Editors

Slideshows

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/455188Hasina__Bangla_BimaN___SaKiL.jpg

দাবি পূরণের আশ্বাস প্রধানমন্ত্

বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নে আলোচনা না করে আন্দোলন করার জন্য পাইলটরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দুঃখ প্রকাশ করে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন। পাইলটদের আন্দোলনের কারণে ফ্লাইটসূচিতে জটিলতা দেখা দেয়ায় যাত্রীদের কাছে দুঃখ See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/701424image_Luseana___sakil___0.jpg

লুইজিয়ানায় আকাশলীনা‘র বাৎসরিক

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ লুইজিয়ানা থেকে ঃ গত ৩০শে অক্টোবর শনিবার সনধ্যায় লুইজিয়ানা স্টেট ইউনিভার্সিটির ইণ্টারন্যাশনাল কালচারাল সেণ্টারে উদযাপিত হলো আকাশলীনা-র বাৎসরিক বাংলা সাহিত্য ও See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/156699hansen_Clac__.jpg

ইতিহাসের নায়ক মিশিগান থেকে বিজ

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ ইতিহাস সৃষ্টিকারী নির্বাচনে ডেমক্র্যাটরা হাউজের আধিপত্য ধরে রাখতে সক্ষম হলো না। সিনেটে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ অক্ষুন্ন রাখতে সক্ষম হলেও আসন হারিয়েছে কয়েকটি। See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/266829B_N_P___NY___SaKil.jpg

বিএনপি চেয়ারপারসনের অফিসে পুলি

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ আলাউদ্দিন রেষ্টুরেন্টের সামনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি তাৎক্ষণিক এক বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। এই See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বাংলাদেশের খবর

সভাপতি টানা ৩৫ বছরের

শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ :দায়িত্ব পেয়েছেন সেই ১৯৮১ সালে। এর পর থেকে পদের কোনো পরিবর্তন হয়নি। টানা ৩৫ বছর সভাপতি হিসেবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন উপমহাদেশের ঐতিহ্যবাহী দল ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’কে। আসন্ন কাউন্সিলে আবারো তিনিই সভাপতি হচ্ছেন। যা নিশ্চিত বলেই সবার জানা। দলের সর্বস্তরের আস্থা আর বিশ্বাসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দলের সভাপতি পদে এখন অদ্বিতীয়।

সাড়ে তিন দশকের রাজনীতির অভিজ্ঞতায় দলের কেন্দ্রে আপাতত শেখ হাসিনার আর কোনো বিকল্প নেই। সাংগঠনিক অন্য পদগুলোর হেরফের হলেও শেখ হাসিনার জন্য সভাপতির পদ ঠিকঠাক।আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মনে করেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই সকলের আস্থা। তার সফল নেতৃত্বের কারণেই আওয়ামী লীগ আজ সবচেয়ে ঐক্যবদ্ধ সংগঠন। দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী শেখ হাসিনার হাতেই নেতৃত্ব রাখতে চায়।

দীর্ঘ এই সময়ে দল ভেঙেছে। দুর্দিনে সতীর্থদের অনেকেই ছেড়ে গেছেন। বঙ্গবন্ধুর হাতে যাদের রাজনীতির শিক্ষা তাদের অনেকেই দলের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন। বাধা এসেছে চারপাশ থেকে। হত্যাচেষ্টার শিকার হয়েছেন ১৯ বার। দেশ-বিদেশি ষড়যন্ত্র এখনও পোক্ত। তবুও হাল ছাড়েননি তিনি। অবিচল লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে চলছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

ছয় বছরের নির্বাসিত জীবন শেষে  ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরেন তিনি। তবে এর আগে ১৯৮১ সালে তার অনুপস্থিতিতেই সর্বসম্মতিক্রমে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয় শেখ হাসিনাকে। দায়িত্ব পাওয়ার পর দেশের  গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে লিপ্ত হওয়ায় শাসকগোষ্ঠীর রোষানলে পড়েন তিনি। যার ফল হিসেবে  কারান্তরীণ হতে হয় বারবার। এছাড়া  হত্যার জন্য কমপক্ষে ১৯ বার সশস্ত্র হামলাও করা হয় তার উপর।

