Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বাংলাদেশের খবর

জেএসডি’র কমিটি ২০১৬-১৯ ঘোষনা উপলক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে প্রদত্ত বক্তব্য

বুধবার, ৩০ মার্চ ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ: গত ২৯ মার্চ বিকেল ৩টায়জেএসডি’র কমিটি ২০১৬-১৯ ঘোষণা উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।এতে প্রারম্ভিক বক্তব্য রাখেন ও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, লিখিত বক্তব্য ও কমিটি উপস্থাপন করেন সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন। লিখিত বক্তব্য সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশ আজ চরম অনিশ্চয়তা ও অন্ধকারের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। জনগনের ভোটাধিকার, মৌলিক গনতান্ত্রিক অধিকার, অবাধ রাজনৈতিক কর্মকান্ডের অধিকার, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের স্বাধীনতা সরকার কর্তৃক কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত। নির্বাচন ব্যবস্থা সহ সকল রাষ্ট্রীয় ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংশের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকেও ৫ই জানুয়ারীর সংসদ নির্বাচনের মত প্রহসনে পরিনত করা হয়েছে। দলীয়করণ করা হয়েছে পুলিশ, প্রশাসন থেকে শুরু করে বিচার বিভাগ পর্যন্ত। বিচার ব্যবস্থা ও প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে দুই মন্ত্রীর ঔদ্ধত্যপুর্ণ বক্তব্য ও সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক তাদেরকে সাজা প্রদান পরিস্থিতির ভয়াবহতারই প্রমাণমাত্র ।

alt
শেয়ার বাজার লুটের পর একের পর এক ব্যাংক লুট ও সর্বশেষ ১৬ কোটি মানুষের কোষাগার বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি, হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার জনগনকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। সরকারের অদক্ষতা ও ভুল কুটনীতির কারনে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক দিন দিন শীতল হয়ে পড়ছে। মালয়েশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য সহ বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রপ্তানী বন্ধ হয়ে পড়েছে বা পড়ছে। বৃটেন অষ্ট্রেলিয়া সহ বিভিন্ন দেশের সাথে বিমান যোগাযোগ কোন কোন ক্ষেত্রে বন্ধ হয়ে পড়েছে বা পড়ছে। জাতিসংঘের শান্তি মিশনে দীর্ঘ দিন যাবৎ অত্যন্ত সুনামের সাথে কাজ করার পরও আজকে মিশনে অবস্থানরত আমাদের সেনাবাহিনী সম্পর্কে নানা অপবাদ দেয়া শুরু হয়েছে। উপ আঞ্চলিক কানেক্টিভিটি ও ট্রান্সপোর্ট ইকোনোমি বিকাশেও সম্ভাব্য অগ্রগতি হচ্ছেনা।
দেশের আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। হত্যা, ধর্ষণ, দখলবাজী ইতিহাসের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁচেছে। জনগণের জীবন ও সম্পদের আজ কোন নিরাপত্তা নেই। এ সুযোগে জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীও মাথাচাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছে।এ অবস্থা চলতে থাকলে দেশ শুধু অনিশ্চয়তা ও অন্ধকারের দিকেই যাবেনা, অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হবে। এতে বিদেশীদের হস্তক্ষেপের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হবে।
বর্তমান ভয়াবহ অবস্থা থেকে জাতিকে রক্ষার জন্য প্রয়োজন জনগনের ভোটাধিকার, অবাধ রাজনৈতিক অধিকার, সকল গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করে একটি অংশগ্রহনমুলক নির্বাচন অনুষ্ঠান করা এবং নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ করার স্বার্থে পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ গঠন করে সেখান থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের বিধান করা। এর জন্য অবশ্যই তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তির মাধ্যমে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। এ রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জনে দলকে কার্যকরভাবে এগিয়ে নেয়ার বিষয় বিবেচনায় রেখেই আমরা আগামী দিনের দলের নেতৃত্ব বাছাই করেছি এবং এখন আমরা দলের কমিটি সমুহ আপনাদের মাধ্যমে জাতির সামনে উপস্থাপন করছি।
সাধারন সম্পাদক ৭ সদস্য বিশিষ্ট ষ্টিয়ারিং কমিটি , ১৯১ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি, ৩২ সদস্য বিশিষ্ট দলের উপদেষ্টা পরিষদ ও ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট সভাপতির উপদেষ্টা পরিষদ ঘোষণা করেন। কমিটির তালিকা পরবর্তীতে প্রেরন করা হবে


