Slideshows

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

ডিসিআই এর ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আমন্ত্রিত যারা

শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি: চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দুস্থ ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ে ডিসিআই এর ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক সম্মেলন। ১৪ অক্টোবর ২০১৭ অনুষ্ঠিতব্য এ সম্মেলনের মূল উদ্যোক্তা Distressed Children & Infants International (DCI)।

এবারের সম্মেলনে শিশুশ্রম নিরোধ করে বিশ্বব্যাপী সকল শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং অন্যান্য মৌলিক মানবাধিকার অমান্য করার প্রবণতার রোধকল্পে করণীয় নির্ধারণে বিশেষ জোর দেয়া হবে। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ৩০ জনেরও অধিক বক্তা উক্ত বিষয়ে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করবেন।

সম্মেলনে এবছর মানবধিকার ও শিশু অধিকার বিষয়ে নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার প্রয়াসে বহুসংখ্যক যুবনেতৃবৃন্দ, ভলান্টিয়ার, সম্মানিত ব্যক্তিবর্গসহ বিপুল সংখ্যক উৎসাহী ব্যক্তি অংশ নেবেন। বাংলাদেশ থেকে কন্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির প্রেসিডেন্ট প্রফেসর এ.কে. আজাদ খান, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির চীফ কোর্ডিনেটর ও বাংলাদেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ আব্দুল মজিদ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত পাক্ষিক প্রবাস মেলা পত্রিকার সম্পাদক ও Solutions 1 Automation Limited এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ মুহম্মদ রাশেদ,  প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্য থেকে ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউবিও)’র প্রেসিডেন্ট ও অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন (আয়েবা)’র সেক্রেটারি জেনারেলের কাজী এনায়েত উল্লাহ, পর্তুগাল-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট Captureএবং লিসবনের সদ্য পুনঃনির্বাচিত সিটি কাউন্সিলর রানা তাসলিম উদ্দিন, ফ্রান্সের ‘এয়ারবাস সিটি’খ্যাত তুলুজের বাংলাদেশ কমিউনিটি অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও আয়েবার ভাইস প্রেসিডেন্টে ফকরুল আকম সেলিম এবং স্পেনের বার্সেলোনা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহারুল ইসলাম মিন্টু এ সম্মেলনে অংশ নেবেন বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য, এ সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য হলো বিশ্বব্যাপী শিশুশ্রম, দরিদ্রতা ও শিশুদের অন্ধত্ব নিবারণে একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা, যার মাধ্যমে শিশুদের গুরুত্বপূর্ণ এ সমস্যাগুলো সকলের সচেতন যৌথ অংশগ্রহণের মাধ্যমে স্থায়ীভাবে সমাধান করা যায়।


ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির বলি = স্বামী-স্ত্রীসহ ১১ বাংলাদেশিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে :যুক্তরাষ্ট্রকে ‘মেক গ্রেট অ্যাগেইন’ বলে স্বপ্ন দেখানো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির বলি হলেন ১১ বাংলাদেশি। তাঁদের জোর করে বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।গতকাল বুধবার ভোরে ১১ জনকে আটক করে অ্যারিজোনার দুর্গম ডিপোর্টেশন কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশগামী বিশেষ ফ্লাইটে জোর করে তুলে দেওয়া হয়। ১১ জনের মধ্যে ১০ জনই নিউইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি।

বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো ব্যক্তিরা হলেন সেলিম আহমেদ, মোজাম্মেল হক, করিম চৌধুরী, মুজিবুর রহমান, বাবলু শরিফ, মোহাম্মদ বাদল রনি, মোহাম্মদ ফরিদুল মওলা, মনিরুল ইসলাম, নাসরিন চৌধুরী, মোহাম্মদ আম্বিয়া ও খায়রুল আম্বিয়া।

সম্প্রতি ব্যাপক ধরপাকড়ে অ্যারিজোনার ফ্লোরেন্স কারেকশন সেন্টারে দুই নারীসহ ২৭ বাংলাদেশি ডিপোর্টেশনের পথে রয়েছেন বলে জানা গেছে। যেকোনো সময় তাঁদের বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিতাড়িত ব্যক্তিদের স্বজনেরা অভিযোগ করেছেন, বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ দ্রুত পাসপোর্ট দিয়ে মার্কিন অভিবাসন বিভাগকে সহযোগিতা করেছে। এতে ভুক্তভোগী অভিবাসী ও তাঁদের পরিবার আইনের সাহায্য নেওয়ার আগেই বিতাড়ন প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাচ্ছে।

কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের আটক করার পর মার্কিন অভিবাসন বিভাগ থেকে সংশ্লিষ্টদের পাসপোর্ট বা ট্রাভেল ডকুমেন্ট সংগ্রহ করা হয়। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দূতাবাস বা কনস্যুলেট তাদের দেশের নাগরিক কি না, তা তদন্ত করে সময় নিলে ওই ব্যক্তির পক্ষে আইনি পদক্ষেপ নিতে পারেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বলেন, আনডকুমেন্টেড অভিবাসীদের তথ্যাদি চাওয়া মাত্র দ্রুত আইএস-কে (ইমিগ্রেশন সার্ভিস) দিতে বাংলাদেশ দূতাবাসকে সতর্ক করা হয়েছে।

ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, ট্রাম্প প্রশাসন সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর অভিবাসীদের তথ্য জানাতে গড়িমসি করায় বাংলাদেশের নাগরিকদের বি-১ ভিসা বন্ধ করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। চলতি বছরের মার্চে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রেশন বিভাগ এ–সংক্রান্ত হুঁশিয়ারি পত্র দূতাবাসে পাঠায়। এরপর থেকেই ভিসাপ্রক্রিয়া সচল রাখার স্বার্থে দূতাবাস দ্রুতগতিতে ট্রাভেলস ডকুমেন্ট ইমিগ্রেশন সার্ভিসের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করে।

Picture

দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের শুরু থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত আনডকুমেন্টেড বাংলাদেশিদের তথ্য দিতে দেরি হওয়ায় ঢাকা থেকে বাংলাদেশের অনেক নাগরিকের ভিসা আবেদন বাতিল হয়। ওই প্রক্রিয়া বন্ধ করতেই দূতাবাসকে দ্রুত তথ্য দিতে হয়।

