Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

বিপ্লব সাহার মাতৃবিয়োগ

বৃহস্পতিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : (নিউইয়র্ক): স্বর্গীয় চিত্তরঞ্জন সাহার সহধর্মিনী ও নিউইয়র্কের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বিপ্লব সাহা রাজুর মাতা  শ্রীমতি কমলা রাণী সাহা গত ৩ নভেম্বর বাংলাদেশ সময অপরাহ্ন ২টায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করে পরলোক গমন করেন। ৮৫ বছর বয়সে দেহত্যাগকালে শ্রীমতি কমলা রাণী সাহা দুই কন্যা ও পাঁচ পুত্র ও ১২ নাতি-নাতনি এবং অসংখ্য আত্মীয় রেখে গেছেন।
দেশে চাঁদপুর শহরের সাথে সঙ্গতি রেখে নিউইয়র্কেও আগামী ১৯ নভেম্বর রবিবার স্বর্গীয় কমলা রাণী সাহার শ্রাদ্ধের আয়োজন করা হয়েছে।
শ্রাদ্বানুষ্ঠানে সকলকে যোগ দিতে বিপ্লব সাহা ও তার সহধর্মিনী ইয়ংহু চৌই বিনীত অনুরোধ করেছেন।শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে জ্যাকসন হাইটসের ৭২ স্ট্রীটের ওঁম শক্তি মন্দিরে।


সোহরাওয়ার্দী ৫৪তম স্মৃতি বার্ষিকী ৫ ডিসেম্বর মঙ্গলবার

শনিবার, ০৪ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপ্ নিউজ : ৫ ডিসেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার, ‘গণতন্ত্রের মানসপুত্র‘ ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের মূল প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘রাজনৈতিক পিতা‘ এবং ’উপমহাদশেরে বরণ্যে রাজনতৈকি নতো    হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৪তম স্মৃতি বার্ষিকী । ১৯৬৩ সনের এই দিনে লেবাননের রাজধানী বৈরুতের এক হোটলে কক্ষে নঃিসঙ্গ অবস্থায়  বাংলাদেশের এই কিংবদন্তী নেতা শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এ উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বভিন্নি রাজনতৈকি ও সামাজকি সংগঠন বভিন্নি র্কমসূচি গ্রহণ করছে।ে   ভাব গম্ভীর পরিবেশে দিনটি উদযাপনের উদ্দেশ্যে যুক্তরাষ্ট্রস্থ সোহরাওয়ার্দী স্মৃতি পরিষদ ছাড়াও বঙ্গবন্বু প্রচারকেন্দ্র সমাজকল্যাণ পরিষদ, ইন্টারন্যাশনাল বঙ্গবন্ধু  সেন্টার , বাংলাদেশ মানবাধিকার পরিষদ, জাতীয় চারনেতা পরিষদ, প্রবাসী বাঙ্গালী সমাজকল্যাণ পরিষদ , বনলতা শিল্পী-সাহিত্যিক -সাংবাদিক গোষ্টী ও শিরি শিশু সাহিত্য কেন্দ্র -নিউইয়র্ক শাখা প্রভৃতি সংগঠনসমূহ এক যৌথ কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।খবর বাপসনিঊজ। এছাডাও যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিভিন্ন রাজনৈতিক,সামাজিক ও সাং¯কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।
উল্লেখ্য, সোহরাওয়ার্দীর আশীর্বাদ, সমর্থন ও মনোনয়ন নিয়ে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীকে সভাপতি করে ১৯৪৯ সনের ২৩ জুন ঢাকায় প্রথমে প্রাদেশিক পর্যায়ে পূর্ব বাংলা আওয়ামী মুসলিম লীগ (পরবর্তী নাম পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ) গঠন করা হয়। প্রাদেশিক নেতৃত্ব গ্রহণে অনিচ্ছুক সোহরাওয়ার্দী দলের প্রাদেশিক প্রধানের পদটি মওলানা ভাসানীকে প্রদানের নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে আওয়ামী মুসলীম লীগ (পরবর্তী নাম লিখল পাকিস্তান আওয়ামী লীগ ) গঠন করে সোহরাওয়ার্দী পর্যায় ক্রমে নিজে এর আহবায়ক , সভাপতি এবং দলীয় প্রধান হিসাবে আমৃত্যুকাল কার্য পরিচালনা করেন। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের‘রাজনৈতিক পিতা’ হিসাবে পরিচিত হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী বৃটিশ ভারতের অবিভক্ত বাংলার সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রী (১৯৪৬-৪৭) এবং পরবর্তীতে  তদানীন্তন পাকিস্তানের এককালীন প্রধানমন্ত্রী (১৯৫৬-৫৭) ছিলেন। বাপসনিউজ। এ উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন একাধারে প্রতিভাবান রাজনৈতিক সংগঠক, আইনজ্ঞ, বঙ্গীয় ব্যবস্থাপক সভা ও গণপরিষদের সদস্য, অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রীসহ তৎকালীন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। যথাযোগ্য মর্যাদায় অবিসংবাদিত এই নেতার মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সোমবার সকাল ৮টায় হাইকোর্ট সংলগ্ন মরহুম হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মাজারে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে, গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহের সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ী জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।১৮৯২ সালের ৮ সেপ্টেম্বর বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের মেদিনীপুরের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে সোহরাওয়ার্দীর জন্ম। তিনি ছিলেন বিচারপতি স্যার জাহিদ সোহরাওয়ার্দীর কনিষ্ঠ সন্তান। শহীদ সোহরাওয়ার্দী পাকিস্তানের সামরিক স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে এদেশের শান্তিপ্রিয় গণতন্ত্রকামী মানুষের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকে তিনি মুসলিম লীগ সরকারের একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ভূমিকা পালন করেন।১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের পর বাঙালির যে জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটেছিল তার অন্যতম নেতৃত্ব দিয়েছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন যুক্তফ্রন্ট গঠনের মূল নেতাদের মধ্যে অন্যতম। গণতান্ত্রিক রীতি ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিলেন তিনি, তাই সুধী সমাজ কর্তৃক ‘গণতন্ত্রের মানসপুত্র’ বলে আখ্যায়িত হন। -


