Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

প্রবাসীদের খবর

" ধান নদী খাল এই তিন মিলে বরিশাল " জেদ্দায় বরিশাল প্রবাসী বিভাগীয় সমাজ কল্যাণ সমিতির অভিষেক ও বনভোজন

মঙ্গলবার, ০৭ মার্চ ২০১৭

Picture

বাহার উদ্দিন বকুল,বাপ্ নিউজ : জেদ্দা সৌদি আরব : গত ৩ মার্চ শুক্রবার জেদ্দার একটি পিকনিক স্পটে অত্যন্ত আনন্দমূখর পরিবেশে অভিষেক ও বনভোজনের আয়োজন করে বরিশাল প্রবাসী বিভাগীয় সমাজ কল্যাণ সমিতি জেদ্দা।দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালায় ছিল মধ্যান্যভোজছেলে মেয়েদের খেলাধুলা,উক্ত অভিষেক অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সভাপতি, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও রাজনীতিবিদ ইউছুফ মাহমুদ ফরাজি, সিনিয়র সহসভাপতি,

আবু তায়েব ও যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিল্টন এর যৌথ পরিচালনায়, অনুষ্ঠানের প্রধানঅতিথিহিসেবে উপস্থিতছিলেনরিয়াদ দূতাবাস মিশন উপ প্রধান ড. নজরুল ইসলাম, জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটেরকনসাল জেনারেল এফ,এম, বোরহান উদ্দিন, বিশেষ অতিথিগণের মধ্যে ছিলেন, শ্রম কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম, কাউন্সিলর আজিজুর রহমান, সিনিয়র সহসভাপতি, সাইদুল ইসলাম, বাংলা স্কুল ব্যবস্থাপনা পরিষদ চেয়ারম্যান,মার্শেল কবির পান্নু, ইংলিশ স্কুল ব্যবস্থাপনা পরিষদ চেয়ারম্যান,

কাজী নেয়ামুল বশির, মোশারফ হোসেন, নজরুল ইসলাম,আবুল বাশার বুলবুল ,আক্কাস মিয়া, কাজি আমিন আহমেদ, টিপু সুলতান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন ভূঁইয়া, হুমায়ূন কবির, মীর মনিরুজামান তফন, রুমী সাঈদ, আনিসুর রহমান, জাকির হোসেন,

আহমেদ এনাম কারী, বেলায়েত হোসেন, মনিরুল ইসলাম, আক্তারুজ্জামান, আসাদুজ্জামান, তোফায়েল আহমেদ, বদরুজ্জামান, আবু বক্কর কোরাইসী,সিদ্দিকুর রহমান, নাহিদ হোসেন, মাসুদ খান, মোঃ ইব্রাহিম খান, আমির হোসেন, সহ বিভিন্ন সমিতির নেত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, আমি এই সংগঠনের উওোরোওর সাফল্য কামনা করি, প্রবাসী বাংলাদেশীদের এক ঘেঁয়েমি জীবন যাত্রার মাঝে ক্ষণিকের জন্য হলেও এ ধরনের প্রচেষ্টাসকলের বিষাদকে দূরীভূত করবে। এ ধরনের সংঘবদ্ধ্ব সমিতি প্রবাসীদের কাজের মনোবলকে আরও উজ্জীবিত করবে বলে আমার প্রত্যাশা।এবং সমিতির সবাইকে সৌদি আরবের আইন কানুন মেনে চলে আপনারা এই সংগঠনের মাধ্যমে প্রবাসে শুধু বরিশালের নয়,সমগ্র বাংলাদেশের ভাবমুর্তিকে উজ্জ্বল করবেন।
জেদ্দা কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল এফ,এম,ভোরহন উদ্দিন বলেন, বরিশালকে প্রাচ্যের ভেনিস এবং শষ্য ভাণ্ডার বলা হয়, এই অঞ্চলের লোকদের অতিথিয়তা সবার জানা, এই সমিতির মাধ্যমে সেই ঐতিহ্য সকলে জানতে পারবে এটাই কামনা।প্রবাস জীবনে সকল প্রবাসী এখানের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে সকল অনুষ্ঠান পালন করবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। আপনাদের কর্মকান্ডের ফলে আমাদের দেশের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল হবে। মরু-প্রান্তরের এই মরু মেলায় সবাই একই সূঁতোয় বাঁধা থাকবেন এটাই আমার প্রত্যাশা।

