Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

প্রবাসীদের খবর

কানাডিয়ান-বাংলাদেশী পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটির যাত্রা শুরু

শনিবার, ০৩ জুন ২০১৭

Picture
“কানাডিয়ান-বাংলাদেশী পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি”  (CBPAC ) ইতি মধ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে দেশে ফেরত পাঠানোর দাবীতে “মুভমেন্ট ফর ডিপোটেশন অব নূর চৌধুরী” টরোন্টোর ড্যানফরথে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করে। কানাডিয়ান-বাংলাদেশী পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি (CBPAC ) কানাডার ৬জন ( আইন প্রণেতা ) সংসদ সদস্যদের সাথে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করার আমন্ত্রণ পেয়েছেন। প্রাথমিকভাবে ১০১ সদস্যোর পরিচালনা পর্সদ নিয়ে যাত্রা শুরু করা এই সংগঠনটি বাংলাদেশে সরকারের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্বার্থ এবং বাংলাদেশের গণমানুষের সার্বিক কল্যাণে কাজ করবে বলে এর প্রেসিডেন্ট, সিইও ও প্রতিষ্ঠাতা ফেরদৌস বারী  জন বাপসনিউজকে জানান।

alt
কানাডিয়ান-বাংলাদেশী পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি (CBPAC )-এর অন্যতম শীর্ষ পরিচালক ও উপদেষ্টা নির্বাচিত করা হয়েছে যুক্তরাষ্টের মূলধারার রাজনীতিক, মানবাধিকার কমি.এক্টিভিষ্ট, আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন সভাপতি, যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার হু হজ হো, নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিল, ফোবানাসহ অসংখ্যাক পুরস্কার বিজয়ী সিনিয়র সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকনকে।
উল্লেখ্য, আমেরিকান ইসরাইল পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি ( AIPAC ) বিশ^ব্যাপী সবচেয়ে শক্তিশালী জুইসদের লবিং অর্গানাইজেশন হিসেবে পরিচিত। এরই আদলে “কানাডিয়ান-বাংলাদেশী পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি (CBPAC ) বিশ^ব্যাপী বাঙ্গারীদের শক্তিশালী লবিং অর্গানাইজেশন হিসেবে কাজ করবে।


ব্রিটেন পার্লামেন্ট নির্বাচনে এবার ১৪ বাংলাদেশি প্রার্থী

শনিবার, ০৩ জুন ২০১৭

বাপ্ নিউজ : ব্রেক্সিট তথা ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে আসার প্রক্রিয়া জোরদার করতে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির সংখ্যাগরিষ্ঠতা আরও নিরঙ্কুশ করতে গত ১৮ এপ্রিল আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে। এই নির্বাচনে বিভিন্ন দলের হয়ে ১৪ জন ব্রিটিশ বাংলাদেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বলে জানা গেছে।

এদের আটজন লড়ছেন প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির হয়ে। চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী, লিবারেল ডেমোক্রেট ও ফ্রেন্ডস পার্টির হয়ে লড়ছেন একজন করে। আগামী ৮ জুন বৃহস্পতিবার এই ভোট হবে।  

Picture

৬৫০ আসনের পার্লামেন্টের ৩৩১টিতে জয়ী হয়ে গতবার সরকার গঠন করেছিল কনজারভেটিভরা। ২০১৫ সালের ওই নির্বাচনে লেবার পার্টির হয়ে লড়েছিলেন পাঁচজন ব্রিটিশ বাংলাদেশি, যাদের তিনজনই জয়ী হন। তবে কনজারভেটিভ দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী একমাত্র ব্রিটিশ বাংলাদেশি পরাজিত হয়েছিলেন।

গতবারের বিজয়ী রুশনারা আলী, টিউলিপ সিদ্দিক ও রুপা হক এবারও লেবারের টিকেটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের সঙ্গে এই দল থেকে প্রার্থী হয়েছেন আনোয়ার বাবুল মিয়া, মেরিনা আহমদ, রওশন আরা, ফয়সল চৌধুরী এমবিই  ও আবদুল্লাহ রুমেল খান।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাজু মিয়া; ফ্রেন্ডস পার্টির হয়ে লড়ছেন আফজল চৌধুরী। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন আজমল মাশরুর, অলিউর রহমান, আবু নওশাদ ও ব্যারিস্টার মির্জা জিল্লুর।