যুক্তরাষ্ট্রে জেলহত্যাকাণ্ডে মদদদাতাদেরও বিচার দাবি নিউ ইয়র্ক আ.লীগের

শনিবার, ০৪ নভেম্বর ২০১৭

Picture

আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদের সঞ্চালনায় শুরুতেই দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় আতাউল হক গণির নেতৃত্বে। বিশেষ মোনাজাতে সকলে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় ৪ নেতার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান তার শ্রদ্ধাঞ্জলি বক্তব্যে বলেন, ‘জেলখানায় যারা হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে এবং এমন বর্বরতায় যারা মদদ জুগিয়েছে, তাদের সকলেই একই দোষে দোষী। ঘাতকদের বিচার হলেও মদদদাতারা এখনও চিহ্নিত হয়নি কিংবা বিচারও শুরু হয়নি। ভবিষ্যতে এমন বর্বরোচিত আচরণে আর কেউ যাতে সাহস না পায়, সেজন্যেই সকলকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। ’

alt

সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘আদালতে দোষী সাব্যস্তদের কেউ কেউ কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে আত্মগোপন করে রয়েছে। এদেরকে গ্রেফতার করে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিতে প্রত্যেক প্রবাসীকে সহায়তা করতে হবে। নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী বলেন, ‘জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর একই মহল জেলখানায় জাতীয় ৪ নেতাকে নৃশংসভাবে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলার বুক থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র করেছিল। কিন্তু একাত্তরের পরাজিত শত্রুদের সে মতলব ফলপ্রসূ হতে পারেনি বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসূরি শেখ হাসিনা বেঁচে থাকায়। পরম করুণাময়ের অশেষ কৃপায় বাংলাদেশ আজ ঘুরে দাঁড়িয়েছে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ক্রমান্বয়ে বাস্তবায়িত হচ্ছে। ’

alt

যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং  নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মো. আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, ‘ষড়যন্ত্রকারিরা এই প্রবাসেও সক্রিয় রয়েছে। তাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতিটি সৈনিকে চোখ-কান খোলা রাখতে হবে। সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ’

অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আকতার হোসেন, মাহবুবুর রহমান, সৈয়দ বসারত আলী, লুৎফুল করিম এবং শামসুদ্দিন আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুজ্জামান, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মোজাাহিদুল ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নুরুজ্জামান সর্দার , স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক সাখাওয়াত বিশ্বাস, মহানগর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ল’ সোসাইটির সভাপতি মোর্শেদা জামান, মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল কাদের মিয়া, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক সোলায়মান আলী, উপ-প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনি, নির্বাহী সদস্য খোরশেদ খন্দকার, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল বারি প্রমুখ।  

alt

নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরও ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য মিসবাহ আহমেদ, ফরিদ আলম, জাহাঙ্গির হোসেন, এম এ মালেক, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ শাহনাজ, আ’লীগ নেতা শামসুল আবদিন, শেখ আতিকুল হক, খসরুজ্জামান খসরু, মুজিবুল মাওলা, যুবলীগ নেতা নান্টু মিয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগ, বিভিন্ন বরো আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীর সমাগম ঘটে।


সরকার বিরোধী আন্দোলন বেগবান করতে যুবদলের মহা সমাবেশ

শনিবার, ০৪ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিঊজ:: যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠান বিএনপি ও অংগসংগঠনের নেতা কর্মীদের মিলন মেলায় পরিনত হয়। যুবদলের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন পর  যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে প্রান চন্ছলতা ফিরে এসেছে। গত রবিবার ২৯  অক্টোবর জাতীয়তাবাদী যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠানটি জেকসন হাইটসে পালকি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।  
সকাল থেকে ঝড়ো হাওয়া আর মুশলধারে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দলে দলে নেতা কর্মীদের আগমনে পুরো জেকসন হাইটস পরিনত হয়  জাতীয়তাবাদী বিশ্বাসী নেতা কর্মীদের এক আনন্দ মেলা।
প্রথমেই বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের উপস্হিতিতে  যুবদলের সর্বস্থরের নেতাকর্মীদের নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদ আহমদ উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক এম, এ বাতিন, সদস্য সচিব আমানত হোসেন আমান, নিউইয়র্ক স্টেট যুবদলের সভাপতি কাজী আমিনুল ইসলাম স্বপন রঙিন বেলুন উড়িয়ে শুভ উদ্ভোদন করেন, রঙিন কাপড়ে মোড়ানে গেইট ৭৩ স্ট্রীটে বৃষ্টিতে রিমঝিম করে দুল খাওয়া ছিল দৃষ্টিনন্দন।


