Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

নিউজার্সীতে জেল হত্যা দিবসের দোয়া ও আলোচনা সভা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন না হলে তলবী সভার হুমকি

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:নিউজার্সী (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে : নিউজার্সীর পেটারসনে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে বিশাল দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৪ নভেম্বর শনিবার সন্ধ্যায়। নিউজার্সী আওয়ামীলীগ ও আওয়ামী পরিবারের ব্যানারে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হয় ১৯৭৫ সালের ৩ রা নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নৃশংসভাবে খুন হওয়া জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে।

Picture

সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন না হলে তলবী সভা ডাকার হুমকিও প্রদান করা হয়। নিউজার্সী আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটিকে অবৈধ কমিটি হিসেবে আখ্যায়িত করে এ কমিটি বিলুপ্তিরও দা্িব জানান হয় সভা থেকে।alt

নিউজার্সী আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু সুলতান ও সাবেক ছাত্র নেতা প্রভাষক তাজ উদ্দিন আহমেদের যৌথ পরিচালনায় এবং প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা আজিজুর রহমান গেদার সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা ড. মহসীন আলী, ডা. মাসুদুল হাসান ও ড. প্রদীপ রঞ্জণ কর, সাবেক যুবলীগ নেতা গোলাম রব্বানী, জাতীয় শ্রমিক লীগের alt

কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সমন্বয়কারী ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, সাবেক ছাত্র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস, দপ্তর সম্পাদক প্রকৌঃ মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, প্রচার সম্পাদক হাজি এনাম (দুলাল মিয়া), আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. শাহ মোঃ বখতিয়ার আলী, কার্যকরী সদস্য সরাফ সরকার, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ

alt

সম্পাদক শাহীন আজমল, নিউজার্সী আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি সুজন আহমদ সাজু, আওয়ামীলীগ নেতা আজমল আলী, যুক্তরাষ্ট্র মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রুমানা আক্তার, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি দুরুদ মিয়া রনেল, সিলেট জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আল আমিনুল হক পান্না, নিউজার্সী আওয়ামীলীগ নেতা কয়সর হোসেন এখলাস, রাজন আহমেদ খসরু, আবদুল অদুদ, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবদুল মুকিত, আনোয়ারুল চৌধুরী পারেক, শাহীন আহমেদ প্রমুখ।

alt

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নিউজার্সী আওয়ামীলীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম খান, মো. ইসহাক মিয়া, আবদুল হক, নাজিম উদ্দিন আজাদ, ডা. আবদুল মতিন, হাজী আবদুল মতিন, কামদার মিয়া তরফদার, আফসার উদ্দিন জন, হাজী নূর মোহাম্মদ, হেলালুর রহমান হেলু, সালাউদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন হেলাল, মমিন আহমেদ, শামীম আহমেদ, রেজাউল করিম মমিন, মঈনুল ইসলাম, আবদুল মল্লিক, কমরউদ্দিন, নেছার আহমেদ, আয়না মিয়া, মকদ্দস আলী, মোশাইদ আলী, নাজিম উদ্দিন লাহীন, কামাল আহমেদ, জুনেদ আহমেদ, কদর উদ্দিন, ছানা মিয়া, জাহিদ হোসেন, খায়রুল ইসলাম, কালাম মিয়া, মুহিব আলী, বেলাল হোসেন, আবদুল ফরিদ, আবদুল গনি, শওকত হোসেন, জাকির হোসেন, আখিব আহমেদ, আবদুল বাসিদ, কনাইসা শাহীন, মো. মোশাইদ আলী, শামিম কুররী, মান্না, মুফতি, সিরাজ উদ্দিন, আবদুর রহমান, রাসেল আহমেদ সহ বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতা-কর্মী।

alt

অনুষ্ঠানে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত ও দোয়া মুনাজাত পরিচালনা করেন হাফিজ আলা উদ্দিন। মুনাজাতে বঙ্গবন্ধু, জাতীয় চার নেতাসহ ১৫ই আগস্টের শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। বক্তারা বলেন, সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সদ্য স্বাধীন দেশকে নেতৃত্বশূন্য করার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা জাতীয় চার নেতাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নৃশংসভাবে হত্যা করে।অনুষ্ঠানে উপদেষ্টা ড. মহসীন আলী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, তিনি ছিলেন না মুক্তিযোদ্ধা। কখনো সম্পৃক্ত ছিলেন না ছাত্রলীগ কিংবা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে। তাই তার থেকে আর বেশি কিছু কি আশা করা যায়।alt

তিনি বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা ও মার্কিন কংগ্রেসম্যান-সিনেটরদের সাথে লবিং করতে সক্ষম নিবেদিত ত্যাগি নেতাদের সমন্বয়ে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন সময়ের দাবি। জননেত্রী শেখ হাসিনা এমন কমিটিই উপহার দেবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।ডা. মাসুদুল হাসান বলেন, এক দফা এক দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী অবিলম্ভে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন দিতে হবে।

alt

ড. প্রদীপ রঞ্জণ কর বলেন, সভাপতি পদে থাকতে ড. সিদ্দিকুর রহমানের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্মেলন ডাকা না হলে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তলবী সভা আহ্বান করা হবে। সাবেক যুবলীগ নেতা গোলাম রব্বানী বলেন, অরাজনীতিক ব্যক্তিদের দিয়ে গঠন করা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের এ কমিটিতে ড. গোলাপের অনুরোধ সত্ত্বেও সম্পৃক্ত হইনি।

alt

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাজী কয়েস বলেন, জামায়াত-শিবিরের লোক দিয়ে গঠন করা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তাই সম্মেলনের মাধ্যমে ত্যাগী নেতাদের দিয়ে কমিটি গঠন করে দলকে শক্তিশালী করতে হবে।যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সম্মেলন না হলে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে সাধারণ নেতা-কর্মীরা।

alt

নিউজার্সী আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি সুজন আহমদ সাজু নিউজার্সী আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটিকে অর্থের বিনিময়ে অনমোদন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে এ কমিটি বিলুপ্তির দা্িব জানান।