লুটন সাউথ এলাকা থেকে আশুক আহমেদ নামে আরেক বাংলাদেশিকে মনোনয়ন দিয়েছিল লিবারেল ডেমোক্রেটিক দল। তবে ইহুদিবিদ্বেষী মন্তব্য করায় সম্প্রতি তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।


ওভালে এক টুকরো বাংলাদেশ

শুক্রবার, ০২ জুন ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিজ দেশ থেকে অনেক দূরে। তারপরেও কমতি নেই উচ্ছ্বাসের। বাঙ্গালি নৃত্যে সেটিই জানান দিচ্ছেন প্রবাসীরা। লাল-সবুজের দেশকে উপস্থাপন করছেন বিশ্ব দরবারে। উপলক্ষ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। বাংলাদেশকে দিয়েই সূচনা হয় এই টুর্নামেন্টের। কেনিংটন ওভালে বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে তিনটায় ম্যাচটি শুরু হয়। তার আগে ওভালের রাস্তায় লাল শাড়ি পরে নেচে নেচে বাংলাদেশকে স্বাগত জানান তরুণীরা।

Picture

২০০৬ সালে ভারতে অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সবশেষ খেলেছিল বাংলাদেশ। সেবার ১০ দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয়েছিল বিশ্বকাপের পর আইসিসির দ্বিতীয় সেরার মর্যাদা পাওয়া চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। মাঝে ২০০৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ২০১৩ সালে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসে অনুষ্ঠিত আইসিসি ট্রফির সপ্তম ও অষ্টম আসরে খেলার সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ। ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে সেরা আট দল খেলার সুযোগ পাবে- আইসিসির এমন নিয়মের কারণে ওই দুই আসরে খেলতে পারেনি। তবে নবম আসরে র্যা ঙ্কিংয়ের সেরা আট দলের একটি হয়ে বাংলাদেশ (র‌্যাঙ্কিং ছয়) যোগ্যতা পূরণ করেই আবারো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলছে বাংলাদেশ। https://www.youtube.com/watch?v=onZh9QFQMyo


ফিনল্যান্ডে জিয়াউর রহমানের স্মরণে আলোচনা সভা

বৃহস্পতিবার, ০১ জুন ২০১৭

বাপ্‌স নিউজ : নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করেছে বিএনপির ফিনল্যান্ড শাখা।সোমবার সন্ধ্যায় হেলসিংকির কনতুলায় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে আয়োজন করা হয় আলোচনা সভা। এছাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতির আত্মার শান্তি কামনা করে অনুষ্ঠিত হয় মিলাদ মাহফিল।আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ফিনল্যান্ড বিএনপির সক্রিয় নেতা জামান সরকার। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন মবিন মোহাম্মদ।১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে সেনাবাহিনীর একদল সদস্যের হাতে নিহত হন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান।

সামছুল গাজীর স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মোকলেসুর রহমান চপল, বদরুম মনির ফেরদৌস, এজাজুল হক ভূঁইয়া রুবেল, মিজানুর রহমান মিঠু, প্রদীপ কুমার সাহা, আলাউদ্দিন মোহাম্মদ, আবদুল্লাহ আল আরিফ, তাপস খান, মোস্তাক সরকার, মোহাম্মদ সাহিন ও আবুল কালাম আজাদ।

বক্তারা দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিতে দেশপ্রেমিক প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।একইসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সকল নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দায়ের করা  ‘মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক’ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তারা।জামান সরকার বলেন, “দেশে আজ গণ আছে তবে তন্ত্র নেই, নীতি নেই। সরকারি দলের নেতাকর্মীরা নিজেদের ভাগবাটোয়ারায় ব্যস্ত। এভাবে চলতে থাকলে দেশ নিয়ে গর্ব করার মতো কিছু আর থাকবে না। প্রবাসে আমরা মুখ দেখাতে পারবো না।”