অনুষ্ঠানে সভাপতি তার সমাপনি বক্তব্য বলেন, শের ই বাংলা, জীবনান্দন দাস, সুফিয়া কামাল, তোফাজ্জল হোসেন, মানিক মিয়া প্রমুখ গুনিজনের এই ধান, নদী খালের দেশ বরিশাল। এখানে শুয়ে আছেন অনেক কামেল পীর বুজুর্গ ব্যক্তিবর্গ।যাদের স্নেহাস্পর্শে আজ আমরা ধন্য। এমন একটি সফল আয়োজনের জন্যে আগত সকল অতিথিদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও সমিতির সকল সম্মানিত সদস্যদেরকে সমিতিতে তাদের সার্বিক সহযোগিতার জন্যে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। বরিশাল বিভাগীয় সকল ভাইয়েরা একত্রে ভ্রাতৃত্ব বন্ধনে আবদ্ধ থাকবেন, এই আমার প্রত্যাশা। আমি প্রবাসী বরিশাল বিভাগীয় সমাজ কল্যাণ সমিতির সার্বিক সাফল্য কাম্না করছি।  

এর পর জেদ্দার জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী মিজানুর রহমানের পরিচালনায় নাচ-গানে ভরপুর এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান শেষে খেলাধুলায় বিজয়ীদের হাতে পুরুষকার তুলে দেওয়া হয়।


লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ক্ষুদে সাংবাদিক জাইমকে সম্মাননা

মঙ্গলবার, ০৭ মার্চ ২০১৭

Picture

এছাড়াও লন্ডনস্থ জিবিনিউজ২৪.কম-এর চতুর্থ বর্ষপূর্তিতে তাকে বিশেষ সম্মাননা দেয়া হয়। ব্রিটিশ এমপি সীমা মালহোত্রা জাইমের হাতে এই বিশেষ সম্মাননা পদক তুলে দেন।এছাড়াও লন্ডনস্থ জিবিনিউজ২৪.কম-এর চতুর্থ বর্ষপূর্তিতে তাকে বিশেষ সম্মাননা দেয়া হয়। ব্রিটিশ এমপি সীমা মালহোত্রা জাইমের হাতে এই বিশেষ সম্মাননা পদক তুলে দেন।

জাইম হোসেইনের বাবা রাকিব রুহেল। জাইমকে নিরলসভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন তার বাবা রাকিব রুহেল ও মা লাবনী হোসেইন। জাইমকে নিয়ে তার তার বাবা রাকিব রুহেল এবং মা লাবনী হোসেইন বলেন, লেখাপড়া শেষে ব্রিটিশ মূলধারার সাংবাদিকতায় তাদের সন্তান বিশেষ অবদান রেখে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করুক। তারা এ জন্য দেশের মানুষ এবং প্রবাসীদের কাছে দোয়া চেয়েছেন।


কানাডার লন্ডনে এই প্রথম পালিত হলো একুশ

সোমবার, ০৬ মার্চ ২০১৭

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী শিশু-কিশোরেরা

দিনটি এখানে কর্মদিবস হওয়ায় শহরের কর্মব্যস্ত বাঙালিরা দিবসটি পালনের জন্য ২৫ তারিখটি বেছে নেন। শহরের ১৮৪৫ বেলিমোট অ্যাভিনিউয়ে বাংলা অন্তপ্রাণ বাঙালিরা ভোরবেলায় জড়ো হয়ে প্রভাতফেরির মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু করেন। আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি গানের সুরে সুরে তারা নিজেদের হাতে বানানো পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন নিজেদের তৈরি শহীদ মিনারের পাদদেশে। সুদূর প্রবাসে মাতৃভূমির একটুকরো অংশে তারা যেন ঢেলে দেন নিজেদের মন-প্রাণ।

