Editors

Slideshows

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/455188Hasina__Bangla_BimaN___SaKiL.jpg

দাবি পূরণের আশ্বাস প্রধানমন্ত্

বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নে আলোচনা না করে আন্দোলন করার জন্য পাইলটরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দুঃখ প্রকাশ করে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন। পাইলটদের আন্দোলনের কারণে ফ্লাইটসূচিতে জটিলতা দেখা দেয়ায় যাত্রীদের কাছে দুঃখ See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/701424image_Luseana___sakil___0.jpg

লুইজিয়ানায় আকাশলীনা‘র বাৎসরিক

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ লুইজিয়ানা থেকে ঃ গত ৩০শে অক্টোবর শনিবার সনধ্যায় লুইজিয়ানা স্টেট ইউনিভার্সিটির ইণ্টারন্যাশনাল কালচারাল সেণ্টারে উদযাপিত হলো আকাশলীনা-র বাৎসরিক বাংলা সাহিত্য ও See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/156699hansen_Clac__.jpg

ইতিহাসের নায়ক মিশিগান থেকে বিজ

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ ইতিহাস সৃষ্টিকারী নির্বাচনে ডেমক্র্যাটরা হাউজের আধিপত্য ধরে রাখতে সক্ষম হলো না। সিনেটে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ অক্ষুন্ন রাখতে সক্ষম হলেও আসন হারিয়েছে কয়েকটি। See details

http://bostonbanglanews.com/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/266829B_N_P___NY___SaKil.jpg

বিএনপি চেয়ারপারসনের অফিসে পুলি

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ আলাউদ্দিন রেষ্টুরেন্টের সামনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি তাৎক্ষণিক এক বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। এই See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

মার্কিন নাগরিকের যুক্ত্রাষ্ট্রের বাইরে অবস্থানরত স্বামী বা স্ত্রীর গ্রীনকার্ডলাভের বিস্তারিত বিবরণ - সৈয়দ আফতাব আহমেদ, ব্যারিস্টার-এট-ল

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ এই আর্টিকেল কোনরকম আইনী পরামর্শ নয়। এটি কেবলমাত্র ইউএসসিআইএস এবং ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব স্টেট এর ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত এতদসঙ্ক্রান্ত তথ্যের সন্নিবেশ মাত্র ছোট্ট চারকোণা যে প্লাস্টিক কার্ডটিকে আমরা গ্রীণকার্ড নামে ডাকি, তার কিন্তু একটা গালভরা নাম আছে, আর সেটি হল ‘ফর্ম আই – ৫৫১, পারমানেন্ট রেসিডেন্ট কার্ড’। স্বপ্নের এই গ্রীনকার্ড হল ন্যাচারালাইজেশনের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক হওয়ার প্রথম ধাপ। বেশ কয়েকটি উপায়ে এই গ্রীণ কার্ড পাওয়া যেতে পারে যেমন পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে,চাকুরীর মাধ্যমে, বিনিয়োগের মাধ্যমে,রিফুইজি অথবা এসাইলি স্ট্যাটাস এর মাধ্যমে গ্রীন কার্ড এবং আরও কিছু অন্যান্য মাধ্যমে।কেবলমাত্র পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমেই আট’টি ভিন্ন ক্যাটাগরিতে গ্রীণকার্ড পাওয়া যেতে পারে।

১। আপনি যদি মার্কিন নাগরিকের স্বামী বা স্ত্রী (IR1), ২১ এর কম বয়সী অবিবাহিত সন্তান (IR2) অথবা ২১ এর বেশী বয়সী মার্কিন নাগরিকের বাবা-মা (IR5) হন তবে উক্ত মার্কিন নাগরিকের ইমিডিয়েট রিলেটিভ হিসেবে আপনি গ্রীণকার্ড পেতে পারেন। এসব ক্ষেত্রে ভিসা নম্বর সবসময় তাৎক্ষণিক থাকে।     
২। মার্কিন নাগরিকের ২১ এর বেশী বয়সী অবিবাহিত সন্তান (F1), যেকোন বয়সী বিবাহিত সন্তান (F3) এবং ২১ এর বেশী বয়সী মার্কিন নাগরিকের ভাই-বোন (F4) হন তাহলেও আপনি গ্রীণকার্ড পেতে পারেন। তবে মার্কিন নাগরিকের ইমিডিয়েট রিলেটিভ হিসেবে নয়। এই ক্ষেত্রে প্রতি বছর নির্দিষ্ট সংখ্যক অভিবাসীকে সুযোগ দেওয়া হয় তাই ভিসা নম্বর পেতে অপেক্ষা করতে হয়। বর্তমানে এই অপেক্ষার সময় হল F1 – সাত বছর, F3 – ১২ বছর, F4 – ১৩ বছর।
৩। আপনি যদি বৈধ স্থায়ী অভিবাসী (Lawful Permanent Resident) বা গ্রীণকার্ডধারী’র স্বামী-স্ত্রী অথবা ২১ এর কম বয়সী অবিবাহিত সন্তান্ত (F2A) অথবা ২১ এর বেশী বয়সী অবিবাহিত সন্তান (F2B) হন তবে গ্রীণকার্ডধারী’র পারিবারিক সদস্য হিসেবে আপনিওগ্রীণকার্ড পেতে পারেন। এক্ষেত্রেও যেহেতু প্রতি বছর নির্দিষ্ট সংখ্যক অভিবাসীকে সুযোগ দেওয়া হয় তাই ভিসা নম্বর পেতে অপেক্ষা করতে হয়। বর্তমানে এই অপেক্ষার সময় হল F2A – ২ বছর, F2B – ৬ বছর।
alt
আজ আমরাএই আট ধরনের গ্রীনকার্ড এর মধ্যে মার্কিন নাগরিকের যুক্ত্রাষ্ট্রের বাইরে অবস্থানরত স্বামী/স্ত্রীর গ্রীনকার্ড (IR1) নিয়ে আলোচনা করব। আপনি যদি মার্কিন নাগরিক হন এবং আপনার স্বামী/স্ত্রী যদি যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে থাকে তবে.....

