্ট স্থানীয় সরকার কাঠামো স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠা করার দিকে যেতে হবে; দুইয়ের চেয়ে বেশী স্তরবিশিষ্ট স্থানীয় সরকার কাঠামো থাকলে তাতে মধ্যবর্তী ইউনিট থাকবে, এখন যেমন উপজেলা রয়েছে; এই অপ্রয়োজনীয়, দায়দায়িত্বহীন, স্বশাসনহীন মধ্যবর্তী ইউনিটের অস্তিত্ব বজায় রাখাটা হচ্ছে, হবে কেবলই অপচয়মূলক ও অসৎউদ্দেশ্যমূলক; এই মধ্যবর্তী ইউনিট নিয়ে ইতোমধ্যে অনেক সময় ও অর্থ নষ্ট করা হয়েছে; আশাকরি, আর কাল বিলম্ব না ঘটিয়ে এই বিষয়টি নীতিপ্রণেতা ও আইনপ্রণেতাগণ যত দ্রুত সম্ভব বুঝার চেষ্টা করবেন এবং তার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। ভুল ধারণা বশত বাংলাদেশকে এখনও একটি গ্রামীণ দেশ (রুরাল কান্ট্রি) মনে করা হয়; কিন্তু বাংলাদেশ এখন আর শুধু গ্রামীণ দেশ নেই; এই ভুল ধারণার পরিবর্তে বিদ্যমান বাস্তবতায় বাংলাদেশকে একটি গ্রামীণ-নগরীয় (রুরাল-আরবান) দেশ হিসেবে ধরে নিয়ে এবং ২০২০ ও ২০৫০ সাল নাগাদ বাংলাদেশ ও বিশ্বময় পরিবর্তনশীল বিষয়গুলি বিবেচনায় নিয়ে ১৯৯৬ সালে স্থানীয় সরকার ও গণতন্ত্রায়ণ বিষয়ক গবেষক আবু তালেব স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ ও স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ প্রণয়ন করেন, এবং তিনি তা ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারী ঢাকায় জতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক জাতীয় সেমিনারের মাধ্যমে জনগণ ও বাংলাদেশ সরকারের বিবেচনার্থে উপস্থাপিত করেন; এটি গ্রামীণ বাংলাদেশ এর পরিবর্তে গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ এর জন্য গণতান্ত্রিক স্থানীয় প্রশাসনিক কাঠামো প্রতিষ্ঠার প্রথম উদ্যোগ, প্রথম প্রচেষ্টা; দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও সেবামূলক কর্মকা- ধাপে ধাপে (কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত) ধারাবাহিকতায় স্থিতিশীল গতিশীল প্রক্রিয়ায় পরিচালিত করার জন্য স্থানীয় সরকারের একটি স্তরবিন্যাসকরণ দেশের সূচনা লগ্ন থেকে ঠিক করার প্রয়োজন থাকলেও আজ অবধি এই কাজটি সচেতনভাবে সঠিকভাবে করার কোনো উদ্যোগ গৃহীত হয়নি, হচ্ছেনা; তা অবশ্যই দুঃখজনক ঘটনা; সে যাই হোক, তিনি উক্ত স্তরবিন্যাসকরণদ্বয়ে মধ্যবর্তী ইউনিটগুলি, যেমন উপজেলা, ও অন্যান্য গ্রামীণ ইউনিটগুলি, যেমন ইউনিয়ন, কীভাবে আস্তে আস্তে বিলুপ্ত হয়ে যাবে তা রেখাচিত্রের মাধ্যমে সুস্পষ্টভাবে দেখিয়েছেন; এবং, ওই প্রস্তাবিত স্তরবিন্যাসকরণদ্বয়ে গোটা স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা কীভাবে একটি দুই স্তরবিশিষ্ট কাঠামো হয়ে ওঠবে তাও গ্রাফে সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরেছেন; তাতে তিনি সরকারের আকার আয়তন আস্তে আস্তে ছোট করার ব্যবস্থা করেছেন, ফলে কেন্দ্রীয় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সিস্টেম কস্ট কমে গিয়ে উন্নয়নমূলক ও সেবামূলক ব্যয় বৃদ্ধি পাবে। উভয় কাঠামোতে ২০৫০ সালে কিংবা তার আগেই একটি পরিপূর্ণ ‘নগরীয় (আরবান) বাংলাদেশ’ গঠনের স্বপ্ন ও তার বাস্তবরূপ তুলে ধরা হয়েছে। বিদ্যমান ‘গ্রামীণ-নগরীয় (রুরাল-আরবান) বাংলাদেশ’ কি প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে আস্তে আস্তে পরিপূর্ণ ‘নগরীয় (আরবান) বাংলাদেশ’ হয়ে ওঠবে এবং পরিপূর্ণ ‘নগরীয় বাংলাদেশ’ এ কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে স্থানীয় সরকার তথা শুধু নগরীয় স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ কি রূপ নিবে, নিতে পারে, তা ওই স্তরীয় কাঠামোগত রেখাচিত্রে সুস্পষ্টভাবে দৃশ্যমান ও বোধগম্য করা হয়েছে; এ এক মহা দূরদৃষ্টিসম্পন্ন কাজ; এ এক মহা বিস্ময়কর ব্যাপার, বিষয়। যে কেউ এই কাজের গভীরতা ও তাৎপর্য বুঝতে পারলে শ্রদ্ধায় ভালবাসায় নত হয়ে যাবারই কথা; আমাদের প্রবল বিশ্বাস হচ্ছে, জনাব আবু তালেব ২০৫০ সালের মধ্যে “নগরীয় বাংলাদেশ” এর স্বপ্নদ্রষ্টা ও ক্যাম্পেইনার হিসেবে, আগে পরিবেশ এই বিষয়টি মাথায় রেখে “পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত নগর ও নগরায়ন” শব্দবন্ধের ইনকুবেটার ও ক্যম্পেইনার হিসেবে, ২০২০ সালের মধ্যে একটি ‘উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ’ নির্মাণের স্বপ্নদ্রষ্টা ও তার বাস্তবায়নমূলক পরিকল্পনার প্রণেতা ও ক্যাম্পেইনার হিসেবে, দেশের সকল ক্ষেত্রে সকল উন্নয়ন পরিকল্পনা ২০২০ ও ২০৫০ সাল কেন্দ্রিক স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া মান্য করানোর প্রবক্তা ও ক্যাম্পেইনার হিসেবে, নারীর ৫০% প্রতিনিধিত্বের প্রচলিত ত্রুটিপূর্ণ ধারণার পরিবর্তে নারীপুরুষের জন্য এমপো তথা একশো একশো (১০০-১০০) প্রতিনিধিত্ব ফর্মুলা ও বাংলাদেশ প্রেক্ষিত বিবেচনায় প্রণীত ১১ দফার ইনকুবেটার ও ক্যাম্পেইনার হিসেবে, গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’র প্রণেতা হিসেবে, গণতান্ত্রিক নির্বাচনের রূপরেখার প্রণেতা হিসেবে, গণতান্ত্রিক আইনসভার রূপরেখার প্রণেতা হিসেবে, গণতন্ত্রায়ন বিষয়ক অনেকগুলি শ্লোগানের রচয়িতা হিসাবে, গ্রামীণ বাংলাদেশ এর পরিবর্তে বর্তমান বাস্তবতায় একটি “গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ” এর ধারণা তুলে ধরার জন্য ইতিহাসের পাতায় চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। এখানে আরও জানিয়ে রাখা উচিত হবে যে, তার এই প্রশাসনিক স্তরীয় কাঠামোগত রূপরেখা হচ্ছে ২০২০ সাল ও ২০৫০ সাল ভিত্তিক কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য প্রথম প্রস্তাবিত পরিকল্পনা, প্রথম দৃষ্টান্ত; যেটি দেশের অন্যসব ক্ষেত্রের জন্য ২০২০ সাল ও ২০৫০ সাল ভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন, গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সবাইকে প্রতিনিয়ত অনুপ্রাণিত করে আসছে। প্রসঙ্গত বলা দরকার যে, তিনি এই রূপরেখায় ২০২০ সালের মধ্যে একটি ‘উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ’ (যেটি ‘গণস্বপ্ন ২০২০’ নামে বহুল পরিচিত) নির্মাণ করার যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন ও তার বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ার পরিকল্পনা হাজির করেছেন তা অনেকে পরিপূর্ণভাবে না বুঝে কিংবা বুঝে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে ‘উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ‘ ও ‘উন্নত বাংলাদেশ’ এর মধ্যেকার বিশাল তফাতকে গুলিয়ে ফেলে বক্তব্য হাজির করার অপচেষ্টা করছেন বলে প্রতীয়মান হয়; ঠিক যেমন অনেকে না বুঝে এক সময় ‘জাতীয় সরকার/কেন্দ্রীয় সরকার’ আর ‘জাতীয় একতা সরকার’ বিষয়দ্বয়ের মধ্যেকার তফাত গুলিয়ে ফেলতেন; ওই তফাতের বিষয়টি গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখায় সর্বপ্রথম সুস্পষ্টভাবে হাজির করার পর তা গুলিয়ে ফেলার বিষয়টি প্রায় বন্ধ হয়েছে বলে মনে হয়। এখন একইভাবে ‘উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ’ আর ‘উন্নত বাংলাদেশ’ এর মধ্যেকার ফারাক গুলিয়ে ফেলার বিষয়টি বন্ধ হলে ভাল হয়; এটি যাঁদের উদ্দেশ্যে বলা হল, আশা করি, তাঁরা তা বুঝবেন এবং নিজেদেরকে সংশোধন করবেন। সে যাই হোক, বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগসহ অনেকেই ২০২০ সালের কথা বলছে, ২০২১ সালের কথা বলছে, ২০৩০ সালের কথা বলছে, ২০৪০ সালের কথা বলছে, ২০৪১ সালের কথা বলছে, ২০৫০ সালের কথা একটু আধটু উচ্চারণ করছে, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার কথা বলছে এবং সর্বোপরি এডহক ভিত্তিক পরিচালিত কর্মকা-ের পরিবর্তে স্বপ্ন (ভিশন) ভিত্তিক