নিউইয়র্কে ’আমাদের পাঠশালা’য় বই উৎসব

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ- নিউইয়র্ক :নিউইয়র্কের বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল ’আমাদের পাঠশালা’য় বর্ণাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলা বই উৎসব। স্থানীয় সময় গত ৫ নভেম্বর রোববার অপরাহ্নে ব্রঙ্কসের ২৩৬৮ ওয়েস্টচেস্টার এভিনিউ’র স্কুল মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে আমাদের পাঠশালার শিক্ষার্থীদের মাঝে বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান।

আমাদের পাঠশালার অন্যতম পরিচালক মনিকা মন্ডলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশী-আমেরিকান ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক শামীম মিয়া এবং ইউএসএনিউজঅনলাইন.কম সম্পাদক ও টিভি উপস্থাপক সাখাওয়াত হোসেন সেলিম। অনুষ্ঠানে অতিথিরা ছাড়াও অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আমাদের পাঠশালার পরিচালক সুপ্রিয়া নন্দী। এ সময় পাঠশালার ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবকরা ছাড়াও বিপুল সংখ্যক প্রবাসী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে স্কুলের শিক্ষার্থীরা অতিথিদের ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানান। শুরুতে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে আমাদের পাঠশালার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা কবিতা আবৃত্তি করে শুনায়।

উৎসবমুখর পরিবেশে স্কুলের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে প্রধান অতিথি প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন। ভিন্ন আমেজে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে এসব বই গ্রহণ করে ছাত্রী-ছাত্রীরা। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কনসাল জেনারেল শামীম আহসান বলেন, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে বাঙালী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ফ্রি বাংলা বই বিতরণ করতে পেরে নিজকে ধন্য মনে করছি। এতে বাংলা শিক্ষার্থীরা দারুণভাবে উপকৃত হবে। বাংলা শিক্ষায় তাদের বড় কাজে আসবে।

তিনি আমাদের পাঠশালার কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, প্রবাস প্রজন্মের সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উৎসাহ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বই বিনামূল্যে বিতরণের এ উদ্যোগ নেয়া হয়। এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের বাংলাভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা সহজতর হবে। নিজ পরিবার থেকে সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে  শামীম আহসান বলেন, প্রবাসে শিশুদের বাংলা শেখানোর কাজ আসলে খুব একটা কঠিন নয়। এজন্য অভিভাবকদের উদ্যোগী হতে হবে। মূল দায়িত্ব তাদেরই পালন করতে হবে। ঘরে ঘরে নিজ সন্তানদের সাথে সব সময় বাংলায় কথা বলার চর্চা রাখতে হবে। প্রবাসে নতুন প্রজন্মের কাছে নিজ সংস্কৃতিকে তুলে ধরার এটাই সহজ উপায়।

আমাদের পাঠশালার পরিচালক মনিকা মন্ডল ও সুপ্রিয়া নন্দী প্রবাসী বাংলাদেশী এ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফ্রি স্কুল বই বিতরণ করার জন্য কনসাল জেনারেল ও বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। তারা অভিভাবকদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে স্কুলের কার্যক্রম আরো এগিয়ে নিতে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

আমাদের পাঠশালার পরিচালক মনিকা মন্ডল বলেন, "এসো আমরা বাংলায় কথা বলি" এ শ্লোগানকে ধারণ করে আমাদের পাঠশালার কার্যক্রম শুরু হয় বাসায় বাসায় গিয়ে বাংলা শেখানোর মধ্য দিয়ে। প্রবাসে বেড়ে উঠা পরবর্তী প্রজন্মকে বাংলা ভাষা ও বাঙ্গালী সংস্কৃতির সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে প্রায় ৫ বছর আগে এর কার্যক্রম শুরু হয়। বহু চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে আমাদের পাঠশালা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায় গত সেপ্টেম্বর মাসে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, এটা অত্যন্ত আনন্দের সংবাদ যে এরকম একটা প্রতিষ্ঠান এখানে গড়ে ওঠছে। এই কমিউনিটিতে বাংলাদেশীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। কিন্তু বাঙালী সন্তানরা যারা এখানে বড় হচ্ছে তাদের বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিকে সুষ্ঠভাবে জানানো একটা বিশাল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের পাঠশালা সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় অসাধারণ ভূমিকা রাখছে। তারা অনেকদিন ধরে লড়াই করছেন প্রবাসে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিকে রক্ষা করার জন্য। প্রবাস সমাজে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির জন্য লড়াই করার অর্থ হচ্ছে নিজস্ব অস্তিত্বের জন্য কাজ করা। এ স্কুল প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে তারা সে কাজটি করছে। বক্তারা প্রবাসী সন্তানদের এই প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত করে বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে জানতে ও লালনে সহযোগিতা করার জন্য অভিবাবকদের প্রতি আহবান জানান।


মুক্তিযোদ্ধা খান মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী এবং প্রবাসীদের শোক