মানবাধিকার সংগঠক, সাউথ এশিয়ান এডুকেশন স্কলারশিপ অ্যান্ড ট্রেনিং অর্গানাইজেশনের নির্বাহী মাজেদা উদ্দিন বলেন, ট্রাম্প প্রশাসনের অভিবাসন নীতির শিকার হয়ে দুই নারীসহ ২৭ বাংলাদেশি ডিপোর্টেশনের পথে আছেন। তাঁরা এখন অ্যারিজোনার ফ্লোরেন্স কারেকশন সেন্টারে আছেন। নিউইয়র্ক, কানেকটিকাট, নিউজার্সি ও অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্য থেকে তাঁদের আনডকুমেন্টেড হিসেবে আটক করে ইমিগ্রেশন সার্ভিস। আটক ব্যক্তিদের পরিবার যুক্তরাষ্ট্রেই এখন মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

আটক হওয়া ব্যক্তির পরিবারের বরাত দিয়ে মাজেদা উদ্দিন বলেন, আটক ব্যক্তিদের হাতে ইংরেজিতে ‘লো আর হাই’ লেখা বিভিন্ন রঙের ব্যান্ড লাগানো আছে। গত চার মাসে বাংলাদেশ দূতাবাস ১৪ জনকে ট্রাভেল ডকুমেন্ট দিয়েছে। কোনো তদন্ত ছাড়াই দূতাবাস ট্রাভেল ডকুমেন্ট দিচ্ছে এবং দূতাবাস আটক ব্যক্তির পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। অথচ বাংলাদেশ দূতাবাস তদন্ত করে যারা অপরাধের সঙ্গে জড়িত নন, তাঁদের মুক্ত করার ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। বিশেষ করে মার্কিন অভিবাসন বিভাগকে ট্রাভেল ডকুমেন্ট না দিলে তাঁরা আপাতত রক্ষা পেয়ে আইনের আশ্রয় নিয়ে বৈধ হওয়ার সুযোগ নিতে পারতেন। পাকিস্তান দূতাবাস দেশটির আটক ব্যক্তিদের ট্রাভেলস ডকুমেন্ট না দেওয়ায় তাঁরা বন্ড দিয়ে ফিরে এসে যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে থাকতে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

মাজেদা উদ্দিন বলেন, গত দেড় মাস আগে চারজন ও গত তিন-চার মাসে মোট ১৪ বাংলাদেশিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে ডিপোর্ট করা হয়েছে।

বিতাড়নের শিকার হওয়া বাংলাদেশিরা অনেকেই দুই-তিন দশক থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বাস করছেন। এখানে বিয়ে করেছেন, সন্তান হয়েছে। বিতাড়নের শিকার বাবলু শরিফের পরিবার গত মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করেছে। তাঁরা ট্রাম্পের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, এভাবে যেন বিতাড়ন না করা হয়।

এদিকে অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে নতুন ৭০ দফা কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর ভাষ্য, অবৈধ অভিবাসন সমস্যা চূড়ান্তভাবে সমাধান করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হোয়াইট হাউস গত ৯ সেপ্টেম্বর ৭০-দফা পরিকল্পনা কংগ্রেসে উপস্থাপন করে। এ পরিকল্পনায় সীমান্তদেয়াল নির্মাণের কথাও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে বিদ্যমান আইনে তিনটি পরিবর্তন রয়েছে। সীমান্ত নিরাপত্তা, অভ্যন্তরীণ আইনের শক্ত প্রয়োগ এবং বৈধ অভিবাসন ব্যবস্থার সংস্কার।

অবৈধ অভিবাসন বন্ধে বিচার বিভাগ,পররাষ্ট্র, লেবার ডিপার্টমেন্ট এবং হোমল্যান্ড সিকিউরিটিসহ প্রধান তিন অভিবাসন সংস্থার সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এ উদ্দেশ্যে অবৈধ অভিবাসী–অধ্যুষিত নগরে দেওয়া আর্থিক অনুদান ও সহযোগিতা বন্ধ করার বিধান রাখা হয়েছে। রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার শিথিল নীতি কঠোর করার কথা বলা হয়েছে। মা-বাবাহীন বহিরাগত শিশুদের প্রমাণ করতে হবে, তারা মা-বাবাহীন এবং দুঃসহ পরিস্থিতি থেকে রক্ষার উদ্দেশ্যে মানবিক সুরক্ষা চাইছে। ভ্রমণকারী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে মেয়াদ শেষে অতিরিক্ত সময় অবস্থান করলে তাদের কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হবে। ২০০১ সালে সুপ্রিম কোর্ট দেওয়া হত্যার আসামিসহ হাজারো অবৈধ অভিবাসীকে মুক্ত করার যে সিদ্ধান্ত, তা সংকুচিত করা হবে। ফেডারেল, অঙ্গরাজ্য এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে অবৈধ অভিবাসীদের আটক করার ক্ষমতা থাকবে।

‘আমেরিকান ভয়েস’-এর নির্বাহী পরিচালক ফ্র্যাঙ্ক সারী বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও কংগ্রেসকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, তাঁরা এ সংকটের সমাধান করবেন নাকি মিলারের ফাঁদে পা দেবেন।

অনেকের ধারণা, ট্রাম্পের নতুন কর্মসূচি বৈষম্য ও পক্ষপাতদুষ্ট। এতে আরও বেড়া তৈরি হবে, সীমান্ত পাহারাদারদের সংখ্যা বাড়বে, বহুমাত্রিক লটারি ভিসা বন্ধ হবে, ইলেকট্রনিক যাচাই বাধ্যতামূলক হবে। অন্য সব বিষয়ের মতো অভিবাসন নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কঠোর যাত্রা অব্যাহত থাকবে।