কর্মকা- পরিচালনার কথা বলছে; মনে রাখা দরকার যে, তার উৎস, অনুপ্রেরণা, পথপ্রদর্শক, অনুঘটক হচ্ছে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা, ওই রূপরেখায় উপস্থাপিত স্তরবিন্যাসকরণদ্বয় অর্থাৎ জনাব আবু তালেব, যার লাগাতার ক্যাম্পেইন তিনি নিউ ইয়র্ক থেকে সূচনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে সফলভাবে পরিচালিত করেন। তবে জনাব আবু তালেব এর আহবান ও পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৯৯৭ সাল থেকে যদি ২০২০ ও ২০৫০ সাল ভিত্তিক দেশের সকল স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন, গ্রহণ ও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া শুরু হত, যদি ‘গণস্বপ্ন ২০২০’ ভিত্তিক ২৫টি ক্ষেত্রে ২৫টি গণতস্ত্রায়ন কর্মসূচী নিয়ে ‘উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ’ নির্মাণ প্রক্রিয়ার বাস্তবায়ন শুরু হত, যদি ‘গ্রামীণ বাংলাদেশ’ এর পরিবর্তে ‘গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ’ এর ধারণা সবাই বুঝত ও গ্রহণ করত, যদি ‘গণস্বপ্ন ২০৫০’ ভিত্তিক পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত ‘নগরীয় (আরবান) বাংলাদেশ’ মুখী নির্মাণ প্রক্রিয়া প্রচেষ্টা সচেতনভাবে শুরু হত, যদি ১০০-১০০ প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতি তথা ‘ এমপো’ ও ১১ দফা অনুযায়ী বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া ধাপে ধাপে শুরু হত, যদি স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ অথবা স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ অনুযায়ী স্থানীয় সরকার কাঠামো বাস্তবায়ন শুরু হত, তাহলে আজ বাংলাদেশ আরো অনেক অনেক দূর সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকতে পারতো; কেন্দ্রীয় থেকে তৃণমূল তথা ইউনিয়ন ও নগর পর্যন্ত ধাপে ধাপে ক্ষমতাশীল দায়িত্বশীল দায়বদ্ধ গতিশীল সরকার কাঠামো দাঁড়িয়ে যেতে পারতো; সুষ্ঠু নির্বাচনী ব্যবস্থাসহ গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি ও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা গড়ে উঠতে পারতো। তবে বিলম্বিত হলেও স্বপ্ন ভিত্তিক কর্মকান্ডের প্রয়োজনীয়তা বোঝা ও কোনো কোনো বিষয়ে স্বপ্ন ভিত্তিক কর্মকান্ড শুরু হওয়াটা অবশ্যই প্রশংসনীয়; এতে বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা রয়েছে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই; তা সত্ত্বেও একে আমরা অবশ্যই স্বাগত জানাই। সে যাই হোক, বরাবরের মত এখনো জাতীয় নীতিনির্ধারকদের প্রতি আমাদের সবিনয় অনুরোধ হল, প্রস্তাবিত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ ও স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ আরও ভালভাবে জানুন এবং তা আরও গভীরভাবে বোঝার চেষ্টা করুন। আমরা তো সবসময় বলে আসছি যে, আগে স্থানীয় সরকারের একটি সমন্বিত স্তরবিন্যাসকরণ গ্রহণ করতে হবে, এবং সে অনুযায়ী গ্রামীণ-নগরীয় স্থানীয় সরকার হিসেবে সর্বোচ্চ ইউনিট (বিভাগীয় সরকার অথবা জেলা সরকার) ও সর্বনিম্ন ইউনিটদ্বয় (একদিকে গ্রামীণ স্থানীয় সরকার হিসেবে “ইউনিয়ন সরকার” ও অন্যদিকে নগরীয় স্থানীয় সরকার হিসেবে “নগর সরকার”) কার্যকর করতে হবে। স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট বিভাগ, না জেলা তা আজ অবধি আনুষ্ঠানিকভাবে নির্ধারিত করা হয়নি; ক্ষমতা ও দায়িত্ব বিভিন্ন স্তরে যথাযথভাবে বণ্টনের স্বার্থে এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি কেন ঠিক করা হয়নি সে প্রশ্ন রেখেই বলব সর্বোচ্চ ইউনিট কোন্টি তা অবশ্যই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ঠিক করতে হবে। বর্তমানে বিভাগ হচ্ছে কেন্দ্রীয় প্রশাসনিক কাঠামোয় মাঠ পর্যায়ে সর্বোচ্চ প্রশাসনিক ইউনিট; এই বিভাগ স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট হলে উপজেলার পাশাপাশি জেলাও হয়ে যাবে মধ্যবর্তী ইউনিট এবং জেলার ক্ষমতা ও দায়িত্ব মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে নির্ধারিত করতে হবে; বিদ্যমান ব্যবস্থায় বিভাগ বজায় থাকায় উপজেলার মত জেলাও মধ্যবর্তী প্রশাসনিক ইউনিট; ফলে জেলার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে কতটুকু থাকবে তা বুঝতে হবে; বর্তমান কাঠামোয় মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে জেলার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা উপজেলার মতই হবে, হতে বাধ্য; মনে রাখা দরকার যে, বহু স্তরীয় স্থানীয় সরকার কাঠামোয় মধ্যবর্তী ইউনিট থাকলে তা সাধারণত বেশ গুরুত্বহীন হয়ে থাকে। এই বিষয়টি সেকেলে মনোভাবগত কারণে অনেকেই বুঝতে পারছেন না বলে প্রতীয়মান হয়; এই অনেকেরাই “বিভাগ” বিষয়েও অন্ধ-বোবা সাজেন; অন্ধ হলে কি প্রলয় বন্ধ থাকে? বিভাগ বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত অবশ্যই নিতে হবে। মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে জেলা সম্পর্কিত বিষটি উদাহরণ দিয়েই দেখা যাক; পার্বত্য ৩ জেলা ছাড়া বাকি ৬১টি জেলায় ৬১ জন নিযুক্ত ‘নিধিরাম’ জেলা পরিষদ প্রশাসক রয়েছেন, যাদের সঙ্গে দায়দায়িত্ব পালনের কোনো সম্পর্ক নেই, যাদের সঙ্গে জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই, যাদের উপস্থিতি, কর্মতৎপরতা একদম টেরযোগ্য নয়; এর বড় কারণ হচ্ছে উপজেলার মত জেলাও বিদ্যমান ব্যবস্থায় গুরুত্বহীন, কামকাজহীন মধ্যবর্তী ইউনিট; এতে ক্ষমতা ও দায়িত্ব তথা কর্মকান্ড দৃশ্যমান নয়। কিন্তু এই ৬১ জন প্রশাসকের জন্য আরাম আয়েস ও সুযোগসুবিধার কোনো কমতি নেই; এটি হচ্ছে স্থানীয় সরকারের নামে সংকীর্ণ স্বার্থে সরকারী ক্ষমতার অপব্যবহার ও উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রয়োগ; ঠিক যেমন স্থানীয় সরকারের নামে কেবল ব্যক্তিগত ও দলগত স্বার্থে অবৈধ শাসক প্রেসিডেন্ট জিয়া ও অবৈধ শাসক প্রেসিডেন্ট এরশাদ যথাক্রমে গ্রাম সরকার ও উপজেলাকে নিয়ে করেছেন। তাতে তখনকার সময় ও পরিস্থিতিতে উভয় অবৈধ প্রেসিডেন্টদ্বয় ব্যক্তিগতভাবে ও দলগতভাবে লাভবান হয়েছেন; কিছু সুবিধাবাদী ক্ষমতালোভী নীতিহীন টাউট লোককে নতুন দল দু’টির জন্য হাতিয়ার হিসেবে পেয়েছেন, এবং ওইসব সুবিধাবাদী মানুষগুলোই ওই দু’টো দলের বর্তমানকার আসল কান্ডারি হিসেবে নিয়োজিত রয়েছে। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় ৬১টি জেলায় ৬১ জন প্রশাসক দ্বারা এই সরকার ও এই দল (আওয়ামী লীগ) এখন লাভবান হবার কোনও সম্ভাবনা নেই; কারণ এই দু’টো কাজের সময় ও পরিস্থিতি একদম এক রকম নয়। তা বর্তমান সরকারকে, আওয়ামী লীগকে অবশ্যই বুঝতে হবে; আশাকরি, বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সরকার ও আওয়ামী লীগ চিন্তাভাবনা করবে, এবং সেজন্য প্রয়োজনীয় উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবে। পাশাপাশি, প্রাসঙ্গিকভাবে জেলা সংক্রান্ত আরেকটি বিষয় নিয়ে কিছু কথা বলা উচিত হবে, তা হল সার্বিক বিবেচনায় একজন অসফল অর্থমন্ত্রী হিসেবে পরিচিত জনাব মুহিত কর্তৃক উপস্থাপিত জাতীয় বাজেটে বার বার কেন্দ্রীয় সরকারের তথাকথিত ‘জেলা বাজেট’ প্রসঙ্গ উত্থাপন; জেলা বাজেট হবার কথা জেলা সরকারের, কেন্দ্রীয় সরকারের নয়; প্রশ্ন হল, জেলা সরকার কোথায়? স্বাভাবিকভাবে মনে এই প্রশ্নও এসে যায় যে, কেন্দ্রীয় সরকার কি তাইলে বিভাগীয় বাজেট, উপজেলা বাজেট, নগরীয় বাজেট, ইউনিয়ন বাজেটও করবে? জেলা বাজেট বিষয়টি জাতীয় বাজেট বক্তৃতায়, দলিলে বার বার আসাটা শুধু অর্থমন্ত্রী ও অর্থ মন্ত্রণালয় নয়, মন্ত্রিপরিষদ ও জাতীয় সংসদের অপরিপক্কতারই পরিচয় বহর করে; সিপিডিসহ কয়েকটি এনজিও এবং