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ ঃ পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পটুয়াখালী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ৬০ দশকের তুখোড় ছাত্রনেতা, সংগ্রামী জননেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব খান মোশারফ হোসেন(৬৭) গত পহেলা নভেম্বর ২০১৭, বুধবার রাত ১১:৩০ মিনিটের সময় ভারতের চেন্নাই-এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি-----রাজেউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র ও দুই কন্যা,নাতী নাতনীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শনিবার ৪ নভেম্বর বাদ যোহর তার নামাজে জানাযা পটুয়াখালী বিডিএস মাঠে অনুষ্ঠিত হয়, জানাযায় অংশ নেন আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সাবেক চীফ হুইপ আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আসম ফিরোজ, সাবেক মন্ত্রী জাতীয় ও সংসদ সদস্য খ,ম জাহাঙ্গীর হোসেন, পটুয়াখালী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট শাহজাহান মিয়া, কাজী আলমগীর , সৈয়দ মোহাম্মদ বাবুল, সাবেক ছাত্রনেতা খলিলুর রহমান, আব্দুল মান্নান ভিপি, পটুয়াখালী জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কাজী হেলেন ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাকিয়া সুলতানা বেবী প্রমুখ সহ সর্বস্তরের গণমানুষ। বিকালে তাকে পটুয়াখালী জেলা কেন্দ্রীয় গোরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। তার মৃত্যু সংবাদে পটুয়াখালী জেলার তথা সারা দক্ষিণ বাংলায় শোকের ছায়া নেমে আসে। শহরের যানবাহণ চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। দূরদুরান্ত থেকে নেতাকর্মী এবং সর্বস্তরের গণমানুষ প্রিয় নেতাকে শেষবার দেখার জন্য জমায়েত হন। খবর বাপসনিঊজ ।
মুক্তিযোদ্ধা খান মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ ও শোক সনতপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে পৃথক বিবৃতিতে বলেন মরহুম খান মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে দক্ষিণ বাংলায় এক রাজনৈতিক শূন্যতার সৃষ্টি হল, যা সহজে পূরণ হবার নয়। বরিশাল বিভাগীয় সোসাইটি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক সভাপতি কমিনিটি এক্টিভিষ্ট নিউইয়র্ক প্রবাসী জাহাঙ্গীর কবির বলেন ছাত্র জীবন থেকেই তার সাথে ঘনিষ্ট ছিলাম, তিনি ছিলেন রাজ পথের লড়াকু সৈনিক আপোষহীন নেতা, রুটি হালুয়ার নিকট কোন দিন নীতি আদর্শ বির্সজন দেননি।

মুক্তিযোদ্ধা খান মোশাররফ হোসেনের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের পক্ষ থেকে আরও শোক প্রকাশ ও শোক সনতপ্ত পটরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা
প্রকাশ করেছেন আমেরিকা- বাংলাদেশ এলাইন্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ যুক্তরাষ্ট্র কমান্ড-এর আব্দুল মুকিত চৌধুরী,যুক্তরাষ্ট্র সোহরাওয়ার্দী স¥ৃতি পরিষদের সভাপতি শিশু সাহিত্যিক হাসানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গণি ও সাধারণ সম্পাদক সুহাস বড়ুয়া, সেন্ট্রাল ফ্লোরিডা মহানগর আওয়ামী লীগের মাহববুর রহমান মিলন ও সাধারণ সম্পাদক আলো আহমেদ,আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলাদেশ অরিজিন সভাপতি সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন ও সাধারণ সম্পাদক হেলাল মাহমুদ, বোস্টনবাংলানিউজ ডটকম সহযোগী সম্পাদক বিশ্বজিৎ সাহা ও নাসিম পারভীন, ইউএসএ বাংলানিউজ এর সম্পাদক আবু সাঈদ রতন, ইন্টারন্যাশনাল বঙ্গবন্ধু সেন্টারের মহাসচিব ভূত্ত্ববিদ গিয়াস উদ্দীন আহম্মেদ, আওয়ামী লীগনেতা নুরুল ইসলাম বাংগালী.
মুক্তিযোদ্ধা ডঃ আব্দুল বাতেন, সরাফ সরকার, অধ্যাপক বোরহান উদ্দীন হাওলাদার, রুহুল আমিন ভূইয়া,শিক্ষাবিদ মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী, কবি ও সঙ্গীত শিল্পী শামীমআরা আফিয়া, কবি আব্দুল আজিজ, ফিরোজ মাহমুদ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন লিটন ও সাধারণ সম্পাদক শামসুউদ্দিন আহমেদ শামীম এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার সসভাপতি মাহবুবুর রহামন মিলন ও সাধারণ সম্পাদক আলো আহমেদ, আমেরিকান প্রেসক্লাব অব বাংলভাপতি দেওয়ান শাহেদ চেীধুরী ও সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম জিকু প্রমুখ।