নিউইয়র্কে রুনা-সাবিনা’র লাইভ কনসার্ট ‘গান নয়, এবার যৌথ নাচ হবে’ রোববার

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,:বাপসনিঊজ নিউইয়র্কে দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের দুই কিংবদন্তী শিল্পী রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমীনের ‘রুনা-সাবিনা’ লাইভ কনসার্ট। আগামী ১৫ অক্টোবর রোববার সন্ধ্যা ৭টায় নিউইয়র্কের জ্যামাইকাস্থ ইয়র্ক কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিতব্য এই কনসার্টের আয়োজক হচ্ছে শো টাইম মিউজিক। এই নিয়ে নিউইয়র্কে দ্বিতীয়বারের মতো শিল্পী রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমীনের ‘রুনা-সাবিনা’ লাইভ কনসার্ট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। খবর বাপসনিঊজ’র।
‘রুনা-সাবিনা’ লাইভ কনসার্ট উপলক্ষে ১০ অক্টোবর মঙ্গলবার অপরাহ্নে নিউইয়র্কের গুলশান ট্যারেসে আয়োজিত শিল্পীদ্বয়ের উপস্থিতিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে আয়োজক প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার আলমগীর খান আলম কনসার্টের প্রস্তুতি তুলে ধরেন। এসময় আলম বলেন, প্রবাসের রুনা লায়লা আর সাবিনা ইয়াসমীনের ভক্তদের চাহিদার জন্যই দ্বিতীয়বারের মতো তাদের লাইভ কনসার্ট আয়োজন করা হচ্ছে। অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন হয়েছে এবং অর্ধেক টিকিট ইতিমধ্যেই সোল্ড হয়ে গেছে। বাকী টিকিট অনুষ্ঠানের আগেই শেষ হয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানটি পুরোপুরি সফল করতে আলমগীর খান আলম সবার সহযোগিতা কামনা এবং সময়মতো অনুষ্ঠান শুরু করতে দর্শক-শ্রোতাদের সন্ধ্যা টায় মিলনায়তনে প্রবেশ করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, রোববার সন্ধ্যা ৭টায় অনুষ্ঠান শুরু হবে এবং ৬টায় মিলনায়তনের গেট খুলে দেয়া হবে। তিনি বলেন, সকল টিকিটেই নাম্বার থাকবে। আর আসন ব্যবস্থায় শৃঙ্খলার স্বার্থে শিশুদের জন্য টিকিট ক্রয় করতে হবে। তিনি বলেন, আসন নিয়ে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটুক তা চাই না। প্রসঙ্গত আলম বলেন, আমরা জানিনা, আগামী দিনে আমরা এই দুই শিল্পীকে নিয়ে এক সাথে এক মঞ্চে অনুষ্ঠান করতে পারবো কিনা, সেই সুযোগ আর আসবে কিনা। তাই ‘রুনা-সাবিনা’ ভক্তদের জন্য রোববারের লাইভ কনসার্ট অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

Picture
এরপর শিল্পী সাবিনা ইয়াসমীন ও রুনা লায়লা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন এবং রোববারের অনুষ্ঠান অরো সুন্দর হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, আমরা এর আগেও এই নিউইয়র্কে এক মঞ্চে গান গেয়েছি, আবারো গান করবো। গতবারের অনুষ্ঠান ভালো হয়েছে, রোববারের অনুষ্ঠানও ভালো হবে বলে আশা করছি। এজন্য সবার সহযোগিতা চাই।
রুনা লায়লা তার বক্তব্যে সবার সহযোগিতায় অনুষ্ঠান স্বার্থক হবে, সুন্দর হবে বলে প্রত্যাশা করেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকদের মধ্যে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজ, আহসান হাবীব, আমজাদ হোসেন সেলিম ও বিলাল আহমেদ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ সোসাইটি ’র সাহিত্য সম্পাদক আহসান হাবিব সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। সাংবাদিক সম্মেলনে বিশিষ্ট তবলা বাদক চন্দন দত্ত ও জাহিদ হাসান সহ প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পী রনো নেওয়াজ উপস্থিত ছিলেন।
পরে শিল্পীদ্বয় উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এসময় এক প্রশ্নের উত্তরে রুনা লায়লা বলেন, শুধু বাংলাদেশ নয়, উপমহাদেশের সঙ্গীত জগতেই পরিবর্তন আসছে। তারপরও সঙ্গীত জগতে ভালো কাজ হচ্ছে, নতুন শিল্পী আসছে, ভালো গান হচ্ছে। তবে ক্লাসিক আর ফোক গান যেনো থাকে। কোন শিল্পীকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য ক্লাসিক আর ফোক গান জরুরী। পাশাপাশি ভাল ওস্তাদ দরকার। শিল্পী হতে হলে ‘প্রোপার ওয়ে’-তে এগুতে হবে। আমি চাই আমার চেয়ে ‘বেটার সিঙ্গার’ বেড়িয়ে আসুক।
একই প্রশ্নের উত্তরে সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, যুগের সাথে সাথে সবকিছুরই পরিবর্তন হচ্ছে। আগের দিনের তুলনায় এখন সুন্দর গান, সামাজিক ছবি কম হচ্ছে। ভাল গান কমে যাচ্ছে। তিনি বলেন, প্রয়োজনের তাগিদেই মিষ্টি গান এসেছে। আর দর্শক-শ্রোতা যেমন গান চাইবেন, তেমনী গান হবে। তবে আমাদের ভাল শিক্ষকের অভাব রয়েছে। আমরা আশাবাদী ভালো গান আসবে, ভালো গান হবে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে রুনা লায়লা বলেন, আমরা ভালো গান গাইতে পারলেই যে, ভালো শিক্ষক হবো তা নয়।
সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, পরিকল্পনা করা শিল্পীদের কাজ নয়। শিল্পীরা দেশের জন্য গাইবে, দেশকে রিপ্রেজন্ট করবে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে রুনা-সাবিনা হাস্যোজ্জল মুখে বলেন, এবার এক সাথে গান গাইবো


নিউইয়র্কে এসডিজি বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনারে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন: বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক : “বাংলাদেশ ২০২৪ সালের মধ্যেই দারিদ্র্য দূরীকরণে সাফল্য অর্জন করবে”- নিউইয়র্কের মিলেনিয়াম হিলটন হোটেলে অনুষ্ঠিত ‘Towards Sustainable Development: Lessons from MDGs & Pathway for SDGs’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারে অংশ নিয়ে একথা বলেছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