কিছু ব্যক্তি স্বার্থগত কারণে এই বাজে বিষয়টিকে সমর্থন দিয়ে থাকে; প্রকৃত অর্থে স্থানীয় সরকার না বুঝলে, ধাপে ধাপে স্থানীয় সরকারের ক্ষমতা ও দায়িত্ব পালন সম্পর্কিত বিষয় জানা না থাকলে এমনটি-ই হয়! হবার কথা! জনাব আবু তালেব ১৯৯৬ সালে সর্বপ্রথম ‘জেলা সরকারের রূপরেখা’ প্রণয়ন করেন এবং সেসঙ্গে একটি শ্লোগানও প্রণয়ন করেছিলেন; শ্লোগানটি হল, ‘জেলায় জেলায় গণতন্ত্রায়ন, জেলার জনগণের ক্ষমতায়ন’; জনাব মুহিত জনাব আবু তালেবের সঙ্গে এক ফোনালাপে ‘জেলা সরকার’ নামকরণ ও ‘জেলা সরকারের রূপরেখা’ বিষয়ক প্রস্তাবনার প্রতি প্রবল আপত্তি জানিয়ে ছিলেন; অথচ এই মুহিত সাহেব পরবর্তীতে ‘জেলায় জেলায় গণতন্ত্রায়ন’ শ্লোগানের আদলে ‘জেলায় জেলায় সরকার’ শিরোনামে একটি বই প্রকাশ করেছিলেন; তাতে তিনি জনাব আবু তালেব ও তাঁর জেলা সরকারের রূপরেখা প্রসঙ্গ একটুও উল্লেখ করেননি; এই হল জনাব মুহিত কর্তৃক বুদ্ধিবৃত্তিক চুরির, ডাকাতির, অসততার একটি নজির মাত্র। আমরা দৃঢ় বিশ্বাস নিয়ে বলতে চাই যে, কোনো না কোনো একদিন অর্থমন্ত্রীর এই তথাকথিত ‘জেলা বাজেট’ বিষয় হারিয়ে যাবে; এই ভুলের জন্য অর্থমন্ত্রী, মন্ত্রিসভা ও জাতীয় সংসদকে দুঃখ প্রকাশ করতে হবে; সিপিডি’রও তোষামোদী মুখোশ উন্মোচিত হবে; আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, জনাব আবু তালেব কর্তৃক প্রস্তাবিত ‘জেলা সরকার’ ও ‘জেলা সরকারের রূপরেখা’ একদিন না একদিন বাস্তব প্রয়োজনে সামনে চলে আসবে; তাতে শয়তানিপনা না থাকলে জাতি বিশেষভাবে উপকৃত হবে; তবে, সিডিএলজির সমালোচনার মুখে কেন্দ্রীয় বাজেট ২০১৬-১৭ তে তথাকথিত ‘জেলা বাজেট’ বিষয় উবে গেলেও এই বাজেটে জেলা নিয়ে অন্য শয়তানিপনা প্রকাশ পেয়েছে; জনাব মুহিতের সেই শয়তানিপনা কি মন্ত্রীগণ ও সাংসদগণ বুঝতে পেরেছেন? তা তো বাজেট আলোচনায়-সমালোচনায় একদম বোঝা যায়নি। অনুরূপ আরেকটি চুরি-ডাকাতি কিংবা বুদ্ধিবৃত্তিক অসততার ঘটনা ‘বিভাগীয় সরকার’ ও বিভাগীয় সরকারের রূপরেখা’ নিয়ে ঘটিয়েছেন ‘কবিতা চোর’, ‘বৌ চোর’ ও ক্ষমতা দখলদার হিসেবে খ্যাত জেনারেল এরশাদ, তাঁর দল জাতীয় পার্টি ও তাঁর রাজনৈতিক ও শাসনিক সহযোগী জেএসডি; ১৯৯৭ সালের ১৩ জানুয়ারী ঢাকায় এক জাতীয় সেমিনারে জনাব আবু তালেব গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখায় বিভাগ এর বিলুপ্তি কিংবা বিভাগের গণতন্ত্রায়ন এই নীতিগত অবস্থান তুলে ধরেন, এবং বিভাগ থাকলে বিভাগগুলির গণতন্ত্রায়নের লক্ষ্যে ‘বিভাগীয় সরকারের রূপরেখা’ উপস্থাপিত করেন; তখন রাষ্ট্রপতি এরশাদ কারাগারে ছিলেন এবং তাঁর দল ও তাঁর শাসনিক মিত্র জেএসডির বিভাগ নিয়ে কিংবা বিভাগীয় সরকার নিয়ে কোনো ধরনের বক্তব্য, কর্মসূচি ছিলনা; জনাব আবু তালেব এর প্রস্তাব অনুযায়ী বিভাগের বিলুপ্তি কিংবা বিভাগীয় সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন যখন বুদ্ধিবৃত্তিক গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছিল, ঠিক তখনই, এরশাদ সাহেব কারাগার থেকে বের হবার কয়েক বছর পর বিভাগকে ‘প্রদেশ’ নামকরণ ও তাতে বিভাগীয় সরকারের রূপরেখার আদলে অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে ‘প্রাদেশিক সরকার’ করার দাবী করেন; এর কিছুদিন পর এরশাদের অনুসরণে জনাব আ.স.ম. আবদুর রব, জনাব সিরাজুল আলম খান ও জেএসডি অনুরূপ বক্তব্য, দাবী উপস্থাপিত করেন, অথচ উভয় দল কোথাও কখনও জনাব আবু তালেব কিংবা গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখার কথা বলেননি, বলেননা; একে এক কথায় বলা যায় চরম রাজনৈতিক অসততা ও বুদ্ধিবৃত্তিক চুরি কিংবা ডাকাতি। এইসঙ্গে প্রাসঙ্গিকভাবে আরও একটি বিষয় তুলে ধরা দরকার তা হল, ১৯৯৭ সালে ১৩ জানুয়ারীতে এই রূপরেখায় পার্বত্য চট্রগ্রাম সমস্যার রজনৈতিক সমাধানের জন্য সুনির্দিষ্টভাবে ‘পার্বত্য বিভাগ’ নামে একটি নতুন বিভাগ গঠন করার প্রস্তাব করা হয়, এবং তাতে দেশের অন্যান্য বিভাগের মত, যেমন বরিশাল বিভাগে ‘বরিশাল বিভাগীয় সরকার’, পার্বত্য বিভাগে ‘পার্বত্য বিভাগীয় সরকার’ প্রতিষ্ঠার আহবান জানানো হয়, কারণ পার্বত্য চট্রগ্রামের বিষয়টিও অনেকাংশে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার বিষয়ক, স্থানীয় শাসনিক বিষয়ক একটি বিষয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক ১৯৯৭ সালেই শেষ মাসে তথা ডিসেম্বরই সম্পাদিত পার্বত্য শান্তি চুক্তিতে ‘আঞ্চলিক পরিষদ’ গঠন মূলত ‘বিভাগীয় সরকারের রূপরেখা’র আদলে কিছুটা বিকৃত রূপে করা হয়; কিন্তু এই চুক্তি প্রণয়নে যুক্ত ব্যক্তিবর্গের বুদ্ধিবৃত্তিক অসততার জন্য ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’, বিভাগীয় সরকারের রূপরেখা তথা জনাব আবু তালেব এর অবদানের কথা, প্রস্তাবের কথা কোথাও বলা হয়নি, হয়না; অথচ, জনাব আবু তালেব তাঁর প্রণীত গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখার কপি নিজ হাতে নিউ ইয়র্কে সরকার কর্তৃক গঠিত পার্বত্য চট্র্রগ্রাম বিষয়ক কমিটির আহ্বায়ক জনাব আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহকে প্রদান করেছেন এবং তাঁর প্রস্তাবিত পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক সমাধানমূলক প্রস্তাবনা বিশেষভাবে বিবেচনায় নিতে অনুরোধ জানিয়েছেন; সেই সময় এই প্রতিবেদকসহ যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক ও দপ্তর সম্পাদক যথাক্রমে জনাব আব্দুস ছালাম ও আতাউর রহমান শামীম উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তীতে এই দলেরই বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের পদগুলির মধ্যে একজন সাংগঠনিক সম্পাদক এই পার্বত্য এলাকার জন্য নিয়োগ দেয়া হয়; তার মাধ্যমে ‘পার্বত্য বিভাগ’ গঠনের নীতিগত রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত আওয়ামী লীগ গ্রহণ করেছে, কবুল করেছে, অথচ এই বিষয়টিও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কোথাও স্বীকার করেননি, করেননা; এও একটি চরম বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা নয় কি? অনুরূপ ঘটনা ঘটেছে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও; ৮ জন বুদ্ধিবৃত্তিক ডাকাতের ডাকাতির ফসল হচ্ছে বর্তমানকার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর; এই অপকর্ম সম্পর্কে দেশের কয়েকশত বিশিষ্ট ব্যক্তি জানেন; তিনি সরকারীভাবে মুক্তিসংগ্রামের স্মৃতি সংরক্ষণ করতে সোহরাওয়ার্দি উদ্যান কেন্দ্রিক আরও একটি যুগান্তকারী প্রস্তাবনা দিয়েছিলেন; দেখা যাক এ নিয়ে কি ঘটে, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা কি ঘটান! এসব কারণে বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা যে একটা বড় ধরনের অপরাধ, বড় ধরনের রোগ তা বাংলাদেশে মানুষকে বুঝানোর জন্য, জানানোর জন্য এবং তা বন্ধ করানোর জন্য একটি বুদ্ধিবৃত্তিক প্রবল আন্দোলন প্রয়োজন হয়ে পড়েছে বলে প্রতীয়মান হয়; প্রাসঙ্গিকভাবে আরো উল্লেখ করা সমীচীন হবে যে, জনাব আবু তালেব প্রতিটি রাজনৈতিক দলের গঠনতন্ত্রে অন্যান্য বিষয়ক সম্পাদক পদ যেমন রয়েছে, ঠিক তেমন ‘স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক’ পদ সৃষ্টি করতে আহবান জানিয়ে আসছেন; যাতে স্থানীয় সরকার বিষয়টি দলীয় কমিটিতে, দলীয় ভাবনায়, দলীয় কাজে বিশেষ গুরুত্ববহ হয়; প্রায় সব রাজনৈতিক দলেই শিল্প, বাণিজ্য, শিক্ষা, সংস্কৃতি, ধর্ম, ক্রীড়া, সমাজকল্যাণ, সাংগঠনিক, দপ্তর, প্রচার, প্রকাশনা, স্বাস্থ্য, কৃষি, ত্রাণ, শ্রম, জনশক্তি, বন, সমবায়, প্রযুক্তি, আন্তর্জাতিক, মহিলা ইত্যাদি বিষয়ক সম্পাদকীয় পদ রয়েছে, অথচ স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদকীয় পদ নেই; কেন? এতে এটা