ইউপি নির্বাচনে প্রহসন ও সহিংসতায় উদ্বেগ দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচনের কারণেই যেসব খুন সংঘঠিত হয়েছে-এর দায় সরকারকেই নিতে হবে......জেএসডি

বুধবার, ২৩ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ইউপি নির্বাচনের প্রথম ধাপে নির্বাচনকে প্রহসনে পরিনত করা এবং ১১ জন নিহত ও অসংখ্য আহত হওয়ার প্রেক্ষিতে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন এক বিবৃতি প্রদান করেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচন সরকারের এ সিদ্ধান্তের কারণে এতোগুলো খুন সংগঠিত হয়েছে, অসংখ্য প্রাণহানীর আশংকা সৃষ্টি হয়েছে। এ আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের কারণে শান্তিপ্রিয় গ্রামের ঘরে ঘরে খুন-সংঘর্ষ-জিঘাংসাকে বিস্তার করে দিয়েছে সরকার। এসব খুনের দায় সরকার এবং নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই বহণ করতে হবে। সরকার জনগণের ভোটাধিকার হরণ, নির্বাচনী ব্যবস্থাকে কেবল ধ্বংস করেই ক্ষান্ত হচ্ছেনা, ক্ষমতার স্বার্থে সারা দেশটাকে ছিন্নভিন্ন করে দিচ্ছে-খুনের চারণ ভূমিতে পরিনত করছে। ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকার এবং নির্বাচন কমিশন চূড়ান্ত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। আমরা ইতিপূর্বেই এসকল উদ্বেগের কথা জানিয়েই দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচনের বিরোধীতা করেছিলাম।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ ‘ভোট বিহীন’ এবং ‘খুন’ করে ক্ষমতায় থাকার বর্তমান সরকারের যে রাজনীতি তার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য জনগণকে আহ্বান জানান।


প্রবাসীদের বিনিয়োগের জন্য বিশেষ সুবিধা দিতে হবে

বুধবার, ২৩ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী : বাপসনিঊজ: ঢাকা থেকে :প্রবাসীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে বিশেষ সুবিধা দেয়ার দাবি জানান সুপ্রীম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবি ব্যারিষ্টার মনজিল মোরশেদ। তিনি বলেন, প্রবাসীদের জন্য ট্যাক্স ভ্যাটেও ছাড় দিতে হবে। প্রবাসীদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে সোমবার বিকেলে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘ওপেন ডিসকাশন এবাউট প্রবাসী ইনভেস্টমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের সংগঠন প্রবাসী  বাঙ্গালী কল্যাণ সমিতি উক্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী  মূলধারার রাজনীতিবিদ হেলডনের কমিশনার দেওয়ান বজলু চৌধুরী। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন সংগঠনের গ্লোবাল কো-অর্ডিনেটর সাংবাদিক ওমর আলী।

alt
ব্যারিষ্টার মনজিল মোরশেদ বলেন, বিমান বন্দরে প্রবাসীদের হয়রানি রোধে আদালতে মামলা করার পর চারজন অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থ্যা নেয়া হয়। প্রবাসীদের যত সমস্যা আছে তার অর্ধেক সমাধান হয়ে যাবে যদি প্রশাসন একটু সক্রিয় হয়। তিনি প্রশাসনকে আরো সক্রিয় ও আন্তরিকতার সাথে সেবা দেয়ার আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে বিনিয়োগকারী যুক্তরাজ্য প্রবাসী উত্তরায় অবস্থিত হোটেল ঢাকা প্রিমিয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আকামত আলী বলেন,বাংলাদেশ একদিন সত্যিই এগিয়ে যাবে এবং মালয়েশিয়াকেও ছাড়িয়ে যাবে বলে আমি বিশ্বাস করি। আমরা প্রবাসীরা দেশের জন্য, বাংলাদেশের জন্য কিছু কাজ করতে চাই। বিনিয়োগ শুরু করার জন্য রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়ায় ওয়ান ষ্টপ সার্ভিস দরকার। তিনি শিগগির ওয়ান ষ্টপ সার্ভিস চালু করার দাবি জানান।
যুক্তরাজ্য প্রবাসী শাপলা ইয়ুথ ফোর্সের সভাপতি সানু মিয়া বলেন, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা এবং অংশীদারিত্ব নিয়ে সমস্যার কারণেই বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ বাড়ছেনা। আত্মীয়-স্বজনরাও অনেক সময় জায়গা জমি দখল করে নেয়। এ ব্যাপারে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে তিনি আরো সক্রিয় হবার আহবান জানান।