নিউইয়র্ক সিটি নির্বাচন মেয়র ব্লাজিও বিপুল ভোটে দ্বিতীয় মেয়াদে জয়ী

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,হেলাল মাহমুদ, বাপসনিঊজ:নিউইয়র্ক: নিউইয়র্ক সিটির স্থানীয় সরকার নির্বাচনে মেয়র বিল ডি ব্লাজিও বিপুল ভোটে পুনরায় জয়ী হয়েছেন। মেয়র ব্লাজিও পরবর্তী চার বছরের জন্য বিশ্বের রাজধানী খ্যাত নিউইয়র্ক সিটির মেয়র নির্বাচিত হলেন। মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এটি ছিলো নিউইয়র্ক সিটি ১১০তম মেয়র নির্বাচন। নির্বাচনে (এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত) ডেমোক্র্যাট দলীয় ব্লাজিও পেয়েছেন ৭ লাখ ২৬ হাজার ৩৬১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি রিপাবলিকান দলীয় প্রার্থী নিউইয়র্ক ষ্টেট অ্যাসেম্বলীওম্যান নিকল মাল্লিওতাকিস পেয়েছেন ৩ লাখ ৩ হাজার ৭৪২ ভোট। মেয়র ব্লাজিও পেয়েছেন শতকরা ৬৬.৫ ভাগ ভোট। আর অ্যাসেম্বলীওম্যান নিকল মাল্লিওতাকিস পেয়েছেন শতকরা ২৭.৮ ভাগ ভোট।
নিউইয়র্ক সিটি নির্বাচনে মেয়র পদের পাশাপাশি সিটি প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক অ্যাডভোকেট ও কম্পট্রোলার পদ ছাড়াও ৫ বরোর প্রেসিডেন্ট, ২ জন ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি ও ৫১ জন সিটি কাউন্সিলর পদেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এসব পদে ক্ষমতাসীনারই জয়লাভ করেছেন বলে প্রাথমিক খবওে জানা গেছে। নানা কারণেই নিউইয়র্ক সিটি নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলে। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাংবিধানিকভাবে নভেম্বর মাসের প্রথম সোমবারের পরের দিন মঙ্গলবার হলো হচ্ছে ‘ইলেকশন ডে’। এদিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই হিসাবে এবারের ‘ইলেকশন ডে’ ছিলো ৭ নভেম্বর মঙ্গলবার। এই নির্বাচন ঘিরে বাংলাদেশী কমিউনিটি সরব হয়ে উঠে। প্রার্থীদের সমর্থনে সভা-সমাবেশ আর নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন বাংলাদেশী কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ সহ প্রবাসী বাংলাদেশীরা। খবর বাপসনিঊজ’র।
মঙ্গলবারের নির্বাচনে নিউইয়র্ক সহ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কেন্দ্রগুলোতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হলেও ঠান্ডা সহ প্রতিকূল অবস্থা বিরাজ করায় কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি কম লক্ষ্য করা গেছে। অনেকে ভোট দিয়ে কাজে চলে গেছেন। আবার অনেকে কাজ থেকে বাসায় ফেরার পথে ভোট দেন। দিনের বেলায় কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিত ছিলো কম। বিকেলের দিকে বা সন্ধ্যায় ভোট কেন্দ্রে কিছুটা ভীড় বেড়ে যায়।
নিউইয়র্ক সিটির বোর্ড অব ইলেকশন সূত্রে জানা যায়, এবারে নির্বাচনে মেয়র পদে বর্তমান মেয়র বিল ডি ব্লাজিও ছাড়াও আরো ছয়জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। মেয়র পদেও অন্যান্য প্রার্থীদের মধ্যে রিফর্ম পার্টির প্রার্থী সাল আলবানিসীর প্রাপ্ত ভোট ২২ হাজার ৮৯১, গ্রীন পার্টির প্রার্থী আকিম ব্রাউডারের প্রাপ্ত ভোট ১৫ হাজার ৭৬৩ ভোট। এছাড়া ইন্ডিপেনডেন্ট প্রার্থী হিসেবে মাইকেল তলকিন পেয়েছেন ১০ হাজার ৭৬২ ভোট, বো ডাইটল পেয়েছেন ১০ হাজার ৫৯২ ভোট আর অ্যারোন কমি পেয়েছেন ২ হাজার ৬৩৫ ভোট।

Picture
অপরদিকে নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলের ৫১ আসনের মধ্যে ৪১টিতে বর্তমান পদাধিকারীগণ পুনরায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বাকী ১০টি আসনে বর্তমান পদাধিকারীরা নির্বাচন করেননি  অথবা বাধ্যবাধকতার কারণে নির্বাচন থেকে সড়ে যেতে বাধ্য হন, অথবা স্বেচ্ছায় নির্বাচন থেকে সড়ে গিয়েছেন। ফলে হাতেগোনা কয়েকটি পদে মঙ্গলবারের নির্বাচনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। আর অন্যান্য পদে শুধুই নিয়ম রক্ষার নির্বাচন হয়।
মঙ্গলবারের নির্বাচনে মেয়র সহ সিটি প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদের প্রার্থীদের মধ্যে মেয়র বিল ডি বজিও, পাবলিক অ্যাডভোকেট লেটিটা জেমস, কম্পট্রোলার স্কট স্টিংগার এবং পাঁচ বোরোর প্রেসিডেন্ট যথাক্রমে কুইন্সের মিলিন্ডা কাটজ, ম্যানহাটনের গেইল ব্রেয়ার, স্ট্যাটেন আইল্যান্ডের জেমস ওডও, ব্রুকলীনের এরিখ অ্যাডামস এবং ব্রঙ্কসে রুবিন ডায়াজ পুননির্বাচন হয়েছেন। এই নির্বাচনে একমাত্র বাংলাদেশী-আমেরিকান প্রার্থী হিসেবে সিটির ডিস্ট্রক্ট-২৪ থেকে লড়েছেন বাংলাদেশী মোহাম্মদ টি রহমান।
ডিষ্ট্রিক্ট-২৪ আসনে জয়ী হয়েছেন বর্তমান কউিন্সিলম্যান ররি ল্যান্সম্যান। তার প্রাপ্ত ভোট ১২ হাজার ৮৯১ ভোট। ররি’র একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন বাংলাদেশী-আমেরিকান টি রহমান। তার প্রাপ্ত ভোট ১ হাজার ৬৩৫ ভোট।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মঙ্গলবার সকাল ছয়টা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত সিটির সকল ভোটেকেন্দ্রে টানা ভোটগ্রহণ চলে। ভোটদাতা কেবল তার নির্দিষ্ট কেন্দ্রেই ভোট দিতে পারেন। প্রতিবছরের মতো এবারও যাঁরা প্রথমবার ভোট দেন, তাঁদের জন্য ভোট কেন্দ্রে সাহায্যের জন্য একাধিক সাহায্যকারী ছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী পেপার ব্যালটেই ভোট হয় এবং ব্যালট পেপারের নির্দিষ্ট স্থানটি বুথে রাখা বিশেষ কলম দিয়ে ভরে (গোল) দিয়ে ব্যালট পেপারটি স্ক্যান মেশিনে ঢুকিয়ে ভোট দিতে হবে। যারা ইংরেজী ভাষা জানেন না, বা ভালো করে ইরেজী বলতে পারেন না তাদের জন্য  কেন্দ্রে সাহায্যকারী দোভাষী রাখা হয়।
জানা গেছে, নিউইয়র্ক সিটির মোট জনসংখ্যা ৮৬ লাখ। এরমধ্যে ভোটার  হচ্ছেন ৫৫ লাখ। এই বিপুল ভোটারদের মধ্যে গড়ে ৫০% ভোটার ভোট দিয়ে থাকেন। সিটির ৫ বরোর মধ্যে সবেচেয়ে বেশী ভোটার হচ্ছেন ব্রুকলীনে বা কিংস কাউন্টিতে। এরপরে ক্রমাগতভাবে অবস্থান করছে কুইন্স, ব্রঙ্কস, ম্যানহাটান ও স্ট্যাাটান আইল্যান্ড বরো। মঙ্গলবারের নির্বাচনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে কনসটিটিউশনাল কনভেনশন বিষয়ক প্রপোজিশন।
এদিকে এবারের নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের পাশাপাশি কনস্টিটিউশনাল কনভেনশন বিষয়ে ‘হ্যা’, ‘না’ ভোট দেয়ার সুযোগ ছিলো। এতে ‘না’ ভোট বেশী পড়ে বলে জানা গেছে।