কি বোঝা যায়না, রাাজনৈতিক দলীয় কাঠামোতে স্থানীয় সরকার ও তার ভাবনাচিন্তা চরমভাবে গুরুত্বহীন রয়েছে। স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক পদ সৃষ্টিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগও আজ অবধি সাড়া দেয়নি; আমরা আশা করেছিলাম, জনাব আবু তালেবের আহ্বান অনুয়ায়ী, এই বছর ২০১৬ সালে ঢাকায় ২২ ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত জাতীয় সম্মেলনে ৬ হাজার ৭০ সদস্যবিশিষ্ট জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ‘স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক’ এর পদ সৃষ্টি করবেন, সেজন্য ড. আব্দুর রাজ্জাক নেতৃত্বাধীন গঠনতন্ত্র উপকমিটি ও জাতীয় নির্বাহী কমিটি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন, তার জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনাব আবু তালেব এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশে উদার হবেন, এবং বুদ্ধিবৃত্তিক অসততার দায় থেকে নিজ দলকে মুক্ত রাখতে প্রয়াস নেবেন; কিন্তু ৬ হাজার ৭০ সদস্যবিশিষ্ট একটি মহাঢাউস কাউন্সিলে কয়েকজন চাটুকারের অপ্রাসঙ্গিক চাটুকারিতা ছাড়া দলীয় ঘোষণাপত্র ও গঠনতন্ত্র নিয়ে আালোচনায়-সমালোচনায় অংশ নেয়া কি সম্ভব ছিল? গঠনতন্ত্র উপকমিটি ও জাতীয় নির্বাহী কমিটি কি স্থানীয় সরকার উন্নয়ন বিষয়ে আপডেট ও আন্তরিক ছিল? আমরা হ্যাঁ সূচক লক্ষণ তো একটুও দেখিনা। সে যাই হোক, জেলা স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট হলে বিভাগ অবশ্যই বিলুপ্ত হতে হবে; সেক্ষেত্রে উপজেলা শুধু মধ্যবর্তী ইউনিট হিসেবে থাকবে, এবং তা আস্তে আস্তে কিংবা দ্রুততার সঙ্গে বিলুপ্ত হতে থাকবে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট ও সর্বনিম্ন ইউনিটদ্বয় নির্ধারিত না হলে স্থানীয় সরকারের প্রতিটি ধাপে ক্ষমতা ও দায়িত্ব যথাযথভাবে ঠিকঠাক হবে-ই বা কেমন করে? সর্বোচ্চ ইউনিট এবং সর্বনিম্ন ইউনিটদ্বয়ে ক্ষমতা ও দায়িত্ব প্রদান করার পর মধ্যবর্তী ইউনিট যেমন উপজেলায় ক্ষমতা ও দায়িত্ব দেয়ার মত কিছু থাকলেই তো তা দেয়া যাবে। স্থানীয় সরকারের এসব জটিল ও কঠিন বিষয়গুলির একটি সুনির্দিষ্ট সমন্বিত সমাধান ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’য় রয়েছে। এতে সর্বপ্রথম বিভাগীয় সরকারের রূপরেখা, জেলা সরকারের রূপরেখা, উপজেলা সরকারের রূপরেখা, ইউনিয়ন সরকারের রূপরেখা ও নগর সরকারের রূপরেখা একসঙ্গে উপস্থাপিত করা হয়েছে; যাতে একটি সমন্বিত স্তরবিন্যাসকরণ (প্রশাসনিক কাঠামো) গৃহীত হলে তার প্রতিটি টায়ার এ প্রয়োজন মত সুনির্দিষ্ট সরকার কাঠামো বসানোর কাজটি সহজে করা সম্ভব হয়। এই রূপরেখায় ইউনিয়ন ও নগর এর মধ্যে অন্য কোনো ইউনিট গঠনের প্রয়োজনীয়তা, প্রচেষ্টা একদম সমর্থন করা হয়নি, তার পরিবর্তে সর্বনি¤œ ইউনিট হিসেবে সমস্ত মনোযোগ, কর্মপ্রচেষ্টা এক দিকে গ্রামীণ এলাকায় ইউনিয়ন কেন্দ্রীক ও অপর দিকে নগরীয় এলাকায় নগর কেন্দ্রিক করার সুস্পষ্ট সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব ও জোর তাগিদ দেয়া হয়েছে; এবং এর মাধ্যমে শুধু গ্রামীণ এলাকা কেন্দ্রীক স্থানীয় সরকারের সর্বনি¤œ ইউনিট বিষয়ক দীর্ঘদিনের ভুল ধারণা ধরিয়ে দিয়ে গ্রাম ও নগর কেন্দ্রীক একই স্তরে সর্বনি¤œ ইউনিটদ্বয় (ইউনিয়ন ও নগর এবং ইউনিয়ন সরকার ও নগর সরকার ) কেন্দ্রীক ধারণা উপস্থাপিত করা হয়। সম্প্রতি সরকার জেলায় ‘জেলা সরকারের রূপরেখা’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ না নিয়ে অত্যন্ত তড়িগড়ি করে অত্যন্ত ভঙ্গুর, সেকেলে জেলা পরিষদ অধ্যাদেশ জারী করেছে এবং তা অল্প কয়েকদিনের মাথায় মন্ত্রিপরিষদ সংশোধনও করেছে; তাতে স্থানীয় সরকার বিষয়ে ভাল মানসিক, শিক্ষাগত ও আইনগত প্রস্তুতি যে এই মন্ত্রিসভার নেই তা ভালভাবে ফুটে উঠেছে; এবং সব জেলায় গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠার তেমন কোনো প্রস্তুতি যে আওয়ামী লীগেরও নেই তা জোর দিয়েই বলা যায়; দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলিরও একই অবস্থা। আরও দুঃখজনক ঘটনা হল এই যে, এই সংক্রান্ত বিলও কোনো ধরনের আলোচনা-সমালোচনা ছাড়া স্বল্প সময়ে জাতীয় সংসদে পাস হয়ে যাওয়ার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হল যে সংসদ সদস্যগণেরও স্থানীয় সরকার বিষয়ে কোনো আইনগত, গবেষণামূলক ও শিক্ষামূলক প্রস্তুতি নেই; এতে আরও প্রমাণিত হল যে, শুধু হাত তোলা আর নামানোর মধ্য দিয়ে জাতীয় সাংসদগণ নিজ নিজ বিধানিক দায়িত্ব পালন করছেন! জাতীয় সংসদে পাসকৃত এই বিলটি অসম্পূর্ণ, ভঙ্গুর, সেকেলে ও গারবেজতুল্য; তাছাড়া, এই বিলটি হচ্ছে প্রত্যাখাত আয়ুবীয় মৌলিক গণতন্ত্র বাংলাদেশে র্চ্চা করতে নগ্ন প্রয়াস। এই ধরনের একটি কঠিন অথচ চরম খারাপ পরিস্থিতিতে আমরা জোর দাবী করছি যে, জনাব আবু তালেব প্রণীত জেলা সরকারের রূপরেখাটি গভীরভাবে বিবেচনায় নিয়ে পার্বত্য তিন জেলাসহ সকল জেলায় একরূপ জেলা সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা হোক; জেলা স্থানীয় সরকারের সর্বোচ্চ ইউনিট না মধ্যবর্তী ইউনিট তা ঠিক করা হোক; জেলা মধ্যবর্তী ইউনিট হলে এতে গ্রামীণ স্থানীয় সরকার হিসেবে জেলা সরকার প্রতিষ্ঠা করা হোক, আর জেলা সর্বোচ্চ ইউনিট হলে এতে গ্রামীণ-নগরীয় স্থানীয় সরকার হিসেবে জেলা সরকার স্থাপন করা হোক; তাতে ক্ষমতার পৃথকীকরণ করা হোক; এতে নারীর ১০০% প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে এমপো’র প্রয়োগ করা হোক; জেলা সরকারের বিধানিক পরিষদ হিসেবে “জেলা সংসদ” গঠন করা হোক; প্রতি জেলায় জেলা সাংসদ কতজন থাকবে তা সংশ্লিষ্ট জেলায় কত জনসংখ্যা রয়েছে তা বিবেচনায় নিয়ে জেলা নির্বাচনী ওয়ার্ড/এলাকা নির্ধারিত করা হোক; প্রতিটি জেলা নির্বাচনী ওয়ার্ডে/এলাকায় এমপো অনুযায়ী ১জন মহিলা জেলা সাংসদ ও ১জন পুরুষ জেলা সাংসদ প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত করা হোক; জেলা সরকারের প্রধান হিসেবে জেলা চেয়ারপারসন ও দুই জন ভাইস-চেয়ারপারসন (১ জন নারী ও ১ জন পুরুষ) এর পদ সৃষ্টি করা হোক এবং ওসব পদ প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত করা হোক; প্রসঙ্গক্রমে জানিয়ে রাখা উচিত হবে যে, এমপো অনুযায়ী বাংলাদেশ প্রেক্ষিতে প্রণীত ১১ দফায় ৯ম দফা অনুযায়ী স্থানীয় সরকার বিভাগ কর্তৃক প্রণীত খসড়া জেলা পরিষদ অধ্যাদেশে ১জন মহিলা ভাইস-চেয়ারপারসন ও ১জন পুরুষ ভাইস চেয়ারপারসন নির্বাচিত করতে একটি বিধান ছিল, তা কেন সংসদে পাসকৃত জেলা পরিষদ বিলে যুক্ত হলো না? এই প্রশ্ন থাকল। সে যাই হোক, জেলা ন্যায়পালের পদ সৃষ্টি করা হোক; জেলার সঙ্গে সিটি কর্পোরেশন ও অন্যান্য স্থানীয় ইউনিটের সম্পর্ক কিরূপ হবে তা ঠিক করা হোক; জেলা নির্বাচনী বোর্ড গঠিত হোক; তথাকথিত আয়ুবীয় কায়দায় পরিচালিত চলতি নির্বাচনী প্রক্রিয়া অবিলম্বে বন্ধ করা হোক, ইত্যাদি ইত্যাদি; এক কথায় বলব যে, জনাব আবু তালেব প্রণীত, প্রস্তাবিত গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখায় উপস্থাপিত জেলা সরকারের রূপরেখাটি পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা হোক, এবং “জেলায় জেলায় গণতন্ত্রায়ন, জেলার জনগণের ক্ষমতায়ন” এই শ্লোগানে প্রতিটি জেলাকে মুখরিত করা হোক, আন্দোলিত করা হোক।