alt
যুক্তরাজ্য প্রবাসী ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিল অব বাংলাদেশিজ ইন ইউকে’র ওয়েলস শাখার সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ বলেন, অনেকে আছেন, দেশে বিনিয়োগ করেছেন কিন্তু লন্ডনে আবার ফিরেছেন খালি হাতে। বিনিয়োগের টাকার গ্যারান্টি দরকার। তাহলে সবাই বিনিয়োগ করবেন।
প্রবাসী সৈয়দ কামরুল ইসলাম বলেন, ওয়ান ষ্টপ সার্ভিস বিদেশে অনেক দেশেই আছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগের সব বাধা দূর করতে হবে তাহলেই সবাই বিনিয়োগে উৎসাহিত হবে।
প্রবাকসের একজিকিউটিভ মেম্বার যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নেছারুল হক বুষ্টান বলেন, সরকারের পুলিশ-র‌্যাব কত প্রতিষ্ঠান আছে, তারা প্রবাসীদের বিমানবন্দর থেকে নিরাপদে বাড়ি পৌছে দিতে পারে, দেশে থাকাকালীন তাদের নিরাপত্তা দিলে অনেক প্রবাসীই দেশে আসতেন এবং বিনিয়োগ করতেন। তিনি বলেন, নিরাপত্তা সংকটের কারণেও আমাদের ছেলে মেয়েরা আমাদের দেশে আসতে দিতে চায়না। আপনারা দেশে থাকার মতো একটা পরিবেশ তৈরি করে দেন। আমরা দেশে এসে বিনিয়োগ করতে চাই। আমাদের ছেলেমেয়েদেরও দেশে নিয়ে আসতে চাই।

alt
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী লাইভ টু ওয়েব এর সিইও শামছুর রহমান শিমুল বলেন, কক্সবাজারে বাংলাদেশের ট্যুরিজমের অপার সম্ভাবনা রয়েছেন সেখানে আমরা স্যাটেলাইট ভিশন নামে সাগরপাড়ে প্যারা সাইক্লিংয়ের আয়োজন করেছি। আপনাদের সবাইকে আমন্ত্রণ জানাই আমাদের প্রজেক্ট ভিজিট করার জন্য।
বাংলাদেশ ক্যাটারার্স এসোসিয়েশন যুক্তরাজ্যের সিনিয়র সহ সভাপতি মোহাম্মাদ মঈনুল আমিন বুলবুল, প্রবাসে আমাদের প্রজন্ম অনেক এগিয়েছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন সেক্টরে অনেক বিদেশি লোক চাকরি করছেন অথচ আমাদের ছেলেদের কাজ করার সুযোগ দেয়া হচ্ছেনা।

alt
হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশে যদি চায়নিজরা, কোরিয়ানরা বিনিয়োগ করতে পারেন তাহলে আপনারাও  বিনিয়োগ করতে পারবেন। আপনারা আসুন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন আমরা আপনাদের সবাইকে সহযোগীতা করবো।
অনুষ্ঠানে সৌদি আরবের কিং সৌদ ইউনিভারসিটির কনসালটেন্ট ডাঃ সমীর দত্ত বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার জন্য বিদেশিদের খুঁজে আনার দরকার নেই। দেশে বিনিয়োগ করার মতো প্রবাসী অনেকেই আছেন। আমি আমার প্রবাসী বন্ধুদের নিয়ে বাংলাদেশে একটি স্পেশালাইজড হাসপাতাল করতে চাই। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, সিভিল সার্জন, সিটি কর্পোরেশন, জয়েন্ট ষ্টক কোম্পানী, পরিবেশ অধিদপ্তর, বিনিয়োগ বোর্ড, বিআরটিএ, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস এতো জায়গায় দৌড়াতে চাইনা। আমাদের বিনিয়োগের জন্য প্রক্রিয়াগুলো আরো সহজ করে দেন।