Picture

১৯৮৩ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি এরশাদ সরকার তাকে  ১৫ দিন কারা অন্তরীণ রাখে। ১৯৮৪ সালের ফেব্রুয়ারি এবং নভেম্বরে তাকে দুই বার গৃহবন্দী করা হয়। ১৯৮৫ সালের ২ মার্চ আবারো তাকে আটক করে প্রায় ৩ মাস গৃহবন্দী করে রাখা হয়। ১৯৮৬ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে তিনি ১৫ দিন গৃহবন্দী ছিলেন। ১৯৮৭ সালে ১১ নভেম্বর তাকে গ্রেফতার করে একমাস অন্তরীণ রাখা হয়। ১৯৮৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি শেখ হাসিনা গ্রেফতার হয়ে গৃহবন্দী হন। ১৯৯০ সালে ২৭ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু ভবনে অন্তরীণ করা হয় শেখ হাসিনাকে। সর্বশেষ ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই সামরিক বাহিনী সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার তাকে গ্রেফতার করে সংসদ ভবন চত্বরে সাবজেলে পাঠায়। প্রায় এক বছর পর ২০০৮ সালের ১১ জুন মুক্তিলাভ করেন তিনি।

রাজনীতির পথচলার এই সময়ে বহুবার তাকে হামলার শিকার হতে হয়েছে। সবচেয়ে ভয়াবহ হামলার শিকার হয়েছেন ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট। ওইদিন বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ-এ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য শেষের  পরপরই তাকে লক্ষ্য করে এক ডজনেরও বেশি আর্জেস গ্রেনেড ছোঁড়া হয়। রোমহর্ষক সেই হামলায় শেখ হাসিনা প্রাণে রক্ষা পেলেও মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইভি রহমানসহ দলের ২৪ নেতাকর্মী নিহত এবং ৫শ’র বেশি মানুষ আহত হন। এসময় শেখ হাসিনা নিজেও কানে মারাত্মক আঘাত পান। তবে শত আঘাত সয়েও দলের জন্য নিবেদিত তিনি।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জন্ম। জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিষ্ঠাকালীন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

জন্মের পর থেকেই একেকটি ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ একেকটি ইতিহাসের জন্ম দিয়েছে। ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৫৪’র নির্বাচন, ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭০’র নির্বাচন এবং ৭১’র মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সর্বাধিক ভূমিকা পালন করে। মহান মুক্তিযুদ্ধে একক নেতৃত্ব গড়ে তোলে সংগঠনটি। এরশাদ-বিরোধী আন্দোলনেও দলটির অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে।

জন্মের পর থেকেই ভাঙন, নানা ঘাত-প্রতিঘাত আর প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করে আজ ৬৭ বছরে পা দিয়েছে দলটি। রাজনীতির এক ক্রান্তিকালে ১৯৬৬ সালে সম্মেলনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলে সভাপতি হন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন দলের সভাপতি নির্বাচিত হন তখন দুর্দিন যাচ্ছিল। তার দৃঢ় মনোবলের কারণে দল ঘুরে দাঁড়ায়। শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বের কারণেই আওয়ামী লীগ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শক্তিশালী দল।তিনি আরো বলেন, ‘শুধু দলেই নয়, সরকারের মধ্যেও এখন আস্থার প্রতীক শেখ হাসিনা। তার হাতেই দল বেশি সংগঠিত এবং শক্তিশালী। তার নেতৃত্বেই আমাদের ভবিষ্যৎ ভরসাও।


বর্তমানকন্ঠ ৪র্থ প্রতিষ্টা বাষিকী ২৫ ফেব্রুয়ারী

মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

Picture

আয়েশা আক্তার রুবি,বাপসনিউজঃ জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বর্তমানকন্ঠ -এর ৪ বছরে পদার্পন উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্বরন ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হবে ২৫ ফেব্রুয়ারী ,বৃহস্প্রতিবার বিকাল ৩টায় কাঠালিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। বর্তমানকন্ঠ পাঠক ফোরাম নরসিংদী থানা আয়োজিত উক্ত অনুষ্টানে সবাইকে স¦াদর আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজকবৃন্দ।

Capture


ভ্যালেন্টাইন ডে-তে এম জসীমউদ্দিনের“সবুজ $ নষ্টা নারী” মোড়ক উন্মোচন

সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি, বাপসনিউজ:গত ১৪ই ফেব্রুয়ারী ভ্যালেন্টাইন ডে-তে ঢাকার অমর একুশে বই মেলার নজরুল মঞ্চে মোড়ক উম্মেচিত হলো যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী সাবেক ছাত্রনেতা এম জসীমউদ্দিনের লেখা “সুবজ $ নষ্টা নারী” প্রকাশ করেছেন উত্তরণ প্রকাশনী, বাংলাবাজার, ঢাকা। এম জসীমউদ্দিনের লেখা তিনটি উপন্যাসের মধ্যে “সবুজ $ নষ্টা নারী” মোড়ক উন্মোচন করলেন “জসীমউদ্দিনের” নির্মাণাধীন “দি আমেরিকান ড্রীম” মুভির অভিনেত্রী “আইরিন”।