 এই গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখায় গ্রামীণ বাংলাদেশ তথা শুধু কৃষি ভিত্তিক সমাজ, দেশ এর চিরায়ত ধারণার পরিবর্তে বিদ্যমান বাস্তবতার নিরিখে গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ তথা কৃষি ও অকৃষি পেশা ভিত্তিক সমাজ, দেশ এর ধারণা তুলে ধরা হয়েছে, যার মাধ্যমে এই প্রথম বাংলাদেশের স্ট্যাটাসগত ও গুণগত পরিবর্তন জনিত নতুন পরিচিতি উপস্থাপিত করা হয় এবং তা আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারীভাবে গ্রহণ করার দাবী জানানো হয়, তবে এই বিষয়টি তখন ও এখন অনেকেই বিশেষত স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, একনেক, অর্থ মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, মন্ত্রিপরিষদ, জাতীয় সংসদ, গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক দলগুলো বুঝতে পারছেনা বলে প্রতীয়মান হয়; প্রসঙ্গত এই বিষয়ে আরও জানানো উচিত হবে যে, গ্রামীণ বাংলাদেশ আর গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ এক বিষয় নয়, এক রূপ নয়, এক অবস্থা নয়; এ দু’টোর সমস্যা, সমাধান প্রক্রিয়া, গুরুত্ব ও তাৎপর্য এক রকম নয়; তাই, এই দু’টোর প্রশাসনিক কাঠামো, ক্ষমতা ও দায়িত্বও একরূপ হতে পারেনা; এই দু’টোতে মানুষের মনোগত, ভাবনাগত পার্থক্য থাকে, থাকবে। তাই এখন থেকে, গ্রামীণ বাংলাদেশ ভিত্তিক নয়, গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ ভিত্তিক সকল উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণীত, গৃহীত ও বাস্তবায়িত হতে হবে; এটি যত দ্রুত সম্ভব দেশের নীতিপ্রণেতাগণ, আইনপ্রণেতাগণ, বিধি-প্রবিধি প্রণেতাগণ ও মিডিয়াকে বুঝতে হবে এবং তার স্বীকৃতি ও পরিচিতি আনুষ্ঠানিকভাবে জানান দিতে হবে যে, বাংলাদেশ এখন হচ্ছে একটি গ্রামীণ-নগরীয় দেশ; বাংলাদেশ একদা গ্রামীণ তথা কৃষিজ দেশ ছিলো, এখন আর তা নেই, এবং একে অবশ্যই একটি গুণগত পরিবর্তন হিসেবে নিতে হবে; সেইসাথে এও মনে রাখতে হবে যে, এই স্ট্যাটাসগত ও গুণগত পরিবর্তন কয়েক দশক স্থায়ী থাকবে; তা রাতারাতি উবে যাবেনা; আবার এও মনে রাখতে হবে যে, এই সময়টাতেই একটি পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ এর জন্য গোটা জাতিকে মানসিক ও শিক্ষাগত প্রস্তুতি যথাসম্ভব সম্পন্ন করতে হবে, এবং এই সময়ের মধ্যেই একটি নগরীয় বাংলাদেশের মানে, গুরুত্ব ও তাৎপর্য যথাসম্ভব অনুধাবন করতে সচেষ্ট থাকতে হবে। সেসঙ্গে যাঁরা অকৃষি পেশায় যুক্ত রয়েছেন, সন্তানগণকে অকৃষি পেশায় নিযুক্ত করছেন, নগরীয় সুযোগ-সুবিধা বেশ উপভোগ করছেন, অথচ অন্যদেরকে কেবল কৃষি পেশায় রাখতে, গ্রামীণ সমাজ হিসেবে রাখতে ওকালতি করছেন, কান্নাকাটি করছেন, কুমতলব আঁটছেন, গলাবাজি, লেখাবাজি করছেন, তাঁদেরকে অবশ্যই চোখে চোখে রাখতে হবে, নজরদারিতে রাখতে হবে; এটি যেন আমরা ভুলে না যাই।
গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের এই রূপরেখায় কেন্দ্রীয় সরকারের জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকারের জন্য প্রস্তাবিত সংসদগুলো গঠনের ক্ষেত্রে এমপো ও ১১ দফা’র প্রয়োগ করা হয়েছে; এমপো ও ১১ দফা এই নিবন্ধের শেষে সংযুক্ত করা হয়েছে, তা বিশেষভাবে দেখুন ও জানুন; এমপো তথা নারীপুরুষের জন্য একশো একশো প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতি অনুযায়ী, উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ইউনিয়ন সংসদ ও নগর সংসদ গঠনের ক্ষেত্রে প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে ১ জন নারী সদস্য ও ১ জন পুরুষ সদস্য প্রতিনিধিত্ব করবে, জেলা সংসদ গঠনের ক্ষেত্রে প্রতিটি জেলা সংসদীয় নির্বাচনী এলাকা/ওয়ার্ড হতে একজন নারী সাংসদ ও একজন পুরুষ সাংসদ জেলা সংসদে প্রতিনিধিত্ব করবে এবং জাতীয় সংসদ গঠনের ক্ষেত্রে প্রতিটি সংসদীয় নির্বাচনী এলাকা থেকে ১ জন নারী সাংসদ ও ১ জন পুরুষ সাংসদ প্রতিনিধিত্ব করবেন; যদি তা হয়, তার মাধ্যমে বিধানিক সংসদ গঠনের ক্ষেত্রে নারীর জন্য অবমাননাকর “সংরক্ষিত আসন” শব্দবন্ধটি আর থাকবে না এবং তা এক কলংকিত অধ্যায় হিসেবে ইতিহাসে স্থান পাবে। প্রসঙ্গক্রমে মনে রাখতে বলব যে, এমপো শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, গোটা দুনিয়ার প্রতিটি দেশের প্রতিটি ধাপের/স্তরীয় সরকারের প্রতিটি বিধানিক সংসদ/পরিষদ গঠন করার জন্য বাস্তবায়নযোগ্য এক নতুন গণপ্রতিনিধিত্ব ফর্মুলা হিসেবে উপস্থাপিত করা হয়েছে; এর মাধ্যমে নারীর জন্য অবমাননাকর সংরক্ষিত পদ্ধতি, ৩৩% পদ্ধতি, ৫০% পদ্ধতি, প্রতি তিন ওয়ার্ডে একজন সংরক্ষিত নারী সদস্য পদ্ধতি, সংরক্ষিত ঘূর্ণায়মান নারী সদস্য পদ্ধতির সীমাবদ্ধতাগুলো, দুর্বলতাগুলো সংশোধিত হয়ে যাবে; নারী ও পুরুষ উভয় একই সাধারণ পদ্ধতিতে নির্বাচিত হবেন; নারী যে পদ্ধিতে নির্বাচিত হবেন সেই একই পদ্ধতিতে পুরুষও নির্বাচিত হবেন বলে নারীর জন্য প্রয়োগকৃত “সংরক্ষিত” শব্দটি ইতিহাসে স্থান পাবে; চমক সৃষ্টি করতে দু’একজন নারীকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় বসিয়ে দিয়ে বাহবামূলক কাজের পরিবর্তে নারীর জন্য পদ্ধতিগত ক্ষমতায়নের ওপর বিশেষ জোর দিতে হবে। তার জন্য বিশ্বজুড়ে বুদ্ধিবৃত্তিক ক্যাম্পেইন চলছে; এই এমপো তথা একশো একশো প্রতিনিধিত্ব ফর্মুলার সুদূরপ্রসারী গুরুত্ব ও তাৎপর্য হচ্ছে এক বিস্ময়কর ব্যাপার। নারী ও পুরুষ উভয়ের যে কেহ এই ফর্মুলার সুদূরপ্রসারী তাৎপর্য বুঝতে পারলে, অনুধাবন করতে পারলে নিজ থেকে নিজ নিজ শক্তিতে বলিয়ান হয়ে আন্দোলন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়বে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে; তাই দেশের প্রতিটি মানুষের প্রতি আমাদের বিশেষ অনুরোধ হল, একশো একশো প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতি তথা এমপো গভীরভাবে জানার বুঝার চেষ্টা করুন; নিজেকে একুশ শতকের এই মহান আন্দোলনের সঙ্গে, সংগ্রামের সঙ্গে যুক্ত করুন; তাতে আপনার ও গোটা মানব জাতির জন্য যারপর নাই এক মঙ্গলময় পরিবেশ বয়ে আনবে। (প্রিয় রিডার এই বিষয়টি আরও ভালভাবে জানতে চাইলে, বুঝতে চাইলে এই নিবন্ধের শেষে সংযুক্ত এমপো ও ১১ দফা বিশেষ মনোযোগ দিয়ে পড়–ন, দেখুন ও বিবেচনা করুন।)
সে যাই হোক, সুচতুর দলীয় ও নির্দলীয় নকলবাজগণ এই গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখার কিছু কিছু জনপ্রিয়, পছন্দনীয় বিষয় বারবার কাটাছেঁড়া ও বিকৃত করার অপচেষ্টা চালিয়ে আসছে, এবং এর কিছু কিছু বিষয় নকলবাজরা নিজেদের নামে চালিয়ে দেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে; কিন্তু নকলবাজগণ, বুদ্ধিবৃত্তিক চোর-ডাকাতগণ এই রূপরেখার সমন্বিত রূপের প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব একটুও খাটো করতে সক্ষম হননি, হবেনও না; বরং এই রূপরেখার কালজয়ী উপযোগিতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই, সরকারের প্রতি আমাদের বিনীত অনুরোধ হল, যদি গ্রামীণ বাংলাদেশ এর পরিবর্তে বিদ্যমান বাস্তবতায় গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ এর জন্য সত্যিকার অর্থে গণতন্ত্রের অন্যতম ভিত হিসেবে গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চান, যদি গ্রামীণ-নগরীয় বাংলাদেশ এর জন্য তিন প্রকারের স্থানীয় সরকার তথা গ্রামীণ স্থানীয় সরকার, নগরীয় স্থানীয় সরকার ও গ্রামীণ-নগরীয় স্থানীয় সরকার স্থাপিত হোক চান, যদি স্থানীয় পর্যায়ে ক্ষমতা ও দায়িত্ব ধাপে ধাপে পাশাপাশি অর্পিত ও পালিত হোক চান, যদি স্থানীয় সরকারের একটি সমন্বিত স্তরবিন্যাসকরণ (প্রশাসনিক কাঠামো) প্রতিষ্ঠিত ও কার্যকরী হোক চান, যদি দ্বি-স্তরবিশিষ্ট স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা স্থায়ী রূপ নিক চান, যদি স্থানীয় সরকারের প্রতিটি ধাপে নারীর শতভাগ (১০০%) প্রতিনিধিত্ব তথা এমপোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে চান, যদি স্থানীয় সরকারের প্রত্যেক ধাপে ক্ষমতার পৃথকীকরণ নীতি কার্যকর হোক চান, যদি স্থানীয় সরকারে বিধানিক পরিষদ (যেমন ইউনিয়ন