পদ্মাসেতুতে বিপুল ব্যয়ের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “পাশের দেশেও অনেক কম খরচে বিশাল সেতু তৈরি হয়। আর আমরা নিজেরা কীভাবে লাভবান হবো সেই চিন্তা করে দুর্নীতির মহড়া দেখাচ্ছি।”

জিয়াউর রহমানের আদর্শ ধারণ করে খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানের যোগ্য নেতৃত্বে ন্যায়ের পথে দেশ গড়তে প্রবাসী নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান জামান সরকার।অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন নাজমুল হুদা মনি, মীর সেলিম, সুমন, তাজুল ইসলাম, মো. আনোয়ার হোসেন, আরিফ বাবু, নাজমুল হাসান, মো. সাইফুর রহমান সাইফ, ফাহমিদ উস সালেহীন, মনোয়ার পারভেজ, ইব্রাহিম খলিল, মো. সালাহউদ্দিন, জনি খান, মো. সামিউল আরেফিন, জাভেদ ইকবাল, মোয়াজ্জেম ভূঁইয়া, মোহাম্মদ জুয়েল, হাজি সুলাইমান, মনিরুল ইসলাম, সবুজ খান, মো. শিপন, মুকুল হোসেন, আহসান হাবিব সজল, সুকান্ত, মোহাম্মদ ইসমাইল, মোহাম্মদ তানিম, আজহার, মো. আশরাফ আহমেদ, ফাহিম শাহরিয়ার, সামি-উর রাশেদীন, মীর ইসমাইল প্রমুখ।


প্রধানমন্ত্রীর সফর : অস্ট্রিয়া পৌঁছেছেন ইউরোপ আ.লীগের নেতারা

মঙ্গলবার, ৩০ মে ২০১৭

কমল সাহা, বাপ্ নিউজ : ভিয়েনা থেকে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের আণবিক শক্তি কমিশনের এক সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশ্যে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় পৌঁছাবেন স্থানীয় সময় বিকেল ৩টায়। মঙ্গলবার আণবিক শক্তি কমিশনের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখবেন।সোমবার সন্ধ্যায় অস্ট্রিয়া গ্রান্ড হোটেল বলরুমে প্রবাসীদের দেয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত নেতাকর্মীদের সঙ্গে ইফতার পার্টিতে যোগ দেবেন বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে অস্ট্রিয়ার ভিয়েনা শহরে ইতোমধ্যে পৌঁছেছেন ইউরোপ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। ইউরোপ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির সবাইকে অভ্যর্থনা জানান।

Picture

ইতোমধ্যে ভিয়েনা শহরে পৌঁছেছেন সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাশগুপ্ত, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম হক, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, প্রবাসকল্যাণ সম্পাদক হাসনাত মিয়া, জার্মান আওয়ামী লীগের একাংশের সভাপতি এ কে এম বশিরুল আলম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শেখ বাদল আহমেদ। ইতোমধ্যে ভিয়েনায় পৌঁছেছেন সর্ব ইউরোপীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাশগুপ্ত, জার্মান আওয়ামী লীগ সভাপতি এ কে এম বশিরুল আলম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শেখ বাদল আহমেদের নেতৃত্বে ৩০ জন জার্মান আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

এছাড়া বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী রতনসহ ৮ জন, ফ্রান্স আওয়ামী লীগ একাংশের সভাপতি এম এ কাশেম সাধারণ সম্পাদক মুজিবর রহমান, ফ্রান্স আওয়ামী লীগের আতিকুজ্জামান, হল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন তপন, ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া, সুইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল খান, গ্রীস আওয়ামী লীগের সভাপতি রাকিব মৃধা, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সামাদ মাদবর, স্পেন আওয়ামী লীগ নেতা রিজভী আলম, পর্তুগাল আওয়ামী লীগ নেতা সোহরাব হোসেন সুমনসহ শখানেক ইউরোপ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী।

সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ গণি আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ৯ ঘটিকায় ভিয়েনা পৌঁছবেন। আগামীকাল রাত ৮টায় প্রধানমন্ত্রী ঢাকার উদ্দ্যেশ্যে অস্ট্রিয়া ত্যাগ করবেন।


প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাতে অস্ট্রিয়া যাচ্ছেন ডেনমার্ক আ. লীগ নেতৃবৃন্দ