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী পুরুষেরা
তানিয়া রুবাইয়াতের পরিচালনায় বাংলা গান, কবিতা, নাচ আর যন্ত্র সংগীত বাজিয়ে অনুষ্ঠানের প্রথম অংশ প্রাণবন্ত করে রাখে শিশু-কিশোরেরা। ছোট্ট রোদেলা একুশের ইতিহাস উপস্থাপনা করে সবার জন্য। অরিত্র, নাভিদ, তাহসান আর সারিন কবিতা পড়েছে; গান গেয়েছে সাবিন, আতিক ও আহসান। ফারহান পিয়ানোতে বাংলা গান বাজিয়েছে। ছোটদের অংশের শেষে ছিল আবার রোদেলার নাচ। ‘আমি বাংলায় গান গাই’ গানের সুরে রোদেলার নাচের সঙ্গে অংশ নিতে হয়েছে তার মা-বাবা মাহমুদা আর রিপনকে।
অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী নারীরা

বড়দের অংশে গান গেয়েছেন জহির ইসলাম ও বানু আক্তার, শফিউর রহমান, মাহমুদা সুলতানা ও কাজী আফজাল আহমেদ। কবিতা পাঠ করেছেন ইশরাত লতা, পারভিন আক্তার, তানিয়া রুবাইয়াত ও মিল্টন। অপেক্ষাকৃত ছোট শহরের ছোট বাঙালি কমিউনিটির একুশেকে ঘিরে এই আয়োজন সবাইকে আবেগ আপ্লুত করে তুলে।

Picture

সেই আবেগ যেন ছুঁয়ে দেয় নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েদেরও। বাবা-মাকে অনুকরণ করে তারাও যেন বাঙালির আবহমান সংস্কৃতি আর একুশের চেতনায় ঋদ্ধ হয়ে একাত্ম হয়ে পড়ে পুরো আয়োজনের সঙ্গে।প্রসঙ্গত, গত ১৬ ডিসেম্বর অন্টারিওর লন্ডনে প্রথমবারের মতো উদ্‌যাপিত হয়েছিল বিজয় দিবস। তারই ধারাবাহিকতায় একুশে পালন। এই শহরে বাঙালির একুশ পালন এই প্রথম।


সৌদি আরবের বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গবন্ধুর আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সোমবার, ০৬ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : সৌদি আরব : সৌদি আরবের রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনী চলছে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস থেকে শুরু হয়ে স্বাধীনতার মাসে, এখনো বিভিন্ন পেশার প্রবাসীরা প্রতিদিন এটি দেখছেন। দূতাবাসের সহযোগিতায় এই প্রদর্শনী আয়োজন করেছে রিয়াদ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ। দূতাবাসে প্রতিদিন কনস্যুলার সেবা নিতে এসে শত শত প্রবাসীরা বঙ্গবন্ধুর ছবিগুলি বিপুল আগ্রহ নিয়ে দেখছেন জানিয়ে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ বললেন, এই ছবিগুলি বাঙালির জাতীয় ইতিহাস। দূতাবাসে এ ধরনের ইতিহাস আগে কখনোও প্রদর্শিত হয়নি।

Picture

প্রদর্শিত ছবিগুলি ঘুরে দেখে দূতাবাসের ডিসিএম ড. মো. নজরুল ইসলাম আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এমআরএইচ ভূইয়াকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় ইকনমি কাউন্সেলর ড. মো. আবুল হাসান, দূতাবাসের কার্য্যালয় প্রধান মনিরুল ইসলাম তাঁর সঙ্গে ছিলেন। এ ধরনের আয়োজনের ফলে সৌদি প্রবাসীরা বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন সম্পর্কে সহজেই ধারণা করতে পারবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে এ ধরনের আয়োজন গত চল্লিশ বছরে এটাই প্রথম মন্তব্য করে রিয়াদ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম বলেছেন, বিভিন্ন পেশার প্রবাসীরা বঙ্গবন্ধুর উপর এ ধরনের ছবি প্রদর্শন বিষয়টি আন্তরিকভাবে স্বাগত জানিয়েছে।