সংসদ, নগর সংসদ) স্থাপিত হোক চান, যদি প্রতিটি স্থানীয় ইউনিটে ন্যায়পাল এর পদ চালু হোক চান, যদি ২০২০ সালের মধ্যে ২৫টি ক্ষেত্রে ২৫টি গণতন্ত্রায়ন কর্মসূচী বাস্তবায়নের মাধ্যমে একটি উন্নত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ নির্মাণ তথা “গণস্বপ্ন ২০২০” বাস্তবায়িত হোক চান, যদি কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সর্বস্তরীয় গণতন্ত্রায়ন দ্বারা জনগণের সর্বস্তরীয় ক্ষমতায়ন হোক চান, যদি ২০৫০ সাল কিংবা তার আগে পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত “নগরীয় বাংলাদেশ” তথা “গণস্বপ্ন ২০৫০” বাস্তবায়িত হোক চান, যদি পরিপূর্ণ নগরীয় বাংলাদেশ এর জন্য প্রস্তাবিত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১ অথবা স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২  বাস্তবরূপ নিক চান, যদি খাদ্য নিরাপত্তা বজায় রাখতে “নগরীয় কৃষি” ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হোক চান, যদি “নগর মানে কৃষি নয়” এর পরিবর্তে “কৃষিকে নিয়েই নগর” বিষয়টি প্রতিষ্ঠিত হোক চান, যদি দক্ষ সরকার গড়তে সরকারের আকার আয়তন আস্তে আস্তে ছোট হোক চান, তাইলে আর কালবিলম্ব না করে ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’র প্রতিটি বিষয় স্থাপন ও কার্যকর করার প্রকৃত উদ্যোগ আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করুন; প্রসঙ্গত এও বলব যে, তা যেন নকলবাজী না হয়, তা যেন বুদ্ধিবৃত্তিক চুরি, ডাকাতি না হয়, তা যেন জনাব আবু তালেব এর অবদান অস্বীকার করার অভিপ্রায়, প্রয়াস না হয়। যিঁনি স্বপ্ন দেখেন, যিঁনি স্বপ্ন দেখান, যিঁনি স্বপ্ন বাস্তবায়নের উপায় বাতলান, যিঁনি স্বপ্ন সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করেন, যিঁনি স্বপ্নের বিষয়ে মানুষকে অনুপ্রাণিত করেন, সর্বোপরি যিঁনি স্বপ্ন বিষয়ে লাগাতার বুদ্ধিবৃত্তিক আন্দোলন পরিচালিত করেন, তাঁকে অস্বীকারের সামান্যতম প্রয়াসও মহা অপরাধ, মহা অন্যায়, মহা কলংক হয়ে থাকবে; ঠিক যেমন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে ৮ (আট) জন অসৎ লোক তা করেছে এবং তার জন্য এদেরকে মহা অপরাধের দায়ে মহা কলংক বহে বেড়াতে হচ্ছে, হবে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠায় এই মহা কলংকজনক বিষয়টি সম্পর্কে জনাব সৈয়দ হাসান ইমাম, জনাব নাসির উদ্দিন ইউসুফ, জনাব ড. মুনতাসির মামুন, জনাব ডা. মুশতাক হোসেন, জনাব শাহরিয়ার কবির সহ দেশ ও বিদেশের কয়েক শত বিশিষ্ট ব্যক্তি বিশেষভাবে অবগত রয়েছেন, সেসব ব্যক্তিরকথা লিখতে গেলে অনেক অনেক পৃষ্ঠা কাগজ লাগবে বইকি; নিউ ইয়র্ক থেকে পরিচালিত মুক্তিসংগ্রাম বিষয়ক গবেষণা ও স্মৃতি সংরক্ষণ করতে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরসহ ৫টি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ ও ক্যাম্পেইন বিষয়ে প্রয়াত কবি সুফিয়া কামাল, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম, ভাষা সৈনিক এডভোকেট গাজিউল হক, অধ্যাপক কবির চৌধুরী, কবি শামসুর রাহমান, সাহিত্যিক শওকত ওসমান, কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদসহ আরও অনেকে ভালভাবে জানতেন। তথাপি এই কয়জন (৮ জন) লোক তাদের অসৎ কর্ম থেকে শুদ্ধতায় যায়নি, যাচ্ছেনা; এঁরা যেন দুই কান কাটা মানুষের মত রাস্তার মাঝখান দিয়ে চলার আচরণে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে; সে ধারা বজায় রেখে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়ে চরম বানোয়াট কাহিনী সম্প্রতি দৈনিক প্রথম আলোতে (১৫ ডিসেম্বর, ২০১৬ সংখ্যায়) দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বিবৃত করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে দেয়া বক্তব্যও চরম মিথ্যাচার; কারণ, ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় নির্বাচনী ইস্তেহারটিতে সরকারী উদ্যোগে “মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর” প্রতিষ্ঠা করা হবে বলে স্পষ্ট ঘোষণা ছিল; সেই সালেই প্রধানমন্ত্রীত্ব গ্রহণ করেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরটি কোথায় প্রতিষ্ঠিত হবে তা স্পষ্টভাবে জাতিকে জানিয়ে ছিলেন; কেন তা বাস্তবায়িত হয়নি সেই প্রশ্ন থাকলেও এ কথা দৃঢ়তায় বলা যায় যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নূরগংয়ীও অপকর্ম ভালভাবেই জানতেন। সেসব কারণেই, স্বভাবতই প্রশ্ন এসে যায় যে, মহান মুক্তিসংগ্রামের স্মৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনে নির্মিত প্রতিষ্ঠান গড়ার স্মৃতি নিয়ে, মানুষের আবেগ জড়িত বিষয় নিয়ে যাঁরা মিথ্যাচার করে বেড়ায়, কল্পিত কাহিনী শোনায় তাঁদের হাতে মুক্তিসংগ্রামের স্মৃতি সঠিকভাবে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন কতটুকু নিরাপদে আছে, থাকবে? তা নিয়ে ভাবা উচিত নয় কি? “মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর” শব্দবন্ধটি যাঁর কাছ থেকে জানা যায়, সরকারী ও বেসরকারী উদ্যোগে “মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর” প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব সম্পর্কে যাঁর কাছ থেকে জানা যায়, তাঁকে ও তাঁর ক্যাম্পেইনকে, উদ্যোগকে, প্রচেষ্টাকে অস্বীকার করে চরম মিথ্যাচার করার জন্য মন্ত্রী হিসেবে, সাংসদ হিসেবে নূরের এখনই পদত্যাগ করা উচিত, আর সংস্কৃতিবিষয়ক একজন কর্মী হিসেবে তাঁর লজ্জিত হওয়া উচিত। যাইহোক, তাই তো বলি, অনুরূপ ঘটনা যেন স্থানীয় সরকার স্থাপনের ক্ষেত্রে না ঘটে, সেটি সরকারসহ সবাই মনে রাখবেন বলে আশা করি। আরও মনে রাখা দরকার যে, জনাব আবু তালেব তদবির চালিয়ে নবেল প্রাইজ নেয়ার লোক নয়, প্রতিবাদ আর দাবিতে স্বাধীনতা পুরস্কার, একুশে পুরস্কার আদায় করার লোকও নয়; তিনি নিজস্ব মিডিয়ায় কিংবা তোয়াজী কায়দায় অন্য মিডিয়ায় আতœ-প্রচারণায় বিশ্বাসী মানুষও নন।
 পুনশ্চ: প্রতিবেদনটি পাঠক সমাজের ভালভাবে বোঝার সুবিধার্থে স্থানীয় সরকার ও গণতন্ত্রায়ন বিষয়ক গবেষক এবং সিডিএলজি’র নির্বাহী পরিচালক জনাব আবু তালেব প্রণীত ‘গণতান্ত্রিক স্থানীয় সরকারের রূপরেখা’ থেকে প্রস্তাবিত স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-১, স্থানীয় সরকারের স্তরবিন্যাসকরণ-২ এবং মিলেনিয়াম প্রোপোজাল পার্ট ওয়ান (এমপো) ও তার ভিত্তিতে বাংলাদেশ প্রেক্ষিত বিবেচনায় প্রণীত ১১ দফার কপি নিচে সংযুক্ত করা হয়েছে। তাতে, আমরা আশা করি, পাঠক-পাঠিকাগণ, গবেষকগণ, স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিগণ, নীতিপ্রণেতাগণ, আইনপ্রণেতাগণ, বিধিপ্রণেতাগণ, মন্ত্রীগণ, সরকারী কর্মকর্তাগণ, সাংবাদিকগণ, আইনজীবীগণ, প্রকৌশলীগণ, কৃষিবিদগণ ও দেশের সকল পর্যায়ের সকল জায়গার নীতিনির্ধারকগণ বিশেষভাবে উপকৃত হবেন। এসব বিষয়ে যে কোনো ধরনের প্রশ্ন থাকলে, তথ্যমূলক প্রশ্ন থাকলে, কোনো কিছু অস্পষ্ট বলে মনে হলে তার জন্য সঠিক উত্তর যোগাতে আমরা যথাসাধ্য সচেষ্ট থাকব বলে অঙ্গীকার থাকল। পাঠক-পাঠিকার বোঝার সুবিধার্থে আরও একটি বিষয় বলতে চাই তা হল, জনাব আবু তালেব এর গবেষণামূলক প্রস্তাবনাগুলোর উপস্থাপন পদ্ধতি হচ্ছে একজন দক্ষ চিত্রকরের মত; দক্ষ চিত্রকরের চিত্র দেখে তাঁর বিষয়, তাৎপর্য ও গভীরতা যেমন বুঝে নিতে হয়, ঠিক তেমনি তাঁর উপস্থাপিত রেখাচিত্র দেখে ও স্বল্প কথা পড়ে এর বিষয়গত সুদূরপ্রসারী তাৎপর্য ও গভীরতা পাঠক-পাঠিকাকে গভীর মনোযোগ দিয়ে বুঝতে হবে, অনুধাবন করতে হবে। তবে এর গুরুত্ব ও তাৎপর্য বুঝতে মিডিয়াসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রায় দুই দশক সময় লেগে যাচ্ছে দেখে খুবই দুঃখ লাগে বইকি?