এরপরই একে একে প্রধান অথিতি সহ নেতাকর্মীরা হল রোমে প্রবেশ করে । কানায় কানায় পূর্ন হয় পালকি পার্টি সেন্টার।  সাধারন সম্পাদক অথিতিবৃন্দকে স্বাগত জানিয়ে একে একে  মন্চে আহ্বান করেন। দেয়ালে ছিল জিয়াউর রহমান, বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের দেওয়া বিভিন্ন বক্তব্য সম্বলিত পোষ্টার, প্রজেক্টরের মাধ্যম বড় পর্দায় দলীয় সংগীত পরিবেশন ও প্রামন্য চিত্র তুলে ধরা হয়।
উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক এম, বাতিনের  সভাপতিত্বে প্রধান অথিতি হিসাবে আসন গ্রহন করেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা এবিএম মোশারফ হেসেন, যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী ও প্রধান সমন্বয় কারী সাঈদুর রহমান সাঈদের আসন গ্রহন করার পর বিশেষ অথিতি হিসাবে মন্চে আসেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সভাতি আব্দুল লতিফ সম্রাট, সাবেক সাধারন সম্পাদক জননেতা জিল্লুর রহমান জিল্লু, সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ্ব সোলাইমান ভূঁইয়া,  সাবেক সহ সভাপতি প্রফেসর  দেলোয়ার হেসেন, সাবেক সহ সভাপতি গিয়াস আহমদ, সাবেক  সাধারন সম্পাদক কামাল পাশা বাবুল। বিএনপি নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের প্রথম সভাপতি কামরুজ্জামান বাবু (প্যালাষ্টাইন বাবু) যুবদলের সাবেক সভাপতি শাহ আলম, সাবেক সভাপতি সৈয়দ এম রেজা, যুগ্মসাধারন সম্পাদক হেলাল উদ্দীন,সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী শাখাওয়াত হোসেন আযম,সাবেক কোষাধক্ষ্য জসিম উদ্দীন ভূঁইয়া, বিএনপি নেতা আবুল হাশেম শাহাদত, মার্শাল মুরাদ, এড. এম এ কাইয়ুম চৌধুরী,আলহাজ্ব বাবর উদ্দীন,সিটি বিএনপির সভাপতি হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা,  জাসাস নেতা আবু তাহের, বিএনপি নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন, জাহাঙ্গীর সারোয়ারদী, তারেক রহমান প্রত্যাবর্তন আন্তজাতিক পরিষদের আহ্বায়ক পারভেজ সাজ্জাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারন সম্পাদক মাকসুদুর রহমান, জাতীয়তাবাদী ফোরামের সভাপতি নাসিম আহমদ, যুক্তরাষ্ট্র  যুবদলের সহ সভাপতি হেলালুর রহমান, সহ সভাপতি আহবাব হোসেন চৌধুরী খোকন, সফিকুর রহমান দুলাল, বিএনপি নেতা ফেরদৌস আহমদ, রেদোয়ান আহমদ,যুগ্ম সাধারন সম্পাদক সারোয়ার খান বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম মাহমুদ, যুবদল নেতা ওয়েছ আহমদের কোর আন তেলওয়াতের পরই ৩৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে ৩৯পাউন্ডের কেক কাটার মাধ্যমে যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাকালীন নেতা কামাল সাঈদ মোহনের বক্তব্য দিয়ে শুরু হওয়া আলোচনার পর্বে  অথিতিদের  বক্তব্যের পূর্বে বক্তব্য রাখেন নিউইয়র্ক স্টেট যুবদলের সাধারন সম্পাদক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা মো: রেজাউল আজাদ ভূঁইয়া,সিটি যুবদলের সাধারন সম্পাদক শেখ হায়দার আলী, সৈয়দ এনাম, যুবদল নেতা খলকুর রহমান, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম জনি, নাজিম উদ্দীন রিংকু, ব্রুকলীন যুবদলের আহ্বায়ক ইকবাল হায়দার, জাসাস নেতা কাওছার আহমদ, মোহামদ আলী রাজা, সিদ্দিক পাটোয়ারী, শাহাদত হোসেন রাজু, এমদাদ তরফদার, সোহেল হাওলাদার, আরশাদ খান, সোয়েব আহমদ, আব্দুস সামাদ টিটু ,রুবেল, শাওন প্রমূখ।