কানাডায় বাংলাদেশি তরুণের অকাল মৃত্যু

সোমবার, ০৬ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : কানাডার টরন্টোয় এক বাংলাদেশি তরুণের অকাল মৃত্যু হয়েছে, (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। স্ত্রী মৌরি আর এক বছর বয়সী ছেলে অনীশকে নিয়ে ভালই যাচ্ছিল  অমিতের জীবন। কিন্তু আচমকা এক ঝড় এসে যেন লণ্ডভণ্ড করে দিল তার সুখের স্বর্গকে। ভালোবাসার বন্ধন ভেঙে মৃত্যুদূত এসে কেড়ে নিল অমিতকে।

প্রিয়তম স্বামীকে হারিয়ে এখন যেন কষ্টে পাথর মৌরি। আর অনীশের তো বোঝার বয়সই হয়নি যে কী হারিয়েছে সে।

কানাডার আরেক প্রবাসী আরেফিন সামাদ খান জানান, কয়েকদিন ধরেই অমিত বুকে একটু ব্যথা অনুভব করতেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি ব্যথাটা বেড়ে গেলে অমিত টরন্টোর ইস্ট ইয়র্ক জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে যান। ডাক্তার বললেন উচ্চ রক্তচাপ। হৃদপিণ্ডে কিছু অনিয়ম ধরা পড়লেও উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই বলে জানান ডাক্তার।

Picture

আরেফিন বলেন, গত ১ মার্চ বুধবার অন্যান্য দিনের মতোই অমিত বাসাতে পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। সন্ধ্যার পর নিজের ২০ তলার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ৫ তলার এক ছোট ভাই অর্ণবের অ্যাপার্টমেন্টে গল্প করতে আসেন অমিত।

ওরা দুজন বারান্দায় গল্প করছিলেন। হঠাৎ করেই অর্ণবের মনে হয় অমিত রেলিংয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন টলোমলো পায়ে। মনে হচ্ছে হয়তো পড়েই যাবেন। গিয়ে ধরতে ধরতেই অমিত পড়ে যান মাটিতে। মুখ থেকে ফ্যানা ওঠা শুরু করে। অর্ণব সঙ্গে সঙ্গেই কল করেন ৯১১ নম্বরে। বুঝতে পারে নিঃশ্বাস ছোট হয়ে আসছে অমিতের। ৯১১ এ অপারেটর ক্রমাগত অর্ণবকে বলে যায় কীভাবে সিপিআর এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে হবে। অর্ণবও যথাসাধ্য চেষ্টা চালায়। এরপর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

২০০৮ সালে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পাশ করে বের হবার সঙ্গে সঙ্গেই অমিতের চাকরি হয় ইউনিলিভার বাংলাদেশে। নিজের যোগ্যতায় ক্রমাগত প্রমোশন পেয়ে ২০১৪ সালে ইউনিলিভারের টেকনোলজি অ্যান্ড ইনোভেশনের ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি।

কিন্তু কর্পোরেটে সাবলীল ক্যারিয়ার থাকলেও অমিতের বরাবরই ইচ্ছা ছিল নিজের স্বপ্নের বিষয় নিয়ে পড়ার। মেকানিক্যাল, রোবটিক্স, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বিষয়গুলো ওকে খুব টানত। ২০১৬ সালে বাংলাদেশের চাকরি ছেড়ে দিয়ে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে অভিবাসী হয়ে   টরন্টোতে চলে যান অমিত।

সেখানে তিনি তার স্বপ্নের বিষয় মেকাট্রনিক্স পান। ভর্তি হন রায়ারসন ইউনিভার্সিটিতে। ভালোই চলছিল সব, পড়াশোনা, বন্ধুদের সঙ্গে খেলা। কিন্তু হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে অমিত চলে গেলেন না ফেরার দেশে।


কমনওয়েলথ ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড চূড়ান্ত লড়াইয়ে ২ বাংলাদেশি

সোমবার, ০৬ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : এবারের ‘কমনওয়েলথ ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’র জন্য ১৩টি দেশের ১৭ জন চূড়ান্ত মনোনয়ন পেয়েছেন। তার মধ্যে চূড়ান্ত তালিকায় স্থান পেয়েছেন দুই বাংলাদেশি। ২০১৭ সালের পুরস্কারের জন্য ১৩টি দেশের ১৭ জনের তালিকায় রয়েছেন তারা।