(ক) আপনাকে (i) ফর্ম আই-১৩০, পিটিশন ফর এলিয়েন রিলেটিভ, (ii)স্বামী-স্ত্রী উভয়ের ফর্ম জি-৩২৫এ বায়োগ্রাফিক ইনফরমেশন, (iii)ইউএসডিএইচএস এর বরাবরে ৪২০ ইউএস ডলারের চেক বা মানি অর্ডার, (iv)আপনাদের ম্যারেজ সার্টিফিকেটের কপিএবংআপনাদের মধ্যে কারো যদি কোন পূর্ব বিবাহ থাকেতাহলে তার ডিভোর্স বা ডেথ সার্টিফিকেট, (v) আপনাদের উভয়ের সাদা ব্যাকগ্রাউন্ডের দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি, (vi) আপনার মার্কিন নাগরিকত্বের প্রমান স্বরুপ ন্যাচারালাইজেশন সার্টিফিকেট/সিটিজেনশিপ সার্টিফিকেট/বার্থ সার্টিফিকেট/ আনএক্সপায়ার্ড ইউএস পাসপোর্ট এর কপি এবং এর সাথে বাড়তি এভিডেন্স হিসেবে(vii) যৌথ সম্পত্তি/ব্যাঙ্ক আকাউন্টের কাগজ,(viii) সন্তান্ত থাকলে সন্তানের বার্থ সার্টিফিকেট, (ix) বিয়ের উদ্দেশ্য ও বর্তমান অবস্থা জানেন এমন একজন বা দুজন ব্যক্তি কর্তৃক প্রয়োজনয়ীয় সকল তথ্যসহ এফিডেভিট জমা দিতে হবে। ফর্ম আই-১৩০ এবং ফর্ম জি-৩২৫এ পূরণ করার জন্য উপরে উল্লেখিত কাগজপত্রের বাইরে উভয়ের পিতা মাতার জন্ম তারিখ ও জন্মস্থান, পাঁচ বছরের ঠিকানা ও বসবাসের তারিখ,  পাঁচ বছরের কর্মস্থলের ঠিকানা ও তারিখ, আবেদনকারীর সোসাল সিকিউরিটি নম্বর প্রয়োজন হবে।

(খ) আপনার আবেদন জমা পরার পর প্রথমে প্রাপ্তি স্বীকার ও পরে অনুমোদন আপনাকে আই-৭৯৭সি, নোটিশ অব অ্যাকশনের মাধ্যমে জানানো হবে ও পরবর্তী প্রসেসিং এর জন্য আপনার স্বামী বা স্ত্রীর নিজ দেশের কন্সুলেট অফিসে প্রেরণ করা হবে। এই নোটিশ প্রাপ্তির পর এক বছরের মধ্যে পরবর্তী কার্যক্রম নিম্নোক্ত ছয়টি ধাপে সম্পন্ন করার নির্দেশনা দিয়ে এনভিসি কেইস নম্বর এবং ইনভয়েস আইডি নম্বর উল্লেখ করে আরেকটি চিঠি প্রেরণ করা হবে।
I.    এজেন্ট নিয়োগ: ‘ফর্ম ডিএস-২৬১, চয়েস অব এ্যাড্রেস এ্যান্ড এজেন্ট’পূরণ করে কন্সুলার ইলেক্ট্রনিক এ্যাপ্লিকেশন সেন্টারে জমা দিয়ে আবেদনকারী নিজে তার স্বামী বা স্ত্রীর এজেন্ট হতে পারেন যেন ন্যাশনাল ভিসা সেন্টার থেকে যাবতীয় যোগাযোগ তার সাথেই করা হয়।
II.    আপনাকে যেকোন ইউএস ব্যাঙ্কের চেকিং একাউন্ট নম্বর ও রাউটিং নম্বর উল্লেখ করে ইমিগ্রেশন ভিসা ইনভয়েস পেমেন্ট সেন্টারে দুটো প্রসেসিং ফি দিতে হবে।
ইমিগ্রেশন ভিসা এ্যাপ্লিকেশন প্রসেসিং ফি – ১২০ ইউএস ডলার
এফিডেভিট অব সাপোর্ট ফি – ৩২৫ ইউএস ডলার
III.    ফি পরিশোধের পর ‘ফর্ম ডিএস-২৬০, এ্যাপ্লিকেশন ফর ইমিগ্র্যান্ট ভিসা এন্ড এলিয়েন রেজিস্ট্রেশন’ পূরণ করে কন্সুলার ইলেক্ট্রনিক এ্যাপ্লিকেশন সেন্টারে জমা দিতে হবে। এই ফর্ম পূরনের সময় উপরে উল্লেখিত কাগজপত্রের বাইরে পাসপোর্ট এর বিস্তারিত তথ্য, পিতা-মাতা মৃত হলে মৃত্যুর সাল, আবেদনকারির স্বামী বা স্ত্রীর মাধ্যমিক পরবর্তী সকল শিক্ষা পতিষ্ঠানে পড়াশুনার বিস্তারিত তথ্য প্রয়োজন হবে।
IV.    এই পর্যায়ে আপনাকে ফাইনান্সিয়াল ডকুমেন্টস সংগ্রহ করতে হবে। ‘ফর্ম আই-৮৬৪পি, ২০১৬ এইচএইচএস পোভার্টি গাইডলাইন ফর এফিডেভিট অব সাপোর্ট’ এ উল্লেখিত হাইজহোল্ড সাইজ অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের বেশী বাৎসরিক এভারেজ গ্রস ইনকাম সর্বেশেষ বছরে ট্যাক্স রিটার্ণে ফাইল করেছেন এমন যেকোন একজন ব্যাক্তি – আবেদনকারি নিজে বা অন্য যে কেউ – ‘ফর্ম আই-৮৬৪, এফিডেভিট অব সাপোর্ট’ পুরণ করবেন। মূলত এই কাজটিকেই বলা হয় স্পন্সর করা। যিনি স্পন্সর করবেন তার পূর্ববর্তী তিন বছরের আইআরএস ট্রান্সক্রিপ্ট, পূর্ববর্তী তিন বছরের ফর্ম উব্লিউ-২ বা ফর্ম ১০৯৯ সহ ট্যক্স রিটার্নের সমুদয় কপি,জব লেটার অথবা সমসাময়িক ছয় মাসের পে স্টাব, রিলেশনশিপ লেটার, সিটিজেনশিপ সার্টিফিকেট/ বার্থ সার্টিফিকেট/ আনএক্সপায়ার্ড ইউএস পাসপোর্ট/গ্রীনকার্ড এর কপি এই ফর্ম এর সাথে জমা দিতে হবে। মনে রাখতে হবে স্পন্সরকারী ব্যাক্তি যদি আবেদনকারী ব্যতীত অন্য কেউ হন এবং তার স্পাউস বা অন্য কোন হাউজহোল্ডমেম্বার এর ইনকাম সহ জয়েন্ট ট্যাক্স ফাইল করে থাকেন তবে সেই স্পাউস বা হাউজহোল্ড মেম্বার দ্বারা ‘ফর্ম আই-৮৬৪এ, কন্ট্রাক্ট বিটুইন স্পন্সর এ্যান্ড হাউজহোল্ড মেম্বার’ পূরণ করতে হবে। এই ফর্ম আই-৮৬৪ এবং ফর্ম আই-৮৬৪এ পূরনের সময় উপরে উল্লেখিত কাগজপত্রের বাইরে স্পন্সরকারির ও তার স্পাউসের জন্মস্থান, এখনো গ্রিনকার্ডধারী রয়েছেন এমন কতজনকে ইতিপুর্বে স্পন্সর করেছেন সেই সংখ্যা, সকল সেভিংস ও চেকিং একাউন্টের ব্যালান্স, কোন রিয়েল এস্টেট প্রপার্টি থাকলে মর্টগেজ ঋণ বাদ দিয়ে ওই প্রপার্টির নেট ভ্যালু ও ওই প্রপার্টির লোকেশন, মালিকানা ও একুইজিশন এর কাগজ, ফোন নম্বর ও ইমেইল এ্যাড্রেস প্রয়োজন হবে।
V.    এই পর্যায়ে আপনাকে সিভিল ডকুমেন্টস সংগ্রহ করতে হবে যেগুলো হল আপনাদের দুজনের বার্থ সার্টিফিকেট, আপনাদের ম্যারেজ সার্টিফিকেট এবং আপনাদের মধ্যে কারো যদি কোন পূর্ব বিবাহ থাকে তাহলে তার ডিভোর্স বা ডেথ সার্টিফিকেট, আপনার স্বামী বা স্ত্রী’র পাসপোর্টের বায়োগ্রাফিক ডাটা পেইজের কপি এবং এক বছরের কম পুরোনো পুলিশ সার্টিফিকেট এর কপি।
VI.    সবশেষে সকল সংগ্রহকৃত ফাইনান্সিয়াল ডকুমেন্টস এবংসিভিল ডকুমেন্টস নিউ হ্যাম্পশায়ার এ অবস্থিত ন্যাশনাল ভিসা সেন্টারে পাঠাতে হবে।  