Picture


আন্তর্জাতিক থিংঙ্ক ট্যাংক ‘দি ইনস্টিটিউট ফর পলিসি, অ্যাডভোকেসি এন্ড গভার্ননেন্স (আইপ্যাগ) (The Institute for Policy Advocacy and Governance (IPAG)’ এই আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করে। এতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ।
ম্যানহাটানের ওয়ান ইউএন প্লাজায় অবস্থিত মিলেনিয়াম হিলটন হোটেলের ডিপ্লোমেটিক বলরুমে ১০ অক্টোবর সকাল ৯ টায় শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।alt
উদ্বোধনী সেশনে বক্তৃতা দেন ইউএনডিপি’র ব্যুরো অফ পলিসি এন্ড প্রোগ্রাম সার্পোট এর সহকারি প্রশাসক ও পরিচালক এবং জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল মাগদি মার্টিনেজ সোলিমান (Magdy Martinez Soliman)। টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে বাংলাদেশের সাফল্যের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ সামগ্রিক অর্থনীতির ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে একটি নিরবচ্ছিন্ন নীতিমালা প্রণয়ন করতে পেরেছে যারফলে দেশটির অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ধারাবাহিকভাবে ৬ ভাগের উপরে রয়েছে। মানব সম্পদের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। পাবলিক সেক্টরে জবাবদিহিতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এসকল পদক্ষেপের ফলে ১৯৯১ সালে যেখানে দারিদ্র্যের হার ৫৬ শতাংশ ছিল তা উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পেয়ে ২০১০ সালে ৩১ শতাংশে এসে দাড়িয়েছে”। তিনি সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ও ভিশন ২০২১ এর সাফল্যের কথা উল্লেখ করেন। ১৩ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিকে আইসিটি ব্যবহার করে নারী ও শিশুস্বাস্থ্যের উন্নয়নের জন্য তিনি বাংলাদেশের প্রশংসা করেন।
alt
এর আগে স্বাগত ভাষণ দেন আইপ্যাগ এর চেয়ারম্যান প্রফেসর সৈয়দ মুনির খসরু। তিনি ২০৩০ সালের মধ্যে সফলতার সাথে এসডিজি’র লক্ষ্যসমূহ পূরণে এর বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে ঘনিষ্ট সহযোগিতার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।প্রধান অতিথির ভাষণে অর্থমন্ত্রী এমডিজি অর্জনের কৌশল ও অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “এমডিজি গ্রহণ করার আগেই ১৯৯৯ সালে আমরা এর বাস্তবায়ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেই এবং নিজেদের মতো করে লক্ষ্য স্থির করি। আমাদের নিজস্ব সম্পদ এবং যা কিছু উন্নয়ন সহযোগিতা পাওয়া যায় তা দিয়েই এমডিজি বাস্তবায়ন করার সিদ্ধান্ত নেই। আমাদের প্রবল ইচ্ছাশক্তির ফলে ২০১৫ সালের মধ্যে এমডিজি’র অধিকাংশ লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হই”।

alt
এমডিজি বাস্তবায়নের এই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ কিভাবে এসডিজি অর্জনে কাজ করে যাচ্ছে অর্থমন্ত্রী আন্তর্জাতিক এই সেমিনারে তা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “এসডিজি খুবই আলাদা। আমাদের ভাল অভিজ্ঞতা রয়েছে যার ফলে লক্ষ্য নির্দিষ্ট করা এখন খুব সহজ। আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হলো প্রতিশ্রুতি ও দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি”। এসডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশ আন্ত:মন্ত্রণালয় সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছে মর্মেও অর্থমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন।
এমডিজি থেকে এসডিজিতে উত্তরণ, এমডিজির সাফল্য ও অভিজ্ঞতার ব্যবহার, স্বল্পোন্নত দেশসমূহের জন্য এসডিজি’র চ্যালেঞ্জ ও সুযোগ এবং এসডিজি ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে উন্নয়ন অর্থনীতির ভূমিকা – এসকল বিষয় নিয়ে সেমিনারটিকে চারটি সেশনে ভাগ করা হয়।সেশনগুলোতে কী নোট স্পীকার ছিলেন নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার অন ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এর পরিচালক সারাহ্ ক্লীফ (Sarah Cliffe), ইউএনডিপি’র পরিচালক নিক শিকরান (Nik Sekhran), কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন বিভাগের প্রফেসর রুথ ডেফরাইস্ (Ruth Defries) এবং দ্যা ব্রুকলিন ইনস্টিটিউশনের বৈশ্বিক অর্থনীতি ও উন্নয়ন বিষয়ক সিনিয়র ফেলো অ্যান্থনি এফ পিপা (Anthony F. Pipa)। যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্বদ্যিালয়ের শিক্ষক, গবেষণাবিদ, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিসহ বাংলাদেশ ও বিশ্বের ১৬জন খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব সেশনগুলোতে প্যানেলিস্ট হিসেবে অংশ নেয়।alt
সেশনগুলোতে মডারেটর ছিলেন, ক্যাটো ইনস্টিটিউটের সেন্টার ফর গ্লোবাল লিবার্টি এন্ড প্রোসপারিটি বিভাগের সিনিয়র ফেলো সোয়ামিনাথান এস আঙ্কেলেশ্বরিয়া আইয়ার (Swaminathan S. Anklesaria Aiyar), গ্লোবাল পার্টনারশীপ ফাউন্ডেশনের পরিচালক লরেন ব্রাডফোর্ড (Lauren Bradford), ইউএনডিপির তুরস্কের প্রতিনিধি ক্যারোলিনা মিজেক ক্যালিয়াস (Karolina Mzyk Callias) এবং বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইউএন প্রতিনিধি বিজর্ন গিলস্যাটার (Bjorn Gillsater)।
সেশনের শেষে ভ্যালেডিকটরি স্পীচ প্রদান করেন জাতিসংঘের এসজিডি বিষয়ক গ্লোবাল অ্যাডভোকেট ও হেলথ্ এমপ্লয়মেন্ট ও ইকোনমিক গ্রোথের হাই লেভেল কমিশনার ডা: আলয়া মুরাবিট (Dr. Alaa Murabit)।
বাংলাদেশ ডেলিগেশনের মধ্যে প্যানেলিস্ট হিসেবে অংশ নেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য সিনিয়র সচিব সামসুল আলম, অর্থ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আজম।
সেমিনারে বক্তারা বাংলাদেশে এমডিজি বাস্তবায়নের সাফল্য এবং এই অভিজ্ঞতা দিয়ে বাংলাদেশ এসডিজি বাস্তবায়নেও সফল হবে এই প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেন।