শনিবার, ২৭ মে ২০১৭

Picture

বাপ্ নিউজ : কোপেনহেগেন : আগামী ২৯ মে, ২০১৭ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের আণবিক শক্তি কমিশনের এক সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশ্যে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনা শহরে আসবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে অভ্যর্থনা জানাতে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর সভাপতি ইকবাল হোসেন মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া এর নেতৃত্বে এক প্রতিনিধিদল অস্ট্রিয়া যাচ্ছেন। উল্লেখ ২৯ মে ,২০১৭ সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় অস্ট্রিয়া গ্রান্ড হোটেল বলরুমে প্রবাসীদের দেয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন। ৩০ মে , রাত ৮ ঘটিকায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঢাকার উদ্দ্যেশ্যে অস্ট্রিয়া ত্যাগ করবেন।


টোরন্টো মেয়র জন টরি সকাশে এনকেইএনএ’র প্রতিষ্টাতা ও সিইও ফেরদৌস বারী জন

বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন ,বাপসনিউজ : সম্প্রতি কানাডার টোরন্টো সিটি মেয়র জন টরির আমন্ত্রণে নারায়নগঞ্জ কালচারাল এন্ড এডুকেশন অব নর্থ আমেরিকার প্রতিষ্ঠাতা ও আহবায়ক এবং সিইও ফেরদৌস বারী জন সাক্ষাৎ করেছেন। খবর বাপসনিউজ। উল্লেখ্য, ফেরদৌস বারী জন গত মাসে অনুণ্ঠিত টোরন্টো সিাট নির্বাচনে কাউন্সিলার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নিয়ে মুলধারায় ব্যাপক আলোচিত হয়েছেন। ফেরদৌস বারী জন টরন্টো সিটির মেয়র জন টরির সাথে মতবিনিময় কালে টোরন্টো প্রবাসী বাঙ্গালীদের বিভিন্ন সমস্যা ও সিটির সুযোগ ও সহযোগীতার ব্যাপারে আলোকপাত করেন। মেয়র জন টরি নারায়ণগঞ্জ কালচারাল এন্ড এডুকেশন অব নর্থ আমেরিকার কার্যক্রমে সহযোগিতার আশ^াস দেন।

Picture
ছবিতে কানাডার টোরন্টো সিটি মেয়র জন টরির সাথে নারায়নগঞ্জ কালচারাল এন্ড এডুকেশন অব নর্থ আমেরিকার প্রতিষ্ঠাতা ও আহবায়ক এবং সিইও ফেরদৌস বারী জন।


বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে কানাডা থেকে বাংলাদেশ সরকারের হাতে হস্তান্তরের দাবিতে মানববন্ধন

বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭

alt

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত নূর চৌধুরী ১৯৯৬ সাল থেকে কানাডায় বসবাস করছেন। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি কর্নেল অব. নূর চৌধুরীকে কানাডা  থেকে বহিষ্কার করে বাংলাদেশ সরকারের কাছে হস্তান্তর করার দাবি নিয়ে দু’দেশের প্রধান মন্ত্রী, পররাস্ট্র মন্ত্রীসহ বিভিন্ন পর্যায়ে বিভিন্ন রকমের চেষ্টা চললেও দু’দেশের কিছু আইনগত কারণে সম্ভব হয়ে উঠছে না। বহিস্কার প্রক্রিয়া চেষ্টার ধারাবাহিকতায় কানাডা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে  মন্ট্রিয়লের এ মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।  মানববন্ধনে বিভিন্ন রকমের ব্যানার ফেস্টুন প্লেকার্ড নিয়ে াবপুল সংখ্যাক  প্রবাসীরা উপস্থিত শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত করে তুলেন।