মিলেনিয়াম প্রোপোজাল পার্ট ওয়ান (এমপো)

alt
একশো একশো প্রতিনিধিত্ব; একশো একশো ক্যাম্পেইন
alt

 বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে এমপো অনুযায়ী প্রণীত ১১ দফা
(১) জাতীয় সংসদের প্রতিটি নির্বাচনী এলাকা হতে একজন মহিলা জাতীয় সংসদ সদস্য ও একজন পুরুষ জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত করতে হবে; (২) জাতীয় সংসদে একজন মহিলা ডেপুটি স্পীকার ও একজন পুরুষ ডেপুটি স্পীকার নির্বাচিত করতে হবে; (৩) ইউনিয়নের প্রতি ওয়ার্ডে একজন মহিলা মেম্বার ও একজন পুরুষ মেম্বার নির্বাচিত করতে হবে; (৪) ইউনিয়নে একজন মহিলা ভাইস চেয়ারপার্সন ও একজন পুরুষ ভাইস চেয়ারপার্সন নির্বাচিত করতে হবে; (৫) পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনের প্রতি ওয়ার্ডে একজন মহিলা কাউন্সিলর ও একজন পুরুষ কাউন্সিলর নির্বাচিত করতে হবে; (৬) পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনে একজন মহিলা ডেপুটি মেয়র ও একজন পুরুষ ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত করতে হবে; (৭) উপজেলায় ‘মিলেনিয়াম প্রোপোজাল পার্ট ওয়ান (এমপো)’ অনুযায়ী নির্বাচিত একজন মহিলা ভাইস চেয়ারপার্সন ও একজন পুরুষ ভাইস চেয়ারপার্সন এর ক্ষমতা ও দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট করে দিতে হবে; (৮) উপজেলা সংসদ, জেলা সংসদ ও বিভাগীয় সংসদ এর প্রতিটি নির্বাচনী এলাকা হতে একজন মহিলা সদস্য ও একজন পুরুষ সদস্য নির্বাচিত করতে হবে; (৯) জেলা ও বিভাগে একজন মহিলা ভাইস চেয়ারপার্সন ও একজন পুরুষ ভাইস চেয়ারপার্সন নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে; (১০) জাতীয় সভা (জাতীয় আইনসভার উচ্চকক্ষ হিসেবে যদি কখনও এটি গঠিত হয়) গঠনের ক্ষেত্রে প্রতিটি জেলাকে একেকটি নির্বাচনী এলাকা ধরে নিয়ে প্রত্যেক জেলা হতে একজন মহিলা জাতীয় সভাসদ ও একজন পুরুষ জাতীয় সভাসদ প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত করতে হবে; (১১) ‘মিলেনিয়াম প্রোপোজাল পার্ট ওয়ান (এমপো)’ এর আলোকে অন্যান্য ক্ষেত্রেও ১০০-১০০ প্রতিনিধিত্বে নরনারীর ক্ষমতায়ন যথাসম্ভব সুনিশ্চিত করতে হবে। (১১তম দফা অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকার ঢাকা ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়দ্বয়ে একজন মহিলা উপ-উপাচার্য ও একজন পুরুষ উপ-উপাচার্য নিয়োগ দিয়েছেন; এই প্রদ্ধতি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কার্যকর করা যেতে পারে। এই এমপো অনুযায়ী উপজেলায় একজন মহিলা ভাইস চেয়ারপারসন নির্বাচিত হয়েছেন, ৭তম দফা অনুযায়ী তাঁর ক্ষমতা ও দায়িত্ব যথাসম্ভব সুনির্দিষ্ট করতে হবে। ১১ দফার ২য় দফা অনুয়াযী জাতীয় সংসদে সরকার একজন মহিলা ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত করতে পারতেন। তাতে না গিয়ে কেবল চমক সৃষ্টি করতে, কেবল বাহবা পেতে একজন অনভিজ্ঞ ব্যক্তিকে স্পিকার করেছেন, এবং তাতে একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তি বিধানিক প্রধান পদে দায়িত্ব পালনে বঞ্চিত হয়েছেন। আমরা নারীর ক্ষমতায়নের নামে চমক, করুণা আর দয়া চাইনা, চাই এমপো অনুযায়ী, ১১ দফা অনুযায়ী নারীর পদ্ধতিগত গণতান্ত্রিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষমতায়ন হোক; যেখানে অভিজ্ঞতায় ঘাটতি দিয়ে নির্বাহিক, বিধানিক ও বিচারিক কাজে দেশের কোনও ক্ষতি সাধিত হবে না, ক্ষতি সাধনে সম্ভাবনা থাকবে না; তাই আমরা সবাইকে এমপো ও ১১ দফা গভীরভাবে অনুধাবনে সচেষ্ট হতে অনুরোধ করব; এবং নারী মানুষের ক্ষমতায়ন পদ্ধতি বিষয়ক স্থানীয়, জাতীয় ও বৈশ্বিক পরিস্থিতি, কর্মসূচী বুঝতে, জানতে বলব। তা হলে এমপোর সুদূরপ্রসারী গুরুত্ব ও তাৎপর্য বুঝতে কিছুটা সহজ হবে বলে প্রতীয়মান হয়।)
লেখক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী লেখক,সাংবাদিক,রাজনীতিক,সদস্য ও মুখপাএ সিঊিএলজি ইঊএসএ,এডিটর বাপসনিঊজ এবং সভাপতি আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন।ফোন:৯১৭-৮৩৭-৪৭০০ -হুনফহবংি@ুধযড়ড়.পড়স 


স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু জাতির জনকের প্রত্যাবর্তন = এম এ গনি

মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৭

এম এ গনি-সাধারণ সম্পদক(সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ ) : ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। কিন্তু স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তখনও পাকিস্তানের কারাগারে। পাকিস্তানী বাহিনীর আত্মসমর্পণের চারদিন পর ২১ ডিসেম্বর জুলফিকার আলী ভুট্টো ঘোষণা দেন, শেখ মুজিবুর রহমানকে জেল থেকে মুক্তি দেয়া হবে। কিন্তু কবে, কখন এসব কিছুই জানানো হয় না।

alt

২৫ মার্চ, ১৯৭১-এর মধ্য রাত থেকে পরের বছরের ৮ জানুয়ারি। নয় মাসের বন্দী জীবন শেষে বঙ্গবন্ধু মুক্তি লাভ করেন ৮ জানুয়ারি ১৯৭২। সেদিনই তিনি পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) বিশেষ ফ্লাইট ৬৩৫-এ লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে পৌঁছেন। বিমানবন্দরে ব্রিটিশ ও কমনওয়েলথ কর্মকর্তারা তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। সেইদিন লন্ডনের হোটেল ক্যারিজ এ জনাকীর্ন সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।  সেই সংবাদ সম্মেলনে আমার ও উপস্থিত থাকার সুযোগ হয়েছিল। ১৯৭২ সালে ৭ জানুয়ারি আমি আমার এক বনধু  এয়ার কমোডর  বোস  যিনি লন্ডনস্থ ভারতীয় দূতাবাসে কর্মরত ছিল, তার মাধ্যমে জানতে পারি  বঙ্গবনধু শেখ মুজিব আগামী কাল ৮ জানুয়ারী লন্ডন আসবেন পাকিস্তান থেকে মুক্ত হয়ে। খুব সকালে লন্ডন এ পৌঁছবেন এবং জানতে পারি হোটেল ক্লারিজ  এ উঠবেন।  আমি ভোর ৬  টায় হোটেল ক্লারিজে এর লবিতে পৌঁছি।  বঙ্গবনধু  হোটেল লবিতে পৌঁছলে পায়ে ধরে সালাম করি এবং তিনি মাথায় হাত বুলিয়ে দেয়।  জিজ্ঞাসা করে তোরা কেমন আছিস। আসলে বঙ্গবনধু এর সাথে সম্পর্ক অনেক আগে থেকে। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে প্রচারণার জন্য শেরেবাংলা এক ফজলুল হক , শহীদ হোসেন সোহরাওয়ার্দী,মাওলনা ভাসানী এর সাথে বঙ্গবন্ধু চট্টগ্রাম আসলে আমার সাথে সর্বপ্রথম পরিচয় ঘটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এর সাথে।  সেই থেকে আজ পর্যন্থ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান  এর আদর্শকে ধারণ করে জাতির জনক এর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এর নির্দেশ পালনে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি ।  

Picture

১৯৬৩ সালে সেই চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সর্ব প্রথম কমিটির সভাপতি মরহুম জানে আলম দোভাষ – সাধারণ সম্পাদক জহুর আহমেদ চৌধুরীর সাথে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হয়ে ছিলাম  বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া কমিটিতে এর চেয়ে প্রাপ্তি কি আছে আমার জীবনে। ১৯৬৫ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে  স্বতন্ত্র  নির্বাচন করে মুসলিম  লীগ  এর শক্তিশালী প্রাথীকে হারিয়ে দিয়ে অল্প বয়সে বঙ্গবন্ধুর অত্যন্ত   প্রিয় ভাজন হয়ে ছিলাম ।  এর প্রেক্ষিতে আমি চট্টগ্রাম মিউনিসিপালটি এর কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেছি । ১৯৬৫ সালে নিখিল পাকিস্থান যুব আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক হয়ে বিভিন্ন দেশে প্রতিনিধিত্ব করার গৌরব  অর্জন করেছিলাম  । খুব অল্পবয়সে চট্টগ্রাম এর সেই সময়ের ১০০ বছরের পুরাতন  চট্টগ্রাম কো -অপারেটিভ  ব্যাংক এর পরিচালক হয়েছিলাম । ১৯৬৭ সালে তত্কালীন স্বৈরশাসক আয়ুব বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহন করেছিলাম এবং পুলিশের হাতে বেধড়ক   লাঠিপেঠার পর গ্রেফতার হয়েছিলাম । সেই সময় পুলিশের লাঠিপেটা থেকে বর্তমান আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার সাজেদা চৌধুরী না বাচালে হয়তো আজ্ এই পর্যন্ত আসতে  পারতাম না। ১৯৬৯ সালে  বঙ্গবন্ধু আগরতলা মামলা থেকে মুক্ত হওয়ার পর রাজনৈতিক সফরের কারণে লন্ডন আসলে, সফরসঙ্গী হিসাবে  আমাদের আজকের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রয়াত ওয়াজেদ মিয়া সাথে ছিলেন। সেই সময় বঙ্গবন্ধু আমাদের মরহুম আবদুল জলিল ( আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ) ব্যরিস্টার মউদুদ আহমেদ ( বর্তমান বিএনপি নেতা ) সহ  আলাপের সময় আব্দুল জলিল কে  একপর্যায়ে বাংলাদেশে সাথে করে চলে যেতে বলে।  