Picture

সন্ধ্যে ৭:০০ টায় নজরুল মঞ্চে এই প্রথম জনকীর্ণ বইপ্রেমীদের মাঝে নতুন প্রাণের সঞ্চার করলেন চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী “আইরিন”। তিনি বললেন, আজ সত্যিকার ভাবেই আমি অনুপ্রাণিত ও অবিভূত আজকের এই ভ্যালেন্টাইনে “জসীমউদ্দিনের” মুভি “দি আমেরিকান ড্রীম” চুক্তিপত্র সম্পাদন করলাম এবং মাত্র দুই ঘন্টা পরেই উনার লেখা একটি রোমন্টিক উপন্যাস মোড়ক উন্মুচন করতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি।

alt

এই উপন্যাসের লেখক এম জসীমউদ্দিন মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বই প্রেমিদের উদ্দেশ্য বলেন, আমার একটি শোগান:-
“ভালোবাসায় রাঙ্গিয়ে দাও বাংলাদেশ,
ভালোবাসায় এগিয়ে চলো বাংলাদেশ।”


ব্রাম্মনপাড়ায় স্কুল শিক্ষককে বিদায় সংবর্ধনা

বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিউজ:বিশেষ প্রতিনিধি:গত ২৫ জানুয়ারী, সোমবার কুমিল্লার ব্রাম্মনপাড়ার ধান্যদৌলে আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রবীন শিক্ষক মুক্তিযোদ্ধা তপন কান্তি দেবকে বিদায় সংবর্ধনা দিয়েছেন বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ।আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মো.রমিজউদ্দিনের পরিচালনায় প্রধান শিক্ষক  আবুল খায়েরের সভাপতিত্বে বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়,আবদুল মতিন খসরু মহিলা কলেজ, মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী ডিগ্রি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী।

mosaroff  Baps

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সদস্য, ব্রাম্মনপাড়া উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার  নুরুল ইসলাম,মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী’র সহধর্মীনি ফয়জুন নাহার চৌধুরী,কুমিল্লা জেলা অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি,আমাদের টিভি২৪ ডটকমের সম্পাদক উপাধ্যক্ষ এটিএম সাইফুল ইসলাম মাসুম, দেশের সময় ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সুমন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সদস্য আ:খালেক,মোহন মিয়া,মনির হোসেন,নুরজাহান বেগম,আবদুর রাজ্জাক খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক নাজির আহম্মদ,জাকির হোসেন,সামসুদ্দিন আহম্মদ,নজরুল ইসলাম ভুইয়া,এনামুল হক,সফিকুল ইসলাম,শীলা সেন গুপ্তা,আনোয়রা আক্তারসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,সাংবাদিক।
এ সময় বক্তারা শিক্ষার্থীদের মনোযোগী হয়ে লেখা পড়া করে ভাল ফলাফল অর্জন করে মানুষের মত মানুষ হয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহব্বান জানান। বিদায়ী শিক্ষক মুক্তিযোদ্ধা তপন কান্তি দেব’র পাঠদান জীবনের সৃতিচারন করেন।


‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা যথার্থ’ ‘তথ্যের মিছিল’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি খাদ্যমন্ত্রী মন্ত্রী কামরুল ইসলাম,এমপি

মঙ্গলবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিউজ:বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা যথার্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম,এমপি। তিনি আরও বলেছেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পর মীমাংসিত বিষয় নিয়ে যারা প্রশ্ন তুলবে, তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হওয়া উচিত। গতকাল রবিবার,৩১ জানুয়ারী দুপুরে বঙ্গবন্ধু প্রচার কেন্দ্র সমাজকল্যান পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র উদ্যোগে,ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু প্রচার কেন্দ্র ও সমাজকললান পরিষদ-এর সহ সভাপতি ও “তথ্যের মিছিল” সংকলন-এর সম্পাদক ও লেখক ফিরোজ মাহমুদের ‘তথ্যের মিছিল’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম,এমপি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, বঙ্গবন্ধু, ও শহীদদের সংখ্যা নিয়ে যারা প্রশ্ন তোলেন তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হওয়া উচিত। রাষ্ট্রের সাংবিধানিক দায়িত্ব এদের সবার নামে মামলা করা। তিনি বলেন, খালেদার নামে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা যথার্থ হয়েছে। যিনি এই মামলা করেছেন, তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়েই মামলাটি করেছেন। বিএনপির স্থানীয় কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধেও কেন রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হলো না এ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু প্রচার কেন্দ্র সমাজকল্যান পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান শামীম । 

গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক,এমপি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির ভিসি আবদুল মান্নান চৌধুরী,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দীয় কমিটির সাবেক সহকারী সম্পাদক ও সুপ্রিম কোটের আইনজীবি শফিক মাহমুদ পিন্ট,ুসম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আবদুল কুদ্দুস, বাংলাদেশ কৃষক লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি এমএ করিম ও আওয়ামী লীগ নেতা মিনহাজুল ইসলাম প্রমুখ।

ফিরোজ মাহমুদ তার মন্তব্য বলেন আমাদের মহান মুক্তিযোদ্ধের আগেও পরের কিছু ঘটনা, ছবি, সার্ক সামিট সহ বিশ্বের ২০ টি দেশের গুরুত্বপূর্ন তথ্য নিয়ে “তথ্যের মিছিল” নামে একটি সংকলন প্রকাশ করেছেন কমিউনিটির প্রিয় মুখ, যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু প্রচার কেন্দ্র ও সমাজকললান পরিষদ-এর সহ সভাপতি ও “তথ্যের মিছিল” সংকলন-এর সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ। ৪০০ পৃষ্ঠার এই সংকলনের ৪টি চ্যাপ্টারে এসব তথ্যগুলি সন্নিবেশিত করা হয়েছে। প্রথম অধ্যায়ে রয়েছে ১৯৪৭ সাল খেকে ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ, দ্বিতীয় অধ্যায়ে বাংলাদেশ ও সার্ক সামিট সহ ২০ টি দেশের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি। ৩য় অধ্যায়ে রয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস এবং চতুর্থ অধ্যায়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ এবং সাধারন নির্বাচন বিষয়ক তথ্যাবলী রয়েছে।
“তথ্যের মিছিল” সংকলন-এর সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ অত্যন্ত ধৈর্য্য সহকারে সংক্ষিপ্ত পরিসরে বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য তুলে ধরার প্রয়াস চালিয়েছেন। “তথ্যের মিছিল” সংকলন-এর সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ আরো বলেন ,পরবর্তীতে আরো তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে কয়েক খন্ড প্রকাশ করা হবে।

আগ্রহী পাঠকরা এক মলাটের ভিতরে সংক্ষিপ্তভাবে বাংলাদশের অভ্যুদয়, পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর আত্যসমপর্ণের দলীল, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষন, স্বাধীনতার ঘোষণা, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাক বাহিনীর অপারেশন সার্চ লাইট, ভাষা আন্দোলন, ১৯৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধ, মুক্তি বাহিনী, মুক্তিযুদ্ধ ইত্যাদির পরিচয় পাবেন। এছাড়াও আছে বিশ্বের জনসংখ্যার বিবরন বিশ্বের মুসলিম দেশ সমূহের বর্ণনা, সার্ক সামিট ইত্যাদি।

তথ্যের মিছিল বইটির নামকরনই বলে দেয়-এর সীমানা আকাশ ছোঁয়া। দেশ ও প্রবাসের সকল শ্রেণীর পাঠক তাদের সব জানার চাহিদা পূরণ করতে পারবে বইটি থেকে। আগামী দিনের সংকলনে লেখকের কাছে আমাদের এই প্রত্যাশা রইল। একজন পাঠক হিসেবে আমার পরামর্শ থাকবে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় নানাবিধ তথ্যও এতে সংযুক্ত করতে পারেন। বিশেষ করে নিউইয়র্ক এর দর্শণীয় স্থান, কিভাবে যাবেন, অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের পরিচয় ইত্যাদি সহ অন্যান্য তথ্য এই আগামী দিনের মিছিলে স্থান করে নিতে পারে।


সংকলন-এর সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ আগামীতে আরো নতুন নতুন তথ্য নিয়ে , তথ্য সমৃদ্ধ “তথ্য মিছিল” নিয়ে জনতার মিছিলে শরীক হবেন।