alt

অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক গ্রীস প্রবাসী রিপন ফকির বলেন, বাংলাদেশের সরকার পরিচালনা কিংবা নীতি নির্ধারনী পর্যায়ে প্রবাসীদের কোনো অংশগ্রহন নেই। প্রবাসী সমস্যার কথা সরকারি পর্যায়ে তুলে ধরার মতো কেউ নেই। সংসদে প্রবাসীদের প্রতিনিধি নেই। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় করা হয়েছে কিন্তু সেই দফতরের মন্ত্রীও প্রবাসী নয়। প্রবাসী দের মধ্যে অনেক যোগ্যতম ব্যক্তি আছেন তাদের মধ্য থেকে প্রবাসী মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করার দাবি জানান তিনি।
রিপন ফকির বলেন, বিদেশে কোনো প্রবাসী মারা গেলে তাদের মরদেহ বাংলাদেশে পাঠাতে বাংলাদেশ দূতাবাস কোনো উদ্যোগ নেয়না। প্রবাসীদের কাছ থেকে চাঁদা তুলতে হয়। তিনি এই অবস্থা পরিবর্তন করে সরকারি খরচে বিদেশ থেকে প্রবাসী মরদেহ বাংলাদেশে এনে রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় রেমিটেন্স সৈনিকদের দাফনের দাবি জানান।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন গ্রেটার ম্যানচেষ্টার বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ আমিন, বাংলাদেশ ক্যাটারার্স এসোসিয়েশন যুক্তরাজ্যের সিনিয়র সহ সভাপতি মোহাম্মাদ মঈনুল আমিন বুলবুল প্রমুখ।
সমাপনী বক্তব্যে প্রবাকসের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান বজলু চৌধুরী বলেন, আমাদের প্রবাসীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে চান। বিনিয়োগের সব বাধা দূর করতে হবে। প্রবাসীদের জন্য সহজ শর্তে ব্যাংক ঋনের ব্যবস্থা করতে হবে। বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোতে হাজার হাজার কোটি টাকা অলস পড়ে থাকে অথচ বিনিয়োগ হচ্ছেনা। আমরা বিনিয়োগ করতে চাই এবং বাংলাদেশে প্রবাসী দের বিনিয়োগ বাড়াতে সরকারের সাথে কাজ করতে চাই। 


বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিরল ভালবাসার আকাশছোঁয়া ভাস্কর্য

মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ময়মনসিংহ : প্রায় ৫৩ ফুট উচ্চতার ভাস্কর্য। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা ও বিরল ভালবাসার অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে উঠেছে আকাশছোঁয়া এ ভাস্কর্য।বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সুদৃশ্য এ ভাস্কর্যটি নির্মিত হয়েছে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের পাশে গৌরীপুরের কলতাপাড়া এলাকায়।

সম্পূর্ণ ব্যক্তি উদ্যোগে প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে দেশের সর্ববৃহৎ এ ভাস্কর্যটির উদ্যোক্তা সরকার দলীয় স্থানীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব:) মুজিবুর রহমান ফকির। সুউচ্চ এ ভাস্কর্য বাড়িয়েছে রাজা-জমিদারদের তীর্থভূমি গৌরীপুরের গৌরব।জমিদারি জামানার ঐতিহ্যের ধারার সঙ্গে যুক্ত করেছে নতুন ঐতিহ্য। বহুদূর থেকে দৃশ্যমান এ ভাস্কর্যের আবেদনও বহুমাত্রিক।