নিউইয়র্কে ম্যাসেজ পার্লার থেকে বাংলাদেশী যুবতী বধূ গ্রেফতার

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিউজ, নিউইয়র্ক থেকে : নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে ৭৫ স্ট্রিটে ‘ওষি স্পা জোন্স’ তথা ম্যাসেজ পার্লারে অভিযান চালিয়ে আরো কয়েকজনের সাথে বাংলাদেশী জিনাত রেহানাকেও পুলিশ গ্রেফতার করেছে। বাংলাদেশী অধ্যুষিত জনপদে এই ম্যাসেজ পার্লারে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় পুলিশের অভিযান পরিচালিত হয়।
স্পা তথা ম্যাসেজ পার্লারে বেআইনী কাজ-কর্ম চলার অভিযোগ পেয়েই এ অভিযান চালানো হয় বলে নিউইয়র্ক পুলিশ জানিয়েছে। ভারতীয় মালিকানাধীন এ পার্লারে বেশ ক’জন বাঙালি মহিলাও কাজ করেন। এজন্যে প্রতিবেশী-পথচারিরাও উদ্বিগ্ন চিত্তে অভিযানের সর্বশেষ অবস্থা জানতে চায়।
কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্নীর অফিস থেকে এ সংবাদদাতাকে জানানো হয়েছে যে, ৩৭-৪০ ৭৫ স্ট্রিটে ঐ অভিযানে গ্রেফতার হয়েছেন জিনাত রেহানা। তার বয়স ৩৩ বছর। পরদিন তাকে জামিন প্রদান করেছেন কুইন্স ক্রিমিনাল কোর্টের জজ গুয়ারিনো। তবে তাকে ৩ নভেম্বর আদালতে হাজির হতে হবে। মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে যে, প্রচলিত রীতি অনুযায়ী লাইসেন্স ছাড়াই এই পার্লারে কাজ করছিলেন ম্যাসেজ থেরাপিস্ট হিসেবে। স্বামীর সাথে নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে আসার পর সম্প্রতি স্বামীকে ত্যাগ করেন জিনাত রেহানা। এর আগে আরেকবার বিয়ে হয়েছিল জিনাতের এবং তার একটি সন্তানও রয়েছে বাংলাদেশে।


এর আগেও জ্যাকসন হাইটস, জ্যামাইকা, এলমহার্স্ট, ফ্লাশিংসহ বিভিন্ন স্থানের বেশ কটি বিউটি পার্লার/ম্যাসেজ পার্লার/স্পা-তে পুলিশ অভিযান চালিয়েছিল। সে সময়েও গ্রেফতার হয়েছিলেন ৬ বাংলাদেশী। অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকায় কোন কোন পার্লারে পুলিশ তালাও ঝুলিয়ে দিয়েছে।
এদিকে অভিযোগ উঠেছে যে, নিউইয়র্ক সিটির বিশেষ কয়েকটি এলাকায় একদল বখাটে যুবকের খপ্পরে পড়ে অনেক তরুনী গৃহিনী সংসার ছেড়ে বিভিন্ন ম্যাসেজ পার্লারে ঢুকেছেন। এমন মহিলার কেউ কেউ স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন এবং স্বামীকে তাদের কাছে যেতে নিষেধাজ্ঞা নেয়ার তথ্যও জানা গেছে। অর্থাৎ নির্যাতিতা মহিলা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসের প্লট করতে ঐ যুবকেরা এমন মদদ দিলেও পরবর্তীতে এসব মহিলার প্রায় সকলেই বিপথ থেকে আর ফিরতে পারেননি বলেও জানা যাচ্ছে। কারণ, কোন কোন পার্লারে অনৈতিক কাজের সময় ভিডিওতে তা ধারণ করে রাখা হয়েছে। এ হুমকিতে অসহায় রমনীরা কিছু অর্থের লোভে সংসার ত্যাগ করে অন্ধকারের চোরাগলিতে হাবুডুবু খাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গ্রেফতার হওয়া তরুনী বধূর প্রায় সকলেই স্বামী ছেড়ে বয়ফ্রেন্ডের সাথে দিনাতিপাত করছেন। এ অবস্থায় কম্যুনিটির মধ্যে এক ধরনের হতাশা বিরাজ করছে। স্বপ্নের দেশ আমেরিকায় এসে এমন ভয়ংকর পথে পাড়ি জমানোর প্রবণতা কীভাবে রোধ করা যায়, তা নিয়ে সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণের প্রয়োজন অনুভব করা হলেও এখন পর্যন্ত কেউ এগিয়ে এসেছেন বলে জানা যায়নি।


নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টে যোগদানকারী ৫ বাংলাদেশী অফিসারের সংবর্ধনা

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন, বাপসনিউজ: নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টে যোগদানকারী ৫ বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ অফিসারকে সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশী কমিউনিটি অব নর্থ ব্রঙ্কস। নর্থ ব্রঙ্কসের কারি অ্যান্ড কাবাব রেষ্টুরেন্টে গত বুধবার রাতে এ সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংবর্ধিত বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ অফিসাররা হলেন : মাহবুবুর জুয়েল, জামান আসাদ, চৌধুরী ইফতেখার, চৌধুরী মোহাম্মদ ও আহমেদ ইশতিয়াক। এ ৫ বাংলাদেশী অফিসারের সংবর্ধনা উপলক্ষে কেক কাটা হয়।খবর বাপসনিঊজ।
বাংলাদেশী-আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদারের পরিচালনায় এ সভায় সংবর্ধিত অফিসাররা ছাড়াও অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এসেম্বলীম্যান হোজে রিভেরা, বাংলাদেশী কমিউনিটি অব নর্থ ব্রঙ্কসের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর চৌধুরী জগলুল, বাঙালী কালচারাল এসোসিয়েশনের সভাপতি আনছার হোসাইন চৌধুরী, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট হেলাল চৌধুরী প্রমুখ। এ সময় সংবর্ধিত অফিসারদের বন্ধু-বান্ধব, বাংলাদেশ কমিউনিটির নের্তৃবৃন্দ, আয়োজক সংগঠনের কর্মকর্তাসহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী উপস্থিত ছিলেন।
বক্তারা সংবর্ধিতদের চৌকষ অফিসার হিসেবে অভিহিত করে বলেন, নিউইয়র্ক সিটির পুলিশ অফিসারদের বিশ্বের সেরা অফিসার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আশা করছি, নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ অফিসাররা বাংলাদেশীদের অন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে সক্ষম হবেন। বক্তারা বলেন, বাংলাদেশী-আমেরিকান পুলিশ অফিসারদের মাধ্যমে বাংলাদেশীদের মধ্যে যাদের ভাষাগত সমস্যা রয়েছে তারা পুলিশি সেবায় বিশেষ লাভবান হবেন।