বান কি মুনের ফোন, জাতিসংঘ প্যানেলে শেখ হাসিনা

সোমবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন।  রবিবার রাত ৮টায় জাতিসংঘ মহাসচিব এই ফোন করেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।তিনি বলেন, ফোনালাপে তারা পারস্পরিক শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এরপর বান কি-মুন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে জানান, জাতিসংঘ ‘ইউনাইটেড নেশনস হাই লেভেল প্যানেল অন ওয়াটার’নামে একটি প্যানেল করতে যাচ্ছে। এই প্যানেলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে সদস্য হিসেবে রাখার প্রস্তাব করেন বান কি-মুন। প্রধানমন্ত্রী এই প্রস্তাবে সম্মতি জানান।

 Picture
ইহসানুল করিম বলেন, আগামী জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে জাতিসংঘে পুলিশের একটি সম্মেলন হবে। এই সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে উচ্চ পর্যায়ের একটি দল পাঠাতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন বান কি-মুন। আগামী ডিসেম্বরে ঢাকায় গ্লোবাল ফোরাম অন মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট শীর্ষক একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।প্রেস সচিব ইহসানুল বলেন, ফোনালাপে এই সম্মেলনে অংশ নিতে জাতিসংঘ মহাসচিবকে আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী।
 
প্রধানমন্ত্রী বান কি-মুনকে বলেন, বাংলাদেশ এখন স্থিতিশীল। সকল রাজনৈতিক দল এখন ইউনিয়ন কাউন্সিল পর্যায়ের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। সকলে নির্বাচনের কাজে ব্যস্ত। এর আগে সকল দলের অংশগ্রহণে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অব্যাহত রয়েছে।


আইন-শৃংখলা বাহিনী পেশাগত পরিধি অক্রিম করছে ...... আবদুল মালেক রতন

রবিবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ:জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেছেন, দেশের আইন-শৃংখলা বাহিনী জনগনের সাথে আচরনে পেশাগত নীতিবোধ ও পরিধি অতিক্রম করছে। দেশের গনতšন্ত্রহীনতার সুযোগেই তাদের পক্ষে এমনটি করা সম্ভব হচ্ছে। A S Mঐতিহাসিক ২রা মার্চ স্বাীনতার পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে আ স ম আবদুর রব এ দেশের স্বাধিকার সংগ্রামকে স্বাধীনতার দিক দর্শন দিয়েছিলেন। এবার ২রা মার্চ পালনের মধ্য দিয়ে আমরা গনতন্ত্র প্রুতিষ্ঠার দিক দর্শন প্রদান করবো। আজ বিকেল ৪টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ২রা মার্চ উদযাপন কমিটির সভায় বক্তব্য দানকালে আবদুল  মালেক রতন এ সকল কথা বলেন।খবর বাপসনিঊজ।

২রা মার্চ উদযাপন কমিটির আহবায়ক বিশিষ্ট গীতিকার শহীদুললাহ ফরায়জীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহবায়ক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জেএসডি নেত্রী  তানিয়া ফেরদৌসী, এম এ গোফরান, আনোয়ার হোসেন, আতাউল করিম ফারুক,  সিরাজ মিয়া, জিয়া খোন্দকার, কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, মোশারফ হোসেন, কাজী আবদুস সাত্তার, আবদুর রাজ্জাক রাজা, আবদুললাহ আল তারেক, সৈয়দা ফাতেমা হেনা,মজিবুর রহমান মোললা, এস এম রানা চৌধুরী, মাইন উদ্দিন বিপলব প্রমুখ।


জেএসডি নেতা আকরাম খান এর ইন্তেকাল শোক প্রকাশ

রবিবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ:জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি টাঙ্গাইল জেলা শাখার সহ-সভাপতি আকরাম খান ( ৭৪ ) গতকাল ৫ ফেব্রুয়ারী সকালে টাঙ্গাইলের বাশাইল উপজেলাধীন বাঐখোলা গ্রামের নিজ বাড়ীতে ইন্তেকাল করেছেন ( ইন্নালিল্লাহে........... রাজেউন)। তিনি দীর্ঘ দিন যাবৎ বার্ধক্য জনিত রোগে ভুগছিলেন। ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি অবিবাহিত ছিলেন। গতকাল বাদ আসর স্থানীয় স্কুল মাঠে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে মরহুমের দাফন সম্পন্ন হয়। দাফন অনুষ্ঠানে টাঙ্গাইল জেলা জেএসডি’র সাধারন সম্পাদক শফিউল আলম সহ জেএসডি’র অসংখ্য নেতা-কর্মী সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহন করেন।খবর বাপসনিঊজ।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন লিটন এবং সাধারন সম্পাদক সামসুউদ্দিন আহমেদ শামীম- এক বিবৃতিতে আকরাম খান এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।