বক্তাগণ বলেন কারো কোন নির্দেশ নয় কাউকে খুশী করতে নয় নিজের তাগিদেই দলের প্রতি ভালবাসার টানে বিএনপির নেতৃবৃন্দ যুবদলের আহ্বানে সারা দিয়ে এক মন্চে এসেছি।দেশ ও দলের প্রয়োজনে বেগম খালেদা জিয়া ও দেশ নায়ক তারেক রহমানের নির্দেশে যে কোন কর্মসূচী ১/১১ ফকরু- মঈন বিরোধী আন্দোলনের মতই হাসিনা বিরোধী আন্দোলনে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে থাকার অংগীকার করেন। রোহিঙ্গা শরণার্থীদে মাঝে ত্রাণ বিতরনের উদ্দেশ্যে বেগম জিয়ার সফর সংগী যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু কক্সেসবাজার থেকে ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্যে বলেন- দেশ নেত্রী এ দেশনায়ক তারেক রহমানের মনোবল জাতীয়তাবাদী যুবদলের যুক্তরাষ্ট্র শাখার উদ্যোগে আয়োজিত এই মহা সমাবেশ দেশে ও প্রবাসের যুবদল নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়েছে, উপস্থিত সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে টুকু বলেন গনতন্ত্র পুনরুদ্বার আন্দোলনে যুবদলের নেতাকর্মীরা রাজপথে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে স্বৈরশাসনের পতন ঘটাবে।
প্রধান অথিতির বক্তৃতায় এবিএম মোশারফ হোসেন বলেন প্রবাসে যুক্তরাষ্ট্র যুবদল সকলকে একই মন্চে এনে ঐক্যের যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তা সকলের জন্য অনুকরনীয়। তিনি বলেন প্রবাসীদের আন্দোলন আমাদের অনুপ্রানিত করে। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে আওয়ামীলীগ ১৯ সিটের বেশী পাবে না বলে দাবী করেন।
আব্দুল লতিফ সম্রাট বলেন- যুক্তরাষ্ট্র যুবদল আমাদের প্রতিহিংসাকে চিরদিনের জন্য কবর দিয়েছে, তিনি বলেন নবীন প্রবীণদের নিয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনই গনতন্ত্র মুক্তি দিতে পারে।  
জিল্লুর রহমান জিল্লু বলেন -  যুক্তরাষ্ট্র যুবদল বিএনপির নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করতে যে ঐতিহাসিক মন্চ তৈরী করেছে তা হবে বাকশাল হটাও গনতন্ত্র মুক্তি দাও মন্চ,  ঐকবদ্ধভাবে ফকরু মঈন উদ্দীনকে যেভাবে উৎখাত করেছিলাম যুবদলের এই মন্চ থেকেই শুরু হাসিনা উৎখাতের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। জিল্লুর রহমান জিল্লু সাবেক মন্ত্রী সদ্য প্রয়াত মরহুম এম কে আনোয়ার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন। দেশ ও দলের ক্রীন্তিলগ্নে দেশ ও প্রবাসে যুবদল সোচ্চার ভূমিকা পালন করছে। বেগম খালেদা জিয়াকে হত্যার উদ্যেশ্যে বারবার হামলা করা হচ্ছে, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করা হচ্ছে ,মামলা দিয়ে তারেক রহমানকে দেশে যেতে বাধা দিচ্ছে, দেশে গনতন্ত্র নেই, ভোটের অধিকার নেই সংবাদ পত্রের স্বাধীনতা নেই, ব্যংক লুট, হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করা হয়েছে, জীবনের নিরাপত্তা নেই, আওয়ামী সন্রাসীদের নিকট মানুষ জিম্মি, নারী- শিশু নির্যাতন লাগামহীন এ অবস্থায় যুবসমাজ ঘরে বসে থাকতে পারেনা, তাই সকল দেশপ্রেমিক ভাইদের আহ্বান জানিয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলার আহ্বান জানালেন যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক  ১/১১ এর পরীক্ষিত সৈনিক আবু সাঈদ আহমদ ।
গিয়াস আহমদ বলেন -যুক্তরাষ্ট্র যুবদল ও বিএনপি ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করে অবৈধ সরকারকে উতকাত করা হবে ।
প্যালেষ্টাইন বাবু আবেগ আপ্লুত হয়ে বলেন যে সংগঠনটি যুক্তরাষ্ট্রের শুরু করেছিল তার আজ পঁচিশ বছর রজত জয়ন্তীতে আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়ে সম্মানিত করায় নেতৃবৃন্দক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।
যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী বলেন - আন্দোলন সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধভাবে বাকশালীদের মোকাবেলা করতে আজ যে ঐতিহাসিক সমাবেশ হল তাতে প্রমানিত হয় জিয়ার সৈনিকদের সামনে যে কোন অপশক্তিই ষডযন্ত্র করে টিকে থাকতে পারবে না।


যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের আহ্বানে যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল,স্বেচ্ছাসেবক দল, জাসাস,জাতীয়তাবাদী ফোরাম, তারেক জিয়া প্রত্যাবর্তন আন্তর্জাতিক পরিষদ,সিটি বিএনপি, ফ্লোরিডা স্টেট বিএনপি, চট্রগ্রাম জাতীয়তাবাদী ফোরাম, সন্দীপ জাতীয়তাবাদী ফোরাম সহ অঙ্গ সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে সরব হয়ে উঠে পুরো জেকসন হাইটস।
 এছাড়াও হলরুমের বিভিন্ন কর্ণারে যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর সরকার, ইকবাল খান,মনসুর আহমদ শাওন, দেলোয়ার হোসেন মানিক, শামীম তালুকদার, মোশারফ চৌধুরী, মাইন উদ্দীন, মামুন আহসান,ওয়াহিদুজ্দামান নিলু, আনোয়ার হোসেন, মাইনউদ্দিন, আজহারুল ইসলাম, রাশেদ আহমদ, আব্দু আওয়াল চৌধুরী জুবের, আজাদুল ইসলাম আলমগীর, দল বেধে মহুরমুহুর করতালি আর শ্লোগানে যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের উজ্জীবিত কর্মীরা অনুষ্ঠানকে আরো প্রানবন্ত করে তোলে।
লন্ডন থেকে বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাহিদুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের উপদেষ্ঠা ব্যরিষ্টার আবু সালেহ মোহাম্মদ সায়েম, বাংলাদেশ থেকে কেন্দ্রীয় যুবদলের দপ্তরের দায়িত্বে কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা কামরজ্জামান দুলাল সাধারন সম্পাদক আবু সাঈদের মাধ্যমে টেলিফোনে যুবদল প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠানের সফলতা কামনা করেন এবং নেতৃবৃন্দকে শুভেচ্ছা জানান।
 যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক সাহেবের লন্ডন ও সিলেটের বাড়ীতে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলার তীব্র নিন্দা জানানো হয় যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সমাবেশ থেকে।  ন্যাক্যারজনক হামলাকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবী জানানো হয়।
 নৈশ ভোজের পর পরেই শুরু হয় প্রবাসের খ্যাতনাম শিল্পী শাহ মাহবুবু,  রুখসানা মীর্জা, কৃষ্ণাতিথি, নুরুজ্জামান লাল্টুর সহ জনপ্রিয় শিল্পীদের মধ্যরাত পর্যন্ত সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা।
জাতীয়তাবাদী মনা  নেতাকর্মীরা আগামীদিনেও ঐক্যবদ্ধ থেকে আন্দোলন সংগ্রামে অংশ গ্রহন করার প্রত্যয়ে শেষ হল বেশ কয়েক সপ্তাহ নিউইয়র্কের আলোচিত ও রং বেরঙের প্রচরনায় মুখরিত যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠান।