বংলাদেশে   হুলিয়া থাকার কারণে দেশে না গিয়ে ইংল্যন্ডে পাকিস্থান বিরোধী আন্দোলনে কাজ করার জন্য নির্দেশ পেয়েছিলেন । ১৯৭১ সালে  যখন যুদ্ধ শুরু   হয়  তখন বার্মিংহাম ছিলাম  , এখানে প্রথম স্বাধীনতার পক্ষে একটি  একশন কমিটি করা হয় যার নাম  ” একশন কমিটি ফর  বাংলাদেশ ”  যার সভাপতি ছিলাম আমি ও সাধারণ সম্পাদক করা হয় সাবেক রাষ্ট্রদূত মোজাম্মেল হোসেন টমি হক।  পরবর্তীতে  লন্ডনে কেন্দ্রীয স্টিয়ারিং কমিটি  করা হয়  বিচারপতি আবু সাঈদ  চৌধুরীর নেতৃত্বে , এর মাধ্যমে আমরা নয় মাস ব্যাপী ম্যানচেস্টার , বার্মিংহাম সহ  বিভিন্ন শহরে স্বাধীনতার পক্ষে জনমত গড়ে তুলি।বার্মিংহাম থেকে  বাংলাদেশে স্বাধীনতা সংগ্রামের   # একশ্যান কমিটি #  এর সাধারণ সম্পাদক  হয়ে  কাজ করার কারণে পাকিস্থানীরা আপনার গাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছিল। সেই কথা তত্কালীন বার্মিং হ্যাম , ম্যানসেস্টার  শহরের সব বাঙালিরা জানেন –  আমার্  সেই সময়ের দেশের বাইরে পাকিস্থান এর বিরুদ্ধে লড়াই এর ইতিহাস। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু পাকিস্থান থেকে মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশে ফেরার আগে লন্ডন গেলে আপনার সাথে দেখা হওয়ার পর একই বিমানে দেশে যাওয়ার কথা থাকলে ও আপনার কাছে বঙ্গবন্দুর কিছু অর্পিত দায়িত্বের কারণে যেতে পারি নি । পরবর্তীকালে ১৯৭২ সালে ডিসেম্বর এর দিকে  বাংলাদেশে গেলে আমাকে   যে সংবর্ধনা  দিয়েছিল , সেই সংবর্ধনায় তত্কালীন আওয়ামী লীগ  সরকারের স্বাস্ত্য মন্ত্রী জহুর আহমেদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন ।

alt

১৯৭২ সালে ৮ জানুয়ারী  সেই  সাংবাদিক সম্মেলনে ভাষণ দেন নতুন রাষ্ট্রের জনক, যা এখনো আমার মনে পড়ে ।বঙ্গবনধু বলেন, The ultimate achievement of the struggle is the creation of the independent, sovereign republic which my people have declared me President while I was a prisoner in a condemned cell awaiting the execution of a sentence of hanging. wZwb AviI e‡jb, I would like to thank all those freedom-loving states who have supported our national liberation struggle, in particular India, the Soviet Union, Poland, other Eastern European countries, the United Kingdom, France- and also those freedom-loving people around the world who supported our cause, including the people of the United States of America. ৯ জানুয়ারি হিথরো থেকে ব্রিটিশ রয়াল এয়ার ফোর্সের বিশেষ বিমানে ঢাকার পথে যাত্রা করেন বঙ্গবন্ধু। লন্ডনে প্রায় ২৪ ঘণ্টা অবস্থানের সময় তিনি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ঢাকার পথে ১০ জানুয়ারি তিনি দিল্লির পালাম বিমানবন্দরে (ইন্দিরা গান্ধী ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট) যাত্রা বিরতি করেন। ভারতের রাষ্ট্রপতি ভিভি গিরি, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীসহ মন্ত্রিসভার সকল সদস্য ও শীর্ষ কর্মকর্তাগণ বাংলাদেশের জাতির পিতাকে ঐতিহাসিক অভ্যর্থনা জানান। একুশ গান স্যালুটের মধ্য দিয়ে তাঁকে রাষ্ট্রীয় অভিবাদন জানানো হয়, ওড়ানো হয় বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় পতাকা। বাজানো হয় দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত। বঙ্গবন্ধুকে সাদর অভ্যর্থনা জানিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপতি মন্তব্য করেন, The emergence of independent Bangladesh is itself a unique event in the annals of democratic movements in world history.You have truly been acclaimed the Father of the new nation , Bangladesh . বঙ্গবন্ধু ভারতের জনগণ, সরকার, বিশেষ করে ইন্দিরা গান্ধীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। একই দিন নতুন দিল্লি থেকে ঢাকায় পৌঁছেন বঙ্গবন্ধু। কারাগারে থেকেও যিনি মুক্তিযুদ্ধের প্রাণপুরুষ, যিনি মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, সেই প্রাণপ্রিয় নেতাকে মুক্ত স্বদেশে স্বাগত জানায় লাখো উদ্বেলিত জনতা। রয়াল এয়ার ফোর্সের বিমানটি তেজগাঁও বিমানবন্দরে থামার পর সেটাকে ঘিরে লাখে লাখে মানুষ, যা দেখবার সৌভাগ্য আমারও হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু অনেকক্ষণ ধরে বিমানের জানালা দিয়ে তাঁর প্রাণপ্রিয় ‘সোনার বাংলা’ দেখেন। এরপর মোটর শোভাযাত্রায় রমনা রেসকোর্সে পৌঁছেন। ইন্দিরা গান্ধী বিলক্ষণ অনুধাবন করেছিলেন যে, পাকিস্তান কেবল পরাজিতই নয় দেশটির ৯৩,০০০ সৈন্যও বাংলাদেশ-ভারতের কাছে বন্দী, কাজেই বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করা ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই পাকিস্তানের। ১৬ ডিসেম্বর লোকসভায় পাকিস্তানী আত্মসমর্পণের সুখবরটি জানাতে গিয়ে ভারত নেত্রী আশা প্রকাশ করেন এই বলে, We hope and trust that the Father of this new nation, Sheikh Mujibur Rahman, will take his rightful place among his own people and lead Bangladesh to peace, progress and prosperity . রমনা রেসকোর্সে ১০ জানুয়ারির ঐতিহাসিক ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘আমাকে কারাগারে আটক রাখা হয়েছিল। কিন্তু আমি জানতাম বাংলাদেশ স্বাধীন হবে। বাংলার মানুষ মুক্ত হাওয়ায় বাস করবে, খেয়ে-পরে সুখে থাকবে, এটাই ছিল আমার সাধনা। বাংলার এক কোটি লোক প্রাণভয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল। তাদের খাবার, বাসস্থান দিয়ে সাহায্য করেছে ভারত। আমরা ভারতের প্রধানমন্ত্রী মিসেস ইন্দিরা গান্ধী, ভারত সরকার ও ভারতবাসীকে আমাদের অন্তরের অন্তঃস্তল থেকে জানাই কৃতজ্ঞতা। বাংলার স্বাধীনতা যুদ্ধে সমর্থন দান ও সহযোগিতা দানের জন্য ব্রিটিশ, জার্মান, ফ্রান্স, সোভিয়েত ইউনিয়ন ও মার্কিন জনগণকেও আমি ধন্যবাদ জানাই।’ তিনি আরও বলেন, ‘ইয়াহিয়া খান আমার ফাঁসির হুকুম দিয়েছিলেন। আমি বাঙালী, আমি মানুষ, আমি মুসলমান। বাঙালীরা একবারই মরতে জানে। তাই বলেছি, ক্ষমা চাই না। তাদের বলেছি, তোমরা মারলে ক্ষতি নাই। কিন্তু আমার লাশ বাংলার মানুষের কাছে পৌঁছে দিও। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে আমি চিনি। তাঁকে আমি জানাই আমার শ্রদ্ধা। তিনি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বের সকল রাষ্ট্রপ্রধানের কাছে আমার মুক্তির জন্য আবেদন করেছেন।’ যতটুকু সান্নিধ্য বঙ্গবনধুর পেয়েছি তাতেই আমার জীবন ধন্য। বঙ্গবনধু এর আদর্শ ঋণে আজীবন আবদ্ধ ছিলাম , আজ ও আছি। সেই ঋণের কিছু হলে শোধ করার জন্য জাতির জনকের দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার নেতৃত্বে আমৃত্যু আজ করে যাবো। একসময় অনেক বলেছে সেইদিনের সেই সাংবাদিক সম্মেলন এ উপস্থিত থাকার বিষয়টা আমার বানানো গল্প। আওয়ামী লীগ এর আর্কাইভ থেকে এই ছবি সেই প্রতিহিংসা পরায়ণ মানুষের মুখে লজ্জার কালিমা মেখে দিয়েছে। আওয়ামী লীগকে আরো বেশি শক্তিশালী করতে সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে বর্তমান সময়ে বাংলা ও বাঙালির চিন্তা ও কল্যাণের অধীশ্বর জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করে যাবো আমৃত্য এই হোক আমার জাতির জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের অঙ্গীকার। জয়বাংলা – জয় বঙ্গবনধু।