আগামী ১৫ মার্চ কমনওয়েলথের সদর দপ্তর লন্ডনের মার্লবোরো হাউজে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। এসডিজির ১৭টি লক্ষ্য পূরণে অবদান রাখছেন এমন উদ্যোক্তাদের এ বছর কমনওয়েলথ ইয়ুথ পারসন অব দ্য ইয়ারের স্বীকৃতি দেওয়া হবে।

Picture

বুধবার কমনওয়েলথের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশি নাগরিক উখেনচিং মারমা ও তৌফিক আহমেদ খান তাদের কাজের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) পূরণে অবদান রাখায় তালিকায় উঠে এসেছেন।

উখাইচিং প্রায় ৭০০ মেয়ের মধ্যে ঋতুস্রাব নিয়ে স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়াতে ক্যাম্পেইন চালিয়েছেন। এর ফলে তাদের মধ্যে যৌন, প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার সম্পর্কে সচেতনতা বেড়েছে।

আর সাউথ এশিয়ান সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা ও সামাজিক উদ্যোক্তা তৌফিক এসডিজি সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে ৬০০ মেয়ের মধ্যে ‘গার্লস ফর গ্লোবাল গোলস’ ক্যাম্পেইন চালিয়েছেন। এই উদ্যোগের ফলে সাড়ে চার হাজার স্বেচ্ছাসেবক পাঁচ শতাধিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, তৌফিকের “Know your SDGs” উদ্যোগের ফলে ৪২ হাজার তরুণ এসডিজি সম্পর্কে সচেতন হয়েছেন।


আগামী ১লা এপ্রিল ২০১৪, সুইডেন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন

সোমবার, ০৬ মার্চ ২০১৭

বাপ্ নিউজ : বিশেষ প্রতিনিধি : সুইডেন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে গঠিত আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক সুইডেন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন খেতু মিয়ার সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব লাভলু মনোয়ারের পরিচালনায় আহবায়ক কমিটির একটি জরুরী সভা ষ্টকহোমের ৯৬, কিভিন্নাস ভ্যাগেনে দুপুর আড়াই টায় অনুষ্ঠিত হয়।

Picture

উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন আহবায়ক কমিটির যুগ্ন আহবায়ক শেখ মোখলেস মিরাজ, সুইডেন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক ও সুইডেন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল হাসান , ত্রিবার্ষিক সম্মেলনের প্রধান সমন্বয়ক বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা গুলজার হুসাইন মিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান, সফিকুল আলম লিটন, কাজী আকরামুজ্জামান শাহিন, আরিফ মাহবুব, মাহফুজুর রহমান ভুইয়া, নাজমুল হাসান খান, হেদায়েতুল ইসলাম শেলী, মুজাহেদুল ইসলাম নওরোজ, মনির ভুইয়া, সাইফুল ইসলাম চুন্নু, দিদার শরিফ, আশরাফ খান, কাজী তুষার, আফছার খান, ফয়সাল আহমেদ, কাজী নুরুল আলম, আনোয়ারুল আলম হিরা সহ আরো অনেকে।

সভায় বিভিন্ন উপ কমিটির অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয় এবং সুইডেন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনের তারিখ নির্ধারন করা হয়। আতএব, কমিটির আহবায়ক শামসুদ্দিন খেতু মিয়া আগামী ১লা এপ্রিল ২০১৭, সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের নির্দেশ মোতাবেক সুইডেন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানের তারিখ ঘোষনা করেন এবং তিনি দীর্ঘ ১৫ বছর পর সুইডেন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন সফল করার জন্য সুইডেনস্থ সকল বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।


লিসবনের শহীদ বেদীতে প্রবাসী ও পর্তুগাল পরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শ্রদ্ধা নিবেদন