মাটিতেই বসে পড়লেন প্রধানমন্ত্রী

মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:ঢাকা : নিজের সরকারি বাড়ি গণভবনে অনেককেই চায়ের দাওয়াত দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অতিথিদের মধ্যে ছিলেন শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব, গণমাধ্যমকর্মী, আইনজীবী, রাজনীতিক ও অধ্যাপকরা।

Picture

সোমবার বিকেলে অতিথিরা তার বাসায় গেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সাড়ে ৪টার দিকে গণভবনের লনে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সবাইকে নিয়ে খোলা মাঠে মাদুর পেতেই বসে পড়েন তিনি। তাকে ঘিরে ছিলেন নারীরা। প্রায় সোয়া একঘণ্টা সবার সঙ্গে আড্ডায় মাতেন তিনি। সবাইকে আপ্যায়িত করা হয় শীতের পিঠা-পুলি দিয়ে।

alt

পাশেই নির্মিত মঞ্চে চলছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আড্ডার পাশাপাশি অনেকেই উপভোগ করেন গান আর আবৃত্তি। কিন্তু সবকিছুইকে ম্লান করে দেয় প্রধানমন্ত্রীর আড্ডা। এসময় প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ছিলেন তার ছোট বোন শেখ রেহানা, মেয়ে সায়মা হোসেন পুতুল, রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক। তারাও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মাদুরে বসেন।

alt

বিশিষ্টজনদের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক, মহাসচিব অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন অর রশীদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মীজানুর রহমান প্রমুখ। সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিকুল্লাহ খান মাসুদ, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী, একাত্তর টিভির মোজাম্মেল বাবু,  নবনিতা চৌধুরী, এটিএন বাংলার জ ই মামুন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল বাসেত মজুমদার, ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম। সংস্কৃতি ব্যক্তিত্বের মধ্যে ছিলেন মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, অভিনেতা আলী যাকের, পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, চঞ্চল চৌধুরী প্রমুখ।বিশিষ্ট নাগরিকদের নিয়ে চা চক্র ও পিঠা উৎসবে ছিল নানা ধরনের পিঠা-পুলি, কাবাব, পরটা, নানসহ আরো অনেক কিছু।

alt

আর সেই আড্ডা চলে মাগরিবের আজান পর্যন্ত। মাগরিবের নামাজ শেষে প্রধানমন্ত্রী প্রায় দেড় ঘণ্টা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সঙ্গে তাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে বৈঠক করেন। সেখানেই রাতের খাবারও খাবেন তারা।

'আমাদের প্রধানমন্ত্রী'

আমাদের প্রধানমন্ত্রী
চেয়ারে বসেছেন অতিথিরা। আর প্রধানমন্ত্রী বসেছেন মাটিতে শতরঞ্জি পেতে। এমনই একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে। এই ছবি শেয়ার করে কেউ কেউ লিখছেন, 'আমাদের প্রধানমন্ত্রী' হাসিনার দ্বারাই সম্ভব মানুষের সাধারণ মানুষের কাতারে দাঁড়ানো। সোমবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাড়িতে পিঠা-পুলির দাওয়াত খেতে এসেছেন অনেকে শিক্ষক, কেউ সাংবাদিক, কেউ সাহিত্যিক, কেউ সাংস্কৃতিক কর্মী। ছোট একটা মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। সেখানে চলছে অনুষ্ঠান আর প্রধানমন্ত্রী সামনে মাটিতে বসে সেই অনুষ্ঠান দেখছেন। তার পাশে ছোট বোন শেখ রেহানা ছাড়াও রয়েছেন অন্য অনেকে। সবার সঙ্গে আড্ডা জমিয়ে অনুষ্ঠান উপভোগ করছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রতিবারের মতো এবারও পিঠা উৎসবের আয়োজন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৮ জানুয়ারি) বিকেলে প্রধানমন্ত্রী বাসভবন গণভবনে এ আয়োজন করা হয়। প্রথমে গান দিয়ে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়।


মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সরকার নির্বাসনে দিয়েছে ...... আ স ম আবদুর রব

সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৬

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলক, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আ স ম আবদুর রব বলেছেন,জনগণের রাজনৈতিক অধিকার অর্থাৎ জনগণের রাষ্ট্র জনগণের সম্মতি ও সমর্থনে পরিচালিত হবে-এটাই ছিলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মৌল ভিত্তি। কিন্তু সরকার জনগণের রাজনৈতিক অধিকার-ভোটের অধিকার, মৌলিক মানবাধিকার হরণ করে জোরপূর্বক ক্ষমতা আকড়ে আছে। রাষ্ট্র ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সরকার নির্বাসনে দিয়েছে। জনগণের অধিকার লুন্ঠন করে ক্রীতদাসের রাষ্ট্র বানানোর জন্য মুক্তিযুদ্ধ সংগঠিত হয়নি। জনগণের আত্মদান, জনগণের সংগ্রামী অবদানেই আজকের বাংলাদেশ অথচ জনগণকে প্রতিনিয়ত উপেক্ষা করা হচ্ছে-অবহেলা করা হচ্ছে। যারা অধিকার আদায়ে প্রতিবাদকারী তাদের গ্রেপ্তার-নির্যাতন, ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে। অন্যায়-অযোগ্যভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গিয়ে জাতির নৈতিকতাকে চরমভাবে ধ্বংস করা হচ্ছে।

Picture

জনাব রব বলেন, এই রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব থেকে মুক্তি পেতে হলে সংবিধানের ব্যাপক সংস্কার করতে হবে। দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট গঠন করতে হবে, প্রদেশ ও প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা গড়ে তোলাসহ জেএসডি’র ১০ দফা বাস্তবায়ন করতে হবে। আজ ১৪.জানুয়ারী সকাল ১১ টায় টাঙ্গাইল জেলা জেএসডি আয়োজিত কাউন্সিলের উন্মুক্ত অধিবেশনে প্রধান অতিথি’র ভাষণ দানকালে জনাব রব এ সকল কথা বলেন।

  বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেএসডি সাধারন সম্পাদক  আবদুল মালেক রতন বলেন, জঙ্গী ইস্যুতে বৃহৎ শক্তি সমুহ বাংলাদেশকে দাবার গুটি হিসাবে ব্যবহার করতে তৎপর। শক্তিশালী জাতীয় ঐক্য ও গনতন্ত্রের মধ্যদিয়ে আমাদেরকে জঙ্গীবাদের উত্থান যেমন রোধ করতে হবে তেমনি বিদেশী অপতৎপরতাও অকার্যকর করে দিতে হবে।

  টাঙ্গাইলের ভাষানী হলে জনাব মতিউর রহমান মতির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অধিবেশনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জিয়া খোন্দকার, এ্যাড. এম এ রশিদ, শফিউল আলম, নুরুল ইসলাম নুরু, জহুরুল ইসলাম, এ্যাড. মফিজুর রহমান, মোতাহার হোসেন, ফারুক শিকদার, আমিনুল ইসলাম বাদশা, গোলাম আম্বিয়া জিন্নাহ, রফিকুল ইসলাম হুমায়ন প্রমুখ।


শতবাষির্কীতে রায়পুর এল, এম, পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়

সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৬

আলম শাইন : দেড়যুগ অবধি দেশের প্রথম শ্রেণীর জাতীয় দৈনিকগুলোতে লিখছি। লিখতে হচ্ছে দেশের বাইরের কয়েকটি খবরের কাগজেও। দু’হাতে লেখা বলতে যা বুঝায়, সেটিই করছি আমি। প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন কাগজে লিখতে হচ্ছে আমাকে। সাধারণত দু’টি কারনে লেখালেখি করছি। প্রথমত: জীবিকার তাগিদে। দ্বিতীয়ত: নেশার একটা ব্যাপার-স্যাপর জড়িত আছে তৎসঙ্গে। গল্প, উপন্যাস লেখার পাশাপাশি লিখতে হচ্ছে সমসাময়িক বিষয় নিয়েও। তন্মধ্যে বন্যপ্রাণী নিয়ে লিখতে হচ্ছে বেশি বেশি। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বন্যপ্রাণীদের অবদান নিয়ে লিখে মানুষকে সচেতন করার প্রয়াসেই মূলত এ দিকটায় নজর দেয়া। তা ছাড়া এ বিষয়ে আরো উদ্বুদ্ধ হয়েছি যুক্তরাষ্ট্র থেকে ‘বোষ্টন বাংলা নিউজ অ্যাওয়ার্ড’-এ ভূষিত হয়ে। ২০০৮ সালে জীবনধর্মী একটি উপন্যাসের জন্য ‘ড. মঞ্জুশ্রী’ পুরস্কারেও ভূষিত হয়েছি। এ সব বলার উদ্দেশ্য শুধু একটিই, আর সেটি হচ্ছে আমি রায়পুর এল, এম, পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৮৭ইং ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলাম, আর সেই শিক্ষার্থীর সফলতাটা জানান দেয়া। ছাত্র হিসাবে খুব একটা ভাল ছিলাম না। আমার চেয়ে যারা অধিকতর ভাল ছাত্র ছিলেন, তারা নিশ্চয়ই আজ আকাশচুম্বী সাফল্য পেয়েছেন, যার তুলনায় আমি হয়তো নস্যি। তার পরও বলবো আজকের এ জায়গায় আশার মূলমন্ত্রটি কিন্তুু আমাকে শিখিয়েছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ। আর হ্যাঁ, বিদ্যালয়ের লাইব্রেরীর কথাটা না বললেই নয়। ওই রুমটায় পদচারণা না থাকলে হয়তো আজ নামের শেষে বিশেষণগুলো যোগ হতো না। ঋৃণী তাই আমি সবার কাছে। স্কুলের শিক্ষক এবং দপ্তরী থেকে শুরু করে ইট-সুড়কির ভবনটার কাছেও ঋৃণী আমি।