আয়োজকদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংবর্ধিত কর্মকর্তারা বলেন, তাদের কর্তব্যনিষ্ঠা, কর্মতৎপরতার মাধ্যমে নিউইয়র্ক সিটির পুলিশ বাহিনীতে সেরা অফিসার হিসেবে সেবা দেয়ার সদা চেষ্টা চালাবেন। এজন্য প্রবাসীদের সমর্থন ও দোওয়া কামনা করেন তারা।
উল্লেখ্য, এবারের ফোর্থ জুলাইয়ের বর্ণাঢ্য উৎসবে নিরাপত্তা তৎপরতার মধ্য দিয়ে ১০ বাংলাদেশীসহ ৪০৮ পুলিশ অফিসারের নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টে দায়িত্ব গ্রহনের অধ্যায় শুরু হয়। পুলিশ একাডেমিতে বিশেষ কৃতিত্ব প্রদর্শনের পর স্বাধীনতা দিবসের দিন ম্যানহাটানে বিশ্বখ্যাত মেডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে আয়োজিত এক বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানে তাঁরা অভিষিক্ত হন নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টে।
বার্তা প্রেরক : হাকিকুল ইসলাম খোকন


জমজমাট এনএবিসি কনভেনশন ফ্লোরিডায়

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:বিশেষ প্রতিনিধি ,ফ্লেরিডা: বাংলাদেশের  নায়করাজ খ্যাত চিত্রভিনেতা মরহুম রাজ্জাক, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের জনপ্রিয় শিল্পী কন্ঠযোদ্ধা আবদুল জব্বার ও মায়ানমারের নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের উৎসর্গ করার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সূর্যোদ্বয়ের রাজ্য হিসেবে পরিচিত ফ্লোরিডার নর্থ মায়ামিতে অনুষ্ঠিত হলো নর্থ আমেরিকা-বাংলাদেশ কনভেনশন (এনএবিসি)। তিন দিনব্যাপী আয়োজিত এবারের কনভেনশনের অনুষ্ঠানস্থল ছিল নর্থ মায়ামী বিচ কালচারাল থিয়েটার সেন্টার। এবারের এনএবিসি সম্মেলনের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডা।
৬-৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কনভেনশনে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের বিশিষ্ট শিল্পী, সাহিত্যিক, নাট্যকারসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের স্বতষ্ফূর্ত অংশগ্রহণে মুখরিত ছিল কনভেনশন সেন্টার। কনভেনশনের অনুষ্ঠানমালায় ছিল সেমিনার, কবিতা আবৃতি, বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত, নৃত্য ও গানসমৃদ্ধ সাংস্কৃুিতক অনুষ্ঠান। এছাড়া দুই দেশের ক্ষুদে শিল্পীদের অংশগ্রহণে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়েছে কনভেনশনে।

Picture

কনভেনশনে বাংলাদেশ, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের কন্ঠশিল্পীদের গানের আসর ছিল দর্শকশ্রোতাদের কাছে অত্যন্ত উপভোগ্য। কনভেনশনের শেষ দিনে ঘোষণা করা হয় এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যানের নাম। সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে  এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডা’র প্রেসিডেন্ট, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ দিনাজ খান। ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সেক্রেটারী নির্বাচিত হন সোহেল জুবায়ের। বিদায়ী চেয়ারম্যান আবু লিয়াকত হুসেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দিনাজ খানকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন। উল্লেখ্য, আয়োজকদের পক্ষ থেকে এবারের ‘এনএবিসি কনভেনশন’-কে ৩১তম কনভেনশন হিসেবে দাবী করা হলেও মূলত: এই কনভেনশন হচ্ছে নবম কনভেনশন হওয়ার কথা। ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম ‘আমেরিকা বাংলাদেশ কানাডা (এবিসি) কনভেনশনের ধারাবাহিকতায় বিগত কয়েক বছর ধরে ‘এবিসি কনভেনশন’ এখন নর্থ আমেরিকা-বাংলাদেশ কনভেনশন (এনএবিসি)’ হিসেবেই অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ২০০৯ সালের এবিসি কনভেনশনের কনভেনর ছিলেন সাঈদ-উর রব আর সদস্য সচিব ছিলেন আলমগীর খান আলম।

alt

৬ অক্টোবর শুক্রবার সন্ধ্যায় নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশ কনভেনশন-এর উদ্বোধন করেন এনএবিসি’র বিদায়ী চেয়ারম্যান আবু লিয়াকত হোসেন। এই পর্বে সভাপতিত্ব করেন কনভেশন-২০১৭ এর প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ দিনাজ খান। সেক্রেটারি নাঈম খান দাদনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন এনএবিসি কনভেনশনের আহবায়ক কুদরত ই খুদা, নির্বাহী কমিটির ইতরাদ জুবায়ের, সোহেল জুবায়ের, মনজুরুল হোসেন, মনির চৌধুরী, মিল্টন মজুমদার, ফারুক আলম, মোহাম্মদ দিদারুল আলম, লিটন মজুমদার, উত্তম দে, আবুল হাসিব ডিউক, নাহিদ নজরুল, শহিদ ফিরোজ, আবু বাসার জাহাঙ্গীর, আবু ইদ্রিস লাবু,  মহসিন হাসান, শাহিন চৌধুরী,  মোহাম্মদ ডি হায়দার,  আবু নাঈম, প্রধান পৃষ্ঠপোষক রানা খান,  মোহাম্মদ জামান, নাফিস আহমেদ, সালাম চাকলাদার, আনোয়ারুল খান দিপু, রাশেদ খান হারুন, জুনায়েত আক্তার, সাইফুলহ চৌধুরী লেবু, মোহাম্মদ রুবেল, মোহাম্মদ টিটু, সজিব চৌধুরী, ক্ষুদিরাম, মাফিয়া রহমান, জব্বার মাতব্বরসহ বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডার নেতৃবৃন্দ।