Picture

রাজনীতি সচেতন ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা এক ঐতিহ্যবাহী জনপদ। সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব:) মুজিবুর রহমান ফকির বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একনিষ্ঠ অনুসারী।ভোট রাজনীতিতে জেলায় আ’লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত এ সংসদীয় আসনের বাসিন্দারা এখান থেকে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থীকে নির্বাচিত করেন।আর এ জনপদেই নির্মিত হয়েছে মহান স্বাধীনতার স্থপতিকে নিয়ে এশিয়া মহাদেশের মধ্যে অন্যতম সুউচ্চ দৃষ্টিনন্দন ভাস্কর্য।

৫৩ ফুট উচ্চতার দৃষ্টিনন্দন এ ভাস্কর্যটির স্থপতি শিল্পী এম.এ.মাসুদ। মুজিবকোট পরিহিত জাতির জনকের এ ভাস্কর্যটি কালো পাথর, অ্যাকাগিমিন, সাদা সিমেন্ট আর মোজাইক পাথর দিয়ে নির্মিত।

৬ তলা ভবনের সমান উচ্চতার এ ভাস্কর্যের গোড়ার প্রস্থই ১৫ ফুট। এ ভাস্কর্যটি নির্মাণে সময় লেগেছে প্রায় ৭ মাস।

 ৫৩ ফুট উচু বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য

বৃহৎ এ ভাস্কর্যটির থিম স্থানীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব:) মুজিবুর রহমান ফকিরের। তার স্বপ্নে কলতাপাড়ায় নির্মিত এ ভাস্কর্যটি বঙ্গবন্ধুর প্রতি সম্মান ও ভালবাসার মূর্ত প্রতীক হয়ে উঠেছে।

স্থানীয়দের মতে, এ ভাস্কর্যের মধ্য দিয়ে জাতির জনকের আদর্শের শ্বাশত হাতছানি, জীবন সংগ্রাম, সংগ্রামী জীবন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকবর্তিকা।

জাতীয় ইতিহাসের শৌর্য বীর্যের বহি:প্রকাশ ভাস্কর্যটি এক অর্থে গৌরীপুরবাসীর বঙ্গবন্ধু প্রেমের অনুপম প্রদর্শনী।

দৃষ্টিনন্দন ও নান্দনিক এ ভাস্কর্য সম্পর্কে গৌরীপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মো: আব্দুর রহিম বাংলানিউজকে বলেন, নতুন প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ছড়িয়ে দিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য জাতির জনককে নিয়ে দেশের সর্ববৃহৎ এ ভাস্কর্য নির্মাণ করেছেন।

এ ভাস্কর্যের মধ্যে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি আবেগ আর অকৃত্রিম ভালোবাসা ফুটে উঠেছে। নতুন প্রজন্মও আবেগ উদ্দীপ্ত হয়ে উঠেছে, মত আব্দুর রহিমের। প্রতিদিন স্থানীয় বাসিন্দা, পথচারী ও হাজারো যাত্রী বঙ্গবন্ধুর এ ভাস্কর্যের সামনে দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে বিস্ময়মুগ্ধ হয়ে তাকান।

শ্রদ্ধা, ভালবাসা ও জাগরণের মধ্যে দিয়ে মানুষজন এ ভাস্কর্যের দিকে তাকিয়ে দেখে বাংলাদেশকেই। যে দেশ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব:) মুজিবুর রহমান ফকির বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালিকে মুক্তির পথ দেখিয়েছিলেন। তার ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করতে গিয়েছিলাম।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের আলোকে স্মৃতি হিসেবে এ ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভাস্কর্যটির পেছনে একটি বৃদ্ধাশ্রম রয়েছে। আর ভাস্কর্যের ডান পাশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১৪২ রকমের ছবি রয়েছে।


পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ গঠনের কর্মসুচী গ্রহনের জন্য খালেদা জিয়াকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন ...... জেএসডি