প্রবাসী লেখক রীনা রায়হানের প্রথম বই “নিসর্গে ভালোবাসার খেলা”র মোড়ক উন্মোচন

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

Picture

উল্লেখ্য যে এই প্রথম একটি গল্প গ্রন্থ প্রকাশিত হলেও রীনা রায়হান বহু বছর ধরে নিয়মিত গল্প লিখে আসছেন। তাঁর লেখা সাপ্তাহিক ঠিকানা সহ বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে থাকে। বেলাল বেগ তাঁর বক্তব্যে আশা প্রকাশ করেন মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত দলিল ও স্বাধীনতা যুদ্ধের উজ্জ্বল স্বাক্ষর হিসেবে রীনা রায়হানের ছোট গল্প ও রম্য রচনার সংকলন ‘ নিসর্গে ভালোবাসার খেলা’ দর্শকপ্রিয়তা লাভ করবে।

alt

অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছদকরেছেন রোকেয়া রহমান বীনা। শাহিন প্রকাশের আফজালুল বাসার বাবলু প্রকাশিত এই গ্রন্থ উৎসর্গ করা হয়েছে লেখকের প্রয়াত মাকে। বইটির প্রথম ফ্ল্যাপে রয়েছে লেখকের রচনারীতি বিষয়ে সুচিন্তিত অভিমত এবং শেষ ফ্ল্যাপে স্থান পেয়েছে লেখক পরিচিতি। সমগ্র অনুষ্ঠানের উপস্হাপনা ও পরিচালনায় ছিলেন বিখ্যাত অভনেত্রী লুৎফুন্নাহার লতা ।অনুষ্ঠান উপস্হাপন পর্বে লতা বইটি থেকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বাস্তব কথকতায় সমৃদ্ধ একটি গল্প পড়ে শোনান । অনাড়ম্বর এই অনুষ্টানে প্রখ্যাত সাংবাদিক জগলুল আলম, সংগীত শিল্পী রীনা আহমদ এবং লেখক রীনা রায়হানের স্বামী ও ইত্তেফাকের একসময়কার বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ রায়হান উল্লাহ সহ নিউ ইয়র্কে বসবাসরত +লেখকের সাবেক সহপাঠি এবং বন্ধুদের একটি বড় অংশ উপস্হিত ছিলেন অনুষ্টানটির সার্বিক আয়োজনে ছিলেন বিশিস্ট ব্যবসায়ী জনাব মইনুল আলম বাপ্পি।


সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন টি রহমান

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,হেলাল মাহমুদ, বাপসনিঊজ:নিউইয়র্ক : আগামী ৭ নভেম্বর, মঙ্গলবার নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলের নির্বাচনে ডিষ্ট্রিক্ট ২৪ কুইন্স থেকে প্রার্থী হয়েছেন জ্যামাইকার কমিউনিটি একটিভিষ্ট নিউইয়র্ক সিটি ডিপার্টমেন্ট অফ সোসাল সার্ভিস থেকে সদ্য অবসরপ্রাপ্ত মোহাম্মদ তৈয়েবুর রহমান ( মোহাম্মদ টি রহমান)। নিউইয়র্কে বাংলাদেশি কমিউনিটি অনেক বছরের পুরনো না হলেও সংখ্যায় এখানে অন্য অনেক কমিউনিটি থেকে বেশি। গ্রেটার জ্যামাইকাতে অধিক সংখ্যক বাংলাদেশি বসবাস করেন।

কমিউনিটির মধ্যে ঐক্য বিরাজমান থাকলে এখান থেকে এখনই নিজেদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করা সম্ভব বলে মনে করেন টি রহমান। তিনি বলেন, কমিউনিটিতে বিভেদ থাকলে বা একাধিক প্রার্থী হলে কেউ কোন দিনই নির্বাচিত হতে পারবে না। এজন্য এ ব্যাপারে কমিউনিটির ঐক্যের কোন বিকল্প নেই।
আগামী ৭ নভেম্বরের নির্বাচনে দল মত নিবিশেষে সকল পার্টির রেজিষ্ট্রার ভোটারদের ভোট দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তৈয়েবুর রহমান। তিনি গত ১২ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে তাকে ৩৮% ভোট দেয়ায় ডিষ্ট্রিক্ট ২৪ এর ডেমোক্রেট ভোটারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।


সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি ইউএসএ’র কমিটিতে ৩ কর্মকর্তার অন্তর্ভূক্তি