(গ) ভিসা ইন্টারভিউ এর ধার্যকৃত দিনের একমাস আগে আপনাকে এবং যার জন্য আবেদন করেছেন – আপনার স্বামী বা স্ত্রী – তাকে জানানো হবে। ন্যাশনাল ভিসা সেন্টার থেকে সকল কাগজপত্র কন্সুলেট অফিসে পাঠানো হবে। ইন্টারভিউ এর প্রিপারেশন এর অংশ হিসেবে আপনাকে দুটো কাজ করতে হবে।
(১) আগে ফটোকপি জমা দেয়া হয়েছে এমন সকল কাগজপত্রের মূলকপি ইন্টারভিউতে সাথে নেয়ার জন্য জোগাড় করতে হবে;  
(২) ইন্টারভিউ এর কম্পক্ষে দুই সপ্তাহ আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য অনুমোদিত চিকিৎসকের কাছ থেকে এ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে হবে। ডাক্তারী পরীক্ষার সময় সকল আবেদনকারীকের তার পাসপোর্ট ও চার কপি ছবি সঙ্গে নিতে হবে। ১৫ বছরের বেশী বয়সী আবেদনকারীর জন্য ৩৪৫০ টাকা ফি দিতে হবে।

(ঘ) এপয়েন্টমেন্ট লেটার, পাসপোর্ট, দুই কপি রঙিন ছবি, মেডিকেল রিপোর্ট, সকল কাগজপত্রের মূলকপি সহ নির্ধারিত দিনে ইন্টারভিউ দিতে কন্সুলেট অফিসে হাজির হতে হবে।ইন্টারভিউ শেষে ভিসা অফিসার তার ভিসা দেবার বা না দেবার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন। এরপর আপনাকে অনলাইনে একটি প্রোফাইল তৈরী করতে হবে। প্রোফাইল তৈরীর সময় যে পিকাপ লোকেশন পছন্দ করা হয়েছে সেখান থেকে পাসপোর্ট ও অন্যান্য কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে। ভিসা স্টিকার পাসপোর্টে লাগিয়ে দেয়া ছাড়াও একটি ইমিগ্রেশন প্যাকেট দেয়া হবে যা মুখ বন্ধ অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বন্দরে ইমিগ্রেশন এর সময় জমা দিতে হবে। ভিসা প্রদানের পরবর্তী ছয় মাসের মধ্যে যুক্ত্রাষ্ট্রে প্রবেশ করতে হবে। এরপর ইউএসসিআইএস ইমিগ্র্যন্ট ফি - যা গ্রীনকার্ড ফি নামেও পরিচিত – ৩৬৫ ইউএস ডলার জমা দিতে হবে। এই ফি পরিশোধ করা না হলে গ্রীনকার্ড দেয়া হবে না। গ্রীনকার্ড ইস্যু করার তারিখে যদি বিয়ের বয়স দুই বছরের কম হয় তবে পরবর্তী দুই বছরের জন্য কন্ডিশনাল গ্রীনকার্ড দেয়া হবে। সেই কন্ডিশন রিমুভ করার জন্য গ্রীনকার্ড এর মেয়াদ শেষ হওয়ার পুর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ৫৯০ ইউএস ডলার ফি সহ ‘ফর্ম আই-৭৫১, পারমিট টু রিমুভ দ্য কন্ডিশন্স অব রেসিডেন্স’ পূরণ করে এর সাথে সন্তান থাকলে সন্তানের বার্থ সার্টিফিকেট, বাড়ি ভাড়ার লিজ এ্যাগ্রিমেন্ট যেখানে স্বামী-স্ত্রী দুজনের নাম রয়েছে, যৌথ সেভিংস এবং চেকিং একাউন্ট, যৌথ ট্যাক্স রিটার্ণ, জয়েন্ট ইউটিলিটি বিল এবং কন্ডিশনাল গ্রীণকার্ড পাওয়ার সময় থেকে আপনাদের বৈবাহিক সম্পর্কের বিষয়ে আবগত আছেন এমন দুজন ব্যক্তির এফিডেভিট জমা দিতে হবে।


সৈয়দ আফতাব আহমেদ, ব্যারিস্টার-এট-ল
সেলঃ (৯২৯) ৩৯১৬০৪৭; ইমেইলঃ এই ইমেইল ঠিকানা স্পামবট থেকে রক্ষা করা হচ্ছে।এটি দেখতে হলে আপনাকে JavaScript সক্রিয় করতে হবে।


জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে মাইন অপসারণ বিষয়ে আলোচনা

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,মো:নাসির,ওসমান গনি,সুহাস বডুয়া, হেলাল মাহমুদ,আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ: নিউইয়র্ক, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ :“বাংলাদেশ মনে করে কর্মক্ষেত্রে শান্তিরক্ষীদের যে সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয় তা সমাধানের জন্য জাতিসংঘের সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সংলাপ আরও বৃদ্ধি করতে হবে এবং এ সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার সম্ভাব্য উপায় খুঁজে বের করতে হবে”- জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে জটিলতর পরিবেশে মাইন অপারেশন অ্যাকশান (গরহব ধপঃরড়হ রহ পড়সঢ়ষবী টঘ ঢ়বধপবশববঢ়রহম ড়ঢ়বৎধঃরড়হং) সংক্রান্ত এক সাইড ইভেন্টে এ কথা বলেছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। সাইড ইভেন্টটি ইউএন মাইন অ্যাকশান সার্ভিস (টঘ গরহব অপঃরড়হ ঝবৎারপব)(টঘগঅঝ) এর সহযোগিতায় যৌথভাবে আয়োজন করে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ, ইথিওপিয়া ও যুক্তরাজ্য মিশন।
 উদ্বোধনী বক্তৃতায় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি আরও বলেন, “তাৎক্ষণিক উদ্ভাবিত বিস্ফোরক (ওসঢ়ৎড়ারংবফ ঊীঢ়ষড়ংরাব উবারপবং) (ওঊউং) এর হুমকি মোকাবেলায় স্থানীয় জনগণের অংশগ্রহণ, প্রশিক্ষণ ও এ সংক্রান্ত সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং প্রযুক্তি ব্যবহারকল্পে বিনিয়োগ আরও বাড়ানো প্রয়োজন”।

Picture
জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনকে লক্ষ্য করে ইম্প্রোভাইজড্ এক্সক্লোসিভ ডিভাইসেস্্ এর উপর্যুপরি ব্যবহারের বিষয়ে সাইড ইভেন্টে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় এবং আইইডি (ওঊউং) ও ল্যান্ড মাইনে নিহত শান্তিরক্ষীদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
 এই ইভেন্টে আইইডি (ওঊউং) সংক্রান্ত হুমকি মোকাবিলা, মাইন অ্যাকশান ব্যবস্থাপনা এবং সমরাস্ত্র মজুত ও এর ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ইউএন মাইন অ্যাকশান সার্ভিসে যে সকল সুবিধা রয়েছে তা উল্লেখ করা হয়। শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকটি দেশ মাইন অপসারণ, মাইন নিষ্কৃয়করণ,  আইইডি(ওঊউং) চিহ্নিতকরণ এবং এর অপসারণের ক্ষেত্রে তাঁদের অর্জিত অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন।
 এই সাইড ইভেন্টে প্যানেল আলোচনার সঞ্চালক ছিলেন ইউএন মাইন অ্যাকশান সার্ভিস এর পরিচালক মিজ এগনেস মারকাইয়ু (অমহবং গধৎপধরষষড়ঁ)। এছাড়া প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের স্থায়ী মিশনের সামরিক উপদেষ্টাবৃন্দ। যৌথ আয়োজক হিসেবে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইথিওপিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি তেকেদা এলিমু (ঞবশবফধ অষবসঁ) ও এ সভায় বক্তব্য দেন।   
   
Hakikul Islam Khokan,Md.Nasir,Osman Gani,Suhas Barua,Helal Mahmud,Aysha Akter Ruby,Bapsnews:New York, 15 February 2017:“There is need for enhanced investment in community engagement, training and capacity building, and use of enabling technologies to address the threats posed by improvised explosive devices (IEDs) to peacekeepers and civilians,” said Masud Bin Momen, Ambassador and Permanent Representative of Bangladesh at a side-event on the mine action in complex UN peacekeeping operations at the UN headquarters here today.

alt
The side-event was jointly organised by the Permanent Missions of Bangladesh, Ethiopia and the United Kingdom in collaboration with UN Mine Action Service (UNMAS).
In his opening remarks, Ambassador Bin Momen said Bangladesh wished to broaden the dialogue on the operational challenges faced by peacekeepers on the ground. He stressed the need for exploring the possibilities for addressing those challenges by better utilizing the existing resources available with the UN and its Member States.
The side-event expressed concerns at the frequent use of IEDs targeting UN peacekeeping missions and observed one-minute silence in memory of the peacekeepers killed due to IEDs and landmines.
The event also highlighted the tools available with UNMAS to mitigate IED threats, conduct mine action, and facilitate armoury and stockpile management. A number of troop contributing countries shared their experience in mine clearance and demining as well as IED detection and disposal in peacekeeping mission settings.
The side-event featured a panel discussion moderated by Ms. Agnès Marcaillou, Director, UNMAS and with the Military Advisers of Bangladesh, UK and France participating as panellists. Ambassador Tekeda Alemu, Permanent Representative of Ethiopia also spoke on behalf of the co-hosts. 


জর্জিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : জর্জিয়া থেকে :২১শে ফেব্রুয়ারী , ১৯৫২ সাল আমাদের হৃদয়ে চিরকালের জন্য ঠাই পেয়ে গেছে । আমাদের ভাষা বাংলাকে আমরা নিজের করে পেয়েছি । আমরা একটি দেশ পেলাম যার নাম বাংলাদেশ । আরাও একটি দিবস পেলাম যাকে সারা বিশ্ব স্বীকৃতি দিল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ।

alt

জাতি হিসাবে আমরা গর্বিত, ভাষার জন্য আমরা যুদ্ধ করেছি। আসুন আমরা সবাই আমাদের অমূল্য ভাষাকে শ্রদ্ধা করি । এবং শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি তাদের যারা আমাদের এই ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছেন,আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভূলিতে পারি..................না আমরা ভূলতে পারিনি, তাইতো  দেশের মাটি থেকে বহু দুরে থেকেও বাংলার ঐতিহাসিক অমর একুশে ফেব্রুয়ারীকে স্ব গৌরবে উদযাপন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে জর্জিয়ার প্রবাসী বাঙ্গালীরা। ।

Picture

বাংলাদেশ সমিতির উদ্দ্যেগে আগামী ২০শে ফেব্রুয়ারী , সোমবার রাত ১০টা থেকে প্রথম প্রহর পযন্তু আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হবে উক্ত একুশের অনুষ্ঠানে জর্জিয়ার সকল প্রবাসী বাঙ্গালীদের সবাইকে সপরিবারে অংশগ্রহণ করার জন্য আহ্বান জানানো হচ্ছে ।
আসুন ২০ শে ফেব্রুয়ারী রাতে মিলিত আটলান্টার বার্কমার হাই স্কুল মিলনায়তনে, দেখা হবে একুশে, কথা হবে মিছিলে। আমরা থাকছি, আপনি আসছেন তো?