সোমবার, ২১ মার্চ ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বিশেষ সংবাদদাতা , বাপসনিউজ:জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল - জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন এক বিবৃতিতে বলেছেন, জেএসডি দীর্ঘদিন যাবৎ দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট গঠন, ক্ষমতার কার্যকর বিকেন্দ্রীকরন এবং সরকারের ক্ষমতা চর্চায় নিয়ন্ত্রন ও ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার দাবী জানিয়ে আসছে। বিভিন্ন পেশাজীবী মহল থেকেও এ দাবীর প্রতি সমর্থন ব্যক্ত হয়েছে। বিলম্বে হলেও গতকাল অনুষ্ঠিত বিএনপি’র কাউন্সিল অধিবেশনে বেগম খালেদা জিয়া তৃনমুল জনগোষ্ঠী, পেশাজীবীর প্রতিনিধি ও জ্ঞানী-গুনী-–পন্ডিত-বিশেষজ্ঞদের নিয়ে পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ গঠন সহ দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট গঠনের যে কর্মসুচী ঘোষনা করেছেন তার জন্য তাকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন। নেতৃবৃন্দ দেশের প্রুধানমন্ত্রীকেও দ্বি-কক্ষ পার্লামেন্ট গঠনের উদ্যোগ গ্রহনের মধ্য দিয়ে গনতন্ত্রের ভিতকে সুদৃঢ়, শক্তিশালী ও নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থাকে সর্বস্তরে গ্রহনীয় করার পথ তৈরীর আহবান জানিয়েছেন।


কটিয়াদীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৭তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়

রবিবার, ২০ মার্চ ২০১৬

alt

গত ১৭ মার্চ,সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৭তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে কটিয়াদীতে লিটল ফ্লাওয়ার ¯কুলের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৭তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
ছবি:রুহুল আমিন রাজু ,বাপসনিউজ প্রতিনিধি


সিলেটে একটি বয়স্ক ক্লাব এর প্রয়োজনীয়তার উপলব্ধি করেছেন বিভাগীয় কমিশনার

মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ: সিলেটে বয়স্কদের জন্য একটি দিবাযত্ন কেন্দ্র (বয়স্ক ক্লাব )করতে চান সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার জামাল উদ্দীন আহমেদ। সেখানে বয়স্করা সারাদিন থাকবেন, বই পড়বেন, খবরের কাগজ পড়বেন, খেলাধুলা করবেন তারপর বেলাশেষে বাড়ি ফিরে যাবেন। সেখানে ডাক্তার-নার্সসহ অন্যান্য জরুরী চিকিৎসার ব্যবস্থাও রাখতে চান।
alt
সিলেটে এরকম একটা ব্যবস্থা থাকার খুবই প্রয়োজন উপলব্ধি করছেন বিভাগীয় কমিশনার জামাল উদ্দীন আহমেদ। গত ১৪ ই মার্চ সোমবার বিকেলে সফররত প্রবাসী বাঙ্গালী কল্যাণ সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী দেওয়ান বজলু চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রবাসীদের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাতকালে তিনি একথা বলেন। প্রবাসীরা কেউ সিলেট নগরীতে কিংবা আশপাশে একটি বাড়ি দান করলে কিংবা সম্মিলিতভাবে একটি বাড়ির ব্যবস্থা করে দিলে বাকী কাজ তিনি নিজেই সমাপ্ত করতে পারবেন বলে জানান। তিনি বলেন, সরকারি পর্যায়ের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সমন্নয় করে এধরনের একটি প্রতিষ্ঠান স্থাপন করা যায়। তিনি দানশীল সবাইকে এ ব্যাপারে এগিয়ে আসার আহবান জানান। 

alt

এসময় প্রবাকস এর পক্ষ থেকে দেওয়ান বজলু সিলেটে একটি বয়স্ক ক্লাব স্থাপনে সর্বাত্মক সহযোগীতার আশ্বাস দেন । সাক্ষাৎকালে এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার রাজনীতিবিদ হেলডন নিউজার্সীর কমিশনার প্রবাকস সম্পাদক দেওয়ান বজলু ,সংগঠনের কার্য্যকরী কমিটির সদস্য নেছারুল হক চৌধুরী বুস্তান, অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী আলী আজহার চৌধুরী মুন্না, লকেল গভর্ণমেন্ট সিলেট ডিভিশন এর ডাইরেকটর মো:মতিউর রহমান। 


সরকারের ক্ষমতাবাজীর কারনে দেশ আজ চরম অনিশ্চয়তার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে...জেএসডি

মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বিশেষ সংবাদদাতা,বাপসনিউজ:জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলÑজেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারন সম্পাদক  আবদুল মালেক রতন এক বিবৃতিতে বলেছেন, সরকারের ক্ষমতাবাজীর কারনে দেশ আজ চরম অনিশ্চয়তার দিকে এগয়ে যাচ্ছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে প্রায় ২০ হাজার কোটি, শেয়ার বাজার থেকে ৮০ হাজার কোটি টাকা লুট হয়েছে। বিদেশে পাচার হয়েছে ৩০ থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা। এ সকল বিষয় মানুষ অনেকটা ভুলে গিয়েছিলো। কিন্তু সম্প্রতি খোদ বাংলাদেশ ব্যাংকের জিম্মা থেকে ৮০০ কোটি টাকা চুরি হয়ে যাওয়া মানুষের উদ্বেগকে চরম পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী। এরই মধ্যে যুক্তরাজ্যের সাথে কার্গো বিমান যোগাযোগ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জিএসপি সুবিধা বাতিল হয়েছে। মালয়েশিয়ার সাথে ১৫ লক্ষ শ্রমিক পাঠানোর চুক্তি হওয়ার পরও সেই চুক্তি বাতিল হয়ে গিয়েছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শান্তি মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবস্থান নিয়ে বেশ কয়েক যায়গায় প্রশ্ন উঠেছে। অথচ সরকার এ সকল বিষয়ে কার্যকর কুটনৈতিক উদ্যোগ নিতে পারছেনা। তাহলে দেশ আজ যাচ্ছে কোথায়? আমরা কি সারা দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছি? ইতোমধ্যে লাখো মানুষের ত্যাগের বিনিময়্ েউন্নয়নের যে সম্ভাবনা তৈরী হয়েছে তার সব কিছুই শুধু ক্ষমতার স্বার্থে শেষ হয়ে যাবে? এ সকল বিষয়ে সর্বস্তরের জনগনকে আজ সদা সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।   


৭ই মার্চ ভাষণের উপর গবেষণা ফেলোশিপ চালু করার দাবি

মঙ্গলবার, ০৮ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ঢাকা থেকে : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ভাষণের উপর গবেষণা ফেলোশিপ চালু করার দাবি জানান বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ)।সোমবার (৭ মার্চ) ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ এ বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্পণ ও শ্রদ্ধার পর সংগঠনের পক্ষে এই দাবি জানানো হয়। বোয়াফ সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, ১৯৭১ সালে ৭ই মার্চ  রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর দীপ্ত সাহসে, অর্জিত বিশ্বাসে ঐতিহাসিক ভাষণের মাধ্যমে বাঙালির সকল শ্রেণীপেশার মানুষকে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীন-সার্বভৌমত্বের লক্ষে যে ভাবে ঐক্যবদ্ধ করতে সক্ষম হয়েছিলেন, বিশ্বে তা অতুলনীয় এবং বিখ্যাত।

Picture

তিনি আরও বলেন, বিশ্ব আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সেই জাদুকরী ভাষণ নিয়ে গবেষণা করে নেতা ও নেতৃত্বের উপর একটি মানুষ কিভাবে অবিচল ঠাঁয় দাঁড়িয়ে বজ্র কন্ঠে দিক নির্দেশনা দিয়েছে, কিভাবে পরবর্তী কর্মকান্ড এগিয়ে নেওয়ার সুপরিকল্পনা প্রদান করেছে, কিভাবে নেতার অনপুস্থিতে বুকের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে লাল-সবুজ’র বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবে তার গবেষণামুলক নতুন নতুন তথ্য তৃতীয় বিশ্বের প্রজন্মের কাছে তুলে ধরছে।কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, সরকার ও এর সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মর্তাদের উচিৎ হবে, ৭ই মার্চ ভাষণের উপর গবেষণা ফেলোশিপ চালু করার মাধ্যমে রাজনৈতিক, গবেষক, শিক্ষক, কবি-সাহিত্যিকসহ নতুন প্রজন্মের মাঝে উদ্যোগ, উদ্দিপনা সৃষ্টির দৃষ্টান্ত স্থাপন করা।