বুধবার, ০১ মার্চ ২০১৭

Picture

বাপ্ নিউজ : বিশেষ প্রতিনিধি : আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের ফুলের শ্রদ্ধা জানাতে পর্তুগালের লিসবনের স্থায়ী শহীদ মিনারে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রবাসী বাংলাদেশীদের মিলন মেলা। প্রবাসে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মের শিশুরাও শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
একুশ সম্পর্কে ধারণা দেওয়া এবং এই চেতনায় উদ্বুদ্ধ করতে অনেক মা-বাবা তাদের শিশু সন্তানদের নিয়ে আসেন শহীদ মিনারে।একুশের প্রথম প্রহরে শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাংলাদেশ দূতাবাসের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রুহুল আমিন সিদ্দিক।
পরে শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন করেন পর্তুগাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি মিস্টার জোসে আরিয়ারো জয়ন্তার প্রতিনিধি মিস আন্দ্রেয়া রড্রিগুয়েজ , লিসবন সিটি কর্পোরেশনের প্রতিনিধি মিস্টার কার্লস ম্যানুয়েল ক্যাস্ট্রো সহ পর্তুগাল আওয়ামী লীগ, পর্তুগাল বিএনপি,
বৃহত্তর ফরিদপুর অ্যাসোসিয়েশন অফ পর্তুগাল, ইউরোপ প্রবাসী বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন পর্তুগাল শাখা, অল ইউরিয়ান বাংলা প্রেস ক্লাব , নবকন্ঠ পাঠক ফোরাম, পর্তুগাল সাংবাদিক ফোরাম,পর্তুগাল বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস অ্যাসোসিয়েশন,বৃহত্তর নোয়খালী অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগাল সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মী ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা।
নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত তার উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন `"যে কোন জাতির জন্য সবচেয়ে মহৎ ও দুর্লভ উত্তরাধিকার হচ্ছে মৃত্যুর উত্তরাধিকার- মরতে জানা ও মরতে পারার উত্তরাধিকার। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারির শহীদরা জাতিকে সে মহৎ ও দুর্লভ উত্তরাধিকার দিয়ে গেছেন।" পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সভাপতি কিছুটা আবেগ্লাপুত হয়ে বলেন একুশের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের উন্নয়নে প্রবাসীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে হবে।একুশে ফেব্রুয়ারি শোকাবহ হলেও এর যে গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায় তা পৃথিবীর বুকে অনন্য। কারণ বিশ্বে এ যাবতকালে একমাত্র বাঙালি জাতিই ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে।
পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মনে করেন মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ’৫২-এর একুশে ফেব্রুয়ারি ছিল ঔপনিবেশিক শাসন-শোষণ ও শাসকগোষ্ঠির প্রভূসুলভ মনোভাবের বিরুদ্ধে বাঙালির প্রথম প্রতিরোধ এবং ভাষার ভিত্তিতে বাঙালির জাতীয় চেতনার প্রথম উন্মেষ। পর্তুগাল বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মহিন উদ্দিন এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন ন্যায়ের দাবি , সত্যের দাবি- এ দাবির লড়াইয়ে একুশে ফেব্রুয়ারির শহীদরা প্রাণ দিয়েছেন। প্রাণ দিয়ে প্রমান করেছেন , স্বভাবের ব্যাপারে , ন্যায় ও সত্যের ব্যাপারে কোন আপোষ চলেনা , উল্লেখ্য ,মায়ের ভাষা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে দুর্বার গতি পাকিস্তানি শাসকদের শংকিত করে তোলায় সেদিন ছাত্র-জনতার মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে সালাম, জব্বার, শফিক, বরকত ও রফিক গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন।
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সরদার ফজলুল করিম তার ‘বায়ান্নরও আগে’ প্রবন্ধে লিখেছেন ‘ বরকত সালামকে আমরা ভারোবাসি। কিন্তু তার চেয়েও বড় কথা বরকত সালাম আমাদের ভালোবাসে । ওরা আমাদের ভালোবাসে বলেই ওদের জীবন দিয়ে আমাদের জীবন রক্ষা করেছে। ওরা আমাদের জীবনে অমৃতরসের স্পর্শ দিয়ে গেছে। সে রসে আমরা জনে জনে , প্রতিজনে এবং সমগ্রজনে সিক্ত।এদর কারণেই আমরা অমরতা পেয়েছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ আজ আমরা বলতে পারি দস্যুকে, বর্বরকে এবং দাম্ভিককে : তোমরা আর আমাদের মারতে পারবে না । কেননা বরকত সালাম রক্তের সমুদ্র মন্থন করে আমাদের জীবনে অমতর স্পর্শ দিয়ে গেছে ।’