Alam Sahin
প্রিয় পাঠক, ছোট ভাইতুল্য ¯েœহভাজন আলমগীর হোসেন-এর পীড়াপীড়িতে লেখাটির অবতারনা। আলমগীরকে বলেছি নিজ বিদ্যালয় সম্পর্কে লেখার সাহস আমার নেই। কি রেখে কি লিখবো কিংবা কোন স্যারকে বাদ দিয়ে কোন স্যারকে নিয়ে লিখবো তা আমার কাছে কঠিন পরীক্ষা মনে হচ্ছে। আলমগীর নাচোড়বান্দা লিখতে-ই হবে কিছু না কিছু। প্রতিশ্রুতি মোতাবেক লেখার চেষ্টা করলাম তাই।
জানি রায়পুর এল,এম, পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় সম্পর্কে ঢাকঢোল পিটিয়ে বলার তেমন কিছু নেই। এটি শুধু লক্ষ্মীপুর জেলাই নয়, বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার মধ্যে অন্যতম একটি স্কুল। স্কুলটি স্থাপিত হয়েছে ১৯১১ সালে। রায়পুর উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ একটি স্থানে স্কুলটি দাঁড়িয়ে আছে। যার সামনে দিয়ে চলে গেছে রায়পুর-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কটি। এতে করে শিক্ষার্থীদের যাতায়তের সহজ মাধ্যম তৈরি হয়েছে। তাই নি:সন্দেহে বলতে পারি বিদ্যালয়ের অবস্থানটি আদর্শস্থান দখল করে আছে। শিক্ষার্থীদের প্রাণবন্ত রাখতে স্থানটি যথেষ্ট সহায়কও। এ ছাড়াও রয়েছে স্কুলটির নান্দনিক দর্শন। যার ফলে একটি অমনোযোগী শিক্ষার্থীও স্কুলের সান্নিধ্যে এসে নিজদেরকে গড়ে তোলার মোক্ষম সুযোগ পেয়ে যায়। যার প্রমাণও রয়েছে ভূরিভূরি। এসএসসি-তে বারাবরই ভাল রেজাল্ট করছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। যখন স্কুলে ভর্তি হয়েছি তখন থেকে আজ অবধি শুনে আসছি বিদ্যালয়ের জয় জয়কার। নিজ সন্তানদেরকে শুনিয়ে আত্মতৃপ্তি বোধকরি তা। রায়পুরে অবস্থান করলে অবশ্যই সন্তানদেরকে এ স্কুলের শিক্ষার্থী হিসাবে দেখার সুযোগ হতো আমার। সে সুযোগটি হাতছাড়া হওয়াতে বিষণœতায়ভোগী মাঝে মাঝে। তাই বলছি প্রাক্তন শিক্ষার্থী ভাইদেরকে যাদের অবস্থান রায়পুরে তারা যেন এ ভুলটি না করেন। আমরা চাই বংশ পরম্পরায় এই ঐতিহাসিক স্কুলটির ছাত্র হয়ে থাকতে।
সর্বশেষ বলতে চাই, এমন একটি ঐতিহাসিক স্কুলে পড়ার সৌভাগ্য হয়েছে বিধায় গর্বিত আমি। যে স্কুলটির ‘শতবার্ষিকী অনুষ্ঠান’ পালিত হচ্ছে আজ ঘটা করে। যার জন্যে আরো সুভাগ্যবান মনে হচ্ছে নিজকে যে, বার্ষিকীটা দেখার সুযোগ হয়েছে মধ্যবয়সে এসেই।  
লেখক: আলম শাইন, কথাসাহিত্যিক, কলামিষ্ট, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ। এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।