Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বাংলাদেশের খবর

নতুন বছরের বাজেট দেয়ার আগেই মজুরী কমিশন ঘোষনা করতে হবে ..... আবদুল মালেক রতন

মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেছেন, নতুন বছরের বাজেট দেয়ার আগেই কমপক্ষে মাসিক ১৩হাজার টাকা মজুরী ধরে মজুরী কমিশন ঘোষনা করতে হবে। পে-কমিশন ঘোষনার আগেই বর্তমান মজুরী দিয়ে শ্রমিকদের সন্তানদের লেখা-পড়া, চিকিৎসা সহ সংসার চালানো কষ্টকর ছিল। পে-কমিশন ঘোষনার পর সব কিছুর দাম ৫০-৬০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। এমতাবস্থায় শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরী ১৩ হাজার টাকার নীচে হলে তাদের পক্ষে সুস্থ্যভাবে বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। শ্রমিকদেরকে বুভুক্ষ রেখে উন্নয়নের জোয়ারের কথা বলা তামাসা ছাড়া কিছুই হতে পারেনা। জনাব মালেক রতন আরো বলেন,  শ্রমিকদের কর্মস্থানের নিরাপত্তা বিধান, শ্রমিক নির্যাতন বন্ধ করা, বকেয়া পাওনা পরিশোধ ও শিশু শ্রমিকদের পুনর্বাসন নিশ্চিত করাও আজ রাষ্ট্র ও সরকারের নৈতিক দায়িত্বআজ বিকেল ৪টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহান মে দিবসে সকাল ১০টার আলোচনা সভা ও পরবর্তী র‌্যালী সফল করার লক্ষ্যে জেএসডি আয়োজিত এক প্রতিনিধি সভায় জনাব মালেক রতন এ সব কথা বলেন। জেএসডি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি এম এ গোফরান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিনিধি সভায় বক্তব্য রাখেন  তানিয়া ফেরদৌসী, আতাউল করিম ফারুক, সিরাজ মিয়া, শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, মোশারফ হোসেন, আবদুর রাজ্জাক রাজা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


শের-ই-বাংলার ৫৪তম মৃত্যুবার্ষিকীতে ২৭ এপ্রিল সাতুরিয়ায় ব্যাপক আয়োজন

সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,ঝালকাঠি প্রতিনিধি॥ আগামী ২৭ এপ্রিল অবিভক্ত বাংলার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল হক’র ৫৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সাতুরিয়া গ্রামে ব্যাপক কর্মসূচী পালন করছে ‘শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল হক রিসার্চ ইনন্সিটিটিউট’। শের-ই-বাংলার জন্মস্থান ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার সাতুরিয়া গ্রামে এ মহান নেতার স্মৃতিকে স্মরনীয় রাখার জন্য যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিশিষ্ট সমাজসেবক ইঞ্জিনিয়ার একেএম রেজাউল করিম ২০১৪ সালের ২৬ অক্টোবর (শের-ই-বাংলার জন্মদিন) সাতুরিয়া গ্রামে শের-ই-বাংলার নানা বাড়ীর কাছে ‘শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল হক রিসার্চ ইনন্সিটিটিউট’ প্রতিষ্ঠা করেন।

alt

দক্ষিন বাংলার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো: হানিফ এ প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব জমিতে দ্বিতল ভবন রয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর হতেই ‘শের-ই-বাংলা একে ফজলুল হক রিসার্চ ইনন্সিটিটিউট’ ব্যাপক আয়োজনে প্রতি বছর শের-ই-বাংলার জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী পালন করে আসছে। আগামী ২৭ এপ্রিল শের-ই-বাংলার ৫৪তম মৃত্যুবাষির্কী উপলক্ষে সাতুরিয়ায় ব্যাপক কর্মসূচী পালন করবে ‘শের-ই-বাংলা একে ফজলুল হক রিসার্চ ইনন্সিটিটিউট’। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে আলোচনা সভা, কোরআন খানি, দোয়া ও মিলাদ, শিক্ষার্থীদের মধ্যে টি শার্ট এবং বই বিতরন। এ আয়োজনে প্রধান অতিথি থাকবেন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা: আজিজ রহিম। প্রধান বক্তা থাকবেন (টেলি কনফারেন্স) ‘শের-ই-বাংলা একে ফজলুল হক রিসার্চ ইনন্সিটিটিউট’র প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার একেএম রেজাউল করিম।