আমন্ত্রনে

মো: আলী হোসেন , সভাপতি - জর্জিয়া আওয়ামী লীগ।
মাহমুদ রহমান , সাধারন সম্পাদক - জর্জিয়া আওয়ামী লীগ 


ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকাণ্ডে অতিষ্ঠ হয়ে ড. নীনাসহ ১৬ উপদেষ্টার পদত্যাগ

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে : প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এশিয়ান-আমেরিকান ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ বিষয়ক উপদেষ্টা কমিশনের আরও ১০ সদস্য পদত্যাগ করেছেন। মূলত অভিবাসন, শরণার্থী ও সাত মুসলিম দেশের নাগরিকের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাসহ ট্রাম্পের নেয়া বেশ কয়েকটি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতেই এই সিদ্ধান্ত নেন তারা।  

পদত্যাগের বিষয়টি বৃহস্পতিবার এক চিঠিতে ট্রাম্পকে অবহিত করেছেন তারা। গত ২০ জানুয়ারিতে ট্রাম্পের শপথের দিনেই কমিশনের অন্যতম উপদেষ্টা বাংলাদেশি-আমেরিকান ড. নীনা আহমেদসহ ৬ জন পদত্যাগ করেন। অবশিষ্ট চার উপদেষ্টা এখনো পদত্যাগ করেননি।  

ড. নীনা আহমেদ পদত্যাগের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে বলেন, নির্বাচনী প্রচার-সমাবেশ ও টিভি বিতর্কে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিবাসন বিরোধী এবং মুসলিম বিদ্বেষী বক্তব্য আমাকে বিস্ময়ে হতবাক করে দিয়েছিল। তার প্রতিটি বক্তব্য ছিল যুক্তরাষ্ট্রের নীতি, আদর্শ আর মূল্যবোধের পরিপন্থি। এজন্য ট্রাম্পের শপথ গ্রহণের দিনই আমরা ওই সিদ্ধান্ত নিই।ড. নীনা অপর ১০ জনকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বিলম্বে হলেও তাদের বোধোদয় ঘটেছে। তারাও সরে এসেছেন ট্রাম্পের গণবিরোধী-অভিবাসন বিরোধী পদক্ষেপে ক্ষুব্ধ হয়ে।

Picture

পদত্যাগকারীদের মধ্যে কমিশনের প্রধান টাং টি নিগুয়েন এবং ভাইস চেয়ার মেরি ওকাডাও রয়েছেন। অপর কমিশনাররা হলেন মাইকেল বাইয়ুম, ক্যাথি কো চিন, জ্যাকব ফিটিসীমানো জুনিয়র, দাফনী কাউক, ডি জে মেইলার, মলিক পাঞ্চলী, লিন্ডা ফ্যান, সঞ্জিতা প্রধান। এই উপদেষ্টার সকলেই প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কর্তৃক নিযুক্ত হয়েছিলেন।

পদত্যাগ পত্রে তারা লিখেন, অভিবাসী, শরণার্থী ও সাত মুসলিম দেশের নাগরিকের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে প্রেসিডেন্টের নিষেধাজ্ঞার আদেশ এবং ওবামা কেয়ার বাতিলে ট্রাম্প প্রশাসনের দৃঢ় মনোভাব পুরোপুরি কমিশনের নিয়মনীতির বিরুদ্ধে।
 
ট্রাম্পকে লেখা ওই পত্রে আরও বলা হয়, আপনার (ট্রাম্প) প্রশাসনের প্রত্যেক সদস্যকে আমেরিকান নাগরিকদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে এবং নাগরিক অধিকার রক্ষা ও যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত সবার কাছে কেন্দ্রীয় সরকারে যাওয়ার সুযোগ অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

কমিশনের সদস্যরা বলেছেন, গত মাসের ১৩ তারিখে এশিয়ান-আমেরিকান ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জের সম্প্রদায়সমূহের ইস্যুটি নিয়ে আলোচনার জন্য প্রেসিডেন্টকে একটি পৃথক চিঠি পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু এর কোন জবাব পাওয়া যায়নি।

১৯৯৯ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের আমলে গঠিত হয় এই কমিশন। এর পর প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ ও বারাক ওবামার আমলে তা পুনর্গঠিত হয়। এ্ই কমিশনে ড. নীনা আহমেদ ছিলেন ওবামা প্রশাসনে সর্বোচ্চ পদমর্যাদার বাংলাদেশি-আমেরিকান। এ পদে অধিষ্ঠিত থাকাবস্থায় ড. নীনাকে ফিলাডেলফিয়া সিটির ডেপুটি মেয়র নিযুক্ত করা হয়।


অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা কামনা

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে : গত ১৩ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন ওয়াশিংটন ডিসির কংগ্রেসম্যান টেড এস লিউ’র সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। সৌজন্য সাক্ষাতে দু’দেশের অর্থনীতিক সম্পর্ক উন্নয়ন ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে।ফ্লোরিডার রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান টেড লিউ মার্কিন ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটির সদস্য এবং এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের উপ-কমিটির চেয়ারম্যান।সাক্ষাতে রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন ইউএস কংগ্রেসম্যান টেড লিউকে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের উপ-কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করার অভিবাদন জানান।

Picture
 
এসময় রাষ্ট্রদূত আমেরিকার বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের জন্য ডিউটি ফ্রি-কোটা ফ্রি সুবিধার আহবান জানিয়ে এসব বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। যেখানে বর্তমানে মার্কিন বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের অবস্থান, সুবিধা ও সমস্যার কথা জানানো হয়েছে।জিয়াউদ্দিন সংক্ষেপে কংগ্রেসম্যান লিউয়ের কাছে দেশের নারী ক্ষমতায়ন, সামাজিক উন্নয়নের অবদান, সন্ত্রাসবাদ ও শিশুশ্রম নিরসনে বর্তমান দৃশ্য তুলে ধরেন। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সরকার প্রধান শেখ হাসিনার কঠোর অবস্থান এবং জিরো টলারেন্সের কথাও জানান রাষ্ট্রদূত।
 