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ: যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি ইউএসএকে আরো গতিশীল করার লক্ষে কমিটিতে আরো ৩ কর্মকর্তার অন্তর্ভূক্তি করা হয়েছে। নিউইয়র্কে ব্রঙ্কসের এশিয়ান ড্রাইভিং স্কুল হলে গত ২৩শে অক্টোবর সোমবার সমিতির কার্যকরী পরিষদের এক সভায় নতুন এ ৩ কর্মকর্তার নিয়োগ চূড়ান্ত করা হয়। সমিতির সভাপতি জোসেফ চৌধুরী সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুল আম্বিয়া টিপুর পরিচালনায় সভায় সর্ব সম্মতি ক্রমে সমিতির কার্যকরী পরিষদে কিছু রদবদল করা হয়। সমিতিতে ইশতিয়াক রূপুকে নতুন উপদেষ্টা, আবু সালেহ চৌধুরীকে সহ সভাপতি এবং মুকিম উদ্দিনকে নতুন সদস্য হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। সভায় সমিতির কোষাধ্যক্ষ এম রহমান কামাল সমিতির বিগত দিনের হিসাব নিকাশ সবার কাছে তুলে ধরেন।


শেষে সুনামগঞ্জের উন্নয়নে প্রবাসীদের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান, সাবেক ফুটবলার এবং বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টার।
সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছদরুন নূর, আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, তোফায়েল চৌধুরী, আব্দুস সহিদ, রাবেয়া মালিক, এম রহমান কামাল, নুরুল হক, তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, মাওলানা আবুল কাশেম এয়াহইয়া, ইশতিয়াক রূপু, আফতাব আলী, মনির উদ্দিন, মোতাহার হোসেন রুবেল, আবু সালেহ চৌধুরী প্রমুখ।
সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হুমায়ুন কবির সোহেল, হোসেন আহমেদ, রাসেল মিয়া, মান্না মুনতাসির, মুকিম উদ্দিন প্রমুখ।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে সুনামগঞ্জ তথা দেশের উন্নয়নে সবাইকে বিবেদ ভুলে একযোগে কাজ করার আহ্ববান জানান। সভায় কর্মকর্তারা দেশে ও প্রবাসে সুনামগঞ্জবাসীর কল্যাণে কাজ করার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।


নিউ ইয়র্কে আফজাল হোসেনের প্রথম চিত্র প্রদর্শনীর ছবিগুলো...

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন:হেলাল মাহমুদ:বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :আফজাল হোসেন। বহুমাত্রিক প্রতিভার পুরোধা এ প্রথিতযশা ব্যক্তির একক চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়ে গেল সুদূর আমেরিকায়। এটিই ছিল তার ষাট বছরের দীর্ঘ জীবনের মধ্যে প্রথম একক চিত্র প্রদর্শনী। আর্ট কলেজ থেকে তিনি পাশ করেছিলেন ১৯৭৫ সালে। গেল ২৯ অক্টোবর নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের বেলাজিনো ব্যাংকুয়েট হলে আয়োজিত হয়েছিল প্রদর্শনীর। চলেছে দুপুর ১২টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।

alt

ফিতা কেটে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন আফজাল হোসেন।

প্রবাসীদের কাছে জ্যাকসন হাইটস মিনি বাংলাদেশ কিংবা মিনি ইন্ডিয়া নামেও পরিচিত। ২৯ অক্টোবর জ্যাকসন হাইটস ছিল বৃষ্টি মুখর। অন্যান্য দিন এই পথ ধরে হাঁটা যায় না। সেখানে হাট বাজার করতে লোক সমাগম ঘটে। কিন্তু বৃষ্টি বিড়ম্বনায় সেদিন জ্যাকসন হাইটস ছিল ফাঁকা। অনেকেই মনে করেছিলেন, প্রদর্শনীতে হয়তো তেমন লোক সমাগম হবে না। কিন্তু আফজাল হোসেন বলে কথা। মাথায় ছাতা কিংবা গায়ে রেইনকোট জড়িয়েই বেরিয়ে পড়েছিলেন উৎসুকেরা।

alt

প্রদর্শনীতে আগন্তুক অতিথিদের একাংশ।

ট্রেন স্টেশন থেকে নেমেই পার্টি হল। আগে এ হলটি ছিল কোরিয়ান সুপারমার্কেট। এরই বেসমেন্টে আয়োজন করা হয়েছিল আফজাল হোসেন এর চিত্র প্রদর্শনী’র। প্রদর্শনীর দিন আফজাল হোসেন নিজ হাতেই ছবির স্ট্যান্ড এসেম্বলির কাজ করেছেন। তার সঙ্গী হিসেবে ছিলেন ছাত্রজীবনের বন্ধু শিল্পী দম্পতি কাজী রকিব ও মাসুদা কাজী । এছাড়াও সস্ত্রীক উপস্থিত ছিলেন প্রবাসের তুমুল জনপ্রিয় মুখ, প্রখ্যাত কবি, গায়ক ও চিত্রশিল্পী তাজুল ইমাম।

alt

প্রদর্শনীতে উঠা আফজাল হোসেন অঙ্কিত ছবি

তিনিও চট্টগ্রাম আর্ট কলেজ থেকে পাশ করা; বাস করেন নিউজার্সিতে। বেলা আড়াইটা নাগাদ সকলে মিলে শেষ করেছিলেন স্ট্যান্ডে ছবি আঁটানোর কাজ। এর মধ্যেই উপস্থিত হয়েছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও নিউইয়র্কের কনসাল জেনারেল এলেন। সব মিলিয়ে ত্রিশ জনের মতো বরেণ্য ব্যক্তির উপস্থিতি ছিল প্রদর্শনীতে।