ইতালির নাপলিতে খুলনা কল্যাণ সমিতির অভিষেক

বুধবার, ০১ মার্চ ২০১৭

ইসমাইল হোসেন স্বপন, বাপ্ নিউজ : ইতালি থেকে : ইটালির নাপলিতে অভিষেক হলো বৃহত্তর খুলনা কল্যাণ সমিতির। স্থানীয় সময় রবিবার বিকেল ৫টায় শুরু হয় এ অভিষেক অনুষ্ঠান। বৃহত্তর খুলনা কল্যাণ সমিতির সভাপতি বশির আহম্মেদের  সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মিলানের বিশিষ্ট  ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এ  ছাড়া উপস্থিত ছিলেন রোম থেকে আগত কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব হাসান ইকবাল, নাপলি অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচিত সভাপতি জয়নাল হাজারি, অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ নাপলির সভাপতি নাদিম বেপারি, কমিউনিটি নেতা, কুদ্দুস হাওলাদার, জয়নাল আবেদিন, শেখ জাহাঙ্গীর আলম, ফারুক হাসান, আলি ইসলাম, মিজানুর রহমান বাচ্চু,কাজি আল আমিন, বৃহত্তর কুমিল্লার সভাপতি মনিরুল হক, খেলাঘর সভাপতি সোহেল মাহমুদ প্রমুখ।

Picture

বক্তারা বলেন, সংগঠন এমন একটা প্লাটফর্ম যেখানে মানুষের ভালোর জন্য কাজ করা হয়। প্রবাসে কারো মৃত্যু হলে তাকে বাংলাদেশে পাঠাতে যেন কোনও সমস্যা না হয় এ জন্য বাংলাদেশ সরকারকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়। ভবিষ্যতে এখানে মসজিদ ও স্কুল নির্মাণের জন্য জ্যেষ্ঠ কমিউনিটি নেতাদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে বশির আহম্মদকে সভাপতি, শেখ মুজিবর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক এবং আলহাজ ইউনুছ আলি খোকনকে সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা নির্বাচিত করা হয়। পরে সংগীত পরিবেশন করেন রোম থেকে আগত শাহনাজ সুমি ও বাধন।


ফ্রান্সে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : প্যারিস-ফ্রান্স: ১৯৫২ সালের ভাষার জন্য প্রাণদানকারী সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউরসহ সব শহীদকে স্মরণ করেছেন ফ্রান্স প্রবাসী বাংলাদেশিরা। মঙ্গলবার প্যারিসের আইফেল টাওয়ারের পাদদেশে অস্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করে একুশ উদ্‌যাপন পরিষদ ফ্রান্স।এখানে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় প্রায় অধর্শত বাংলাদেশি সংগঠন। সব বয়স আর শ্রেণি-পেশার মানুষের পদচারণে মুখরিত হয়ে ওঠে অস্থায়ী শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ।

Picture

এ সময় বিভিন্ন দেশের নাগরিকদেরও বেদিতে ফুল দিতে দেখা যায়। বেলা সাড়ে তিনটায় অস্থায়ী এই শহীদ মিনারে বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে কর্মাশিয়াল কাউন্সিলর ফিরোজ উদ্দিনের পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধার্ঘ প্রদান শুরু হয়। পরে একে একে মৌনমিছিল করে শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় একুশ উদ্‌যাপন পরিষদ ফ্রান্স, অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন-আয়েবা , বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ফ্রান্স শাখা, ফ্রান্স বাংলা প্রেস ক্লাব, স্বরলিপি শিল্পীগোষ্ঠী, ফ্রান্স বাংলাদেশ বিজনেস ফোরাম, বাংলাদেশ পূজা উদ্‌যাপন পরিষদ, উদীচী সংসদ ফ্রান্স, প্যারিস বার্তা, এসএ টেলিভিশন দশর্ক ফোরাম ফ্রান্স, বরিশাল বিভাগ অ্যাসোসিয়েশন, বনানী গ্রুপ, বাংলাদেশ ইয়ুথ ক্লাব, ফেনী সমিতি, মুন্সিগনজ বিক্রমপু অ্যাসোসিয়েশন, সচেতন যুব সমাজ প্যারিস, অ্যাসোসিয়েশন অব সাই পারি, উত্তরবঙ্গ সমিতি ফ্রান্স, বাংলা ভিশন ফ্যান ক্লাব ফ্রান্সের প্রায় অর্ধশতাধিক  বাংলাদেশি সংগঠন।