alt

মানববন্ধনে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন কানাডা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ মাহমুদ মিয়া, মুক্তিযুদ্ধের গবেষক তাজুল মোহাম্মদ, আওয়ামীলীগ নেতা শ্যামল দত্ত, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মুহিবুর রহমান, ফনিভূষণ ভট্টাচার্য, ইতরাদ জুবেরী সেলিম, অমলেন্দু ধর, বাবলা দেব, জিয়াউল হক জিয়া প্রমুখ। বক্তারা কানাডা একটি মানবাধিকারের দেশ, এ দেশে আত্মস্বীকৃত খুনির আশ্রয়স্থল হতে পারেনা বলে মন্তব্য করে অনতিবিলম্বে নূর চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরৎ দেওয়ার জন্য কানাডার প্রধান মন্ত্রীর কাছে জোর দাবি জানান। মানববন্ধন চলাকালে মূলধারার মানুষরা গাড়ীর হর্ণ বাজিয়ে সমর্থণ জানান। কানাডাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের বেশ ক’জন কর্মকর্তাকেও মানববন্ধনের পাশে পর্যবেক্ষণ করতে দেখা গেছে। মানববন্ধন শেষে মন্ট্রিয়লর একটি রেস্তোরাঁয় বাংলাদেশ হাই কমিশনের কর্মকর্তাসহ স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের নেতৃবৃন্দ এক সভায় মিলিত হয়ে আগামী দিনের কর্মসূচি নিয়ে মত বিনিময় করেন। জানাযায়, কানাডার বিভিন্ন প্রবিন্স ও শহর থেকে বাংলাদেশী প্রবাসীদের স্বাক্ষর সংগ্রহ করে কানাডার প্রধান মন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হবে।

alt

অপরদিকে কানাডায় পালিয়ে থাকা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি নুর চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে লেখা বাংলাদেশি কানাডিয়ান কিশোরী মাশকুরা তাবাসসুম তাথৈ গত মার্চে লেখা  চিঠির ইতিবাচক জবাব দিয়েছে সেদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।সম্প্রতি তাথৈকে লেখা পাল্টা চিঠিতে জাস্টিন ট্রুডোর দপ্তর থেকে তার বিশেষ সহকারি জীবন সিং স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, ‘জনাব’ নুর চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর দাবি সম্বলিত চিঠিটি জননিরাপত্তা ও জরুরী অবস্থা প্রস্তুতি মন্ত্রী রালফ গুডেল এবং, আইন মন্ত্রী ও এটর্নি জেনারেল জুডি উইলসন রেনোল্ড এর দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।

alt

কানাডা থেকে কাউকে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার জননিরাপত্তা ও জরুরী অবস্থা প্রস্তুতি মন্ত্রণালয় এবং আইন মন্ত্রণালয় ও এটর্নি জেনারেলের দপ্তরের বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। আরও বলা হয়, ‘আমরা আশা করি, চিঠির বিষয়বস্তু যথাযথ বিবেচনা পাবে’।গত মার্চ ৮ তারিখে বাংলাদেশি কিশোরী তাথৈ কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর দৃষ্টি আকর্ষণ করে এক চিঠি প্রেরণ করে। সেখানে তাথৈ লিখেছিল যে, বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর আত্মস্বীকৃত খুনি নুর চৌধুরী কানাডাকে তার নিরাপদ আশ্রয় বানিয়ে ফেলেছে। গত ২১ বছর ধরে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ও হত্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত নুর চৌধুরী টরেন্টোতে নির্ঝঞ্ঝাট জীবন যাপন করছে। কানাডার মতো একটি দেশ নুর চৌধুরীর মতো আত্মস্বীকৃত খুনির নিরাপদ আবাসস্থল হতে পারে না।

alt

কানাডায় ‘রিফিউজি স্ট্যাটাস’ আবেদন করে প্রত্যাখ্যাত, এমনকি ডিপোর্টেশন আদেশ মোকাবেলা করার পরেও কানাডা থেকে নুর চৌধুরীকে আইনি কারণে বহিষ্কার করা যাচ্ছে না। অন্য কোন দেশে ফেরত গেলে ফাঁসির সাজা ভোগ করতে পারেন, এমন কোনো ব্যক্তি কানাডা ভ্রমণে আসলে, নিজে উদ্যোগী হয়ে না ফেরত গেলে, তাকে সরকার জোর করে ফেরত পাঠাতে পারবে না মর্মে ২০০১ সালে কানাডার সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছিল, তারই সুফল ভোগ করছে বঙ্গবন্ধুর খুনি নুর চৌধুরী। কানাডার অভিবাসন এবং উদ্বাস্তু মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে চারবার নুর চৌধুরীর দরখাস্ত নামঞ্জুর করেছে।