alt

বিশেষ অতিথি থাকবেন রাজাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মো: মনিরুজ্জামান, কাউখালি  উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম আহসান কবির, ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আতিকুল ইসলাম উজ্জল তালুকদার, বাংলাদেশ সুৃপ্রিম কোর্টের আইনজীবী কাজী এনায়েতুর রহমান বাচ্চু,  কাউখালি  উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান মিঠু, রাজাপুর উপজেলা  ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা আকতার লাইজু, সাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান  ছিদ্দিকুর রহমান, রাজাপুর  মঠবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো¯তফা কামাল সিকদার ও কাউখালি সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুর রশিদ মিল্টন। সভাপতিত্ব করবেন শের-ই-বাংলা একে ফজলুল হক রিসার্চ ইনস্টিটিউট চেয়ারম্যান আলহাজ্জ কেএম আব্দুল করিম।


আলী হায়দার চৌধুরীর স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল

সোমবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:লক্ষ্মীপুরের কৃতি সন্তান, বিশিষ্ট শিল্পপতি, বেঙ্গল লেদার গ্রুপের চেয়ারম্যান আলী হায়দার চৌধুরীর মৃতুতে শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকাস্থ রায়পুরবাসী নামক একটি সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাধীনতার অন্যতম সংগঠক আ স ম আবদুর রব। প্রধান অতিথির বক্তব্যে রব বলেন, ''মরহুম আলী হায়দার চৌধুরীকে শুধু ভালো মানুষ বললে অবিচার করা হবে, তাঁর মতো প্রচারবিমুখ জনহৈতষী ব্যক্তি সমাজে বিরল। এলাকার সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকার উন্নয়নে মরহুমের নিরলস প্রচেষ্টা শুধু রায়পুরবাসীকে নয়, পুরো লক্ষ্মীপুরবাসীকেই শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করতে হবে।''

http://www.mujibsenanews.com/uploads/images/1460971083_ali.jpg" alt="">


জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক সাংসদ ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হারুনুর রশীদ। ঢাকাস্থ রায়পুরবাসীর আহ্বায়ক জিল্লুর রহমানের সঞ্চালনায় উক্ত স্মরণ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মরহুমের সুযোগ্য সন্তান টিপু সুলতান, রোটারিয়ান রফিকুল হায়দার চৌধুরী, লক্ষ্মীপুর যুব কল্যাণ সমিতির সভাপতি জাকির হোসেন, মেজর তৌফিকুর রহমান, কালের কণ্ঠের ডিজি এম হারুনের রশীদ, রেডিয়েন্ট গ্রুপের পরিচালক বেলাল আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন লক্ষ্মীপুর জেলা সমিতির সেক্রেটারি, বিটিসিএল-এর পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার ফখরুল আলম।


পহেলা বৈশাখে বঙ্গবন্ধুকে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ঘোষণা করা হয়

বুধবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৬

Picture

বাপসনিঊজ:ঢাকা থেকে :বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম মাসের প্রথম দিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে “সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি” ঘোষণা করা হয়।
বিবিসি বাংলা সার্ভিস ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাস জুড়ে বিবিসির শ্রোতাদের মধ্যে পরিচালিত এক জরিপের পর এ ঘোষণা দেয়। এই জরিপে শ্রোতাদের তাদের শ্রেষ্ঠ বাঙালি নির্বাচনের জন্য বলা হয়। ১৪১১ সালে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের দিন পহেলা বৈশাখে এই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়।
এই ঘোষণার সময় বিবিসি বাংলা সার্ভিস থেকে এর ওয়েবসাইটে (http://news.bbc.co.uk/2/hi/south_asia/3623345.stm) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, জনপ্রিয়তার দিক থেকে বঙ্গবন্ধু অনায়াসেই নোবেল বিজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে ছাড়িয়ে গেছেন।
এই জরিপে শ্রোতাদের বিচারে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন। শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত প্রথম ২০ জনের মধ্যে একমাত্র জীবিত আরেক নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন রয়েছেন ১৪তম অবস্থানে। তিনি জনপ্রিয়তার দিক থেকে ক্ল্যাসিক চলচ্চিত্র পরিচালক সত্যজিৎ রায়ের পরের অবস্থানে রয়েছেন।
বাঙালি নারীদের মধ্যে থেকে একমাত্র রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের নাম নির্বাচিত হয়েছে। এতে তাঁর অবস্থান ছয় নম্বরে রয়েছে। বেগম রোকেয়া বিংশ শতাব্দির সামাজিক কুসংস্কার ও পারিবারিক শৃংখল ভেঙ্গে বাঙালী মুসলিম নারীদের শিক্ষা আন্দোলনের অগ্রদূতের ভূমিকা পালন করেন।
শ্রেষ্ঠ ২০ জনের মধ্যে সমাজ সংস্কারক ও বিপ্লবী নেতা নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোসের নাম পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশ শাসকদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলেন।
সমাজ সংস্কারক ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর এতে অষ্টম অবস্থানে রয়েছেন। তিনি সনাতন ধর্মীয় সমাজ থেকে বর্ণ বৈষম্য বিলোপের আন্দোলন গড়ে তোলেন। উনিশ শতকের ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা মির নাসির আলী তিতুমির এতে ১১তম অবস্থানে রয়েছেন।
বিবিসির শ্রোতারা তাদের ভোটে কেবল কবি বা রাজনীতিবিদদের নামই নির্বাচন করেননি। এ জরিপে শ্রোতারা বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুকে ৭ম অবস্থানে নির্বাচিত করেছেন। জগদীশ চন্দ্র বসু প্রথম বিজ্ঞানী যিনি উদ্ভিদের জীবনচক্র আবিষ্কার করেন।
বাংলাদেশ ও পূর্ব ভারতে বিবিসি বাংলা সার্ভিসের প্রায় এক কোটি ২০ লাখ শ্রোতা রয়েছে। এই জরিপে ১০০ বাঙালির নাম তালিকাভূক্ত করা হয়। শ্রোতাদের ভোটে তাদের মধ্যে থেকে ২০ জনকে নির্বাচিত করা হয়।


দেশের পরিস্থিতি ভয়াবহ-ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ দরকার ........আ স ম আবদুর রব

মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি, বাপসনিউজ :স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলক, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী  আ স ম আবদুর রব বলেছেন, দেশের পরিস্থিতি ভয়াবহ। আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি। খুন-হত্যা-ধর্ষণ-গুম এমন পর্যায়ে উপনিত হয়েছে তাতে সমগ্র জনগণ চরম উৎকন্ঠিত হয়ে পড়ছে। জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার পুরো ব্যর্থ হয়েছে। একটি খুনের বিষয় যথাযত সম্পন্ন করতেও সরকার সক্ষম নয়। সরকার রাষ্ট্র পরিচালনায় সকল ক্ষেত্রে ব্যর্থ। এখন আর বল প্রয়োগও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারবেনা।

alt

রাজনৈতিক সংকটকে শক্তি প্রয়োগে সমাধান করতে গিয়ে সারা দেশে সরকার হিংস্রতা এবং জিঘাংসা ছড়িয়ে দিচ্ছে। উন্নয়নের নামে তান্ডব চলছে। রাজনৈতিক সংকট, বৈধতার সংকট, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির সংকট সব মিলিয়ে দেশের পরিস্থিতি ভয়াবহ। এ থেকে উত্তরণের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। গত ১২ এপ্রিল বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেসক্লাব এর সামনে জেএসডি আয়োজিত মানবন্ধনে  আ স ম আবদুর রব এসকল কথা বলেন। খবর বাপসনিঊজ। মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন জেএসডি সাধারণ সম্পাদক  আবদুল মালেক রতন, এম এ গোফরান, তানিয়া ফেরদৌসী, আতাউল করিম ফারুক, শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন প্রমুখ।


কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

রবিবার, ১০ এপ্রিল ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:রাজধানীর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুরে নবনির্মিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রবিবার সকাল ১০টায় তিনি নবনির্মিত এ কারাগারের উদ্বোধন করেন।কারাগারটি এশিয়ার সর্বাধুনিক ও বৃহত্তম মডেল কারাগার। নতুন এ কারাগারটির নাম দেয়া হয়েছে ‘ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, কেরানীগঞ্জ’। ৪ হাজার ৫৯০ জন বন্দীকে রাখার জন্য এ কারাগারটি নির্মাণ করা হয়েছে। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার তেঘরিয়া ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুরে কারাগারটি স্থানান্তরিত হচ্ছে।

কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রায় সোয়া ২০০ বছরের ঐতিহ্য ভেঙে ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোড থেকে কেরানীগঞ্জে  স্থানান্তরিত করা হচ্ছে কেন্দ্রীয় কারাগারটি। একই সাথে বদলে যাচ্ছে কারা স্থাপনার লাল রং বা লাল দালানের কথাটি। যে কারণে বর্তমানের আধুনিক এ কারাগারটির দেয়ালের রং সাদা করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে নবনির্মিত এ কারাগারটিতে শুধু পুরুষ বন্দীদের রাখা হবে। পুরুষ কারাগারটির পাশে নতুন একটি মহিলা কারাগার নির্মাণাধীন রয়েছে। মহিলা কারাগারটির নির্মাণ শেষ হলে নারী বন্দীরা থাকতে পারবেন।

 বর্তমানে পুরনো ঢাকার নাজিমউদ্দীন রোডে স্থাপিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নতুন কারাগারটির দূরত্ব প্রায় ১২ কিলোমিটার। ১৭৮৮ সালে স্থাপিত পুরান ঢাকার এ কারাগারটি বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম এক সাক্ষী। উদ্বোধনের পরই কারা কর্তৃপক্ষ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকা প্রায় ৮ হাজার বন্দীকে স্থানান্তরের কাজ শুরু করবে।

১৯৮০ সালে বর্তমানের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারটি স্থানান্তরের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করার দীর্ঘ ৩৫ বছর পর এটি কেরানীগঞ্জে স্থানান্তরিত হচ্ছে। বিশ্বের আধুনিক সকল কারাগারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই কারাগারটি নির্মাণ করা হয়।

মোট ১৯৪ দশমিক ৪১ একর জমির ওপর এ কারাগারটি অবস্থিত। এ এলাকায় মোট তিনটি কারাগার নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে পুরুষ কারাগার দুইটি আর মহিলা কারাগার ১টি। মহিলা কারাগারটিতে ২শ’ বন্দীকে রাখা যাবে। প্রতিটি পুরুষ কারাগার ৩১ একর জমিতে তৈরি করা হচ্ছে। আর মহিলা কারাগারটি তৈরি হবে ১১ একর জমির ওপর। ২০০৬ সালের একনেকে এ কারাগারটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

নতুন এ কারাগারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নেয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। কারাগারের চারপাশে ১৮ ফুট উচ্চতার বিশেষ প্যারামিটার দেয়াল তৈরি করা হয়েছে। এর উপরে রেক্টিফাইড ক্যাবল দিয়ে কমপক্ষে ৬ ফুট উঁচু করে ঘিরে রাখা হয়েছে। 


বরিশালে রেজাউল করিমের গ্রন্থ ‘নির্বাচিত কলাম’র মোড়ক উম্মোচন

বুধবার, ০৬ এপ্রিল ২০১৬

বাপসনিঊজ-বরিশাল প্রতিনিধি॥ যুক্তরাজ্য প্রবাসী তরুন লেখক ও গবেষক ইঞ্জিনিয়ার একেএম রেজাউল করিমের গ্রন্থ ‘নির্বাচিত কলাম’ প্রথম খন্ডের মোড়ক উম্মোচন করা হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল মঙ্গলবার বেলা ১২টায় বরিশাল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বইটির মোড়ক উম্মোচন করেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ এবং বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট কাজী এনায়েত হোসেন বাচ্চু। সভাপতিত্ব করেন বরিশালে বইটির প্রকাশনা পরিষদের আহবায়ক বিএনপি নেতা আনোয়ারুল হক তারিন। আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসিরউদ্দিন বাবুল ও উপস্থিত ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার একেএম রেজাউল করিমের পিতা আলহাজ্ব কেএম আবদুল করিম।