বিয়ানীবাজারের ৬ তরুণের অকাল মৃত্যুতে শোক

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

বিয়ানীবাজারের ৬ তরুণের অকাল মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ সোসাইটি, জালালাবাদ এসোসিয়েশন ও বিয়ানীবাজার সমিতির শোক

বাপ্ নিউজ : নরসিংদিতে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত বিয়ানীবাজারের ৬ তরুণের অকাল মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ সোসাইটি, জালালাবাদ এসোসিয়েশন ও বিয়ানীবাজার সমিতির শোক। এক শোক বার্তায় শোকাহত পরিবারের লোকজনদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন এবং নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।  নিহতদের প্রতি গভীর শোক ও পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ, জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সভাপতি বদরুল খান, বিয়ানীবাজার সমিতির সভাপতি মাছুদুল হক ছানু, সিলেট গণদাবি পরিষদের সভাপতি আজিমুর রহমান বুরহান, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সভাপতি আজমল হোসেন কুনু, মূল ধারার রাজনৈতিক ও সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক খকরুল ইসলাম দেলাওয়ার, বিয়ানীবাজার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুহিবুর রহমান (রুহেল), কোষাধ্যক্ষ হেলিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল হোসেন, সাহিত্য সাংস্কৃতিক সম্পদক আব্দুল কাদির, দপ্তর সম্পাদক রেজাউল হক, প্রচার সম্পাদক মো: জাকির হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, কার্যকরী সদস্য আহম্মদ মোস্তফা বাবুল, নুরুল ইসলাম ও বাহার উদ্দিন।

সাবেক উপদেষ্টা আব্দুল খালিক লালু, একলীমুজ্জামান নুনু, আব্দুর রাজ্জাক, আজিজুর রহমান সাবু, মোস্তফা কামাল, আব্দুল আহাদ ফারুক, তমিজ উদ্দিন, আজিজুর রহমান পাখি, মকবুল রহিম চুনুই, আব্দুল জলিল, সামস উদ্দিন, সাবেক প্রধান আনোয়ার হোসেন। বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাসিত খান বুলবুল, সমিতির সাবেক কমকতা খসরুজ্জামান খসরু,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আবুল হোসেন, আলিম উদ্দিন মাথিউরা সমিতির সভাপতি আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক মো. কমর উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রেজাউল আলম অপু প্রমুখ।


নিউইয়র্কে সংবর্ধনায় প্রফেসর ড: সেলিম তোহা= আধুনিক ও ইসলামী শিক্ষার সমন্বয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলপম খোকন,বাপসনিঊজ-নিউইয়র্ক: যুক্তরাষ্ট্র সফররত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড: সেলিম তোহা বলেছেন, অনেকে দুর থেকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে নানাহ মন্তব্য করেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে না গেলে আমাদের সুন্দর পরিবেশ আর সুদৃঢ় অবস্থান বুঝা যাবে না। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল শিক্ষার সাথে ইসলামী শিক্ষার সমন্বয় ঘটিয়ে আলোকিত মানুষ তৈরি করার মহান উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়।গত ৪ নভেম্বর শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় নিউইয়র্কে দেয়া এক সংবর্ধনায় তিনি এব কথা বলেন।খবর বাপসনিঊজ।


ড: সেলিম তোহা বলেন, সুন্দর এ অনুষ্ঠানে আমি অভিভূত। বিশ্বের অন্যতম উন্নয়নশীল দেশ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে আমাদের অনেক সাবেক শিক্ষার্থী রয়েছে। তোমাদের কারণে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ হিসেবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দেশে-বিদেশে বেশ পরিচিতি লাভ করেছে। প্রবাসে প্রত্যেকই তোমরা আমাদের দেশের জন্য একজন দূত।ড: সেলিম তোহা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ২৫টি বিভাগ চালু ছিল। যা আশে পাশে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকেও কম। আমাকে দায়িত্ব দেওয়ার পর চারটি অনুষদের অধিনে নতুন আটটি বিভাগের অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। প্রত্যেকটা বিভাগই খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে এসব বিভাগে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট বিভাগ সংখ্যা হল ৩৩টি।


তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে আমাদের রয়েছে সুদুরপ্রসারী পরিকল্পনা। আমরা ইতিমধ্যে আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কারণ প্রতিমাসে পরিবহন খাতে কোটি কোটি খরচ হয়। এ অর্থ দিয়ে আবাসিক হল করলে আমাদের পরিবহনের এত বিশাল অংকের অর্থ গুনতে হবে না। এতে ছেলেদের জন্য ২টা এবং মেয়েদের জন্য ১টা ১০তলা বিশিষ্ট আবাসিক হল করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রস্থ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন এর আয়োজনে সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয় নিউইয়র্ক সিটির বাংলাদেশীদের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে খ্যাত জ্যাকসন হাইটসের ফ্যালকন ইনফো টেক মিলনায়তনে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষক মুন্সী মতুর্জা আলীর সঞ্চালনে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, যুক্তরাষ্ট্র সফররত আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক  সাজ্জাদুর রহমান টিটু। লিখিতভাবে ড: সেলিম তোহার কর্মময় জীবনী তুলে ধরেন আইন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ব্যারিষ্টার গোলাম মোস্তফা।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র সফররত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন শিক্ষক ও শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তাকে নিয়ে এটা প্রথম অনুষ্ঠান। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, যুক্তরাষ্ট্র ব্যানারে হলেও এটা কমিটি বিহিন একটা সংগঠন।


ভার্জিনিয়ায় আমরা বাঙ্গালি ফুটবল টিম (ABF) এর শিরোপা জয়

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

Picture

এখানে উল্লেখ্য যে বিজয়ী দলটি এবারেই প্রথম বারের মত বিএফএল টুর্নামেন্টে অংশ গ্রহণ করে। এবারেই অংশ গ্রহন করেই চ্যাম্পিয়ান শিরোলাপ লাভ করে দলটি বিএফএল এ ইতিহাস সৃষ্টি করে।আমার বাঙালীর সভাপতি জীবক কুমার বড়ুয়া ও ফুটবল দলের ক্যাপ্টেইন জর্জ বাবুর হাতে চ্যাম্পিয়ানশিপ ট্রফি তুলে দিবার সাথে সাথে আমরা বাঙালী শিবিরে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়।

alt

দলের হয়ে যার খেলায় অংশ গ্রহণ করেন তাঁরা হলেন - দলনায়ক দেবাংশু চৌধুরী, দিবাংকর চৌধুরী, রাজ বড়ুয়া, কিংশুক বড়ুয়া, সীমান্ত বড়ুয়া, চৌকস ঘোষ, সৌকারিয়া ঘোষ আঁকিল শাহরিয়াজ, যাক আহসান, তালহা হুদা, সজীব দাশ, সুরির শাহ ও আরাফাত রশিদ।আমরা বাঙালীর পক্ষথেকে উপস্থিত ছিলেন আমান উল্লাহ আমান, দেওয়ান আরশাদ আলী বিজয়, মোঃ আলতাফ হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, দস্তগীর জাহাঙ্গীর, জিবাক কুমার, দিনার মণি, অমর ইসলাম সহ অনেকে।


ব্রঙ্কসের পার্কচেষ্টার মসজিদের নির্বাচন রোববার : দু’প্যানেলের প্রতিদ্বন্দ্বিতা, নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি সম্পন্ন