Picture

তাথৈ লিখেছিল, ‘অন্যদের মতো আমিও আশায় বুক বেঁধে আছি, মানবতাবিরোধী অপরাধ করা নুর চৌধুরীকে অচিরেই বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে, যাতে করে সে তার সাজা ভোগ করতে পারে। ২০০৯ সালে বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্ট বঙ্গবন্ধু এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যার দায়ে নুর চৌধুরীসহ আরও ১১জনের বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দেয়। আসামিদের অনেকের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে। নুর চৌধুরীকে দেশে ফেরত পাঠানো হলে এক্ষেত্রেও ন্যয়বিচার প্রতিষ্ঠা পাবে বলে আমি বিশ্বাস করি’।

alt

গত বছর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর মধ্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকে খুনি নূর চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছিলো। উল্লেখ্য, বিভিন্ন সূত্র এবং মিডিয়ায় প্রকাশিত রিপোর্ট থেকে জানা যায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডের রাতে এই নূর চৌধুরীই না-কি গুলি করেছিলেন জাতির পিতাকে। সেই কাল রাতে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডের বাড়িতে খুনিরা মেতে উঠেছিল হত্যার উল্লাসে। বঙ্গবন্ধু, তার স্ত্রী, ছেলে, পুত্রবধূ, ভাই, ভাগ্নে, ভাগ্নের স্ত্রী, কাজের লোক-সহ ২১ জনকে হত্যা করা হয় সেই রাতে। সেই দিন বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা আর শেখ রেহেনা বিদেশে থাকায় তারা প্রাণে বেঁচে যান। ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ  নেওয়ার পর খুনি নূর চৌধুরী সপরিবারে কানাডায় পালিয়ে যান।


কোপেনহেগেনে বাঙালি-ডেনিশ মিলনমেলা

বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭

বাপ্ নিউজ : ডেনমার্ক থেকে : উত্তর-ইউরোপের হাড়কাঁপানো শীতের বিদায়ের অপেক্ষাটাই ছিল শুধু। শীত শেষ হতেই বাংলাদেশ দূতাবাস আর ডেনমার্কে বসবাসরত বাঙালিদের দীর্ঘদিনের প্রতীক্ষার অবসান হলো। গত ২০ মে শনিবার পড়ন্ত বিকেলের মিষ্টি রোদে বাল্টিক সাগরের তীরঘেঁষা নয়নাভিরাম বাংলাদেশ দূতাবাসের সবুজ চত্বরে বর্ণিল আয়োজন ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় উদ্‌যাপিত হলো বাংলা নববর্ষ ও পিঠা উৎসব। বাংলাদেশ দূতাবাস এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

alt

বিপুলসংখ্যক ডেনিশ নাগরিক ও প্রবাসী বাঙালিদের মিলনমেলায় অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন ডেনমার্কে সফররত বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি। অতিথিদের উদ্দেশে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এই অভূতপূর্ব আয়োজনের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ ধরনের অনুষ্ঠান বিদেশিদের কাছে বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি বহুগুণ বাড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি প্রবাসে বেড়ে ওঠা নূতন প্রজন্মের মাঝে হাজার বছরের বাঙালি কৃষ্টি-কালচারের শেকড় প্রোথিত করবে বলে মন্তব্য করেন। ডেনমার্কে বসবাসরত সব শ্রেণি-পেশার বাংলাদেশিদের বিশেষকরে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি নারী ও শিশুদের কাছে পেয়ে তিনি উচ্ছ্বাসে অভিভূত হন।উল্লেখ্য, পরিবার-পরিজন নিয়ে ৩০০ জনের বেশি বাঙালি ও প্রায় ৫০ জন ডেনিশ অতিথির আগমনে দূতাবাস চত্বর মুখর হয়ে ওঠে।