alt
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, বিদেশে বসে বাংলাদেশ নিয়ে চিšতা  করে গনমাধ্যমের স্বাধিনতা সহ লেখক আরো যেসব জনগুরুত্বপূর্ন বিষয় লিখেছেন তা নি: সন্দেহে প্রসংশার দাবীদার। বইটিতে লেখক অনেক বিষয় সমন্বয় করেছেন। তিনি বলেন বইটিতে জাতীয়তাবাদী চেতনা , ধর্মীয় মূল্যবোধ ও দেশপ্রেম প্রকাশ পেয়েছে। আমন্ত্রিত অতিথির বক্তব্যে বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দির বাবুল বইটির শুভ কামনা করেন। বিশেষ অতিথি সাবেক এমপি ও বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ বলেন, বইটিতে একাধারে দেশপ্রেম, জাথীয়তাবাদী চেতনা ও ধর্মীয় মূল্যবোধের বিয়য় আলোকপাত করা হয়েছে। লেখককে এই অভিযাত্রা অব্যহত রেখে নির্বাচিত কলাম ২য় খন্ডের প্রকাশের আহবান জানান তিনি। মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট কাজী এনায়েত হোসেন বাচ্চু বলেন, জ্ঞান পিপাসু পাঠকের চাহিদার প্রতি লক্ষ রেখে লেখক যে উদ্যোগ নিয়েছেন তাতে দেশের পাঠক সমাজ উপকৃত হবে। অনুষ্ঠানের সভাপতি বিএনপি নেতা আনোয়ারুল হক তারিন বলেন, লেখকের বইটিতে জলবায়ু, সাংবাদিকদের স্বাধিনতা, আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমান, ও জিয়ার ১৯ দফা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। যা পাঠক সমাজের জানা দরকার।
উলে¬খ্য রেজাউল করিমের এই বইটিতে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত ১৯টি গুরুত্বপূর্ন কলাম রয়েছে। সমসাময়িক সমস্যা, রাজনৈতিক ও উপমহাদেশীয় রাজনৈতিক বিশে¬ষন, ইতিহাস, ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব ও ধর্মীয় মূল্যবোধ নিয়ে লেখা কলামগুলো স্থান পেয়েছে বইটিতে। দেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ বইটির ভুমিকায় মšতব্য লিখেছেন। #


প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের সৌজন্য সাক্ষাত

শুক্রবার, ০১ এপ্রিল ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:গত ৩০শে মার্চ বুধবার সন্ধ্যা ৮টায় বাংলাদেশ সফররত সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতকারে মিলিত হন। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানান।

Picture

বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে গড়ে তুলার জন্য এবং ১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যকর যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করে দেশকে কলঙ্ক মুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন এবং কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন বলে বাপসনিঊজকে জানান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের একনেতা ।


জকিগঞ্জ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশে গেছেন

শুক্রবার, ০১ এপ্রিল ২০১৬

alt
বাপসনিঊজ:জকিগঞ্জ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক এমএইচ মতিন সংক্ষিপ্ত সফরে বাংলাদেশে গেছেন । এ উপলক্ষে জকিগঞ্জ সোসাইটির নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি আবিদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইফজাল চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, অন্যতম উপদেষ্টা এমাদ উদ্দিন সহ আরো নেতৃবৃন্দ।


জেএসডি’র কমিটি ২০১৬-১৯ ঘোষনা উপলক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে প্রদত্ত বক্তব্য

বুধবার, ৩০ মার্চ ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ: গত ২৯ মার্চ বিকেল ৩টায়জেএসডি’র কমিটি ২০১৬-১৯ ঘোষণা উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।এতে প্রারম্ভিক বক্তব্য রাখেন ও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, লিখিত বক্তব্য ও কমিটি উপস্থাপন করেন সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন। লিখিত বক্তব্য সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশ আজ চরম অনিশ্চয়তা ও অন্ধকারের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। জনগনের ভোটাধিকার, মৌলিক গনতান্ত্রিক অধিকার, অবাধ রাজনৈতিক কর্মকান্ডের অধিকার, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের স্বাধীনতা সরকার কর্তৃক কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত। নির্বাচন ব্যবস্থা সহ সকল রাষ্ট্রীয় ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংশের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকেও ৫ই জানুয়ারীর সংসদ নির্বাচনের মত প্রহসনে পরিনত করা হয়েছে। দলীয়করণ করা হয়েছে পুলিশ, প্রশাসন থেকে শুরু করে বিচার বিভাগ পর্যন্ত। বিচার ব্যবস্থা ও প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে দুই মন্ত্রীর ঔদ্ধত্যপুর্ণ বক্তব্য ও সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক তাদেরকে সাজা প্রদান পরিস্থিতির ভয়াবহতারই প্রমাণমাত্র ।