এসময় টেউ লিউ ধন্যবাদ জানান। বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন দূতাবাস মন্ত্রী(রাজনীতি) তৌফিক হাসান, ইউএস কংগ্রেসের ফরেন অ্যাফেয়ার্সের এশিয়া নীতি বিশ্লেষক হান্টার এম স্টুপ প্রমূখ।


জাতিসংঘে বক্তব্য রাখলেন এমপি কমল

শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : জাতিসংঘে বক্তব্য রেখেছেন কক্সবাজার- ৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল। মঙ্গলবার (১৪ ফেব্র“য়ারি) Parliamentary Hearing at the United Nations এ জাতিসংঘের দুই দিনব্যাপী শুনানিতে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে বক্তব্য রাখেন তিনি।স্ব স্ব দেশের সমুদ্র সংরক্ষণ, জীববৈচিত্র রক্ষা, সামুদ্রিক সম্পদ রক্ষা, সমুদ্র দূষণ রক্ষা ও পরিবেশ বিপর্যয় বিষয়ে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের এ শুনানিতে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বিষয়গুলো নিয়ে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানান।

alt
তিনি বলেন, সমুদ্রে কোন সীমানা প্রাচীর না থাকায় পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকেই সমুদ্র সম্পদ দূষিত হতে পারে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারনে বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তনের হার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশ সব সময় প্যারিস এগ্রিমেন্ট, মারাক্কাশ এগ্রিমেন্টের পথ অনুসরণ করবে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারনে বাংলাদেশ ইতিমধ্যে ৪শ মিলিয়ন ডলার নিজস্ব অর্থায়নে তহবিল গঠন করেছে। তিনি সবাইকে বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের পক্ষে শুভেচ্ছা জানান।

এ সময় জাতিসংঘের উপদেষ্টা উক্ত অনুষ্ঠানের মেডিয়েটর ভূয়সী প্রশংসা করেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অংশ নেওয়া উপস্থিত সংসদ সদস্যরা করতালি দিয়ে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপিকে স্বাগত জানান।

তাঁর বক্তব্যের পর পরই ইয়ার কোয়ালিটি এশিয়ার সভাপতি সাজিয়াজেট রাফি অগামী মে মাসে অনুষ্ঠিতব্য ওয়াশিংটনের আর্ন্তজাতিক সম্মেলনে বক্তব্য দেয়ার জন্য সাইমুম সরওয়ার কমল এমপিকে আমন্ত্রণ জানান।

জাতিসংঘের শুনানিতে বাংলাদেশের বক্তব্য চলাকালীন বাংলাদেশের পক্ষে ড. আব্দুল রাজ্জাক এমপি, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক ও জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মুমিন উপস্থিত ছিলেন।


প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্তকে নিষ্পাপ কলংকমুক্ত করুন: মেরিল্যান্ড স্টেট আওয়ামী লীগের শোক সভায় নেতৃবৃন্দ

বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,ওসমান গনি,সুহাস বডুয়া,হেলাল মাহমুদ, বাপসনিঊজ :মেরিল্যান্ড: প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্তকে নিষ্পাপ কলংকমুক্ত করুন। তার মাথার উপর যে কলংকের দাগ নিয়ে তিনি চীর বিদায় নিয়েছেন তার সেই কলংক আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মুক্ত করে তার বিদেহী আতœাকে শান্তি দিন। ১২ ফেব্রুয়ারি রবিবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড রাজ্যে বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত গুপ্তের স্মরণে মেরিল্যান্ড ষ্টেট আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক শোক সভায় বক্তারা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের নিকট উপরোক্ত দাবী জানান।সদ্য প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের স্মরণে আয়োজিত এই শোক সভায় সভাপতিত্ব করেন মেরিল্যান্ড ষ্টেট আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ সেলিম এবং সভা পরিচালনা করেন সাধারন সম্পাদক মইনুল হাসান মজুমদার তাপস।

Picture

সভায় বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞানী ড. আশরাফ উদ্দীন আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাধারন সম্পাদক শামীম চৌধুরী, মেরিল্যান্ড ষ্টেট আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি ড. বিশ^জিত রায়, সাধক চক্রবর্তী, মিতা চক্রবর্তী, সাহেল আহমেদ, মেট্র ওয়াশিংটন আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি সাদেক খান, সহ সভাপতি শিব্বীর আহমেদ, নুরুল আমিন, যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, বৃহত্তর ওয়াশিংটন আওয়ামী যুবলীগ সভাপতি আরশাদ আলী বিজয়, সাধারন সম্পাদক জাহিদ হোসেন, ভার্জিনিয়া ষ্টেট আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনোয়ারুল আজিম, সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান খান, মেট্র ওয়াশিংটন আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সভাপতি আলাউদ্দীন আহমেদ, সাইফুল ইসলাম অমর প্রমুখ।

alt

সভায় বক্তারা বলেন, সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত শুধু শুধু একটি নাম নয় একটি ইতিহাস, একটি জীবন্ত কিংবদন্তীর নাম। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের সাধনায় তিনি হয়ে উঠেছিলেন সততা সাম্য উদার মানবিক ও গণতান্ত্রিক রাজনীতির প্রাণপুরুষ। সম্প্রীতির রাজনীতির মডেল মানুষ হিসেবে বাংলার আপামর জনসাধারনকে অন্যায় অত্যাচার, বঞ্চনা বৈষম্য ও শোসন নির্যাতনের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করতে সক্ষম হয়েছেন। বিশ্ব রাজনীতিতে দখল করে নিয়েছেন মর্যাদার আসন।বক্তারা বলেন, একজন দেশপ্রেমিক মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত আজীবন বাংলার জনগনের হৃদয়ের মনিকোটায় অমর হয়ে থাকবেন। কিন্তু তার জীবদ্দসায় তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে তাকে ফাঁসানো হয়েছে। অর্থ আতœসাতের কলংক তীলক তার কপালে এঁকে দেয়া হয়েছে যা তিনি মাথায় করে চীর বিদায় নিয়েছেন।

alt

শোক সভায় বক্তারা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের নিকট অনতিবিলম্বে আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের কলংক মোচন করে তার বিদেহী আতœার শান্তি প্রদানের জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের নিকট জোর দাবী জানান।