alt

প্রবাসে বিনোদন বিষয়ে বক্তব্য রাখেন নাট্য ব্যক্তিত্ব পিযুষ বন্দোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন তার সহধর্মীনি জয়া কর। তিন দিনের অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শারমিন সিরাজী সোনিয়া ও মাসুদ ডি হায়দার। বাংলাদেশী ও আমেরিকান নতুন প্রজম্মের শতাধিক স্কুল শিক্ষার্থীদের  নিয়ে ৩ দিনের অনুষ্ঠানে আবহমান বাংলার প্রতিচ্ছবির ক্যালিওগ্র্যাফি করেন ফ্লোরিডার অনিবা জামান। এতে বাংলাদেশী ছাড়াও অন্যান্য কমিউনিটির তরুণ-তরুণীরা বাংলা ভাষায় অভিনীত এসব ক্যালিওগ্র্যাফীতে অংশ নেন। গান পরিবেশন করেন কলকাতার জনপ্রিয় গায়ক জিত গাংগুলী, শুভশ্রী, বাংলাদেশের সামিরা আব্বাসী, কালামিয়া, পিন্টু, কৃষনা তিথী, চন্দ্রা রায়,  স্থানীয় শিল্পী পাপ্পু রহিম, মিজানুর রহমান, ইরুজা বেগম, নৃত্য পরিবেশন করেন প্রিয়া ও মিম খান। কবিতা আবৃত্তি করেন মিনা রহমানের দল। বাদ্যযন্ত্রে ছিলেন সারগাম ব্যান্ড।alt

কনভেনশনের দ্বিতীয় দিনে হোটেল হলিডে এক্সপ্রেস মিলনায়তনে এনএবিসি’র সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূল আলোচক ছিলেন নাট্য ব্যক্তিত্ব পিযুষ বন্দোপাধ্যায়।সমাপনীতে এনএবিসি’র নতুন কমিটি নির্বাচন করা হয়। সর্বসম্মতিক্রমে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ সোসাইটি অব সাউথ ফ্লোরিডার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ দিনাজ খান ও সেক্রেটারী করা হয়েছে সোহেল জুবায়েরকে।আগামী বছর এনএবিসি’র সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বোস্টনে। এর আহবায়ক  হয়েছেন মনির চৌধুরী মিলন। এনএবিসি’র নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিয়ে মোহাম্মদ দিনাজখান বলেন, হাটি হাটি পা পা করে এনএবিসি অনেক দূও এগিয়ে এসেছে। নিয়মিত সম্মেলনের পাশাপাশি। মাসিক সভাসহ বছরের  বিভিন্ন দিবসেও প্রোগ্রাম আয়োজন করা হবে। সকল দল ও ব্যাক্তিস্বার্থের উর্ধে উঠে এনএবিসিকে দেশ ও প্রবাসের সেতু বন্ধন হিসেবে গড়ে তুলবো। তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন।


United Nation PCI MEDIA IMPACT CONFERENCE -2017 successfully completed

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

Bapsnews:New York :- On Tuesday October 10 ,2017 , PCI media impact social marketing conference Was held at United nation Headquarter ,777 United Nation Plaza , New York , United State of America ,  Country Representative , Organizer, community leaders  discussed regarding international issue including  Social Behavioral Chang .preventive masseur & Creative Communication and many other Fundamental Issue . Mohammad Mahab President and Founder of SACO and Executive Director SACO Bangladesh, Country Representative & Senior Representative Bangladesh Red crescent society Abm Iqbal Hossian Both were participated from The SACO America Organization.

Mohammad Mahab In his speech pointed out   the issue of Social change especially south Asian country, he urged the empower communities to stop violence against women, support family planning and tackle human trafficking. Many distinguished guest  express their view  at this Media Impact program and delivered their speech  Sean Southey  the CEO Of PCI in his speech  stated  For over 30 years of experience in the international Development and communication field PCI Leading , PCI Media Impact has led the Entertainment-Education (E-E) field. Our programs and productions have inspired and empowered communities around the world through storytelling and creative communications. PCI Portfolio of Environment public Health and Social Justice programs that now span over 60 countries. Media Impact trains hundreds of community leaders, non-profit managers, government officials and broadcasters in our social change communications methodology.

Impact trains hundreds of Each year, Mcommunity leaders, non-profit managers, government officials and broadcasters in our social change communications methodology.. PCI Media impact is deeply committed to Community empowerment and to the use of creative broadcast and social media to facilitate powerful social and behavioral change. The program ended at 8:30 pm.  announced next Social Marketing Conference Date Which will June 29-30 , 2018.


নিউইয়র্কে আইস কর্তৃক বাংলাদেশী বাবলু শরীফ আটক

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে : নিউইয়র্ক কুইন্স বরোর সানিসাইডের বাসিন্দা বাবলু শরীফকে ২৩ জুন আটক করেছে আইস। বর্তমানে তিনি আরিজোনাতে ফ্লোরেন্সের আইইসি আটক কেন্দ্রের হেফাজতে রয়েছে। শরীফ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানের পাশাপাশি পরিবারের জন্য সংগ্রাম করতেন। কয়েক বছর পরে তাকে ফেডারেল ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে ধরা পড়েন এবং একটি নির্বাসন আদেশ জারি করা হয়। তবে তিনি ওবামা প্রশাসনের অধীনে স্থগিত প্রত্যাহারের স্থিতি লাভ করেন।

Picture
In this Feb. 9, 2017, photo provided U.S. Immigration and Customs Enforcement, ICE agents at a home in Atlanta, during a targeted enforcement operation aimed at immigration fugitives, re-entrants and at-large criminal aliens. The Homeland Security Department said Feb. 13, that 680 people were arrested in roundups last week targeting immigrants living illegally in the United States. (Bryan Cox/ICE via AP)

শরীফের কোন অপরাধমূলক রেকর্ড নেই এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কখনোই গ্রেফতার হয়নি। তিনি ট্যাক্স পরিশোধ করেছেন, একটি ব্যবসা শুরু করেছেন। বাবলু শরীফের দুই মেয়ে। দুইজনই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক যাদের বয়স ১৮ এবং ১৪।


নিউইয়র্কে ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলে বর্ণাঢ্য বই উৎসব

মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০১৭

ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সিইও ইকবাল আহমেদ মাহবুবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান এবং বাংলাবাজার বিজনেস এসোসিয়েশন ও বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ গিয়াস উদ্দিন।ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সাংস্কৃতিক পরিচালক মনিকা রায় এবং পরিচালক প্রশাসক মো. তাজুল ইসলামের যৌথ সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউএসএনিউজঅনলাইন.কম সম্পাদক ও টিভি উপস্থাপক সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, ভয়েস অব আমেরিকার সাংবাদিক মো. শাহাদাত হোসাইন, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনক’র সাধারণ সম্পাদক জামাল হুসেন, এবিবিএ কর্মকর্তা বিলাল চৌধুরী, ছাতক সমিতির সভাপতি মো: আবদুল খালেক, বাংলা স্কুলের সিনিয়ার শিক্ষক কবি আশরাফ হাসান, সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল রুখসানা রাজ্জাক খান, শিক্ষিকা রুনা লায়লা, সানজিদা খানম, স্কুলের পরিচালক মানিক আহমেদ, মো.মনির উদ্দিন, আজমান আলী, দীন ইসলাম, আবদুর রহিম সেলিমা, মো. ইসমাইল, কাওসার ভূইয়া, সুফিয়া আলী, শিল্পী, তৌহিদুর আহম্মদ, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট ইফজাল চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্কুলের শিক্ষার্থীরা অতিথিদের ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানায়।

alt

উৎসবমুখর পরিবেশে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন স্কুলের কর্মকর্তারা। আনন্দ-উচ্ছ্বাসে এসব বই গ্রহণ করে ছাত্রী-ছাত্রীরা। এ সময় ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা ছাড়াও বিপুল সংখ্যক প্রবাসী উপস্থিত ছিলেন। এসময় সৃষ্টি হয় ভিন্ন এক আমেজ।প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. এ কে আবদুল মোমেন বাংলাদেশের দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, এমন একদিন আসবেছেলে-মেয়েরা আমেরিকায় পড়া-শুনা শেষ করে বাংলাদেশে গিয়ে কাজ করবে। তখন এ বাংলা শিক্ষাটা তাদের বড় কাজে আসবে। তিনি
এসময় কমিউিিনটি ও দেশ সেবায় বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে বাংলাদেশীদের মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

alt
কনসাল জেনারেল শামীম আহসান ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, এ প্রজন্মের সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উৎসাহ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বই বিনামূল্যে বিতরণের এ উদ্যোগ নেয়া হয়। বাংলাদেশী তরুণ প্রজন্মের চিন্তা চেতনায় বাংলা ভাষা সাহিত্য সাংস্কৃতিক বিকাশ সাধনে বাংলা স্কুল নতুন মাত্রা যোগ করেছে। এর মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের বাংলাভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা সহজতর হবে।আলহাজ গিয়াস উদ্দিন এ প্রজন্মের সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উৎসাহ দেয়ার জন্য এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রশংসা করে নিজ পরিবার থেকে সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান।ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সিইও ইকবাল আহমেদ মাহবুব প্রবাসী বাংলাদেশী এ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফ্রি স্কুল বই বিতরণ করার জন্য কনসাল জেনারেল ও বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। তিনি সংশ্লিষ্ট
alt

সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে স্কুলের কার্যক্রম আরো এগিয়ে নিতে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি জানান, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে বিগত ২ বছর যাবত বাঙালী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ফ্রি স্কুল বই বিতরণ করা হচ্ছে। এতে তার স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা দারুণভাবে উপকৃত হচ্ছে।

alt

উৎসবকে সাফল্যমন্ডিত করে তোলার জন্য সংগঠনের সকল সদস্য, শুভানুধ্যায়ী ও সহযোগীদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইকবাল আহমেদ মাহবুব।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বক্তা এ ধরনের উদ্যোগের প্রশংসা করে প্রবাসে জন্ম নেয়া ও বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের শিশু কিশোরদের জন্য এর প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন। ম্যানহাটানে বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য সংস্কৃতিকে ছড়িয়ে দেওয়ার যে প্রয়াস নেয়া হয়েছে তা মাইল ফলক হয়ে থাকবে।

alt

তারা বলেন, প্রবাসে শিশুদের বাংলা শেখানোর কাজ অনেকের কাছে কঠিন মনে হলেও আসলে এটা মোটেও কঠিন নয়। এজন্য অভিভাবকদের উদ্যোগী হতে হবে। ঘরে ঘরে নিজ সন্তানদের সাথে সব সময় বাংলায় কথা বলার চর্চা রাখতে হবে। প্রবাসে নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরা সকল অভিভাবকেরই কর্তব্য বলে বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।


নিউইয়র্কে একই মঞ্চে উপমহাদেশের দুই কিংবদন্তী রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমিন ১৫ই অক্টোবর রবিবার

মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০১৭

Picture

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিঊজ:উপমহাদেশের দুই কিংবদন্তী সংগীত শিল্পী রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমিন এখন নিউইয়র্ক-এ অবস্থান করছেন। ইতিমধ্যে সকলে জেনে গেছেন যে তারা আবারও নিউইয়র্কে একই মঞ্চে গান পরিবেশন করবেন। উত্তর আমেরিকার জনপ্রিয় এন্টারটেইনমেন্ট প্রতিষ্ঠান শোটাইম মিউজিক এই গর্বিত অনুষ্ঠানের আয়োজক। মনোমুগ্ধ এই অনুষ্টানের Grand Sponsosr: People & TechGrand Sponsosr: People & Tech, এবং Powered by: Utshob Courier.খবর বাপসনিঊজ।

alt

এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে প্রবাসিদের  মধ্যে ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ করা গেছে। ইতিমধ্যে ৪০% টিকেট বিক্রয় হয়েছে এবং অবশিষ্ট টিকেট শেষ হবে বলে শোটাইম মিউজিক এর নির্বাহী প্রধান আলমগীর খান  বাপসনিঊজকে জানান। তিনি আরও বলেন রুনা লায়লা এবং সাবিনা ইয়াসমিন-এর কনসার্ট করা সত্যিই কঠিন ব্যাপার। তাদের আন্তরিক সহযোগিতার জন্যই আমরা ২য় বারের মত এ আয়োজন করতে পারছি। কৃতজ্ঞতা জানাই কিংবদন্তী দুই শিল্পীকে।

alt

অনুষ্ঠানটি সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে কিন্তু ডোর ওপেন থাকবে সন্ধ্যা ৬টা থেকেই। দর্শকদের প্রতি অনুরোধ তারা যেন ৬টা থেকে হলে প্রবেশ করেন এবং নির্ধারিত আসন গ্রহন করুন। তাহলেই আমরা ৭টায় অনুষ্ঠান শরু করতে পারবো। সবার জন্য ফ্রি পাকিং এর ব্যবস্থা থাকবে। বিস্তারিত তথ্যের জন্য ৬৪৬-৫৪৬-৬০৩৮ -এ যোগাযোগ করুন। খবর বাপসনিঊজ