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ-: নিউইয়র্কে বাঙালী অধ্যুষিত ব্রঙ্কসের প্রাচীনতম মসজিদ পার্কচেষ্টার জামে মসজিদ ইনক্ অ্যান্ড ইসলামিক সেন্টারের নির্বাচন আগামী ১২ নভেম্বর রোববার অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে দু’টি প্যানেলে ১৫ জন করে প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ইতোমধ্যে মসজিদের নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষে তাদের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বলে জানিয়েছে।খবর বাপসনিঊজ।
নির্বাচন কমিশনের সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ বাপসনিঊজকে জানিয়েছেন, আগামী ১২ নভেম্বর রোববার মসজিদ ভবনে সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে। ভোট চলাকালে জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজের জন্য ১৫ মিনিট করে বিরতি থাকবে। তিনি জানান, তিনটি বুথে ভোট গ্রহণ করা হবে। একজন প্রকৌশলীসহ ৬ জন অপারেটর নির্বাচনী মেশিন পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন। নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন ৫ জন সিকিউরিটি অফিসার। নির্বাচন কমিশনের সদস্যরা ছাড়াও এক জন প্রিসাইডিং অফিসার ও ৬ জন পুলিং অফিসার নির্বাচন পরিচালনায় নিয়োজিত থাকবেন। পুলিং অফিসারদের মধ্যে দু’জন মহিলাও রয়েছেন। সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ আরো জানান, নির্বাচন কমিশনার, প্রিসাইডিং অফিসার ও পুলিং অফিসারগণ বিনা সম্মানীতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করবেন। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ৮৭২ জন। এদের মধ্যে লাইফ মেম্বার ৪২৩ জন এবং সাধারণ ভোটার ৪৪৯ জন।
নির্বাচন কমিশনের সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ বাপসনিঊজকে আরো জানান, ভোট প্রদানকালে নির্বাচন কমিশনকে ভোটারদের বৈধ ফটো আইডি প্রদর্শণ করতে হবে। ভোট কেন্দ্রের ১০০ গজের মধ্যে পোস্টার কিংবা প্রচারণা চালানো যাবে না। কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গেই  নির্বাচন কমিশন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর শরনাপন্ন হবে। নির্বাচন সংক্রান্ত কোন অভিযোগ থাকলে ২৪ ঘন্টার মধ্যে নির্বাচন কমিশন বরাবর তা লিখিতভাবে জানাতে হবে। নির্বাচন কমিশন এ সংক্রান্ত অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে যথাসময়ে প্রয়োজনী প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবে। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।
নির্বাচন কমিশন প্রার্থী ও ভোটারদের মসজিদের নির্বাচনী আইন ও বিধিমালা যথাযথভাবে অনুসরণ করার বিনীত আহ্বান জানিয়ে এ ব্যপারে সংশ্লিষ্ট সকলের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেছে।
নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা হলেন : চেয়ারম্যান সাইয়্যিদ মুজিবুর রহমান, সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ, সদস্য ইফতেখার সিরাজ, শামিম মিয়া ও মোহাম্মদ আজিজুল করিম।
এদিকে, পার্কচেষ্টার জামে মসজিদ ইনক্ অ্যান্ড ইসলামিক সেন্টারের নির্বাচনে কার্যকরী পরিষদের ১৫টি পদের জন্য দু’টি প্যানেলে ১৫ জন করে মোট ৩০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। প্যানেল দু’টির একটি নাজিম-নজরুল এবং অপরটি মোস্তাক-খলিল পরিষদ।
দু’প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন :
মোস্তাক-খলিল প্যানেল : সভাপতি মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি (১) আঃ শহীদ, সহ সভাপতি (২) জয়নাল আহমেদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমান, সহ সাধারণ সম্পাদক আম্বিয়া মিয়া, কালচারাল সেক্রেটারী হিফজুর রহমান চৌধুরী, ফিউনারেল সেক্রেটারী মোঃ নুরুল আহিয়া, মেইনটেনেন্স সেক্রেটারী মোঃ ফটিক মিয়া, এডুকেশন সেক্রেটারী ইসলাম উদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ মাজলুল আহমেদ, সহ কোষাধ্যক্ষ মোঃ রফিকুল ইসলাম, সদস্য : আঃ বাছির খান, আঃ মতিন, লুকমান হোসেন লুকু ও মো. মজনু মিয়া।
নাজিম-নজরুল প্যানেল : সভাপতি সৈয়দ আল ওয়াহিদ নাজিম, সহ সভাপতি (১) সৈয়দ শামসুজ্জামান আহমেদ, সহ সভাপতি (২) ফয়জুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল হক, সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ আকসাদ আলী, কালচারাল সেক্রেটারী মোঃ আব্দুল হাই, ফিউনারেল সেক্রেটারী মোঃ আরিফ চৌধুরী, মেইনটেনেন্স সেক্রেটারী মোঃ রেজাউল ইসলাম, এডুকেশন সেক্রেটারী সাব্বির কাজী আহমদ, কোষাধ্যক্ষ নুরুল হুদা চৌধুরী, সহ কোষাধ্যক্ষ জুলু আহমেদ, সদস্য: আলমাছ আলী, ফারুক চৌধুরী, কামাল উদ্দিন ও শালিক সিকদার।
উল্লেখ্য, পার্কচেস্টার জামে মসজিদের ইতিহাসে এবারই প্রথম বারের মত প্যানেল ভিত্তিক সরাসরি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।


কুমিল্লা সোসাইটি অব ইউএসএ-এর অভিষেক ১২ নভেম্বর

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবে বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ডা: মজিবুর রহমান মজুমদার। উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ, গেষ্ট অব অনার পিপল এন টেক এর প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও আবুবকর হানিপ।

Picture

বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ সোসাইটির ষ্ট্রাস্টিবোর্ড সদস্য এ্যাডভোকেট জামাল আহমেদ জনি, এমদাদুল হক কামাল, কমিউনিটি এক্টিভিষ্ট  মোহাম্মদ জামান তপন, কুমিল্লা জেলা স্কুলের প্রাক্তন সিনিয়র শিক্ষক মোঃ রশিদুল হক, গ্রেটার কুমিলা ফাউন্ডেশন অব নর্থ আমেরিকা সিনিয়র সহ সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মাষ্টার, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ আবু তালেব চৌধুরী চান্দু, মোশাররফ হোসেন খান বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ এর প্রতিষ্ঠাতা  মোশাররফ হোসেন খান চৌধুরী, কুমিল্লা সোসাইটি নর্থ আমেরিকা সাবেক সভাপতি প্রফেসর মনির হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিস্ট ব্যবসায়ী কাজী আবদুর রশিদ, কমিউনিটি নেতা কাজী এনামুল হক, হাজী রেহান উদ্দীন মাষ্টার, আবদুল হালিম মুন্সী, আফজালুর রহমান, আব্দুল লতিফ সরকার, এ্যাডভোকেট আজিজুল হক রুমি, জিএস হাবিব খান চৌধুরী, সংগঠনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার হাজী পিয়ার আহমেদ, প্রধান উপদেষ্টা ও নির্বাচন কমিশন সদস্য ডা: আলী আহমেদ ও ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল খালেক।


যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে ডেমোক্রেটদের জয় জয়কার: ভার্জিনিয়ার রাজ্যের রালফ নরথাম নিউজার্সীতে ফিল মারফি গভর্নর নির্বাচিত

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

শিব্বীর আহমেদ,বাপ্ নিউজ : ওয়াশিংটন: সারাবিশ^কে তাক লাগিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের গভর্নর হিসাবে নির্বাচিত হলেন ডেমোক্রেট প্রার্থী রালফ নরথাম। আর এরই সাথে সাথে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পতন শুরু হল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশিষ্টজনেরা। সন্ধ্যা ৯ ঘটিকার সময় পাওয়া সর্বশেষ খবর অনুযায়ী সর্বমোট ৫২% ভোট পেয়ে গভর্নর নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী রালফ নরথাম। অন্যদিকে রিপাবলিকান এড গেলিসপি পেয়েছেন ৪৬% ভোট।