alt

আয়োজক একুশে উদ্‌যাপন পরিষদের প্রধান টি এম রেজা বলেন, একুশে উদ্‌যাপন পরিষদ সবার সহযোগিতায় কয়েক বছর ধরে প্যারিসের আইফেল টাওয়ার সামনে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে একুশ উদ্‌যাপন করে আসছে। আগামীতে ফ্রান্সে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মিত হবে । সেখানে আরও বড় পরিসরে একুশ উদ্‌যাপন করা হবে।এদিকে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে সকাল সাড়ে সাতটায় দূতাবাস কর্মকর্তারা অস্থায়ী শহীদ মিনারেও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এবং বিকালে ৫ টায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সকাল ‍১০ টায় ইউনেস্কোতে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় সেখানে বক্তব্য রাখেন ইউনেস্কো মহাপরিচালক ইরিনা বোকোভা, ইউনেস্কো বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এম শহিদুল ইসলাম।এ ছাড়াও রাত ১২টা ১ মিনিটে প্যারিসের মেট্রো হোশে ফ্রান্স আওয়ামী লীগ আয়োজিত অস্থায়ী শহীদ মিনারেও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বেলা ১১টায় উদীচী সংসদ ফ্রান্স আয়োজিত প্যারিসের ওভারভিলায় পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।


অস্ট্রেলিয়ায় বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি স্থাপন

সোমবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

Picture

তবে অ্যাশফিল্ডের একটি পার্কে শহীদ মিনার ছাড়া এই শহরে বাঙালিদের কোনও স্থাপনা নেই। সিডনির বাঙালি অধ্যুষিত লাকেম্বার রেলওয়ে প্যারেড সড়কটি বঙ্গবন্ধু প্যারেড অথবা স্কয়ার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল স্থানীয় ক্যান্টাবারি সিটি করপোরেশন। কিন্তু এতে আপত্তি জানিয়ে তা আটকে দিয়েছেন স্থানীয় বিএনপি-জামায়াত সমর্থকরা।

alt

ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনির প্যারাম্যাটা ক্যাম্পাসে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তিটি তাই আবেগ সঞ্চার করেছে স্থানীয় বাঙালিদের মনে। মূর্তি উন্মোচন অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনির মতো একটি আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি উন্মোচন করা আমার জন্য বিশেষ গৌরবের। আজকের দিনটি আমার জীবনের অন্যতম স্মরণীয় দিন হয়ে থাকবে। বঙ্গবন্ধুকে সম্মান দেওয়ায় বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক বলেন, ‘আজ বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য একটি স্মরণীয় দিন। ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনির আইন বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক দাউদ হাসান বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি স্থাপনের প্রধান উদ্যোক্তা। অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা তার অবদানের কথা মনে রাখবে।’  

alt

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক বার্নে গ্লোভার বঙ্গবন্ধুর নানা অবদানের কথা শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার সমুদ্র সম্পদকে দেশের জনগণের স্বার্থে কাজে লাগানোর চিন্তা ও পরিকল্পনায় বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন দূরদর্শী নেতা, পথিকৃৎ। তার মতো একজন মহান নেতাকে সম্মান জানাতে পেরে ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনি কর্তৃপক্ষ গর্বিত।’

ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনি কর্তৃপক্ষের আমন্ত্রণে সিডনি এসেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ভারত-মিয়ানমারের দখলে থাকা বিরোধপূর্ণ সমুদ্রসীমা জয়ের পর এই অঞ্চলের সম্পদ নিয়ে জরিপ অথবা গবেষণা করতে আগ্রহী ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনি। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করার কথা রয়েছে আইনমন্ত্রীর।