alt

প্রদর্শনীতে উঠা আফজাল হোসেন অঙ্কিত ছবি

সাপ্তাহিক আজকাল পত্রিকার ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত এ প্রদর্শনীতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রেখেছেন অনেকেই। বক্তব্য দিয়েছেন আফজাল হোসেন নিজেও। আফজাল হোসেন বলেছেন, ‘আমি কখনও বড় হতে চাই নি, চেয়েছি জীবনকে উপভোগ করতে, যখন যা’ ভালো লেগেছে তাই করেছি, করছি’। নিজের আঁকা ছবি সম্পর্কে আফজাল হোসেন জানিয়েছেন, ছবি তার জীবনের অন্তর্গত ভালোলাগা, তা থেকে তিনি কখনও সরে যাননি । যখনই তিনি কোথাও যান, ছবি আঁকার যাবতীয় সরঞ্জাম তার সাথেই থাকে। তিনি আঁকেন, যখনই ইচ্ছে হয়।

alt

প্রদর্শনীতে উঠা আফজাল হোসেন অঙ্কিত ছবি

অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে তিনি শিল্পী দম্পতি কাজী রকিবের কথা বললেন। আফজাল হোসেন অঙ্কিত চিত্রগুলোর গাম্ভীর্য- গভীরতা সত্যিই মর্মকে স্পর্শ করে। রেখা, বিন্দু ও রঙের এমন নিপুণ ব্যবহার দেখলে, যে কোনো ব্যক্তিই ছবির সামনে কিছুক্ষণ থমকে দাঁড়াবেন। কোলাজে, এক্রেলিকে, জলরঙের কাজে তার পারদর্শিতা এবং সেই সঙ্গে তার অধিগত আত্মার সংযোগ দর্শনেন্দ্রিয় মুগ্ধতা ছড়ায়। তার আঁকা কোনো ছবিতে রবী ঠাকুরের বাণী, কোনোটিতে আবার নিজের। কথা স্থান পেয়েছে।

alt

প্রদর্শনীতে উঠা আফজাল হোসেন অঙ্কিত ছবি

প্রদর্শনীর ছবিগুলোর শিল্প কর্মের বহুমাত্রিক কাজগুলোতে আফজাল হোসেনের শিল্পবৃত্তি ও মেধার ব্যাঞ্জনা প্রতীয়মান। প্রদর্শনী উপলক্ষে প্রকাশিত বুলেটিনে আফজাল হোসেনের সংক্ষিপ্ত পরিচিতিও তুলে ধরা হয়েছে! সেখান থেকে জানা গিয়েছে, এ যাবত তার চারটি উপন্যাস, তিনটি কবিতার বই, একটি ভ্রমণ কাহিনী ও একটি মিশ্র লেখার বই প্রকাশিত হয়েছে।

প্রদর্শনীতে উঠা আফজাল হোসেন অঙ্কিত ছবিগুলো দেখুন এখানে। ছবিগুলো সংগৃহীত। 

alt

altaltaltaltaltalt


বাংলাদেশ সোসাইটির কার্যকরী কমিটি ও ট্রাস্টি বোর্ডের যৌথ সভা অনুষ্ঠিত

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

Picture

দুই সদস্যের মধ্যে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি বিদ্যমান রেখেই ভুল বোঝাবুঝির বিষয়টি মীমাংসিত হয়। এখানে উল্লেখ্য, প্রায় চার মাস আগে সংগঠনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক মনিকা রায়ের ফেসবুকে একটি ভুল বার্তা যায় কার্যকরী সদস্য মোহাম্মদ সাদী মিন্টুর ফেসবুক থেকে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হলে একপর্যায়ে মনিকা রায় ট্রাস্টি বোর্ডের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের ব্যাপারে প্রথমে কার্যকরী কমিটির সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। পরে ট্রাস্টি বোর্ডের সঙ্গে যৌথসভায় এ বিষয়টির নিষ্পত্তি করা হয়।

alt

এদিকে সভায় বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক  রুহুল আমিন সিদ্দিকীকে সর্বসম্মতিক্রমে সংগঠনের মুখপাত্রের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। এখন থেকে যে কোনো বিষয়ে সভাপতির পরামর্শক্রমে একমাত্র সাধারণ সম্পাদক সংগঠনের পক্ষে বিবৃতি বা বক্তব্য প্রদান করতে পারবেন।সভায় উপস্থিত ছিলেন ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য জামাল আহমেদ জনি, কাজী আজহারুল হক মিলন, প্রফেসর দেলোয়ার হোসেন, আলী ইমাম শিকদার, মফিজুর রহমান, আজিমুর রহমান বোরহান, এমদাদুল হক কামাল, ওয়াসি চৌধুরী, মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, আব্দুল হাসিম হাসনু ও শরাফ সরকার।

alt

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও কার্যকরী কমিটির সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার, সহ-সাধারণ সম্পাদক এম কে জামান, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম ভূঁইয়া, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মনিকা রায়, প্রচার সম্পাদক রিজু মোহাম্মদ, সমাজকল্যাণ সম্পাদক নাদির এ আইয়ুব, সাহিত্য সম্পাদক নাসির উদ্দিন, ক্রীড়া ও আপ্যায়ন সম্পাদক নওশেদ হোসেন, স্কুল ও শিক্ষা সম্পাদক আহসান হাবিব, কার্যকরী সদস্য মঈনুল উদ্দিন মাহবুব, আজাদ বাকির, সাদী মিন্টু ও সরোয়ার খান বাবু।