alt

বর্ষবরণ ও পিঠা উৎসবকে সামনে রেখে পুরো দূতাবাস চত্বরকে বাঙালিয়ানা সাজে সাজানো হয়। ডেনমার্কে বসবাসরত গিনেজবুকে নাম লেখানো পথ চিত্রশিল্পী রুহুল আমিন কাজলের আঁকা রঙিন নকশা আর আলপনা আগত অতিথিদের বিস্ময়াভিভূত করে। এ ছাড়া আবহমান বাঙালি সংস্কৃতির ঐতিহ্য বহন করে এমন সব চারু-কারু, নকশি ও তাঁতের তৈরি জিনিস দিয়ে মঞ্চ সাজানো হয়। শুরু থেকেই প্রবাসী বাংলাদেশি শেখ ফাতেমা ওয়ারার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।

alt

‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’ সমবেত সংগীতের মধ্য দিয়ে উপভোগ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরু হয়। এরপর প্যারিস থেকে আসা বাংলাদেশি কূটনীতিক ও স্বনামধন্য সংগীতশিল্পী ফারহানা আহমেদ চৌধুরী আর প্রবাসী শিল্পী নাইম অর্ণব ও ওমর ফারুকের গাওয়া একের পর এক গান আগত অতিথিদের মাঝে মুগ্ধতা ছড়িয়ে দেয়। অবাক বিস্ময়ে বিদেশি অতিথিরা বাংলা গানের বিশাল সম্ভার আর সুরের মূর্ছনা উপভোগ করতে থাকেন। ডেনিশ সংগীতশিল্পী জিমের গাওয়া গান অনুষ্ঠানে ভিন্ন মাত্রা দেয়। সার্বিক শব্দ নিয়ন্ত্রণ ও তবলায় ছিলেন প্রবাসী সাঈদ শোয়েব। গানের ফাঁকে বাংলা গানের তালে লিয়া, মৃত্তিকা, অপূর্বা, অহনা আর টিনার নাচ প্রবাসী বাংলাদেশিদের মোহিত করার পাশাপাশি আগত বিদেশি অতিথিদের কাছে ঐতিহ্যে সমৃদ্ধ নতুন এক বাংলাদেশকে পরিচয় করিয়ে দেয়।

alt

অনুষ্ঠানে দূতাবাস আর প্রবাসী বাংলাদেশি পরিবারের পরিবেশনায় বিরিয়ানি, পিঠা-পুলি, দই-মিষ্টি, শিঙারা-সমুচা, জর্দা পায়েসসহ হরেকরকম বাঙালি খাবারের বিপুল আয়োজন করা হয়। মুখোরোচক বাংলাদেশি খাবারের বৈচিত্র্য আগত বিদেশি অতিথিদের মাঝে বিস্ময়ের জন্ম দেয়। ডেনমার্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত ও তার সহধর্মিণী রুবি পারভীন অনুষ্ঠানে আগত সকল অতিথিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় ও অনুষ্ঠানে আসার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

alt

মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে নববর্ষের কল্যাণময় শক্তিকে কাজে লাগিয়ে সকল মতানৈক্যের ঊর্ধ্বে থেকে প্রবাসে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে সকলের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

alt

বিকেল ৩টায় শুরু হয়ে রাত ৮টা অবদি বর্ষবরণের এই জমজমাট আয়োজন চলে। দূতাবাসের প্রথম সচিব শাকিল শাহরিয়ার সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। প্রথমবারের মতো ডেনমার্কে বাংলাদেশ দূতাবাসে হয়ে যাওয়া বর্ষবরণের এই আয়োজন আগত অতিথিদের মনে বহুদিন সুখস্মৃতি হয়ে থাকার পাশাপাশি জন-কূটনীতিতে একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে আগত অতিথিদের দৃঢ় বিশ্বাস।


সুইজারল্যান্ড আ.লীগের নতুন কমিটি

সোমবার, ২২ মে ২০১৭

রোমান রহমান, বাপ্ নিউজ : সুইজারল্যান্ড থেকে : তাজুল ইসলামকে সভাপতি ও শ্যামল খানকে সাধারণ সম্পাদক করে সুইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি করা হয়েছে।রোববার সুইজারল্যান্ডের বার্ন শহরে সুইজারল্যান্ড  আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন শেষে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ গনি।শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, জার্মান আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম বশিরুল আলম সাবু , ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া, বিদায়ী সভাপতি হারুন ব্যাপারী ও বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক কারার কাউসার।অন্যান্যদের মধ্যে আরও ছিলেন জার্মান আওয়ামী লীগের নর্দার্ন ভেস্টফালেনের সভাপতি যুবরাজ তালুকদার ,নুরুল ইসলাম , লোকমান ভূঁইয়া প্রমুখ।