alt

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ভাষণের গুরুত্ব, তাৎপর্য এবং একজন নেতা ও তাঁর নেতৃত্বের বলিষ্ঠ  কন্ঠের শব্দ মালাগুলো যত বেশী গবেষণা হবে, যত বেশী নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরা হবে; ততবেশী প্রজন্ম শিখবে-জানবে এবং নিজেদের সেভাবে তৈরি করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বোয়াফ সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময়।বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্পাণ ও শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত ছিলেন- সংগঠনের সহ-সভাপতি রাশিদা হক কনিকা, জেবুনেসা বেগম জলি, ডেবিট এ হালদার, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ব্লগার রফিকুল ইসলাম রাকিব, সদস্য জুয়েল চক্রবর্তী, রাব্বি চৌধুরী, রাকিব সজল, এনায়েত হোসেন বাবলু খান মিহাদুল ইসলামসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।


আগামীকাল জেএসডি’র সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন

শনিবার, ০৫ মার্চ ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বিশেষ সংবাদদাতা ,বাপসনিউজ:গত ২৫ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলÑজেএসডি’র কেন্দ্রীয় ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে নব নির্বাচিত সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব ও সাধারন সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন আগামীকাল ৪ মার্চ, শুক্রবার সকাল ১১টার পরপর দলীয় নেতা, কর্মী, সংগঠকদের নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন।

এ জন্য দলের সাধারন সম্পাদক সকল নেতা, কর্মী, সংগঠকদের সকাল ১১টার মধ্যে দোয়েল চত্বরে সমবেত হওয়ার আহবান জানিয়েছেন।


স্টেডিয়ামে উচ্ছ্বসিত প্রধানমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার, ০৩ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ঢাকা থেকে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এশিয়া কাপে বাংলাদেশ-পাকিস্তান ম্যাচ দেখতে মিরপুরের শের-ই বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে গেছেন। আজ বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হওয়া এই ম্যাচ দেখতে ৮টার কিছুক্ষণ আগে প্রধানমন্ত্রী স্টেডিয়ামে পৌঁছান বলে তার উপ-প্রেসসচিব আশরাফুল আলম খোকন জানিয়েছেন।

Picture

স্টেডিয়ামের ভিভিআইপি গ্যালারিতে বসে প্রধানমন্ত্রী খেলা উপভোগ করছেন। টিভি ক্যামেরার সামনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশ উচ্ছ্বসিত দেখা যাচ্ছিল। এসময় তিনি হাত নেড়ে অভিবাদন জানাচ্ছিলেন।পাকিস্তানের বিপক্ষে এই ম্যাচে জিতলেই এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টির ফাইনালে খেলা নিশ্চিত হবে বাংলাদেশের।

স্টেডিয়ামে উচ্ছ্বসিত প্রধানমন্ত্রী

টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এশিয়া কাপ টি-২০ ক্রিকেটের ফাইনালে উঠায় টাইগারদের আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন। আজ মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে টাইগাররা পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে পরাজিত করে ফাইনালে উঠেছে।

alt
এক অভিনন্দন বার্তায় ক্রিকেট অনুরাগী প্রধানমন্ত্রী এ অসামান্য সাফল্যের জন্য জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের পাশাপাশি ম্যানেজার, কোচ এবং ক্রিকেট বোর্ড কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান।
তিনি বলেন, ক্রিকেটের উন্নয়নে সরকারের সর্বোচ্চ আন্তরিকতা এবং খেলোয়াড়দের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণেই বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন বিশ্বে একটি মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত।
শেখ হাসিনা বিজয়ের এ ধারা জাতীয় দল আগামীতেও বজায় রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
প্রধানমন্ত্রী স্টেডিয়ামে বসে এ ম্যাচ প্রত্যক্ষ করেন এবং টাইগারদের অনুপ্রেরণা দেন। অলরাউন্ডার মাহমুদুল্লাহ’র বিজয়সূচক বাউন্ডারির পর শেখ হাসিনা হাত নেড়ে বাংলাদেশের বীরদের অভিনন্দন জানান।