২০১৭ সালের যুক্তরাষ্ট্রের এই মধ্যবর্তী নির্বাচনে আজ ৭ নভেম্বর সারাবিশে^র নজর ছিল ভার্জিনিয়া রাজ্যের নির্বাচনের ফলাফলের দিকে। আর ভার্জিনিয়ার এই নির্বাচিনী ফলাফলের উপরই যেন নির্ভর করছিল যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ। রিপাবলিকান প্রার্থী এড গেলিসপি জয়ের উপরই প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার সফলতা ও ব্যর্থতার স্বাক্ষর রাখবেন বলে বিশ^ রাজনৈতিক বোদ্ধারা অভিমত ব্যক্ত করেছিলেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প খোদ টুইটে ভার্জিনিয়ায় এড গেলিসপির জয় নিজের বিজয় হিসাবে দেখবেন বলে আশা করেছিলেন। কিন্তু ডোনালল্ড ট্রাম্পের সকল আশা আকাংখা শেষ করে দিয়ে ভার্জিনিয়া রাজ্যের গভর্নর হিসাবে নির্বাচিত হলেন ডেমোক্রেট প্রার্থী রালফ নরথাম।

দিনভর বৃষ্টি আর বৈরী আবহাওয়ার মধ্য দিয়ে ভার্জিনিয়ার ভোটাররা সকাল থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ভোট প্রদান করে। বাদ যায়নি ভার্জিনিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীরাও। প্রচন্ড ঠান্ডা আর বৃষ্টি উপেক্ষা করে নিজের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদান করে।

এছাড়া ভার্জিনিয়ার ল্যুটানেন্ট গবর্ণর হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী জাষ্টিন ই ফেয়ারফ্যাক্স। এদিকে নিউজার্সী রাজ্যের গভর্নর হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্রেট ফিল মারফি। ফিল মারফি প্রথমবারের মত নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে রিপাবলিকান প্রার্থী বর্তমান গভর্নর কিম গোডাগনোকে পরাজিত করে গভর্নর নির্বাচিত হন।


১৬ ডিসেম্বর শনিবার বিসিসিডিআই বাংলাস্কুলের বিজয় মেলা ও ১৩তম পৌষ পিঠা মেলা উৎসব

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

শিব্বীর আহমেদ, বাপ্ নিউজ : ওয়াশিংটন: ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেন্টার ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট বিসিসিডিআই বাংলাস্কুলের বিজয় মেলা ও ১৩তম পিঠা উৎসব। ওয়াশিংটনের সবচাইতে সাড়া জাগানোর এই উৎসব আগামী ১৬ ডিসেম্বর শনিরবার সন্ধ্যা ৫ ঘটিকা থেকে রাত ১১ ঘটিকা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে আর্নেষ্ট কমিউনিটি কালচারাল সেন্টার, নোভা আনানডেল ক্যাম্পাস, ৮৩৩৩ লিটল রিভার টার্নপাইক, আনানডেল, ভার্জিনিয়া ২২০০৩।

বিসিসিডিআই বাংলা স্কুল আয়োজিত এই বিজয় মেলা ও ১৩তম পৌষ মেলা ও পিঠা উৎসবে পিঠা প্রতিযোগিতা, আকর্ষনীয় র‌্যাফেল ড্র পুরস্কারের ব্যবস্থা রয়েছে। আরো থাকছে বছরের সেরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের অঙ্গীকার। পরিবেশন করবে বাংলাস্কুলের ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও বিসিসিডিআই বাংলা স্কুলের আয়োজনে দ্বিতীয়বারের মতো স্মৃতি সৌধের বেদিতে পুষ্প অর্পণ ও হাজারো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত "আমার সোনার বাংলা" পরিবেশন করা হবে।

অনুষ্ঠানে উন্মুক্ত শিশু চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। "এসো আঁকি বিজয়ের রঙে" শীর্ষক বিশেষ অঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। চিত্রাংকনের বিষয় নির্ধান করা হয়েছে ”বাংলাদেশ”। এছাড়াও অনুষ্ঠানে এসো যেমন খুশি তেমন সাজো প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। যেমন খুশি তেমন সাজো প্রতিযোগিতার বিষয়বস্তু নির্ধারন করা হয়েছে "এসো সাজি বিজয়ের রঙে" শীর্ষক বিশেষ প্রতিযোগিতা। সাজের বিষয় নির্ধারন করা হয়েছে ”মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ”।

এছাড়াও আয়োজনের মধ্যে আরো রয়েছে আকর্ষনীয় পিঠা তৈরী ও পিঠা পরিবেশন প্রতিযোগিতা। পিঠা প্রতিযোগীতায় দেশের নানা অঞ্চলের পিঠার সামগ্রী সাজিয়ে বসবেন বিভিন্ন অঞ্চলের পিঠাপ্রেমীরা। পিঠার মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠবে পুরো অনুষ্ঠান। একদিকে যেমন বিজয়ের উৎসব আর অন্যদিকে দেশীয় পিঠাপুলির মৌ মৌ গন্ধ আর তার সাথে রয়েছে বাংলাস্কুলের ছাত্রছাত্রীদের জমজমাট দেশীয় সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। সবকিছু মিলিয়ে অনুষ্ঠানটি একটি সেরা অনুষ্ঠানে পরিনত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিসিসিডিআই বাংলাস্কুল আয়োজিত এই বিজয় মেলা ও ১৩তম পৌষ পিঠা মেলা উৎসবে প্রবাসী সবইকে স্বপরিবার স্ববান্ধব আমন্ত্রন জানিয়েছে বিসিসিডিআই কর্তৃপক্ষ। অনুষ্ঠান সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য জসীম উদ্দীন ২০২-৭০৯-১৯৩৬ অথবা ৩৩৯-৭০৭-০৫৭১ এ যোগাযোগ করার জন্য বিনীত অনুরোধ জানানো হয়েছে।