ব্রন্সে ২১শে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরি : বাংলাদেশ একাডেমি অফ ফাইন আর্টস (বাফা)

বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

প্রভাত ফেরি শেষে, ২০৯৯ স্টারলিং/বাংলাবাজার এভিনিউতে অবস্হিত এশিয়ান ড্রাইভিং স্কুলের দেয়ালে অংকিত শহীদ মিনারের সামনে নির্মিত বেদীতে পুস্পস্তবক অর্পন করা হবে।সর্বসাধারনের কাছ থেকে সহযোগিতা কামনা করছে। বিশেষ করে বাবা-মা রা তাদের সন্তানদের নিয়ে এই প্রভাত ফেরিতে অংশ নিবেন এবং নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশ এর ইতিহাস জানাতে মুখ্য ভূমিকা রাখবেন, নিজেরাও গর্বিত হবেন। প্রভাত ফেরিতে অংশ নিতে উপস্থিত হবার স্থান ( optimum tutorials) 1454 Olmstead Ave, Bronx, NY 10462 , সময় সকাল ৮ ঘটিকা।প্রভাত ফেরি শেষে, ২০৯৯ স্টারলিং/বাংলাবাজার এভিনিউতে অবস্হিত এশিয়ান ড্রাইভিং স্কুলের দেয়ালে অংকিত শহীদ মিনারের সামনে নির্মিত বেদীতে পুস্পস্তবক অর্পন করা হবে।বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন|বাফা কর্তৃপক্ষ ৩৪৭ ৩৮৭ ৭৮৯৭, ৩৪৭ ৩৮৭ ৭৯১১ , ৬৪৬-৬৮৩-৭৯৪২ , ৬৪৬ ২৭০ ৪৯৯৫, ৩৪৭ ৪৮৪ ৭০৯৬ ।

Picture

21th phēbruẏārira bransē prabhat feri: Bangladesh Academy of fine arts (Bāphā).

Hakikul Islam Khokan,Osman Gani,Suhas Barua,helal Mahmud,Aysha Akter ruby:Bapsnews : New York City this branaksē for the first time, on 21th February, 2017, Tuesday morning phērira organised going to Bangladesh Academy of fine arts (Bāphā). This event coming forward kamuniṭira other social and cultural organisations | Buffer students and parents for organising this special center of encouragement and spirit going to work with | Buffer organised by being present for bāphā community's special person square and other all organisation, Activity Kamuniṭi West and public of cooperation from wish. Especially the parents with their children this morning ferry part of it, and to the new generation of Bangladesh in the history of chief role, keep well be proud . Morning Ferry to take part in this place (video) 1454 Optimum Olmstead Ave, Bronx, NY 10462, time 8 am in the morning.
Morning Ferry, at the end of the 2099 Sterling / Bengali Market Avenue Abas'hita Asian driving school wall ankit shaheed minārēra bēdītē puspastabaka


যুক্তরাষ্ট্রে বিমান দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি তরুণী নিহত

বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : যুক্তরাষ্ট্রে হওয়া এক বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেছে বাংলাদেশ এক তরুণী। প্রাথমিকভাবে তরুণের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া না গেলেও এভিয়েশন ট্রেনিং সেন্টারে থাকা বাংলাদেশি এই তরুণীর পরিচয় নিশ্চিত করেছে তা সঙ্গীরা। দেশাই সুভম নামে তার সঙ্গে এই প্রশিক্ষণ ক্লাসে অংশ নেয়া এক ছাত্র জানায়, দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেছেন শায়রা নূর (২১)।
 Picture
তিনি আরো বলেন, শায়রা নূরের বাবা একজন পাইলট। সে তার বাবার মতই প্রফেশনাল পাইলট হতে চেয়েছিল। সুভম জানায়, শেষবার যখন কথা হয় তখন জানিয়েছিল, নিজের দেশ ও পরিবারের কথা অনেক মনে পড়ছে।এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ সময় সোমবার এক বিমান দুর্ঘটনায় এক নারীর মৃত্যুর কথা জানায় দেশটির বার্তা সংস্থা।

alt

জানা যায়, বিমানটির ইঞ্জিন বন্ধ ছিল এবং সেটি মাটিতে আছড়ে পড়ার আগে একটি গাছের ডাল সরাসরি শায়রা নূরকে আঘাত করে। ফলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তার সঙ্গে থাকা অপর দুই প্রশিক্ষক এই সময় বিমানটি থেকে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয়। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। এবিসি ১০।


কিশোরগঞ্জ ডিস্ট্রিক্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সভা ২৬ ফেব্রুয়ারী

বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

বাপ্ নিউজ : কিশোরগঞ্জ ডিস্ট্রিক্ট এসোসিয়েশন ইউএসএ ইনকের সাধারণ সভা ও কার্যকরী কমিটির বৈঠক আগামি ২৬ ফেব্রুয়ারী রবিবার সন্ধ্যা ৭ টা অনুষ্ঠিত হবে জ্যাকসন হাইটসের ইত্যাদি পার্টি হলে। সভায় সদস্য সংগ্রহ, নির্বাচন কমিশন গঠন ছাড়াও দেশ ও প্রবাসে কিশোরগঞ্জবাসীর কল্যাণে সংগঠনকে গতিশীল করার লক্ষে সাধারণ সদস্যদের মতামত ও পরিকল্পনা গ্রহন করা হবে। সভায় সংগঠনের সকল সদস্যদেরকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য আহবান জানিয়েছেন সভাপতি মফিজুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো: আইনুল ইসলাম (ফোন:৬৪৬-৫০৬-৮০৯৯), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন ও আলী আহসান আকন্দ (শামীম)।


জাতিসংঘের ইন্টার পার্লামেন্টারির শুনানিতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ

মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,মো:নাসির,ওসমান গনি,সুহাস বডুয়া, হেলাল মাহমুদ,আয়েশ আক্তার রুবি,বাপসনিঊজ: গত নিউইয়র্ক, ১৩ ফেব্রুয়ারি “নীল পৃথিবী : এজেন্ডা ২০৩০ এর প্রেক্ষিতে মানব কল্যাণ নিশ্চিত করতে সমুদ্র সংরক্ষণ ও ধরিত্রী সুরক্ষা (অ ডড়ৎষফ ড়ভ ইষঁব: চৎবংবৎারহম ঃযব ঙপবধহং, ঝধভবমঁধৎফরহম ঃযব চষধহবঃ, ঊহংঁৎরহম ঐঁসধহ ডবষষ-নবরহম রহ ঃযব ঈড়হঃবীঃ ড়ভ ঃযব ২০৩০ অমবহফধ)” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে আজ জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ইন্টার-পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন এবং জাতিসংঘের যৌথ উদ্যোগে শুরু হয়েছে দু’দিন ব্যাপী আইপিইউ পার্লামেন্টারি হিয়ারিং।
এবার আইপিইউ’র বার্ষিক এই হিয়ারিং- এ প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে সাগর, মহাসাগর ও সমুদ্র সম্পদের সংরক্ষণ ও টেকসই ব্যবহারের বিষয়গুলোকে। পাশাপাশি এ লক্ষ্য অর্জনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পরিবেশগত ব্যাপক পদক্ষেপ নেওয়ার উপরও এই হিয়ারিং বিশেষভাবে প্রাধান্য দিয়েছে। উল্লেখ্য, এই হিয়ারিং এ বছর জুন মাসে নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিতব্য উচ্চ পর্যায়ের সম্মেলনকে ফলপ্রসূ করতে ভূমিকা রাখবে।
বিশ্বের ৫৫টি দেশের ১৭৯ জন সংসদ সদস্যসহ ১০টি আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং ১৯টি এনজিও’র প্রতিনিধিগণ এই পার্লামেন্টারি হেয়ারিং এ যোগ দিয়েছেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইপিইউ’র প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভাপতি পিটার থমসন এবং জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল য়ু হংবো (ডঁ ঐড়হমনড়) ভাষণ দেন।

alt
অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক এমপি’র নেতৃত্বে বাংলাদেশের তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল এই হিয়ারিং এ যোগ দেন। বাংলাদেশ ডেলিগেশনের অন্য দু’জন সদস্য হলেন- কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সারোয়ার কামাল ও কক্সবাজার-২ আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক।
বাংলাদেশ ডেলিগেশনের প্রধান ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেন, “এজেন্ডা ২০৩০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সমুদ্রের সকল সম্ভাবনাকে উন্মোচন করতে জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রসমূহের সম্মিলিত প্রয়াস তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে”।  
বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ নাগরিকদের জন্য পরিবেশ, প্রকৃতিক সম্পদ, জীব-বৈচিত্র, জলাভূমি, বন এবং বন্যপ্রাণির সুরক্ষা, উন্নয়ন ও সংরক্ষণে আমাদের সাংবিধানিক বাধ্য-বাধকতার কথা উল্লেখ করে এমপি ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, “দীর্ঘ মেয়াদি উন্নয়ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার রূপকল্প- ২০২১ এ নির্দিষ্টভাবে উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ সন্নিবেশিত করেছে। এটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার আর্থ-সামাজিক ও পরিবেশগত ক্ষেত্রে ব্যাপক রূপান্তরের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে যা বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে সাহায্য করবে”।  
আইপিইউ’র প্রেসিডেন্ট সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি, তাঁর বক্তব্যে সমুদ্রের দূষণ, মানুষ ও পরিবেশের সাথে সমুদ্রের আন্ত:সম্পর্ক, সমুদ্র সম্পদ এবং সমুদ্রের সাথে সম্পর্কিত সকল অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের তাৎপর্য তুলে ধরেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ নি¤œ অববাহিকার দেশ, যেখানে জলবায়ু পরিবর্তন জনিত কারণে সমুদ্রের উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে সমগ্র অঞ্চল পানিতে তলিয়ে যাওয়ার ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে”। সমুদ্রের সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো অনুধাবন, অনুশীলন ও সম্মিলিতভাবে সমাধান করতে এই পার্লামেন্টারি হিয়ারিং সংসদ সদস্যদের জন্য একটি ভালো সুযোগ এনে দিয়েছে বলে আইপিইউ এর প্রেসিডেন্ট তাঁর ভাষণে উল্লেখ করেন।
 দু’দিন ব্যাপী আইপিইউ’র এই বার্ষিক হিয়ারিং আগামীকাল শেষ হবে।  


 Three MP’s of Bangladesh participated at two day long IPU Parliamentary Hearing at UN
 
Bapsnews:New York, 13 February A two day long IPU Parliamentary Hearing entitled “A World of Blue: Preserving the Oceans, Safeguarding the Planet, Ensuring Human Well-being in the Context of the 2030 Agenda” has begun here today at the UN headquarters. The event has been co-organized by the Inter-Parliamentary Union (IPU) and the United Nations.
This Annual Parliamentary Hearing is devoted to oceans, seas and marine resources and its conservation and sustainable use, as well as the vast ramifications for economic social and environmental policies both national and globally. Noted that, this Hearing has been termed as ‘kick-off’for the high level conference on oceans to be held in June 2017 in New York.  
Attended by 179 Members of Parliaments from 55 countries, 19 NGOs, 10 International Organizations, the inaugural session of the Parliamentary Hearing was addressed by IPU President Saber Hossain Chowdhury, President of the UN General Assembly Peter Thomson and Under Secretary General of the United Nations Wu Hongbo.
A three-member parliamentary delegation from Bangladesh led by Dr. Muhammad Abdur Razzaque, MP and Chairman of the Parliamentary Standing Committee for Finance attended the Hearing. The other two members are Shaimum Sarwar Kamal MP and Asheq Ullah Rafiq MP were also present at the inaugural session.
The leader of Bangladesh Delegation Dr. Muhammad Abdur Razzaque, MP in his intervention of the Hearing, said, “A collective approach of all the Member States of the United Nations can play a pivotal role to explore the potentials of the oceans in the context of Agenda 2030”.
Mentioning our constitutional obligation for protecting, improving and preserving the environment, natural resources, biodiversity, wetlands, forest and wildlife for the present and future citizens, the MP said “In recognition of the long-term development challenge, the government of Bangladesh under Prime Minister Sheikh Hasina has set development targets in its "Vision 2021" which are aimed at achieving a transformation in the socio-economic and environmental areas that will help Bangladesh to graduate to a middle income country by 2021”.
alt
 The IPU President Saber Hossain Chowdhury mentioned the importance of ocean health, it’s interconnectivity with the people and environment, marine resources and entire economy related with the oceans. In this context he said. “Bangladesh- a low-lying country where entire regions are at risk of disappearing under water as climate change causes sea level to rise”. The IPU president also said that the Hearing provide golden opportunity for parliamentarians to understand the many issues that affect the oceans and share concerns and best practice.
 This long IPU Parliamentary Hearing will be ended tomorrow.
#