উদীচীর হেমন্ত উৎসব ১১ নভেম্বর

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,হেলাল মাহমুদ, বাপসনিঊজ: নিউইয়র্কে হেমন্ত উৎসবের আয়োজন করছে উদীচী। আগামী ১১ ও ১২ নভেম্বর জ্যাকসন হাইটসের ৭৩-১০ ৩৪ অ্যাভিনিউয়ে এ উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে।আয়োজকেরা জানান, উৎসব ও মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে। ১১ নভেম্বর কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে হেমন্ত র্যালি, পিঠা উৎসব, শিশু কিশোরদের বাংলা লেখন, পঠন, আবৃত্তি ও চিত্রাঙ্কন (সবার জন্য উন্মুক্ত), চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, সমসাময়িক বিষয়ের ওপর আলোচনা ও সেমিনার। উদীচীর শিক্ষার্থীদের সংগীত, নৃত্য, তবলা, গণসংগীত পরিবেশনা, আবৃত্তির আয়োজনও থাকবে।


১২ নভেম্বরের কর্মসূচির মধ্যে থাকছে, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক আড্ডা, শিশু-কিশোরদের সংগীত ও নৃত্য প্রতিযোগিতা, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, গুণীজন সংবর্ধনা, উদীচী শিল্পীদের গণসংগীত, শিক্ষার্থীদের সংগীত, নৃত্য এবং তবলা পরিবেশনা, উদীচী শিক্ষকদের পরিবেশনায় ‘হাজার বছরের গান’ ইত্যাদি।‘হাজার বছরের গান’ পর্বে অংশ নেবেন মুত্তালিব বিশ্বাস, শফী চৌধুরী ও জীবন বিশ্বাস। এ উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ হবে দুলাল ভৌমিকের একক পরিবেশনা ‘চল রে মন মাটির টানে’ এবং সৈয়দ আবদুল হাদি ও তনিমা হাদির ‘কিছু কথা কিছু গান’। অনুষ্ঠান থাকবে সবার জন্য উন্মুক্ত। মেলায় পণ্যের স্টলেরও ব্যবস্থা থাকবে।


বাংলাদেশের বণ্যার্তদের জন্যে নিউইয়র্ক ও নিউজার্সিতে ৮ লক্ষাধিক টাকা সংগ্রহ

শুক্রবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ :নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে : বাংলাদেশের বণ্যার্তদের সাহায্যে নিউজার্সি ও নিউইয়র্কের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ৮ লক্ষাধিক টাকা (১০ হাজার ডলার) সংগ্রহ করেছে। গত শনিবার নিউজার্সির আর্ট ল্যাব মিডিয়া প্রডাকশন্স’র উদ্যোগে নর্থ ব্রান্সউইকে লিনউড মিডল স্কুলের মিলনায়তনে ‘চ্যারিটি কনসার্ট’ থেকে এই অর্থ সংগৃহিত হয়। এ অঞ্চলের সেবামূলক সামাজিক সংগঠন আধুনিকা, আগামী, সিএলপি, কানেক্ট গো এবং কিউ ই লার্নও ছিল বিশেষ সহায়তায়। আর স্পন্সরদের মধ্যে ছিল আইপিটিভি, সাজ্জাদুল ইসলাম পরিবার, অ্যল ডিজিটাল এবং ডিজাইন ব্যাশ (স্টেজ)। 

Picture

আর্ত-মানবতার সেবায় নিবেদিত এ কনসার্টের শুভ সূচনা ঘটে শিশুদের মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে। উপস্থিত দুই শতাধিক প্রবাসীর মধ্যে মানবিক আবেদন জাগ্রত করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ড. জাভেদ মাহমুদ শিপলু।তহবিল সংগ্রহের ব্যতিক্রমী এ আয়োজনে বিভিন্ন বাংলা ব্যান্ড সঙ্গীত পরিবেশন করেন জার্সি ওয়েভস’র তাহসীন, সাদী, আফজাল এবং ‘এক তার’ ব্যান্ডের রাজীব, শোভন, হেলাল ও রীড। তাদের সাথে ছিলেন ফরিদ এবং কেয়া। 

alt

অনুষ্ঠানে ভিন্ন আমেজ তৈরী করে শিশু-কিশোরদের ফ্যাশন শো। এটি পরিচালনা করেন উর্মি ও বিচিত্রা। এরপর ড. সুবর্ণা খানের নির্দেশনা ও পরিচালনায় ‘সৃষ্টি একাডেমি’র উচ্চাঙ্গ নৃত্যের অনবদ্য পরিবেশনা দর্শকদের অভিভ’ত করে। নিউজার্সির জনপ্রিয় নৃত্যশিল্পী উমি, সুবর্ণা, বিচিত্রা এবং তমার দলীয় নৃত্য পরিবেশনা ছিল পুরো অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ। অনুষ্ঠানে সংগৃহিত সমুদয় অর্থ হস্তান্তর করা হয় মানবতার জন্যে নিবেদিত ‘বুয়েট-৮৭ ফাউন্ডেশন’র কাছে। সবশেষে বিপুল করতালির মধ্যে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারি শিশু-কিশোরদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ করা হয়। এ পর্বে সহায়তা করেছে রুমানা, সুইটি এবং তপু।