Picture

সু্ইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও নির্বাচন পরিচালনা পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন জহিরের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব খলিলুর রহমান সম্মেলন সঞ্চালনা করেন। পরে নির্বাচনে সুইজারল্যান্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম সভাপতি পদে ও শ্যামল খান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।নির্বাচনে সভাপতি পদে আরও ছিলেন নজরুল জমাদার ও হারুন ব্যাপারী এবং সাধারণ সম্পাদক পদে আরও ছিলেন আমজাদ চৌধুরী, লেকু রহমান , কারার কাউসার ,ইশরাক আহমেদ নিপুন ,কাজী শওকত আজগর রিপন ও আশরাফুল আলম। সম্মেলনে যোগ দেন সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন শহর থেকে নেতাকর্মীরা।


মেহের আফরোজ চুমকিকে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের গণসংবর্ধনা

সোমবার, ২২ মে ২০১৭

সফিউল সাফি, বাপ্ নিউজ : ডেনমার্ক থেকে : ডেনমার্কে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকিকে গণসংবর্ধনা দিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ।গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ সভাপতি মোস্তফা মজুমদার বাচ্চু। সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমানের সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংগঠনের উপদেষ্টা বাবু সুভাষ ঘোষ, মাহবুবুল হক, হাসনাত রুবেল, রাফায়েত হোসেন মিঠু এবং ফ্রান্স আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিক্কুজ্জামান।এ সময় উপস্থিত ছিলেন- ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোকন মজুমদার, জাহিদ বাবু ও নাসির সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাইম উদ্দিন, নুরুল ইসলাম টিটু ও সফিউল সাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার সাইদুর রহমান, অর্থ সম্পাদক মোসাদ্দেকুর রহমান রাসেল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চারনেতা, ভাষা শহীদ, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট ও মুক্তিযুদ্ধে নিহত শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বাংলাদেশে মহিলা ও শিশুদের জন্য সরকারের গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগের কথা জানান। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের নারীরাও এগিয়ে যাচ্ছে। জনসংখ্যার অর্ধেক নারী, তাদেরকে দারিদ্র্য সীমার নিচে রেখে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়।

Picture

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- গোলাম কিবরিয়া শামিম, মোহাম্মদ সেলিম, আন্তর্জাতিক সম্পাদক রাসেল, অভিবাসন সম্পাদক আরিফুল হক আরিফ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সম্রাট, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ইউসুফ আহম্মেদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক কোহিনুর আক্তার মুকুল, ধর্ম সম্পাদক কচি মিয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নীরু সুমন, বন ও পরিবেশ সম্পাদক কামরুল ইসলাম, কৃষি সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক রেজাউল হক রেজা, মহিলা সম্পাদক তানিয়া সুলতানা চাপা, যুব ও ক্রিড়া সম্পাদক মোহাম্মদ সেলিম, শিক্ষা ও মানব সম্পদ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন খান, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক মোতালেব হোসেন, শ্রম সম্পাদক গোলাম রাব্বি, সহ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক লায়লা আক্তার সীমা, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পাদক সামছুদ্দিন, দফতর সম্পাদক দেবাসীষ দাস, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নয়ন।

এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন- কার্যকরী কমিটির সদস্য মোসাদ্দিকুর রহমান রাসেল, রনি, ওমর, আমির জীবন, ফজলে রাব্বি, সামসুল আলম, সোহেল আহমেদ, শামীম খান, সাফায়েত অন্তর, তাসবির হোসেন, মাঞ্জুর আহমেদ মামুন, মাসুম বিল্লাহ, মনসর আহমেদ, মোহাম্মাদ ইউসুফ, শাওন রহমান, সাইদুর রহমান, নাজমুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম, হাসান শাহীন, তুহীন, আরিফুল হক আরিফ, আজাদুর রহমান, রাজ্জাক, নাজমুল হোসেন, দোলনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।