alt
শেয়ার বাজার লুটের পর একের পর এক ব্যাংক লুট ও সর্বশেষ ১৬ কোটি মানুষের কোষাগার বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি, হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার জনগনকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। সরকারের অদক্ষতা ও ভুল কুটনীতির কারনে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক দিন দিন শীতল হয়ে পড়ছে। মালয়েশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য সহ বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রপ্তানী বন্ধ হয়ে পড়েছে বা পড়ছে। বৃটেন অষ্ট্রেলিয়া সহ বিভিন্ন দেশের সাথে বিমান যোগাযোগ কোন কোন ক্ষেত্রে বন্ধ হয়ে পড়েছে বা পড়ছে। জাতিসংঘের শান্তি মিশনে দীর্ঘ দিন যাবৎ অত্যন্ত সুনামের সাথে কাজ করার পরও আজকে মিশনে অবস্থানরত আমাদের সেনাবাহিনী সম্পর্কে নানা অপবাদ দেয়া শুরু হয়েছে। উপ আঞ্চলিক কানেক্টিভিটি ও ট্রান্সপোর্ট ইকোনোমি বিকাশেও সম্ভাব্য অগ্রগতি হচ্ছেনা।
দেশের আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। হত্যা, ধর্ষণ, দখলবাজী ইতিহাসের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁচেছে। জনগণের জীবন ও সম্পদের আজ কোন নিরাপত্তা নেই। এ সুযোগে জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীও মাথাচাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছে।এ অবস্থা চলতে থাকলে দেশ শুধু অনিশ্চয়তা ও অন্ধকারের দিকেই যাবেনা, অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হবে। এতে বিদেশীদের হস্তক্ষেপের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হবে।
বর্তমান ভয়াবহ অবস্থা থেকে জাতিকে রক্ষার জন্য প্রয়োজন জনগনের ভোটাধিকার, অবাধ রাজনৈতিক অধিকার, সকল গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করে একটি অংশগ্রহনমুলক নির্বাচন অনুষ্ঠান করা এবং নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ করার স্বার্থে পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ গঠন করে সেখান থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের বিধান করা। এর জন্য অবশ্যই তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তির মাধ্যমে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। এ রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জনে দলকে কার্যকরভাবে এগিয়ে নেয়ার বিষয় বিবেচনায় রেখেই আমরা আগামী দিনের দলের নেতৃত্ব বাছাই করেছি এবং এখন আমরা দলের কমিটি সমুহ আপনাদের মাধ্যমে জাতির সামনে উপস্থাপন করছি।
সাধারন সম্পাদক ৭ সদস্য বিশিষ্ট ষ্টিয়ারিং কমিটি , ১৯১ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি, ৩২ সদস্য বিশিষ্ট দলের উপদেষ্টা পরিষদ ও ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট সভাপতির উপদেষ্টা পরিষদ ঘোষণা করেন। কমিটির তালিকা পরবর্তীতে প্রেরন করা হবে


ইউপি নির্বাচনে প্রহসন ও সহিংসতায় উদ্বেগ দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচনের কারণেই যেসব খুন সংঘঠিত হয়েছে-এর দায় সরকারকেই নিতে হবে......জেএসডি

বুধবার, ২৩ মার্চ ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ইউপি নির্বাচনের প্রথম ধাপে নির্বাচনকে প্রহসনে পরিনত করা এবং ১১ জন নিহত ও অসংখ্য আহত হওয়ার প্রেক্ষিতে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন এক বিবৃতি প্রদান করেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচন সরকারের এ সিদ্ধান্তের কারণে এতোগুলো খুন সংগঠিত হয়েছে, অসংখ্য প্রাণহানীর আশংকা সৃষ্টি হয়েছে। এ আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের কারণে শান্তিপ্রিয় গ্রামের ঘরে ঘরে খুন-সংঘর্ষ-জিঘাংসাকে বিস্তার করে দিয়েছে সরকার। এসব খুনের দায় সরকার এবং নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই বহণ করতে হবে। সরকার জনগণের ভোটাধিকার হরণ, নির্বাচনী ব্যবস্থাকে কেবল ধ্বংস করেই ক্ষান্ত হচ্ছেনা, ক্ষমতার স্বার্থে সারা দেশটাকে ছিন্নভিন্ন করে দিচ্ছে-খুনের চারণ ভূমিতে পরিনত করছে। ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকার এবং নির্বাচন কমিশন চূড়ান্ত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। আমরা ইতিপূর্বেই এসকল উদ্বেগের কথা জানিয়েই দলীয় ভিত্তিতে ইউপি নির্বাচনের বিরোধীতা করেছিলাম।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ ‘ভোট বিহীন’ এবং ‘খুন’ করে ক্ষমতায় থাকার বর্তমান সরকারের যে রাজনীতি তার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য জনগণকে আহ্বান জানান।